| বাংলার জন্য ক্লিক করুন
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|

  
Share Button
   জাতীয়
অপরিকল্পিত নগরায়ন এবং অসচেতনতায় রাজধানীতে অগ্নিঝুঁকি দিন দিন তীব্র হচ্ছে
  তারিখ: 10 - 04 - 2019

অগ্নিঝুঁকিতে রয়েছে পুরো ঢাকা মহানগরী। মূলত অপরিকল্পিত নগরায়নের কারণেই এমন পরিস্থিতির সৃষ্টি হয়েছে। বর্তমানে রাজধানী শহরের দু-একটি ভবন বাদে প্রায় সব ভবনই অগ্নিঝুঁকিতে রয়েছে। ইতিমধ্যে রাজধানীতে একের পর এক অগ্নিকা-ে ঝরে যাচ্ছে মূল্যবান প্রাণ, ধ্বংস হয়ে যাচ্ছে বিপুল অর্থের সম্পদ। এমন পরিস্থিতিতে বিশেষজ্ঞরা কমপ্লায়েন্স কমিশন গঠনের কথা বলছেন। তাদের মতে, যেসব কারণে রাজধানী বাসযোগ্যতা হারাচ্ছে, অপরিকল্পিত নগরায়ণ তার অন্যতম। নগরায়ণ পরিকল্পনা অনুযায়ী না হওয়ায় দুর্যোগ মোকাবেলায় যেসব অনুষঙ্গ প্রয়োজন, বিদ্যমান ভবনগুলোতে সেগুলো নেই। আর কোনো ট্র্যাজেডির পর কিছু উদ্যোগ নেয়া হলেও তার যথাযথ বাস্তবায়ন হয় না। এমনকি গড়ে ওঠা অবকাঠামোগুলোর পর্যবেক্ষণেও যথাযথ কর্তৃপক্ষের উদাসীনতা লক্ষণীয়। ফলে সার্বিকভাবে রাজধানীতে অগ্নিঝুঁকির মাত্রা বেড়েই চলছে। ফায়ার সার্ভিস অ্যান্ড সিভিল ডিফেন্স অধিদপ্তর, রাজউক এবং সংশ্লিষ্ট অন্যান্য সূত্রে এসব তথ্য জানা যায়।

সংশ্লিষ্ট সূত্র মতে, রাজধানীর অধিকাংশ বহুতল ভবনই অগ্নিদুর্ঘটনা রোধে যেসব অগ্নিনিরাপত্তা সামগ্রী থাকা প্রয়োজন, নির্মাণ কাঠামো যেমন হওয়া প্রয়োজন তার অভাব রয়েছে। বরং অনেক ক্ষেত্রেই অনুমোদন ছাড়া এবং ঝুঁকি বিবেচনা না করেই ভবনের তলার সংখ্যা বাড়ানো হয়েছে। অথচ প্রতিটি নগরেরই বৈশ্বিক মানদন্ড থাকে। ঢাকা শহরে ওই মানদন্ডের কিছুই নেই। যে সংস্থার যে দায়িত্ব, তারা তা ঠিকমতো পালন করছে না। এমনকি সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষগুলোকে জবাবদিহির মধ্যেও আনা হয় না। কিন্তু অগ্নিদুর্ঘটনা কী কারণে ঘটছে, কার গাফিলতিতে ঘটছে, তা উদ্ঘাটন করা গেলে এবং দায়ি ব্যক্তিদের শাস্তি দেওয়া হলে ওসব দুর্ঘটনা কিছুটা হলেও কমতো। কিন্ত জবাবদিহির বড় অভাব। ফলে এমন পরিস্থিতি থেকে উত্তরণে সরকারকে অবশ্যই শক্ত হতে হবে।

সূত্র জানায়, রাজধানীতে রাজউক আওতাধীন এলাকায় ২৫ লাখ স্থাপনা রয়েছে। তার মধ্যে ৬তলা পর্যন্ত স্থাপনা আছে ২১ লাখ ৫০ হাজার। ৭তলা থেকে ২৪-২৫ তলা ভবন আছে ৮৮ হাজার। সেগুলোর মধ্যে ১০ তলা এবং ১০ তলার বেশি উচ্চতাসম্পন্ন বহুতল ইমারত রয়েছে প্রায় ৪ হাজার। সেগুলোর মধ্যে ব্যাপকভাবে অগ্নিঝুঁকিতে ৩ হাজার ৭৭২টি ভবন। ২০১৭ সালে ফায়ার সার্ভিস রাজধানীর শপিংমল, মার্কেট, শিক্ষা প্রতিষ্ঠান, ব্যাংক, হাসপাতাল, আবাসিক হোটেল ও মিডিয়া সেন্টারসহ বিভিন্ন অবকাঠামোর ওপর পরিচালিত জরিপে ওই চিত্র উঠে আসে। ফায়ার সার্ভিস বলছে, ওসব প্রতিষ্ঠানের অগ্নিনিরাপত্তা সংক্রান্ত ফায়ারসেফটি প্ল্যান নেই। ওই সময় ৩ হাজার ৮৫৫টি প্রতিষ্ঠান পরিদর্শন করা হয়। তখন সরকারি-বেসরকারি ৪৩৩টি হাসপাতালের মধ্যে ১৭৩টিকে খুবই ঝুঁকিপূর্ণ ও ২৪৯টিকে ঝুঁকিপূর্ণ হিসেবে চিহ্নিত করা হয়। ৩২৫টি আবাসিক হোটেলের ৭০টি খুবই ঝুঁকিপূর্ণ এবং ২৪৮টি ঝুঁকিপূর্ণ হিসেবে চিহ্নিত করা হয়। ২৬টি মিডিয়া ভবনের মধ্যে মাত্র দুটির অগ্নিনিরাপত্তা প্রস্তুতি সন্তোষজনক বলে জানা যায়। অথচ অগ্নিকান্ডসহ যে কোনো দুর্যোগ ঝুঁকি এড়াতে একটি অবকাঠামো কীভাবে গড়ে উঠবে, সে ব্যাপারে ইমারত নির্মাণ বিধিমালা ও বাংলাদেশ ন্যাশনাল বিল্ডিং কোডে (বিএনবিসি) বিস্তারিত উল্লেখ রয়েছে। যদিও ইমারত নির্মাণ বিধিমালাটিও আধুনিকায়ন করা প্রয়োজন। তারপরও বিদ্যমান নিয়মগুলো অনুসরণ করে ভবন তৈরি করা হলে এবং সে অনুযায়ী অগ্নিনির্বাপক সামগ্রী থাকলে নগরবাসী অগ্নিঝুঁকি থেকে অনেকটাই নিরাপদ থাকতে পারবে। তবে সেক্ষেত্রে ভবনের বাসিন্দাদের সচেতনতা এবং ন্যূনতম অগ্নিনির্বাপণের প্রশিক্ষণও থাকতে হবে। কিন্তু এর সবকিছুরই অভাব রয়েছে।

সূত্র আরো জানায়, গত ১০ বছরে রাজধানীসহ সারাদেশে প্রায় ১৬ হাজার অগ্নিকান্ডের ঘটনা ঘটেছে। সেগুলোতে এক হাজার ৫৯০ জন প্রাণ হারিয়েছেন। অথচ রাজধানী ঢাকায় অপরিকল্পিতভাবে ভবন গড়ে তোলা হচ্ছে। ভবনগুলোতে যথেষ্ট পরিমাণে অগ্নিনির্বাপণ ব্যবস্থা রাখা হচ্ছে না। আকাশচুম্বী ভবনগুলো একটি আরেকটার গা ঘেঁষে আছে। তাই দিন দিন আগুনের কাছে অসহায় হয়ে পড়ছে ঢাকা। অথচ রাজউকের দায়িত্ব রাজধানীতে ভবন নির্মাণের সময় নকশা অনুযায়ী বিদ্যুতায়ন ও এয়ারকন্ডিশন ব্যবস্থা, ফায়ার অ্যালার্ম সিস্টেম, বহির্গমনের পথ ও স্বয়ংক্রিয় অগ্নিনির্বাপণ ব্যবস্থা আছে কি-না তা নিশ্চিত করা। বর্তমানে ঢাকা শহরে একটি অগ্নিগর্ভে পরিণত হয়েছে। শহরটির মাটির নিচেও আগুন, ওপরেও আগুন। মাটির নিচে গ্যাস, বিদ্যুৎ ও টেলিফোনের লাইন; ওপরেও বিদ্যুতের লাইন, বিভিন্ন তারের লাইন। ওসব লাইনে যদি কোনো সময় আগুন লেগে গ্যাসপাইপের সঙ্গে সংযুক্ত হয়ে যায়, তাহলে পুরো ঢাকা শহর অগ্নিকু-ে পরিণত হবে। তখন কোন ভবন বাদ দিয়ে কোনটার আগুন নেভাবে ফায়ার সার্ভিস? আসলে ঢাকা শহরের যে অবস্থা, তাতে প্রতিদিনই আগুন লাগার কথা।

এদিকে বিশেষজ্ঞরা বলছেন, বর্তমান অবস্থায় রাজধানীর ভবনগুলোয় সব ধরনের দুর্যোগ মোকাবেলায় একটি কমপ্লায়েন্স কমিশন গঠনের সময় এসেছে। যেভাবে রানা প্লাজায় দুঘটনার পর গার্মেন্ট কারখানাগুলোতে কমপ্লায়েন্স নিশ্চিত করা হয়েছে, ঠিক একইভাবে আবাসিক এবং বাণিজ্যিক ভবনেও কমপ্লায়েন্স নিশ্চিত করতে হবে। কারণ পুরান ঢাকা ও নতুন ঢাকা সব জায়গাতেই অগ্নিদুর্ঘটনা ঘটছে। রাজধানীর ভবনগুলোতে কোনো অ্যাভোকেশন প্ল্যান এবং অ্যাভোকেশন রুট নেই। তাই কোনো দুর্যোগ এলে ভবনের বসবাসকারীরা বুঝতে পারেন না কী ঘটতে যাচ্ছে, কোন পথে বেরোতে হবে। ভবনগুলোতে ফায়ার অ্যালার্ম নেই। নেই ফায়ার স্টিংগুইশার। যেগুলো থাকে সেগুলোরও মেয়াদ থাকে না। থাকলেও বাসিন্দারা ব্যবহার জানেন না। ভবনগুলোতে ফায়ার প্রুফ দরজা থাকার কথা- যা তাপ ও দাহ্যতা থেকে মানুষকে নিরাপত্তা দেবে। কিন্তু বাস্তবে তা নেই। এসব কারণে হতাহতের সংখ্যা বাড়ছে। অবশ্যই ভবনগুলোতে ফায়ার হাইড্রেন্ট ও স্ট্রিংলার সিস্টেম থাকতে হবে। কোনো তলার তাপমাত্রা ৬২ ডিগ্রি সেলসিয়াস ক্রস করলেই স্বয়ংক্রিয়ভাবে জেনারেটর চালু হবে। সঙ্গে সঙ্গে জকিপাম্প চালু হবে। স্বয়ক্রিয়ভাবে স্ট্রিংলার সিস্টেমের মাধ্যমে পানি ঝরে পড়তে শুরু করবে। ধোঁয়া শনাক্তকারী যন্ত্র থাকতে হবে। একটি মাত্রার পর গেলে সেটাও সিগন্যাল দিতে থাকবে। কিন্তু রাজধানীর ভবনগুলোতে এসবের কিছুই দেখা যায় না।

অন্যদিকে এসব প্রসঙ্গে রাজউকের চেয়ারম্যান আব্দুর রহমান জানান, এখন রাউজকের ২৪টা দল প্রতিদিন মাঠ পর্যায়ে গিয়ে ভবনের সব ধরনের অনিয়মের তথ্য সংগ্রহ করছে। ওসব রিপোর্ট পাওয়ার পর ব্যবস্থা নেয়া শুরু হবে। অনিয়ম করে কোনো ভবন কেউ টিকিয়ে রাখতে পারবে না।
এ প্রসঙ্গে ফায়ার সার্ভিস অ্যান্ড সিভিল ডিফেন্স অধিদপ্তরের পরিচালক মেজর একেএম শাকিল নেওয়াজ জানান, অগ্নিনিরাপত্তা বিষয়ে যেসব প্রতিষ্ঠানকে নোটিশ দেয়া হয়েছিল তারা বিষয়টি আমলে নেয়নি। সর্বশেষ বনানীর এফ আর টাওয়ারের অগ্নিকান্ডের পর রাজউক মাঠে নেমেছে।





         
   আপনার মতামত দিন
     জাতীয়
বিএনপি নেতা ব্যারিস্টার আমিনুল হকের ইন্তেকাল
.............................................................................................
তিন দিনের সরকারি সফরে ব্রুনেইয়ের পথে প্রধানমন্ত্রী
.............................................................................................
১০ বছরের মধ্যে বুড়িগঙ্গাকে একটি ভাল অবস্থানে নিয়ে যেতে চাই: নৌ-প্রতিমন্ত্রী
.............................................................................................
ফের প্রতিমন্ত্রীর পদমর্যাদা পাচ্ছেন রাসিক মেয়র লিটন
.............................................................................................
ভোটার তালিকায় রোহিঙ্গা ঠেকাতে কঠোর ইসি
.............................................................................................
মুক্তিযুদ্ধের ইতিহাস বারবার বিকৃত হয়েছে: রেলমন্ত্রী
.............................................................................................
রোববার ব্রুনাই যাচ্ছেন প্রধানমন্ত্রী
.............................................................................................
২১ এপ্রিলই শবেবরাত
.............................................................................................
সরকারি চাকরিতে প্রবেশের বয়সসীমা ৩৫ বছর করতে আসছে সিদ্ধান্ত প্রস্তাব
.............................................................................................
ধর্মপ্রাণ মানুষকে মাদক ও জঙ্গিবাদের বিরুদ্ধে জিহাদ করতে হবে: আমু
.............................................................................................
২৩ এপ্রিল থেকে ভোটার তালিকা হালনাগাদে তথ্য সংগ্রহ শুরু
.............................................................................................
দেশজুড়ে ৯৬ ঘণ্টার ধর্মঘট পালন করছে পাটকল শ্রমিকরা
.............................................................................................
পোকা দৌড়াচ্ছে ১০ টাকা কেজির চালে
.............................................................................................
সব বিভাগীয় শহরে বিটিভির কেন্দ্র স্থাপন করার প্রকল্প হাতে নেওয়া হয়েছে: তথ্যমন্ত্রী
.............................................................................................
পূর্বাচল স্টেডিয়াম বানিয়ে বিশ্বকে দেখিয়ে দেবে বাংলাদেশ
.............................................................................................
হজযাত্রীদের ইমিগ্রেশন সৌদির পরিবর্তে বাংলাদেশে সম্পন্ন করার সিদ্ধান্ত
.............................................................................................
পহেলা বৈশাখে ৬টার পর অনুষ্ঠান নয়, মুখোশ থাকবে হাতে: ডিএমপি
.............................................................................................
নানা সীমাবদ্ধতায়ও প্রতি বছরই দেশে আমনের উৎপাদন বাড়ছে
.............................................................................................
নগদ টাকার সংকটে ভুগছে সরকার
.............................................................................................
নুসরাতের হত্যাকারীদের বিরুদ্ধে কঠোর ব্যবস্থা নিতে প্রধানমন্ত্রীর নির্দেশ
.............................................................................................
দেশে প্রতিদিন পানিতে ডুবে ৩০ শিশুর মৃত্যু
.............................................................................................
শাস্তির মুখোমুখি না হওয়ায় বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয়ের আইনের তোয়াক্কা নেই
.............................................................................................
রেলের বেহাত হওয়া হাজার হাজার একর জমি উদ্ধারে জোরালো তৎপরতা নেই
.............................................................................................
অগ্নিদগ্ধ নুসরাত জাহান রাফিকে বাঁচানো গেল না
.............................................................................................
টেকসই উন্নয়ন নিশ্চিত করতে অধিকতর গবেষণার উপর প্রধানমন্ত্রীর গুরুত্বারোপ
.............................................................................................
আজ বিশ্ব হোমিওপ্যাথি দিবস
.............................................................................................
পদ্মা সেতু: মাওয়ায় ১০ম স্প্যান বসতে যাচ্ছে আজ
.............................................................................................
অপরিকল্পিত নগরায়ন এবং অসচেতনতায় রাজধানীতে অগ্নিঝুঁকি দিন দিন তীব্র হচ্ছে
.............................................................................................
বিপুলসংখ্যক মামলার তদন্ত নির্ধারিত সময়ে শেষ করতে পারেনি দুদক
.............................................................................................
রোহিঙ্গাদের নিরাপদ প্রত্যাবাসনের দায়িত্ব মিয়ানমারকেই নিতে হবে: পম্পেও
.............................................................................................
গ্যাসের মূল্য বৃদ্ধি বিনিয়োগ ও কর্মসংস্থানের ওপর নেতিবাচক প্রভাব ফেলবে
.............................................................................................
ভোটার তালিকা হালনাগাদ শুরু ২৩ এপ্রিল
.............................................................................................
উন্নয়ন প্রকল্পে গতি আনতে অর্থ ছাড় ও ব্যবহারে বৃদ্ধি পেয়েছে পিডিদের ক্ষমতা
.............................................................................................
নদীবন্দরে ২ নং নৌ হুশিয়ারী সংকেত
.............................................................................................
বিনিয়োগের অভাবে পিছিয়ে পড়ছে বিদ্যুৎ বিতরণ ব্যবস্থার আধুনিকায়ন
.............................................................................................
জনবল সঙ্কটে সেবার মান রক্ষা করতে পারছে না রেলওয়ে
.............................................................................................
রেড এলার্ট জারির মতো কোন ঘটনা এখনও ঘটেনি: স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী
.............................................................................................
সড়ক দুর্ঘটনাকে এক নম্বর চ্যালেঞ্জ হিসেবে নিতে হবে: ইলিয়াস কাঞ্চন
.............................................................................................
রাষ্ট্রের অনৈতিক কাজের বিচার হয় না: আবুল মকসুদ
.............................................................................................
স্থল ও স্থলভাগে বড় পরিসরে গ্যাস অনুসন্ধানে যাচ্ছে সরকার
.............................................................................................
বাধ্য না হলে বাণিজ্যিক ও আবাসিক ভবন মালিকদের বীমায় আগ্রহ নেই
.............................................................................................
সরকারি প্রণোদনায় লক্ষ্যমাত্রা ছাড়িয়ে গেছে বোরো আবাদ
.............................................................................................
বৈদ্যুতিক সামগ্রীর যথাযথ তদারকির অভাব ও নিন্মমান ক্রমাগত অগ্নিঝুঁকি বাড়াচ্ছে
.............................................................................................
শিগগিরই দেশে যক্ষ্মা রোগের ওষুধ তৈরি হবে: স্বাস্থ্যমন্ত্রী
.............................................................................................
৭০ শতাংশ বহুতল ভবনই ত্রুটিযুক্ত
.............................................................................................
আলোচনার মাধ্যমেই রোহিঙ্গা সংকট সমাধান : প্রধানমন্ত্রী
.............................................................................................
ডিএনসিসির ঝুঁকিপূর্ণ অর্ধডজন মার্কেট ভেঙ্গে ফেলার উদ্যোগ
.............................................................................................
প্রতিনিয়ত ব্যাপক পরিবেশ দূষণেও বিশেষায়িত আদালতে মামলা নেই
.............................................................................................
সমুদ্র বন্দর ব্যবহারে মাশুলে ছাড় চায় ভুটান
.............................................................................................
রাস্তা পারাপারে ওভারব্রিজ ব্যবহার না করলে এক ঘণ্টার কাউন্সিলিং
.............................................................................................

|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
স্বাধীন বাংলা মো. খয়রুল ইসলাম চৌধুরী কর্তৃক সম্পাদিত ও ঢাকা-১০০০ হতে প্রকাশিত
প্রধান উপদেষ্টা: ফিরোজ আহমেদ (সাবেক সচিব, বাণিজ্য মন্ত্রণালয়)
উপদেষ্টা: আজাদ কবির
সম্পাদক মন্ডলীর সভাপতি: ডাঃ হারুনুর রশীদ
সম্পাদক মন্ডলীর সহ-সভাপতি: মামুনুর রশীদ
ব্যবস্থাপনা সম্পাদক : মো: খায়রুজ্জামান
যুগ্ম সম্পাদক: জুবায়ের আহমদ
বার্তা সম্পাদক: মুজিবুর রহমান ডালিম
স্পেশাল করাসপনডেন্ট : মো: শরিফুল ইসলাম রানা
যুক্তরাজ্য প্রতিনিধি: জুবের আহমদ
যোগাযোগ করুন: swadhinbangla24@gmail.com
    2015 @ All Right Reserved By swadhinbangla.com

Developed By: Dynamicsolution IT [01686797756]