১২ শাওয়াল ১৪৪১ , ঢাকা, শুক্রবার, ২২ জ্যৈষ্ঠ ১৪২৭, ৫ জুন , ২০২০ বাংলার জন্য ক্লিক করুন
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|

  
Share Button
   উপসম্পাদকীয়
শিক্ষা ধ্বংসে বইয়ের বোঝা-সৃজনশীল এবং ফাঁসতন্ত্র
  তারিখ: 19 - 02 - 2018

প্রশ্নফাঁস তদন্তে দুই কমিটি গঠন করেছে হাইকোর্ট। সারাদেশে স্বাধীনতা বিরোধী-জঙ্গী-জামাত-শিবির চক্রের পাশাপাশি সন্ত্রাসী-দানবীয় দুর্নীতিবাজ চক্রের সমন্বয়ে অসংখ্যবার রাজনৈতিক শক্তিকে কাজে লাগিয়ে অন্যায়ের যে স্বর্গরাজ্য বানানো হয়েছে; সেই স্বর্গরাজ্য ধ্বংস করার এই সামাণ্য প্রয়াসে অন্তত আদালত এগিয়ে আসায় অন্তত কিছুটা আনন্দিত হওয়ার সুযোগ গড়ে উঠেছে প্রকৃত দেশ-মানুষ-শিক্ষা-সাহিত্য-সংস্কৃতি ও সমাজকর্মীদের।
অতিতের প্রায় ৭৫ বার প্রশ্নপত্র ফাঁসের ঘটনা ঘটলেও চলতি বছর এসে কেবলমাত্র ২০১৮ সালের এসএসসি পরীক্ষার প্রশ্নপত্র ফাঁসের তদন্ত করতে বিচার বিভাগীয় ও প্রশাসনিক দুটি কমিটি গঠন করে দিয়েছেন হাইকোর্ট। অধ্যাপক কায়কোবাদের নেতৃত্বে পাঁচ সদস্যের প্রশাসনিক কমিটি এবং ঢাকা জেলা ও দায়রা জজের নেতৃত্বে পাঁচ সদস্যের বিচার বিভাগীয় তদন্ত কমিটি গঠন করা হয়েছে। এক রিট আবেদনের শুনানি শেষে হাইকোর্টের বিচারপতি জুবায়ের রহমান চৌধুরী ও বিচারপতি ইকবাল কবিরের বেঞ্চ এ কমিটি গঠন করে দেন। আদালতে রিট আবেদনের পক্ষে শুনানি করেনব্যারিস্টার জ্যোতির্ময় বড়ুয়া। রাষ্ট্রপক্ষে ছিলেন অ্যাটর্নি জেনারেল মাহবুবে আলম ও ডেপুটি অ্যাটর্নি জেনারেল এসএম মনিরুজ্জামান। অবশ্য এর আগে সকালে একই বেঞ্চ এসএসসি পরীক্ষায় প্রশ্নফাঁস প্রতিরোধে সরকারের নিষ্ক্রিয়তাকে কেন অবৈধ ঘোষণা করা হবে না, তা জানতে চেয়ে রুল জারি করেন। পাশাপাশি শিক্ষাঙ্গণকে কলুষমুক্ত করতে দুই সপ্তাহের মধ্যে এ রুলের জবাব দিতে বলা হয় শিক্ষা সচিব, প্রাথমিক ও গণশিক্ষা সচিব, আইন সচিব, আইন মন্ত্রণালয়ের ড্রাফটিং উইংয়ের সচিব, স্বরাষ্ট্র সচিব, তথ্যপ্রযুক্তি সচিব, বিটিআরসির সচিব-চেয়ারম্যান, বিটিসিএলপ্রধান, মাধ্যমিক ও উচ্চমাধ্যমিক শিক্ষা অধিদফতরের মহাপরিচালক-চেয়ারম্যান, ঢাকা-রাজশাহী, কুমিল্লা-যশোর, চট্টগ্রাম, বরিশাল, সিলেট, দিনাজপুর উচ্চ মাধ্যমিক ও মাধ্যমিক শিক্ষা বোর্ড ও মাদ্রাসা শিক্ষা বোর্ডের চেয়ারম্যান এবং পুলিশের মহাপরিদর্শককে।
এই প্রশ্নপত্র ফাঁসের কারণে দিনদিন-ই শিক্ষা ব্যবস্থা ভেঙ্গে পড়ছে। আর এই শিক্ষা ব্যবস্থাকে ভেঙ্গে ফেলার ব্যাপারে উন্নত বিশ্বে এবং ধর্মীয়ভাবেও বলা হয়েছে- যখন কোন জাতির শিক্ষা দূর্বল হয়ে যায়; তখন সেই জাতি ধ্বংস হয়ে যায়। আর আশ্চর্য জনক হলেও সত্য যে, এই রাস্তাতেই হাঁটছে ‘উদ্বোধন’ বানান লিখতেও ভুলকারী শিক্ষামন্ত্রী নুরুল ইসলাম নাহিদ। আর তার জন্য নিতান্তই এটা কোন বিষয় না বলেই ধারণা করছি। এর উপরে আবার প্রশ্নফাঁসের দায়মুক্তি চায় শিক্ষা মন্ত্রণালয়! গুরুত্বপূর্ণ পাঁচ কারণে ফাঁসকৃত প্রশ্নের পরীক্ষা বাতিল করা সম্ভব হচ্ছে না। এর মধ্যে দেশের চলমান অস্থিতিশীল রাজনৈতিক পরিস্থিতি সবচেয়ে বড় বাধা হয়ে দাঁড়িয়েছে। কেননা এ সময় সরকার প্রশ্নপত্র ফাঁসের দায় মেনে নিলে বিরোধী দলগুলো এ ইস্যুতে আন্দোলন চাঙ্গা করার পাশাপাশি নানামুখী সমালোচনার সুযোগ পাবে বলেও ধারণা করা হচ্ছে। এমন একটা পরিস্থিতিতে দেশে শিক্ষা নিয়ে চলছে একের পর এক ষড়যন্ত্র। যেভাবে বাংলাদেশ স্বাধীান হওয়ার আগেই আবদুল মালেক নামক কুলাঙ্গার রাজনৈতিকভাবে বাংলাদেশের শিক্ষা ব্যবস্থাকে ধ্বংশ করার জন্য উঠে পড়ে লেগেছিলো। আর এখন মালেকের প্রেতাত্মারা উঠে পড়ে লেগেছে। এই সুযোগে হাজারো কাহিনীর জন্ম হচ্ছে-ধ্বংশ হচ্ছে ছাত্র জীবন-শিক্ষা জীবন। তবু বসে নেই কেউ; চলছে গলাবাজী। যেভাবে প্রশ্নফাঁসের প্রমাণ মিললে পরীক্ষা বাতিল করা হবে বলে খোদ শিক্ষামন্ত্রী নুরুল ইসলাম নাহিদের ঘোষণার পর এ সংক্রান্ত মূল্যায়ন কমিটি গঠন করা হলেও বাস্তবে এর পুরোটাই লোক দেখানো একটি প্রক্রিয়া মাত্র। কার্যত কোনো পরীক্ষা বাতিল করার সামান্য ইচ্ছাও সংশিস্নষ্ট মন্ত্রণালয়ের নেই। বরং এর মাধ্যমে তারা তাদের ঘাড়ে চেপে বসা প্রশ্নফাঁসের দায় এড়ানোর চেষ্টা চালাচ্ছে। পাশাপাশি এসব প্রশ্নফাঁস হওয়ায় পরীক্ষার্থীদের ততটা ক্ষতি হয়নি, মূল্যায়ন কমিটির কাছ থেকে এ সংক্রান্ত বক্তব্য সংগ্রহ করাই এর মূল লক্ষ্য। শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের দায়িত্বশীল একাধিক কর্মকর্তার সঙ্গে কথা বলে এমন আভাস পাওয়া গেছে।
বইয়ের বোঝা বইতে বইতে ক্লান্ত নতুন প্রজন্মের জন্য নিয়ে আসা হয়েছিলো সৃজনশীল পদ্ধতি। আর এখন বলা হচ্ছে- পাঁচ কারণে ফাঁসকৃত প্রশ্নের পরীক্ষা বাতিল করা সম্ভব হচ্ছে না। এর মধ্যে দেশের চলমান অস্থিতিশীল রাজনৈতিক পরিস্থিতি সবচেয়ে বড় বাধা হয়ে দাঁড়িয়েছে। কেননা এ সময় সরকার প্রশ্নপত্র ফাঁসের দায় মেনে নিলে বিরোধী দলগুলো এ ইস্যুতে আন্দোলন চাঙ্গা করার পাশাপাশি নানামুখী সমালোচনার সুযোগ পাবে। এতে সংশিস্নষ্ট প্রশাসনের দুর্নীতি ও ব্যর্থতার চিত্র জনসম্মুখে উন্মোচিত হবে। যা সরকারকে বিব্রতকর পরিস্থিতিতে ফেলবে। অন্যদিকে প্রশ্ন ফাঁস হওয়ার কারণে তা বাতিল করে পুনঃপরীক্ষা নেয়া হলে সাধারণ শিক্ষার্থীদের পাশাপাশি তাদের অভিভাবকদের ফুঁসে ওঠার প্রবল সম্ভাবনা রয়েছে। এমনকি তাদের সঙ্গে সর্বস্তরের মানুষও যোগ দিতে পারে। তৃতীয়ত, পুনঃপরীক্ষার প্রশ্নপত্র ফাঁস রোধেও সরকার কতটা কার্যকর পদক্ষেপ গ্রহণ করতে পারবে তা নিয়ে যথেষ্ট সংশয় রয়েছে। এ অবস্থায় তারা ব্যর্থ হলে পরিস্থিতি আরও ঘোলাটে হয়ে উঠবে। চতুর্থত, এখন পর্যন্ত সরকার প্রশ্নফাঁসকারী চক্রের মূল হোতাদের কারও টিকিটিও ছুঁতে পারেনি। এমনকি তারা কোন কৌশলে, কোথা থেকে কীভাবে প্রশ্নফাঁস করছে তাও গোয়েন্দাদের এখনও অজানা। এ ছাড়া প্রশ্নফাঁসের সঙ্গে জড়িত সন্দেহে গ্রেপ্তারকৃতদের দেয়া তথ্যের সূত্র ধরে এ চক্রের গডফাদারদের সম্পর্কে কোনো ক্লু পাওয়া দুরূহ হয়ে পড়েছে। তাই প্রশ্নফাঁস রোধে গোয়েন্দারাও কোনো নিশ্চয়তা দিতে পারছে না।
এমন একটা অকমর্ণ পরিবেশ শিক্ষাখাতে তৈরি হয়েছে যে, পুনঃপরীক্ষার প্রশ্নপত্র তৈরি এবং খাতা দেখা শেষে ফল প্রকাশ করার মতো পর্যাপ্ত সময়ও এখন শিক্ষকদের হাতে নেই। কেননা এরই মধ্যে এইচএসসি পরীক্ষা আগামী ২ এপ্রিল থেকে শুরুর ঘোষণা দেয়া হয়েছে। এ পরিস্থিতিতে পুনঃপরীক্ষা নেয়ার চেষ্টা করা হলে হ-য-ব-র-ল দশা সৃষ্টির সম্ভাবনা রয়েছে।
এ ছাড়া নতুন করে আরও কোনো সংকট তৈরি হতে পারে বলেও সরকার আশঙ্কা করছে। তাই সংশিস্নষ্ট প্রশাসন কিছুটা সমালোচনা গায়ে মেখেই ঝুঁকি এড়াতে চাইছে। এমন একটা পরিস্থিতিতে থাকার পরও শিক্ষা ব্যবস্থাকে ধ্বং করতে করতে উম্মাদপ্রায় চক্রটি প্রশ্নপত্র ফাঁস হওয়া পরীক্ষা বাতিল না করার ব্যাপারে এরই মধ্যে তারা গ্রিণ সিগন্যাল পেয়েছে। এখন এ ব্যাপারে দায়মুক্তির সনদ তৈরির পথ খোঁজা হচ্ছে।
শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের দায়িত্বশীল এক কর্মকর্তা গণমাধ্যমকে বলেছেন, প্রশ্নফাঁস হওয়ার বিষয়টি অস্বীকার করার কোনো সুযোগ না থাকায় তা মেনে নিয়েই মূল্যায়ন কমিটি প্রতিবেদন তৈরির প্রস্তুতি নিচ্ছে। তবে প্রশ্নপত্র ফাঁস হলেও তা পরীক্ষা শুরুর মাত্র ১৫/২০ মিনিট আগে পরীক্ষার্থীদের হাতে পাওয়ায় তা থেকে তারা বিশেষভাবে উপকৃত হয়নি, এ বিষয়টিতে গুরুত্ব দেওয়া হচ্ছে। এ ছাড়া ফাঁসকৃত প্রশ্ন পাওয়া পরীক্ষার্থীর সংখ্যা ৫ থেকে সর্বোচ্চ ২০ হাজার হলেও মোট পরীক্ষার্থী ২০ লাখেরও বেশি, তাই পুনঃপরীক্ষা নেয়ার প্রয়োজনীয়তা নেই, এমন সুপারিশ করার কথাও ভাবছে মূল্যায়ন কমিটি। যদিও সংশ্লিষ্টদের কেউ এ ব্যাপারে সরাসরি কোনো মন্তব্য করতে রাজি হননি। কমিটির সদস্য ঢাকা শিক্ষা বোর্ডের পরীক্ষা নিয়ন্ত্রক তপন কুমার সরকার অবশ্য গণমাধ্যমকে বলেছেন, ‘আমরা কাজ শুরু করেছি। এর বেশি কিছু বলা যাবে না। তদন্ত কাজ শেষ হলে এ ব্যাপারে সিদ্ধান্ত নেয়া হবে। মূল্যায়ণ কমিটির প্রধান শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের কারিগরি ও মাদ্রাসা শিক্ষা বিভাগের সচিব মো. আলমগীর বলেন, `পত্রপত্রিকায় যেসব তথ্য এসেছে আমরা সেগুলো বিশেস্নষণ করব। প্রতিটি পরীক্ষাকে আমরা আলাদাভাবে মূল্যায়ন করব। কোনো পরীক্ষার প্রশ্ন আসলে ফাঁস হয়েছে আর কোনগুলো ফাঁস হয়নি সেসব বিষয়ে আমাদের আলাদা মূল্যায়ন থাকবে। কোনো পরীক্ষা বাতিল হবে কিনা সে বিষয়ে আমরা সুপারিশ করব। তবে সেটা বাস্তবায়ন করবে মন্ত্রণালয়।` কিন্তু শিক্ষা প্রতিমন্ত্রী বলছেন ভিন্ন কথা। পরীক্ষা বাতিলের সিদ্ধান্ত আপাতত তাদের নেই। কারণ এতে তারা বড় কোনো লাভ দেখছেন না। এ ছাড়া বেশ ক`জন প্রশ্নফাঁসকারী ধরা পড়ছে। অচিরেই এদের পুরো সিন্ডিকেট ধরা যাবে। তাই পুনঃপরীক্ষা নেয়া ততটা জরুরি নয়- অভিমত প্রতিমন্ত্রীর। তার উপর মরার উপর খড়ার ঘায়ের মত পরীক্ষা শুরুর এক সপ্তাহ আগে সচিবালয়ে আইন-শৃঙ্খলা কমিটির এক বৈঠকে শিক্ষামন্ত্রী নুরুল ইসলাম নাহিদ প্রশ্নপত্র ফাঁস হলেই পরীক্ষা বাতিলের জোরাল হুঁশিয়ারি জানালেও এ ব্যাপারে তিনি এখন কিছু বলছেন না। এ ব্যাপারে মাধ্যমিক ও উচ্চশিক্ষা বিভাগের সচিব সোহরাব হোসেনের সুরও এখন অনেকটাই নরম।
আমি বিশ্বাস করি, শিক্ষা মন্ত্রণালয় এখন মূল্যায়ন কমিটি ও পুনঃপরীক্ষার ব্যাপারে কোনো ধরনের কথা না বলে প্রশ্নফাঁস রোধে নানা পরিকল্পনার ছক প্রকাশ করছেন। শিক্ষাবিদদের ভাষ্য, অতীতেও প্রশ্নফাঁসের অভিযোগ প্রমাণিত হওয়ার পর সে ব্যাপারে কোনো ব্যবস্থা না নিয়ে নতুন করে নানা ছক আঁটা হয়েছে। এবারও তা-ই হচ্ছে। এমনিতেই দেশের শিক্ষা ব্যবস্থায় চরম হ-য-ব-র-ল অবস্থা চলছে। এর ওপর প্রশ্নফাঁস রোধে শিক্ষা প্রশাসনের ব্যর্থতার খড়গ যেভাবে শিক্ষার্থীদের ঘাড়ে চাপানোর অপচেষ্টা চলছে তাতে দেশের শিক্ষা ব্যবস্থার মান শেষ পর্যন্ত কোথায় গিয়ে দাঁড়াবে তা নিয়ে গভীর শঙ্কা রয়েছে। প্রশ্নফাঁস হয়েছে তা প্রমাণিত হলে পরীক্ষা বাতিল করা হলে তা `উদোর পি-ি বুঁদোর ঘাড়ে` চাপানোর নামান্তর। কেননা পরীক্ষার্থীরা মেধা-ঘাম ঝরিয়ে যে পরীক্ষা দিয়েছে তা বাতিল হলে শিক্ষার্থীদের ফের একই কষ্ট করতে হবে। পুনঃপরীক্ষায় এক প্রশ্ন দ্বিতীয়বার আসার সম্ভাবনা কম থাকায় পরীক্ষার্থীরা নতুন করে `কমন প্রশ্ন` খুঁজবে। তাতে করে আরো দ্রুত ভেঙ্গে পড়বে শিক্ষার ভিত্তি। এই ভিত্তি ভেঙ্গে দিতে বিদেশী ষড়যন্ত্রের পাশাপাশি সচল হচ্ছে দেশীয় ষড়যন্ত্রও। আসুন প্রতিরোধে ঐক্যবদ্ধ হই। বাঁচাই শিক্ষা বাঁচাই দেশ। তা না হলে হয়তো এমন সংবাদ আরো পড়তে হবে - ‘জয়পুরহাট শহরের সোনার পট্রি (বাজার গলি) সড়কের ওপর থেকে এবারের এসএসসি পরীক্ষার ইংরাজী ১ম পত্রের ২৫টি উত্তরপত্র পরিত্যক্ত অবস্থায় উদ্ধার করা হয়েছে। রাজশাহী মাধ্যমিক ও উচ্চ মাধ্যমিক শিক্ষা বোর্ড থেকে ওই উত্তরপত্রগুলো মূল্যায়নের জন্য জয়পুরহাটে আনার সময় অসর্তক মুহুর্তে বস্তার মুখ খুলে রিক্সা থেকে সড়কের ওপরে পড়ে গিয়েছিল। আরও ৫০টি উত্তরপত্রের এখনও হদিস মিলেনি, খোঁজাখুজি চলছে বলে জানিয়েছে পুলিশ।’
প্রয়োজনে নতুন প্রজন্মের প্রতিটি প্রতিনিধিকে কালোর বিরুদ্ধে আলোর মিছিল নিয়ে এগিয়ে যেতে হবে বাংলাদেশকে ভালোবেসে। যে আলোর মিছিল থেকে শাদাকে শাদা এবং কালোকে কালো বলার সাহসে সাহসীদের সংখ্যা থাকেব শতকরা ৯৯ জন। যে মিছিলে অংশগ্রহণকারীদের সবচেয়ে বড় শক্তি থাকবে ভালোবাসা-বিশ্বাস দেশের জন্য-মানুষের জন্য। নিরন্তর এগিয়ে চলায় আমরা ঐক্যবদ্ধ হতে পারলেই রক্ষা করা সম্ভব বাংলাদেশে শিক্ষা-সাহিত্য-সংস্কৃতি আর সমাজের অবক্ষয়। পাশাপাশি শিক্ষাঙ্গণ নীতিমালা প্রণয়ন; একমূখি শিক্ষা ব্যবস্থা কমিশন গঠন নিরন্তর প্রয়োজন। একমূখি শিক্ষা ব্যবস্থা থাকলে আর আরবী বা তথাকথিত ইংলিশ নিয়ে যেমন বাড়াবাড়াবাড়ি তৈরি হবে না; তেমনি বন্ধ হবে বিকৃত এই শিক্ষার পরিবেশ; এগিয়েই যাবে বাংলাদেশ...

মোমিন মেহেদী : চেয়ারম্যান, নতুনধারা বাংলাদেশ-এনডিবি

 





         
   আপনার মতামত দিন
     উপসম্পাদকীয়
জনস্বাস্থ্য, অর্থনীতি ও পরিবেশের ক্ষতির কারণে তামাক টেকসই উন্নয়নের অন্তরায়
.............................................................................................
কৃষির পাশাপাশি শিল্প উন্নয়ন এবং কৃষক ফেডারেশনকথা
.............................................................................................
কৃষির পাশাপাশি শিল্প উন্নয়ন এবং কৃষক ফেডারেশনকথা
.............................................................................................
ঈদ এবং মাদক... ওরা বানায় : আমরা সেবন করি
.............................................................................................
নুসরাত কেন চলে যাবে...
.............................................................................................
এই দেশের সড়কে কে নিরাপদ?
.............................................................................................
রাজনীতির হঠাৎ হাওয়ার চমক
.............................................................................................
রাজনীতিতে ব্যবসায়ীদের অংশগ্রহণ প্রসঙ্গে
.............................................................................................
ওজোনস্তরের নতুন দুঃসংবাদ
.............................................................................................
বিজ্ঞান গবেষণা ও বাংলাদেশ
.............................................................................................
বিশ্ব আদালতে রোহিঙ্গা গণহত্যার বিচার চাই
.............................................................................................
চীনা ‘ইউয়ান’, ভারতীয় ‘রুপী’, তুর্কী ‘লিরা’ সবার দাম কমছে
.............................................................................................
এখনো নিয়মিত মৃত্যু সড়কে কে দায় নেবে
.............................................................................................
মাঠের লড়াইয়ে লক্ষ্য হোক জয়
.............................................................................................
একটি শান্তিপূর্ণ নির্বাচনের আশায়
.............................................................................................
আর কত রক্ত ঝড়বে জাতির বিবেকের?
.............................................................................................
হুমকিতে নয়, আলোচনায়ই সমাধান
.............................................................................................
বাঙালির সবচেয়ে বড় উৎসব বাংলা নববর্ষ
.............................................................................................
প্রশ্ন ফাঁস, পরীক্ষা বাতিল এবং অবিচার...
.............................................................................................
ভাষাশ্রদ্ধায় আসুন উচ্চারণ করি ‘বিজয় বাংলাদেশ’
.............................................................................................
চার বছরের উন্নয়ন অগ্রগতি ধারাবাহিকতা রক্ষা করাই বড় চ্যালেঞ্জ
.............................................................................................
শিক্ষা ধ্বংসে বইয়ের বোঝা-সৃজনশীল এবং ফাঁসতন্ত্র
.............................................................................................
প্রশ্নফাঁস আর কোচিংবাণিজ্যে শিক্ষার অনিশ্চিত ভবিষ্যৎ
.............................................................................................
প্রশ্ন ফাঁসের দায় কে নেবে?
.............................................................................................
মায়ের ভাষার অবহেলা কেন করছি আমরা?
.............................................................................................
সবাই জেগে উঠুক ভেজালের বিরুদ্ধে
.............................................................................................
নির্বাচন কমিশনের কর্মক্ষমতা ও ভূমিকা প্রশ্নবিদ্ধ
.............................................................................................
প্রশ্ন ফাঁস ও শিক্ষার দৈন্যদশা রোধ সম্ভব
.............................................................................................
মশা আর মাছি ধুলার সঙ্গে বেশ আছি!
.............................................................................................
বাংলাদেশ ব্যাংকের তদারকি ও নিয়ন্ত্রণক্ষমতা বাড়াতে হবে
.............................................................................................
প্যারাডাইস পেপার্স : সারাবিশ্বে সমস্যা ও সমাধান
.............................................................................................
বঙ্গবন্ধুর অগ্নিগর্ভ ভাষণ : ইউনেস্কোর স্বীকৃতি
.............................................................................................
রোহিঙ্গাদের ত্রাণ ও পূনর্বাসনে দেশপ্রেমিক সেনাবাহিনী
.............................................................................................
নিরাপদ পথ দিবস চাই
.............................................................................................
রোহিঙ্গা গণযুদ্ধের সূচনা হোক, স্বাধীন হোক আরকান
.............................................................................................
দর্শনহীন শিক্ষার ফল ব্লু হোয়েল সংস্কৃতি
.............................................................................................
সাবধানে চালাবো গাড়ী, নিরাপদে ফিরবো বাড়ী
.............................................................................................
বন্ধুদেশের ঋণের বোঝা এবং নতুন প্রজন্মের ভাবনা
.............................................................................................
চালে চালবাজী : সংশ্লিষ্টদের চৈতন্যোদয় হোক
.............................................................................................
৫ প্রস্তাবে বাংলাদেশে সংকট : দুর্ভিক্ষ আসন্ন
.............................................................................................
ভুখা মানুষের স্বার্থে সরকারকে কঠোর হতে হবে
.............................................................................................
রোহিঙ্গা তরুণের চিঠি এবং আমাদের করণীয়
.............................................................................................
ষোড়শ সংশোধনী বাতিল প্রসঙ্গে অনেকের অভিমত
.............................................................................................
তরুন প্রজন্মের সৈনিকেরা জেগে উঠলে কোন অপশক্তিই বাংলাদেশের গণতন্ত্র ও উন্নয়নের পথ রুদ্ধ করতে পারবে না
.............................................................................................
আদর্শ সংবাদ ও সাংবাদিকতা
.............................................................................................
নারী অধিকার প্রতিষ্ঠায় সাহসী হতে হবে
.............................................................................................
পাবনা বইমেলা সাহিত্যকে সম্মৃদ্ধির পথে এগিয়ে নিয়ে যাচ্ছে
.............................................................................................
আমার ভাইয়ের রক্তে রাঙানো...
.............................................................................................
ক্ষণজন্মা কিংবদন্তী মাদার বখশ
.............................................................................................
গ্রামীণ মানুষের সম্পদ বাড়ছে না, ঋণ বাড়ছে
.............................................................................................
Digital Truck Scale | Platform Scale | Weighing Bridge Scale
Digital Load Cell
Digital Indicator
Digital Score Board
Junction Box | Chequer Plate | Girder
Digital Scale | Digital Floor Scale

|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
স্বাধীন বাংলা ডট কম
মো. খয়রুল ইসলাম চৌধুরী কর্তৃক সম্পাদিত ও ঢাকা-১০০০ হতে প্রকাশিত ।

প্রধান উপদেষ্টা: ফিরোজ আহমেদ (সাবেক সচিব, বাণিজ্য মন্ত্রণালয়)
সম্পাদক মন্ডলীর সভাপতি: ডাঃ মো: হারুনুর রশীদ
ব্যবস্থাপনা সম্পাদক : মো: খায়রুজ্জামান
বার্তা সম্পাদক: মো: শরিফুল ইসলাম রানা
সহ: সম্পাদক: জুবায়ের আহমদ
বিশেষ প্রতিনিধি : মো: আকরাম খাঁন
যুক্তরাজ্য প্রতিনিধি: জুবের আহমদ
যোগাযোগ করুন: swadhinbangla24@gmail.com
    2015 @ All Right Reserved By swadhinbangla.com

Developed BY : Dynamic Solution IT   Dynamic Scale BD