| বাংলার জন্য ক্লিক করুন
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|

  
Share Button
   সম্পাদকীয়
অভিন্ন নদীর পানিবণ্টন দ্রুততম সময়ে সমঝোতায় আসা প্রয়োজন
  তারিখ: 10 - 08 - 2019

বাংলাদেশ ও ভারতের মধ্যে ৫৪টি অভিন্ন নদী রয়েছে। এর মধ্যে একমাত্র গঙ্গা ছাড়া আর কোনো নদীর পানিবণ্টন নিয়ে এখন পর্যন্ত দুই দেশ চুক্তিতে পৌঁছাতে পারেনি। তিস্তা নদীর পানিবণ্টন নিয়ে ভারতের কেন্দ্রীয় সরকারের সঙ্গে একমত হওয়া গেলেও পশ্চিমবঙ্গ রাজ্য সরকারের আপত্তির কারণে চুক্তি সম্পাদন করা যায়নি। অথচ দুই দেশের অভিন্ন নদীর পানিবণ্টন ও অন্যান্য দিক নিয়ে আলোচনা ও সিদ্ধান্ত গ্রহণের জন্য একটি যৌথ নদী কমিশন (জেআরসি) রয়েছে। দীর্ঘ আট বছর পর গত বৃহস্পতিবার ঢাকায় অনুষ্ঠিত জেআরসির সচিব পর্যায়ের বৈঠক হয়েছে এবং তাতে উল্লেখযোগ্য কিছু অগ্রগতিও হয়েছে। বৈঠকে অভিন্ন সাতটি নদীর পানিবণ্টনের বিষয়ে মোটামুটি সমঝোতায় আসা গেছে বলে প্রকাশিত খবরে উল্লেখ করা হয়েছে। আগামি দুই মাসের মধ্যে নদীগুলোর হালনাগাদ তথ্য সংগ্রহ করে চুক্তি সম্পাদনের পথে এগোবে দুই দেশ। বৈঠকের পর ভারতীয় পক্ষ থেকে বলা হয়েছে, বাকি নদীগুলোর পানিবণ্টন প্রশ্নেও দ্রুত সমঝোতার ব্যাপারে তাঁরা আশাবাদী। তা ছাড়া বাংলাদেশের সঙ্গে আলোচনা না করে ভারত অভিন্ন নদীতে সংযোগ প্রকল্প বা প্রবাহ বিঘিত হয় এমন কোনো উদ্যোগ নেবে না। প্রতিবেশী ও বন্ধুপ্রতিম দেশ হিসেবে ভারতের কাছে আমাদের প্রত্যাশাও তাই।
জেআরসির বৈঠকে যে নদীগুলোর পানিবণ্টন বিষয়ে মোটামুটি একমত হওয়া গেছে সেগুলো হলো : ফেনী, ধরলা, দুধকুমার, মনু, খোয়াই, গোমতী ও মুহুরি। বাংলাদেশের পরিবেশ, কৃষি ও নৌ চলাচলে প্রতিটি নদীই গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করে। আমরা চাই, দ্রুততম সময়ে নদীগুলোর যৌক্তিক পানিবণ্টন নিশ্চিত করা হোক। বাকি ৪৬টি নদীর ব্যাপারেও জেআরসি দ্রুত সিদ্ধান্ত নিতে পারবে বলে আমরা আশাবাদী। গঙ্গার ভাটিতে থাকা পদ্মা নদীতে ব্যারাজ নির্মাণের যে পরিকল্পনা রয়েছে, সে বিষয়েও জেআরসির বৈঠকে আলোচনা হয়েছে। ব্যারাজ নির্মাণের বিষয়ে ভারতের কোনো আপত্তি নেই বলেও বৈঠকে জানানো হয়েছে। বৈঠকে তিস্তার পানিবণ্টন নিয়েও কথা হয়েছে এবং সম্ভাব্য দ্রুততম সময়ে চুক্তি সম্পাদনের আশা প্রকাশ করা হয়েছে।
বৈশ্বিক উষ্ণায়ন ও জলবায়ু পরিবর্তনের কারণে সবচেয়ে ক্ষতিগ্রস্ত দেশগুলোর একটি বাংলাদেশ। যে রকম অস্বাভাবিক দ্রুতগতিতে সমুদ্রপৃষ্ঠের উচ্চতা বাড়ছে, তাতে কয়েক দশকের মধ্যে বাংলাদেশের একটি বড় অংশ তলিয়ে যেতে পারে। অন্যদিকে বর্ষায় বন্যা এবং শীতকালে নদীগুলোতে পানি না থাকায় চাষাবাদ ব্যাহত হচ্ছে। পাশাপাশি দেশের উত্তরাঞ্চলে মরুকরণপ্রক্রিয়াও ক্রমেই বাড়ছে। তাই অস্তিত্বের প্রয়োজনেই বাংলাদেশকে দ্রুত অভিন্ন নদীগুলোর পানি ব্যবস্থাপনা যৌক্তিক পর্যায়ে নিয়ে আসতে হবে। এ ক্ষেত্রে ভারতের সর্বাত্মক সহযোগিতা আমাদের জন্য অত্যন্ত জরুরি। শুধু পানিবণ্টনই নয়, আলাপ-আলোচনার ভিত্তিতে যৌথ নদীগুলোর সঠিক ব্যবস্থাপনা ও সম্ভাব্য অর্থনৈতিক সম্ভাবনাগুলোকে কাজে লাগাতে হবে এবং তা এমনভাবে করতে হবে, যাতে দুই দেশই লাভবান হয়। আমরা আশা করি, আগামি অক্টোবরে বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার ভারত সফরের সময় এ ক্ষেত্রে আমরা উল্লেখযোগ্য অগ্রগতি দেখতে পাব।





         
   আপনার মতামত দিন
     সম্পাদকীয়
দ্বিখন্ডিত শহরে দুর্ভোগও দ্বিগুণ
.............................................................................................
অভিন্ন নদীর পানিবণ্টন দ্রুততম সময়ে সমঝোতায় আসা প্রয়োজন
.............................................................................................
ঘরে ফিরছে মানুষ ঈদ যাত্রা নিরাপদ ও নির্বিঘ্ন করুন
.............................................................................................
নিরাপদ হোক ঈদযাত্রা
.............................................................................................
দুর্যোগে করণীয়
.............................................................................................
পুঁজিবাজারে দরপতন
.............................................................................................
কৃষিতে কৃষকের অরুচি সুরক্ষামূলক ব্যবস্থা গ্রহণ জরুরি
.............................................................................................
প্রকল্পে সরাসরি অর্থ ছাড় স্বচ্ছতা ও জবাবদিহি নিশ্চিত করুন
.............................................................................................
ঝুঁকিতে দুই কোটি শিশু এদের স্বাস্থ্য ও শিক্ষা নিশ্চিত করুন
.............................................................................................
অ্যান্টিবায়োটিকের অপব্যবহার ভয়ংকর পরিণতি থেকে রক্ষা পেতে হবে
.............................................................................................
বাড়ছে শ্রমিক অসন্তোষ মজুরি কমিশনের সুপারিশ আমলে নিন
.............................................................................................
রমজানে বাজারদর স্থিতিশীল রাখার ব্যবস্থা নিতে হবে
.............................................................................................
শিল্পায়নে বাধা
.............................................................................................
সড়কে মর্মান্তিক মৃত্যু ফিটনেসবিহীন গাড়ি চলাচল বন্ধ করুন
.............................................................................................
ডাক্তারদের প্রাইভেট প্র্যাকটিস প্রধানমন্ত্রীর নির্দেশনা বাস্তবায়িত হোক
.............................................................................................
পেট কাটলেন নার্স, ডাক্তার বললেন ‘ঝামেলা আছে সেলাই করে দাও’
.............................................................................................
বাড়ছে উত্তাপ-উত্তেজনা
.............................................................................................
নির্বাচনের পরিবেশ
.............................................................................................
ক্ষতিপূরণ পেতে ভোগান্তি
.............................................................................................
জননিরাপত্তা নিয়ে শঙ্কা
.............................................................................................
পরিবেশের প্রধান শত্রু প্লাস্টিক
.............................................................................................
বিদেশে পাড়ি জমাচ্ছে রোহিঙ্গারা
.............................................................................................
খুরা রোগের টিকা
.............................................................................................
চিকিৎসা বীমা
.............................................................................................
মাদকবিরোধী কর্মপরিকল্পনা
.............................................................................................
পানিও নিরাপদ নয়
.............................................................................................
মুদ্রাপাচার বেড়েই চলেছে
.............................................................................................
মুদ্রাপাচার বেড়েই চলেছে
.............................................................................................
মাদকে মৃত্যুদন্ড
.............................................................................................
বিশ্বমানের চিকিৎসা
.............................................................................................
গুজবের পিছে ছুটছে মানুষ
.............................................................................................
মিয়ানমারের নতুন উসকানি
.............................................................................................
স্বর্ণ নীতিমালা
.............................................................................................
শিশু যখন শ্রমিক
.............................................................................................
বেহাল স্বাস্থ্যসেবা
.............................................................................................
সম্ভাবনার কাঁকড়া শিল্প
.............................................................................................
ডিজিটাল নিরাপত্তা আইন
.............................................................................................
ক্ষতিকর এনার্জি ড্রিংকস
.............................................................................................
মির্জাপুরে কাঠ পোড়ানো চুল্লি
.............................................................................................
হুমকিতে তিন-চতুর্থাংশ মানুষ
.............................................................................................
বেহাল সড়ক ও সেতু
.............................................................................................
সর্বোচ্চ মৃত্যু বাংলাদেশে
.............................................................................................
নতুন মাদক খাত
.............................................................................................
ডিজিটাল নিরাপত্তা আইন
.............................................................................................
সম্পর্কে নতুন মাত্রা
.............................................................................................
ডিজিটাল নিরাপত্তা বিল ২০১৮ বিতর্কিত ধারাগুলো পর্যালোচনা করুন
.............................................................................................
পরিবেশদূষণ বড় ঘাতক
.............................................................................................
ডিবি পরিচয়ে তুলে নেওয়া
.............................................................................................
ভুলে ভরা এনআইডি
.............................................................................................
পদ্মার ভয়াবহ ভাঙন
.............................................................................................

|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
স্বাধীন বাংলা মো. খয়রুল ইসলাম চৌধুরী কর্তৃক সম্পাদিত ও ঢাকা-১০০০ হতে প্রকাশিত
প্রধান উপদেষ্টা: ফিরোজ আহমেদ (সাবেক সচিব, বাণিজ্য মন্ত্রণালয়)
উপদেষ্টা: আজাদ কবির
সম্পাদক মন্ডলীর সভাপতি: ডাঃ হারুনুর রশীদ
সম্পাদক মন্ডলীর সহ-সভাপতি: মামুনুর রশীদ
ব্যবস্থাপনা সম্পাদক : মো: খায়রুজ্জামান
যুগ্ম সম্পাদক: জুবায়ের আহমদ
বার্তা সম্পাদক: মুজিবুর রহমান ডালিম
স্পেশাল করাসপনডেন্ট : মো: শরিফুল ইসলাম রানা
যুক্তরাজ্য প্রতিনিধি: জুবের আহমদ
যোগাযোগ করুন: swadhinbangla24@gmail.com
    2015 @ All Right Reserved By swadhinbangla.com

Developed By: Dynamicsolution IT [01686797756]