অর্থ-বাণিজ্য
নানা প্রতারণার অভিযোগ গ্রামীণফোন কোম্পানিটির বিরুদ্ধে
তারিখ: 05 - 10 - 2020


দেশে মোবাইল ব্যবহার করা প্রায় অর্ধেক গ্রাহক গ্রামীণফোনের। স্বাভাবিকভাবেই তাদের মুনাফাও সর্বোচ্চ। কিন্তু গ্রাহক সেবায় সবচেয়ে পেছনে গ্রামীণফোন। কোম্পানিটির বিরুদ্ধে গ্রাহকদের হাজারো অভিযোগ, কিন্তু সুরাহা করার কেউ নেই। নানা প্রতারণার আশ্রয় নিয়ে তারা কোটি কোটি টাকা আত্মসাৎ করে যাচ্ছে। এ নিয়ে যথাযথ ব্যবস্থা নিতে ডাক ও টেলিযোগাযোগ মন্ত্রীকে চিঠি দিয়েছে বাংলাদেশ মুঠোফোন গ্রাহক এসোসিয়েশন।

মুঠোফোন গ্রাহক এসোসিয়েশনের সভাপতি মহিউদ্দিন আহমেদ স্বাক্ষরিত চিঠিটি গতকাল সচিবালয়ে মন্ত্রীর কার্যালয়ে পৌঁছে দেওয়া হয়। চিঠির আরেকটি কপি ডাক ও টেলিযোগাযোগ মন্ত্রীর মেইলে পাঠানো হয়েছে। চিঠিতে বলা হয়, গ্রামীণফোনের বিরুদ্ধে গ্রাহকদের অভিযোগ সর্বোচ্চ পর্যায়ে পৌঁছেছে। দয়া করে এসব অভিযোগ নিষ্পত্তি করতে একটি কমিটি গঠন করুন।

গ্রাহকদের চালু সিম অন্যত্র বিক্রি করে দেওয়ার অভিযোগ আছে গ্রামীণফোনের বিরুদ্ধে। সম্প্রতি এক গ্রাহক এ নিয়ে লিগ্যাল নোটিশ পাঠিয়েছেন কোম্পানিটিকে। কল সেন্টার ১২১-এ ফোন দিলে টাকা কেটে নিচ্ছে অহরহ। এ নিয়ে তাদেরকে বলা হলেও অধিকাংশ ক্ষেত্রেই টাকা ফেরত দেওয়া হয় না। স্বাভাবিক কলের ক্ষেত্রে অতিরিক্ত টাকা কেটে নেওয়ার ঘটনা তো আছেই।

হাইকোর্টের নির্দেশ ছিল, কলড্রপ হওয়া যাবে না। যদি একান্তই হয়ে যায় তাহলে গ্রাহককে তার ক্ষতিপূরণ দিতে হবে। অথচ গ্রামীণফোনের কলড্রপও বন্ধ হয়নি, আবার ক্ষতিপূরণও পাচ্ছেন না গ্রাহকরা। বিটিআরসির পরীক্ষা অনুযায়ী, ৩ দশমিক ৩৮ শতাংশ কলড্রপ হচ্ছে গ্রামীণফোনের। তাছাড়া সংযোগ পেতে গ্রামীণফোন গড়ে ১০ দশমিক ১৪ শতাংশ সময় নেয়। এ থেকেই তাদের মুনাফা কোটি কোটি টাকা।

চিঠিতে মন্ত্রীকে আরো জানানো হয়, সার্বিকভাবে গ্রামীণফোনের ইন্টারনেট স্পীড মোটেও ভালো নয়। ফোরজি চালু করার সময় শর্ত ছিল সর্বনিম্ন গতি হবে ৭ এমবিপিএস। কিন্তু গ্রামীণের কাছে পাওয়া যাচ্ছে সর্বোচ্চ ২ এমবিপিএস, ক্ষেত্রবিশেষে এটা ১ এমবিপিএসের নিচে নেমে যাচ্ছে। ইন্টারনেটের প্যাকেজ থাকার পরও অনেক সময় মূল ব্যালেন্স থেকে টাকা কেটে নিচ্ছে।

মন্ত্রীকে উদ্দেশ করে আরো বলা হয়, গ্রামীণফোনের বিরুদ্ধে এসব অভিযোগ নতুন কিছু নয়। তবে বর্তমানে অনিয়মগুলো সীমা ছাড়িয়ে যাচ্ছে। গণমাধ্যমগুলোতে জিপির প্রতারণার অনেক প্রতিবেদন ছাপা হয়েছে, কিন্তু আমরা কোনো উদ্যোগ লক্ষ্য করিনি। তাই আপনার কাছে আবেদন, একটি কমিটি গঠন করে জিপির প্রতারণার বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নিন।

স্বাধীন বাংলা ডট কম
প্রকাশক কর্তৃক ৩৭/২, ফায়েনাজ অ্যাপার্টমেন্ট (১৫ম তলা), কালভার্ট রোড, পুরানা পল্টন, ঢাকা-১০০০ হতে প্রকাশিত ।
প্রধান উপদেষ্টা: ফিরোজ আহমেদ ( সাবেক সচিব, বাণিজ্য মন্ত্রণালয় )
সম্পাদক মন্ডলীর সভাপতি: ডাঃ মো: হারুনুর রশীদ
সম্পাদক ও প্রকাশক মো. খয়রুল ইসলাম চৌধুরী ইউরোপ মহাদেশ বিষয়ক সম্পাদক- প্রফেসর জাকি মোস্তফা (টুটুল)
সম্পাদকীয় ও বাণিজ্যিক কার্যালয়: ৩৭/২, ফায়েনাজ অ্যাপার্টমেন্ট (১৫ম তলা), কালভার্ট রোড, পুরানা পল্টন, ঢাকা-১০০০। ফোন : ০২-৯৫৬২৮৯৯ মোবাইল: ০১৬৭০-২৮৯২৮০ ই-মেইল : swadhinbangla24@gmail.com