| বাংলার জন্য ক্লিক করুন
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|

   জাতীয় -
                                                                                                                                                                                                                                                                                                                                 
রংপুরে সামরিক মর্যাদায় এরশাদের দাফন সম্পন্ন

 রংপুরবাসীর দাবির মুখে সেখানেই সামরিক মর্যাদায় জাতীয় পার্টির (জাপা) প্রয়াত চেয়ারম্যান ও সংসদের বিরোধী দলের নেতা হুসেইন মুহম্মদ এরশাদের দাফন সম্পন্ন হয়েছে। গতকাল মঙ্গলবার বিকেলে পৌনে ৬টার দিকে ‘পল্লীনিবাসে’র লিচুবাগানে তার দাফন সম্পন্ন হয়। এ সময় মুক্তিযোদ্ধা বিষয়ক মন্ত্রী মো. মোজাম্মেল হক, জাতীয় পার্টির ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান জিএম কাদের, মহাসচিব মসিউর রহমান রাঙ্গা, জাপা নেতা জিয়া উদ্দিন আহমেদ বাবলু, আবু হোসেন বাবলাসহ নেতাকর্মীরা উপস্থিত ছিলেন। পল্লীনিবাসে উপস্থিত ছিলেন হাজার হাজার মানুষ। এ সময় প্রিয় নেতাকে শেষ বিদায় জানান তারা।

অনেকে কান্না করতেও দেখা গেছে। এর আগে বাদ জোহর রংপুর কেন্দ্রীয় ঈদগাহ মাঠে জানাজা শেষে এরশাদের লাশ ঢাকায় নিয়ে যাওয়ার চেষ্টা করা হয়। এ সময় এতে বাধা দেন স্থানীয় নেতারা। তারা লাশবাহী গাড়ির সামনে শুয়ে পড়েন। সেখানে জিএম কাদের ও মহাসচিব মসিউর রহমান রাঙ্গা এগিয়ে এলে তাদের অবরুদ্ধ করে রাখেন স্থানীয় নেতাকর্মীরা। পরে তারা বাধ্য হয়ে সরে গেলে রংপুর সিটি মেয়র মোস্তাফিজার রহমান মোস্তফা লাশবাহী গাড়িতে উঠে পড়েন। তিনি বিকেল পৌনে পাঁচটার দিকে লাশ নিয়ে পল্লীনিবাসে পৌঁছেন। এক পর্যায়ে রংপুরের ‘পল্লীনিবাসে’ই এরশাদের লাশ দাফনের সিদ্ধান্ত নেয় জাতীয় পার্টি। এতে সম্মতি দেন প্রয়াত জাপা প্রধানের স্ত্রী রওশন এরশাদও। এই সিদ্ধান্তের পর সেখানে পৌঁছান রংপুর সেনানিবাসের বিভিন্ন পর্যায়ের কর্মকর্তারা।

মরদেহের কফিন সেনাবাহিনীতে থাকাকালে এইচএম এরশাদের র‌্যাংক ব্যাজ, ক্যাপ এবং জাতীয় পতাকা-সেনাবাহিনীর পতাকা দিয়ে মুড়িয়ে দেওয়া হয়। দাফনের আগে এরশাদের মরদেহে সেনাবাহিনীর সদস্যরা গার্ড অব অনার প্রদান করেন। পরে লাশ কবরের পাশে নিয়ে এক মিনিট নিরবতা পালন করে আনুষ্ঠানিকতা রাষ্ট্রীয় মর্যাদার আনুষ্ঠানিকতা সম্পন্ন করেন। পরে বিকেল পৌনে ৬টার দিকে তার দাফন সম্পন্ন হয়। রংপুরের হাজারো মানুষ অশ্রুসিক্ত চোখে এরশাদকে বিদায় জানিয়েছেন।

রংপুরে সামরিক মর্যাদায় এরশাদের দাফন সম্পন্ন
                                  

 রংপুরবাসীর দাবির মুখে সেখানেই সামরিক মর্যাদায় জাতীয় পার্টির (জাপা) প্রয়াত চেয়ারম্যান ও সংসদের বিরোধী দলের নেতা হুসেইন মুহম্মদ এরশাদের দাফন সম্পন্ন হয়েছে। গতকাল মঙ্গলবার বিকেলে পৌনে ৬টার দিকে ‘পল্লীনিবাসে’র লিচুবাগানে তার দাফন সম্পন্ন হয়। এ সময় মুক্তিযোদ্ধা বিষয়ক মন্ত্রী মো. মোজাম্মেল হক, জাতীয় পার্টির ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান জিএম কাদের, মহাসচিব মসিউর রহমান রাঙ্গা, জাপা নেতা জিয়া উদ্দিন আহমেদ বাবলু, আবু হোসেন বাবলাসহ নেতাকর্মীরা উপস্থিত ছিলেন। পল্লীনিবাসে উপস্থিত ছিলেন হাজার হাজার মানুষ। এ সময় প্রিয় নেতাকে শেষ বিদায় জানান তারা।

অনেকে কান্না করতেও দেখা গেছে। এর আগে বাদ জোহর রংপুর কেন্দ্রীয় ঈদগাহ মাঠে জানাজা শেষে এরশাদের লাশ ঢাকায় নিয়ে যাওয়ার চেষ্টা করা হয়। এ সময় এতে বাধা দেন স্থানীয় নেতারা। তারা লাশবাহী গাড়ির সামনে শুয়ে পড়েন। সেখানে জিএম কাদের ও মহাসচিব মসিউর রহমান রাঙ্গা এগিয়ে এলে তাদের অবরুদ্ধ করে রাখেন স্থানীয় নেতাকর্মীরা। পরে তারা বাধ্য হয়ে সরে গেলে রংপুর সিটি মেয়র মোস্তাফিজার রহমান মোস্তফা লাশবাহী গাড়িতে উঠে পড়েন। তিনি বিকেল পৌনে পাঁচটার দিকে লাশ নিয়ে পল্লীনিবাসে পৌঁছেন। এক পর্যায়ে রংপুরের ‘পল্লীনিবাসে’ই এরশাদের লাশ দাফনের সিদ্ধান্ত নেয় জাতীয় পার্টি। এতে সম্মতি দেন প্রয়াত জাপা প্রধানের স্ত্রী রওশন এরশাদও। এই সিদ্ধান্তের পর সেখানে পৌঁছান রংপুর সেনানিবাসের বিভিন্ন পর্যায়ের কর্মকর্তারা।

মরদেহের কফিন সেনাবাহিনীতে থাকাকালে এইচএম এরশাদের র‌্যাংক ব্যাজ, ক্যাপ এবং জাতীয় পতাকা-সেনাবাহিনীর পতাকা দিয়ে মুড়িয়ে দেওয়া হয়। দাফনের আগে এরশাদের মরদেহে সেনাবাহিনীর সদস্যরা গার্ড অব অনার প্রদান করেন। পরে লাশ কবরের পাশে নিয়ে এক মিনিট নিরবতা পালন করে আনুষ্ঠানিকতা রাষ্ট্রীয় মর্যাদার আনুষ্ঠানিকতা সম্পন্ন করেন। পরে বিকেল পৌনে ৬টার দিকে তার দাফন সম্পন্ন হয়। রংপুরের হাজারো মানুষ অশ্রুসিক্ত চোখে এরশাদকে বিদায় জানিয়েছেন।

‘জাতীয় মৎস্য সপ্তাহ ২০১৯’ শুরু হচ্ছে আজ
                                  

 ২৭তম ‘জাতীয় মৎস্য সপ্তাহ-২০১৯’ দেশব্যাপী নানা কর্মসূচির মধ্য দিয়ে শুরু হচ্ছে আজ বুধবার থেকে। আগামি ২৩ জুলাই পর্যন্ত এই সপ্তাহ চলবে। এবারের জাতীয় মৎস্য সপ্তাহের শ্লোগান ‘মাছ চাষে গড়বো দেশ, বঙ্গবন্ধুর বাংলাদেশ।

এ উপলক্ষে রাষ্ট্রপতি মো. আবদুল হামিদ এবং প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা পৃখক বাণী দিয়েছেন। বাণীতে তারা মৎস্যচাষী, মৎস্যজীবী, ব্যবসায়ী, উদ্যোক্তা, মৎস্য সম্প্রসারণ কর্মীসহ সংশ্লিষ্ট সবাইকে আন্তরিক শুভেচ্ছা ও অভিনন্দন জানিয়েছেন। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা আগামীকাল বৃহস্পতিবার সকাল ১০টায় মৎস্য সপ্তাহের আনুষ্ঠানিক উদ্বোধন এবং মৎস্য খাতে অবদানের জন্য নির্বাচিত ১৭ প্রতিষ্ঠান ও ব্যক্তিকে ‘জাতীয় মৎস্য পুরস্কার-২০১৯’ প্রদান করবেন। তিনি ওইদিন বেলা ১১টায় গণভবনে মাছের পোনা অবমুক্ত করবেন। মৎস্য অধিদফতরের মহাপরিচালক (ডিজি) আবু সাইদ মো. রাশেদুল হক গতকাল মঙ্গলবার মৎস্য ও প্রাণিসম্পদ মন্ত্রণালয় গৃহীত এসব কর্মসূচির কথা জানিয়েছেন। সপ্তাহটি উদযাপন উপলক্ষে বুধবার সকাল ৮টায় মৎস্য ও প্রাণিসম্পদ প্রতিমন্ত্রী মো. আশরাফ আলী খানের নেতৃত্বে মৎস্যভবন থেকে এক বর্ণাঢ্য র‌্যালি বের করা হবে।

মৎস্য অধিদফতরের মহাপরিচালক জানান, রাজধানীর কৃষিবিদ ইনস্টিটিউট অব বাংলাদেশ (কেআইবি) প্রাঙ্গণে সপ্তাহব্যাপী ‘মৎস্য মেলা’ অনুষ্ঠানের পাশাপাশি প্রতিটি জেলায় তিনদিনের মৎস্য মেলারও আয়োজন করা হবে। এ ছাড়া নেত্রকোণায় ৫দিনের একটি ‘প্রযুক্তি ভিত্তিক মৎস্য মেলা’ অনুষ্ঠিত হবে। সপ্তাহজুড়ে দেশব্যাপী জেলা-উপজেলার মুক্ত জলাশয়, হাওড়-বাওর, খালবিল ও নদীতে ব্যাপকভাবে মৎস্য অবমুক্তির পাশাপাশি রাষ্ট্রপতি এবং জাতীয় সংসদের স্পিকার পৃথকভাবে বঙ্গভবন ও সংসদের লেকে মাছের পোনা অবমুক্ত করবেন। এছাড়াও বিভিন্ন বিশ্ববিদ্যালয় ও প্রতিষ্ঠানের পুকুর ও লেকেও পোনা অবমুক্ত করা হবে।

মৎস্য সপ্তাহ উপলক্ষে শিক্ষা প্রতিষ্ঠান, জনবহুল স্থান এবং মাছের আড়তে গণসচেতনতামূলক সভা সেমিনার ও ভিডিও চিত্র প্রদর্শন করা হবে। শেষদিন ২৩ জুলাই জাতীয় মৎস্য সপ্তাহের সমাপনীতে সপ্তাহের মূল্যায়ন এবং কেন্দ্রীয় মৎস্য মেলায় অংশগ্রহণকারী সেরা প্রতিষ্ঠানকে পুরস্কার প্রদান করা হবে।

 

পাটের ব্যবহার বাড়াতে মোবাইল কোর্ট পরিচালনা বেগবান করতে হবে: পাটমন্ত্রী
                                  

 পণ্যে পাটজাত মোড়কের ব্যবহার শতভাগ বাস্তবায়ন করতে দেশব্যাপী বিশেষ অভিযান পরিচালিত হবে বলে জানিয়েছেন বস্ত্র ও পাট মন্ত্রী গোলাম দস্তগীর গাজী বীরপ্রতীক। তিনি বলেন, বাংলাদেশকে আবারও সোনালী আশেঁর দেশ হিসেবে রূপান্তর করা হবে। এজন্য পাটের হারানো ঐতিহ্য ফিরিয়ে আনতে ‘পণ্যে পাটজাত মোড়কের বাধ্যতামূলক ব্যবহার আইন -২০১০’ সুষ্ঠুভাবে শতভাগ বাস্তবায়নের জন্য সর্তক মনিটরিং করতে বিভাগীয় কমিশনার ও জেলা প্রশাসকদের নির্দেশ দেওয়া হয়েছে।

বস্ত্র ও পাট মন্ত্রী গতকাল মঙ্গলবার মন্ত্রিপরিষদ বিভাগের সভা কক্ষে জেলা প্রশাসক সম্মেলন-২০১৯ এ বস্ত্র ও পাট মন্ত্রণালয় সম্পর্কীত নির্ধারিত অধিবেশনে আলোচনা সভায় তিনি একথা বলেন। গাজী বলেন, প্রতিটি উপজেলায় মাসে অন্তত: দুটি এবং বিভাগীয় ও জেলা শহরে যতটা সম্ভব মোবাইল কোর্ট পরিচালনা বৃদ্ধি করতে হবে। পণ্যে পাটজাত মোড়কের বাধ্যতামূলক ব্যবহার শতভাগ বাস্তবায়ন করতে আগামি মাসে দেশব্যাপী বিশেষ অভিযান পরিচালিত হবে।

এছাড়াও পাট ও পাটজাত পণ্যের ব্যবহার বৃদ্ধি ও জনসাধারণকে উদ্বুদ্ধ করার লক্ষ্যে প্রত্যেকটি বিভাগীয় শহরে এবং ঢাকার বড় বড় সপিং মলে খুব দ্রুত সময়ের মধ্যে বহুমুখী পাটজাত পণ্যের প্রদর্শনী (ডিসপ্লে) ও বিক্রয় কেন্দ্র স্থাপন করার উদ্যোগ নেয়া হয়েছে বলেও জানান তিনি।

যথাযথ বর্জ্য ব্যবস্থাপনা টেকসই উন্নয়ন লক্ষ্যমাত্রা অর্জনে সহায়ক হবে: পরিবেশ মন্ত্রী
                                  

পরিবেশ, বন ও জলবায়ু পরিবর্তন মন্ত্রী মো. শাহাব উদ্দিন বলেছেন, যথাযথভাবে বর্জ্য ব্যবস্থাপনা টেকসই উন্নয়ন লক্ষ্যমাত্রা অর্জনে সহায়ক হবে। বর্জ্য ব্যবস্থাপনায় দক্ষতা অর্জন ছাড়া একটি দেশের পরিবেশের মান উন্নয়ন সম্ভব নয়। গতকাল সোমবার রাজধানীর হোটেল সোনারগাঁয় বৈশ্বিক বর্জ্য ব্যবস্থাপনার ওপর পরিবেশ মন্ত্রণালয় আয়োজিত এক কর্মশালার উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি এসব কথা বলেন। তিনি বলেন, টেকসই উন্নয়ন লক্ষ্যমাত্রা অর্জনের জন্য বিশ্বব্যাপী বর্জ্য ব্যবস্থাপনার ওপর গুরুত্ব দেয়া হচ্ছে। বাংলাদেশেও আমরা বিষয়টিকে গুরুত্বের সঙ্গে বিবেচনা করে বিভিন্ন কার্যক্রম হাতে নিয়েছি।

তিনি বলেন, উৎস থেকে বর্জ্য পৃথক করে সংগ্রহ করার জন্য সিটি করপোরেশন ও পরিবেশ মন্ত্রণালয়ের মাধ্যমে (থ্রিআর) প্রকল্প গ্রহণ করা হয়েছে। বর্জ্য ব্যবস্থাপনার ওপর গৃহীত এ পাইলট প্রকল্প সফল হলে পর্যায়ক্রমে এ কর্মসূচি দেশের সবগুলো সিটি কর্পোরেশনে বাস্তবায়নের পরিকল্পনা রয়েছে। পরিবেশ, বন ও জলবায়ু পরিবর্তন মন্ত্রী বলেন, জাতীয় ও আন্তর্জাতিক নীতিমালা এবং কৌশলগুলোর আলোকে আমরা শিল্পবর্জ্য ব্যবস্থাপনার ওপরও গুরুত্ব দিয়েছি। বিশেষ করে প্লাস্টিক বর্জ্য ব্যবস্থাপনার ওপরও সমানভাবে গুরুত্ব দেয়া হচ্ছে। প্লাস্টিকের তৈরি পলিথিন বর্জন করে পাটের তৈরি ব্যাগ ব্যবহারকে উৎসাহিত করা হচ্ছে।

পরিবেশ মন্ত্রণালয়ের অতিরিক্ত সচিব ড. এস এম মঞ্জুরুল হান্নান খানের সভাপতিত্বে সেমিনারে পরিবেশ উপমন্ত্রী হাবিবুন নাহার, পরিবেশ মন্ত্রণালয়ের অতিরিক্ত সচিব ড. মোঃ বিল্লাল হোসেন, সাউথ এশিয়া কো-অপারেটিভ এনভায়রনমেন্টাল প্রোগ্রাম এর মহাপরিচালক ড. আবাস বাসির বক্তব্য রাখেন।

জাতীয় স্মৃতিসৌধে দক্ষিণ কোরিয়ার প্রধানমন্ত্রীর শ্রদ্ধা
                                  

 সাভার জাতীয় স্মৃতিসৌধে মুক্তিযুদ্ধে নিহত শহীদদের প্রতি শ্রদ্ধা জানিয়েছেন দক্ষিণ কোরিয়ার প্রধানমন্ত্রী লি নাক-ইয়োন। দুই দিনের রাষ্ট্রীয় সফলে গত শনিবার সন্ধ্যায় ঢাকায় আসেন তিনি।

গতকাল রোববার সকাল ৯টা ১০মিনিটে সড়ক পথে স্মৃতিসৌধে পৌঁছান দক্ষিণ কোরিয়ার প্রধানমন্ত্রী। এ সময় গৃহায়ণ ও গণপূর্ত মন্ত্রী শ ম রেজাউল করিম, মুক্তিযুদ্ধ বিষয়ক মন্ত্রী আ ক ম মোজাম্মেল হক, ত্রাণ ও দূর্যোগ ব্যবস্থাপনা প্রতিমন্ত্রী এনামুর রহমান, গণপূর্ত অধিদপ্তরের প্রধান প্রকৌশলী মো. সাহাদাত হোসেন, সেনাবাহিনীর নবম পদাতিক ডিভিশনের জিওসি মেজর জেনারেল আকবর হোসেন, ঢাকা জেলা প্রশাসক আবু ছালেহ মোহাম্মদ ফেরদৌস খান ও জেলা পুলিশ সুপার শাহ মিজান শাফিউর রহমান তাকে স্বাগত জানান। প্রায় ২০ মিনিট জাতীয় স্মৃতিসৌধে অবস্থানকালে একটি ‘নাগেশ্বর চাপা’ ফুলের চারা রোপন এবং পরিদর্শন বইতে স্বাক্ষর করেন লি নাক-ইয়োন। পরে ঢাকা রপ্তানী প্রক্রিয়াকরণ অঞ্চল (ডিইপিজেড) এর পুরাতন জোনের দক্ষিণ কোরিয়া মালিকানাধীন ইয়ংওয়ান হাইটেক স্পোর্টস ওয়্যার লি. কারখানা পরিদর্শন করেন তিনি।

এইচএম এরশাদ এর জীবন অবসান, চলে গেলেন সাবেক রাষ্ট্রপতি, জাতীয় পার্টির চেয়ারম্যান ও সংসদের বিরোধীদলীয় নেতা
                                  

সাবেক রাষ্ট্রপতি, জাতীয় পার্টির চেয়ারম্যান ও সংসদের বিরোধীদলীয় নেতা এইচএম এরশাদ আর নেই। রবিবার সকাল পৌনে ৮টায় ঢাকার সম্মিলিত সামরিক হাসপাতালে (সিএমএইচ) চিকিৎসাধীন অবস্থায় তিনি মারা যান (ইন্নালিল্লাহি ওয়াইন্নইলাহি রাজিউন)।

আইএসপিআর-এর সহকারী পরিচালক রাশেদুল আলম খান জানিয়েছেন, রবিবার সকাল ৭টা ৪৫ মিনিটে এরশাদ সিএমএইচে মারা যান।

এর আগে ৪ জুলাই বৃহস্পতিবার বিকাল ৪টা ১০ মিনিটে তাকে লাইফ সাপোর্টে নেয়া হয়। ওই দিন দলের ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান জিএম কাদের জানান, এরশাদের শারীরিক অবস্থা অপরিবর্তিত। এটি আমাদের কাছে শুভ লক্ষণ মনে হচ্ছে না। কিডনি যেভাবে কাজ করা কথা ছিল সেভাবে কাজ করছে না। তাকে বিদেশে নেয়ার অবস্থাও নেই।

এরশাদকে গত ২২ জুন সকালে হাসপাতালে ভর্তির পর কয়েকদিন অবস্থার দৃশ্যমান কিছুটা উন্নতি মনে হলেও গত রবিবার ভোর থেকে তার অবস্থার মারাত্মক অবনতি ঘটে। তার ফুসফুসে ইনফেকশন ধরা পড়েছে। ফুসফুসে পানি জমেছে, ফলে প্রচণ্ড শ্বাসকষ্ট শুরু হয়েছে। চিকিৎসকরা কৃত্রিম উপায়ে তাকে অক্সিজেন দিয়ে রেখেছিলেন।

মঙ্গলবার বিকাল থেকে এরশাদের প্রচণ্ড কাঁপুনি দিয়ে দফায়-দফায় জ্বর আসে। অবস্থা খারাপের দিকে গেলে বুধবার সকালে তাকে সিএমএইচের ক্রিটিক্যাল ইউনিটে ভর্তি করা হয়।

ডিসি সম্মেলন শুরু হচ্ছে রোববার
                                  

সমাজের সর্বস্তরে সুশাসন নিশ্চিত করার লক্ষ্য নিয়ে আগামী রোববার (১৪ জুলাই) থেকে শুরু হচ্ছে ৫ দিনব্যাপী জেলা প্রশাসক (ডিসি) সম্মেলন। এই সম্মেলন চলবে ১৮ জুলাই পর্যন্ত। অতীতের দিনগুলোয় ডিসি সম্মেলন তিন দিনব্যাপী হলেও এবার দু’দিন বেড়ে হচ্ছে পাঁচ দিন। রাষ্ট্রপতি মো. আবদুল হামিদ ও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ছাড়াও এবার ডিসি সম্মেলনে যুক্ত হচ্ছেন প্রধান বিচারপতি ও জাতীয় সংসদের স্পিকার।

আগামী ১৪ জুলাই রোববার সকাল দশটায় প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ের ‘শাপলা’ হলে এই সম্মেলন উদ্বোধন করবেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। গতকাল বৃহস্পতিবার সচিবালয়ে ‘জেলা প্রশাসক সম্মেলন-২০১৯’ নিয়ে আয়োজিত সংবাদ সম্মেলনে সাংবাদিকদের কাছে সম্মেলনের খুঁটিনাটি বিভিন্ন দিক তুলে ধরেন মন্ত্রিপরিষদ বিভাগের সচিব মোহাম্মদ শফিউল আলম। সংবাদ সম্মেলনে জানানো হয়, ডিসি সম্মেলন চলার সময় বিভিন্ন মন্ত্রণালয় বা বিভাগের মন্ত্রী, উপদেষ্টা, প্রতিমন্ত্রী, উপমন্ত্রী, সিনিয়র সচিব, সচিবরা বিভিন্ন অধিবেশনে উপস্থিত থেকে ডিসি ও বিভাগীয় কমিশনারদের দিক-নির্দেশনা দেবেন। কর্ম-অধিবেশনগুলো হবে সচিবালয়ের মন্ত্রিপরিষদ বিভাগের সভাকক্ষে। কার্য অধিবেশনগুলোয় সভাপতিত্ব করবেন মন্ত্রিপরিষদ সচিব মোহাম্মদ শফিউল আলম। সংবাদ সম্মেলনে লিখিত বক্তব্যে বলা হয়, এবছর ডিসি সম্মেলনে সর্বমোট ২৯টি অধিবেশন অনুষ্ঠিত হবে। একটি কার্যালয় ও ৫৪ টি মন্ত্রণালয় মিলে প্রস্তাব সংখ্যা ৩৩৩টি। স্থানীয় সরকার বিভাগ ২৯টি, জনপ্রশাসন মন্ত্রণালয় ২৬টি ও ভূমি মন্ত্রণালয় ২০টি প্রস্তাব দিয়েছে।

মন্ত্রিপরিষদ বিভাগের সচিব মোহাম্মদ শফিউল আলম জানান, ১৪ জুলাই সম্মেলন উদ্বোধনের পর ডিসিদের সঙ্গে প্রধানমন্ত্রী মুক্ত আলোচনায় অংশ নেবেন। ১৫ জুলাই সম্মেলনের দ্বিতীয় দিনে টানা ছয়টি কার্য-অধিবেশনে ১৯টি মন্ত্রণালয় ও বিভাগের মন্ত্রী-সচিবদের সঙ্গে বৈঠক করবেন ডিসিরা। এরপর সন্ধ্যায় রাষ্ট্রপতির সঙ্গে সাক্ষাৎ করবেন বঙ্গভবনে। ১৬ জুলাই তৃতীয় দিন টানা ৫টি অধিবেশনে ১২টি মন্ত্রণালয় ও বিভাগের মন্ত্রী-সচিবদের সঙ্গে বৈঠক করবেন। ওইদিন বিকেলেই প্রধান বিচারপতির সঙ্গে সাক্ষাতের সময় নির্ধারিত আছে। ১৭ জুলাই চতুর্থ দিনের জন্য নির্ধারিত ৮টি কার্য অধিবেশনে ১৯টি মন্ত্রণালয় ও বিভাগের মন্ত্রী-সচিবদের সঙ্গে বৈঠক অনুষ্ঠিত হবে। এছাড়াও ১৮ জুলাই সম্মেলনের শেষ দিনে ৪টি অধিবেশনে ৪টি মন্ত্রণালয় ও বিভাগের বৈঠক নির্ধারিত আছে। এদিন বিকেলেই জাতীয় সংসদে স্পিকারের সঙ্গে সাক্ষাতের মধ্য দিয়ে শেষ হবে এবারের ডিসিদের সম্মেলনের আনুষ্ঠানিকতা।

প্রধান প্রধান আলোচ্য বিষয়গুলো হচ্ছে- ভূমি ব্যবস্থাপনা, আইন-শৃঙ্খলা পরিস্থিতির উন্নয়ন, স্থানীয় সরকার প্রতিষ্ঠানসমূহের কার্যক্রম জোরদারকরণ, দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা, ত্রাণ ও পুনর্বাসন কার্যক্রম, স্থানীয় পর্যায়ে কর্ম-সৃজন ও দারিদ্র বিমোচন কর্মসূচি বাস্তবায়ন, সামাজিক নিরাপত্তা বেষ্টনি কর্মসূচি বাস্তবায়ন, তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তির ব্যবহার এবং ই-গভর্নেন্স, শিক্ষার মান উন্নয়ন ও সম্প্রসারণ, স্বাস্থ্যসেবা ও পরিবার কল্যাণ, পরিবেশ সংরক্ষণ ও দূষণ রোধ, ভৌত অবকাঠামোর উন্নয়ন এবং উন্নয়নমূলক কার্যক্রমের বাস্তবায়ন পরিবীক্ষণ ও সমন্বয়।

 

গ্যাসের দাম বৃদ্ধি নিয়ে আলোচনা না করায় সংসদে মেননের ক্ষোভ
                                  

 গ্যাসে দাম বৃদ্ধি নিয়ে সংসদে আলোচনার দাবি জানানোর পর সে বিষয়ে কোনো সিদ্ধান্ত বা পদক্ষেপ না নেওয়ায় ক্ষোভ প্রকাশ করেছেন ওয়ার্কার্স পার্টির সভাপতি রাশেদ খান মেনন। তবে ডেপুটি স্পিকার অ্যাডভোকেট ফজলে রাব্বী মিয়া জানান, বিষয়টি স্পিকারের বিবেচনায় আছে এবং সিদ্ধান্ত পরে জানানো হবে। গতকাল বৃহস্পতিবার জাতীয় সংসদের অধিবেশনে পয়েন্ট অব অর্ডারে দাঁড়িয়ে রাশেদ খান মেনন বিষয়টি উপস্থাপন করে ক্ষোভ জানান।

এ সময় ডেপুটি স্পিকার ফজলে রাব্বী মিয়া সভাপতিত্ব করেন। রাশেদ খান মেনন বলেন, আমি সংসদে গ্যাসের মূল্যবৃদ্ধি নিয়ে কথা বলেছিলাম। আপনি বলেছিলেন ৬৮ বিধিতে আপনার নোটিশটি বিবেচনায় আছে। কিন্তু আজ সংসদের শেষ দিন। বিষয়টি কার্যতালিকায় নেই। নোটিশ বাতিল হয়েছে কিনা সেটা জানানোও হয়নি। মেনন বলেন, এই নোটিশটির জবাব দেওয়ার সময় সংসদ সদস্য মাঈনুদ্দিন খান বাদল বলেছিলেন এটি জমা দিয়ে লাভ নেই।

কারণ সংসদে আমরা হলাম বকাউল্লাহ, বকে যাই। ওনারা শোনাউল্লাহ শুনে যান, আর সংসদ হচ্ছে গরিবউল্লাহ। এটি নিয়ে যদি আলোচনা না হয় তাহলে সংসদ আরো গরিব হয়ে যাবে। এসময় ডেপুটি স্পিকার বলেন, আপনারা শুধু বকাউল্লাহ নন। আর আমরা শোনাউল্লাহ নই। আপনারা জাতীয় সংসদে যে বক্তব্য দেন সেটা সরকার কার্যকর করে। এ বিষয়ে আপনি এর আগে যখন বলেছিলেন তখন আমি জানিয়েছিলাম আপনার দেওয়া নোটিশটি স্পিকারের বিবেচনায় আছে। বিষয়টি সম্পর্কে সিদ্ধান্ত পরে জানানো হবে।

বাংলাদেশের জন্য মার্কিন সহায়তা অব্যাহত থাকবে: রবার্ট মিলার
                                  

রোহিঙ্গাদের পাশে বাংলাদেশ সরকার যেভাবে দাঁড়িয়েছে তার ভূয়সি প্রশংসা করে বাংলাদেশে নিযুক্ত আমেরিকান রাষ্ট্রদূত আর্ল রবার্ট মিলার বলেছেন, বাংলাদেশের জন্য মার্কিন সরকারের সহায়তা অব্যাহত থাকবে। বরিশালে তিন দিনের সফরের প্রথমদিন গত মঙ্গলবার সন্ধ্যায় বিভাগীয় কমিশনারের কার্যালয়ে সাংবাদিকদের প্রশ্নের জবাবে মার্কিন রাষ্ট্রদূত আরও বলেন, রোহিঙ্গা নির্যাতনের জন্য যেসব ব্যক্তিরা দায়ী তাদেরকে বিচারের আওতায় আনতে চায় মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র। রোহিঙ্গাদের নিরাপদ ও সম্মানজনক প্রত্যাবার্তনে আমেরিকা সরকার চায় আন্তর্জাতিক সম্প্রদায়কে নিয়ে মিয়ানমারের প্রতি চাঁপ অব্যাহত রাখতে। রাষ্ট্রদূত আরও বলেন, রোহিঙ্গা সমস্যা সমাধানে গুরুত্ব দিয়ে কাজ করছে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র। রোহিঙ্গাদের ফিরে যাওয়া নিশ্চিতের জন্য আগে নিরাপত্তা পরিবেশ সৃষ্টি করতে হবে।

ওইদিন বিকেলে মার্কিন রাষ্ট্রদূত বরিশালের বিভাগীয় কমিশনার রামচন্দ্র দাস ও ডিআইজি মোঃ শফিকুল ইসলামের সাথে সৌজন্য সাক্ষাত করেন। এ সময় জেলা প্রশাসক এসএম অজিয়র রহমান, পুলিশ সুপার মো. সাইফুল ইসলামসহ প্রশাসনের ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তারা উপস্থিত ছিলেন। গতকাল বুধবার সকালে রাষ্ট্রদূত আর্ল রবার্ট মিলার পিরোজপুর জেলার ভান্ডারিয়ায় সফর করেন। দুপুরে তিনি ঝালকাঠি জেলার ভিমরুলিতে ভাসমান পেয়ারা বাজার পরিদর্শন করেন।

বিকেলে রাষ্ট্রদূত বাংলাদেশ বেতার বরিশালে রেডিও ইন্টারভিউতে অংশগ্রহণ করে বরিশালের ঐতিহ্যবাহী মিঞা বাড়ি মসজিদ পরিদর্শন করেন। আজ বৃহস্পতিবার সকালে রাষ্ট্রদূত বরিশাল নগরীর অক্সফোর্ড মিশন চার্চ, মৎস্য অবতরন কেন্দ্র, জাহানারা ইসরাইল স্কুল এ- কলেজ এবং নগরীর সিএন্ডবি রোডের শহীদ আবদুর রব সেরনিয়াবাত টেক্সটাইল ইঞ্জিনিয়ারিং কলেজ পরিদর্শন করবেন। পরে বিকাল সাড়ে চারটায় বরিশাল বিমান বন্দর থেকে রাষ্ট্রদূত ঢাকার উদ্দেশ্যে রওয়ানা করবেন।

বিএনপির নেতারা ভ্রান্তিমূলক ও মিথ্যা তথ্য প্রচার করছেন: আইনমন্ত্রী
                                  

বিচারিক বিষয়ে বিএনপির নেতারা ভ্রান্তিমূলক ও মিথ্যা তথ্য প্রচার করছেন উল্লেখ করে আইনমন্ত্রী আনিসুল হক বলেছেন, এখন মনে হচ্ছে ওনাদের মনে হয় আইন শেখাতে হবে। গতকাল বুধবার রাজধানীর নিবন্ধন অধিদপ্তর প্রাঙ্গণে জেলা ও দায়রা জজ আদালতে কর্মরত জেলা ও দায়রা জজদের নতুন গাড়ির চাবি হস্তান্তর অনুষ্ঠানে এক প্রশ্নের উত্তরে সাংবাদিকদের তিনি একথা বলেন তিনি। পাবনার ঈশ্বরদীতে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাকে বহনকারী ট্রেনে গুলি ও বোমা হামলার ঘটনায় যে রায় দেওয়া হয়েছে- এ নিয়ে বিএনপি বলে আসছে আইন মন্ত্রণালয় রায় লিখে দিয়েছে ও আদালত তা প্রকাশ করেছে।

এ বিষয়ে মন্ত্রীর অভিমত কী জানতে চাইলে আইনমন্ত্রী বলেন, আমার মনে হয় ওনাদের সময় ওনারা এ ধরনের রায় লিখে দিতেন। সে অভিজ্ঞতা থেকে এসব বলছেন। আমি স্পস্টভাবে বলতে পারি বিচার বিভাগকে আমরা কোনোভাবেই চাপ দেই না। বিচার বিভাগ সম্পূর্ণ স্বাধীন। তিনি বলেন, ঈশ্বরদীর ঘটনায় বিএনপি বলছে কেউ খুন হয়নি অথচ নয়জনকে ফাঁসি দেওয়া হয়েছে। ওনাদের আমি শুধু মনে করিয়ে দেবো যে আইনে রয়েছে কাউকে খুন হতে হয় না। যদি খুন হবে এটা জেনে বোমা ছোড়ে তাহলেই তাকে ফাঁসি দেওয়া যায়। আইনের মধ্যেই সেটা রয়েছে। এখন আমাদের ওনাদের আইন শেখাতে হবে। পাবনার ঈশ্বরদীতে ১৯৯৪ সালে তৎকালীন বিরোধীদলীয় নেতা ও বর্তমান প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাকে বহনকারী ট্রেনে গুলি ও বোমা হামলার ঘটনায় করা মামলার রায়ে নয়জনকে মৃত্যুদ-ের আদেশ দেওয়া হয়েছে। একই মামলায় ২৫ জনকে দেওয়া হয়েছে যাবজ্জীবন কারাদ-।

এ ছাড়া ১৩ জনকে ১০ বছর করে কারাদ- দেওয়া হয়েছে। গত ৩ জুলাই স্পেশাল ট্রাইব্যুনাল-৩-এর ভারপ্রাপ্ত বিচারক এবং অতিরিক্ত জেলা ও দায়রা জজ মো. রুস্তম আলী এ আদেশ দেন। আনিসুল হক বলেন, বিএনপি বলে বেড়াচ্ছে খালেদা জিয়া জামিনযোগ্য অপরাধে রয়েছেন তারপরও তাকে জামিন দেওয়া হচ্ছে না। সবাই জানেন এতিমের টাকা চুরি করার জন্য খালেদা জিয়াকে বিচারিক আদালত পাঁচ বছর জেল দিয়েছিলেন। হাইকোর্ট সে রায়ের আপিলে আরও পাঁচ বছর বাড়িয়ে ১০ বছরের জেল দিয়েছেন। এটা জামিনযোগ অপরাধ নয়। আপিল করে তার জেল বাড়ানো হয়েছে। তিনি আরও বলেন, এতিমখানার টাকা আত্মসাতের জন্য আবার বিচারিক আদালত খালেদা জিয়াকে ৭ বছরের জেল দিয়েছেন। সেটাও জামিনযোগ্য নয়। তারপরও বিএনপি সব সময় ভ্রান্তিমূলক তথ্য জানগণকে দিচ্ছে। তারা যে মিথ্যার উপর রয়েছেন এগুলো সেটারই প্রমাণ।

২০৪১ সালে বাংলাদেশ উন্নত দেশে পরিণত হবে: সংসদে প্রধানমন্ত্রী
                                  

 ২০৪১ সালে বাংলাদেশ উন্নত দেশে পরিণত হবে বলে মন্তব্য করেছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। তিনি বলেন, এ সময়ের মধ্যে দেশের শাসন ব্যবস্থা বিকেন্দ্রীকরণ করা হবে। গতকাল বুধবার জাতীয় সংসদের প্রশ্ন-উত্তরে চট্টগ্রাম-১১ আসনের সংসদ সদস্য এম আবদুল লতিফের প্রশ্নের জবাবে তিনি এসব কথা বলেন। স্পিকার ড. শিরীন শারমিন চৌধুরীর সভাপতিত্বে প্রশ্নোত্তর টেবিলে উত্থাপিত হয়। শাসন ব্যবস্থার বিকেন্দ্রীকরণ প্রসঙ্গে প্রধানমন্ত্রী বলেন, সরকারি ব্যয়ের সিংহভাগ বাস্তবায়িত হবে স্থানীয় পর্যায়ে। স্থানীয় প্রশাসন এ দায়িত্ব পালন করবে। স্থানীয় প্রশাসন ও কেন্দ্রের সুস্পষ্ট সমন্বয়ের মাধ্যমে পরিকল্পনা করা হবে। বর্তমানে দেশের অর্থনীতি শক্তিশালী অবস্থানে রয়েছে মন্তব্য করে সরকারপ্রধান বলেন, বিনিয়োগ ক্রমাগত বাড়ছে, রফতানি ও প্রবাসী আয়ে উচ্চ প্রবৃদ্ধির পরিপ্রেক্ষিতে বৈদেশিক লেনদেনের ভারসাম্য বজায় আছে।

মূল্যস্ফীতি নিয়ন্ত্রণে রয়েছে। বাজেট ঘাটতির পরিমাণ জিডিপির ৫ শতাংশের মধ্যে সীমাবদ্ধ রয়েছে। আশা করা যায়, বিদ্যমান পরিবেশে উচ্চ প্রবৃদ্ধি অর্জন সামনের দিনগুলোতে আরও বেগবান হবে। বাংলাদেশ শিগগিরই উচ্চ-মধ্যম আয়ের দেশে পরিণত হবে। প্রধানমন্ত্রী জানান, জাতিসংঘের ‘বিশ্ব অর্থনীতির অবস্থা ও সম্ভাবনা, ২০১৯’প্রতিবেদনে শীর্ষ প্রবৃদ্ধি অর্জনকারী দেশের তালিকায় বাংলাদেশ রয়েছে। জাতিসংঘের এ প্রতিবেদনে ২০১৮ সালে সবচেয়ে দ্রুত জিডিপি প্রবৃদ্ধি অর্জনকারী ১০টি দেশের মধ্যে বাংলাদেশ একটি। এ ছাড়া ‘আন্তর্জাতিক মুদ্রা তহবিল প্রকাশিত ওয়ার্ল্ড ইকোনমিক আউটলুক, এপ্রিল ২০১৯’ প্রতিবেদন অনুযায়ী, বিশ্বের দ্রুত অর্থনৈতিক প্রবৃদ্ধি অর্জনকারী তিনটি দেশের মধ্যে বাংলাদেশ একটি। এ প্রতিবেদন অনুযায়ী, বাংলাদেশের প্রবৃদ্ধি ৭ দশমিক ৩ শতাংশ, যা বিশ্বের দ্বিতীয় সর্বোচ্চ ও ভারতের প্রবৃদ্ধির সমান।

এ তালিকায় ৭ দশমিক ৮ শতাংশ প্রবৃদ্ধি নিয়ে প্রথম স্থানে রয়েছে রুয়ান্ডা, যার পরেই বাংলাদেশের অবস্থান। নওগাঁ-২ আসনের সংসদ সদস্য মো. শহিদুজ্জামান সরকারের তারকা চিহ্নিত প্রশ্নের জবাবে দেশের বেকারত্ব দূর করতে বর্তমান সরকারের বিভিন্ন পদক্ষেপ তুলে ধরেন প্রধানমন্ত্রী। তিনি জানান, সপ্তম পঞ্চবার্ষিক পরিকল্পনার পাঁচ বছর মেয়াদে ১২ দশমিক ৯ মিলিয়ন অতিরিক্ত কর্মসংস্থানের সুযোগ সৃষ্টি হবে, যার মধ্যে প্রবাসী শ্রমিকদের জন্য ২ মিলিয়ন কর্মসংস্থানও অন্তর্ভুক্ত রয়েছে। এ সময়ে ৯৯ লাখ শ্রমিক কাজে যোগ দেবে। ২০১৭-১৮ অর্থবছরে বিদেশে শ্রমিক পাঠানো হয়েছে ৮ লাখ ৮০ হাজার। শ্রমিকদের বৈদেশিক কর্মসংস্থনের অংশ ২০৩০ সালের মধ্যে ৩৫ থেকে ৫০ শতাংশে উন্নীত হবে। প্রধানমন্ত্রী বলেন, বর্তমানে প্রতি বছর প্রায় ২০ লাখ তরুণ-তরুণী কর্মসংস্থানের লক্ষ্যে দেশের শ্রমবাজারে প্রবেশ করছে।

এই বিশাল জনগোষ্ঠীর কর্মসংস্থান করা অত্যন্ত চ্যালেঞ্জিং কাজ। আমরা গত ১০ বছরে দেশের বিভিন্ন ইপিজেডে ৩ লাখ ৫ হাজার ২৪২ জন লোকের কর্মসংস্থানের ব্যবস্থা নিয়েছি। তিনি আরও বলেন, বর্তমান সরকারের মেয়াদে জনপ্রশাসন মন্ত্রণালয় ৬৫ হাজার ৫৪৬টি পদ সৃজনের সম্মতি দিয়েছে। এরমধ্যে ৫৯ হাজার ৬০৫টি পদের ছাড়পত্র দিয়েছে। গণফোরামের সংসদ সদস্য মোকাব্বির খানের প্রশ্নের জবাবে জাপান সফরের অর্জনের কথা তুলে ধরেন প্রধানমন্ত্রী। তিনি বলেন, বাংলাদেশ সরকারের সুশাসন, রাজনৈতিক স্থিতিশীলতা, নীতির ধারাবাহিকতা ও বর্তমান সরকারের বলিষ্ঠ নেতৃত্বের ভূয়সী প্রশংসা করেছেন জাপানের ব্যবসায়ীরা। তারা বাংলাদেশে বিনিয়োগে আগ্রহ প্রকাশ করেছেন বলেও প্রধানমন্ত্রী জানান।

 

সাংবাদিকদের নিরপেক্ষ হয়ে কাজ করার আহ্বান সংস্কৃতি প্রতিমন্ত্রীর
                                  

 সংস্কৃতি বিষয়ক মন্ত্রণালয়ের প্রতিমন্ত্রী কে এম খালিদ বলেছেন, সাংবাদিকরা জাতির বিবেক, তারা কলম সৈনিক, শব্দ সৈনিক। সাংবাদিকরা সমাজের সব ধরনের অপকর্মের চিত্র সবার সামনে তুলে ধরেন। গতকাল মঙ্গলবার দুপুর দেড়টার দিকে দিনাজপুর প্রেসক্লাবে সাংবাদিকদের সঙ্গে মতবিনিময় সভায় প্রধান অতিথির বক্তব্যে সংস্কৃতি প্রতিমন্ত্রী এসব কথা বলেন। খালিদ বলেন, নিরপেক্ষ হয়ে দল-মত নির্বিশেষে সমাজ ও জনগণের জন্য সাংবাদিকদের কাজ করে যেতে হবে।

আওয়ামী লীগ সরকার সাংবাদিকদের কল্যাণে বিভিন্ন পদক্ষেপ নিয়েছে। দিনাজপুর প্রেসক্লাবের সভাপতি স্বরূপ বকসী বাচ্চুর সভাপতিত্বে ও সাধারণ সম্পাদক গোলাম নবী দুলালের পরিচালনায় সভায় বিশেষ অতিথির বক্তব্য রাখেন জাতীয় সংসদের হুইপ ইকবালুর রহিম, মাদকদ্রব্য নিয়ন্ত্রণ অধিদফতরের পরিচালক (যুগ্ম-সচিব) নুরুজ্জামান শরিফ, দিনাজপুর-১ আসনের সংসদ সদস্য মনোরঞ্জন শীল গোপাল, জেলা প্রশাসক (ডিসি) মাহমুদুল আলম।

এসময় আরও উপস্থিত ছিলেন- অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (প্রশাসন) মাহফুজ্জামান আশরাফ, অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (সদর সার্কেল) সুশান্ত সরকার, দিনাজপুর কোতোয়ালি থানার ওসি রেদওয়ানুর রহিমসহ প্রমুখ।

দেশে ইন্টারনেট গ্রাহক ৯ কোটি ৪৪ লাখ: জব্বার
                                  

দেশে বর্তমানে ৯ কোটি ৪৪ লাখ গ্রাহক ইন্টারনেট ব্যবহার করছে। ২০০৮ সালের ডিসেম্বরে এই সংখ্যা ছিল মাত্র ৬০ লাখ। গতকাল মঙ্গলবার সংসদে সরকারি দলের সদস্য এম. আবদুল লতিফের তারকা চিহ্নিত এক প্রশ্নের জবাবে ডাক ও টেলিযোগাযোগ মন্ত্রী মোস্তাফা জব্বার এ তথ্য জানান। মন্ত্রী বলেন, সরকারি খাতে টেলিযোগাযোগ সেবা প্রদানকারী অন্যতম প্রতিষ্ঠান হিসেবে বাংলাদেশ টেলিকমিউনিকেশন্স কোম্পানি লিঃ (বিটিসিএল) অত্যন্ত সুলভমূল্যে ইন্টারনেট সেবা প্রদান করে আসছে।

তিনি বলেন, সর্বস্তরে ইন্টারনেট সেবা সম্প্রসারণের লক্ষ্যে বিটিসিএল ইন্টারনেটের ব্যান্ডউইথ চার্জ বিভিন্ন সময়ে ধাপে ধাপে কমানো হয়েছে। প্রতি এমবিপিএস ইন্টারনেট ব্যান্ডউইথ চার্জ ২০০৮ সালের ২৭ হাজার টাকা কমিয়ে বর্তমানে সর্বনি¤œ ১৮০ টাকায় ধার্য করা হয়েছে। সরকারি দলের সদস্য আয়েন উদ্দিনের অপর এক তারকা চিহ্নিত প্রশ্নের জবাবে মোস্তাফা জব্বার জানান, বর্তমানে দেশে বিটিসিএল’র প্রদানকৃত ফোনের সংখ্যা ৫ লাখ ৮৫ হাজার।

তিনি বলেন, নতুন সংযোগের জন্য নির্ধারিত ফর্মে ৫ কপি ছবি ও জাতীয় পরিচয়পত্রের কপিসহ আবেদন করতে হয়। ফরমটি বিটিসিএল’র ওয়েব সাইটে এবং স্থানীয় টেলিফোন অফিসে পাওয়া যায়। এ ছাড়া ডিমান্ড নোট পাওয়ার ৭ দিনের মধ্যে সংযোগ প্রদান করা হয়। মন্ত্রী জানান, ঢাকা মাল্টি এক্সচেঞ্জ এলাকায় ২ হাজার ১৫০ টাকা (জামানত ১ হাজার ও সংযোগ ফি ১ হাজার ১৫০ টাকা), চট্টগ্রাম মাল্টি এক্সচেঞ্জ এলাকায় ১ হাজার ৭৫ হাজার (জামানত ৫শ’ ও সংযোগ ফি ৫৭৫ টাকা) এবং দেশের অন্যান্য স্থানে ৬৪৫ টাকা (জামানত ৩৪৫ ও সংযোগ ফি ৩শ’ টাকা) সংযোগের জন্য খরচ হয়।

সব জেলায় হাই-টেক পার্ক নির্মাণ করা হবে: পলক
                                  

 তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি প্রতিমন্ত্রী জুনাইদ আহমেদ পলক বলেছেন, বাংলাদেশ হাই-টেক পার্ক কর্তৃপক্ষের অধীনে দেশের সকল জেলায় হাই-টেক পার্ক অথবা সফটওয়্যার টেকনোলজি পার্ক নির্মাণের উদ্যোগ নেয়া হয়েছে। তিনি গতকাল মঙ্গলবার সংসদে সরকারি দলের সদস্য খালেদা খানমের এক প্রশ্নের জবাবে এ তথ্য জানান। তিনি বলেন, জমি ও প্রয়োজনীয় বরাদ্দ পাওয়া এবং গাইডলাইনের আলোকে বিভাগ ও জেলাগুলোতে এসব পার্ক নির্মাণ করা হবে।

সরকারি দলের সংসদ সদস্য ডা. সামিল উদ্দিন আহমেদ শিমুলের প্রশ্নের জবাবে প্রতিমন্ত্রী বলেন, ‘তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি অধিদফতরের প্রস্তাবিত ‘ডিজিটাল সংযোগ স্থাপন’ শীর্ষক প্রকল্পের মাধ্যমে ২০২৩ সালের মধ্যে প্রতিটি জেলা এবং উপজেলায় উপজেলা পরিষদ কমপ্লেক্সে একটি আইসিটি প্রশিক্ষণ ল্যাব স্থাপনের পরিকল্পনা নেয়া হয়েছে। সরকারি দলের আনোয়ারুল আজীম আনারের প্রশ্নের জবাবে প্রতিমন্ত্রী বলেন, ‘বিশাল বেকার সমাজকে তথ্য প্রযুক্তির কর্মীবাহিনী হিসেবে গড়ে তুলতে তথ্য ও যোগাযোগ বিভাগের উদ্যোগে বাংলাদেশ কম্পিউটার কাউন্সিল (বিসিসি) এর মাধ্যমে বিভিন্ন পদক্ষেপ ও কার্যক্রম গ্রহণ করা হয়েছে। এলআইসিটি প্রকল্পের আওতায় ৩৩ হাজার ১৮৮ জনকে আন্তর্জাতিক মানের প্রশিক্ষণ প্রদান করা হয়। যার মধ্যে ১০ হাজার ৮২১ জনের আইসিটি শিল্পে কর্মসংস্থান হয়েছে। ই-গভর্নেন্স ও সাইবার নিরাপত্তার বিষয়ে ২ হাজার ৯৭৫ জন সরকারি কর্মকর্তাকে দেশে-বিদেশে প্রশিক্ষণ দেয়া হয়েছে। সরকারিদলের শামসুন নাহারের অপর এক প্রশ্নের জবাবে তিনি আরো বলেন, তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি অধিদফতরের প্রযুক্তির সহায়তায় নারীর ক্ষমতায়ন প্রকল্পের মাধ্যমে ইতোমধ্যে ২১ জেলায় সাড়ে ১০ হাজার নারীর স্ব-কর্মসংস্থান এবং উদ্যোক্তা হিসাবে তৈরির জন্য সরকারি অর্থায়নে আউট সোর্সিং প্রশিক্ষণ কার্যক্রম শেষ হয়েছে। এ ছাড়া ইতোমধ্যে ৪৯টি জেলায় সরকারি অর্থায়নে আউট সোর্সিংয়ের প্রশিক্ষণ কার্যক্রম চলমান রয়েছে।

তিনি বলেন, দেশে তথ্য প্রযুক্তি সেক্টরে দক্ষ জনসম্পদ গড়ে তোলার জন্য সরকারি অর্থায়নে বাংলাদেশ হাইটেক পার্ক কর্তৃপক্ষের আওতাধীন প্রকল্প ও কর্মসূচির মাধ্যমে কুমিল্লা, চট্টগ্রাম, সিলেট, বরিশাল, মাগুরা, নেত্রকোনা জেলায় এবং নাটোর সদর ও সিংড়া উপজেলায় ২ হাজর ১শ’ জনের প্রশিক্ষণ শেষ হয়েছে। প্রতিমন্ত্রী বলেন, ‘লার্নিং এ- আর্নিং ডেভেলপমেন্ট প্রকল্পের আওতায় ইতোপূর্বে সরকারি অর্থায়নে ১৩ হাজার প্রশিক্ষণার্থীকে ২শ’ ঘণ্টা করে ৫০ দিনব্যাপী তিনটি কোর্সে (গ্রাফিক্স ডিজাইন, ওয়েব ডিজাইন এ- ডেভেলপমেন্ট ও ডিজিটাল মার্কেটিং) শিক্ষিত যুবক যুবতীদের প্রফেশনাল আউটসোর্সিং প্রশিক্ষণ সারাদেশে প্রদান করা হয়েছে। নতুন করে ৪০ হাজার জনের প্রফেশনাল আউটসোর্সিং প্রশিক্ষণ শুরু করা হবে।

 

সবার কাছে আইনি সেবা পৌঁছে দিতে হবে: আইনমন্ত্রী
                                  

আইন, বিচার ও সংসদ বিষয়ক মন্ত্রী আনিসুল হক বলেছেন, বিগত প্রায় সাড়ে ১০ বছরে জাতীয় আইনগত সহায়তা প্রদান সংস্থা অনেক সচল হয়েছে। ফলে, ২০০৯ থেকে জুন ২০১৯ পর্যন্ত চার লাখ ৩০ হাজার ৭৭৩ জনকে সরকারি আইনি সহায়তা দেয়া সম্ভব হয়েছে। তিনি বলেন, যারা দরিদ্র ও অসহায় তাদের সকলের কাছে সরকারি আইনি সেবা পৌঁছে দিতে হবে, তাহলেই জাতীয় আইনগত সহায়তা প্রদান সংস্থা প্রতিষ্ঠার মূল উদ্দেশ্য সফল হবে। আইনমন্ত্রী গতকাল মঙ্গলবার গতকাল মঙ্গলবার মন্ত্রণালয়ের সম্মেলন কক্ষে অনুষ্ঠিত জাতীয় আইনগত সহায়তা প্রদান সংস্থার জাতীয় পরিচালনা বোর্ডের ৩৬ তম সভায় সভাপতির বক্তব্যে একথা বলেন।

জাতীয় আইনগত সহায়তা প্রদান সংস্থার পরিচালনা বোর্ড সভায়, জাতীয় আইনগত সহায়তা প্রদান নীতিমালা সংশোধন করে সরকারি আইনি সহায়তা পাওয়ার আওতা বাড়ানোর সিদ্ধান্তে অনুমোদন দেয়া হয়েছে। এর ফলে, সরকার নির্ধারিত আয়কর সীমার নীচে বার্ষিক আয়ের সকলেই সুপ্রিম কোর্ট ও দেশের সকল অধস্তন কোর্টে বিনা খরচে সরকারি আইনি সেবা গ্রহণের সুবিধা নিতে পারবেন। আগে যাদের বার্ষিক আয় যথাক্রমে ১ লাখ ৫০ হাজার টাকা এবং ১ লাখ টাকা ছিল তারাই কেবল এই সুবিধা লাভের অধিকারী ছিলেন। নীতিমালা সংশোধনের পর থেকে এটি কার্যকর হবে। সভায়, অধস্তন আদালতে জেলা লিগ্যাল এইড কমিটির তালিকাভুক্ত আইনজীবীদের কর্মস্পৃহা ও সেবার মান বৃদ্ধিসহ সরকারি আইনি সহায়তা কার্যক্রম বেগবান করার লক্ষে আইনজীবীদের মামলা পরিচালনা সংক্রান্ত ফি বিদ্যমান ফি এর চেয়ে ৩০ শতাংশ বৃদ্ধি করার সিদ্ধান্ত গৃহীত হয়।

এছাড়া পূর্ণকালীন জেলা লিগ্যাল এইড অফিসারগণের দেওয়ানী অবকাশকালীন সময়ে অর্থাৎ ডিসেম্বর মাসে দায়িত্ব পালনের জন্য তাদেরকে এক মাসের মূল বেতনের সমপরিমাণ ভাতা প্রদানের সিদ্ধান্ত গৃহীত হয়। সভায় সংস্থার জাতীয় পরিচালনা বোর্ড সদস্য মো. আবদুস শহীদ এমপি ও মাসুদ উদ্দিন চৌধুরী এমপি, সুপ্রিম কোর্টের রেজিস্ট্রার জেনারেল মো. জাকির হোসেন, জাতীয় আইনগত সহায়তা প্রদান সংস্থার পরিচালক মো. আমিনুল ইসলামসহ বিভিন্ন দপ্তর ও সংস্থার প্রতিনিধিরা উপস্থিত ছিলেন।

এরশাদপুত্র এরিককে হুমকি, থানায় জিডি
                                  

 সাবেক রাষ্ট্রপতি ও জাতীয় পার্টির চেয়ারম্যান হুসেইন মুহম্মদ এরশাদের ছেলে শাহাতা জারাব এরশাদ এরিককে (এরিক এরশাদ) তুলে নেওয়ার হুমকি দিয়েছে অজ্ঞাত দুর্বৃত্তরা। এ ঘটনায় গতকাল সোমবার বিকেল ৩টার দিকে গুলশান থানায় সাধারণ ডায়েরি (জিডি) করা হয়েছে। এরিক এরশাদের পক্ষে জিডি করেন হুসেইন মুহম্মদ এরশাদের ব্যক্তিগত সচিব অবসরপ্রাপ্ত মেজর খালেদ আখতার।


জিডিতে বলা হয়, ‘আমি মেজর (অব.) মো. খালেদ আখতার, পিতা মরহুম শাফায়ে হোসেন, পরিচালক হুসেইন মুহম্মদ এরশাদ ট্রাস্ট, আমার চেয়ারম্যান হুসেইন মুহম্মদ এরশাদ দীর্ঘদিন যাবৎ অসুস্থ থাকায়, তার ছেলে শাহাতা জারাব এরশাদ এরিককে কে বা কারা মোবাইল ফোনে বিভিন্ন ধরনের ভয়ভীতি প্রদর্শন করছে।’


জিডিতে তার মোবাইল নম্বর ও ঠিকানা উল্লেখ করে আরও বলা হয়েছে, ‘আমি হুসেইন মুহম্মদ এরশাদ ট্রাস্টের পরিচালক হিসেবে এরিকের সব ভালো-মন্দ দেখাশোনার দায়-দায়িত্ব আমার ওপর অর্পিত হয়।’ এরশাদ-বিদিশা দম্পতির একমাত্র সন্তান এরিক এরশাদ। বাবা-মার ছাড়াছাড়ির পর পালাক্রমে উভয়ের সঙ্গে থাকেন এরিক। তবে নিরাপত্তার কারণে বেশির ভাগ সময় বাবার সঙ্গে বারিধারার প্রেসিডেন্ট পার্কে অবস্থান করতেন তিনি।


   Page 1 of 366
     জাতীয়
রংপুরে সামরিক মর্যাদায় এরশাদের দাফন সম্পন্ন
.............................................................................................
‘জাতীয় মৎস্য সপ্তাহ ২০১৯’ শুরু হচ্ছে আজ
.............................................................................................
পাটের ব্যবহার বাড়াতে মোবাইল কোর্ট পরিচালনা বেগবান করতে হবে: পাটমন্ত্রী
.............................................................................................
যথাযথ বর্জ্য ব্যবস্থাপনা টেকসই উন্নয়ন লক্ষ্যমাত্রা অর্জনে সহায়ক হবে: পরিবেশ মন্ত্রী
.............................................................................................
জাতীয় স্মৃতিসৌধে দক্ষিণ কোরিয়ার প্রধানমন্ত্রীর শ্রদ্ধা
.............................................................................................
এইচএম এরশাদ এর জীবন অবসান, চলে গেলেন সাবেক রাষ্ট্রপতি, জাতীয় পার্টির চেয়ারম্যান ও সংসদের বিরোধীদলীয় নেতা
.............................................................................................
ডিসি সম্মেলন শুরু হচ্ছে রোববার
.............................................................................................
গ্যাসের দাম বৃদ্ধি নিয়ে আলোচনা না করায় সংসদে মেননের ক্ষোভ
.............................................................................................
বাংলাদেশের জন্য মার্কিন সহায়তা অব্যাহত থাকবে: রবার্ট মিলার
.............................................................................................
বিএনপির নেতারা ভ্রান্তিমূলক ও মিথ্যা তথ্য প্রচার করছেন: আইনমন্ত্রী
.............................................................................................
২০৪১ সালে বাংলাদেশ উন্নত দেশে পরিণত হবে: সংসদে প্রধানমন্ত্রী
.............................................................................................
সাংবাদিকদের নিরপেক্ষ হয়ে কাজ করার আহ্বান সংস্কৃতি প্রতিমন্ত্রীর
.............................................................................................
দেশে ইন্টারনেট গ্রাহক ৯ কোটি ৪৪ লাখ: জব্বার
.............................................................................................
সব জেলায় হাই-টেক পার্ক নির্মাণ করা হবে: পলক
.............................................................................................
সবার কাছে আইনি সেবা পৌঁছে দিতে হবে: আইনমন্ত্রী
.............................................................................................
এরশাদপুত্র এরিককে হুমকি, থানায় জিডি
.............................................................................................
ধান সংগ্রহে অনিয়ম-দুর্ণীতি বরদাস্ত করা হবেনা: খাদ্যমন্ত্রী
.............................................................................................
শিক্ষা মানুষের জীবনের মূল ভিত্তি: রেলমন্ত্রী
.............................................................................................
খাদ্য সংগ্রহ অভিযানে কর্মকর্তা-কর্মচারীদের সততার সঙ্গে কাজ করতে হবে: খাদ্যমন্ত্রী
.............................................................................................
বরেন্দ্র এলাকা দেশে উন্নয়নের একটি মডেল: কৃষিমন্ত্রী
.............................................................................................
উচ্চ শিক্ষিত না হলেও কর্মসংস্থানের সুযোগ আছে : শিক্ষামন্ত্রী
.............................................................................................
বিশ্বের বৃহত্তম বার্ন ইনস্টিটিউটের যাত্রা শুরু
.............................................................................................
গাজীপুর অগ্নিকান্ডে নিহতদের প্রত্যেক পরিবারকে ১ লাখ টাকা সহায়তা দেওয়া হবে: শ্রম প্রতিমন্ত্রী
.............................................................................................
গ্যাসের মূল্যবৃদ্ধি বাজেটের প্রতিশ্রুতি ভঙ্গ: মেনন
.............................................................................................
২০২২ সালের মধ্যে খুলনা-মোংলা রেলপথ চালু হবে: রেলমন্ত্রী
.............................................................................................
প্রশাসনের কর্মকর্তা-কর্মচারীদের শৃঙ্খলা ভঙ্গে শাস্তি: প্রতিমন্ত্রী
.............................................................................................
বহুমুখী পাট পণ্যের নতুন উদ্যোক্তা সৃষ্টি করতে হবে: শিল্পমন্ত্রী
.............................................................................................
ওয়ার্ল্ড ইকোনমিক ফোরামের বার্ষিক সম্মেলনে যোগ দিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী
.............................................................................................
ঢাকা আসছেন মালয়েশিয়ার পররাষ্ট্রমন্ত্রী
.............................................................................................
উদ্ভাবনী উদ্যোগের মাধ্যমে নাগরিক সেবা সহজতর করার আহ্বান এলজিআরডি মন্ত্রীর
.............................................................................................
চট্টগ্রাম বন্দরের বে-টার্মিনাল নির্মাণে আগ্রহ সিঙ্গাপুরের
.............................................................................................
হজ ব্যবস্থাপনায় অনিয়ম হলে ব্যবস্থা নেওয়ার আহ্বান রাষ্ট্রপতির
.............................................................................................
৪ জুলাই বিমানের প্রথম হজ-ফ্লাইট
.............................................................................................
শিশুকে বিনোদনের মাধ্যমে শিক্ষা দিতে পারলে সে শিক্ষা ফলপ্রসু হবে : শিক্ষামন্ত্রী
.............................................................................................
আজ চীন সফরে যাচ্ছেন প্রধানমন্ত্রী
.............................................................................................
রোহিঙ্গা সংকটে জাতিসংঘের পদ্ধতিগত ব্যর্থতা তুলে ধরল বাংলাদেশ
.............................................................................................
ঢাকা-নিউইয়র্ক রুটে এ বছরেই ফ্লাইট চালু হবে: মন্ত্রী
.............................................................................................
অসাধু ব্যবসায়ীর কারণে ভালো ব্যবসায়ীদের সুনামও নষ্ট হচ্ছে: রাষ্ট্রপতি
.............................................................................................
এই বাজেট উন্নয়নের গতিধারা অব্যাহত রাখবে: প্রধানমন্ত্রী
.............................................................................................
প্রধানমন্ত্রীর চীন সফরে ৮ চুক্তি ও সমঝোতা স্মারক সই হবে
.............................................................................................
মুক্তিযোদ্ধাদের নামে সকল রাস্তার নামকরণ করা হবে: মোজাম্মেল হক
.............................................................................................
সংসদে বাংলাদেশ ভেটেরিনারি কাউন্সিল বিলের রিপোর্ট উপস্থাপন
.............................................................................................
রাজউককে বিকেন্দ্রীকরণের বিকল্প নেই: গণপূর্ত মন্ত্রী
.............................................................................................
নৌপথ উন্নয়নে ভারত সহযোগিতা করছে: প্রতিমন্ত্রী
.............................................................................................
বাংলাদেশে গণমাধ্যম স্বাধীনভাবে কাজ করতে পারছে না : ব্রিটিশ হাইকমিশনার
.............................................................................................
‘এরশাদের চিকিৎসার টাকা জোগাড় হয়নি’
.............................................................................................
রাজশাহীতে কোটি টাকার হেরোইনসহ মাদক বিক্রেতা আটক
.............................................................................................
দেশের ১০ জেলায় জাতীয় মহাসড়ক নেই: সংসদে সেতুমন্ত্রী
.............................................................................................
রোহিঙ্গাদের দ্রুত ফেরত পাঠানো না গেলে স্থিতিশীলতা ব্যাহত হতে পারে: প্রধানমন্ত্রী
.............................................................................................
উত্তরের ৪ জেলা সফর করলেন মার্কিন দূত
.............................................................................................

|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
স্বাধীন বাংলা মো. খয়রুল ইসলাম চৌধুরী কর্তৃক সম্পাদিত ও ঢাকা-১০০০ হতে প্রকাশিত
প্রধান উপদেষ্টা: ফিরোজ আহমেদ (সাবেক সচিব, বাণিজ্য মন্ত্রণালয়)
উপদেষ্টা: আজাদ কবির
সম্পাদক মন্ডলীর সভাপতি: ডাঃ হারুনুর রশীদ
সম্পাদক মন্ডলীর সহ-সভাপতি: মামুনুর রশীদ
ব্যবস্থাপনা সম্পাদক : মো: খায়রুজ্জামান
যুগ্ম সম্পাদক: জুবায়ের আহমদ
বার্তা সম্পাদক: মুজিবুর রহমান ডালিম
স্পেশাল করাসপনডেন্ট : মো: শরিফুল ইসলাম রানা
যুক্তরাজ্য প্রতিনিধি: জুবের আহমদ
যোগাযোগ করুন: swadhinbangla24@gmail.com
    2015 @ All Right Reserved By swadhinbangla.com

Developed By: Dynamicsolution IT [01686797756]