| বাংলার জন্য ক্লিক করুন
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|

  
Share Button
   সম্পাদকীয়
শিল্পায়নে বাধা
  তারিখ: 04 - 04 - 2019

ব্যাংক ঋণ শিল্পায়নে বড় বাধা হয়ে দাঁড়িয়েছে। অথচ তা হওয়ার কথা ছিল না। স্বয়ং প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা এই অবস্থান পরিবর্তনের কথা গুরুত্ব দিয়ে বলেছেন। বলেছেন ব্যাংকের সুদের হার কমানোর প্রক্রিয়া উদ্ভাবন করতে হবে। এটা তো বাস্তব যে, বাংলাদেশের শিল্পকে বহুমুখী করা সময়ের দাবি। কিন্তু সে দাবির প্রতি কারও যেন ভ্রুক্ষেপ নেই। শিল্পোদ্যোক্তাদের নতুন নতুন প্রযুক্তি এবং উদ্ভাবনী চিন্তা নিয়ে যেখানে দেশে ও বিদেশে বাজার সৃষ্টি করা সঙ্গত, সেখানে হাত গুটিয়ে বসে থাকা কোন যুক্তিযুক্ত পন্থা হতে পারে না। দেশীয় শিল্পোদ্যোক্তাদের নতুনভাবে নতুন প্রযুক্তি ব্যবহার করে কীভাবে শিল্পায়ন ঘটানো যায় সে নিয়ে চিন্তা-ভাবনা ও পরিকল্পনা গ্রহণ করা উচিত। সেখানে পুরনো ধারা নিয়ে ব্যতিব্যস্ত থাকা গ্রহণযোগ্য হতে পারে না। তারা অবশ্য বলে থাকে ব্যাংক ঋণের সুদের হার এ ক্ষেত্রে বড় প্রতিবন্ধক। সে জন্যযথাযথ পদক্ষেপ গ্রহণের বিকল্প কিছু নেই। কিন্তু এটাও তো সত্য, ঋণ নিয়ে যদি ঋণের অর্থ যথা সময়ে ফেরত দেয়া এবং সুদ পরিশোধ করা হয়, তবে বাধা সঙ্কুচিত হতে যেমন বাধ্য, তেমনি ব্যাংকগুলোর সচল অবস্থান নড়বড়ে হতে পারে না। আর তখন ব্যাংকগুলোও সুদের হার কমিয়ে আনতে পারে। কিন্তু এদেশীয় শিল্পোদ্যোক্তাদের সংস্কৃতি হয়ে দাঁড়িয়েছে ঋণ শোধ না করা। এই প্রবণতা কোন ক্ষেত্রকেই বিকশিত করার সহায়ক নয়। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ঋণের উচ্চ সুদের হার নিয়ে অতীতে ব্যাংক মালিকদের সঙ্গে বৈঠক এবং আলোচনা করেছেন। আগে সরকারী প্রতিষ্ঠানের সত্তর ভাগ অর্থ সরকারী ব্যাংকে আর ত্রিশভাগ অর্থ বেসরকারী ব্যাংকে রাখা হতো। ব্যাংক মালিকরা দাবি তোলেন যে, এই হার যদি সমান সমান অর্থাৎ ৫০ ভাগ করা হয় তাহলে সুদের হার একক ‘ডিজিটে’ নামিয়ে আনা হবে। সরকার তাতে সম্মতিও প্রদান করে।
সুদের হার নয় শতাংশে নামিয়ে আনলেও সকল ব্যাংক তা করেনি। বরং বাড়াতে বাড়াতে তা ১৪, ১৫ ও ১৬তে নিয়ে গেছে। কেন তারা করেনি সে বিষয়ে কোন ব্যাখ্যাও প্রদান করেনি। অথচ এই ব্যাংক মালিকদের শিল্প-কলকারখানা রয়েছে। তারাও ব্যবসা-বাণিজ্য করছে। সেই তারাই সিদ্ধান্ত মেনে ঋণের হার একক ডিজিটে আনার পক্ষপাতী কেন নয়, তা আসলেই বোধগম্য নয়। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ক্ষমতায় আসার পর বেসরকারী খাতকে সবচেয়ে বেশি উন্মুক্ত করে দিয়েছেন। দেশে সত্তর লাখের মতো শিল্প-কারখানা বেসরকারী খাতে রয়েছে। প্রতিবছর সেখানে একজন লোকও কাজের সুযোগ পেলে সত্তর লাখ লোক কাজ পেতে পারে। বাস্তবে তার কিছুই দেখা যায় না। বর্তমান সরকার সবচেয়ে বেশি ব্যাংক-বীমা করার সুযোগ-সুবিধা দিয়েছে ব্যবসা-বাণিজ্যকে গতিশীল করার জন্য। মানুষের মধ্যে ব্যাংকের ব্যবহারের প্রবণতাও সরকারই তৈরি করে দিয়েছে। এটা তো সর্বজনবিদিত যে, বর্তমান সরকার ব্যবসায়ীবান্ধব। ব্যবসায়ীরা যেন নিজের পায়ে দাঁড়াতে পারে ও ব্যবসা-বাণিজ্য ভালভাবে করতে পারে এবং দ্রুত শিল্পায়ন হয় সে লক্ষ্যে নানাবিধ পদক্ষেপ নিয়েছে গত দশ বছরে। দেশে এমন বহু পণ্য রয়েছে যা উৎপাদন ও বাজারজাত করে শিল্পায়ন এবং কৃষিকে রক্ষার পাশাপাশি দেশের অর্থনৈতিক উন্নতি ঘটানো যায়। দেশে যুগোপযোগী শিল্পনীতি রয়েছে। সেই নীতি অনুযায়ী শিল্পায়নের জন্য আরও বেশি প্রচেষ্টা এবং শ্রমঘন শিল্প গড়ে তোলা অত্যাবশ্যক। ব্যাংক ঋণ নিয়ে বিদ্যমান ‘জটিলতা’ অবিলম্বে দূর করে দেশকে শিল্প-বাণিজ্যে আরও এগিয়ে নিতে হবে। মধ্যম আয়ের দেশে উন্নীত হওয়ার পথে সব প্রতিবন্ধক দূর করতে হবে।





         
   আপনার মতামত দিন
     সম্পাদকীয়
পুঁজিবাজারে দরপতন
.............................................................................................
কৃষিতে কৃষকের অরুচি সুরক্ষামূলক ব্যবস্থা গ্রহণ জরুরি
.............................................................................................
প্রকল্পে সরাসরি অর্থ ছাড় স্বচ্ছতা ও জবাবদিহি নিশ্চিত করুন
.............................................................................................
ঝুঁকিতে দুই কোটি শিশু এদের স্বাস্থ্য ও শিক্ষা নিশ্চিত করুন
.............................................................................................
অ্যান্টিবায়োটিকের অপব্যবহার ভয়ংকর পরিণতি থেকে রক্ষা পেতে হবে
.............................................................................................
বাড়ছে শ্রমিক অসন্তোষ মজুরি কমিশনের সুপারিশ আমলে নিন
.............................................................................................
রমজানে বাজারদর স্থিতিশীল রাখার ব্যবস্থা নিতে হবে
.............................................................................................
শিল্পায়নে বাধা
.............................................................................................
সড়কে মর্মান্তিক মৃত্যু ফিটনেসবিহীন গাড়ি চলাচল বন্ধ করুন
.............................................................................................
ডাক্তারদের প্রাইভেট প্র্যাকটিস প্রধানমন্ত্রীর নির্দেশনা বাস্তবায়িত হোক
.............................................................................................
পেট কাটলেন নার্স, ডাক্তার বললেন ‘ঝামেলা আছে সেলাই করে দাও’
.............................................................................................
বাড়ছে উত্তাপ-উত্তেজনা
.............................................................................................
নির্বাচনের পরিবেশ
.............................................................................................
ক্ষতিপূরণ পেতে ভোগান্তি
.............................................................................................
জননিরাপত্তা নিয়ে শঙ্কা
.............................................................................................
পরিবেশের প্রধান শত্রু প্লাস্টিক
.............................................................................................
বিদেশে পাড়ি জমাচ্ছে রোহিঙ্গারা
.............................................................................................
খুরা রোগের টিকা
.............................................................................................
চিকিৎসা বীমা
.............................................................................................
মাদকবিরোধী কর্মপরিকল্পনা
.............................................................................................
পানিও নিরাপদ নয়
.............................................................................................
মুদ্রাপাচার বেড়েই চলেছে
.............................................................................................
মুদ্রাপাচার বেড়েই চলেছে
.............................................................................................
মাদকে মৃত্যুদন্ড
.............................................................................................
বিশ্বমানের চিকিৎসা
.............................................................................................
গুজবের পিছে ছুটছে মানুষ
.............................................................................................
মিয়ানমারের নতুন উসকানি
.............................................................................................
স্বর্ণ নীতিমালা
.............................................................................................
শিশু যখন শ্রমিক
.............................................................................................
বেহাল স্বাস্থ্যসেবা
.............................................................................................
সম্ভাবনার কাঁকড়া শিল্প
.............................................................................................
ডিজিটাল নিরাপত্তা আইন
.............................................................................................
ক্ষতিকর এনার্জি ড্রিংকস
.............................................................................................
মির্জাপুরে কাঠ পোড়ানো চুল্লি
.............................................................................................
হুমকিতে তিন-চতুর্থাংশ মানুষ
.............................................................................................
বেহাল সড়ক ও সেতু
.............................................................................................
সর্বোচ্চ মৃত্যু বাংলাদেশে
.............................................................................................
নতুন মাদক খাত
.............................................................................................
ডিজিটাল নিরাপত্তা আইন
.............................................................................................
সম্পর্কে নতুন মাত্রা
.............................................................................................
ডিজিটাল নিরাপত্তা বিল ২০১৮ বিতর্কিত ধারাগুলো পর্যালোচনা করুন
.............................................................................................
পরিবেশদূষণ বড় ঘাতক
.............................................................................................
ডিবি পরিচয়ে তুলে নেওয়া
.............................................................................................
ভুলে ভরা এনআইডি
.............................................................................................
পদ্মার ভয়াবহ ভাঙন
.............................................................................................
বিপর্যস্ত স্বাস্থ্যসেবা
.............................................................................................
ক্যান্সার শনাক্তে প্রযুক্তি
.............................................................................................
নদীতে বিলীন হচ্ছে জনপদ
.............................................................................................
ক্যান্সার শনাক্ত করার প্রযুক্তি
.............................................................................................
কর্মজীবী নারীর সমস্যা
.............................................................................................

|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
স্বাধীন বাংলা মো. খয়রুল ইসলাম চৌধুরী কর্তৃক সম্পাদিত ও ঢাকা-১০০০ হতে প্রকাশিত
প্রধান উপদেষ্টা: ফিরোজ আহমেদ (সাবেক সচিব, বাণিজ্য মন্ত্রণালয়)
উপদেষ্টা: আজাদ কবির
সম্পাদক মন্ডলীর সভাপতি: ডাঃ হারুনুর রশীদ
সম্পাদক মন্ডলীর সহ-সভাপতি: মামুনুর রশীদ
ব্যবস্থাপনা সম্পাদক : মো: খায়রুজ্জামান
যুগ্ম সম্পাদক: জুবায়ের আহমদ
বার্তা সম্পাদক: মুজিবুর রহমান ডালিম
স্পেশাল করাসপনডেন্ট : মো: শরিফুল ইসলাম রানা
যুক্তরাজ্য প্রতিনিধি: জুবের আহমদ
যোগাযোগ করুন: swadhinbangla24@gmail.com
    2015 @ All Right Reserved By swadhinbangla.com

Developed By: Dynamicsolution IT [01686797756]