| বাংলার জন্য ক্লিক করুন
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|

  
Share Button
   প্রশাসন
বেসরকারি হাসপাতালের আইসিইউর মান তদারকিতে নেমেছে স্বাস্থ্য অধিদফতর
  তারিখ: 11 - 05 - 2019

 দেশের বেসরকারি হাসপাতালগুলোর ইনটেনসিভ কেয়ার ইউনিটের (আইসিইউ) মান তদারকিতে নেমেছে স্বাস্থ্য অধিদফতর। ওই লক্ষ্যে মাঠে নেমেছে স্বাস্থ্য অধিদফতরের বিশেষ মনিটরিং টিম। মূলত কিছুসংখ্যক বেসরকারি হাসপাতালের বিরুদ্ধে প্রয়োজনীয় চিকিৎসা সুবিধা ও উপকরণ ছাড়াই আইসিইউ পরিচালনার পাশাপাশি উচ্চ আইসিইউ ফি আদায়ের অভিযোগ পাওয়ার প্রেক্ষিতে এই উদ্যোগ গ্রহণ করা হয়েছে। স্বাস্থ্য অধিদফতর সংশ্লিষ্ট সূত্রে এসব তথ্য জানা যায়।


সংশ্লিষ্ট সূত্র মতে, দেশে ইনটেনসিভ কেয়ার ইউনিট (আইসিইউ) চিকিৎসা সুবিধা খুবই সীমিত। দেশের চার-ভাগের তিন ভাগ সরকারি হাসপাতালে এ চিকিৎসা সুবিধা নেই। অথচ প্রয়োজনের সময় আইসিইউ চিকিৎসা সুবিধা না পেলে অনেক রোগীই মৃত্যুর কোলে ঢলে পড়ে। অনেক প্রাইভেট হাসপাতালে এ চিকিৎসা সুবিধা থাকলেও তা ব্যয়বহুল। গরিব রোগীর পক্ষে আকাশচুম্বি ওই চিকিৎসা ব্যয় বহন করা সম্ভব হয়ে ওঠে না। তাছাড়া দীর্ঘদিন ধরেই অধিকাংশ বেসরকারি হাসপাতালের আইসিইউ চিকিৎসাসেবা প্রশ্নবিদ্ধ। কারণ অনেক বেসরকারি হাসপাতালই আইসিইউর নামে উচ্চ চিকিৎসা ফি আদায় করলেও সেখানে সার্বক্ষণিক বিশেষজ্ঞ চিকিৎসক থাকে না। বরং সরকারি হাসপাতাল থেকে চিকিৎসক ডেকে নিয়ে নামমাত্র আইসিইউ সেবার কাজ চালানো হয়।


সূত্র জানায়, আইসিইউ যে কোন হাসপাতালের একটি নিবিড় পরিচর্যা কেন্দ্র। তাতে কৃত্রিম শ্বাস-প্রশ্বাস যন্ত্র, হার্ট মনিটরসহ বিভিন্ন যন্ত্রপাতি থাকে। সেখানে মুমূর্ষু রোগীর চিকিৎসা দেন এ্যানেসথেসিয়া এ্যানালজেসিয়া ও ইনটেনসিভ কেয়ার বিশেষজ্ঞ চিকিৎসক। আর ইমার্জেন্সি চিকিৎসা বলতে দুর্ঘটনা বা অপঘাতের রোগীর জীবন রক্ষায় তাৎক্ষণিক চিকিৎসা। সেক্ষেত্রে অক্সিজেন, ওষুধ, ছোটখাটো অপারেশন, রক্ত ও আইভি স্যালাইনের ব্যবস্থা। আইসিইউ চিকিৎসার ব্যয় অনেক বেশি। আবার সেটি চালু করতেও অনেক টাকার প্রয়োজন। ১০ বেডের একটি আইসিইউ চালু করতে কমপক্ষে ২ কোটি টাকা লাগে। অভিজ্ঞ চিকিৎসক, নার্সও নিয়োগ দিতে হয়। তাই ছোটখাটো হাসপাতালে এ ধরনের চিকিৎসাব্যবস্থা থাকে না। দুর্ঘটনার রোগীর চেতনা থাকা অবস্থায় শ্বাসকষ্ট দেখা দিলে ৫ থেকে ১০ মিনিটের মধ্যে এবং এ্যাজমা বা অন্য কোন রোগের কারণে এমনটি হলে দু-এক ঘণ্টা বিলম্বে মেডিসিন বা আইসিইউ সেবা পেলেও রোগী বেঁচে যান। সড়ক দুর্ঘটনাসহ যে কোন অপঘাতে জ্ঞান হারানোর পর মানুষের শরীরে মাত্র তিন থেকে পাঁচ মিনিট অক্সিজেন থাকে। কিন্তু এ সময়ের মধ্যে খুব কম মানুষই ইমার্জেন্সি মেডিসিনের নাগাল পায়।


সূত্র আরো জানায়, অনেক বেসরকারি হাসপাতালই ইনটেনসিভ কেয়ার ইউনিটের নামে উচ্চ চিকিৎসা ফি আদায় করছে। শুধু তাই নয়, প্রয়োজনীয় চিকিৎসা সুবিধা ও উপকরণ ছাড়াই চলছে রাজধানীর কিছুসংখ্যক হাসপাতালের ইনটেনসিভ কেয়ার ইউনিট (আইসিইউ)। অভিযোগ রয়েছে, প্রয়োজনের তুলনায় অতিরিক্ত মেডিক্যাল উপকরণ ও ওষুধের পরিমাণ দেখিয়ে বিল বাড়িয়ে দেয়া হয়। পর্যাপ্ত সংখ্যক বিশেষজ্ঞ চিকিৎসক রাখা হয় না। দু’তিনটি বিভাগের বিশেষজ্ঞ চিকিৎসক দ্বারা সব রোগের চিকিৎসা করানোর ব্যবসা চালানো হয়। অনেক হাসপাতালে আইসিইউর শতকরা ৭০ ভাগ শয্যার সঙ্গে কৃত্রিম শ্বাসপ্রশ্বাস নিয়ন্ত্রণ যন্ত্র নেই। শতকরা ৬০ ভাগ আইসিইউতে প্রতিটি শয্যার জন্য একজন করে সেবিকা নেই। আর যেসব সেবিকা আছেন তাদের শতকরা ৬৪ ভাগেরই প্রশিক্ষণ নেই। তাছাড়া টাকা খরচ করেও কিছু হাসপাতালে সেবা পাওয়া যায় না বলে অভিযোগ উঠেছে। এমনিতেই উচ্চ ফি ও সীমিত শয্যার কারণে আইসিইউ সেবা নিতে পারে না অনেক দরিদ্র রোগী।


এদিকে স্বাস্থ্য বিশেষজ্ঞদের মতে, আইসিইউতে রোগীকে ওঠা-নামা, কাত করানোসহ বিভিন্ন অবস্থানে রাখার জন্য বিশেষায়িত শয্যার দরকার। প্রত্যেক রোগীর জন্য পৃথক ভেন্টিলেটর (কৃত্রিম শ্বাসপ্রশ্বাস নিয়ন্ত্রণ যন্ত্র) ও কার্ডিয়াক মনিটর (হৃদযন্ত্রের অবস্থা, শরীরে অক্সিজেনের মাত্রা, কার্বন-ডাই অক্সাইড নির্গমনের মাত্রা, শ্বাসপ্রশ্বাসের গতি, রক্তচাপ পরিমাপক), ইনফিউশন পাম্প (স্যালাইনের সূক্ষ্মাতিসূক্ষ্ম মাত্রা নির্ধারণ যন্ত্র) দরকার। আইসিইউতে শক মেডিশন (হৃদযন্ত্রের গতি হঠাৎ থেমে গেলে তা চালু করার যন্ত্র), সিরিঞ্জ পাম্প (শরীরে ইঞ্জেকশনের মাধ্যমে যে ওষুধ প্রবেশ করানো হয় তার মাত্রা নির্ধারণের যন্ত্র), ব্লাড ওয়ার্মার (রক্ত দেয়ার আগে শরীরের ভেতরকার তাপমাত্রার সমান করার জন্য ব্যবহৃত যন্ত্র) থাকবে। পাশাপাশি কিডনি ডায়ালাইসিস মেশিন, আল্ট্রাসনোগ্রাম, এবিজি মেশিন (মুমূর্ষু রোগীর রক্তে বিভিন্ন উপাদানের মাত্রা নির্ধারণ) থাকতে হবে। জরুরি পরীক্ষার জন্য আইসিইউসির সঙ্গে একটি পরীক্ষাগার থাকাও আবশ্যক। মূলত জটিল রোগের চিকিৎসা ও জরুরি প্রয়োজনে আইসিইউর সেবা নিতে হয়। চিকিৎসকরাও এই সেবার কথা ব্যবস্থাপনাপত্রে লেখেন। কিন্তু খরচ করেও কিছু হাসপাতালে সেবা পাওয়া যায় না বলে অভিযোগ উঠেছে। বর্তমানে আইসিইউ একটি ব্যবসায় পরিণত হয়েছে। আইসিইউগুলো কে, কীভাবে চালাচ্ছে, তা সরকারের সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষের নিয়মিত নজরদারিতে থাকা প্রয়োজন। রাজধানীর নামী হাসপাতালে আইসিইউর দৈনিক খরচ ২৫ থেকে ৩০ হাজার টাকা এবং মাঝারি হাসপাতালে ১০ থেকে ১২ হাজার টাকা বলা হলেও রোগীকে তার দ্বিগুণ টাকা দিতে হয়।
অন্যদিকে প্রাইভেট হাসপাতালের বিরুদ্ধে ইনটেনসিভ কেয়ার ইউনিটের (আইসিইউ) নামে উচ্চ ফি আদায়ের অভিযোগ উঠেছে। শুধু প্রতিদিন প্রতি বেডের পেছনেই গুনতে হচ্ছে কমপক্ষে ১০ হাজার টাকা। রোগীর অবস্থা অনুযায়ী বাড়তে থাকে আইসিইউর দৈনিক চিকিৎসা ব্যয়। প্রতিদিন গড়ে একজন রোগীকে ৩০ থেকে ৭০ হাজার টাকা পর্যন্ত দিতে হয়। উচ্চ হারের কারণে প্রাইভেট হাসপাতালের আইসিইউ সেবা গ্রহণ করতে পারে না স্বল্প আয়ের লোকজন। টাকার অভাবে অনেক রোগীকেই আইসিইউ সেবা থেকে বঞ্চিত হয়ে মৃত্যুবরণ করতে হয়। অত্যাধুনিক চিকিৎসা সেবা ব্যবস্থা থাকার পরও প্রাইভেট হাসপাতালের আইসিইউ ফি কমানো সম্ভব। অনেক রোগীই আইসিইউ ফি ও ওষুধপত্রের টাকা হাতে নিয়ে ভর্তি হয়। কিন্তু দু’দিন পরই আইসিইউ ফিসহ চিকিৎসা খরচ লাখ টাকার বেশি হয়ে যায়। কিন্তু অনেক হাসপাতাল কর্তৃপক্ষফি বেড়ে যাওয়ার কোন ব্যাখ্যা পর্যন্ত দিতে চায় না। আর পুরো টাকা পরিশোধ না করলে রোগী আটকে রাখার মতো ঘটনাও ঘটছে।


এ প্রসঙ্গে স্বাস্থ্য অধিদফতরের মহাপরিচালক অধ্যাপক ডাঃ আবুল কালাম আজাদ জানান, দেশের প্রতিটি মেডিক্যাল কলেজসহ জেলা সদর হাসপাতালে নিবিড় পর্যবেক্ষণ কেন্দ্র (আইসিইউ) স্থাপনের বিষয়টি সরকারি বিবেচনায় রয়েছে। জেলা সদর পর্যায়ের হাসপাতালে দায়িত্বরত চিকিৎসকরা উদ্যোগী হলে দ্রুত সময়ের মধ্যে প্রতিটি হাসপাতালে আইসিইউ স্থাপন করা যাবে। সেজন্য প্রয়োজনীয় যন্ত্রপাতি সরবরাহে সার্বিক সহযোগিতা করবে সরকার। এ উদ্যোগ সফল হলে সাধারণ মানুষের দুর্ভোগ অনেকাংশে কমে যাবে। উচ্চ ফি নেয়ার প্রতিযোগিতাও বেশি থাকবে না। পাশাপাশি রোগী ও তাদের অভিভাবকের আরও সচেতন হওয়া দরকার। দেশের বেসরকারি হাসপাতালের আইসিইউ নিয়ে নানা অভিযোগ রয়েছে। প্রতিটি হাসপাতালের আইসিইউর মান পর্যবেক্ষণে মাঠে রয়েছে স্বাস্থ্য অধিদতফতরের বিশেষ মনিটরিং টিম। মানহীন আইসিইউ দিয়ে মরণাপন্ন রোগীর জীবন নিয়ে ব্যবসা করতে দেয়া হবে না।





         
   আপনার মতামত দিন
     প্রশাসন
দুর্নীতি প্রতিরোধেই সর্বাধিক গুরুত্ব দেওয়া হচ্ছে: দুদক চেয়ারম্যান
.............................................................................................
পুলিশ-রোহিঙ্গা গোলাগুলি, নিহত ২
.............................................................................................
নিরপরাধ কেউ যেনো হয়রানির শিকার না হয়: আইজিপি
.............................................................................................
অতিরিক্ত ডিআইজি হলেন ২০ এসপি
.............................................................................................
দুর্নীতির অভিযোগে একযোগে ২১ জেলায় দুদকের অভিযান
.............................................................................................
কার্ডের মাধ্যমে ঘটনাস্থলে পরিশোধ করা যাবে ট্রাফিকের জরিমানা
.............................................................................................
এনআরবি ব্যাংকের টাকা আত্মসাৎ: ১৪ জনের বিরুদ্ধে দুদকের মামলা
.............................................................................................
গুজবকে হাতিয়ার হিসেবে ব্যবহার করছে একটি স্বার্থান্বেষী মহল: আইজিপি
.............................................................................................
সেনানিবাস এলাকায় ডেঙ্গু নির্মূল অভিযানের উদ্বোধন করলেন সেনা প্রধান
.............................................................................................
দুর্নীতি প্রতিরোধে সব প্রতিষ্ঠানের ঐকান্তিক সহযোগিতা প্রয়োজন: দুদক চেয়ারম্যান
.............................................................................................
বিমানের সাবেক এমডিসহ ১০ কর্মকর্তাকে দুদকে তলব
.............................................................................................
বড় পুকুরিয়া কয়লা খনির ৭ এমডিসহ ২৩ জনের বিরুদ্ধে অভিযোগপত্র
.............................................................................................
দিনাজপুরে ঘুষ লেনদেনকালে হাতেনাতে গ্রেফতার সেটেলমেন্ট কর্মকর্তাসহ ২ জন
.............................................................................................
বাগেরহাটে আসামিকে ব্যক্তিগত গাড়িযোগে কারাগারে নেওয়ায় ৫ পুলিশ প্রত্যাহার
.............................................................................................
বিভিন্ন সেনানিবাসে নানা প্রজাতির দু’লাখ বৃক্ষ রোপণ করবে সেনাবাহিনী
.............................................................................................
সাবেক প্রধান বিচারপতি এস কে সিনহার বিরুদ্ধে দুদকের মামলা
.............................................................................................
কর্মকর্তাদের সততা ও নিষ্ঠার সঙ্গে দায়িত্ব পালন করার আহ্বান দুদক চেয়ারম্যানের
.............................................................................................
পুলিশ-র‌্যাব-বিজিবি প্রধান কক্সবাজারে
.............................................................................................
ডিএমপির তিন থানার ওসি রদবদল
.............................................................................................
আজ রোহিঙ্গা ক্যাম্প পরিদর্শন করবেন আইজিপি
.............................................................................................
চট্টগ্রামে শতাধিক দুর্র্নীতিবাজের সম্পদের সন্ধানে দুদক
.............................................................................................
দুদকের সহকারী পরিচালক সাময়িক বরখাস্ত
.............................................................................................
হবিগঞ্জে ৮ পুলিশ কর্মকর্তা বদলি
.............................................................................................
হামলার প্রচেষ্টা থাকলেও সক্ষমতা নেই জঙ্গিদের: মনিরুল
.............................................................................................
নাটোরে কনস্টেবল নিয়োগে জালিয়াতি ঠেকাতে বায়োমেট্রিক পদ্ধতি
.............................................................................................
কর্তৃত্ববাদী শাসনের অনিশ্চিত গন্তব্যে বাংলাদেশ: ইসি মাহবুব
.............................................................................................
উদ্বেগের কিছু নেই, ইসি তার দায়িত্ব পালন করবে: সচিব
.............................................................................................
১ হাজার টাকা কর দিয়ে সোনা বৈধ করার সুযোগ দিচ্ছে এনবিআর
.............................................................................................
খুলনায় এসআই নিয়োগ পরীক্ষায় ভুয়া পরীক্ষার্থী আটক
.............................................................................................
পশ্চিমাঞ্চল রেলওয়ে: দুর্নীতির কারণে বছরে সরকারের লোকশান প্রায় ৩শ’ কোটি টাকা
.............................................................................................
কর্মকর্তার দুর্নীতির দায় এড়াতে পারে না দুদক: টিআইবি
.............................................................................................
রংপুর মেট্রোপলিটন পুলিশ কর্তৃক ২২ জন গ্রেফতার
.............................................................................................
ইসি কর্মকর্তা-কর্মচারী ঐক্য পরিষদ গঠিত
.............................................................................................
৫ জেলায় দুদকের অভিযান: করের টাকা আত্মসাতের ২ মামলায় আটক ৭
.............................................................................................
কঙ্গো মিশনে যোগ দিচ্ছেন বাংলাদেশের ১৮০ নারী পুলিশ সদস্য
.............................................................................................
হয়রানিমুক্ত এনআইডি সেবা দিতে ইসির নির্দেশ
.............................................................................................
কমলাপুর স্টেশন ও রেল ভবনে দুদকের অভিযান
.............................................................................................
সাতক্ষীরায় ওষুধ উদ্ধারের ঘটনায় দু’টি তদন্ত কমিটি
.............................................................................................
মাদকাসক্ত কেউ গাড়ির চালক-হেলপার হতে পারবে না: ডিএমপি কমিশনার
.............................................................................................
ঈদকে সামনে রেখে নিরাপত্তা ব্যবস্থা জোরদার: ডিএমপি কমিশনার
.............................................................................................
ঢাকা ওয়াসায় দুদকের অভিযান
.............................................................................................
রূপপুর পারমাণবিক বিদ্যুৎ প্রকল্পের নির্বাহী প্রকৌশলী প্রত্যাহার
.............................................................................................
দুনীতি হচ্ছে উন্নয়নের ভাই-বোন, চাঁদপুরে দুদক চেয়ারম্যান
.............................................................................................
রংপুর ভুয়া লাইসেন্সে অস্ত্র মামলায় ৩৯১ জনের বিরুদ্ধে দুদকের চার্জসিট অনুমোদন
.............................................................................................
ফরিদগঞ্জ থানার ওসিসহ দুই পুলিশ অফিসার পুরস্কৃত
.............................................................................................
রাজশাহীতে ঘুষের টাকাসহ হাতেনাতে ধরা খেলেন সমবায় কর্মকর্তা
.............................................................................................
সড়ক-মহাসড়কে শৃঙ্খলা রক্ষায় ঈদের আগে-পরে দু’সপ্তাহ পুলিশ মোতায়েনের উদ্যোগ
.............................................................................................
রাজনৈতিক সমস্যার সমাধান রাজনৈতিকভাবেই করতে হবে: মিজানুর
.............................................................................................
বেসরকারি হাসপাতালের আইসিইউর মান তদারকিতে নেমেছে স্বাস্থ্য অধিদফতর
.............................................................................................
দুর্নীতিবাজ এবং অদক্ষ ঠিকাদারদের কালো তালিকাভুক্ত করার উদ্যোগ
.............................................................................................

|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
স্বাধীন বাংলা মো. খয়রুল ইসলাম চৌধুরী কর্তৃক সম্পাদিত ও ঢাকা-১০০০ হতে প্রকাশিত
প্রধান উপদেষ্টা: ফিরোজ আহমেদ (সাবেক সচিব, বাণিজ্য মন্ত্রণালয়)
উপদেষ্টা: আজাদ কবির
সম্পাদক মন্ডলীর সভাপতি: ডাঃ হারুনুর রশীদ
সম্পাদক মন্ডলীর সহ-সভাপতি: মামুনুর রশীদ
ব্যবস্থাপনা সম্পাদক : মো: খায়রুজ্জামান
যুগ্ম সম্পাদক: জুবায়ের আহমদ
বার্তা সম্পাদক: মুজিবুর রহমান ডালিম
স্পেশাল করাসপনডেন্ট : মো: শরিফুল ইসলাম রানা
যুক্তরাজ্য প্রতিনিধি: জুবের আহমদ
যোগাযোগ করুন: swadhinbangla24@gmail.com
    2015 @ All Right Reserved By swadhinbangla.com

Developed By: Dynamicsolution IT [01686797756]