শুক্রবার , ২৪ রবিঃ আউয়াল ১৪৪১ | ২১ নভেম্বর ২০১৯ | ৭ অগ্রহায়ণ ১৪২৬ বাংলার জন্য ক্লিক করুন
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|

  
Share Button
   জাতীয়
এই বাজেট উন্নয়নের গতিধারা অব্যাহত রাখবে: প্রধানমন্ত্রী
  তারিখ: 30 - 06 - 2019

প্রধানমন্ত্রী ও সংসদ নেতা শেখ হাসিনা বলেছেন, ২০১৯-২০ অর্থবছরের এবারের বাজেট জাতির পিতার স্বপ্নের ক্ষুধা ও দারিদ্র্য মুক্ত সোনার বাংলাদেশ প্রতিষ্ঠায় দেশে চলমান উন্নয়নের গতিধারাকে অব্যাহত রাখবে। তিনি বলেন, বাংলাদেশ এগিয়ে যাচ্ছে, এগিয়ে যাবে। বাংলাদেশ জাতির পিতার স্বপ্নের একটি ক্ষুধা মুক্ত, দারিদ্র্যমুক্ত সুখী ও সমৃদ্ধ সোনার বাংলাদেশ হিসেবে প্রতিষ্ঠা লাভ করবে এটাই আমাদের প্রত্যয় এবং এই বাজেট এই উন্নয়নের গতিধারা অব্যাহত রাখবে। প্রধানমন্ত্রী ও সংসদ নেতা গতকাল শনিবার জাতীয় সংসদে বাজেট অধিবেশনের সমাপনী বক্তৃতায় একথা বলেন। এ সময় স্পিকার ড. শিরীন শারমিন চৌধুরী স্পিকারের দায়িত্ব পালন করছিলেন। প্রধানমন্ত্রী বলেন, বাংলাদেশের মানুষ একটি উন্নত জীবন চায়, তাঁদের এই অগ্রযাত্রা অব্যাহত থাকবে, জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের স্বপ্নের সোনার বাংলাদেশ আমরা গড়বো।

তিনি বলেন, আমাদের সরকার রুপকল্প ২০২১ সফলভাবে বাস্তবায়নের মাধ্যমে বাংলাদেশকে মধ্যম আয়ের দেশে উন্নীত করেছে। আগামি ২০৩০ সালের মধ্যে টেকসই উন্নয়ন অভীষ্ট এসডিজি অর্জন এবং ২০৪১ সালের মধ্যে একটি উন্নত বাংলাদেশ প্রতিষ্ঠার লক্ষ্যে বাংলাদেশ এগিয়ে যাচ্ছে। এই লক্ষ্য পূরণ এবং আমাদের নির্বাচনী ইশতেহার পূরণের এক কার্যকর মাধ্যম হবে আগামি ২০১৯-২০ অর্থবছরের জন্য পেশকৃত জনবান্ধব, উন্নয়নমুখী এই বাজেটটি। সংসদ নেতা বলেন, আমি শুধু এইটুকুই বলবো ২০১৮ সালের নির্বাচনে জয়ী হয়ে আমরা এই প্রথম বাজেটটা পেশ করলাম। এ বাজেট আমাদেরকে সামনের দিকে এগিয়ে নিয়ে যাবে। তিনি বলেন, আমাদের এই বাজেট আলোচনায় অনেক সংসদ সদস্য অনেকরকম আলোচনা করেছেন সেগুলো সব আমার কাছে ছিল। আমি মনে করি আমার এই বক্তব্যের মধ্যদিয়ে তাঁদের সেই কথাগুলোর জবাব মোটামুটিভাবে তাঁরা পেয়ে গেছেন। তিনি বলেন, আমাদের একটা সমস্যা দুর্নীতি। অবৈধভাবে ক্ষমতা দখলকারীরা সব সময়ই নিজেরা দুর্নীতির আশ্রয় নেয় আর সমাজে দুর্নীতিটাকে তারা ছড়িয়ে দেয় ব্যাধির মতো। দুর্নীতির বিরুদ্ধে আমার নীতি হচ্ছে জিরো টলোরেন্স। আমি সব সময় বলেছি, জোর দিয়ে বলেছি..দুর্নীতিমুক্ত সমাজ গঠনে আমাদের প্রচেষ্টাটা অব্যাহত থাকবে। অর্থনৈতিক উন্নয়নে নেওয়া নানা পদক্ষেপ তুলে ধরে তিনি বলেন, আর্থিক ক্ষেত্রে সার্বিক শৃঙ্খলা আনার জন্য বাজেটে কিছু সুনির্দিষ্ট কার্যক্রমের কথা উল্লেখ করা হয়েছে। খেলাপি ঋণ হ্রাসের জন্য অর্থমন্ত্রী যেই উদ্যোগের ঘোষণা দিয়েছেন তা অত্যন্ত সময় উপযোগী। পাশাপাশি আমার সুপারিশ থাকবে যেন ব্যাংক ঋণের উপর সুদের হার এক অংকের মধ্যে রাখা হয় অর্থাৎ সিঙ্গেল ডিজিট। এটি করা গেলে শিল্প ও ব্যবসা খাতকে প্রতিযোগিতা সক্ষম করে গড়ে তোলা সক্ষম হবে। কারণ উচ্চহারে সুদ থাকলে কোনো ইন্ডাস্ট্রি বিকশিত হবে না।

শেখ হাসিনা বলেন, একটি সমৃদ্ধ অর্থনীতির জন্য প্রয়োজন বিকশিত একটি পুঁজিবাজার। এই বাজেটে পুঁজিবাজারের জন্য অনেক প্রণোদনা থাকছে। এইসব প্রস্তাব বাস্তবায়নের মাধ্যমে পুঁজিবাজারের সম্প্রসারণ হবে। এভাবে পুঁজিবাজার তার কাক্সিক্ষত ভূমিকা পালনে সক্ষম হবে বলে আমি আশা করি। দেশের উন্নয়নে তারুণ্যের শক্তিকে কাজে লাগানোর উপর জোর দিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী। তারুণ্যের শক্তি বাংলাদেশের সমৃদ্ধি। এই তারুণ্যের শক্তিকে কাজে লাগানোর জন্য আমরা সবচেয়ে গুরুত্ব দিচ্ছি, কারণ তারাই আমাদের ভবিষ্যৎ। সরকার এই শ্রম শক্তির উপযুক্ত প্রশিক্ষণ ও কর্মসংস্থান সৃষ্টির জন্য ব্যাপক কর্মসূচি বাস্তবায়ন করছে। আমি মনে করি, বিশেষ জনগোষ্ঠির প্রশিক্ষণ ও কর্মসংস্থান সৃষ্টিতে যুবকদের মধ্যে স্টার্ট আপ মূলধন সৃষ্টির জন্য ১০০ কোটি টাকা বরাদ্দের প্রস্তাব অত্যন্ত সময় উপযোগী। প্রবাসী বাংলাদেশিদের পাঠানো অর্থের উপর ২ শতাংশ হারে প্রণোদনা দেওয়ার প্রস্তাব রেমিটেন্সে গতি দেবে বলে আশা প্রকাশ করেন প্রধানমন্ত্রী। গবেষণাকে উৎসাহিত করার জন্য বাজেটে বরাদ্দ রাখার প্রস্তাবের বিষয়টি দেখিয়ে শেখ হাসিনা বলেন, আমরা গবেষণা করে পাটের জন্মরহস্য উদঘাটন করেছি। এভাবে একে একে অন্যান্য সবজিসহ ফলমূল নিয়ে গবেষণা করে আমাদের উৎপাদন যেন বৃদ্ধি পায়, সেই ব্যবস্থা আমরা নিচ্ছি। প্রধানমন্ত্রী এ সময় সংসদ সদস্যদের ধন্যবাদ জানিয়ে বলেন, দু’বেলা বাজেট অধিবেশন চলেছে এবং সর্বোচ্চ সংখ্যক সংসদ সদস্য এখানে উপস্থিত ছিলেন এবং সবথেকে অল্প সময়ের অধিবেশনে সর্বোচ্চ সংখ্যক সংসদ সদস্যরা বক্তব্য রেখে একটি রেকর্ড সৃষ্টি করেছেন। সেই সাথে আমাদের বিরোধী দলের সাংসদ সহ অন্যান্য সংসদ সদস্যদের আমি ধন্যবাদ জানাই।


বাজেটে যেসব পরিবর্তনের সুপারিশ প্রধানমন্ত্রীর: পুঁজিবাজারের স্টক লভ্যাংশ এবং রিজার্ভের ওপর অতিরিক্ত করারোপসহ বেশ কয়েকটি ক্ষেত্রে বাজেটে যে প্রস্তাব আনা হয়েছিল, তা পরিবর্তনের সুপারিশ করেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। গতকাল শনিবার বাজেটের উপর আলোচনায় এসব প্রস্তাব আনেন সংসদ নেতা। এদিনই সংসদে পাস হয় ২০১৯-২০২০ অর্থবছরের অর্থবিল। বাজেট পাসের আগে রাজস্ব অংশের আলোচিত-সমালোচিত প্রস্তাবগুলোর মধ্যে কিছু বিষয়ে পরিবর্তন প্রয়োজন হলে প্রধানমন্ত্রী তা সংশোধন করতে অর্থমন্ত্রীকে অনুরোধ করেন। পরে অর্থমন্ত্রী তা সংশোধন করে নিলে অর্থ বিল সংসদে পাস হয়। ‘সমৃদ্ধ আগামীর’ প্রত্যাশা সামনে রেখে আওয়ামী লীগের তৃতীয় মেয়াদের প্রথম বছরে পাঁচ লাখ ২৩ হাজার ১৯০ কোটি টাকার বাজেট ১৩ জুন জাতীয় সংসদে উপস্থাপন করেন অর্থমন্ত্রী আ হ ম মুস্তফা কামাল। ২০১৯-২০ অর্থ বছরের জন্য প্রস্তাবিত এই ব্যয় বিদায়ী অর্থবছরের সংশোধিত বাজেটের ১৮ শতাংশ বেশি। প্রস্তাবিত বাজেটে পুঁজিবাজারের ক্ষুদ্র বিনিয়োগকারীদের স্বার্থরক্ষায় কোম্পানিগুলোকে ক্যাশ ডিভিডেন্ডে উৎসাহিত করার জন্য স্টক ডিভিডেন্ডের ওপর ১৫ শতাংশ হারে কর আরোপের প্রস্তাব করা হয়েছিল। প্রধানমন্ত্রী সংসদে বলেন, এ বিষয়ে ব্যবসায়ী সমাজের কেউ কেউ আপত্তি জানিয়েছে। ব্যাংক ও আর্থিক প্রতিষ্ঠানসমূহের পক্ষ থেকে জানানো হয় যে, বাংলাদেশ ব্যাংকের চাহিদা অনুযায়ী পরিশোধিত মূলধন বাড়ানোর জন্য ব্যাংকগুলো নগদ লভ্যাংশ দিতে পারে না। তিনি বলেন, ব্যবসায়ী ও উদ্যোক্তাদের এরূপ মন্তব্যের পাশাপাশি পুঁজিবাজারে ক্ষুদ্র বিনিয়োগকারীদের স্বার্থ আমাদের ভাবতে হবে। কোম্পানির শেয়ারে বিনিয়োগ করে বিনিয়োগকারীও নগদ লভ্যাংশ প্রত্যাশা করে। তাই নতুন প্রস্তাবে স্টক ডিভিডেন্ডের সঙ্গে সমান হারে নগদ লভ্যাংশও দেওয়ার প্রস্তাব করেন প্রধানমন্ত্রী। এসব বিষয় বিবেচনায় নিয়ে আমি প্রস্তাব করছি যে, পুঁজিবাজারে তালিকাভুক্ত কোনো কোম্পানি যে পরিমাণ স্টক লভ্যাংশ ঘোষণা করবে, কমপক্ষে তার সমপরিমাণ নগদ লভ্যাংশ প্রদান করতে হবে। যদি কোম্পানির ঘোষিত স্টক লভ্যাংশের পরিমাণ নগদ লভ্যাংশের চেয়ে বেশি হয়, তাহলে স্টক লভ্যাংশে উপর ১০ শতাংশ হারে কর প্রস্তাব করতে হবে।

শেখ হাসিনা বলেন, নগদ লভ্যাংশ উৎসাহিত করায় আমরা আরও প্রস্তাব করেছিলাম যে, পুঁজিবাজারে তালিকাভুক্ত কোম্পানির পরিশোধিত মূলধনের ৫০ শতাংশের বেশি রিটেইন আর্নিং, রিজার্ভ থাকলে অতিরিক্ত রিটেইন আর্নিং, রিজার্ভের উপর অতিরিক্ত ১৫ শতাংশ হারে কর আরোপ করা হবে। এ বিষয়েও ব্যবসায়ী উদ্যোক্তারা কেউ কেউ আপক্তি করেছেন, মন্তব্য করে তিনি বলেন, সেই প্রেক্ষাপটে এই ধারাটির আংশিক সংশোধনপূর্বক আমি প্রস্তাব করছি যে, পুঁজিবাজারে তালিকাভুক্ত কোনো কোম্পানি কোনো অর্থবছরে কর পরবর্তী নিট লাভের সর্বোচ্চ ৭০ শতাংশ রিটেইন আর্নিং, ফান্ড, রিজার্ভে স্থানান্তর করতে পারবে। অর্থাৎ কমপক্ষে ৩০ শতাংশ লভ্যাংশ দিতে হবে। যদি কোনো কোম্পানি এরূপ করতে ব্যর্থ হন তাহলে প্রতিবছরে রিটেইন আর্নিং, ফান্ড, রিজার্ভের মোট অর্থের ওপর ১০ শতাংশ হারে কর আরোপ করা হবে। শেখ হাসিনা বলেন, উপরোক্ত বিষয়গুলো বিচার-বিশ্লেষণ করে পুঁজিবাজার সংক্রান্ত আয়কর আইনের প্রস্তাবিত ধারাগুলো আমরা বিবেচনা করবো। ভ্যাটের ক্ষেত্রেও বেশ কিছু পরিবর্তনের সুপারিশ করেন প্রধানমন্ত্রী। তিনি বলেন, ব্যবসায়ীদের দাবির পরিপ্রেক্ষিতে স্থানীয় পর্যায়ে একাধিক মূসক হার প্রবর্তনের প্রস্তাব করা হয়েছে। ১৫ শতাংশের নিম্নহারের উপকরণ কর রেয়াত দেওয়ার সুযোগ না থাকায় ব্যবসায়ীরা হ্রাসকৃত হারের পরিবর্তে উপকরণ কর গ্রহণ করে ১৫ শতাংশ হারে কর প্রদানের সুযোগ সৃষ্টির জন্য দাবি করেছে। হ্রাসকৃত হারের পাশাপাশি কেউ চাইলে যেন ১৫ শতাংশ কর দিয়ে রেয়াত পদ্ধতি অনুসরণ করতে পারে আইনে সেই বিধান আনার প্রস্তাব করছি। দরিদ্র ও প্রান্তিক জনগোষ্ঠীর কথা বিবেচনা করে তাঁত শিল্পে ব্যবহৃত সুতা শিল্পের উপর ৫ শতাংশ মূসকের পরিবর্তে প্রতি কেজি সুতায় ৪ টাকা হারে সুনির্দিষ্ট করের প্রস্তাব করেন প্রধানমন্ত্রী। তিনি বলেন, দেশীয় শিল্পের প্রতিরক্ষণ, প্রণোদনা প্রদানে প্রস্তাবিত বাজেটে বেশ কয়েকটি ক্ষেত্রে শুল্কহার হ্রাস-বৃদ্ধি করা হয়েছে। তবে সেক্ষেত্রে লক্ষ্য রাখতে হবে, যাতে এর ফলে দেশীয় কাগজ ও গ্যাস উৎপাদনকারী শিল্পসহ অন্যান্য শিল্প ক্ষতিগ্রস্ত না হয়। দেশীয় মুদ্রণ শিল্পের প্রণোদনা প্রদান ও বন্ড ব্যবস্থার অপব্যবহার রোধকল্পে দেশে উৎপন্ন হয় না এমন পেপারগুলোর শুল্কহার যৌক্তিক করা হবে। এছাড়া প্রস্তাবিত বাজেটে আমদানি পর্যায়ে কিছু ক্ষেত্রে শুল্কহার পুনর্নির্ধারণ করা হবে বলে জানান প্রধানমন্ত্রী।


অর্থবিলও উত্থাপন করেছেন প্রধানমন্ত্রী: বাজেট বক্তৃতা পড়ে দেওয়ার পর অর্থমন্ত্রীর পক্ষে অর্থবিলও সংসদে উত্থাপন করেছেন সংসদ নেতা ও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। ডেঙ্গুতে আক্রান্ত অর্থমন্ত্রীর অনুরোধের পরিপ্রেক্ষিতে গতকাল শনিবার সংসদে তার পক্ষে প্রধানমন্ত্রী বিলটি উত্থাপন করেন। গত ১৩ জুন অসুস্থ অর্থমন্ত্রী পুরোপুরি বাজেট বক্তৃতা পড়তে পারেননি। তখন প্রধানমন্ত্রী বাকি বক্তৃতা পড়ে দেন। দেশের ইতিহাসে যা ছিলো নজিরবিহীন। বাজেটোত্তর সংবাদ সম্মেলনও করেন শেখ হাসিনা। এরপর সংসদে বাজেটের উপর পুরো আলোচনায় অনুপস্থিত থাকলেও গতকাল শনিবার অধিবেশনে যোগ দেন মুস্তফা কামাল।

প্রধানমন্ত্রী বাজেটের উপর তার সমাপনী ভাষণে অর্থমন্ত্রীর ডেঙ্গুতে আক্রান্ত হওয়ার বিষয়টি তুলে ধরে বলেন, তারপরও তিনি অধিবেশনে যোগ দিয়েছেন। এরপর স্পিকার শিরীন শারমিনের অনুমতি নিয়ে বসে বাজেট আলোচনায় কথা বলেন অর্থমন্ত্রী। পরে স্পিকার জানান, অর্থমন্ত্রী প্রধানমন্ত্রীকে অনুরোধ করেছেন অর্থ বিল সংসদে তোলার জন্য। এরপর প্রধানমন্ত্রীকে বিলটি সংসদে উত্থাপন করার আহ্বান জানান। বিলের ওপর জনমত যাচাই ও সংশোধনী নিয়ে বিরোধী দলের সদস্যদের বিভিন্ন কথার জবাবও দেন শেখ হাসিনা। তার আগে বাজেট আলোচনায় দুর্নীতিমুক্ত সমাজ গঠনের প্রচেষ্টা অব্যাহত রাখার ঘোষণা দেন প্রধানমন্ত্রী।

 





         
   আপনার মতামত দিন
     জাতীয়
শাস্তির জন্য নয়, নতুন আইন সড়কে শৃঙ্খলা ফেরাতে: সেতুমন্ত্রী
.............................................................................................
৫ ডিসেম্বর চুয়েট সমাবর্তনে যোগ দিবেন রাষ্ট্রপতি
.............................................................................................
সশস্ত্র বাহিনী দিবস আজ
.............................................................................................
ছাত্র ও ছাত্রীদের জন্য স্বাস্থ্যসম্মত টয়লেট নিশ্চিত করা হবে : এলজিআরডি মন্ত্রী
.............................................................................................
সাম্যের ভিত্তিতে টেকসই ও শান্তির বিশ্ব গড়ে তুলতে হবে : স্পিকার
.............................................................................................
দুবাই এয়ার শোর উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে যোগ দিলেন প্রধানমন্ত্রী
.............................................................................................
সার্বজনীন স্বাস্থ্যসেবা নিশ্চিতে একযোগে কাজ করার আহ্বান স্পিকারের
.............................................................................................
দেশের স্থলবন্দরগুলোর সম্প্রসারণ ও উন্নয়নে বিপুল টাকার প্রকল্প গ্রহণ
.............................................................................................
পেট্রলের চাহিদা বাড়ায় বিপিসির মোগ্যাস আমদানির উদ্যোগ
.............................................................................................
নিত্য প্রয়োজনীয় দ্রব্যের অস্বাভাবিক মূল্য বৃদ্ধির প্রতিবাদে সমাবেশ করবে বিএনপি
.............................................................................................
বাস্তবায়ন নেই তামাক নিয়ন্ত্রণ আইনের
.............................................................................................
মিলারদের কারসাজিতে চালের বাজারও অস্থির
.............................................................................................
ক্ষুদ্রঋণে দারিদ্র লালন-পালন হয়: প্রধানমন্ত্রী
.............................................................................................
বৈদ্যুতিক দুর্ঘটনায় আশঙ্কাজনকভাবে বাড়ছে অগ্নিকান্ড ও প্রাণহানির ঘটনা
.............................................................................................
লাফিয়ে বাড়ছে পেঁয়াজের দাম
.............................................................................................
ঘুষের ঝুঁকি সূচকে দক্ষিণ এশিয়ায় শীর্ষে বাংলাদেশ
.............................................................................................
প্রধানমন্ত্রী দুবাই যাচ্ছেন কাল
.............................................................................................
প্রথম কর্মস্থলে ২ বছর থাকতে হবে চিকিৎসকদের সংসদে জনপ্রশাসন প্রতিমন্ত্রী
.............................................................................................
সৌদি থেকে খালি হাতে ফিরলেন ২১৫ বাংলাদেশী
.............................................................................................
‘আবরার হত্যাকারীরা উচ্ছৃঙ্খল জীবনযাপন করতো, ভয়ের রাজত্ব সৃষ্টি করেছিলো’
.............................................................................................
মুজিব বর্ষে ঘরে ঘরে জ্বলবে বিদ্যুতের আলো: প্রধানমন্ত্রী
.............................................................................................
প্রধান শিক্ষকদের ১১তম, সহকারীদের বেতন ১৩তম গ্রেডে
.............................................................................................
সৌদিতে নারী শ্রমিক পাঠানো নিয়ে সংসদে তোপের মুখে প্রবাসী কল্যাণমন্ত্রী
.............................................................................................
সাতটি বিদ্যুৎকেন্দ্র উদ্বোধন করবেন প্রধানমন্ত্রী
.............................................................................................
সম্মেলনে যোগ দিতে অস্ট্রেলিয়া গেছেন বাণিজ্যমন্ত্রী
.............................................................................................
সম্প্রচারের অপেক্ষায় ১১টি বেসরকারি টিভি: সংসদে তথ্যমন্ত্রী
.............................................................................................
দুই বছরের মধ্যে পর্যটন উন্নয়নে মাস্টার প্ল্যান: পর্যটন প্রতিমন্ত্রী
.............................................................................................
অধিকাংশ ভিসিই লুটপাটে ব্যস্ত: মান্না
.............................................................................................
একাদশ সংসদের পঞ্চম অধিবেশন বসছে আজ
.............................................................................................
প্রবাসে ভোট দেওয়ার ব্যবস্থা করার আহ্বান প্রবাসী কল্যাণমন্ত্রীর
.............................................................................................
বিমা কোম্পানিগুলোকে সামাজিক দায়বদ্ধতার দিকে নজর দিতে প্রধানমন্ত্রীর আহ্বান
.............................................................................................
যথাসময়েই সিটি করপোরেশন নির্বাচন: স্থানীয় সরকার মন্ত্রী
.............................................................................................
সরকারি সফরে চীন যাচ্ছেন সেনাপ্রধান
.............................................................................................
স্বাস্থ্য খাতে অনিয়ম দুর্নীতি সহ্য করা হবে না: গণপূর্ত মন্ত্রী
.............................................................................................
দেশে উৎপাদিত পণ্য সমবায় সমিতির মাধ্যমে বিপণনের আহ্বান প্রধানমন্ত্রীর
.............................................................................................
দুর্নীতিকে বিনাশ না করলে স্বাধীনতা অর্থবহ হবে না: গণপূর্তমন্ত্রী
.............................................................................................
স্বেচ্ছায় রক্তদান ও মরণোত্তর চক্ষুদানে এগিয়ে আসার আহ্বান প্রধানমন্ত্রীর
.............................................................................................
স্বয়ংক্রিয় ভূমি ব্যবস্থাপনায় দুর্নীতি করা কঠিন হবে : ভূমিমন্ত্রী
.............................................................................................
স্বয়ংক্রিয় ভূমি ব্যবস্থাপনায় দুর্নীতি করা কঠিন হবে : ভূমিমন্ত্রী
.............................................................................................
সুযোগ ও সামর্থ্যরে সমন্বয়ের মাধ্যমে নারীর ক্ষমতায়ন নিশ্চিত করতে হবে: স্পিকার
.............................................................................................
২০২০ সালের সরকারি ছুটির তালিকা প্রকাশ
.............................................................................................
সরকার শিশুদের নিরাপদ দেশ উপহার দিতে চায়: স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী
.............................................................................................
রোহিঙ্গা সমস্যা দ্রুত সমাধানে জাতিসংঘের প্রতি আহ্বান পররাষ্ট্রমন্ত্রীর
.............................................................................................
২০২১ সালের মধ্যে ৫১টি জেলা ম্যালেরিয়ামুক্ত হবে: স্বাস্থ্যমন্ত্রী
.............................................................................................
এ বছর ৪ হাজার ৫শ’ ডাক্তার নিয়োগ দেয়া হবে : স্বাস্থ্যমন্ত্রী
.............................................................................................
ন্যাম যোগদান সম্মেলনে শেষে দেশে ফিরেছেন প্রধানমন্ত্রী
.............................................................................................
সিলেট থেকে সরাসরি আন্তর্জাতিক ফ্লাইট চালু হবে এপ্রিলে: পর্যটন প্রতিমন্ত্রী
.............................................................................................
আমরা দেশকে দুর্নীতিমুক্ত করব: মোজাম্মেল হক
.............................................................................................
বাংলাদেশ-নেপাল বাণিজ্য চুক্তি দ্রুত বাস্তবায়নের তাগিদ প্রধানমন্ত্রীর
.............................................................................................
মুক্তিযোদ্ধার গার্ড অব অনার প্রত্যাখ্যান: জনপ্রশাসন মন্ত্রণালয় ঘেরাওয়ের হুমকি
.............................................................................................

|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
স্বাধীন বাংলা ডট কম
মো. খয়রুল ইসলাম চৌধুরী কর্তৃক সম্পাদিত ও ঢাকা-১০০০ হতে প্রকাশিত ।

প্রধান উপদেষ্টা: ফিরোজ আহমেদ (সাবেক সচিব, বাণিজ্য মন্ত্রণালয়)
সম্পাদক মন্ডলীর সভাপতি: ডাঃ মো: হারুনুর রশীদ
ব্যবস্থাপনা সম্পাদক : মো: খায়রুজ্জামান
বার্তা সম্পাদক: মো: শরিফুল ইসলাম রানা
সহ: সম্পাদক: জুবায়ের আহমদ
বিশেষ প্রতিনিধি : মো: আকরাম খাঁন
যুক্তরাজ্য প্রতিনিধি: জুবের আহমদ
যোগাযোগ করুন: swadhinbangla24@gmail.com
    2015 @ All Right Reserved By swadhinbangla.com

Developed By: Dynamicsolution IT [01686797756]