বাংলার জন্য ক্লিক করুন
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|

  
Share Button
   উপসম্পাদকীয়
রোহিঙ্গাদের ত্রাণ ও পূনর্বাসনে দেশপ্রেমিক সেনাবাহিনী
  তারিখ: 21 - 10 - 2017

২৫ আগস্টের পর মিয়ানমারের রাখাইন রাজ্য থেকে ঘর বাড়ী জ্বালিয়ে পুড়িয়ে জোর করে উচ্ছেদ, হত্যা, অবর্ণনীয় নির্যাতন করে বাংলাদেশে তাড়িয়ে দেয়া ৫ লাখের বেশী রোহিঙ্গাসহ পূর্বের আশ্রিত ৪ লাখ রোহিঙ্গা সমেত আশ্রিত রোহিঙ্গার সংখ্যা প্রায় সাড়ে নয় লাখের ওপরে। তারপরও রাখাইন সহ অন্যান্য এলাকার প্রচুর রোহিঙ্গা উচ্ছেদ হয়ে এখনো প্রতিদিন বাংলাদেশে আশ্রিত হচ্ছে।

ইতোমধ্যে রাশিয়া, চীন ও ভারত মিয়ানমারের পক্ষ অবলম্বন করলেও, দুনিয়ার বিভিন্ন দেশসহ চীন ও ভারত থেকেও রোহিঙ্গাদের জন্য কম বেশী ত্রাণ সাহায্য আসছে। অনেকেই এটাকে চীন ও ভারতের দ্বৈত কুটনৈতিক চরিত্রের বহিঃপ্রকাশ বলে মনে করে থাকে। এরই মধ্যে তুরস্ক, মালয়েশিয়া, ইরান, ইন্দোনেশিয়াসহ বেশ কয়েকটি মুসলীম দেশ তাদের জন্য ত্রাণ ও পূনর্বাসনের জন্য গৃহায়ন সামগ্রী প্রেরণসহ তুরস্কের প্রেসিডেন্ট এরদোগানের নির্দেশে তুরস্কের একটি গৃহনির্মাণ প্রকৌশলী দলও এসেছে।

কথায় আছে যেখানেই ত্রাণ বা রিলিফ সেখানেই অনিয়ম, যেখানেই গম সেখানেই যম ও লুটপাট। বাংলাদেশ স্বাধীন হওয়ার পর থেকে এ দুটি মুখরোচক শ্লোগানসহ অনিয়ম দুর্নীতির আরো কিছু বিষয় মানুষের মনে স্থান করে নিয়েছে। তারপর স্বাধীনতার পর ত্রাণ ও রেডক্রসের মালামালের দূর্নীতি নিয়েও রয়েছে আরো শ্রুতিমধুর বিষাদের শ্লোগান। যার আদ্দোপান্ত ব্যাখ্যা বিশ্লেষণে না গিয়ে বলতে হচ্ছে ৭ কোটি মানুষের জন্য ৮ কোটি কম্বল তারপর এত কম্বল গেল কই। ভোক্তভোগীরা অহরহ বলছে টিআর, কাবিখা, জিআর, দেদারচ্ছে লুটেপুটে খাবিতো খা, কুছ নেহি পরওয়া। টিআর, কাবিখার গম, চাউল, রিলিফ ও রেডক্রসের (বর্তমান রেড ক্রীসেন্ট) জিনিষপত্র লুটেপুটে খাওয়ায় ব্যাপারে মানুষের ব্যথা, বেদনা ও বিষাদের কারণেই এ সমস্ত শ্লোগান উচ্চারিত হয়েছে বলে তাতে সন্দেহের কিছু নেই বলে অনেকেরই বদ্ধমূল ধারণা।

এতসব কিছুর পর ত্রাণ, টিআর, জিআর ও কাবিখার গম, চাউল বন্টনের ব্যাপারে স্বাধীনতার পর থেকে এ পর্যন্ত যখনই সেনাবাহিনীকে দায়িত্ব দেখা হয়েছে, তাতে দেখা গেছে এসব কিছুর বন্টন যেমনি স্বচ্ছ ও সুষ্টু হয়েছে, তেমনি পুনর্বাসনেও অনাশ্রিত মানুষের আশ্রয়ের ঠাঁই হয়েছে। ৮৮ ইর দেশব্যাপী সর্বনাশা বন্যা, উড়ির চরের সামুদ্রিক জলোচ্ছাস ও ৯১ এর
চলমান পাতা/২
পাতা: ২

বন্যায় বন্যার্তদের পাশে সেনাবাহিনীর নিরলস সেবা অবিস্মরণীয়। ১৯৮৮ সালে নজির বিহীন বন্যায়, সাড়া দেশ প্লাবিত হয়। সেই সময় কিশোরগঞ্জ জেলা ত্রাণ পুনর্বাসন ও সার্বিক সমন্বয় কমিটির সদস্য ও একজন সাংবাদিক হিসেবে ময়মনসিংহের ১৯ ডিভিশনের নিয়ন্ত্রণাধীন ২৫ বেঙ্গলের সেনা কর্মকর্তাদের সাথে কিশোরগঞ্জ জেলার ভাটী এলাকা ও নেত্রকোণা জেলার খালিয়াজুরি এলাকায় যাওয়ার সুযোগ ঘটে। সেখানে দেখা গেছে অসহায় বন্যার্তদের পাশে থেকে সেনাবাহিনীর কর্মকর্তা ও জোয়ানরা তাদের নাওয়া খাওয়া ত্যাগ করে অক্লান্ত পরিশ্রম করে কিভাবে তাদের মানবতার বিরল দৃষ্টান্ত স্থাপন করেছিল। সেই সময়ে প্রলয়ংকারী নদীর ভাঙ্গন ও নদীর উতাল পাতাল ঢেউয়ের গর্জনের কথা মনে হলে এত বছর পর এখনও গা শিহরিয়ে ওঠে।

সেই সময় দেশের অকুতোভয় সেনাবাহিনীর উদ্যম গতিশীলতা, সাহস, ত্যাগ ও মানবতার পাশে থাকার কথা আজো ভুলা যায় না। সেই সময়ের কথা স্মরণ করতে যেয়ে আজো মনে পড়ে ২০০৯ সালের ২৫ ও ২৬ ফেব্রুয়ারী পিলখানার মর্মান্তিক ঘটনায় নিহত বিগ্রেডিয়ায় জেনারেল বারী, ২৫ বেঙ্গলের তৎকালীন সিও লেঃ কর্ণেল আঃ খালেক, সেকেন্ড ইন কমান্ড মেজর সাঈদসহ আরো অনেকের কথা। উল্লেখ থাকে প্রয়াত বিগ্রেডিয়ার জেনারেল বারী তখন মেজর হিসেবে ডিজিএফআইয়ের ময়মনসিংহ কর্মরত ছিলেন।

রোহিঙ্গারা ২৫ আগস্টের পর থেকে মিয়ানমারের রাখাইন রাজ্যের স্থায়ী বসবাস থেকে বিতাড়িত ও উচ্ছেদ হয়ে বাংলাদেশে আসতে শুরু করে। তখন থেকেই তাদেরকে ত্রাণ ও পূণর্বাসনের ব্যাপারে সরকার, আধা সরকারী প্রতিষ্ঠান, বিভিন্ন রাজনৈতিক দল, এনজিও, মানবাধিকার সংস্থা, শিক্ষা প্রতিষ্ঠান, সমাজ সেবা সংঘটনসহ দেশের বিভিন্ন স্থান থেকে যার যতটুকু সম্ভব ত্রাণ সামগ্রী নিয়ে এগিয়ে যেতে থাকে। এ সমস্ত ত্রাণ সামগ্রী বিতরণে বিশৃংখলা, হ-য-ব-র-ল এবং অনেক ক্ষেত্রে বন্টনে অনিয়ম পরিলক্ষিত হয় বলে জানা যায়। যার প্রেক্ষিতে দেশের মানুষ এবং কোন কোন রাজনৈতিক দল রোহিঙ্গাদের মাঝে ত্রাণ বিতরণ ও পুনর্বাসনে দেশপ্রেমিক সেনাবাহিনীর প্রত্যাশা কামনা করে থাকে। ফলশ্রুতিতে অবশেষে ত্রাণ বিতরণ ও পূনর্বাসনে সেখানে সেনাবাহিনী মোতায়েন করা হয়। তারপর থেকে দেখা গেছে রোহিঙ্গাদের মাঝে ত্রাণ বিতরণে সকল প্রকার বিশৃংখল অবস্থা বন্টনে অনিয়ম ও হ-য-ব-র-ল অবস্থা কেটে গিয়ে এক সুন্দর সুশৃংখল পরিবেশ ও প্রশান্তি বিরাজ করছে। সেখান থেকে ফিরে আসা এবং নিজ চোখে দেখে আসা দৈনিক মুক্ত খবরের সম্পাদক ও প্রথিতযশা সাংবাদিক মোঃ নজরুল ইসলামসহ আরো অনেকে বলেছেন, কুতুপালংসহ রোহিঙ্গাদের বিভিন্ন আশ্রিত ক্যাম্পে সেনাবাহিনীর সুশৃংখল ত্রাণ বিতরণ ও তাদের পূনর্বাসনে রাতারাতি স্থাপনা নির্মাণে সেনাবাহিনী যে কৌশল ব্যবহার করছে তা সবাইকে অবাক করার মত। তদোপরি এসব ব্যাপারে তাদের পারফরম্যান্স (ঢ়বৎভড়ৎসবহপব), অভিজ্ঞতা ও কর্ম তৎপরতা সহজে ভুলে যাওয়ার নহে।

এমনিভাবে স্বচ্ছ মনমানসিকতা, ত্যাগ, ন্যায়নিষ্ঠা ও কর্মীর মন নিয়ে যদি দেশের অন্যান্য সংস্থার সকলেই এভাবে এগিয়ে যেত তবে আজকের বাংলাদেশ আরো সামনে এগিয়ে যেত এবং সোনার বাংলা এতদিনে দুনিয়ার অন্যান্য উন্নত দেশের তালিকার সাথে স্থান করে নিত বলেও রোহিঙ্গাদের বিভিন্ন ক্যাম্পে সেনাবাহিনীর কাজের গতিশীলতা ও উদ্যমতা দেখে সংশ্লিষ্ট সাংবাদিকগণ মন্তব্য করে থাকেন। ০৬/১০/২০১৭ ইং বিভিন্ন গণমাধ্যমে প্রকাশিত ও সূত্রে জানা যায়, সেনাবাহিনী প্রধান ও প্রতিরক্ষা মন্ত্রণালয়ের উপদেষ্টা ০৫/১০/২০১৭ ইং কুতুপালং সহ রোহিঙ্গাদের বিভিন্ন আশ্রিত ক্যাম্পে পরিদর্শনের সময় তাদের মধ্যে সেনাবাহিনীর ত্রাণ বিতরণ ও পুনর্বাসন কার্যক্রম পরিদর্শন কালে তাদের দায়িত্ব কর্তব্য পালনের ব্যাপারেও ভূয়সী প্রশংসা করেছেন।

সেনাবাহিনীর এত সব কৃতিত্ব ও পারফলম্যান্সের আলোকে ২০১৮-২০১৯ সালের জাতীয় সংসদ নির্বাচনেও দেশপ্রেমিক সেনাবাহিনীকে ম্যাজিষ্ট্রেসি ক্ষমতা দিয়ে নির্বাচনের ৭/৮ দিন পূর্বে মাঠে নামানোর ব্যাপারে দেশের সুশীল সমাজ, সাংবাদিক, রাজনৈতিক দলসহ অনেকেই প্রধান নির্বাচন কমিশনার ও নির্বাচন কমিশনের প্রতি আহবান জানিয়েছেন। দেশপ্রেমিক সেনাবাহিনীর প্রতি আস্থা থেকেই ইসি এবং সিইসির প্রতি এ আহবান। এটা নতুন আবদার নহে। স্বাধীনতার পর দেশে চরম অরাজকতা, নাশকতা এবং সীমাহীন দুর্নীতি বৃদ্ধি পেলে দ্বিতীয় বিপ্লবের নামে ১৯৭৪ সালের জরুরী আইন জারী করে শান্তি, স্বস্থি, দুর্নীতি প্রতিরোধে সাড়া দেশে সেনাবাহিনী মোতায়েন করা হয়। ২০০২ সালে দেশে আইন শৃংখলার নাজুক অবস্থা, দুর্নীতি ও অবক্ষয়ে দেশ পতিত হলে তা পুনরোদ্ধার ও দেশে শান্তি ফিরিয়ে আনার লক্ষ্যে অপারেশন ক্লিনহার্ট নাম দিয়ে সেনাবাহিনী মোতায়েন করা হয়। ২০০৭ সালে দেশে রাজনৈতিক অস্থিরতা দেখা দিলে এমনকি তদানীন্তন
চলমান পাতা/৩
পাতা: ৩

রাষ্ট্রপতি অধ্যাপক ইয়াজুদ্দিন আহমদের বঙ্গভবনের বাসা ও বঙ্গভবনের পানি, বিদ্যুৎ ও গ্যাস বন্ধ করে সারাদেশে বিভীষিকা ও অচলাবস্থার সৃষ্টি হলে এর পরিত্রাণে ওয়ান ইলেভেনের নামে সাড়া দেশে সেনাবাহিনী মোতায়েন করা হয়।

কিন্তু লক্ষ্য করলে দেখা গেছে সেই সময় দেশপ্রেমিক সেনাবাহিনী সাড়া দেশে শান্তিশৃংখলা আনয়ন, বেআইনী অস্ত্র উদ্ধার, ব্যাংক, গ্যাস, টিএন্ডটি, বিদ্যুৎতের কোটি কোটি টাকার খেলাপী আদায়সহ দুর্নীতির বিরুদ্ধে অভিযান পরিচালনায় যথেষ্ট সাফল্য অর্জন করে থাকে। এই অভিযান সমাপ্তি করে ২০০৮ সালের ২৯ ডিসেম্বর দেশে জাতীয় সংসদ নির্বাচন অনুষ্ঠিত করে সেনাবাহিনী সেনানিবাসে প্রত্যাবর্তন করে। সেই সময় সেনাবাহিনী আরো প্রশংসিত হত, তদানীন্তন সেনা প্রধান জেনারেল মঈন-উ-আহম্মদ সেনাবাহিনী প্রধান হিসেবে ক্ষমতার বহির্ভূতভাবে তার কার্যালয়ে যদি বিভিন্ন প্রতিষ্ঠানের অনুদান গ্রহন না করতেন এবং কাজকর্মে রাজনৈতিক উচ্চ বিলাসীতার চিন্তা মাথায় না ঢুকাতেন। শেরে বাংলা নগরে ক্যাঙ্গারো কোর্ট করে দেশের দুই নেত্রীকে গৃহবন্দী করে ক্ষমতার লালসা না করতেন। তদোপরি ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের খেলার মাঠে সেনাবাহিনীর সাথে ছাত্রদের তুচ্ছ ঘটনাকে কেন্দ্র করে ছাত্র শিক্ষকদের গ্রেফতার, অপদস্ত এবং বিভিন্ন ছাত্র-ছাত্রী হলে তল্লাশি অভিযানের নামে অমানবিক অত্যাচার, অপদস্ত এবং অনেককে গ্রেফতারের ঘটনাসহ আরো কিছু স্পর্শকাতর রাজনৈতিক ঘটনা দেশ প্রেমিক সেনাবাহিনীর অতুৎজ্জল ভাবমুতির্কে যথেষ্ট ভুলন্ঠিত ও বিতর্কিত করে তোলে। তাছাড়া পিলখানার বাংলাদেশ রাইফেলসের সদর দফতরে কোন অবস্থাতেই এমন বীভৎস, দুঃখজনক ও মর্মান্তিক ঘটনায় বিডিআরের ডিজি, তার পতিœসহ এতগুলো কর্মকর্তা ও কর্মচারী নিহত হত না যদি সেনাবাহিনী প্রধান হিসেবে জেনারেল মইন-উ-আহম্মদ যথাসময়ে সুদুর প্রসারী ভূমিকা নিতেন এবং তাৎক্ষণিক ব্যবস্থা গ্রহণ করতেন মর্মে দেশের বিভিন্ন শ্রেণী পেশা ও বিজ্ঞজনদের ধারণা থেকে জানা যায়। এত কিছুর পরও দেশপ্রেমিক সেনাবাহিনী দেশের বিভিন্ন দূর্যোগে ও মানুষের দুঃসময়ে তাদের মান অক্ষুন্ন রেখে সামনে এগিয়ে চলছে। বর্তমানে রোহিঙ্গা বাস্তুহারাদেরকে যেভাবে ত্রাণ বিতরণ ও পূনর্বাসনে সহযোগিতা করে সেনাবাহিনী দেশের শ্রেণী পেশার মানুষের যে ভালোবাসা, সম্মান ও প্রশংসা কুঁড়িয়েছে এমনিভাবে আগামী সাধারণ নির্বাচনে যদি সেনাবাহিনীর উপর যথাযথ দায়িত্ব অর্পন করা হয়, তবে দেশের সুশীল সমাজ, রাজনীতিক ও শ্রেণী পেশার মানুষের বিশ্বাস, দেশে একটি সুন্দর, সুষ্টু, অবাধ, শান্তিপূর্ণ ও অর্থবহ নির্বাচন হতে পারে। এজন্য সুস্পষ্টভাবে পদক্ষেপ নেয়ার ব্যাপারে দেশের মানুষ প্রধান নির্বাচন কমিশনার ও নির্বাচন কমিশনের আশা পোষণ করে থাকে। দেশের মানুষ কোন অবস্থাতেই হ-য-ব-র-ল মার্কা একতরফা নির্বাচন বিনা ভোটের ১৫৩ জন এমপি এবং মেরুদন্ডহীন সংসদের এমন বিরোধী দল আর দেখতে আগ্রহী নহে। অগণতান্ত্রিক সংসদের কথাও কোনদিন মুছে যাওয়ার নয় বলে অনেকেরই অভিজ্ঞতা যত তাড়াতাড়ি এর অবসান হয় ততই দেশ ও জাতির জন্য অতীব শুভ।

রোহিঙ্গাদের দুঃখ কষ্ট লাঘব তাদের মাঝে ত্রাণ বিতরণ ও তাদের পূনর্বাসনে দেশপ্রেমিক সেনাবাহিনীর প্রশংসিত কার্যপরিধি যাতে অটুট থাকে এবং উৎসাহ উদ্দীপনায় তাদের কর্ম প্রয়াস আরো সামনে এগিয়ে চলে এটাই জনপ্রত্যাশা। সেনাবাহিনী এদেশেরই গর্বিত সন্তান, সেনাবাহিনী এ দেশেরই ভোটার, কারো ভাই, কারো বন্ধু, কারো সন্তান এবং স্বাধীনতার প্রথম প্রহরের অন্যান্য গৌরবোজ্জল বাহিনীর ন্যায় হানাদারদের বাধা দানকারী দেশের অকৃত্রিম গর্বিত সূর্য্য সন্তান ও জাতির অহংকার।

 

এ.কে.এম শামছুল হক রেনু





         
   আপনার মতামত দিন
     উপসম্পাদকীয়
চিকিৎসা ক্ষেত্রে মৌলিক সুবিদা পাচ্ছেনা মানুষ
.............................................................................................
স্মৃতি–বিস্মৃতির রহমান সাহেব
.............................................................................................
কোভিড-১৯: পলিথিন ও প্লাস্টিকজাত পণ্যের আধিপত্য
.............................................................................................
টেকসই উন্নয়নের লক্ষ্যে তামাকজাত কোম্পানীগুলোকে দ্বায়বন্ধতার আওতায় আনা হোক
.............................................................................................
জনস্বাস্থ্য, অর্থনীতি ও পরিবেশের ক্ষতির কারণে তামাক টেকসই উন্নয়নের অন্তরায়
.............................................................................................
কৃষির পাশাপাশি শিল্প উন্নয়ন এবং কৃষক ফেডারেশনকথা
.............................................................................................
কৃষির পাশাপাশি শিল্প উন্নয়ন এবং কৃষক ফেডারেশনকথা
.............................................................................................
ঈদ এবং মাদক... ওরা বানায় : আমরা সেবন করি
.............................................................................................
নুসরাত কেন চলে যাবে...
.............................................................................................
এই দেশের সড়কে কে নিরাপদ?
.............................................................................................
রাজনীতির হঠাৎ হাওয়ার চমক
.............................................................................................
রাজনীতিতে ব্যবসায়ীদের অংশগ্রহণ প্রসঙ্গে
.............................................................................................
ওজোনস্তরের নতুন দুঃসংবাদ
.............................................................................................
বিজ্ঞান গবেষণা ও বাংলাদেশ
.............................................................................................
বিশ্ব আদালতে রোহিঙ্গা গণহত্যার বিচার চাই
.............................................................................................
চীনা ‘ইউয়ান’, ভারতীয় ‘রুপী’, তুর্কী ‘লিরা’ সবার দাম কমছে
.............................................................................................
এখনো নিয়মিত মৃত্যু সড়কে কে দায় নেবে
.............................................................................................
মাঠের লড়াইয়ে লক্ষ্য হোক জয়
.............................................................................................
একটি শান্তিপূর্ণ নির্বাচনের আশায়
.............................................................................................
আর কত রক্ত ঝড়বে জাতির বিবেকের?
.............................................................................................
হুমকিতে নয়, আলোচনায়ই সমাধান
.............................................................................................
বাঙালির সবচেয়ে বড় উৎসব বাংলা নববর্ষ
.............................................................................................
প্রশ্ন ফাঁস, পরীক্ষা বাতিল এবং অবিচার...
.............................................................................................
ভাষাশ্রদ্ধায় আসুন উচ্চারণ করি ‘বিজয় বাংলাদেশ’
.............................................................................................
চার বছরের উন্নয়ন অগ্রগতি ধারাবাহিকতা রক্ষা করাই বড় চ্যালেঞ্জ
.............................................................................................
শিক্ষা ধ্বংসে বইয়ের বোঝা-সৃজনশীল এবং ফাঁসতন্ত্র
.............................................................................................
প্রশ্নফাঁস আর কোচিংবাণিজ্যে শিক্ষার অনিশ্চিত ভবিষ্যৎ
.............................................................................................
প্রশ্ন ফাঁসের দায় কে নেবে?
.............................................................................................
মায়ের ভাষার অবহেলা কেন করছি আমরা?
.............................................................................................
সবাই জেগে উঠুক ভেজালের বিরুদ্ধে
.............................................................................................
নির্বাচন কমিশনের কর্মক্ষমতা ও ভূমিকা প্রশ্নবিদ্ধ
.............................................................................................
প্রশ্ন ফাঁস ও শিক্ষার দৈন্যদশা রোধ সম্ভব
.............................................................................................
মশা আর মাছি ধুলার সঙ্গে বেশ আছি!
.............................................................................................
বাংলাদেশ ব্যাংকের তদারকি ও নিয়ন্ত্রণক্ষমতা বাড়াতে হবে
.............................................................................................
প্যারাডাইস পেপার্স : সারাবিশ্বে সমস্যা ও সমাধান
.............................................................................................
বঙ্গবন্ধুর অগ্নিগর্ভ ভাষণ : ইউনেস্কোর স্বীকৃতি
.............................................................................................
রোহিঙ্গাদের ত্রাণ ও পূনর্বাসনে দেশপ্রেমিক সেনাবাহিনী
.............................................................................................
নিরাপদ পথ দিবস চাই
.............................................................................................
রোহিঙ্গা গণযুদ্ধের সূচনা হোক, স্বাধীন হোক আরকান
.............................................................................................
দর্শনহীন শিক্ষার ফল ব্লু হোয়েল সংস্কৃতি
.............................................................................................
সাবধানে চালাবো গাড়ী, নিরাপদে ফিরবো বাড়ী
.............................................................................................
বন্ধুদেশের ঋণের বোঝা এবং নতুন প্রজন্মের ভাবনা
.............................................................................................
চালে চালবাজী : সংশ্লিষ্টদের চৈতন্যোদয় হোক
.............................................................................................
৫ প্রস্তাবে বাংলাদেশে সংকট : দুর্ভিক্ষ আসন্ন
.............................................................................................
ভুখা মানুষের স্বার্থে সরকারকে কঠোর হতে হবে
.............................................................................................
রোহিঙ্গা তরুণের চিঠি এবং আমাদের করণীয়
.............................................................................................
ষোড়শ সংশোধনী বাতিল প্রসঙ্গে অনেকের অভিমত
.............................................................................................
তরুন প্রজন্মের সৈনিকেরা জেগে উঠলে কোন অপশক্তিই বাংলাদেশের গণতন্ত্র ও উন্নয়নের পথ রুদ্ধ করতে পারবে না
.............................................................................................
আদর্শ সংবাদ ও সাংবাদিকতা
.............................................................................................
নারী অধিকার প্রতিষ্ঠায় সাহসী হতে হবে
.............................................................................................
Digital Truck Scale | Platform Scale | Weighing Bridge Scale
Digital Load Cell
Digital Indicator
Digital Score Board
Junction Box | Chequer Plate | Girder
Digital Scale | Digital Floor Scale

|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
স্বাধীন বাংলা ডট কম
সম্পাদক মো. খয়রুল ইসলাম চৌধুরী

সম্পাদক কর্তৃক ৩৭/২, ফায়েনাজ অ্যাপার্টমেন্ট (১৫ম তলা), কালভার্ট রোড, পুরানা পল্টন,
ঢাকা-১০০০ হতে প্রকাশিত ।
প্রধান উপদেষ্টা: ফিরোজ আহমেদ (সাবেক সচিব, বাণিজ্য মন্ত্রণালয়)
সম্পাদক মন্ডলীর সভাপতি: ডাঃ মো: হারুনুর রশীদ
ইউরোপ মহাদেশ বিষয়ক সম্পাদক- প্রফেসর জাকি মোস্তফা (টুটুল)
ব্যবস্থাপনা সম্পাদক : মো: খায়রুজ্জামান
বার্তা সম্পাদক: মো: শরিফুল ইসলাম রানা
সহ: সম্পাদক: জুবায়ের আহমদ
বিশেষ প্রতিনিধি : মো: আকরাম খাঁন
সম্পাদকীয় ও বাণিজ্যিক কার্যালয়: ৩৭/২, ফায়েনাজ অ্যাপার্টমেন্ট (১৫ম তলা), কালভার্ট রোড, পুরানা পল্টন, ঢাকা-১০০০।
ফোন : ০২-৯৫৬২৮৯৯ মোবাইল: ০১৬৭০-২৮৯২৮০
ই-মেইল : swadhinbangla24@gmail.com
    2015 @ All Right Reserved By swadhinbangla.com

Developed BY : Dynamic Solution IT   Dynamic Scale BD