| বাংলার জন্য ক্লিক করুন
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|

   জাতীয় -
                                                                                                                                                                                                                                                                                                                                 
ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনটি বাংলাদেশের আগে আর কেউ করেনি: জব্বার

 ডাক ও টেলিযোগাযোগ মন্ত্রী মোস্তাফা জব্বার বলেছেন, ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনটি বাংলাদেশের আগে আর কেউ করেনি। ফেসবুকের মতো প্রতিষ্ঠানকে আমরা আমাদের এই আইনের কথা বলেছি। তাদের আমি বলেছি যে, যুক্তরাষ্ট্রের সামাজিক প্রেক্ষাপট আর আমাদের সামাজিক প্রেক্ষাপট এক না। বাক স্বাধীনতার নামে আমাদের প্রধানমন্ত্রীকে কেউ ব্যঙ্গ-বিদ্রুপ করবে, অপমান করবে, তোমাদের (ফেসবুক) সেই আইন এখানে (বাংলাদেশে) চলবে না। আমাদের নিজেদের আইন আছে। তোমাদের কমিউনিটি গাইডলাইন্স যাই থাকুক না কেন, সেটি এই আইনের সঙ্গে সহায়ক হতে হবে। ।

এই আইনকে গুরুত্ব দিয়ে বাংলাদেশের ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনের ইংরেজি সংস্করণ ফেসবুকের কর্তাব্যক্তিদের কাছে থাকে বলেও মন্তব্য করেছেন মন্ত্রী। গতকাল শনিবার রাজধানীর বঙ্গবন্ধু আন্তর্জাতিক সম্মেলন কেন্দ্রে ‘ডিজিটাল নিরাপত্তা এবং করণীয়’ শীর্ষক এক কর্মশালায় প্রধান অতিথির বক্তব্যে এ কথা বলেন তিনি। ডিজিটাল নিরাপত্তা আইন- ২০১৮ প্রসঙ্গে মন্ত্রী বলেন, ডিজিটাল নিরাপত্তা আইন যে বাংলাদেশ সবার আগে করবে তা কেউ ভাবেনি। এই আইন সময়ের সঙ্গে সঙ্গে পরিবর্তন হওয়া দরকার। তাই এই আইনেই বিধিমালা তৈরির বিধান রাখা হয়েছে। ফলে কখনও এই আইনে কোনো পরিবর্তন দরকার হলে সংসদের দীর্ঘ প্রক্রিয়ায় যেতে হবে না। দাপ্তরিকভাবেই সহজে বিধিমালা প্রণয়ন বা পরিবর্তন করা যাবে। ইন্টারনেটকে নিরাপদ রাখতে আমরা বদ্ধ পরিকর। আগামী দিনে যুদ্ধ-সংঘাতও সাইবার জগতে হবে উল্লেখ করে মোস্তাফা জব্বার বলেন, আগামি দিনে যুদ্ধও হবে সাইবার জগতে। তাই আমাদের সামরিক বাহিনীগুলোকে এবং পুলিশসহ অন্যান্য আইন-শৃঙ্খলা বাহিনীকে প্রস্তুত হতে হবে। সাইবার ক্রাইম ইউনিট শুধু রাজধানী বা জেলা শহরগুলোতে না রেখে প্রতিটি থানায় ছড়িয়ে দেওয়ার সময় এসেছে। থানা পর্যায়ে এসব সাইবার ইউনিটে থাকবে দক্ষ জনবল এবং আধুনিক যন্ত্রপাতি। এসময় প্রতিবেদনের করা এক প্রশ্নের জবাবে বিভিন্ন মোবাইল অ্যাপসের ডিভাইসে অনুপ্রবেশের অনুমতি নেওয়া প্রসঙ্গে মন্ত্রী বলেন, ডিজিটাল প্ল্যাটফর্মে আমাদের গোপনীয়তা যে প্রতিনিয়ত লঙ্ঘিত হচ্ছে তা দৈনন্দিন জীবনের এক বিড়ম্বনা হয়ে দাঁড়িয়েছে। এরজন্য দায়ী মোবাইলভিত্তিক অ্যাপসগুলো।

কিন্তু সমস্যা হচ্ছে যে, এসব অ্যাপস যারা তৈরি করেন তারা তার আগে আমাদের থেকে অনুমতি নেন না। তাই তাদেরকে আমাদের তরফ থেকে নিয়ন্ত্রণে রাখা একরকম অসম্ভব। তবে বিভিন্ন ধরনের আইনের মাধ্যমে তাদেরকে নিয়ন্ত্রণে রাখার চেষ্টা করে যাচ্ছি আমরা। কর্মশালায় বিশেষ অতিথির বক্তব্যে সাইবার নিরাপত্তায় ‘ফায়ারওয়াল’ এর প্রতি আমদানি শুল্ক কমানোর দাবি জানান বেসিস সভাপতি সৈয়দ আলমাস কবীর। একই সঙ্গে আর্থিক প্রতিষ্ঠানগুলোকে ফায়ারওয়াল এর প্রতি গুরুত্ব আরোপের আহ্বান জানিয়ে তিনি বলেন, একটি কম্পিউটার ব্যবস্থার নিরাপত্তা সবচেয়ে বেশি নিশ্চিত করে একটি ভালো ফায়ারওয়াল। অথচ এখানেই আমাদের অনেক উদাসীনতা। বিশেষ করে ফায়ারওয়াল আমদানি করতে সবমিলিয়ে ৬০ শতাংশের বেশি কর দিতে হয়। যে কারণে অনেক প্রতিষ্ঠান বিশেষ করে আর্থিক প্রতিষ্ঠানগুলো ফায়ারওয়াল এ সেভাবে বিনিয়োগ করেন না। বেশিরভাগ প্রতিষ্ঠানই কোনোরকমে একটি ফায়ারওয়াল রাখেন।

এছাড়াও দেশীয় আইটি খাতের নিরাপত্তা নিশ্চিতে নিয়মিতভাবে আইটি অডিট করতে হবে। নয়তো দেশীয় তথ্য বাইরে পাচার হওয়াসহ বিভিন্ন সাইবার ঝুঁকি দেখা দিতে পারে। আর সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে সবকিছু প্রকাশ না করার আহ্বান জানান আইন ও সংসদ বিষয়ক বিভাগের জ্যেষ্ঠ সচিব মোহাম্মদ শহিদুল হক। তিনি বলেন, সাইবার জগতে আমাদের যে নিরাপত্তা ঝুঁকি তৈরি হয় তার একটি বড় কারণ হচ্ছে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম বিশেষ করে ফেসবুকে আমাদের সবকিছু শেয়ার (প্রকাশ) করা। আমরা যাই করি বা করবো তার সবকিছুই এসব প্ল্যাটফর্মে শেয়ার করি যা মোটেও উচিত নয়। আমাদের ঠিক ততটুকু প্রকাশ করা উচিত যতটুকু সামাজিক যোগাযোগের জন্য দরকার। নিজেরা সচেতন হলে ঝুঁকি এমনিতেই অনেকখানি কমে যাবে।

কর্মশালায় মূল্য প্রবন্ধ উপস্থাপন করেন কানাডিয়ান ইউনিভার্সিটি অব বাংলাদেশের উপাচার্য ড. মুহম্মদ মাহফুজুল ইসলাম। সভাপতিত্ব করেন তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি বিভাগের সচিব এন এম জিয়াউল আলম। এছাড়াও এতে অন্যান্যের মধ্যে বক্তব্য রাখেন ডাক, টেলিযোগাযোগ ও তথ্যপ্রযুক্তি বিষয়ক সংসদীয় কমিটির সদস্য অপরাজিতা হক, ঢাকা মহানগর পুলিশের অতিরিক কমিশনার মনিরুল ইসলাম, তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি বিভাগের যুগ্ম সচিব খায়রুল আমীন।

ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনটি বাংলাদেশের আগে আর কেউ করেনি: জব্বার
                                  

 ডাক ও টেলিযোগাযোগ মন্ত্রী মোস্তাফা জব্বার বলেছেন, ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনটি বাংলাদেশের আগে আর কেউ করেনি। ফেসবুকের মতো প্রতিষ্ঠানকে আমরা আমাদের এই আইনের কথা বলেছি। তাদের আমি বলেছি যে, যুক্তরাষ্ট্রের সামাজিক প্রেক্ষাপট আর আমাদের সামাজিক প্রেক্ষাপট এক না। বাক স্বাধীনতার নামে আমাদের প্রধানমন্ত্রীকে কেউ ব্যঙ্গ-বিদ্রুপ করবে, অপমান করবে, তোমাদের (ফেসবুক) সেই আইন এখানে (বাংলাদেশে) চলবে না। আমাদের নিজেদের আইন আছে। তোমাদের কমিউনিটি গাইডলাইন্স যাই থাকুক না কেন, সেটি এই আইনের সঙ্গে সহায়ক হতে হবে। ।

এই আইনকে গুরুত্ব দিয়ে বাংলাদেশের ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনের ইংরেজি সংস্করণ ফেসবুকের কর্তাব্যক্তিদের কাছে থাকে বলেও মন্তব্য করেছেন মন্ত্রী। গতকাল শনিবার রাজধানীর বঙ্গবন্ধু আন্তর্জাতিক সম্মেলন কেন্দ্রে ‘ডিজিটাল নিরাপত্তা এবং করণীয়’ শীর্ষক এক কর্মশালায় প্রধান অতিথির বক্তব্যে এ কথা বলেন তিনি। ডিজিটাল নিরাপত্তা আইন- ২০১৮ প্রসঙ্গে মন্ত্রী বলেন, ডিজিটাল নিরাপত্তা আইন যে বাংলাদেশ সবার আগে করবে তা কেউ ভাবেনি। এই আইন সময়ের সঙ্গে সঙ্গে পরিবর্তন হওয়া দরকার। তাই এই আইনেই বিধিমালা তৈরির বিধান রাখা হয়েছে। ফলে কখনও এই আইনে কোনো পরিবর্তন দরকার হলে সংসদের দীর্ঘ প্রক্রিয়ায় যেতে হবে না। দাপ্তরিকভাবেই সহজে বিধিমালা প্রণয়ন বা পরিবর্তন করা যাবে। ইন্টারনেটকে নিরাপদ রাখতে আমরা বদ্ধ পরিকর। আগামী দিনে যুদ্ধ-সংঘাতও সাইবার জগতে হবে উল্লেখ করে মোস্তাফা জব্বার বলেন, আগামি দিনে যুদ্ধও হবে সাইবার জগতে। তাই আমাদের সামরিক বাহিনীগুলোকে এবং পুলিশসহ অন্যান্য আইন-শৃঙ্খলা বাহিনীকে প্রস্তুত হতে হবে। সাইবার ক্রাইম ইউনিট শুধু রাজধানী বা জেলা শহরগুলোতে না রেখে প্রতিটি থানায় ছড়িয়ে দেওয়ার সময় এসেছে। থানা পর্যায়ে এসব সাইবার ইউনিটে থাকবে দক্ষ জনবল এবং আধুনিক যন্ত্রপাতি। এসময় প্রতিবেদনের করা এক প্রশ্নের জবাবে বিভিন্ন মোবাইল অ্যাপসের ডিভাইসে অনুপ্রবেশের অনুমতি নেওয়া প্রসঙ্গে মন্ত্রী বলেন, ডিজিটাল প্ল্যাটফর্মে আমাদের গোপনীয়তা যে প্রতিনিয়ত লঙ্ঘিত হচ্ছে তা দৈনন্দিন জীবনের এক বিড়ম্বনা হয়ে দাঁড়িয়েছে। এরজন্য দায়ী মোবাইলভিত্তিক অ্যাপসগুলো।

কিন্তু সমস্যা হচ্ছে যে, এসব অ্যাপস যারা তৈরি করেন তারা তার আগে আমাদের থেকে অনুমতি নেন না। তাই তাদেরকে আমাদের তরফ থেকে নিয়ন্ত্রণে রাখা একরকম অসম্ভব। তবে বিভিন্ন ধরনের আইনের মাধ্যমে তাদেরকে নিয়ন্ত্রণে রাখার চেষ্টা করে যাচ্ছি আমরা। কর্মশালায় বিশেষ অতিথির বক্তব্যে সাইবার নিরাপত্তায় ‘ফায়ারওয়াল’ এর প্রতি আমদানি শুল্ক কমানোর দাবি জানান বেসিস সভাপতি সৈয়দ আলমাস কবীর। একই সঙ্গে আর্থিক প্রতিষ্ঠানগুলোকে ফায়ারওয়াল এর প্রতি গুরুত্ব আরোপের আহ্বান জানিয়ে তিনি বলেন, একটি কম্পিউটার ব্যবস্থার নিরাপত্তা সবচেয়ে বেশি নিশ্চিত করে একটি ভালো ফায়ারওয়াল। অথচ এখানেই আমাদের অনেক উদাসীনতা। বিশেষ করে ফায়ারওয়াল আমদানি করতে সবমিলিয়ে ৬০ শতাংশের বেশি কর দিতে হয়। যে কারণে অনেক প্রতিষ্ঠান বিশেষ করে আর্থিক প্রতিষ্ঠানগুলো ফায়ারওয়াল এ সেভাবে বিনিয়োগ করেন না। বেশিরভাগ প্রতিষ্ঠানই কোনোরকমে একটি ফায়ারওয়াল রাখেন।

এছাড়াও দেশীয় আইটি খাতের নিরাপত্তা নিশ্চিতে নিয়মিতভাবে আইটি অডিট করতে হবে। নয়তো দেশীয় তথ্য বাইরে পাচার হওয়াসহ বিভিন্ন সাইবার ঝুঁকি দেখা দিতে পারে। আর সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে সবকিছু প্রকাশ না করার আহ্বান জানান আইন ও সংসদ বিষয়ক বিভাগের জ্যেষ্ঠ সচিব মোহাম্মদ শহিদুল হক। তিনি বলেন, সাইবার জগতে আমাদের যে নিরাপত্তা ঝুঁকি তৈরি হয় তার একটি বড় কারণ হচ্ছে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম বিশেষ করে ফেসবুকে আমাদের সবকিছু শেয়ার (প্রকাশ) করা। আমরা যাই করি বা করবো তার সবকিছুই এসব প্ল্যাটফর্মে শেয়ার করি যা মোটেও উচিত নয়। আমাদের ঠিক ততটুকু প্রকাশ করা উচিত যতটুকু সামাজিক যোগাযোগের জন্য দরকার। নিজেরা সচেতন হলে ঝুঁকি এমনিতেই অনেকখানি কমে যাবে।

কর্মশালায় মূল্য প্রবন্ধ উপস্থাপন করেন কানাডিয়ান ইউনিভার্সিটি অব বাংলাদেশের উপাচার্য ড. মুহম্মদ মাহফুজুল ইসলাম। সভাপতিত্ব করেন তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি বিভাগের সচিব এন এম জিয়াউল আলম। এছাড়াও এতে অন্যান্যের মধ্যে বক্তব্য রাখেন ডাক, টেলিযোগাযোগ ও তথ্যপ্রযুক্তি বিষয়ক সংসদীয় কমিটির সদস্য অপরাজিতা হক, ঢাকা মহানগর পুলিশের অতিরিক কমিশনার মনিরুল ইসলাম, তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি বিভাগের যুগ্ম সচিব খায়রুল আমীন।

গবেষণায় বিএসএমএমইউর ৫৩ শিক্ষক-চিকিৎসককে অনুদান
                                  

 স্বাস্থ্য ও চিকিৎসা বিষয়ক গবেষণার জন্য বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিক্যাল বিশ্ববিদ্যালয়ের (বিএসএমএমইউ) ৪৫ শিক্ষক, এক কনসালটেন্ট, সাত মেডিক্যাল অফিসারসহ মোট ৫৩ শিক্ষক ও চিকিৎসককে অনুদান দেওয়া হয়েছে। গতকাল শনিবার বিএসএমএমইউর উপ-উপাচার্য (গবেষণা ও উন্নয়ন) অধ্যাপক ডা. মো. শহীদুল্লাহ সিকদার তার কার্যালয়ে শিক্ষক ও চিকিৎসকদের হাতে এ অনুদান তুলে দেন।

অধ্যাপক ডা. মো. শহীদুল্লাহ সিকদার বলেন, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা গবেষণায় অত্যন্ত গুরুত্ব দিয়েছেন। মৌলিক ও চিকিৎসা বিষয়ক গবেষণায় তার বিশেষ নজর রয়েছে। সেদিকে খেয়াল রেখে ও জনগণের স্বার্থের কথা চিন্তা করে কল্যাণধর্মী গবেষণায় অধিক গুরুত্ব দিতে হবে। গবেষণা সম্পর্কে সবাইকে জানাতে হবে, যেন মানুষ এ বিষয়ে সচেতন হয় ও সংশ্লিষ্টরা প্রয়োজনীয় পদক্ষেপ নিতে পারেন।

এ সময় বিশ্ববিদ্যালয়ের উপ-উপাচার্য (প্রশাসন) অধ্যাপক ডা. মুহাম্মদ রফিকুল আলমসহ অন্য চিকিৎসক ও শিক্ষকরা উপস্থিত ছিলেন। এদিকে, গতকাল শনিবার উপাচার্য অধ্যাপক ডা. কনক কান্তি বড়ুয়া বিশ্ববিদ্যালয়ের সি ব্লকে যান ও হাসপাতালের অগ্নিনির্বাপন ব্যবস্থা পর্যবেক্ষণ করেন। অগ্নিকা- ঘটলে রোগী, চিকিৎসক, নার্সসহ সংশ্লিষ্টরা যেন নিরাপদে বের হতে পারেন, সে বিষয়ে প্রয়োজনীয় নির্দেশনা দেন তিনি। বিশ্ববিদ্যালয়ের সব ভবনের সিঁড়ি যেন চলাচলের উপযোগী থাকে, সে জন্য দ্রুত সংস্কারসহ প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেওয়ার নির্দেশ দেন অধ্যাপক ডা. কনক কান্তি বড়ুয়া।

এছাড়া, সব জায়গায় প্রয়োজনীয় অগ্নিনির্বাপক যন্ত্র রাখার ওপর গুরুত্ব দেন তিনি। অগ্নিকা- ঘটলে যেন দ্রুততম সময়ে ফায়ার সার্ভিসের গাড়ি প্রবেশ করতে পারে, সে বিষয়ে নির্দেশ দিয়েছেন উপাচার্য, এ-সংক্রান্ত কার্যক্রমও শুরু হয়েছে বলে জানা গেছে। এ সময় আরও উপস্থিত ছিলেন বিশ্ববিদ্যালয়ের উপ-উপাচার্য (গবেষণা ও উন্নয়ন) অধ্যাপক ডা. মো. শহীদুল্লাহ সিকদার, উপ-উপাচার্য (প্রশাসন) অধ্যাপক ডা. মুহাম্মদ রফিকুল আলম, রেজিস্টার অধ্যাপক ডা. এ বি এম আবদুল হান্নান, প্রক্টর অধ্যাপক ডা. সৈয়দ মোজাফফর আহমেদ, পরিচালক (হাসপাতাল) বিগ্রেডিয়ার জেনারেল এ কে মাহাবুবুল হক, প্রধান প্রকৌশলী এ কে এম হাবিবুর রহমান প্রমুখ।

আজ দেশে ফিরছেন রাষ্ট্রপতি
                                  

রাষ্ট্রপতি মো. আবদুল হামিদ তাঁর নিয়মিত স্বাস্থ্য পরীক্ষা ও চোখের চিকিৎসার উদ্দেশ্যে যুক্তরাজ্য ও জার্মানীতে ১১ দিনের সফর শেষে আজ রোববার দেশে ফিরছেন। রাষ্ট্রপতির উপ-প্রেস সচিব আবুল কালাম আজাদ গতকাল শনিবার বার্তাসংস্থা বাসস’কে জানান, রোববার সকালে বাংলাদেশ বিমানের একটি ভিভিআইপি ফ্লাইটে (বিজি ২০২) রাষ্ট্রপতি তাঁর সফরসঙ্গীদের নিয়ে হজরত শাহাজালাল আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরে পৌঁছবেন।

রাষ্ট্রপতি গত ১৫ মে বুপা ক্রেমওয়েল হাসপাতালে স্বাস্থ্য পরীক্ষার জন্য এবং মুরফিল্ডস আই হাসপাতালে চোখের চিকিৎসার জন্য ১১ দিনের সফরে লন্ডনের উদ্দেশে রওনা হন। এ ছাড়া তিনি স্বাস্থ্য পরীক্ষার জন্য জার্মানীর ফ্রাঙ্কফুটে যান। উপ-প্রেস সচিব বলেন, রাষ্ট্রপতিকে বহনকারী ভিভিআইপি ফ্লাইটটি ঢাকার উদ্দেশে লন্ডনের হিথ্রো বিমানবন্দর ত্যাগ করবে স্থানীয় সময় ১৮টা ২০মিনিটে। এ সময় বিমানবন্দরে যুক্তরাজ্যে বাংলাদেশ হাইকমিশনারসহ জ্যেষ্ঠ কর্মকর্তারা বিমানবন্দরে তাকে বিদায় জানাবেন। আবদুল হামিদ দীর্ঘদিন যাবৎ গ্লুকোমার সমস্যায় চিকিৎসাধীন রয়েছেন। তিনি জাতীয় সংসদের স্পিকার থাকার সময় থেকে নিয়মিত লন্ডনে স্বাস্থ্য পরীক্ষা করে আসছেন।

 

খালেদা জিয়ার চিকিৎসায় সর্বোচ্চ গুরুত্ব দিচ্ছে সরকার: নাসিম
                                  

আওয়ামী লীগের প্রেসিডিয়াম সদস্য ও ১৪ দলের মুখপাত্র মোহাম্মদ নাসিম এমপি বলেছেন, দন্ডিত হলেও খালেদা জিয়া একটি রাজনৈতিক দলের নেত্রী। তার প্রতি অমানবিক আচরণ সরকার করতে পারে না। দায়িত্ববোধ থেকেই অত্যন্ত গুরুত্ব দিয়ে দেশের সর্বোচ্চ প্রতিষ্ঠানে খালেদার চিকিৎসা করানো হচ্ছে।

গতকাল শনিবার বিকেলে সিরাজগঞ্জ সদর উপজেলার শিয়ালকোলে শহীদ এম মনসুর আলী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের নির্মাণকাজের অগ্রগতি পরিদর্শন শেষে তিনি এ কথা বলেন। নাসিম বলেন, বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয়ের চিকিৎসকগণ রোগ বিশ্লেষণ করে খালেদার চিকিৎসা দিচ্ছেন। কিন্তু তার চিকিৎসা নিয়ে মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীরের মতো দায়িত্বশীল ব্যক্তির কাছে অসত্য বক্তব্য কখনোই গ্রহণযোগ্য নয়।

তিনি আরও বলেন, বঙ্গবন্ধু কন্যা শেখ হাসিনার নেতৃত্বে উন্নয়নের মাইলফলক সৃষ্টি হয়েছে। এই উন্নয়নের কারণেই শেখ হাসিনাকে এদেশের জনগণ বারবার ক্ষমতায় বসিয়েছে। এ সময় উপস্থিত ছিলেন- শহীদ এম মনসুর আলী মেডিকেল কলেজের অধ্যক্ষ অধ্যাপক ডা. রফিকুল ইসলাম, গণপূর্ত বিভগের উপ-বিভাগীয় প্রকৌশলী শাহীন রেজা, জেলা আওয়ামী লীগের সহ-সভাপতি আবু ইউসুফ সূর্য, সাবেক সাংগঠনিক সম্পাদক আবদুল বারী তালুকদার, পৌর আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক দানিউল হক মোল্লা, জেলা যুবলীগের সভাপতি মঈন উদ্দিন খান চিনু, সাবেক ভিপি রাশেদ ইউসুফ জুয়েল, জেলা স্বেচ্ছাসেবক লীগের সাধারণ সম্পাদক জিহাদ আল ইসলাম প্রমুখ।

পদ্মাসেতুর ত্রয়োদশ স্প্যান বসবে আজ
                                  

প্রতিকূল আবহাওয়ার কারণে পদ্মাসেতুর ত্রয়োদশ স্প্যান ‘৩বি’ সেতুর ১৪ ও ১৫ নম্বর পিলারের ওপর গতকাল শুক্রবার বসেনি। আজ শনিবার সকাল থেকে আবার শুরু হবে স্প্যান বসানোর কার্যক্রম। গতকাল শুক্রবার সকাল থেকেই পদ্মার আকাশ ছিল মেঘাচ্ছন্ন। ভাসমান ক্রেনে স্প্যান নিয়ে রওনা দেওয়া নিয়ে দেখা দেয় সংশয়। আবহাওয়া পরিস্থিতি দেখে স্প্যান পিলারের ওপর বসানো নিয়ে প্রকৌশলীদের বাড়তি ভাবনার যোগ হয়। সকাল ৮টা স্প্যান রওনা দেওয়ার কথা থাকলেও আবহাওয়াজনিত কারণে ২ ঘণ্টা পর রওনা দেয়। এরপর স্প্যানবহনকারী ক্রেনটি পৌঁছায় বেলা ১১টা ১০ মিনিটের দিকে। প্রকৌশল সূত্র জানান, স্প্যান নির্ধারিত পিলারের কাছে আসতে বেশি সময় লেগে যায়। এরপর যেই সময় আছে তার মধ্যে স্প্যান বসিয়ে দিয়ে আনুষঙ্গিক কাজ শেষ করা সম্ভব হবে না। তাই পরদিন (শনিবার) সকাল থেকে আবার স্প্যান বসানোর কাজ শুরুর সিদ্ধন্ত হয়। জানা যায়, স্প্যান বহনকারী ক্রেনটি ১৪ ও ১৫ নম্বর পিলারের মধ্যবর্তী স্থানে নোঙর করে রাখা হয়েছে। বেলা ১১টা ১০ মিনিটের দিকে ধূসর রংয়ের ১৫০ মিটার দৈর্ঘ্যরে ও তিন হাজার ১৪০ টন ওজনের স্প্যানকে মাওয়া কন্সট্রাকশন ইয়ার্ড থেকে বহন করে নিয়ে আসে তিন হাজার ৬০০ টন ধারণ ক্ষমতার ‘তিয়ান ই’ ক্রেন। স্প্যানটি বসানো হলে দৃশ্যমান হবে সেতুর এক হাজার ৯৫০ মিটার। পুরো সেতুতে দুই হাজার ৯৩১টি রোডওয়ে স্ল্যাব বসানো হবে। আর রেলওয়ে স্ল্যাব বসানো হবে দুই হাজার ৯৫৯টি। মাওয়া কনস্ট্রাকশন ইয়ার্ডে ২৩টি স্প্যানের মধ্যে ১২টি স্প্যান বসানো হয়েছে। ২০১৪ সালের ডিসেম্বরে সেতুর নির্মাণ কাজ শুরু হয়। সেতু নির্মাণে ব্যয় হচ্ছে ৩৩ হাজার কোটি টাকা। মূল সেতু নির্মাণের জন্য কাজ করছে চীনের ঠিকাদারি প্রতিষ্ঠান চায়না মেজর ব্রিজ ইঞ্জিনিয়ারিং কোম্পানি (এমবিইসি) ও নদী শাসনের কাজ করছে দেশটির আরেকটি প্রতিষ্ঠান সিনো হাইড্রো করপোরেশন। ৬ দশমিক ১৫ কিলোমিটার দীর্ঘ এ বহুমুখী সেতুর মূল আকৃতি হবে দোতলা। কংক্রিট ও স্টিল দিয়ে নির্মিত হচ্ছে এ সেতুর কাঠামো।

ঈদের নামাজে প্রস্তুত হচ্ছে জাতীয় ঈদগাহ
                                  

 আসন্ন ঈদুল ফিতরে ঈদের প্রধান জামাতের জন্য প্রস্তুত করা হচ্ছে সুপ্রিম কোর্ট সংলগ্ন জাতীয় ঈদগাহ ময়দান। এখানে নামায আদায় করেন রাষ্ট্রপতি, প্রধান বিচারপতি, বিভিন্ন বাহিনীর প্রধান, সরকারের বিভিন্ন গুরুত্বপূর্ণ ব্যক্তিসহ সাধারণ মুসল্লিরা। এরই ধারাবাহিকতায় এবারও ঈদুল ফিতরে প্রায় এক লাখ মুসল্লি জাতীয় এ ঈদগাহে নামাজ আদায় করবেন। সে লক্ষ্যে এখন চলছে পূর্ণ প্রস্তুতি।

জাতীয় ঈদগাহ ময়দানে গিয়ে দেখা যায়, বিভিন্ন স্থানের মাটি কেটে সমান করার কাজ করছেন শ্রমিকরা। গণপূর্ত অধিদপ্তরের তত্ত্বাবধানে এখানকার মাটি সমান এবং গাছগুলোতে রং করার কাজ করা হচ্ছে বলে জানান অধিদপ্তরের কার্যকরী সহকারী নজরুল ইসলাম। অন্যদিকে প্যান্ডেল তৈরির কাজ করছেন ঠিকাদারি প্রতিষ্ঠান পিয়ারু সরদার অ্যান্ড সন্সের কয়েকজন প্রতিনিধি। মূলত ঈদগাহের প্যান্ডেল তৈরি, সামিয়ানা ও ত্রিপল স্থাপন এবং ঈদগাহের পরিবেশ পরিষ্কার পরিচ্ছন্ন রাখার কাজটি করে ঢাকা দক্ষিণ সিটি করপোরেশন (ডিএসসিসি)। ডিএসসিসি’র অঞ্চল-১ এর নির্বাহী প্রকৌশলী মোহাম্মদ শফিউল্লাহ বাংলানিজকে বলেন, ঈদের নামাজের জন্য ঈদগাহ প্রস্তুত করা এবং নামাজ শেষ হওয়া পর্যন্ত পুরো প্রক্রিয়ার কাজগুলো অনেকগুলো সংস্থা মিলে করে থাকে। আর প্রত্যেকেরই কাজ নির্দিষ্ট করে ভাগ করা আছে। আমরা সিটি করপোরেশন শুধু প্যান্ডেল তৈরি, সামিয়ানা ও রেইন প্রুফ কাভার অর্থ্যাৎ ত্রিপল, মোবাইল টয়লেট স্থাপন এবং ঈদগাহের ভেতরে ও বাইরের এলাকার সার্বিক সৌন্দর্য্য ও পরিষ্কার পরিচ্ছন্নতার কাজ করি। নিরাপত্তার কাজ করবে পুলিশ, র‌্যাব ও অন্যান্য আইন প্রয়োগকারী সংস্থা, মাইকিংয়ের কাজ করবে তথ্য মন্ত্রণালয়; এভাবে প্রস্তুত করা হয় ঈদগাহ ময়দান। আবার আবহাওয়া যদি অনুকূলে থাকে তাহলে ঈদের জামাত আমাদের তত্ত্বাবধানেই হবে। এখানে সাধারণত সকাল সাড়ে ৮টায় জামাত অনুষ্ঠিত হয়। যদি আবহাওয়া অনুকূলে না থাকে তাহলে জামাতের বিষয়টি আবার ধর্ম মন্ত্রণালয়ের এখতিয়ারে চলে যায়। তখন সাধারণত সকাল ৯টায় বায়তুল মোকাররমে এ জামাত অনুষ্ঠিত হবে। জামাত আয়োজনে নিজেদের প্রস্তুতির বিষয়ে ডিএসসিসি’র এই প্রকৌশলী বলেন, আমাদের অংশের কাজ সম্পন্নের জন্য এরইমধ্যে ঠিকাদার নিয়োগ হয়েছে (পিয়ারু সরদার)।

দুই দিন আগে তারা কাজ শুরু করেছে। ঈদের চার পাঁচদিন আগেই কাজ শেষ হয়ে যাবে। আমাদের এখানে সাধারণত ৮০ হাজার মুসল্লি একত্রে নামাজ আদায় করেন। এবার ৮৪ থেকে ৯০ হাজার পুরুষ মুসল্লির নামাজ আদায়ের ব্যবস্থা করা হচ্ছে। এছাড়াও প্রায় পাঁচ হাজার নারী মুসল্লির জন্য নামাজ আদায়ের আলাদা বিশেষ ব্যবস্থা থাকছে। মূল প্যান্ডেল ছাড়াও ২৫ হাজার ৪০৩ বর্গমিটার আয়তনের এলাকার ওপর ত্রিপল দেওয়া হচ্ছে। এছাড়াও তিন হাজার ৫৫ বর্গমিটার আয়তনের ওপর সামিয়ানা দিচ্ছি।

এদিকে ডিএসসিসি’র জনসংযোগ কর্মকর্তা উত্তম কুমার রায় বলেন, ঈদগাহের জামাত বিষয়ে আগামি রোববার (২৬ মে) নগর ভবনে সবগুলো মন্ত্রণালয় ও সংশ্লিষ্ট সংস্থার উচ্চপর্যায়ের প্রতিনিধিদের নিয়ে একটি সভা আয়োজিত হবে। ডিএসসিসি মেয়র সাঈদ খোকন সভায় সভাপতিত্ব করবেন। বেশকিছু বিষয়ে সভায় আলোচনা ও সিদ্ধান্ত নেওয়া হবে।

আজ ‘পঞ্চগড় এক্সপ্রেস’ ট্রেনের উদ্বোধন করবেন প্রধানমন্ত্রী
                                  

 দেশের দীর্ঘতম রেলপথ ঢাকা-পঞ্চগড়-ঢাকা রুটে স্বল্প বিরতির আন্তঃনগর ট্রেন ‘পঞ্চগড় এক্সপ্রেস’ চালু হচ্ছে আজ শনিবার। গণভবন থেকে ভিডিও কনফারেন্সের মাধ্যমে ট্রেনটির উদ্বোধন করবেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। বীর মুক্তিযোদ্ধা সিরাজুল ইসলাম রেলস্টেশন থেকে ট্রেনটি ছেড়ে যাবে। সেখানে উপস্থিত থাকবেন রেলপথমন্ত্রী অ্যাডভোকেট নুরুল ইসলাম সুজন। এদিকে, গতকাল শুক্রবার দুপুরে রেলপথমন্ত্রী ‘পঞ্চগড় এক্সপ্রেস’ এর উদ্বোধনী অনুষ্ঠানসহ সার্বিক কার্যক্রম পরিদর্শনে সিরাজুল ইসলাম রেলস্টেশনে যান। তিনি উদ্বোধনী অনুষ্ঠানের বিভিন্ন কার্যক্রম দেখেন এবং রেল বিভাগের কর্মকর্তাদের পরামর্শ দেন।

এ সময় রেলওয়ে পশ্চিমাঞ্চলের মহাব্যবস্থাপক খন্দকার শহিদুল ইসলাম, রেলওয়ে পশ্চিমাঞ্চলের প্রধান প্রকৌশলী আফজাল হোসেন, জেলা প্রশাসক সাবিনা ইয়াসমিন ও পুলিশ সুপার মো. গিয়াসউদ্দিন আহম্মেদসহ অন্য কর্মকর্তারা উপস্থিত ছিলেন। বীর মুক্তিযোদ্ধা সিরাজুল ইসলাম রেলস্টেশনের মাস্টার মো. মোশাররফ হোসেন জানান, ট্রেনটি উদ্বোনের পর প্রথম যাত্রী হবেন, রেলপথমন্ত্রী অ্যাডভোকেট নুরুল ইসলাম সুজন। ট্রেনের প্রতিটি যাত্রী বিনামূল্যে ঢাকা যাবেন এবং সব যাত্রীর জন্য রয়েছে ইফতারের আয়োজন। রেল বিভাগ সূত্রে জানা গেছে, পঞ্চগড় থেকে ঢাকা- এ রেল রুটের দূরত্ব ৫৯৩ কিলোমিটার। যা পঞ্চগড় এক্সপ্রেস ট্রেনটি ১০ ঘণ্টায় অতিক্রম করবে। ট্রেনটি প্রতিদিন দুপুর সোয়া ১২টায় পঞ্চগড় থেকে ঢাকার উদ্দেশে ছেড়ে যাবে। পৌঁছাবে রাত ১০টা ৩৫ মিনিটে।

রাত ১২টা ১০মিনিটে ট্রেনটি ঢাকা থেকে ছেড়ে সকাল ১০টা ৪৫মিনিটে পঞ্চগড় পৌঁছাবে। যাত্রাপথে রুহিয়া, ঠাকুরগাঁও, দিনাজপুর, পাবর্তীপুর ও ঢাকা বিমানবন্দর স্টেশনে থামবে। ঢাকা থেকে আসার পথেও এসব স্টেশনে থামবে ট্রেনটি। ট্রেনটিতে আধুনিক সুযোগ সুবিধা থাকা সত্ত্বেও ভাড়া একতা ও দ্রুত যানের সমান রাখা হয়েছে। ট্রেনটির ৩০ শতাংশ আসন পঞ্চগড়ের জন্য, ৩০ শতাংশ দিনাজপুরের, ২৫ শতাংশ ঠাকুরগাঁওয়ের ও ১৫ শতাংশ পার্বতীপুরের জন্য নির্ধারিত থাকবে।

সবমিলিয়ে প্রায় এক হাজার যাত্রী পরিবহণ করবে ট্রেনটি। এ ট্রেন চালু হলে দেশের সর্ব উত্তরের জেলা পঞ্চগড়ের সঙ্গে রাজধানীর যোগাযোগে সময় কম লাগবে। ব্যবসা বানিজ্যসহ পঞ্চগড়ের চা, ভুগর্ভস্থ নুড়ি পাথর, উৎপাদিত কৃষিপণ্য পরিবহন বাড়বে। এ ছাড়া বিরল ও বাংলাবান্ধা স্থল বন্দরের মাধ্যমে আমদানি-রফতানি সহজতরসহ পর্যটন খাত ব্যাপক প্রসার লাভ করবে। ঈদের আগে নতুন এই ট্রেন সার্ভিস চালুর ফলে বেশ উপকৃত হবেন পঞ্চগড়ের মানুষ।

 

বিশেষ শিশুদের সহায়তায় একযোগে কাজ করতে হবে: সমাজকল্যাণ মন্ত্রী
                                  

 সমাজকল্যাণ মন্ত্রী নুরুজ্জামান আহমেদ সমাজে বিশেষ শিশুদের সহায়তার জন্য দেশের সরকারি ও বেসরকারি প্রতিষ্ঠানগুলোকে এগিয়ে আসার আহ্বান জানিয়েছেন। প্রযুক্তি সরবরাহকারী প্রতিষ্ঠান হুয়াওয়ে টেকনোলজিস (বাংলাদেশ) কর্তৃক পিএফডিএ-ভোকেশনাল ট্রেনিং সেন্টারে অনুদান প্রদান উপলক্ষে আয়োজিত এক অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি এই আহ্বান জানান।

গতকাল বৃহস্পতিবার রাজধানীর মহাখালীতে পিএফ ডি এ-ভোকেশনাল ট্রেনিং সেন্টারে এই অনুষ্ঠানের আয়োজন করা হয়। সমাজকল্যাণ মন্ত্রী বলেন, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা সবসময় গরীব দুঃখী অসহায় মানুষের কথা চিন্তা করেন। তিনি ১৯৯৬ সালে ক্ষমতায় আসার পর সমাজের অবহেলিত উপেক্ষিত প্রতিবন্ধী মানুষের কল্যাণে কাজ শুরু করেন। ২০০১ সালে যারা ক্ষমতায় এসেছিল, তারা দেশের অবহেলিত মানুষের জন্য কিছুই করেনি। তিনি আরও বলেন, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ষোল কোটি মানুষের আশা আকাক্সক্ষা পূরণ করেছেন। সকল বাঁধা বিপত্তি উপেক্ষা করে তিনি জনগণের জন্য কাজ করে যাচ্ছেন। তিনি ষোল কোটি মানুষের একমাত্র আস্থার প্রতীক।

মন্ত্রী বলেন, শেখ হাসিনা মানবতার মূর্ত প্রতীক। মানবতার কল্যাণে তাঁর অবদান স্বরুপ বিশ্বে তিনি মানবতার মা নামে পরিচিতি পেয়েছেন। তাঁর সুযোগ্য কন্যা সায়মা ওয়াজেদ হোসেন প্রতিবন্ধীদের জন্য কাজ করে আন্তর্জাতিক পরিমন্ডলে দেশের জন্য সম্মান বয়ে এনেছেন। মন্ত্রী বলেন, বিশেষ শিশুদের সহায়তার জন্য দেশের সরকারি ও বেসরকারি উভয় প্রতিষ্ঠানকে একসাথে কাজ করা উচিত। এই কাজে উৎসাহ দিতে আজ হুয়াওয়ে ও পিএফডিএ-ভোকেশনাল ট্রেনিং সেন্টার একটা উদাহরণ সৃষ্টি করলো। এই ইনস্টিটিউটের শিক্ষার্থীরা ইতোমধ্যে প্রমাণ করেছে যে, যদি তাদের সঠিকভাবে পরিচর্যা করা হয়, তাহলে তারা তাদের সক্ষমতার প্রমাণ দিতে পারে।

অনুষ্ঠানে হুয়াওয়ে টেকনোলজিস (বাংলাদেশ) লিমিটেডের প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা (সিইও) ঝাং জেংজুন, পিএফডিএ-ভোকেশনাল ট্রেনিং সেন্টারের চেয়ারম্যান সাজিদা রহমান ড্যানি, চিত্রনায়িক ওমর সানী, চিত্রনায়িকা আরিফা পারভীন জামান মৌসুমী এবং হুয়াওয়ের ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তারা উপস্থিত ছিলেন।

 

মাসে একদিন নদী পরিষ্কার করা হবে: নৌ সচিব
                                  

নদী তীর দখল ও দূষণরোধে প্রতিমাসে একদিন নদী পরিষ্কার করা হবে বলে জানিয়েছেন নৌ পরিবহন সচিব আবদুস সামাদ। এক্ষেত্রে নদীর সঙ্গে সংশ্লিষ্ট বিশেষ করে পরিবেশবিদ, নদী রক্ষা আন্দোলনকারীদের স্বেচ্ছায় অংশগ্রহণ করতে হবে। সবার সমন্বিত উদ্যোগে নদীকে আমরা সুরক্ষা করতে পারবো বলে মন্তব্য করেছেন তিনি। গতকাল বুধবার মন্ত্রণালয়ের সভাকক্ষে ঢাকার চারপাশে নদী দখল ও দূষণরোধ কার্যক্রম চলমান রাখা সংক্রান্ত এক সভায় এ কথা বলেন সচিব।

সচিব আবদুস সামাদ বলেন, শিল্পবর্জ্য দূষণরোধে জনসচেতনতা সৃষ্টির পাশাপাশি আইনের কঠোর প্রয়োগ করা হবে। নদীকে দূষণ করে কোনো কিছু করা যাবে না। নদীতে শিল্পবর্জ্য, মেডিকেল বর্জ্যসহ অন্য যেকোনো ধরনের বর্জ্য ফেলা বন্ধ করতে হবে। বৈঠকে জানানো হয় যে, সরকার নদী দখল ও দূষণরোধে কাজ করে যাচ্ছে। নৌপরিবহন মন্ত্রণালয়ের আওতাধীন বিআইডব্লিউটিএ ২৯ জানুয়ারি থেকে ৩০ এপ্রিল পর্যন্ত ঢাকা ও নারায়ণগঞ্জ নদী বন্দরের আওতাধীন এলাকায় ৪ হাজার ১৩টি অবৈধ স্থাপনা উচ্ছেদ এবং ১১৩ একর জমি উদ্ধার করেছে। নদী তীর রক্ষায় অবৈধ স্থাপনা উচ্ছেদ কার্যক্রম চলমান থাকবে বলেও জানান তিনি।

সভায় বিআইডব্লিউটিএ’র চেয়ারম্যান কমডোর এম মাহবুব উল ইসলাম, পরিবেশ বাঁচাও আন্দোলনের আবু নাসের খান, বাংলাদেশ নদী বাঁচাও আন্দোলনের মনির মুন্সী, বুড়িগঙ্গা বাঁচাও আন্দোলনের প্রতিষ্ঠাতা সদস্য মিহির বিশ্বাস, নদী ও পরিবেশ উন্নয়ন পরিষদের সাধারণ সম্পাদক মুহাম্মদ শামসুল হক, এফবিসিসিআই’র পরিচালক আবু নাসের, বিজিএমইএ’র আশরাফ ওয়ারেশ, নদী যাত্রীকের সভাপতি ফারুক আহমেদ, বিজিএমইএ’র পল্লব ভট্টাচার্য, নোঙর-এর সভাপতি সুমন শামস, নদী পরিব্রাজক দলের সভাপতি মনির হোসেন, প্রবাহমান নদী রক্ষা আন্দোলনের সদস্য সচিব জসীম কাতাবী, পানি সম্পদ এবং পরিবেশ ও বন মন্ত্রণালয় এবং ঢাকা দক্ষিণ সিটি কর্পোরেশনের প্রতিনিধিরা উপস্থিত ছিলেন।

 

বাংলাদেশে পাকিস্তানের ভিসা বন্ধ
                                  

ইসলামাবাদে দায়িত্ব পালন শেষে দেশে ফিরতে গত জানুয়ারির শুরুতে ভিসার মেয়াদ বাড়ানোর জন্য আবেদন করেছিলেন প্রেস কাউন্সেলর মোহাম্মদ ইকবাল হোসেন। চার মাসেও বিষয়টির সুরাহা না হওয়ায় পাকিস্তানের নাগরিকদের জন্য ১৩ মে থেকে ভিসা দেওয়া বন্ধ করেছে ইসলামাবাদে অবস্থিত বাংলাদেশের হাইকমিশন।

সোমবার রাতে পাকিস্তানে বাংলাদেশ হাইকমিশনের একটি সূত্র এ তথ্য নিশ্চিত করেছে।

সোমবার বিকেলে রুশ বার্তা সংস্থা স্পুতনিক নিউজ দিল্লি থেকে করা এক খবরে বলেছে, কূটনৈতিক অচলাবস্থার জেরে পাকিস্তানের নাগরিকদের জন্য ভিসা বন্ধ করেছে বাংলাদেশ।

ঢাকা ও ইসলামাবাদের কূটনৈতিক সূত্রে যোগাযোগ করে জানা গেছে, গত বছরের ৬ নভেম্বরের পর থেকে পাকিস্তানে বাংলাদেশ হাইকমিশনের ভিসা কাউন্সেলর দায়িত্ব পালন শেষে দেশে ফেরেন। নতুন কর্মকর্তা যোগ না দেওয়ায় গত বছরের নভেম্বর থেকে ১৩ মে পর্যন্ত ইকবাল হোসেন প্রেস কাউন্সেলরের পাশাপাশি ভারপ্রাপ্ত ভিসা কাউন্সেলরের দায়িত্ব পালন করে আসছিলেন। এ বছরের ৩০ মার্চ ঢাকায় ফেরার কথা ছিল ইকবাল হোসেনের। ভিসার মেয়াদ শেষ হওয়ায় নিজের ও মেয়ের ভিসার মেয়াদ বাড়াতে গত ৭ জানুয়ারি পাকিস্তানের পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ে চিঠি দিয়েছিলেন প্রেস কাউন্সেলর। অন্যদিকে, শেষ মুহূর্তের গোছগাছের জন্য বাংলাদেশ থেকে পাকিস্তান যেতে ঢাকায় তাঁর স্ত্রী ও ছেলে ভিসার আবেদন করেছিলেন পাকিস্তান হাইকমিশনে।

এ বিষয়ে ইকবাল হোসেন বলেন, ‘জানুয়ারির শুরুতে আবেদনের পর ভিসার মেয়াদ বাড়াতে বেশ কয়েকবার কূটনৈতিক পত্র পাঠানো হয়েছিল পাকিস্তানের পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ে। কিন্তু এতে কোনো কাজ হয়নি। ভিসার মেয়াদ বাড়ানো হবে কি হবে না, কিছুই আমাকে জানানো হয়নি। শুধু বলা হয়েছে, বিষয়টি প্রক্রিয়াধীন রয়েছে। আবার ঢাকায় আমার স্ত্রী ও ছেলে অন্তত তিনবার ভিসার জন্য পাকিস্তান হাইকমিশনে গিয়ে ঘণ্টার পর ঘণ্টা অপেক্ষা করেও ভিসা পাননি। ঢাকায় ফিরে যাব বলে গত ৩০ এপ্রিল সব মালপত্র পাঠিয়ে দিয়েছি। এমন এক অবস্থায়, আমার দেশে ফেরা নিয়ে অনিশ্চয়তা তৈরি হয়েছে।’

ইসলামাবাদে বাংলাদেশ হাইকমিশনের এক কর্মকর্তা নাম প্রকাশ না করার শর্তে বলেন, ভিসা নিয়ে এমন এক অনিশ্চয়তার পরিপ্রেক্ষিতে ইকবাল হোসেন ১৩ মে হাইকমিশনার তারিক হাসানকে জানিয়ে দেন, তাঁর পক্ষে ভারপ্রাপ্ত ভিসা কাউন্সেলরের দায়িত্ব পালন করা সম্ভব নয়। এমন এক প্রেক্ষাপটে অনানুষ্ঠানিকভাবে ইসলামাবাদে বাংলাদেশ হাইকমিশন ১৩ মে থেকে পাকিস্তানের নাগরিকদের জন্য কোনো ভিসা দিচ্ছে না।

এদিকে, ঢাকায় পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের কর্মকর্তারা এই প্রতিবেদককে জানান, ইসলামাবাদে বাংলাদেশের প্রেস কাউন্সেলর মোহাম্মদ ইকবাল হোসেনের ভিসার মেয়াদ বাড়ানোর বিষয়টি নিয়ে ঢাকায় পাকিস্তান হাইকমিশনের কর্মকর্তাদের সঙ্গে আলোচনা হচ্ছে। এরই অংশ হিসেবে গত বৃহস্পতিবার পাকিস্তান হাইকমিশনের এক কর্মকর্তাকে মন্ত্রণালয়ে ডেকে এ বিষয়টি সুরাহার কথা বলা হয়েছে।

মানবতাবিরোধী অপরাধের বিচারে পাকিস্তানের নাক গলানো শুরু নিয়ে ২০১৩ সাল থেকে ঢাকা-ইসলামাবাদ সম্পর্কে টানাপোড়েন শুরু। পরে ২০১৫ ও ২০১৬ সালে পাকিস্তানের হাইকমিশনের কর্মকর্তা ও কূটনীতিকদের জঙ্গিবাদে সম্পৃক্ততার অভিযোগে তাঁদের ঢাকা থেকে ফিরিয়ে নিতে বাধ্য করা হয়। এর জেরে ইসলামাবাদে বাংলাদেশের এক কূটনীতিককে সরিয়ে নিতে বলেছিল পাকিস্তান। মোটামুটি কয়েক বছর ধরেই একধরনের শীতল অবস্থার মধ্যে যাচ্ছে দুই দেশের সম্পর্ক।

মন্ত্রিপরিষদে পুনর্বিন্যাস করা হয়েছে: শফিউল আলম
                                  

মন্ত্রিপরিষদে আবারো পুনর্বিন্যাস করা হয়েছে। আজ রবিবার এ তথ্য জানান মন্ত্রিপরিষদ সচিব মোহাম্মদ শফিউল আলম।

তিনি জানান, স্বাস্থ্য প্রতিমন্ত্রী ডা. মুরাদ হাসানকে তথ্য মন্ত্রণালয়ের প্রতিমন্ত্রী করা হয়েছে। অন্যদিকে দেওয়া হয়েছে ডাক ও টেলিযোগাযোগ বিভাগে মন্ত্রী মোস্তফা জব্বারকে। তথ্য ও প্রযুক্তি বিভাগের প্রতিমন্ত্রীর দায়িত্বে জুনাইদ আহমেদ পলককে।

এছাড়া, স্থানীয় সরকার বিভাগের মন্ত্রী তাজুল ইসলাম এবং পল্লী উন্নয়ন সমবায় বিভাগের প্রতিমন্ত্রীর দায়িত্ব দেওয়া হয়েছে স্বপন ভট্টাচার্যকে।

চলতি বছরই ৪৭৯২ চিকিৎসক নিয়োগ হবে : স্বাস্থ্যমন্ত্রী
                                  

চলতি বছরই দেশের বিভিন্ন হাসপাতালে ৪ হাজার ৭৯২ চিকিৎসক নিয়োগ দেয়া হবে। চিকিৎসক নিয়োগের জন্য সুপারিশের অনুমোদন দিয়েছে সরকারি কর্ম কমিশন (পিএসসি)।

এ তথ্য জানিয়েছেন স্বাস্থ্য ও পরিবারকল্যাণমন্ত্রী জাহিদ মালেক। মন্ত্রণালয়ের ঘোষিত ১০০ দিনের কর্মসূচির অগ্রগতি জানাতে বৃহস্পতিবার সচিবালয়ে সংবাদ সম্মেলনে এ কথা জানিয়েছেন তিনি।

মন্ত্রী বলেন, চলতি বছরের মধ্যে ৪ হাজার ৭৯২ চিকিৎসক নিয়োগ দেয়া হবে। আগামী বছর আরও প্রায় পাঁচ হাজার নিয়োগ দেয়া হবে।

জাহিদ মালেক বলেন, চিকিৎসক নিয়োগের প্রক্রিয়া শুরু হয়ে গেছে। শিগগিরই নিয়োগ দেয়া হবে।

প্রসঙ্গত পিএসসি বিশেষ বিসিএসের মাধ্যমে হাসপাতালগুলোতে চিকিৎসক নিয়োগ দিয়ে থাকে। ৩৯তম বিসিএসও চিকিৎসকদের জন্য আয়োজন করেছিল পিএসসি। সংবাদ সম্মেলনে স্বাস্থ্য প্রতিমন্ত্রী মুরাদ হাসান, স্বাস্থ্যসেবা বিভাগের সচিব আসাদুল ইসলাম উপস্থিত ছিলেন।

ঈদের প্রধান জামাত সকাল সাড়ে ৮টায়
                                  

এবারের ঈদ-উল-ফিতরের প্রধান জামাত সকাল সাড়ে ৮টায় অনুষ্ঠিত হবে বলে জানিয়েছে ধর্ম মন্ত্রণালয়। আবহাওয়া খারাপ থাকলে বা অন্য কোনো অনিবার্য কারণে নামাজ সম্ভব না হলে জাতীয় মসজিদ বায়তুল মোকাররমে সকাল ৯টায় প্রধান জামাত অনুষ্ঠিত হবে।

আজ বুধবার সচিবালয়ে ধর্ম মন্ত্রণালয়ে আন্তঃমন্ত্রণালয় সভায় এ সিদ্ধান্ত হয়েছে। সভায় সভাপতিত্ব করেন ধর্ম প্রতমিন্ত্রী শেখ মো. আব্দুল্লাহ।

মন্ত্রণালয়ের জনসংযোগ কর্মকর্তা মোহাম্মদ আনোয়ার হোসাইন জানান, সভায় যথাযোগ্য মর্যাদা, ভাব-গাম্ভীর্য এবং উৎসাহ-উদ্দীপনার মধ্য দিয়ে আনন্দমুখর পরিবেশে পবিত্র ঈদুল ফিতর উদযাপনের লক্ষ্যে বিভিন্ন কর্মসূচি প্রণয়ন এবং সুষ্ঠুভাবে বাস্তবায়নের বিষয়ে বিভিন্ন সিদ্ধান্ত হয়।

সভায় সিদ্ধান্ত হয়, সারাদেশে বিভাগ/জেলা/উপজেলা/সিটি করপোরেশন/পৌরসভা/সশস্ত্র বাহিনী বিভাগ/বেসরকারি সংস্থাসমূহের প্রধানগণ জাতীয় কর্মসূচীর আলোকে নিজ নিজ কর্মসূচি প্রণয়নপূর্বক পবিত্র ঈদুল ফিতর উদযাপন করবে।

এছাড়া বাংলাদেশ টেলিভিশন, বাংলাদেশ বেতার ও বেসরকারি গণমাধ্যমসমূহ যথাযোগ্য গুরুত্ব সহকারে বিশেষ অনুষ্ঠান প্রচার ও সংবাদপত্রসমূহে বিশেষ সংখ্যা প্রকাশ করা হবে।

সভায় রাষ্ট্রপতির কার্যালয়, সুপ্রীম র্কোট, মন্ত্রিপরিষদ বিভাগ, ধর্ম, জনপ্রশাসন, স্বরাষ্ট্র, পররাষ্ট্র, শিক্ষা, তথ্য, গৃহায়ণ ও গণপূর্ত, সংষ্কৃতি, বস্ত্র ও পাট, মহিলা ও শিশু, যুব ও ক্রীড়া, স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়, স্থানীয় সরকার বিভাগ, বিদ্যুৎ বিভাগ, ইসলামিক ফাউন্ডেশন, ঢাকা মহানগর পুলিশসহ সংশ্লিষ্ট মন্ত্রণালয়, বিভাগ, দপ্তর ও সংস্থার প্রতিনিধিরা উপস্থিত ছিলেন।

ঈদের ৭ দিন আগে মহাসড়ক মেরামতের কাজ শেষ করার নির্দেশ
                                  

 আসন্ন ঈদুল ফিতরে মহাসড়কে যাতায়াত নির্বিঘ্ন করতে ব্যাপক পরিকল্পনা নিয়েছে সড়ক পরিবহন ও সেতু মন্ত্রণালয়। ইতোমধ্যে সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তাদের কাছে ৩২ দফা নির্দেশনা দেওয়া হয়েছে। সংশ্লিষ্ট সব প্রকৌশলীকে নির্দেশ দেওয়া হয়েছে ঈদের সাত দিন আগে মহাসড়ক মেরামতের কাজ শেষ করতে। গত ৯ মে মন্ত্রণালয়ের সড়ক ও মহাসড়ক বিভাগের সহকারী সচিব লিয়াকত আলী স্বাক্ষরিত নির্দেশনা সংশ্লিষ্ট সব প্রকৌশলীর কাছে পৌঁছে দেওয়া হয়।

মন্ত্রণালয়ের ওয়েবসাইটে প্রকাশিত নির্দেশনায় বলা হয়, ঈদে নির্বিঘ্ন যাতায়াত ও যানজটমুক্ত করতে সাত দিন আগে মহাসড়ক মেরামতের কাজ সম্পন্ন করতে প্রধান প্রকৌশলী, অতিরিক্ত প্রধান প্রকৌশলী, সব সড়ক জোন ও নির্বাহী প্রকৌশলীকে (সব সড়ক) প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নিতে বলা হয়েছে। জাতীয় ও আঞ্চলিক মহাসড়ক যানজটমুক্ত রাখতে হাইওয়ে পুলিশসহ সংশ্লিষ্ট সবাইকে কার্যকর ব্যবস্থা নিতে নির্দেশ দেওয়া হয়। এছাড়াও ঢাকার তিনটি প্রধান বাস টার্মিনালে যাতায়াত সচল রাখতে বিআরটিএ, মালিক ও শ্রমিকদের সমন্বয়ে ভিজিলেন্স টিম গঠন করার কথাও বলা হয়েছে। এ বিষয়ে সহকারী সচিব লিয়াকত আলী বলেন, ঈদে ঘরমুখো মানুষের যাত্রা নিরাপদ করতে ৩২ দফা নির্দেশনা দিয়ে সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তাদের তা বাস্তবায়ন করতে বলা হয়েছে।


এদিকে, জাইকার অর্থায়নে চলমান চট্টগ্রামের আগ্রাবাদ সংযোগ সড়ক ও পোর্ট কানেকটিং সড়কের কার্পেটিং লেয়ারের কাজ ঈদের আগেই শেষ হবে বলে জানিয়েছেন চট্টগ্রাম সিটি করপোরেশনের মেয়র আ জ ম নাছির উদ্দীন। চসিক কনফারেন্স হলে নাগরিক উদ্যোগ এর নেতৃবৃন্দের সঙ্গে মতবিনিময় সভায় তিনি এ আশ্বাস দেন। এ দুই সড়কের কাজ নিয়মিত মনিটরিং করার কথা উল্লেখ করে মেয়র বলেন, সড়ক দুটির কাজের অগ্রগতি দেখার জন্য আমি নিয়মিত পরিদর্শন করি। এই প্রকল্পে যারা দায়িত্বে নিয়োজিত আছেন, তাদের সঙ্গে নিয়মিত বৈঠক করি এবং কাজ দ্রুত সময়ের মধ্যে সম্পন্ন করার জন্য আমি তাদেরকে বিভিন্ন দিকনির্দেশনা প্রদান করে যাচ্ছি। নগরের ব্যস্ততম সড়ক হিসেবে পরিচিত আগ্রাবাদ সংযোগ সড়কের বেপারীপাড়া থেকে পোর্ট কানেকটিং রোডের দক্ষিণাংশ এবং পোর্ট কানেকটিং রোডের নিমতলা থেকে ওয়াপদা পর্যন্ত রাস্তার পূর্বাংশে বর্তমানে দ্রুত গতিতে কাজ চলছে বলে সভায় জানানো হয়। রাস্তা দুটি গাড়ী চলাচলের উপযোগী করতে এবং বর্যা মৌসুমে জনচলাচলে ভোগান্তি লাঘবে চসিক কাজ করে যাচ্ছে বলেও জানান মেয়র। এর আগে নাগরিক উদ্যোগ এর আহ্বায়ক খোরশেদ আলম সুজন চসিক মেয়রের কাছে ১৪টি দাবি উত্থাপন করেন।

এ দাবিগুলোর মধ্যে আগ্রাবাদ এক্সেস রোড এবং নিমতলা বিশ্বরোডের অসমাপ্ত উন্নয়নকাজ দ্রুত শেষ করার আহবান জানানো হয়। এ সময় উপস্থিত ছিলেন হাজী মো. ইলিয়াছ, মো. কামাল মেম্বার, হাজী হোসেন কোম্পানী, হাবিবুর রহমান, নিজাম উদ্দিন, আবদুল আজিম, এজাহারুল হক, মোসাদ্দেক হোসেন বাহাদুর, মো. শাহজাহান, পংকজ চৌধুরী কংকন, জাহেদ আহমদ চৌধুরী, সোলেমান সুমন, সমীর মহাজন লিটন, শেখ মামুনুর রশীদ, জাহাঙ্গীর আলম, সফি আলম বাদশা, স্বরূপ দত্ত রাজু, মো. ওয়াসিম, মাহফুজ চৌধুরী, শিশির কান্তি বল, শেখ সরওয়ার্দী এলিন, রকিবুল আলম সাজ্জী, রাজীব হাসান রাজন, এম ইমরান আহমেদ ইমু, দীপংকর সোম, মনিরুল হক মুন্না, হাসান মুরাদ প্রমুখ।

দুদককে সেবা খাতে দুর্নীতিবিরোধী অভিযান চালাতে রাষ্ট্রপতির নির্দেশনা
                                  

 শিক্ষা-স্বাস্থ্যসহ সেবা খাতে দুর্নীতি প্রতিরোধে অভিযান পরিচালনা করতে দুর্নীতি দমন কমিশন -দুদককে নির্দেশনা দিয়েছেন রাষ্ট্রপতি মো. আবদুল হামিদ। গতকাল সোমবার বিকালে দুদক চেয়ারম্যান ইকবাল মাহমুদের নেতৃত্বে একটি প্রতিনিধি দল বঙ্গভবনে দেখা করতে গেলে রাষ্ট্রপ্রধান এই নির্দেশনা দেন। দুদক প্রতিনিধি দল এদিন তাদের ২০১৮ সালের বার্ষিক প্রতিবেদন রাষ্ট্রপতির কাছে পেশ করেন। দুদকের চেয়ারম্যান ইকবাল মাহমুদ প্রতিনিধি দলের নেতৃত্ব দেন। রাষ্ট্রপতির প্রেস সচিব মো. জয়নাল আবেদীন বলেন, দুদক চেয়ারম্যান সাক্ষাতের সময় প্রতিবেদনের বিভিন্ন দিক সম্পর্কে রাষ্ট্রপতিকে অবহিত করেন।

এ ছাড়া ২০১৮ সালে দুর্নীতি প্রতিরোধে বিভিন্ন কার্যক্রম সম্পর্কে তুলে ধরেন। দুদক চেয়ারম্যান কমিশনের কার্যক্রম পরিচালনায় রাষ্ট্রপতির সহযোগিতা কামনা করেন। তিনি জানান, দুর্নীতি দমনে পরিচালিত কার্যক্রমে সরকার সার্বিক সহযোগিতা দিচ্ছে। প্রেস সচিব বলেন, রাষ্ট্রপতি এ সময় বলেন, দুর্নীতিবাজরা যাতে ছাড় না পায় এবং নিরাপরাধ কেউ যাতে অযথা হয়রানির শিকার না হয়, তা নিশ্চিত করতে হবে। রাষ্ট্রপতি বলেন, দুর্নীতি দমন মামলার ক্ষেত্রে সুষ্ঠু ও সঠিক তদন্ত খুবই গুরুত্বপূর্ণ। তদন্ত কর্মকর্তাদের দক্ষতা ও সক্ষমতা বাড়াতে কমিশনকে প্রয়োজনীয় উদ্যোহ নেওয়ার নির্দেশনা দেন তিনি। রাষ্ট্রপতি বলেন, বাংলাদেশ এখন উন্নয়শীল দেশে পদার্পন করেছে। উন্নয়নের এই ধারা অব্যাহত রাখতে হলে সমাজ থেকে দুর্নীতি দূর করতে হবে। নতুন প্রজন্ম যাতে দুর্নীতি থেকে দূরে থাকে সেজন্য উদ্বুদ্ধকরণ কার্যক্রম পরিচালনা করতে হবে। দুদক কমিশনার এ এফ এম আমিনুল ইসলাম এবং মোজাম্মেল হক খানও এ সময় উপস্থিত ছিলেন।


দেশের উন্নয়নে কাজ করতে বৌদ্ধ সম্প্রদায়ের প্রতি আহবান: রাষ্ট্রপতি এম. আবদুল হামিদ সাম্প্রদায়িক সম্প্রীতি ও ঐতিহ্য সমুন্নত রাখা এবং গৌতম বুদ্ধের আদর্শ অনুসরণ করে দেশের সাবির্ক উন্নয়নের জন্য প্রচেষ্টা অব্যাহত রাখতে বৌদ্ধ সম্প্রদায়ের প্রতি আহবান জানিয়েছেন। তিনি বলেন, বাংলাদেশ একটি সাম্প্রদায়িক সম্প্রীতির দেশ। সকল ধর্মের মূল বার্তা হচ্ছে মানব কল্যাণ করা। রাষ্ট্রপতি বৌদ্ধ সম্প্রদায়ের সর্ববৃহৎ ধর্মীয় উৎসব বৌদ্ধ পূর্ণিমা উপলক্ষে গতকাল সোমবার বিকেলে বঙ্গভবনে আয়োজিত এক সংবর্ধনায় বৌদ্ধ সম্প্রদায়ের একটি প্রতিনিধি দলের উদ্দেশে এ কথা বলেন। রাষ্ট্রপতি বলেন, সমাজে সত্য. সুন্দর, শান্তি ও ন্যায় প্রতিষ্ঠায় সকল ধর্মের লোকের অবদান রয়েছে। তিনি সাম্প্রদায়িক সম্প্রীতি সাংস্কৃতিক ঐতিহ্যের একটি অংশ বলে উল্লেখ করে বলেন, দেশের সকল ধর্মের লোক তাদের নিজ নিজ ধর্ম পালন করছে।

অনুষ্ঠানে ধর্ম প্রতিমন্ত্রী শেখ মো. আবদুল্লাহ্, বেসামরিক বিমান ও পর্যটন প্রতিমন্ত্রী মো. মাহাবুব আলী এমপি, সুনন্দাপ্রিয় ভিক্ষু, জিনারক্ষিতা ভিক্ষু, বুদ্ধানন্দ ভিক্ষুসহ বৌদ্ধ ধর্মীয় নেতৃবৃন্দ, সাবেক মন্ত্রী দিলীপ বড়-য়া, আওয়ামী লীগের উপ-দপ্তর সম্পাদক এবং প্রধানমন্ত্রীর বিশেষ সহকারি ব্যারিস্টার বিপ্লব বড়-য়া উপস্থিত ছিলেন।

এ ছাড়া অনুষ্ঠানে ভূটান, ভিয়েতনাম ও মিয়ানমারসহ বিভিন্ন বৌদ্ধ অধ্যুষিত রাষ্ট্রের রাষ্ট্রদূত ও হাইকমিশনারগন, বিভিন্ন আর্ন্তজাতিক সংস্থার প্রতিনিধিগণ, বৌদ্ধ সম্প্রদায়ের পেশাজীবীগণ, রাষ্ট্রপতির কার্যালয়ের সংশ্লিষ্ট সচিবগণও অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন। রাষ্ট্রপতি অতিথিদের অভ্যর্থনা জানান এবং তাদের সঙ্গে শুভেচ্ছা বিনিময় করেন। এর আগে বৌদ্ধ সম্প্রদায়ের ধর্মীয় নেতারা রাষ্ট্রপতি আবদুল হামিদকে ফুল দিয়ে শুভেচ্ছা জানান।

হজ ফ্লাইট শুরু ৪ জুলাই, ফিরতি ফ্লাইট ১৭ আগস্ট
                                  

আগামী ৪ জুলাই থেকে হজ ফ্লাইট শুরু হবে। পবিত্র হজের আগে শেষ হজ ফ্লাইট ঢাকা হযরত শাহজালাল আন্তর্জাতিক বিমানবন্দর থেকে ছেড়ে যাবে ৫ আগস্ট। ফিরতি প্রথম হজ ফ্লাইট সৌদি আরবের জেদ্দা আন্তর্জাতিক বিমানবন্দর থেকে ঢাকার উদ্দেশে ছেড়ে আসবে ১৭ আগস্ট। হজ ফ্লাইট শেষ হবে ১৪ সেপ্টেম্বর।

বেসরকারি হজ এজেন্সি মালিকদের সংগঠন হাব শনিবার এ ঘোষণা দেয়। এর আগে ধর্ম মন্ত্রণালয় ও বেসামরিক বিমান পরিবহন মন্ত্রণালয় হজ ফ্লাইটের শিডিউল ঘোষণা করে। বিমান মন্ত্রণালয় এবার হজ যাত্রীদের জন্য ভাড়া বাবদ ১০ হাজার টাকা কমানোর ঘোষণা দেয়। ধর্ম মন্ত্রণালয়ের তথ্য অনুযায়ী, এ বছর হজে যাবেন এক লাখ ২৭ হাজার ১৯৮ জন। এর মধ্যে ৬৩ হাজার ৫৯৯ জনকে পরিবহন করবে বিমান। অবশিষ্ট হজযাত্রীদের পরিবহন করবে সৌদিয়া এয়ারলাইনস। বিমান মন্ত্রণালয় জানিয়েছে, এ বছরই প্রথম ঢাকা থেকে মদিনায় ১১টি হজ ফ্লাইট পরিচালনা করা হবে। এ ছাড়া চট্টগ্রাম থেকে জেদ্দায় ১০টি, সিলেট থেকে জেদ্দায় ৩টি, চট্টগ্রাম থেকে মদিনায় ৭টি হজ ফ্লাইট পরিচালনা করা হবে। বাকি ১২৬টি ফ্লাইট ঢাকা থেকে জেদ্দায় নিয়ে যাবে হজ যাত্রীদের।


এদিকে, ওমরা যাত্রীদের বিমানভাড়া দ্বিগুণ বৃদ্ধিতে গভীর উদ্বেগ প্রকাশ করেছেন হাবের নেতারা। গতকাল শনিবার ঢাকার একটি মিলনায়তেন অনুষ্ঠিত সংবাদ সম্মেলনে হাবের সভাপতি এম শাহাদাত হোসাইন তসলিম লিখিত বক্তব্যে বলেন, সৌদি সরকার ওমরা ভিসা সহজ করায় চলতি বছর ওমরাহ যাত্রীর সংখ্যা অনেক বেড়েছে। এতে এয়ারলাইনসগুলোতে সিটের সংকট তৈরি হয়েছে। এ সুযোগে এয়ারলাইনসগুলো বিমান ভাড়া প্রায় দ্বিগুণ বাড়িয়ে দিয়েছে। অন্যান্য বছর যেখানে ঢাকা-জেদ্দা-ঢাকা সরাসরি বিমানভাড়া ছিল ৫০ হাজার টাকা বর্তমানে ঢাকা-জেদ্দা-ঢাকা ওমরা যাত্রীদের বিমানভাড়া ৮০-৮৫ হাজার টাকা করা হয়েছে। অতিরিক্ত ভাড়া দিয়েও টিকিট পাওয়া যাচ্ছে না। হাবের সভাপতি লিখিত বক্তব্যে আরো বলেন, বর্তমানে ঢাকা-জেদ্দা-ঢাকা অভিবাসীদের বিমান ভাড়া ৬০ থেকে ৬৫ হাজার টাকা করে নেওয়া হচ্ছে। আগে এ ভাড়ার হার ছিল ২২ থেকে ২৪ হাজার টাকা।

স্বল্পমেয়াদি সমস্যা সমাধানে বাংলাদেশ এয়ারলাইনসের যেসব রুটে যাত্রী সংখ্যা কম ও অলাভজনক সে সব রুটের ফ্লাইটের সংখ্যা কমিয়ে ঢাকা-জেদ্দা-ঢাকা, ঢাকা-রিয়াদ-ঢাকাসহ মধ্যপ্রাচ্যগামী অন্যান্য গন্তব্যে ফ্লাইটের সংখ্যা বৃদ্ধি করার দাবি জানান শাহাদাত হোসাইন তসলিম।


   Page 1 of 358
     জাতীয়
ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনটি বাংলাদেশের আগে আর কেউ করেনি: জব্বার
.............................................................................................
গবেষণায় বিএসএমএমইউর ৫৩ শিক্ষক-চিকিৎসককে অনুদান
.............................................................................................
আজ দেশে ফিরছেন রাষ্ট্রপতি
.............................................................................................
খালেদা জিয়ার চিকিৎসায় সর্বোচ্চ গুরুত্ব দিচ্ছে সরকার: নাসিম
.............................................................................................
পদ্মাসেতুর ত্রয়োদশ স্প্যান বসবে আজ
.............................................................................................
ঈদের নামাজে প্রস্তুত হচ্ছে জাতীয় ঈদগাহ
.............................................................................................
আজ ‘পঞ্চগড় এক্সপ্রেস’ ট্রেনের উদ্বোধন করবেন প্রধানমন্ত্রী
.............................................................................................
বিশেষ শিশুদের সহায়তায় একযোগে কাজ করতে হবে: সমাজকল্যাণ মন্ত্রী
.............................................................................................
মাসে একদিন নদী পরিষ্কার করা হবে: নৌ সচিব
.............................................................................................
বাংলাদেশে পাকিস্তানের ভিসা বন্ধ
.............................................................................................
মন্ত্রিপরিষদে পুনর্বিন্যাস করা হয়েছে: শফিউল আলম
.............................................................................................
চলতি বছরই ৪৭৯২ চিকিৎসক নিয়োগ হবে : স্বাস্থ্যমন্ত্রী
.............................................................................................
ঈদের প্রধান জামাত সকাল সাড়ে ৮টায়
.............................................................................................
ঈদের ৭ দিন আগে মহাসড়ক মেরামতের কাজ শেষ করার নির্দেশ
.............................................................................................
দুদককে সেবা খাতে দুর্নীতিবিরোধী অভিযান চালাতে রাষ্ট্রপতির নির্দেশনা
.............................................................................................
হজ ফ্লাইট শুরু ৪ জুলাই, ফিরতি ফ্লাইট ১৭ আগস্ট
.............................................................................................
খুনি ও অর্থ-পাচারকারীদের ক্ষমা নেই: প্রধানমন্ত্রী
.............................................................................................
বিচারক নিয়োগে স্বচ্ছতা ও জবাবদিহিতা নিশ্চিতের আহ্বান রাষ্ট্রপতির
.............................................................................................
বিশ্ব জিডিপি প্রবৃদ্ধিতে সর্বাধিক অবদানকারী ২০ দেশের তালিকায় বাংলাদেশ: অর্থমন্ত্রী
.............................................................................................
ট্রেনে ঢিল ছোঁড়া রোধে জনসচেতনতা বৃদ্ধির আহ্বান রেলপথ মন্ত্রীর
.............................................................................................
অভিবাসন খরচ কমিয়ে আনার চেষ্টা করছি: প্রবাসী কল্যাণ প্রতিমন্ত্রী
.............................................................................................
খালেদা জিয়াকে জীবনেও কারামুক্ত করতে পারবে না তারেক, প্রধানমন্ত্রীর হুশিয়ারী
.............................................................................................
গ্রাহকদের হয়রানিমুক্ত সেবা দিতে হবে রাজউককে: গণপূর্ত মন্ত্রী
.............................................................................................
দেশের ৯৯ শতাংশ শ্রমিকই অধিকার বঞ্চিত: জি এম কাদের
.............................................................................................
দুর্নীতিবাজ সরকারের বিরুদ্ধে প্রতিরোধ গড়ে তুলতে হবে : ফখরুল
.............................................................................................
এবার বাজেটে ব্যাপক সংস্কার আসছে: অর্থমন্ত্রী
.............................................................................................
আজ মহান মে দিবস
.............................................................................................
বিমানের হজ ফ্লাইট শুরু ৪ জুলাই থেকে
.............................................................................................
সংসদে বাংলাদেশ জাতীয় সমাজকল্যাণ পরিষদ বিল-২০১৯ পাস
.............................................................................................
রোজায় অফিস ৯টা-সাড়ে ৩টা, ঘোষণা আজ
.............................................................................................
নিরাপদ খাদ্য ও পুষ্টির লক্ষ্যে কাজ করছে সরকার: কৃষিমন্ত্রী
.............................................................................................
খেলাধুলা ও শরীরচর্চার মাধ্যমে ছেলেমেয়েদের মেধা বিকাশের উদ্যোগ নিয়েছি: প্রধানমন্ত্রী
.............................................................................................
আজ জাতীয় আইনগত সহায়তা দিবস
.............................................................................................
প্রত্যেক উপজেলায় ১০০ শয্যার হাসপাতাল হবে: স্বাস্থ্য প্রতিমন্ত্রী
.............................................................................................
২০৪০ সালের মধ্যে মাথাপিছু আয় হবে ৪ হাজার ডলার: পরিকল্পনা মন্ত্রী
.............................................................................................
দেশের জনগণ এবং দলই ঠিক করবে কে হবেন তাদের পরবর্তী নেতা
.............................................................................................
২৮ এপ্রিল ‘জাতীয় আইনগত সহায়তা দিবস’
.............................................................................................
‘পর্যটন সেবা সপ্তাহ’ শুরু হচ্ছে ৩০ এপ্রিল
.............................................................................................
সংসদ অধিবেশন চলবে ৩০ এপ্রিল পর্যন্ত
.............................................................................................
সম্পদের নিরাপত্তাহীনতার শঙ্কায় এরশাদের জিডি
.............................................................................................
ইভিএমই সুষ্ঠু নির্বাচনের জন্য বড় ধরণের উপায়: সিইসি
.............................................................................................
নিরাপদ ও পুষ্টিকর খাদ্য নিশ্চিতে কাজ করছে সরকার: খাদ্যমন্ত্রী
.............................................................................................
প্রযুক্তি ব্যবহারের মাধ্যমে প্রতিবন্ধীতা দূর করা সম্ভব: তথ্যপ্রযুক্তি মন্ত্রী
.............................................................................................
সংসদের দ্বিতীয় অধিবেশন শুরু হচ্ছে আজ
.............................................................................................
ব্রুনাই থেকে দেশে ফিরেছেন প্রধানমন্ত্রী
.............................................................................................
প্রবাসীদের কল্যাণ নিশ্চিত করা সরকারের দায়িত্ব: প্রধানমন্ত্রী
.............................................................................................
শ্রীলঙ্কায় বোমা হামলায় রাষ্ট্রপতি ও প্রধানমন্ত্রীর নিন্দা-শোক
.............................................................................................
বর্তমানে গণতন্ত্রের কথা বললেই বন্দি হতে হয়: ফখরুল
.............................................................................................
বাংলাদেশ ও ব্রুনাইয়ের মধ্যে সাত চুক্তি স্বাক্ষর
.............................................................................................
শ্রীলঙ্কায় বোমা হামলায় শেখ সেলিমের নাতি নিহত
.............................................................................................

|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
স্বাধীন বাংলা মো. খয়রুল ইসলাম চৌধুরী কর্তৃক সম্পাদিত ও ঢাকা-১০০০ হতে প্রকাশিত
প্রধান উপদেষ্টা: ফিরোজ আহমেদ (সাবেক সচিব, বাণিজ্য মন্ত্রণালয়)
উপদেষ্টা: আজাদ কবির
সম্পাদক মন্ডলীর সভাপতি: ডাঃ হারুনুর রশীদ
সম্পাদক মন্ডলীর সহ-সভাপতি: মামুনুর রশীদ
ব্যবস্থাপনা সম্পাদক : মো: খায়রুজ্জামান
যুগ্ম সম্পাদক: জুবায়ের আহমদ
বার্তা সম্পাদক: মুজিবুর রহমান ডালিম
স্পেশাল করাসপনডেন্ট : মো: শরিফুল ইসলাম রানা
যুক্তরাজ্য প্রতিনিধি: জুবের আহমদ
যোগাযোগ করুন: swadhinbangla24@gmail.com
    2015 @ All Right Reserved By swadhinbangla.com

Developed By: Dynamicsolution IT [01686797756]