| বাংলার জন্য ক্লিক করুন
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|

  
Share Button
   সম্পাদকীয়
পুঁজিবাজারে দরপতন
  তারিখ: 13 - 04 - 2019

   ধস ঠেকাতে কার্যকর পদক্ষেপ নিন    

পুঁজিবাজারে দরপতন অব্যাহত। পরিস্থিতি সামাল দেওয়ার জন্য করণীয় নির্ধারণ করতে সংশ্লিষ্ট ব্যক্তিরা জরুরি বৈঠক করেছেন; কিন্তু ফলোদয় হয়নি। দরপতন থামেনি, বরং আরো বেড়েছে। ঢাকা স্টক এক্সচেঞ্জের (ডিএসই) লেনদেন এক বছর আগে যেখানে ছিল, সেখানেই ফিরে গেছে। গত বুধবার লেনদেন হয়েছে মাত্র ৩০০ কোটি টাকা। চট্টগ্রাম স্টক এক্সচেঞ্জেও (সিএসই) দরপতন হয়েছে, লেনদেন কমেছে। কেন এ রকম হচ্ছে? সাধারণ বিনিয়োগকারীদের অভিযোগ, শীর্ষস্থানীয় বিনিয়োগকারীরা পরিকল্পিতভাবে লেনদেনে নিষ্ক্রিয় থাকছে, যার ফলে দরপতন ঘটছে। পুঁজিবাজারের নিয়ন্ত্রক সংস্থার ভূমিকা নিয়েও তারা সন্দিহান, বিক্ষুব্ধ। তারা আস্থাহীনতায় ভুগছে।

ডিএসইর হিসাব পর্যালোচনায় দেখা যায়, গত বুধবার পর্যন্ত সাত দিনে পুঁজিবাজারের মূলধন ব্যাপক হারে কমেছে। গত ১ এপ্রিল ডিএসইতে বাজার মূলধন ছিল চার লাখ ১৩ হাজার ২৬০ কোটি সাত লাখ টাকা; বুধবার তিন লাখ ৯২ হাজার ৮৯৫ কোটি ৮৩ লাখ টাকায় দাঁড়ায়। অর্থাৎ সাত দিনে মূলধন কমে ২০ হাজার ৩৮০ কোটি ২৪ লাখ টাকা। সেদিন ডিএসইতে লেনদেন হয় ২৭৪ কোটি ৮৩ লাখ টাকা। সূচক কমে ৫৭ পয়েন্ট। আগের দিন লেনদেন হয়েছিল ৩৬৫ কোটি ৯১ লাখ টাকা আর সূচক কমেছিল ৫৩ পয়েন্ট। অন্যদিকে সিএসইতে লেনদেন হয় ১২ কোটি ১০ লাখ টাকা। সূচক কমে ৯৯ পয়েন্ট। আগের দিন লেনদেন ছিল ১৮ কোটি ৯৩ লাখ টাকা, সূচক কমেছিল ৯৯ পয়েন্ট।


উদ্ভূত পরিস্থিতিতে ডিএসইর শীর্ষস্থানীয় ব্রোকাররা দরপতন ঠেকানোর উপায় ঠিক করার লক্ষ্যে জরুরি বৈঠকে বসেছিল গত মঙ্গলবার। বৈঠকে তারল্যসংকট, নঞর্থক আইপিও (ব্যাড আইপিও), লভ্যাংশ ও বিনিয়োগকারীর আস্থাহীনতাপ্রসূত বিক্রয় (প্যানিক সেল) বাড়ার বিষয় নিয়ে আলোচনা হয়। সেদিন বিকেলেই পুঁজিবাজার নিয়ন্ত্রক সংস্থা বাংলাদেশ সিকিউরিটিজ অ্যান্ড এক্সচেঞ্জ কশিমন (বিএসইসি) সংশ্লিষ্ট ব্যক্তিদের নিয়ে জরুরি বৈঠক করে। কিন্তু দফায় দফায় বৈঠক করা হলেও অবস্থার উন্নতি হয়নি, বরং পতন আরো ত্বরান্বিত হয়েছে। অব্যাহত পতনের ফলে ব্রোকাররা, বিনিয়োগকারীরা ক্ষতিগ্রস্ত। সাধারণ বিনিয়োগকারীরা বিক্ষুব্ধ। তারা বলছে, বিএসইসি দায়িত্ব পালনে সচেষ্ট নয়। তারা দায়িত্বে অবহেলা করছে; সরকারপ্রধানের সঙ্গেও প্রতারণা করছে। ফলে দেশের অর্থনীতি মারাত্মকভাবে ক্ষতিগ্রস্ত হচ্ছে। এ ধারা অব্যাহত থাকলে ২০১০ সালের মতো আরেকটি বড় ধস দেখা দেবে।


পুঁজিবাজারের স্বাস্থ্যের ওপর রাষ্ট্রের অর্থনীতি অনেকাংশে নির্ভরশীল। পুঁজিবাজারের সাধারণ বিনিয়োগকারীদের আস্থায় ধস নামলে অর্থনীতিতে মারাত্মক নেতিবাচক প্রভাব পড়ে। এর রাজনৈতিক প্রতিক্রিয়াও নেতিবাচক। বিষয়গুলো বিবেচনায় নিয়ে সরকারের তৎপর হওয়া জরুরি বলে আমরা মনে করি।পুঁজিবাজারে দরপতন
ধস ঠেকাতে কার্যকর পদক্ষেপ নিন
পুঁজিবাজারে দরপতন অব্যাহত। পরিস্থিতি সামাল দেওয়ার জন্য করণীয় নির্ধারণ করতে সংশ্লিষ্ট ব্যক্তিরা জরুরি বৈঠক করেছেন; কিন্তু ফলোদয় হয়নি। দরপতন থামেনি, বরং আরো বেড়েছে। ঢাকা স্টক এক্সচেঞ্জের (ডিএসই) লেনদেন এক বছর আগে যেখানে ছিল, সেখানেই ফিরে গেছে। গত বুধবার লেনদেন হয়েছে মাত্র ৩০০ কোটি টাকা। চট্টগ্রাম স্টক এক্সচেঞ্জেও (সিএসই) দরপতন হয়েছে, লেনদেন কমেছে। কেন এ রকম হচ্ছে? সাধারণ বিনিয়োগকারীদের অভিযোগ, শীর্ষস্থানীয় বিনিয়োগকারীরা পরিকল্পিতভাবে লেনদেনে নিষ্ক্রিয় থাকছে, যার ফলে দরপতন ঘটছে। পুঁজিবাজারের নিয়ন্ত্রক সংস্থার ভূমিকা নিয়েও তারা সন্দিহান, বিক্ষুব্ধ। তারা আস্থাহীনতায় ভুগছে।


ডিএসইর হিসাব পর্যালোচনায় দেখা যায়, গত বুধবার পর্যন্ত সাত দিনে পুঁজিবাজারের মূলধন ব্যাপক হারে কমেছে। গত ১ এপ্রিল ডিএসইতে বাজার মূলধন ছিল চার লাখ ১৩ হাজার ২৬০ কোটি সাত লাখ টাকা; বুধবার তিন লাখ ৯২ হাজার ৮৯৫ কোটি ৮৩ লাখ টাকায় দাঁড়ায়। অর্থাৎ সাত দিনে মূলধন কমে ২০ হাজার ৩৮০ কোটি ২৪ লাখ টাকা। সেদিন ডিএসইতে লেনদেন হয় ২৭৪ কোটি ৮৩ লাখ টাকা। সূচক কমে ৫৭ পয়েন্ট। আগের দিন লেনদেন হয়েছিল ৩৬৫ কোটি ৯১ লাখ টাকা আর সূচক কমেছিল ৫৩ পয়েন্ট। অন্যদিকে সিএসইতে লেনদেন হয় ১২ কোটি ১০ লাখ টাকা। সূচক কমে ৯৯ পয়েন্ট। আগের দিন লেনদেন ছিল ১৮ কোটি ৯৩ লাখ টাকা, সূচক কমেছিল ৯৯ পয়েন্ট।


উদ্ভূত পরিস্থিতিতে ডিএসইর শীর্ষস্থানীয় ব্রোকাররা দরপতন ঠেকানোর উপায় ঠিক করার লক্ষ্যে জরুরি বৈঠকে বসেছিল গত মঙ্গলবার। বৈঠকে তারল্যসংকট, নঞর্থক আইপিও (ব্যাড আইপিও), লভ্যাংশ ও বিনিয়োগকারীর আস্থাহীনতাপ্রসূত বিক্রয় (প্যানিক সেল) বাড়ার বিষয় নিয়ে আলোচনা হয়। সেদিন বিকেলেই পুঁজিবাজার নিয়ন্ত্রক সংস্থা বাংলাদেশ সিকিউরিটিজ অ্যান্ড এক্সচেঞ্জ কশিমন (বিএসইসি) সংশ্লিষ্ট ব্যক্তিদের নিয়ে জরুরি বৈঠক করে। কিন্তু দফায় দফায় বৈঠক করা হলেও অবস্থার উন্নতি হয়নি, বরং পতন আরো ত্বরান্বিত হয়েছে। অব্যাহত পতনের ফলে ব্রোকাররা, বিনিয়োগকারীরা ক্ষতিগ্রস্ত। সাধারণ বিনিয়োগকারীরা বিক্ষুব্ধ। তারা বলছে, বিএসইসি দায়িত্ব পালনে সচেষ্ট নয়। তারা দায়িত্বে অবহেলা করছে; সরকারপ্রধানের সঙ্গেও প্রতারণা করছে। ফলে দেশের অর্থনীতি মারাত্মকভাবে ক্ষতিগ্রস্ত হচ্ছে। এ ধারা অব্যাহত থাকলে ২০১০ সালের মতো আরেকটি বড় ধস দেখা দেবে।


পুঁজিবাজারের স্বাস্থ্যের ওপর রাষ্ট্রের অর্থনীতি অনেকাংশে নির্ভরশীল। পুঁজিবাজারের সাধারণ বিনিয়োগকারীদের আস্থায় ধস নামলে অর্থনীতিতে মারাত্মক নেতিবাচক প্রভাব পড়ে। এর রাজনৈতিক প্রতিক্রিয়াও নেতিবাচক। বিষয়গুলো বিবেচনায় নিয়ে সরকারের তৎপর হওয়া জরুরি বলে আমরা মনে করি।





         
   আপনার মতামত দিন
     সম্পাদকীয়
নিরাপদ হোক ঈদযাত্রা
.............................................................................................
দুর্যোগে করণীয়
.............................................................................................
পুঁজিবাজারে দরপতন
.............................................................................................
কৃষিতে কৃষকের অরুচি সুরক্ষামূলক ব্যবস্থা গ্রহণ জরুরি
.............................................................................................
প্রকল্পে সরাসরি অর্থ ছাড় স্বচ্ছতা ও জবাবদিহি নিশ্চিত করুন
.............................................................................................
ঝুঁকিতে দুই কোটি শিশু এদের স্বাস্থ্য ও শিক্ষা নিশ্চিত করুন
.............................................................................................
অ্যান্টিবায়োটিকের অপব্যবহার ভয়ংকর পরিণতি থেকে রক্ষা পেতে হবে
.............................................................................................
বাড়ছে শ্রমিক অসন্তোষ মজুরি কমিশনের সুপারিশ আমলে নিন
.............................................................................................
রমজানে বাজারদর স্থিতিশীল রাখার ব্যবস্থা নিতে হবে
.............................................................................................
শিল্পায়নে বাধা
.............................................................................................
সড়কে মর্মান্তিক মৃত্যু ফিটনেসবিহীন গাড়ি চলাচল বন্ধ করুন
.............................................................................................
ডাক্তারদের প্রাইভেট প্র্যাকটিস প্রধানমন্ত্রীর নির্দেশনা বাস্তবায়িত হোক
.............................................................................................
পেট কাটলেন নার্স, ডাক্তার বললেন ‘ঝামেলা আছে সেলাই করে দাও’
.............................................................................................
বাড়ছে উত্তাপ-উত্তেজনা
.............................................................................................
নির্বাচনের পরিবেশ
.............................................................................................
ক্ষতিপূরণ পেতে ভোগান্তি
.............................................................................................
জননিরাপত্তা নিয়ে শঙ্কা
.............................................................................................
পরিবেশের প্রধান শত্রু প্লাস্টিক
.............................................................................................
বিদেশে পাড়ি জমাচ্ছে রোহিঙ্গারা
.............................................................................................
খুরা রোগের টিকা
.............................................................................................
চিকিৎসা বীমা
.............................................................................................
মাদকবিরোধী কর্মপরিকল্পনা
.............................................................................................
পানিও নিরাপদ নয়
.............................................................................................
মুদ্রাপাচার বেড়েই চলেছে
.............................................................................................
মুদ্রাপাচার বেড়েই চলেছে
.............................................................................................
মাদকে মৃত্যুদন্ড
.............................................................................................
বিশ্বমানের চিকিৎসা
.............................................................................................
গুজবের পিছে ছুটছে মানুষ
.............................................................................................
মিয়ানমারের নতুন উসকানি
.............................................................................................
স্বর্ণ নীতিমালা
.............................................................................................
শিশু যখন শ্রমিক
.............................................................................................
বেহাল স্বাস্থ্যসেবা
.............................................................................................
সম্ভাবনার কাঁকড়া শিল্প
.............................................................................................
ডিজিটাল নিরাপত্তা আইন
.............................................................................................
ক্ষতিকর এনার্জি ড্রিংকস
.............................................................................................
মির্জাপুরে কাঠ পোড়ানো চুল্লি
.............................................................................................
হুমকিতে তিন-চতুর্থাংশ মানুষ
.............................................................................................
বেহাল সড়ক ও সেতু
.............................................................................................
সর্বোচ্চ মৃত্যু বাংলাদেশে
.............................................................................................
নতুন মাদক খাত
.............................................................................................
ডিজিটাল নিরাপত্তা আইন
.............................................................................................
সম্পর্কে নতুন মাত্রা
.............................................................................................
ডিজিটাল নিরাপত্তা বিল ২০১৮ বিতর্কিত ধারাগুলো পর্যালোচনা করুন
.............................................................................................
পরিবেশদূষণ বড় ঘাতক
.............................................................................................
ডিবি পরিচয়ে তুলে নেওয়া
.............................................................................................
ভুলে ভরা এনআইডি
.............................................................................................
পদ্মার ভয়াবহ ভাঙন
.............................................................................................
বিপর্যস্ত স্বাস্থ্যসেবা
.............................................................................................
ক্যান্সার শনাক্তে প্রযুক্তি
.............................................................................................
নদীতে বিলীন হচ্ছে জনপদ
.............................................................................................

|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
স্বাধীন বাংলা মো. খয়রুল ইসলাম চৌধুরী কর্তৃক সম্পাদিত ও ঢাকা-১০০০ হতে প্রকাশিত
প্রধান উপদেষ্টা: ফিরোজ আহমেদ (সাবেক সচিব, বাণিজ্য মন্ত্রণালয়)
উপদেষ্টা: আজাদ কবির
সম্পাদক মন্ডলীর সভাপতি: ডাঃ হারুনুর রশীদ
সম্পাদক মন্ডলীর সহ-সভাপতি: মামুনুর রশীদ
ব্যবস্থাপনা সম্পাদক : মো: খায়রুজ্জামান
যুগ্ম সম্পাদক: জুবায়ের আহমদ
বার্তা সম্পাদক: মুজিবুর রহমান ডালিম
স্পেশাল করাসপনডেন্ট : মো: শরিফুল ইসলাম রানা
যুক্তরাজ্য প্রতিনিধি: জুবের আহমদ
যোগাযোগ করুন: swadhinbangla24@gmail.com
    2015 @ All Right Reserved By swadhinbangla.com

Developed By: Dynamicsolution IT [01686797756]