| বাংলার জন্য ক্লিক করুন
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|

   শিক্ষা-সাহিত্য -
                                                                                                                                                                                                                                                                                                                                 
এমবিবিএস ভর্তি পরীক্ষা পিছিয়ে ১১ অক্টোবর

স্বাস্থ্য অধিদফতরের অধীন এমবিবিএস প্রথম বর্ষের ভর্তি পরীক্ষার তারিখ পেছানো হয়েছে। ৪ অক্টোবরের বদলে আগামি ১১ অক্টোবর এ পরীক্ষা অনুষ্ঠিত হবে। গত বৃহস্পতিবার স্বাস্থ্য ও পরিবার কল্যাণ মন্ত্রণালয়ে এক বৈঠকে সর্বসম্মতিক্রমে ৪ অক্টোবরের পরীক্ষা পিছিয়ে দেওয়ার সিদ্ধান্ত হয়। কোনও ধরনের জটিলতা না থাকলে ১১ অক্টোবর পরীক্ষা গ্রহণের সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়। স্বাস্থ্য সেবা বিভাগ সূত্রে এ তথ্য জানা গেছে।

সূত্র জানায়, ৪ অক্টোবরের আগে-পরে সনাতন ধর্মাবলম্বীদের সবচেয়ে বড় উৎসব দুর্গা পূজা। সে কারণে পরীক্ষা পিছিয়ে দেওয়ার সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়। এদিকে গত ২৭ আগস্ট থেকে অনলাইনে ভর্তি পরীক্ষার আবেদনপত্র গ্রহণ শুরু হয়েছে। শিক্ষার্থীরা আগামি ১৭ সেপ্টেম্বর পর্যন্ত আবেন করতে পারবেন।

 

এমবিবিএস ভর্তি পরীক্ষা পিছিয়ে ১১ অক্টোবর
                                  

স্বাস্থ্য অধিদফতরের অধীন এমবিবিএস প্রথম বর্ষের ভর্তি পরীক্ষার তারিখ পেছানো হয়েছে। ৪ অক্টোবরের বদলে আগামি ১১ অক্টোবর এ পরীক্ষা অনুষ্ঠিত হবে। গত বৃহস্পতিবার স্বাস্থ্য ও পরিবার কল্যাণ মন্ত্রণালয়ে এক বৈঠকে সর্বসম্মতিক্রমে ৪ অক্টোবরের পরীক্ষা পিছিয়ে দেওয়ার সিদ্ধান্ত হয়। কোনও ধরনের জটিলতা না থাকলে ১১ অক্টোবর পরীক্ষা গ্রহণের সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়। স্বাস্থ্য সেবা বিভাগ সূত্রে এ তথ্য জানা গেছে।

সূত্র জানায়, ৪ অক্টোবরের আগে-পরে সনাতন ধর্মাবলম্বীদের সবচেয়ে বড় উৎসব দুর্গা পূজা। সে কারণে পরীক্ষা পিছিয়ে দেওয়ার সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়। এদিকে গত ২৭ আগস্ট থেকে অনলাইনে ভর্তি পরীক্ষার আবেদনপত্র গ্রহণ শুরু হয়েছে। শিক্ষার্থীরা আগামি ১৭ সেপ্টেম্বর পর্যন্ত আবেন করতে পারবেন।

 

ঢাবির ‘চ’ ইউনিটের ভর্তি পরীক্ষা আজ
                                  

 ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে (ঢাবি) ২০১৯-২০ শিক্ষাবর্ষে চারুকলা অনুষদভুক্ত ‘চ’ ইউনিটের অধীনে প্রথম বর্ষ বিএফএ (সম্মান) শ্রেণির ভর্তি পরীক্ষা (সাধারণ জ্ঞান) আজ শনিবার সকাল ১০টা থেকে ১১টা পর্যন্ত অনুষ্ঠিত হবে। গতকাল শুক্রবার বিশ্ববিদ্যালয়ের জনসংযোগ দফতরের পরিচালক (ভারপ্রাপ্ত) মাহমুদ আলম স্বাক্ষরিত গণমাধ্যমে পাঠানো এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে এ তথ্য জানানো হয়।

সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়, ‘বিশ্ববিদ্যালয় চারুকলা অনুষদসহ ক্যাম্পাসের মোট ১৯টি কেন্দ্রে এ পরীক্ষা অনুষ্ঠিত হবে। চ-ইউনিটে ১৩৫টি আসনের বিপরীতে ভর্তিচ্ছু আবেদনকারীর সংখ্যা ১৬ হাজার একজন। উপাচার্য অধ্যাপক ড. মো. আখতারুজ্জামান চারুকলা অনুষদের বিভিন্ন পরীক্ষাকেন্দ্র পরিদর্শন করবেন। ভর্তি পরীক্ষার সিট-প্ল্যান বিশ্ববিদ্যালয়ের ধফসরংংরড়হ.বরং.ফঁ.ধপ.নফ ওয়েবসাইট থেকে জানা যাবে। পরীক্ষার হলে মোবাইল ফোন বা টেলিযোগাযোগ করা যায় এমন কোনও ইলেক্ট্রনিক ডিভাইস/যন্ত্র সম্পূর্ণ নিষিদ্ধ। পরীক্ষা চলাকালে ভ্রাম্যমাণ আদালত দায়িত্ব পালন করবেন।

দক্ষ নিউক্লিয়ার ইঞ্জিনিয়ার গড়ে তোলার তাগিদ বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি মন্ত্রীর
                                  

 বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি মন্ত্রী স্থপতি ইয়াফেস ওসমান পরমানু শক্তির বিকাশে দক্ষ নিউক্লিয়ার ইঞ্জিনিয়ার গড়ে তোলার ওপর গুরুত্ব আরোপ করেছেন। দেশের পরমানু শক্তির বিকাশ ও উন্নয়নে বর্তমান সরকারের সুদূর প্রসারী ও সুষ্ঠু পরিকল্পনার কথা তুলে ধরে তিনি বলেন, সরকারের এই পরিকল্পনা বাস্তবায়নের জন্যে দক্ষ নিউক্লিয়ার ইঞ্জিনিয়ার গড়ে তোলা প্রয়োজন। বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি মন্ত্রী গতকাল বৃহস্পতিবার রাজধানীর মিরপুর সেনানিবাসে মিলিটারি ইনস্টিটিউট অব সাইন্স এ- টেকনোলজিতে (এমআইএসটি) ‘বাংলাদেশে পরমাণু শক্তির বর্তমান অবস্থা এবং উন্নয়ন’ শীর্ষক এক সেমিনারে প্রধান অতিথির বক্তৃতায় এ কথা বলেন।

বাংলাদেশের পরমানু শক্তির বর্তমান প্রেক্ষাপটের উন্নয়ন এবং দক্ষ জনবল গড়ে তোলার লক্ষ্যে বিভিন্ন উদ্যোগের বিষয়ে আলোকপাত করতে এমআইএসটি’র নিউক্লিয়ার সাইন্স এ- ইঞ্জিনিয়ারিং বিভাগ এ সেমিনারের আয়োজন করে। প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ের এসডিজি বিষয়ক মুখ্য সমন্বয়ক মো. আবুল কালাম আজাদ সেমিনারে বিশেষ অতিথি ছিলেন। স্থপতি ইয়াফেস ওসমান পরমানু সংক্রান্ত বিষয়ে নিয়মিত সেমিনার, কর্মশালা ও প্রশিক্ষণ আয়োজনের ওপর গুরুত্ব প্রদানের পাশাপাশি এই সেমিনার আয়োজনের জন্য নিউক্লিয়ার সাইন্স এ- ইঞ্জিনিয়ারিং বিভাগের ভূয়সী প্রশংসা করেন। মো. আবুল কালাম আজাদ দেশের পারমাণবিক শক্তির বিকাশে বর্তমান প্রধানমন্ত্রীর সুষ্ঠু ও সঠিক নেতৃত্বের কথা তুলে ধরেন। এমআইএসটি’র কমান্ড্যান্ট মেজর জেনারেল মোঃ ওয়াহিদ-উজ-জামান এ সেমিনারে সভাপতিত্ব করেন। এই সেমিনারে বাংলাদেশের পরমানু শক্তি ও অবকাঠামোর বর্তমান অবস্থা ও অগ্রগতি সম্পর্কে মূল্যবান বক্তব্য উপস্থাপন করেন রুপপুর পারমাণবিক বিদ্যুৎ কেন্দ্র স্থাপন প্রকল্পের প্রকল্প পরিচালক ড. মো. শৌকত আকবর। এমআইএসটি’র কমান্ড্যান্ট দেশের পরমাণু শক্তির উন্নয়ন ও সরকারের লক্ষ্য পূরণের জন্যে এমআইএসটি’র নিউক্লিয়ার সাইন্স এ- ইঞ্জিনিয়ারিং বিভাগ কি ধরনের ভূমিকা পালন করতে পারে-সে বিষয়ে আলোকপাত করেন। এছাড়াও এ সেমিনারে ব্রিগেডিয়ার জেনারেল আখতার শাহিদ ‘বাংলাদেশের পারমাণবিক নিরাপত্তা ও ভৌত সুরক্ষা ব্যবস্থা’ শীর্ষক বক্তব্য উপস্থাপন করেন। অপরদিকে ‘বাংলাদেশের পরমানু বর্জ্য ব্যবস্থাপনা ও নিরাপত্তা’ বিষয়ে গুরুত্বপূর্ণ বক্তব্য রাখেন কানাডার ন্যাশনাল রিসার্চ কাউন্সিলের বিশিষ্ট পরমাণু প্রকৌশলী শাহাদাত হোসাইন।

সেমিনারে উপস্থিত সকলের সাথে প্রশ্নোত্তর পর্বের সমন্বয় করেন বাংলাদেশ পরমাণু শক্তি কমিশনের সাবেক চেয়ারম্যান বিশিষ্ট প্রকৌশলী এম আলি জুলকারনাইন। এ সময় বক্তারা পরমাণু গবেষণায় দক্ষ জনবল নিয়োগ এবং বাংলাদেশ পারমাণু শক্তি কমিশনে নিউক্লিয়ার ইঞ্জিনিয়ারদের নিয়োগের জন্য কি ধরনের পদক্ষেপ নেয়া হচ্ছে-সে বিষয়ে উপস্থিত ব্যক্তিবর্গের বিভিন্ন প্রশ্নের উত্তর দেন। নিউক্লিয়ার সাইন্স এ- ইঞ্জিনিয়ারিং বিভাগের বিভাগীয় প্রধান কর্নেল মোঃ রোশায়দুল মাওলা অনুষ্ঠানে সূচনা বক্তব্য প্রদান করেন। এমআইএসটি’র সকল ডিন, বিভাগীয় প্রধানবৃন্দ, শিক্ষক-কর্মকর্তা ও শিক্ষার্থীসহ বিভিন্ন প্রতিষ্ঠান ও সংস্থার উচ্চপদস্থ সামরিক ও বেসামরিক কর্মকর্তা এবং আমন্ত্রিত অন্যান্য অতিথিবৃন্দ অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন।

 

শিক্ষার্থীদের শান্তিকামী মানুষ হিসেবে গড়ে তুলতে হবে: মহিবুল
                                  

আগামীর শান্তিময় বিশ্ব প্রতিষ্ঠায় শিক্ষার্থীদের সুযোগ্যরূপে গড়ে তুলতে শিক্ষকদের প্রতি আহ্বান জানিয়েছেন শিক্ষা উপমন্ত্রী ব্যারিস্টার মহিবুল হাসান চৌধুরী। তিনি বলেন, বাংলাদেশ তথা বিশ্ব শান্তি প্রতিষ্ঠায় আগামি দিনে ভূমিকা রাখবে শিক্ষার্থীরা। আর এজন্যে শিক্ষকদের প্রধান দায়িত্ব পালন করতে হবে। শিক্ষার্থীদের শান্তিকামী, নৈতিক মূল্যবোধ সম্পন্ন মানুষ হিসেবে গড়ে তুলতে হবে। গতকাল বৃহস্পতিবার রাজধানীর ডেমরার মাতুইয়ালের শামসুল হক খান স্কুল অ্যান্ড কলেজ এবং হেভেনলি কালচার, ওয়ার্ল্ড পিস, রেসটোরেশন অফ লাইট (এইচডব্লিউপিএল) আয়োজিত ওয়ার্ল্ড পিস সামিটে প্রধান অতিথির বক্তব্যে একথা বলেন উপমন্ত্রী।

এ সময় উপমন্ত্রী বলেন, বিশ্ব শান্তি প্রতিষ্ঠায় অবদান রাখায় বঙ্গবন্ধু জুলি ও কুরি পুরস্কার পেয়েছিলেন। ১০ লাখ রোহিঙ্গাকে আশ্রয় দিয়ে জননেত্রী শেখ হাসিনা পেয়েছেন মাদার অব হিউম্যানিটি খেতাব। বাংলাদেশ সব সময় শান্তির সপক্ষে উল্লেখ করে তিনি বলেন, শান্তি প্রতিষ্ঠার শামসুল হক খান স্কুল অ্যান্ড কলেজের এটি একটি মহৎ উদ্যোগ। বাংলাদেশ একটি শান্তিপ্রিয় দেশ। এদেশের রাষ্ট্রীয় নীতিই শান্তির পক্ষে।

যে কারণে জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান বাংলাদেশের পররাষ্ট্রনীতির মূল মর্মবাণী তৈরি করেছেন- “সবার সঙ্গে বন্ধুত্ব করো, কারও সহিত শত্রুতা নয়। জাতির পিতার সুযোগ্য কন্যা, বাংলাদেশের বর্তমান প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা একই নীতি ও আদর্শ অনুসরণ করে সকল প্রতিবেশী দেশসহ আন্তর্জাতিক অঙ্গনে সুসম্পর্ক বজায় রেখেছেন। শামসুল হক খান স্কুল অ্যান্ড কলেজের অধ্যক্ষ ড. মাহাবুব রহমান মোল্লার সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে অন্যান্যের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন- শামসুল হক খান স্কুল ও কলেজের গভর্নিং বডির সভাপতি মাহফুজুর রহমান মোল্লা, বৈশাখী টেলিভিশনের প্রধান বার্তা সম্পাদক সাইফুল ইসলাম প্রমুখ।

ঢাবির ভর্তি পরীক্ষায় এবার প্রতি আসনে লড়বেন ৩৯ জন
                                  

 ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে ২০১৯-২০ শিক্ষাবর্ষে প্রথম বর্ষ স্নাতক (সম্মান) শ্রেণিতে ৫টি ইউনিটে মোট ৭ হাজার ১১৮টি আসনের বিপরীতে ২ লাখ ৭৬ হাজার ৩৯১ জন প্রার্থী অনলাইনের মাধ্যমে ভর্তির আবেদন করেছেন। এই হিসাবে পাঁচটি ইউনিটের প্রতি আসনের বিপরীতে ৩৯ জন শিক্ষার্থী প্রতিদ্বন্দ্বিতা করবেন। অনলাইনের মাধ্যমে প্রার্থীদের ভর্তির আবেদন গ্রহণ প্রক্রিয়া গত ২৭ অগাস্ট শেষ হয়েছে।

ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রশাসনিক ভবন ও কেন্দ্রীয় ভর্তি অফিস সূত্রে জানা গেছে, এ বছর ‘ক’ ইউনিটের ১ হাজার ৭৯৫টি আসনের বিপরীতে ৮৮ হাজার ৯৭০ জন প্রতিদ্বন্দ্বিতা করবেন। এ ছাড়া ‘খ’ ইউনিটের ২ হাজার ৩৭৮ আসনের বিপরীতে ৪৫ হাজার ৩ জন, ‘গ’ ইউনিটে ১ হাজার ২৫০ আসনের বিপরীতে ২৮ হাজার ৯৫৮ জন, ‘ঘ’ ইউনিটে ১ হাজার ৫৬০ আসনের বিপরীতে ৯৭ হাজার ৪৬৪ জন এবং ‘চ’ ইউনিটে ১৩৫ আসনের বিপরীতে লড়বেন ১৫ হাজার ৯৯৬ জন শিক্ষার্থী। ভর্তি পরীক্ষা আগামি ১৩ সেপ্টেম্বর (শুক্রবার) গ ইউনিট দিয়ে শুরু হয়ে ২৮ সেপ্টেম্বর (শনিবার) চ-ইউনিটের অঙ্কন পরীক্ষার মাধ্যমে শেষ হবে। এ ছাড়া আগামি ১৪ সেপ্টেম্বর (শনিবার) চ-ইউনিটের সাধারণ জ্ঞান, ২০ সেপ্টেম্বর (শুক্রবার) ক-ইউনিট, ২১ সেপ্টেম্বর (শনিবার) খ-ইউনিট ও ২৭ সেপ্টেম্বর (শুক্রবার) ঘ-ইউনিটের ভর্তি পরীক্ষা অনুষ্ঠিত হবে। এবার নৈর্ব্যক্তিক পরীক্ষার পাশাপাশি লিখিত পরীক্ষাও দিতে হবে ভর্তিচ্ছুদের। মোট ১২০ নম্বরের মধ্যে এমসিকিউয়ের জন্য থাকছে ৭৫ নম্বর, লিখিত পরীক্ষার জন্য ৪৫ নম্বর।

এমসিকিউ পরীক্ষার জন্য ৫০ মিনিট ও লিখিত পরীক্ষার জন্য ৪০ মিনিট সময় ধরা হয়েছে। পরীক্ষার্থীরা ‘ক’, ‘খ’, ও ‘ঘ’ ইউনিটের প্রবেশপত্র ডাউনলোড করতে পারবে ৩ সেপ্টেম্বর বিকাল ৩টা থেকে পরীক্ষার দিন সকাল ৯টা পর্যন্ত। এ ছাড়া ‘গ’ ও ‘চ’ ইউনিটের প্রবেশপত্র ডাউনলোড করা যাবে ৩০ অগাস্ট বিকাল ৩টা থেকে পরীক্ষার দিন সকাল ৯টা পর্যন্ত। এর আগে গত ৫ অগাস্ট উপাচার্য মো. আখতারুজ্জামান অনলাইনের মাধ্যমে ভর্তির আবেদন প্রক্রিয়ার উদ্বোধন করেন।

রাবির ভর্তি পরীক্ষার আবেদন শুরু হচ্ছে আজ
                                  

 রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ের (রাবি) ২০১৯-২০ শিক্ষাবর্ষের স্নাতক (সম্মান) প্রথম বর্ষের ভর্তির প্রাথমিক আবেদন শুরু হচ্ছে আজ মঙ্গলবার থেকে। দুপুর ১২টা থেকে শুরু হয়ে আবেদন প্রক্রিয়া চলবে আগামি ১২ সেপ্টেম্বর রাত ১২টা পর্যন্ত। গতকাল সোমবার বিকেলে বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন ভর্তি পরীক্ষার উপ-কমিটির সদস্য ও বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রক্টর অধ্যাপক লুৎফর রহমান। ২০১৯ সালের এইচএসসি পরীক্ষায় উত্তীর্ণ শিক্ষার্থীরাই আবেদন করতে পারবেন। প্রাথমিক আবেদনের জন্য একজন ভর্তিচ্ছু শিক্ষার্থীকে ৫৫টাকা দিয়ে http://admission.ru.ac.bd তে প্রকাশিত নিয়মাবলী কিনতে হবে।

পরে সেটি অনুসরণ করে সংশ্লিষ্ট ইউনিটে প্রাথমিক আবেদন করতে হবে। মাধ্যমিক ও উচ্চ মাধ্যমিকের ফলাফলের ভিত্তিতে ইউনিট প্রতি ৩২ হাজার ভর্তিচ্ছু চূড়ান্ত আবেদনের সুযোগ পাবেন। সুযোগপ্রাপ্তদের ১৭ থেকে ৩০ সেপ্টেম্বর মধ্যে ইউনিট প্রতি এক হাজার ৩২০ টাকা জমা দিয়ে চূড়ান্ত আবেদন করতে হবে। প্রসঙ্গত, আগামি ২০-২২ অক্টোবর ২০১৯-২০ শিক্ষাবর্ষের স্নাতক (সম্মান) প্রথম বর্ষের ভর্তির পরীক্ষা অনুষ্ঠিত হবে।


একাদশ সমাবর্তন ৩০ নভেম্বর: রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ের একাদশ সমাবর্তন আগামি ৩০ নভেম্বর অনুষ্ঠিত হবে। সমাবর্তনে ২০১৫ ও ২০১৬ সালে পিএইচডি, এমফিল, স্নাতকোত্তর, এমবিবিএস, বিডিএস ও ডিভিএম ডিগ্রি অর্জনকারীগণ অংশ নিতে পারবেন। গতকাল সোমবার দুপুরে বিশ্ববিদ্যালয়ের জনসংযোগ দফতরের কর্মকর্তা অধ্যাপক প্রভাষ কুমার কর্মকার স্বাক্ষরিত প্রেস বিজ্ঞপ্তিতে এ তথ্য নিশ্চিত করেন। সমাবর্তনে অংশ নেওয়ার জন্য গ্র্যাজুয়েটদের আগামি ৫ সেপ্টেম্বর থেকে ১৪ সেপ্টেম্বরের মধ্যে ৩৫৭০টাকা দিয়ে অনলাইনে রেজিস্ট্রেশন সম্পন্ন করতে হবে। সমাবর্তন অনুষ্ঠান সুষ্ঠুভাবে সম্পন্ন করতে বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রশাসন ভবনে সমাবর্তন সাংগঠনিক কমিটির ডাকা সভায় সভাপতিত্ব করেন উপাচার্য অধ্যাপক এম আবদুস সোবহান। সভায় সমাবর্তন অভ্যর্থনা কমিটি ও স্টিয়ারিং কমিটিসহ ১৩টি উপ-কমিটি গঠন করা হয়। সমাবর্তন সংক্রান্ত বিস্তারিত তথ্য বিশ্ববিদ্যালয়ের ওয়েবসাইট www.ru.ac.bd থেকে জানা যাবে। অধ্যাপক প্রভাষ কুমার কর্মকার বাংলাট্রিবিউনকে বলেন, একাদশ সমাবর্তনে সভাপতিত্ব করবেন বিশ্ববিদ্যালয়ের আচার্য ও রাষ্ট্রপতি আবদুল হামিদ। সমাবর্তনকে সুষ্ঠুভাবে সম্পন্ন করতে সার্বিক প্রস্তুতি চলছে।

তিনি সবার সহযোগিতা প্রত্যাশা করেন এবং শিক্ষার্থীদের দ্রুত নিবন্ধন করার আহ্বান জানান। উল্লেখ্য, গত বছরের ২৯ সেপ্টেম্বর বিশ্ববিদ্যালয়ের দশম সমাবর্তন অনুষ্ঠিত হয়। সমাবর্তনে সভাপতিত্ব করেন বিশ্ববিদ্যালয়ের আচার্য ও রাষ্ট্রপতি আবদুল হামিদ। ওই দিনই বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য অধ্যাপক আবদুস সোবহান প্রত্যেক বছর সমাবর্তন আয়োজনের ঘোষণা দেন। ওই সমাবর্তনে ২০১১ সাল থেকে ২০১৪ সাল পর্যন্ত গ্র্যাজুয়েট শেষ করা ৬ হাজার ১৪ জন অংশ নেন।

এমবিবিএস ভর্তি পরীক্ষা: আজ থেকে মেডিকেল কোচিং বন্ধ রাখার নির্দেশ
                                  

২০১৯-২০২০ শিক্ষাবর্ষের এমবিবিএস ভর্তি পরীক্ষা অনুষ্ঠিত হবে আগামী ৪ সেপ্টেম্বর। এই পরীক্ষাকে সামনে রেখে রাজধানীসহ সারাদেশের মেডিকেল কোচিং সেন্টারগুলো বন্ধ রাখার সিদ্ধান্ত নিয়েছে স্বাস্থ্য অধিদফতর। আজ রোববার, ১ সেপ্টেম্বর থেকে আগামি ১৫ নভেম্বর পর্যন্ত এসব কোচিং সেন্টার বন্ধ রাখার নির্দেশ দেওয়া হয়েছে। কোচিং সেন্টারগুলো বন্ধের এ সিদ্ধান্ত নিয়ে স্বাস্থ্য অধিদফতরের পরিচালক (চিকিৎসা শিক্ষা ও স্বাস্থ্য জনশক্তি উন্নয়ন) অধ্যাপক ডা. এ কে এম আহসান হাবীব স্বাক্ষরিত চিঠিতে বলা হয়েছে, আগামি ৪ সেপ্টেম্বর সকাল ১০টায় ২০১৯-২০২০ শিক্ষাবর্ষে সরকারি ও বেসরকারি মেডিকেল কলেজে এমবিবিএস কোর্সে ভর্তির জন্য বাংলাদেশের ১৯টি কেন্দ্রে একযোগে ভর্তি পরীক্ষা অনুষ্ঠিত হবে।

মেডিকেল কলেজের ভর্তি পরীক্ষা এ যাবত কালে সর্বোচ্চ স্বচ্ছতার সঙ্গে অনুষ্ঠিত হয়ে আসছে এবং স্বচ্ছতার সঙ্গে পরীক্ষা গ্রহণের ব্যাপারে সরকারের ঊর্ধ্বতন নীতিনির্ধারণী মহল সজাগ রয়েছেন। সরকারের সকল সর্তকতামূলক ব্যবস্থার অংশ হিসেবে এবং সর্বোচ্চ স্বচ্ছতা, সতর্কতা এবং নিরপেক্ষতার নিশ্চয়তার জন্য আগামি ১ সেপ্টেম্বর থেকে আগামি ১৫ নভেম্বর পর্যন্ত সকল বেসরকারি পর্যায়ের ব্যক্তি এবং প্রতিষ্ঠানের মাধ্যমে পরিচালিত কোচিং সেন্টারসমূহ বন্ধ রাখার সিদ্ধান্ত গৃহীত হয়েছে। সিদ্ধান্ত অমান্যকারীদের বিরুদ্ধে কঠোর ব্যবস্থা নেওয়া হবে। স্বাস্থ্য অধিদফতরের ওই চিঠিতে আইনপ্রয়োগকারী সংস্থাগুলোকে এ ব্যাপারে সজাগ থাকার আহ্বান জানানো হয়েছে। প্রসঙ্গত আগামি ৪ সেপ্টেম্বর সকাল ১০টা থেকে সকাল ১১টা পর্যন্ত ১০০ নম্বরের নৈর্ব্যক্তিক প্রশ্ন এই পরীক্ষা অনুষ্ঠিত হবে। এর মধ্যে পদার্থবিদ্যায় ২০, জীববিজ্ঞানে ৩০, রসায়নে ২৫, ইংরেজি ১৫ ও বাংলাদেশের ইতিহাস ও মুক্তিযুদ্ধ বিষয়ক সাধারণ জ্ঞানের জন্য রয়েছে ১০ নম্বর। ভর্তি পরীক্ষার জন্য গত ২৭ আগস্ট থেকে অনলাইনে আবেদনপত্র গ্রহণ শুরু হয়েছে।

এক হাজার টাকা টেলিটকের মাধ্যমে জমা দিয়ে আগামি ১৭ সেপ্টেম্বর পর্যন্ত আবেদনপত্র জমা দেওয়া যাবে। দেশে বর্তমানে ৩৬টি সরকারি মেডিকেল কলেজে মোট আসন সংখ্যা রয়েছে চার হাজার ৬৮টি, এর মধ্যে তিন হাজার ৯৬৬টি সাধারণ আসন। আর ৮২টি মুক্তিযোদ্ধা পরিবার এবং ২০টি ক্ষুদ্র নৃগোষ্ঠীর জন্য কোটা হিসেবে সংরক্ষিত থাকবে। অপরদিকে বেসরকারি মেডিকেল কলেজে রয়েছে প্রায় সাত হাজারের মতো আসন।

 

বরিশালের সেই ১৮ পরীক্ষার্থীসহ ১৯ জনের বিরুদ্ধে মামলা
                                  

উত্তরপত্র জালিয়াতির অভিযোগে মহানগরীর এয়ারপোর্ট থানায় ১৮ পরীক্ষার্থীসহ ১৯ জনকে আসামি করে মামলা করেছে বরিশাল মাধ্যমিক ও উচ্চমাধ্যমিকশিক্ষাবোর্ড। গতকাল মঙ্গলবার মামলার বিষয়টি জানানো হয়। এর আগে শিক্ষা বোর্ডের পরীক্ষা নিয়ন্ত্রক মো. আনোয়ারুল আজিম বাদী হয়ে সোমবার বিকেলে মামলাটি করেন। ওই মামলায় শিক্ষার্থীদের পাশাপাশি বরিশাল বোর্ডের রেকর্ড সাপ্লায়ার গোবিন্দ চন্দ্র পালকেও আসামি করা হয়েছে।


মামলার বিষয়টি জানিয়ে বিমানবন্দর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মাহাবুবুর রহমান জানান, বোর্ডের কর্মচারী গোবিন্দসহ অভিযুক্ত ১৮ পরীক্ষার্থীকে মামলায় আসামি করা হয়েছে। তবে ঘটনার সঙ্গে বোর্ডের আরও অনেকে জড়িত রয়েছে। যে কারণে পরে আসামির সংখ্যা ৩০ ছাড়িয়ে যেতে পারে। জালিয়াতির সঙ্গে জড়িতদের তথ্য এবং এ সম্পর্কিত কাগজপত্র কর্তৃপক্ষের কাছে চাওয়া হয়েছে। পেলেই বাকিদের বিরুদ্ধেও ব্যবস্থা নেওয়া হবে। এদিকে জালিয়াতির ঘটনায় গঠিত তদন্ত কমিটি এখনো প্রতিবেদন জমা দিতে পারেনি। সোমবার রেকর্ড শাখায় কর্মরত বেশ কয়েকজন কর্মচারীর সাক্ষাৎকার নিয়েছে তদন্ত কমিটি। এর আগে গত ২২ আগস্ট বৃহস্পতিবার উচ্চতর গণিতের প্রধান পরীক্ষক পিরোজপুর শহীদ সোহরাওয়ার্দী কলেজের সহযোগী অধ্যাপক শহিদুল ইসলাম, নিরীক্ষক নলছিটি ডিগ্রী কলেজের প্রভাষক আবু সুফিয়ান এবং পরীক্ষক মানিক মিয়া মহিলা কলেজের শিক্ষক মনিমোহনের সঙ্গেও কথা বলেছে তদন্ত কমিটির সদস্যরা।


সূত্র বলছে, শিক্ষক মনিমোহন এ বিষয়ে অনেক কিছুই জানেন কিন্তু মানসিক ভারসাম্যহীন রোগী সেজে সব দোষ এড়িয়ে যাওয়ার চেষ্টা করছেন। অপরদিকে উচ্চতর গণিত ছাড়াও অন্য সব বিষয়ে জালিয়াতি হলেও সেগুলো সামনে আসছে না।
নিরীক্ষক আবু সুফিয়ান বলেন, ‘আমার শিক্ষকতার বয়স ২৫ বছর। ১০ বছর ধরে আমি খাতা নিরীক্ষণের কাজ করছি। কিন্তু ১৮টি খাতা মূল্যায়ন করতে গিয়ে আমার সন্দেহ হয়। আগে আমরা নিজেরাই উত্তরপত্রে নিজেদের মতো করে নম্বর দিতাম। কিন্তু সৃজনশীল হওয়ায় প্রশ্নের উত্তর তৈরি করে দেওয়া হয়। আমরা খাতা নিরীক্ষণের সময় ওই প্রশ্নপত্রে যে নিয়মে অঙ্ক করা সেভাবে মূল্যায়ন করে নম্বর দিয়ে থাকি। খাতা মিলিয়ে দেখি বোর্ড থেকে দেওয়া উত্তরপত্রে যেভাবে অঙ্ক করা ঠিক সেভাবেই ওই ১৮টি খাতায় অঙ্ক তুলে দেওয়া হয়েছে। উত্তরপত্রে একটি অঙ্ক ১৩ লাইনে শেষ হয়েছে। ওই পরীক্ষার্থীর খাতায়ও ঠিক সেইভাবে ১৩ লাইনে অঙ্ক উঠানো। উচ্চতর গণিতে লিখিত পরীক্ষায় নম্বর ৫০। এর মধ্যে ‘ক’ অথবা ‘খ’ যে কোন গ্রুপ থেকে কমপক্ষে দু’টিসহ ৫টি প্রশ্নের উত্তর দিতে হবে। চারজন পরীক্ষার্থী ফাঁস করা উত্তরশিট দেখে সব অংকই একই গ্রুপ থেকে তুলে রেখেছেন। ফলে তাদেরকে ৪০ দেওয়া হয়েছে। বাকি ১৪ জন পেয়েছেন ৫০ এর মধ্যে ৫০।


শুধু তাই নয় একটি অঙ্ক আসছে যেটি করতে গেলে আমারও অন্তত ১০ বার কাঁটাছেড়া করতে হবে। অথচ ওই ১৮ পরীক্ষার্থী এমন নিখুঁতভাবে অংকটি তুলে রেখেছেন যা দেখলে সন্দেহ হবে। বিষয়টি সন্দেহ হওয়ার পরে আমি প্রধান পরীক্ষককে অবহিত করি। তিনি চেয়ারম্যানের স্যারের কাছে খাতাগুলো নিয়ে যান। এর পরই বেরিয়ে আসে আসল রহস্য। ওই ১৮ শিক্ষার্থী পরীক্ষার হলে খাতায় কিছু না লিখে সাদা খাতা জমা দেন। প্রত্যেকটি খাতায় একটি লাল দাগ টানা ছিল। এরপর খাতা বোর্ডে জমা দেওয়ার পর রেকর্ড সাপ্লায়ার খাতাগুলো বের করে কোনো একজনকে দিয়ে ১৮ জনের খাতায় হুবহু উত্তরপত্রে করা অংকগুলো তুলে রাখেন। ওই ১৮ জন পরীক্ষার্থী বিভিন্ন কেন্দ্রের হলেও সব খাতা যায় পরীক্ষক মনিমোহনের কাছে। শিক্ষাবোর্ড চেয়ারম্যান এরপর ১৮ শিক্ষার্থীকে ডেকে জিজ্ঞাসাবাদ করেন।

এক পর্যায়ে পরীক্ষার্থীরা উত্তরপত্র জালিয়াতির বিষয়টি স্বীকার করে নেয়। তারা জানান টাকার বিনিময়ে গোবিন্দ্র চন্দ্র পাল এ কাজটি করেছেন। এরপর ১৮ পরীক্ষার্থীর ফলাফল স্থগিত করা হয়। শুধু তাই নয় আগামি তিন বছর পর্যন্ত তারা পরীক্ষায়ও বসতে পারবে না।’ বোর্ড চেয়ারম্যান অধ্যাপক মোহাম্মদ ইউনুস মিয়া বলেন, ‘তদন্ত চলছে। এরইমধ্যে অনেক গোপন তথ্য বের হয়ে এসেছে। তবে এখনো প্রতিবেদন জমা হয়নি। প্রতিবেদন পেলে পরবর্তীতে বিভাগীয় ব্যবস্থা নেওয়া হবে। তবে তার আগেই ফৌজদারী আইনে থানায় মামলা করেছি।

বর্ধিত ফি আদায়কারী কলেজের তালিকা চাইলেন শিক্ষামন্ত্রী
                                  

 সারাদেশে ‘সেশন ফি’ এর নামে অতিরিক্ত অর্থ গ্রহণকারী বেসরকারি কলেজের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নিতে সেসব প্রতিষ্ঠানের তালিকা আগামি তিন কর্মদিবসের মধ্যে চেয়েছেন শিক্ষামন্ত্রী ডা. দীপু মনি। মন্ত্রীর নির্দেশে গতকাল মঙ্গলবার মাধ্যমিক ও উচ্চশিক্ষা অধিদপ্তর জরুরিভিত্তিতে তদন্ত করে ব্যবস্থা নিতে তালিকা চেয়ে মাধ্যমিক ও উচ্চশিক্ষার সব অঞ্চলের উপ-পরিচালককে চিঠি দিয়েছে। একাদশ শ্রেণিতে ভর্তির জন্য সেশন ফি’র নামে শিক্ষার্থীদের কাছে অতিরিক্ত ফি আদায়ের বিষয়ে গণমাধ্যমে প্রকাশিত প্রতিবেদনের তথ্য দিয়ে চিঠিতে বলা হয়, সেশন ফি’র নামে রীতিমতো ডাকাতি করছে বগুড়ার নামিদামি শিক্ষা প্রতিষ্ঠানগুলো। সরকার নির্ধারিত নীতিমালা কেউই তোয়াক্কা করছে না।

‘এমপিওভুক্ত শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের পাশাপাশি ব্যাঙের ছাতার মতো গজিয়ে ওঠা প্রাইভেট শিক্ষা প্রতিষ্ঠানগুলোর দৌরাত্ম্য সীমা অতিক্রম করেছে। এসব শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে অতিরিক্ত সেশন ফি ছাড়াও বাজার থেকে চারগুণ-পাঁচগুণ বেশি টাকায় এসব প্রতিষ্ঠান থেকে বই, খাতাসহ শিক্ষা উপকরণ বাধ্য হয়ে কিনতে হয়। এমনকি স্কুল ড্রেসও প্রতিষ্ঠান থেকে নিতে হয়।’


চিঠিতে আরও বলা হয়, শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের এমন ডাকাতি কারবার বন্ধ করতে বগুড়ার সমাজসেবী আবদুল মান্নান আকন্দ হাইকোর্টের শরণাপন্ন হন। তিনি জনস্বার্থে চলতি বছরের ৩ ফেব্রুয়ারি একটি রিট পিটিশন দায়ের করেন। ওই রিটের পরিপ্রেক্ষিতে ২ জুলাই হাইকোর্টের বিচারক জেবিএম হাসান ও বিচারপতি মো. খায়রুল আলমের নেতৃত্বাধীন বেঞ্চ মাত্রাতিরিক্ত সেশন ফি গ্রহণকারী বগুড়ার বিভিন্ন শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানকে সরকারি নীতিমালার বাইরে নেওয়া বাড়তি টাকা অভিভাবকদের কাছে ফিরিয়ে দিতে হবে মর্মে আদেশ দেন।

এমতাবস্থায় শিক্ষামন্ত্রীর নির্দেশে সারাদেশে যেসব বেসরকারি কলেজ অতিরিক্ত ফি আদায় করছে তাদের তালিকা আগামি তিন কর্মদিবসের মধ্যে সফট কপি ই-মেইলে (ahowlader525@gmail.Com) এবং হার্ডকপি সহকারী পরিচালক (কলেজ) বরাবর পাঠাতে বলা হয়েছে।

জাতীয় কবি কাজী নজরুল ইসলামের ৪৩তম মৃত্যুবার্ষিকী আজ
                                  

জাতীয় কবি কাজী নজরুল ইসলামের ৪৩ তম মৃত্যুবার্ষিকী আজ মঙ্গলবার, ২৭ আগস্ট, ১২ ভাদ্র। ১৯৭৫ সালের ১৫ আগস্টের শোকাবহ ঘটনার এক বছর পর ১৯৭৬ সালের শোকের মাসেই এদিনে শেখ মুজিব মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয় হাসপাতালে (সাবেক পিজি হাসপাতাল) শেষ নিঃশ্বাস ত্যাগ করেন তিনি। কবিকে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের কেন্দ্রীয় মসজিদের পাশে রাষ্ট্রীয় মর্যাদায় সমাহিত করা হয়। এখানেই তিনি চিরনিদ্রায় শায়িত আছেন।

জাতীয় কবির মৃত্যুবার্ষিকী উপলক্ষে বিভিন্ন সামাজিক, সাংস্কৃতিক, রাজনৈতিক ও পেশাজীবী সংগঠন বিস্তারিত কর্মসূচি গ্রহণ করেছে। বাংলাদেশ বেতার, টেলিভিশন ও বিভিন্ন বেসরকারী টেলিভিশন চ্যানেল কবির মৃত্যুবার্ষিকী উপলক্ষে বিশেষ অনুষ্ঠানমালা প্রচারের উদ্যোগ নিয়েছে। ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের কর্মসূচির মধ্যে রয়েছে সকালে শোভাযাত্রা সহকারে কবির সমাধি প্রাঙ্গণে গমন, পুষ্পার্পণ এবং ফাতেহা পাঠ ও পরে কবির মাজার প্রাঙ্গণে আলোচনা সভা। বাংলা একাডেমি কবির মৃত্যুবার্ষিকী উপলক্ষে একক বত্তৃতার আয়োজন করেছে। বিকাল ৪টায় এ অনুষ্ঠানে সভাপতিত্ব করবেন অধ্যাপক ড. আনিসুজ্জামান। আওয়ামী লীগের কর্মসূচির মধ্যে রয়েছে সকাল ৮ টা ৩০ মিনিটে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের কেন্দ্রীয় মসজিদ প্রাঙ্গণে কবির সমাধিসৌধে পুষ্পার্ঘ্য নিবেদন, ফাতেহা পাঠ ও দোয়া। দলের কেন্দ্রীয় নেতৃবৃন্দ কর্মসূচিত অংশগ্রহণ করবেন। কবি, সাহিত্যিক শঙ্খ ঘোষ নজরুলের মৃত্যু নিয়ে লিখেছেন, নজরুলের কথা আজ যখনই মনে পড়ে আমাদের, মনে পড়ে মিলনগত এই অসম্পূর্ণতার কথা। আর তখন মনে হয়, বাক শক্তিহারা তাঁর অচেতন জীবনযাপন যেন আমাদের এই স্তম্ভিত ইতিহাসের এক নিবিড় প্রতীকচিহ্ন। যে সময়ে থেমে গেলো তার গান, তাঁর কথা, তাঁর অল্পকিছু আগেই তিনি গেয়েছিলেন, ‘ঘুমাইতে দাও শ্রান্ত রবিরে, জাগায়োনা জাগায়োনা।’ রবীন্দ্রনাথকে উদ্দেশ্য করে তাঁর এই কথাগুলো নজরুলকেই ফিরিয়ে দেয়ার কথা বলে শঙ্খ ঘোষ বলেন, ‘তাঁর কথাগুলো আমরা যেন ফিরিয়ে দিতে পারি তাঁকেই, ‘যেন আমরাই ওগুলি বলছি নজরুলকে লক্ষ্য করে।’ নজরুলের সৃষ্টিকর্ম প্রসঙ্গে নজরুল বিশেষজ্ঞ অধ্যাপক রফিকুল ইসলাম বলেন, নজরুল ইতিহাস ও সময় সচেতন মানুষ ছিলেন যার প্রভাব তাঁর লেখায় স্পষ্টভাবে পাওয়া যায়।

তিনি বলেন, তুরস্কে কামাল পাশার নেতৃত্বে প্রজাতন্ত্রের প্রতিষ্ঠা, রাশিয়ায় সমাজতান্ত্রিক বিপ্লব আর ভারতবর্ষে ব্রিটিশ বিরোধী আন্দোলনের তরঙ্গকে নজরুল তাঁর সাহিত্যে বিপুলভাবে ধারণ করেছেন। সেই সময়ে ধর্মান্ধ মানুষদের তিনি পুনর্জাগরণের ডাক দিয়েছেন এবং এ ক্ষেত্রে তাঁর ভূমিকা ছিল একজন বলিষ্ঠ নেতার মতো। জাতীয় কবি কাজী নজরুল ইসলাম ১৩০৬ সালের ১১ জ্যৈষ্ঠ পশ্চিমবঙ্গের বর্ধমান জেলার চুরুলিয়া গ্রামে জন্মগ্রহণ করেন। তাঁর ডাক নাম ‘দুখু মিয়া’। পিতার নাম কাজী ফকির আহমেদ ও মাতা জাহেদা খাতুন। বাংলা সাহিত্যে বিদ্রোহী কবি হিসেবে পরিচিত হলেও তিনি ছিলেন একাধারে কবি, সংগীতজ্ঞ, ঔপন্যাসিক, গল্পকার, নাট্যকার, প্রাবন্ধিক, সাংবাদিক, চলচ্চিত্রকার, গায়ক ও অভিনেতা। তিনি বৈচিত্র্যময় অসংখ্য রাগ-রাগিনী সৃষ্টি করে বাংলা সঙ্গীত জগতকে মর্যাদার আসনে অধিষ্ঠিত করেছেন। প্রেম, দ্রোহ, সাম্যবাদ ও জাগরণের কবি কাজী নজরুল ইসলামের কবিতা ও গান শোষণ-বঞ্চনার বিরুদ্ধে সংগ্রামে জাতিকে উদ্বুদ্ধ করেছে। মুক্তিযুদ্ধে তাঁর গান ও কবিতা ছিল প্রেরণার উৎস।

নজরুলের কবিতা, গান ও সাহিত্য কর্ম বাংলা সাহিত্যে নবজাগরণ সৃষ্টি করে। তিনি ছিলেন অসাম্প্রদায়িক চেতনার পথিকৃৎ লেখক। তাঁর লেখনি জাতীয় জীবনে অসাম্প্রদায়িক চেতনা বিকাশে ব্যাপক ভূমিকা পালন করে। তাঁর কবিতা ও গান মানুষকে যুগে যুগে শোষণ ও বঞ্চনা থেকে মুক্তির পথ দেখিয়ে চলছে। বাংলাদেশের স্বাধীনতার পর পরই জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান বিদ্রোহী কবি কাজী নজরুল ইসলামকে স্বপরিবারে সদ্যস্বাধীন বাংলাদেশে নিয়ে আসেন। রাষ্ট্রীয় মর্যাদায় বাংলাদেশে তাঁর বসবাসের ব্যবস্থা করেন। ধানমন্ডিতে কবির জন্য একটি বাড়ি প্রদান করেন।

প্রাথমিক ও ইবতেদায়ী সমাপনী শুরু ১৭ নভেম্বর
                                  

প্রাথমিক ও ইবতেদায়ী শিক্ষা সমাপনী পরীক্ষা শুরু হচ্ছে আগামী ১৭ নভেম্বর। পরীক্ষা শেষ হবে ২৪ নভেম্বর। প্রতিদিন সকাল সাড়ে ১০টায় পরীক্ষা শুরু হয়ে শেষ হবে দুপুর ১টায়। পরীক্ষার এই সময়সূচি আজ বৃহস্পতিবার প্রকাশ করেছে প্রাথমিক ও গণশিক্ষা মন্ত্রণালয়।

প্রাথমিক শিক্ষা সমাপনী

১৭ নভেম্বর রোববার ইংরেজি, ১৮ নভেম্বর সোমবার বাংলা, ১৯ নভেম্বর মঙ্গলবার বাংলাদেশ ও বিশ্ব পরিচয়, ২০ নভেম্বর বুধবার প্রাথমিক বিজ্ঞান, ২১ নভেম্বর বৃহস্পতিবার ধর্ম ও নৈতিক শিক্ষা এবং ২৪ নভেম্বর রোববার গণিত পরীক্ষা অনুষ্ঠিত হবে।

ইবতেদায়ী শিক্ষা সমাপনী

১৭ নভেম্বর রোববার অনুষ্ঠিত হবে ইংরেজি, ১৮ নভেম্বর সোমবার বাংলা, ১৯ নভেম্বর মঙ্গলবার বাংলাদেশ ও বিশ্ব পরিচয়, ২০ নভেম্বর বুধবার আরবি, ২১ নভেম্বর বৃহস্পতিবার কোরআন মজিদ ও তাজবিদ এবং আকাইদ ও ফিকহ এবং ২৪ নভেম্বর রোববার গণিত পরীক্ষা।

নির্ধারিত সময়ের পর বিশেষ চাহিদা সম্পন্ন পরীক্ষার্থীদের জন্য অতিরিক্ত ৩০ মিনিট সময় বেশি বরাদ্দ থাকবে বলে পরীক্ষার সময়সূচিতে উল্লেখ করা হয়েছে।

৬ষ্ঠ থেকে ৮ম শ্রেণিতে বাধ্যতামূলক হচ্ছে কর্মমুখী শিক্ষা
                                  

 সাধারণ শিক্ষার উভয় ধারায় (স্কুল ও মাদ্রাসা) ষষ্ঠ থেকে অষ্টম শ্রেণি পর্যন্ত কর্মমুখী প্রকৌশল শিক্ষা বাধ্যতামূলক করা হচ্ছে ২০২১ সাল থেকে। এ লক্ষ্যে ইতোমধ্যে পাঠ্যক্রম (সিলেবাস) প্রণয়ন সম্পন্ন হয়েছে। এর আওতায় বই সম্পাদনের কাজও চলছে। এ ছাড়া নবম-দশম শ্রেণিতে কারিগরি শিক্ষা বাধ্যতামূলক করতে কার্যক্রম শুরু হয়েছে। গতকাল বুধবার সংসদ ভবনে অনুষ্ঠিত শিক্ষা মন্ত্রণালয় সম্পর্কিত সংসদীয় স্থায়ী কমিটির বৈঠকে মন্ত্রণালয়ের পক্ষ থেকে এই তথ্য জানানো হয়েছে। সংসদীয় কমিটির গত বৈঠকে ষষ্ঠ থেকে দশম শ্রেণি পর্যন্ত কারিগরি শিক্ষা বাধ্যতামূলক করার সুপারিশ করা হয়। গতকাল বুধবার মন্ত্রণালয় সেই সুপারিশ বাস্তবায়ন অগ্রগতি কমিটিকে জানিয়েছে।

বৈঠকের কার্যপত্র থেকে জানা গেছে, ষষ্ঠ থেকে অষ্টম শ্রেণি পর্যন্ত সাধারণ শিক্ষা ব্যবস্থায় কারিগরি শিক্ষা বাধ্যতামূলক করার জন্য কর্মমুখী প্রকৌশল শিক্ষা ১, ২ ও ৩ নামক তিনটি বই প্রণয়নের জন্য সিলেবাস তৈরির কাজ সম্পন্ন হয়েছে। এখন চলছে বই সম্পাদনের কাজ। এছাড়া নবম-দশম শ্রেণির সব শাখায় (বিজ্ঞান/মানবিক/ব্যবসায় শিক্ষা) কারিগরি শিক্ষার বই বাধ্যতামূলক করার বিষয়ে বিশেষজ্ঞদের নিয়ে ওয়ার্কশপ করা হয়েছে। মন্ত্রণালয় আরও জানিয়েছে, ষষ্ঠ থেকে দশম শ্রেণি পর্যন্ত প্রাক-বৃত্তিমূলক ও বৃত্তিমূলক কোর্স চালুর জন্য সম্ভাব্য বাজেট প্রণয়ন করা হয়েছে, যা চূড়ান্তকরণের কার্যক্রম চলমান রয়েছে। বৈঠক শেষে কমিটির সভাপতি আফছারুল আমীনবলেন, আমরা আগের বৈঠকে সাধারণ শিক্ষায় কর্মমুখী শিক্ষা চালুর সুপারিশ করেছিলাম।

আজকের বৈঠকে মন্ত্রণালয় থেকে তার অগ্রগতি জানানো হয়েছে। তারা জানিয়েছে, ২০২১ সাল থেকে ষষ্ঠ, সপ্তম ও অষ্টম শ্রেণিতে কারিগরি শিক্ষা বাধ্যতামূলক করা হবে। এদিকে সংসদ সচিবালয়ের এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে জানানো হয়, প্রতিটি শ্রেণিতে প্রতি বছরের জন্য নির্ধারিত সিলেবাস শ্রেণি কার্যক্রমের মাধ্যমে নির্দিষ্ট সময়ে শেষ হয় কিনা তা নজরদারিতে রাখার সুপারিশ করেছে কমিটি। আফছারুল আমীনের সভাপতিত্বে বৈঠকে কমিটির সদস্য শিক্ষা উপমন্ত্রী মহিবুল হাসান চৌধুরী, একেএম শাহাজাহান কামাল, ফজলে হোসেন বাদশা, আবদুস সোবহান মিয়া এবং গোলাম কিবরিয়া টিপু অংশ নেন।

বৃষ্টি এলেই বাজে ছুটির ঘন্টা দেখার কেউ নেই
                                  

 আমতলী পৌর শহরের ৩ নং ওয়ার্ডের খোন্তাকাটা এলাকার বেগম নুরজাহান সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়ে বৃষ্টি এলেই বাজে ছুটির ঘন্টা। বছরের পর বছর এ অবস্থায় বিদ্যালয়ে পাঠদান চললেও সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষ কোন পদক্ষেপ নিচ্ছে না এমনটাই জানালো প্রধান শিক্ষিকা নাসরিত সুলতানা। জানাগেছে, আমতলী পৌরসভার ৩ নং ওয়ার্ডের খোন্তাকাটা এলাকায় ২০০৮ সালে বেগম নুর জাহান সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয় স্থাপিত হয়। ওই সময় থেকে স্থানীয় লোকজনের সহযোগীতায় একটি টিন শেটের ভবন তুলে চালিয়ে আসছে পাঠদান।

২০১৭ সালে বন্যায় স্কুল ভবনটি ভেঙ্গে যায়। ওই সময় আবার স্থানীয় লোকের সহযোগীয়তায় পুনরায় টিন শেটের ছাপড়া ঘর নির্মাণ করে। ওই ছাপড়া ঘরটি বর্তমানে জীর্ণশীর্ণ অবস্থায় পড়ে আছে। ওই ছাপড়া ঘরেই গত তিন বছর ধরে পাঠদান করাচ্ছেন। বৃষ্টি এলেই জলাবদ্ধতার সৃষ্টি হয়ে বিদ্যালয় ভবন এবং টিনের চালা দিয়ে পানি পড়ে শ্রেনী কক্ষ তলিয়ে যায়। নিরুপায় হয়ে শিক্ষকদের বিদ্যালয় ছুটি দিতে হয়। এতে ব্যহত হচ্ছে বিদ্যালয়ের পাঠদান। এছাড়াও ওই বিদ্যালয়ে প্রবেশ করতে কোন রাস্তা নেই। বিদ্যালয় ঢুকতে কাঁদা ও হাঁটু সমান পানি ডিঙ্গিয়ে যেতে হয়। চারিপাশে পানিতে ভরপুর। বিদ্যালয়ের এ জীর্ণশীর্ণ ও দুরাবস্থার কথা আমতলী প্রাথমিক শিক্ষা অফিস কর্তৃপক্ষকে জানালেও তারা সংস্কারের কোন উদ্যোগ নিচ্ছেন না।
রোববার সরেজমিনে গিয়ে দেখাগেছে, বিদ্যালয়ে ভবনের ভিতরে পানিতে থই থই করছে। ভবনটির চারিপাশে পানি। চেয়ার টেবিলগুলো পানির মধ্যে দাড়ানো। শ্রেনী কক্ষে পাঠদানের কোন পরিবেশ নেই।


বিদ্যালয়ের শিক্ষার্থী নসরাত, জিহাদ, জিদনি, বাতাসি ও আসলাম জানান, বৃষ্টি এলেই বিদ্যালয়ের টিনের চালা দিয়ে পানি পড়ে শ্রেনী কক্ষ তলিয়ে যায়। তারা আরো জানান, বিদ্যালয়ের ঢোকার রাস্তা নেই। হাঁটু সমান পানি ডিঙ্গিয়ে বিদ্যালয়ে ঢুকতে হয়। দ্রুত ভবন নির্মাণসহ বিদ্যালয়ের সকল সমস্যা সমাধানের জন্য প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার কাছে দাবী জানাই।
বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষিকা মোসাঃ নাসরিন সুলতানা বলেন, গত তিন বছর ধরে রোধ-বৃষ্টি উপেক্ষা করে এই ছাপড়া ঘরে পাঠদান করাতে হচ্ছে। বৃষ্টি এলেই পানিতে বিদ্যালয়ের চারিপাশ ও শ্রেনী কক্ষ তলিয়ে যায়। ক্লাস করানোর মত কোন পরিবেশ থাকে না। বিদ্যালয়ের এ বিষয়টি উপজেলা শিক্ষা অফিসকে জানিয়েছি কিন্তু তারা কোন পদক্ষেপ নিচ্ছেন না। দ্রুত বিদ্যালয় ভবন নির্মাণের দাবী জানাই।


আমতলী উপজেলা শিক্ষা কর্মকর্তা মোঃ মজিবুর রহমান বলেন, বিদ্যালয় ভবন নির্মাণ একান্তই প্রয়োজন। তিনি আরো বলেন, ওই বিদ্যালয়ে পাঠদান উপযোগী করার লক্ষে বরাদ্দ চেয়ে অধিদপ্তরে পত্র পাঠিয়েছি। দ্রুত সময়ের মধ্যে বরাদ্দ পেলে সংস্কার করা হবে।

 

কুবির ভর্তি পরীক্ষার আবেদন শুরু ১ সেপ্টেম্বর
                                  

 কুমিল্লা বিশ্ববিদ্যালয়ের ২০১৯-২০ শিক্ষাবর্ষের স্নাতক (সম্মান) শ্রেণির ভর্তি পরীক্ষার আবেদন শুরু হবে আগামি ০১ সেপ্টেম্বর (রোববার) থেকে। চলবে ৩০ সেপ্টেম্বর পর্যন্ত। গতকাল সোমবার সকালে বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য অধ্যাপক ড. এমরান কবির চৌধুরীর সভাপতিত্বে কেন্দ্রীয় ভর্তি পরীক্ষা কমিটির সভায় এ সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়।


জানা যায়, আগামি ০১ সেপ্টেম্বর থেকে ৩০ সেপ্টেম্বর পর্যন্ত দিনরাত যেকোন সময় এমনকি বন্ধের দিনও ভর্তি পরীক্ষার আবেদন করা যাবে। এছাড়াও সভায় আগামি ৮ নভেম্বর (শুক্রবার) সকাল ১০টায় ‘এ’ ইউনিট ও বিকেল ৩টায় ‘বি’ ইউনিট এবং ৯ নভেম্বর (শনিবার) সকাল ১০টায় ‘সি’ ইউনিটের ভর্তি পরীক্ষা অনুষ্ঠিত হওয়ার সময়সূচি নির্ধারণ করা হয়েছে। ভর্তি পরীক্ষা সংক্রান্ত বিস্তারিত তথ্যাদি বিভিন্ন গণমাধ্যম ও বিশ্ববিদ্যালয়ের ওয়েবসাইটে বিজ্ঞপ্তি প্রকাশের মাধ্যমে জানানো হবে।

 

মনের সুখই আসল সুখ বা অপরকে সুখী করানোই প্রকৃত সুখ
                                  

নজরুল ইসলাম তোফা:

মানুষের এই জগত জীবন অতি সংক্ষিপ্ত জীবন। তাদের আছে দুঃখ-কষ্ট, সুখ-শান্তি, আশা-ভরসা, সফলতা বা বিফলতার জীবন। এরই মধ্যে জীবনের নানা অপূূর্ণতাকে নিয়েই মানুষ অভিযোগ কিংবা ক্ষোভও প্রকাশ করে থাকে। তারা জীবন যাপনের অংশে যেন অনন্ত আশা-আকাঙ্ক্ষা নিয়ে আফসোস করে। তারা কোনোদিন তা পরিপূর্ণ করতে পারে না বা কোনো দিনই পরিতৃপ্ত হতে পারে না। কেউ কেউ খুব কঠোর পরিশ্রম করে সফল হলে বলতেই হয়, তা সৃষ্টিকর্তারই নিয়ামত। আসলে সুখ-শান্তির প্রত্যাশা হলো- মানুষদের সহজাত প্রবণতার একে বারেই ভিন্ন দিক। তাকে জোর জবরদস্তি করে কখনোই আদায় করা যায় না। ইসলাম চেয়েছে দেহ এবং মনের প্রয়োজন সমভাবে পূরণ করতে পারলে মানুষ পেতে পারে সুখের সন্ধান। তার জন্য মানুষের বিজ্ঞতার আলোকেই পরিশ্রম করা প্রয়োজন। সমগ্র পৃথিবীতে এমন কাউকেই পাওয়া যাবে না যে, তারা সুখী হতে চায় না। আসলে যার যা চিন্তা চেতনাতেই যেেন সুখী হতে চায়। অনেকেভাবে অর্থকড়ি, শিক্ষা-দীক্ষা, বিবাহ, সন্তান-সন্ততি, পরিবার, সামাজিক বা অর্থনৈতিক প্রতিপত্তি মানুষকে অনেক `সুখী` করতে পারে। সমগ্র বিশ্বের বিভিন্ন দেশে জরিপ করে দেখা গেছে, এ সকল অর্জন আসলে মানব জাতিকে সুখী করতে পারে না। লাখ লাখ মানুষদের জন্যেই প্রকৃত সুখ যেন হয় যায় সোনার হরিণ।

সারাদুনিয়া খুব সুন্দর এবং তাকে উপভোগ বা সুখ-শান্তির জন্য মানুষের আছে স্বাধীনতা। এই দুনিয়াকে যেমন পেয়েছে মানুষ। তেমনি সেখানেই অনেক সুখ লাভের প্রকৃৃত পন্থাকে সৃষ্টি করেছে মহান সৃষ্টি কর্তা। এই মানুষদের আনন্দ, ভোগ-বিলাস অথবা সৌন্দর্য উপভোগে যেন আল্লাহ তায়া’লার পক্ষ থেকে আছে প্রতিদান। তার কাছে এ দুনিয়া আখেরাতের সাথেই সম্পৃক্ত, দৈহিক ও শারীরিক আনন্দ উপভোগ করা অন্তরের আনন্দের সাথেই যেন যুক্ত। তাই দুনিয়াতে ভোগের মাধ্যমেই অর্জিত সুখ কিংবা শান্তি মানুষের অভ্যন্তরীণ পরিতুষ্টি কিংবা প্রশান্তির সাথেই সম্পৃক্ত থাকে। আবার যারা মনে করে যে `সুখ` হয়তো গাড়ি, বাড়ি, অলঙ্কার, কাপড় চোপড় কিংবা ধন-দৌলতের মধ্যে আছে। কিন্তু এই সব প্রাপ্তি মানুষকে সাময়িক ভাবে কিছুটা সুখ দিতে পারলেও যেন প্রকৃত পক্ষেই স্থায়ী সুখ প্রাপ্তির জন্য এধরণের বহু চাহিদাগুলোও বড় ভূমিকা পালন করে না। এমন কথাগুলো সমাজ বিজ্ঞানী, মনোবিজ্ঞানী বা চিকিৎসা বিজ্ঞানীরাই মনে করে থাকে। মনোবিজ্ঞানীরা বলেন, সুখ বৈষয়িক বা জাগতিক কোনো ব্যাপার নয়। সুখটা হল বহুলাংশে মনস্তাত্ত্বিক বা আধ্যাত্মিক ব্যাপার। সুখপ্রাপ্তির জন্য আসলেই কোনো `শর্টকাট পদ্ধতি কিংবা রাস্তা` নেই। পৃথিবীর সবচেয়ে সুখী মানুষ দিনের চব্বিশ ঘণ্টাতে সুখী হিসেবে থাকে না। তাদের জীবনে যেন- হতাশা, দুঃখ-কষ্ট আছে। পার্থক্য হলো সুখী মানুষরা হতাশা, দুঃখ-কষ্টকে সহজভাবে গ্রহণ করতে পারে। অন্যরা তা পারেন না। মানব শরীরটা শুধুই রক্ত-মাংসে গড়া কোনো জড়বস্তু নয়। আছে আত্মা যা কিনা শরীরের অবিচ্ছেদ্য অংশ। আবেগ-অনুভূতিই শরীরের ওপর প্রচণ্ড প্রভাব ফেলে। বস্তু জগতে কাম, ক্রোধ, লোভ-লালসা, মোহ, মাৎসর্য, ঈর্ষা ও প্রতিহিংসা আমাদের দুঃখ, কষ্ট, অশান্তি, অসুখ এবং ধ্বংসের মূলকারণ। মানুষ তার সততা, সৎ কর্ম বা অটল সৃষ্টিকর্তা প্রীতি দ্বারা উল্লিখিত বদগুণ থেকে নিজকে দূরে রেখে এই পার্থিব জীবনে পরম স্বর্গসুখ লাভ করতে পারে।

একসময়ে মনে হতো সুখের চেয়ে শান্তি ভালো। সেই সময়েই মানুষ, সুখ আর শান্তিকে কখনো এক করে দেখতে চায়নি। কিন্তু এখন মনে হয় শান্তি ছাড়া সুখ ভোগ সম্ভব নয়। আর সুখ ছাড়া জীবনে যেন `শান্তি` আসতেই পারে না। "সুখ আর শান্তি" দুটোই আলাদা শব্দ। এদের অর্থের মধ্যে যেন বিস্তর পার্থক্য আছে। কিন্তু বাস্তবে ``সুখ বা শান্তি" চলে যেন একে অপরের সঙ্গে অঙ্গাঙ্গী ভাবে। সুখ শব্দটি মানুষের দেহনির্ভর। আর শান্তি শব্দটি সে মানুষের মননির্ভর হয়ে থাকে। সুতরাং বাস্তবে শরীরের অস্তিত্বকে বাদ দিয়ে- মনের অস্তিত্বের কথা ভাবা খুবই কঠিন। সারাজীবন মানুুষ বাঁচে নিজ শরীরকে নিয়ে। আবার মৃত্যুতেই শরীরের আর কোনো প্রয়োজন থাকে না, ফুরায় সুখ-দুঃখের অনুভব। মনো বিজ্ঞানীরা বলে, সুখ হলো জেনেটিক বা বংশানুগতিসম্বন্ধীয়। আবার বেশকিছু বিজ্ঞানীরা তাদের বৈজ্ঞানিক আবিষ্কারের সূত্র ধরে বলে, তারা মস্তিষ্কের এমন কিছু অংশ নির্ণয় করেছে, আর যেন যেখান থেকেই `সুখ নিঃসৃত` হয়। জনপ্রিয় স্কাউটের জনক রবার্টস্টিফেনসন স্মিথলর্ড় ব্যাডেন পাওয়েল অব গিলওয়েল বলেছেন-- "সুখ লাভের প্রকৃত পন্থা হলো অপরকে সুখী করা"। এমন সুন্দর পৃথিবীটাকে যেমন পেয়েছো তারচেয়ে একটু শ্রেষ্ঠতর কিছু রেখে যাওয়ার চেষ্টাও করো, তোমাদের মৃত্যুর পালা যখন আসবে তখন সানন্দে এই অনুভুতি নিয়ে `মৃত্য বরন` করতে পারবে। তুমি অন্তত জীবন নষ্ট করনি কিংবা সাধ্য মতই সদ্ব্যবহার করেছ। তাই এমন ভাবেই সুখে বাঁচতে ও সুখে মরতে প্রস্তুত থাকা প্রতিটি মানুষেরই উচিত। আর হিংস্রতাকে পরিত্যাগ করতে না পারলে মানব জাতি কখনোই পেতে পারে না `শান্তি`। মানুষে মানুষে দ্বন্দ্ব-সঙ্ঘাতেই দুঃখের বড় কারণ। 

হার্ভার্ডের এক মনো বিজ্ঞানী ড্যান গিলবার্ট বলেছে, নিজস্ব সুখ নিজেকেই সংশ্লেষণ করতে হবে। শরীরে মনস্তাত্ত্বিক একটি ইম্মিউন সিস্টেম রয়েছে যা কিনা তোমার পারিপার্শ্বিকতা বা তোমার বিশ্বকেই জানতে ও বুঝতে সাহায্য করার মাধ্যমে তোমাকে সুখী করে তুলবে। নতুন নতুন কাপড়-চোপড় ক্রয় করা কিংবা `লটারির অগাধ টাকা` অর্জনে তোমার জীবনের সব দুঃখ দূর করে অনাবিল আনন্দ ও সুখ বয়ে আনবে, এই ধরনের কল্পনা মানুষের চিন্তা শক্তিকে ভুল পথে পরিচালিত করে। `মিশিগানের হোপ` কলেজের এক সাইকোলজি বিভাগের প্রফেসর ডেভিড মায়ারেরই উক্তিমতে, জেনেটিক বা বংশানুগতি সম্বন্ধীয় তত্ত্বের ভিত্তিতে- যে যাই বলে থাকুক না কেন, মানুষের সুখ অনেকাংশেই `নিজস্ব নিয়ন্ত্রণাধীন একটি অনুভূতি`।এ `সুখ` অনেকটা মানুষের কোলেস্টেরল লেভেলের মতো, যা জেনেটিক্যালি প্রভাবান্বিত, আবার বেশির ভাগ ক্ষেত্রে যেন মানুষের আচার-আচরণ বা লাইফ স্টাইল ও খাদ্যাভ্যাস দ্বারা নিয়ন্ত্রিত। জানা দরকার, 
সুখের বিপরীত শব্দটা হলো অসুখ। যে সুখী নয় সে সুস্থও নয়। অসুখ হতে পারে শারীরিক বা মানসিক। শারীরিক অসুস্থতায় ভুগলেও মানুষের জীবনে `সুখ` থাকে না। তবুও ওষুধ প্রয়োগের মাধ্যমেই- শারীরিক অসুস্থতা বহুলাংশেই সারানো যায়। কিন্তু মানুষ যদি মানসিক অসুস্থতার শিকার হয়, তখন জীবনে নেমে আসে বিপর্যয়। কারণ, মানসিক রোগ যেন পৃথিবীর সবচেয়ে জটিল রোগ। সুতরাং সুখকে মাঝে মাঝেই এক ধরনের স্বার্থিক উদ্দেশ্য মনে করা হয়। মানুষের কী আছে- তার ওপর সুখ নির্ভর করে না। মানুষ কী ভাবে তার ওপর সম্পূর্ণ ভাবে যেন সুখ নির্ভর করে। এককথায় যদি বলা হয় তাহলে, যার যা আছে এবং যে অবস্থায় আছে, তার জন্যেই মানুষকে শোকরিয়া জানিয়ে যদি দিন শুরু করা হয়- তাতে সুখ আসবে। মানুষ যখন যা ভাবছে তার ওপর ভিত্তি করেই- তার ভবিষ্যতের সুখ আসতে পারে। সুতরাং কাজ-কর্ম ও চিন্তা ধারায় পজিটিভ অ্যাপ্রোচ নিয়ে জীবনটা শুরু করলে সুফল আসবে এবং সুখী হবে। আত্মবিশ্বাসে বিশ্বাসী, জ্ঞানী-গুণী, মর্যাদাবান, হৃদয়বান এবং সৎ মানুষ সাধারণত সব সময় সুখী হয়। যারা শুধু নিতে চায়, দিতে জানে না বা চায় না, তারা সুখী হয় না।

মহান সৃষ্টি কর্তার ওপর যার বিশ্বাস যত দৃঢ় হয়, এই বস্তু জগতে তিনিই তত সুখী। `সুস্থ, সুন্দর এবং সুখী` জীবনযাপনের জন্যেই প্রকৃতিতে হাজারও নিয়ামত রয়েছে। জ্ঞান-বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি গত উন্নয়নের ফলে বা বিশ্বাস প্রক্রিয়ার প্রভাবেই যেন `প্রাকৃতিক জীবন` থেকে সরে এসে কৃত্রিম, অসুস্থ, ক্ষতিকর বা অসুখী জীবনধারণের প্রতিই ঝুঁকে পড়ছে মানুষ। প্রাকৃতিক জীবনযাত্রা থেকে বিচ্ছিন্ন হয়ে যাওয়ার কারণে যেন বিশ্বজুড়েই লাখো-কোটি মানুষের শরীর, মন কিংবা আত্মার ওপর প্রচণ্ড নেতিবাচক প্রভাব পড়ছে। তাই প্রাকৃতিক উপায় অবলম্বন করার মাধ্যমেই- মানুষরা অতি সহজে সুস্থ, সুন্দর ও সুখী জীবনের অধিকারী হতে পারে। জানা যায় যে পৃথিবীর শীর্ষস্থানীয় ধনীর মধ্যে অন্যতম হল যুক্তরাষ্ট্রের ওয়ারেন বাফেট। তাঁর কাজ-কর্ম, টাকা-পয়সা, সুখ-শান্তি বা জীবনদর্শনের অনেক গল্প প্রচলিত থাকলেও কিছুটা জানি কিছুটা জানি না। `ওয়ারেন বাফেট` কোনো সময়ে ব্যক্তিগত বিমানে চড়েনি। তিনিই বিশ্বের সর্ব বৃহৎ মালিকানার একটি জেট কোম্পানির মালিক। তিনি পঞ্চাশ বছর আগে কেনা ৩ কক্ষ বিশিষ্ট একটি বাড়িতেই বসবাস করে। আর তিনি সেই বাসায় অনলাইন ব্রিজ খেলে অপরিসীম `আনন্দ লাভ ও সুখ` ভোগ করে থাকেন। অবিশ্বাস্য শোনালেও এমন কথা গুলো সত্যি কিংবা অনুপ্রেরণাদায়ক। সারা বিশ্বের বিশাল ধন সম্পদের মালিক পরম সুখী ওয়ারেন বাফেট মনে করেন, ধন-দৌলত নয়, মনের সুখই আসল সুখ কিংবা অন্যকে সুখী করবার মধ্যেও "প্রকৃত সুখ" রয়েছে।

লেখকঃ 
নজরুল ইসলাম তোফা, টিভি ও মঞ্চ অভিনেতা, চিত্রশিল্পী, সাংবাদিক, কলামিষ্ট এবং প্রভাষক।

 
 
একবেলা খাবার পাবে প্রাথমিকের শিক্ষার্থীরা
                                  

আগামী ২০২৩ সালের মধ্যে দেশের সব সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীকে এক বেলা খাবার দেওয়া হবে। খাবারের তালিকায় শিক্ষার্থীরা বিস্কুট, কলা এবং রান্না করা খাবার বা ডিম খেতে পাবে। আজ সোমবার এই ব্যবস্থা রেখে ‘জাতীয় স্কুল মিল নীতি ২০১৯’ এর খসড়া অনুমোদন দিয়েছে মন্ত্রিসভা।

তেজগাঁওয়ে প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ে অনুষ্ঠিত বৈঠকে এই নীতির খসড়া অনুমোদন দেওয়া হয়েছে। বৈঠকে সভাপতিত্ব করেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। পরে সচিবালয়ে সংবাদ সম্মেলন করে সভার সিদ্ধান্ত জানান মন্ত্রীপরিষদ সচিব মোহাম্মদ শফিউল আলম।

সংবাদ সম্মেলনে প্রাথমিক ও গণশিক্ষা মন্ত্রণালয়ের অতিরিক্ত সচিব গিয়াস উদ্দিন আহমেদ বলেন, ‘খাবার দেওয়ার ফলে দেখা যাচ্ছে বিদ্যালয়ে শিক্ষার্থীদের উপস্থিতি বেড়েছে। এর মধ্যে রান্না করা খাবার দিলে ১১ শতাংশ উপস্থিতি বৃদ্ধি পায়। আর বিস্কুট দিলে ৬ শতাংশ বৃদ্ধি পায়।’

তিনি বলেন, ‘সরকারি পরিকল্পনা হলো, যে এলাকায় যে ধরনের খাবারের প্রয়োজন সে ধরনের খাবার দেওয়া হবে। প্রতিদিন একই খাবার না দিয়ে খাবারে বৈচিত্র্য থাকবে।’

বর্তমানে পরীক্ষামূলকভাবে দেশের ১০৪টি উপজেলার ১৫ হাজার ৩৪৯টি বিদ্যালয়ে এই খাবার দেওয়া হচ্ছে। এর মধ্যে তিনটি উপজেলায় রান্না করা খাবার দেওয়া হচ্ছে। বাকিগুলোতে বিস্কুট দেওয়া হচ্ছে। বর্তমানে সারা দেশে প্রাথমিক বিদ্যালয় আছে প্রায় ৬৬ হাজার।

বৈঠকে প্রতিবন্ধী শিক্ষার্থীদের জন্য শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান করতে নীতিমালার খসড়া অনুমোদন দেওয়া হয়েছে। এই নীতিমালা অনুযায়ী কমপক্ষে ৭৫ জন প্রতিবন্ধী শিক্ষার্থী হলে প্রতিবন্ধী শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান করার সুযোগ রাখা হয়েছে।  এসব শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে প্রতি পাঁচজন শিক্ষার্থীর জন্য একজন শিক্ষক নিয়োগ করা হবে। 


   Page 1 of 59
     শিক্ষা-সাহিত্য
এমবিবিএস ভর্তি পরীক্ষা পিছিয়ে ১১ অক্টোবর
.............................................................................................
ঢাবির ‘চ’ ইউনিটের ভর্তি পরীক্ষা আজ
.............................................................................................
দক্ষ নিউক্লিয়ার ইঞ্জিনিয়ার গড়ে তোলার তাগিদ বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি মন্ত্রীর
.............................................................................................
শিক্ষার্থীদের শান্তিকামী মানুষ হিসেবে গড়ে তুলতে হবে: মহিবুল
.............................................................................................
ঢাবির ভর্তি পরীক্ষায় এবার প্রতি আসনে লড়বেন ৩৯ জন
.............................................................................................
রাবির ভর্তি পরীক্ষার আবেদন শুরু হচ্ছে আজ
.............................................................................................
এমবিবিএস ভর্তি পরীক্ষা: আজ থেকে মেডিকেল কোচিং বন্ধ রাখার নির্দেশ
.............................................................................................
বরিশালের সেই ১৮ পরীক্ষার্থীসহ ১৯ জনের বিরুদ্ধে মামলা
.............................................................................................
বর্ধিত ফি আদায়কারী কলেজের তালিকা চাইলেন শিক্ষামন্ত্রী
.............................................................................................
জাতীয় কবি কাজী নজরুল ইসলামের ৪৩তম মৃত্যুবার্ষিকী আজ
.............................................................................................
প্রাথমিক ও ইবতেদায়ী সমাপনী শুরু ১৭ নভেম্বর
.............................................................................................
৬ষ্ঠ থেকে ৮ম শ্রেণিতে বাধ্যতামূলক হচ্ছে কর্মমুখী শিক্ষা
.............................................................................................
বৃষ্টি এলেই বাজে ছুটির ঘন্টা দেখার কেউ নেই
.............................................................................................
কুবির ভর্তি পরীক্ষার আবেদন শুরু ১ সেপ্টেম্বর
.............................................................................................
মনের সুখই আসল সুখ বা অপরকে সুখী করানোই প্রকৃত সুখ
.............................................................................................
একবেলা খাবার পাবে প্রাথমিকের শিক্ষার্থীরা
.............................................................................................
ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে স্নাতক ভর্তির আবেদন কার্যক্রম শুরু
.............................................................................................
চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়ে ভর্তি পরীক্ষা শুরু ২৬ অক্টোবর থেকে
.............................................................................................
২০১৯ সালের জেএসসি পরীক্ষা ও কেন্দ্র ফি ২৫০ টাকা
.............................................................................................
ফরিদগঞ্জে জিপিএ ৫ প্রাপ্ত শিক্ষার্থীদের নূর মোহাম্মদ শিক্ষা ফাউন্ডেশনের বৃত্তি প্রদান
.............................................................................................
জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয়ে ভর্তির আবেদন শুরু ১ আগস্ট থেকে
.............................................................................................
৪০তম বিসিএস প্রিলিমিনারিতে উত্তীর্ণ ২০ হাজার ২৭৭
.............................................................................................
৭ কলেজের সমস্যা সমাধানে উদ্যোগ নেওয়া হবে: ঢাবি উপ-উপাচার্য
.............................................................................................
১২জন সেরা মেধাবীর হাতে পুরস্কার তুলে দিলেন প্রধানমন্ত্রী
.............................................................................................
প্রকাশিত হলো এইচএসসি ও সমমানের পরীক্ষার ফল, গড় পাসের হার ৭৩.৯৩%
.............................................................................................
এইচএসসি পরীক্ষার ফল ১৭ জুলাই
.............................................................................................
শিক্ষা বোর্ডও বাতিল করল ভিকারুননিসায় অধ্যক্ষ নিয়োগ প্রক্রিয়া
.............................................................................................
বৃষ্টিতে ভিজেই অনশনে জবির শিক্ষার্থীরা
.............................................................................................
জেএসসি পরীক্ষা ২ নভেম্বর ও এসএসসি শুরু ১ ফেব্রুয়ারি
.............................................................................................
কোচিং সেন্টারের স্থাপনের আগে সরকারের পূর্বানুমোদন নিশ্চিতের পরামর্শ
.............................................................................................
প্রশ্ন ফাঁসের অভিযোগ: নেত্রকোণার ১১ শিক্ষক বরখাস্ত
.............................................................................................
প্রশ্নফাঁস: ঢাবি শিক্ষার্থীসহ ৭৮ জনের বিরুদ্ধে গ্রেফতারি পরোয়ানা
.............................................................................................
বিনামূল্যে বিতরণে মাধ্যমিকের ১৭ কোটি ১৯ লাখ বই ছাপাবে সরকার
.............................................................................................
চাকরির জন্য ঘুরতে ঘুরতে বয়স শেষ, অনশনে মাস্টার্স পাস প্রতিবন্ধী
.............................................................................................
এইচএসসির ফল প্রকাশের সম্ভাব্য তারিখ
.............................................................................................
ওয়ার্ল্ড র‌্যাংকিংয়ে ৮০১তম স্থানে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়
.............................................................................................
১৬দফা দাবিতে বুয়েট শিক্ষার্থীদের আন্দোলন অব্যাহত
.............................................................................................
১৬ দাবিতে বুয়েট শিক্ষার্থীদের বিক্ষোভ
.............................................................................................
কানাইঘাট স্টুডেন্ট এসোসিয়েশনের পৌর শাখা গঠিত
.............................................................................................
গণিতকে সহজ ও বোধগম্য করতে সমন্বিত প্রয়োজন উদ্যোগ: শিক্ষা উপমন্ত্রী
.............................................................................................
একাদশে প্রথম পর্যায়ে ভর্তির জন্য মনোনীত ১৩ লাখ ১৮ হাজার ৮৬৬ জন
.............................................................................................
বাংলাদেশের উচ্চশিক্ষার ওপর জরিপ করবে জাইকা
.............................................................................................
সাধারণ শিক্ষায় যুক্ত হচ্ছে ভোকেশনাল কোর্স
.............................................................................................
শিক্ষক নিবন্ধন পরীক্ষায় ৮০ শতাংশই অকৃতকার্য
.............................................................................................
এসএসসি ও সমমানের পরীক্ষার ফলে সন্তুষ্ট না হয়ে উত্তরপত্র পুনঃমূল্যায়নের জন্য রেকর্ড সংখ্যক আবেদন!
.............................................................................................
একাদশ-দ্বাদশ কোর্সে ভর্তির আবেদন শুরু কাল থেকে
.............................................................................................
চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়ে ৩৪ দিনের ছুটি শুরু হচ্ছে রোববার
.............................................................................................
একাদশে ভর্তিতে কলেজগুলোকে ভাগ করা হবে
.............................................................................................
৪৫ পাবলিক বিশ্ববিদ্যালয়ের জন্য ৮ হাজার ৮৮ কোটি টাকার বাজেট অনুমোদন
.............................................................................................
১০৭ প্রতিষ্ঠানে সবাই ফেল
.............................................................................................

|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
স্বাধীন বাংলা মো. খয়রুল ইসলাম চৌধুরী কর্তৃক সম্পাদিত ও ঢাকা-১০০০ হতে প্রকাশিত
প্রধান উপদেষ্টা: ফিরোজ আহমেদ (সাবেক সচিব, বাণিজ্য মন্ত্রণালয়)
উপদেষ্টা: আজাদ কবির
সম্পাদক মন্ডলীর সভাপতি: ডাঃ হারুনুর রশীদ
সম্পাদক মন্ডলীর সহ-সভাপতি: মামুনুর রশীদ
ব্যবস্থাপনা সম্পাদক : মো: খায়রুজ্জামান
যুগ্ম সম্পাদক: জুবায়ের আহমদ
বার্তা সম্পাদক: মুজিবুর রহমান ডালিম
স্পেশাল করাসপনডেন্ট : মো: শরিফুল ইসলাম রানা
যুক্তরাজ্য প্রতিনিধি: জুবের আহমদ
যোগাযোগ করুন: swadhinbangla24@gmail.com
    2015 @ All Right Reserved By swadhinbangla.com

Developed By: Dynamicsolution IT [01686797756]