বৃহস্পতিবার , ১৬ রবিঃ আউয়াল ১৪৪১ | ১৪ নভেম্বর ২০১৯ | ২৯ কার্তিক ১৪২৬ বাংলার জন্য ক্লিক করুন
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|

   এক্সক্লুসিভ -
                                                                                                                                                                                                                                                                                                                                 
সবার জন্য পেনশন ব্যবস্থা চালু করতে চায় সরকার: পরিকল্পনামন্ত্রী

দেশের সরকারি ও বেসরকারি পর্যায়ের কর্মীদের অর্থনৈতিক নিরাপত্তার বিষয়টি নিয়ে সরকার কাজ করছে বলে জানিয়েছেন পরিকল্পনামন্ত্রী এম এ মান্নান। তিনি বলেন, সরকার সবার জন্য পেনশন ব্যবস্থা চালু করতে চায়। এজন্য কাজ শুরু হয়েছে। সর্বজনীন পেনশন চালুর ক্ষেত্রে ব্যক্তিগত অর্থ সংস্থানেরও কথা ভাবা হচ্ছে। গতকাল বুধবার রাজধানীর একটি হোটেলে ‘ইন্ট্রোডিউসিং অ্যা ইউনিভার্সাল পেনশন স্কিম ইন বাংলাদেশ: ইন সার্চ অব অ্যা ফ্রেমওয়ার্ক’ শীর্ষক এক সংলাপে তিনি এসব কথা বলেন। সংলাপের আয়োজন করে সেন্টার ফর পলিসি ডায়ালগ (সিপিডি) ও অক্সফাম ইন বাংলাদেশ।

সংলাপে বাংলাদেশের নাগরিকদের জন্য একটি ‘সর্বজনীন পেনশন স্কিম’ চালু করার সুযোগ, প্রয়োজনীয় নীতি ও প্রাতিষ্ঠানিক সংস্কার এবং সংশ্লিষ্ট চ্যালেঞ্জসমূহ নিয়ে আলোচনা হয়। এম এ মান্নান বলেন, আমার জানা মতে, অর্থমন্ত্রণালয়ের ভেতরে ছোট একটি সেল আছে, যারা সবার জন্য পেনশন চালুর বিষয়ে প্রাথমিক কাজ শুরু করেছে। বক্তব্যে সর্বজনীন পেনশন কীভাবে বাস্তবায়ন করা যায়, অন্য দেশগুলো কীভাবে এটা চালাচ্ছে, অর্থের সংস্থান কীভাবে করা যায়, আয়োজকদের কাছে এ ধরনের বুদ্ধিবৃত্তিক পরামর্শ চান পরিকল্পনামন্ত্রী। এসময় তিনি সর্বজনীন পেনশন চালুর ক্ষেত্রে ব্যক্তিগত অর্থ সংস্থানের প্রস্তাবও করেন। পরিকল্পনামন্ত্রী বলেন, সবাই এখানে অংশ নিতে পারবে না।

আমাদের এখনও ১১-১২ শতাংশ মানুষ আছে, যাদের আমরা হতদরিদ্র বলি। যাদের কোনও নিট আয় নাই। আমাদের রাজনৈতিক শক্তির প্রথম টার্গেট ওই নিচের ১১-১২ ভাগ মানুষকে টেনে ওপরে আনা। তারা কন্ট্রিবিউট করতে পারবে না, তাই আসতে পারবে না, সেই ধরনের চিন্তায় আমরা যাবো না। সংলাপে পরিকল্পনা মন্ত্রণালয় সম্পর্কিত সংসদীয় স্থায়ী কমিটির সভাপতি আবুল কালাম আজাদ বলেন, বাংলাদেশের নাগরিকদের জন্য একটি ‘সর্বজনীন পেনশন স্কিম’ চালু করার জন্য এখনই উপযুক্ত সময়। সংলাপে অন্যান্যের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন, বিশ্ব ব্যাংকের সাবেক লিড ইকোনমিস্ট ড. জাহিদ হোসেন, সিপিডির বিশেষ ফেলো দেবপ্রিয় ভট্টাচার্য ও অধ্যাপক মুস্তাফিজুর রহমান প্রমুখ।

সবার জন্য পেনশন ব্যবস্থা চালু করতে চায় সরকার: পরিকল্পনামন্ত্রী
                                  

দেশের সরকারি ও বেসরকারি পর্যায়ের কর্মীদের অর্থনৈতিক নিরাপত্তার বিষয়টি নিয়ে সরকার কাজ করছে বলে জানিয়েছেন পরিকল্পনামন্ত্রী এম এ মান্নান। তিনি বলেন, সরকার সবার জন্য পেনশন ব্যবস্থা চালু করতে চায়। এজন্য কাজ শুরু হয়েছে। সর্বজনীন পেনশন চালুর ক্ষেত্রে ব্যক্তিগত অর্থ সংস্থানেরও কথা ভাবা হচ্ছে। গতকাল বুধবার রাজধানীর একটি হোটেলে ‘ইন্ট্রোডিউসিং অ্যা ইউনিভার্সাল পেনশন স্কিম ইন বাংলাদেশ: ইন সার্চ অব অ্যা ফ্রেমওয়ার্ক’ শীর্ষক এক সংলাপে তিনি এসব কথা বলেন। সংলাপের আয়োজন করে সেন্টার ফর পলিসি ডায়ালগ (সিপিডি) ও অক্সফাম ইন বাংলাদেশ।

সংলাপে বাংলাদেশের নাগরিকদের জন্য একটি ‘সর্বজনীন পেনশন স্কিম’ চালু করার সুযোগ, প্রয়োজনীয় নীতি ও প্রাতিষ্ঠানিক সংস্কার এবং সংশ্লিষ্ট চ্যালেঞ্জসমূহ নিয়ে আলোচনা হয়। এম এ মান্নান বলেন, আমার জানা মতে, অর্থমন্ত্রণালয়ের ভেতরে ছোট একটি সেল আছে, যারা সবার জন্য পেনশন চালুর বিষয়ে প্রাথমিক কাজ শুরু করেছে। বক্তব্যে সর্বজনীন পেনশন কীভাবে বাস্তবায়ন করা যায়, অন্য দেশগুলো কীভাবে এটা চালাচ্ছে, অর্থের সংস্থান কীভাবে করা যায়, আয়োজকদের কাছে এ ধরনের বুদ্ধিবৃত্তিক পরামর্শ চান পরিকল্পনামন্ত্রী। এসময় তিনি সর্বজনীন পেনশন চালুর ক্ষেত্রে ব্যক্তিগত অর্থ সংস্থানের প্রস্তাবও করেন। পরিকল্পনামন্ত্রী বলেন, সবাই এখানে অংশ নিতে পারবে না।

আমাদের এখনও ১১-১২ শতাংশ মানুষ আছে, যাদের আমরা হতদরিদ্র বলি। যাদের কোনও নিট আয় নাই। আমাদের রাজনৈতিক শক্তির প্রথম টার্গেট ওই নিচের ১১-১২ ভাগ মানুষকে টেনে ওপরে আনা। তারা কন্ট্রিবিউট করতে পারবে না, তাই আসতে পারবে না, সেই ধরনের চিন্তায় আমরা যাবো না। সংলাপে পরিকল্পনা মন্ত্রণালয় সম্পর্কিত সংসদীয় স্থায়ী কমিটির সভাপতি আবুল কালাম আজাদ বলেন, বাংলাদেশের নাগরিকদের জন্য একটি ‘সর্বজনীন পেনশন স্কিম’ চালু করার জন্য এখনই উপযুক্ত সময়। সংলাপে অন্যান্যের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন, বিশ্ব ব্যাংকের সাবেক লিড ইকোনমিস্ট ড. জাহিদ হোসেন, সিপিডির বিশেষ ফেলো দেবপ্রিয় ভট্টাচার্য ও অধ্যাপক মুস্তাফিজুর রহমান প্রমুখ।

নিউইয়র্কে সাদেক হোসেন খোকার জানাযায় সর্বস্তরের মানুষের ঢল
                                  

অবিভক্ত ঢাকা সিটি করপোরেশনের সাবেক মেয়র ও বিএনপির ভাইস চেয়ারম্যান সাদেক হোসেন খোকার নামাজে জানাযায় সর্বস্তরের মানুষের ঢল নেমেছিল। স্থানীয় সময় সোমবার রাতে এশার নামাজের পর নিউইয়র্কের কুইন্সের জ্যামাইকা মুসলিম সেন্টারে তার নামাজে জানাযা অনুষ্ঠিত হয়।

এদিকে স্থানীয় সময় মঙ্গলবার রাতে সাদেক হোসেন খোকার মরদেহ বাংলাদেশে পাঠানোর সব প্রস্তুতি নেয়া হয়েছে। বৃহস্পতিবার সকালে মরদেহ ঢাকায় পৌঁছনোর কথা রয়েছে। অন্তিম ইচ্ছা অনুযায়ী ঢাকার জুরাইন কবরস্থানে মায়ের কবরের পাশে সমাহিত করা হবে সাদেক হোসেন খোকাকে।

জ্যামাইকা মুসলিম সেন্টারে নামাজে জানাযার আগে বীর মুক্তিযোদ্ধা সাদেক হোসেন খোকাকে স্যালুট জানান সেক্টর কমান্ডারস ফোরাম যুক্তরাষ্ট্র শাখার নেতারা। তারা জাতীয় পতাকা দিয়ে মরদেহ ঢেকে দেন। এসময় অন্যান্যের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন সংগঠনের সভাপতি রাশেদ আহমেদ, সাধারণ সম্পাদক রেজাউল বারী বকুল, সহ-সভাপতি আবুল বাশার চুন্নু ও কার্যকরি সদস্য লাবলু আনসার।

সাদেক হোসেন খোকার নামাজে জানাযায় ইমামতি করেন জ্যামাইকা মুসলিম সেন্টারের খতিব মাওলানা মির্জা আবু জাফর বেগম। এর আগে সংক্ষিপ্ত বক্তব্য দেন নিউইয়র্কে বাংলাদেশ কনস্যুলেটের ফার্স্ট সেক্রেটারি শামীম হোসেন। তিনি বক্তব্য শুরু করার পর মসজিদে উপস্থিত যুক্তরাষ্ট্র বিএনপির নেতাকর্মীরা চিৎকার শুরু করেন। খোকার পাসপোর্ট নবায়ন না করার প্রতিবাদ জানান। পরিস্থিতি হট্টগোলে রূপ নিলে বিএনপির কেন্দ্রীয় নেতা মো. আব্দুস সালাম, জ্যামাইকা মুসলিম সেন্টারের সাধারণ সম্পাদক মনজুর আহমদ চৌধুরী এবং সাদেক হোসেন খোকার ছেলে প্রকৌশলী ইশরাক হোসেন সবাইকে শান্ত থাকার অনুরোধ জানান।

এসময় ইশরাক হোসেন বলেন, নিউইয়র্ক কনস্যুলেট পাসপোর্ট নবায়ন না করলে দ্রুত সময়ের মধ্যে তার বাবার মরদেহ দেশে নিয়ে যাবার ব্যাপারে প্রয়োজনীয় সহায়তা দিয়েছে। তিনি দলের নেতাকর্মীদের শান্ত থাকার অনুরোধ জানিয়ে বলেন, আপনারা আমার বাবার জন্য যা করেছেন আমার পরিবার তা মনে রাখবে। সাদেক হোসেন খোকার ছোট ছেলে ইশফাক হোসেনও উপস্থিত ছিলেন সেখানে।

যুক্তরাষ্ট্র বিএনপির নেতাকর্মী ছাড়াও দলমত নির্বিশেষে অসংখ্য প্রবাসী সাদেক হোসেন খোকার জানাযায় অংশ নেন। মসজিদের প্রতিটি ফ্লোর কানায় কানায় ভরে যায়। মসজিদের আশেপাশের সড়কেও তার জানাযায় অংশ নেন শত শত মানুষ।

সোমবার দুপুরে নিউইয়র্কে বাংলাদেশের কনসাল জেনারেল সাদিয়া ফয়জুন নেসা ইত্তেফাককে জানিয়েছেন, সাদেক হোসেন খোকার বড়ো ছেলে ইশরাক হোসেন কনস্যুলেটের সঙ্গে যোগাযোগ করেছেন। ফিউনারেল হোমের কাগজপত্র পাওয়া মাত্রই কনস্যুলেট প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নিয়েছে। কনসাল জেনারেল জানান, সাদেক হোসেন খোকার স্ত্রী ইসমত আরার জন্য ট্রাভেল পাস চেয়ে আবেদন করা হয়েছিল। এ ব্যাপারে আমরা দ্রুত ব্যবস্থা নিয়েছি। এর আগে পাসপোর্ট নবায়নের জন্য আবেদন করা হলেও তা এখনো প্রক্রিয়াধীন বলে জানান কনসাল জেনারেল।

স্থানীয় সময় রবিবার দিবাগত রাত ২টা ৫০ মিনিটে (বাংলাদেশ সময় সোমবার দুপুর ১টা ৫০ মিনিট) নিউইয়র্কের ম্যানহাটনের বিশেষায়িত হাসপাতাল মেমোরিয়াল স্লোয়ান ক্যাটারিং ক্যান্সার সেন্টারে ইন্তেকাল করেন বীর মুক্তিযোদ্ধা সাদেক হোসেন খোকা। তার বয়স হয়েছিল ৬৭ বছর। চিকিৎসার জন্য ২০১৪ সালের ১৪ মে মাসে সাদেক হোসেন খোকা সপরিবারে যুক্তরাষ্ট্রে যান।

আরও ২২টি মিটারগেজ কোচ আসছে: রেলমন্ত্রী
                                  

 রেলপথ মন্ত্রণালয়ের মন্ত্রী মো. নূরুল ইসলাম সুজন বলেছেন, দেশবাসীকে স্বল্পমূল্যে, নিরাপদ ও আরামদায়ক এবং সহজলোভ্য, পরিবেশবান্ধব পরিবহন সুবিধা দিতে আরও নতুন কোচ আমদানি করছে রেলপথ মন্ত্রণালয়। মন্ত্রী জানান, এরই ধারাবাহিকতায় তৃতীয় ধাপে ইন্দোনেশিয়া থেকে ২২টি মিটারগেজ কোচ বাংলাদেশে এসে পৌঁছাবে আগামীকাল সোমবার। রেলওয়ের জন্য মিটারগেজ ও ব্রডগেজ প্যাসেঞ্জার ক্যারেজ বা কোচ সংগ্রহ প্রকল্প দপ্তর সূত্রে জানা যায়, এ প্রকল্পের আওতায় কয়েকধাপে ২০০টি মিটারগেজ কোচ আমদানি করা হচ্ছে ইন্দোনেশিয়া থেকে। ইতোমধ্যে প্রকল্পের আওতায় প্রথম ও দ্বিতীয় ধাপে ৪৮টি মিটারগেজ কোচ বাংলাদেশে এসে পৌঁছেছে।

সদ্য আসা এসব কোচের মধ্যে ১৪টি কোচ দিয়ে চলছে ঢাকা-কুড়িগ্রাম রুটে আন্তঃনগর ‘কুড়িগ্রাম এক্সপ্রেস’। বাকি ৩৬টি মিটারগেজ কোচ দিয়ে উত্তরাঞ্চলগামী রংপুর এক্সপ্রেস ও লালমনি এক্সপ্রেসের পুরাতন কোচগুলো পরিবর্তন করে নতুন মিটারগেজ কোচ স্থাপন করা হয়েছে। একইসাথে তৃতীয় ধাপে আরও ২২টি মিটারগেজ কোচ আগামি সপ্তাহে বাংলাদেশে এসে পৌঁছাবে। ইন্দোনেশিয়া থেকে আমদানি করা প্রতিটি মিটারগেজ কোচের মূল্য ৩.০৩ কোটি টাকা এবং প্রতিটি ব্রডগেজ কোচের মূল্য ৪.২২ কোটি টাকা। প্রকল্পের সংশ্লিষ্টরা বলেন, তৃতীয় ধাপে আমদানি করা মিটারগেজের ২২টি কোচ ইতিমধ্যেই ইন্দোনেশিয়া থেকে বাংলাদেশের উদ্দেশে রওনা হয়েছে। আগামি ৪ নভেম্বর বাংলাদেশে এসে সেগুলো পৌঁছাবে। আগের কোচের মতো এগুলো সবুজ ও সাদা রঙের হবে।

আমদানি করা এসব কোচ দেশে আসার পরে ওয়ার্কশপের কাজ শেষ করে নির্দিষ্ট রুটে নামানো হবে। রেলপথ মন্ত্রণালয়ের সূত্রে জানা যায়, নতুন ২২টি কোচ কোন রুটে বরাদ্দ দেওয়া হবে সে বিষয়ে এখনো সিদ্ধান্ত হয়নি। এসব কোচ দেশে পৌঁছানোর পরে বিষয়টি চূড়ান্ত হবে। যেসব রুটের কোচ অনেক পুরনো হয়ে গেছে সেসব রুটের নতুন আমদানি করা কোচগুলো যুক্ত করা হতে পারে। এর আগে আলাদা ব্রডগেজ কোচ সংগ্রহ প্রকল্পের আওতায় ৫০টি ব্রডগেজ কোচ আমদানি করা হয় ইন্দোনেশিয়া থেকে। যা এর মধ্যেই বাণিজ্যিকভাবে বিভিন্ন রুটে চলাচল করছে। আমদানি করা ব্রডগেজ কোচ দিয়ে তিনটি রুটে পঞ্চগড় এক্সপ্রেস, বেনাপোল এক্সপ্রেস ও বনলতা এক্সপ্রেস চালানো হচ্ছে।

পেনশন নিয়ে নতুন সুখবর দিল সরকার
                                  

সরকারি চাকরি শেষে শতভাগ পেনশন তুলে নেওয়া (সমর্পণ) অবসরপ্রাপ্তদের মৃত্যুর পর তার বিধবা স্ত্রী বা বিপত্নীক স্বামী ও প্রতিবন্ধী সন্তানরাও (যদি থাকে) পেনশন সুবিধা পাবেন। গতকাল বৃহস্পতিবার অর্থ বিভাগ এ সংক্রান্ত প্রজ্ঞাপন জারি করেছে।

প্রজ্ঞাপনে বলা হয়েছে, অর্থ বিভাগের ২০১৮ সালের ৮ অক্টোবরের প্রজ্ঞাপন মোতাবেক শতভাগ পেনশন সমর্পণকারী অবসরপ্রাপ্ত সরকারি কর্মচারীর পেনশন পুনঃস্থাপিত হয়ে থাকলে তার মৃত্যুর পর তার বিধবা স্ত্রী বা বিপত্নীক স্বামী ও প্রতিবন্ধী সন্তান (যদি থাকে) পুনঃস্থাপিত পেনশন সুবিধা পাবেন। এ ছাড়া তাদের চিকিৎসা ভাতা ও উৎসব ভাতা প্রাপ্যতার বিষয়ে অর্থ বিভাগের ২০১৭ সালের ৩ আগস্টের প্রজ্ঞাপন অনুসরণীয় হবে।

২০১৮ সালের ৮ অক্টোবরের অর্থ বিভাগের প্রজ্ঞাপনে বলা হয়, শতভাগ পেনশন সমর্পণকারী অবসরপ্রাপ্ত সরকারি চাকরিজীবীদের আর্থিক ও সামাজিক সুরক্ষা নিশ্চিত করতে অবসর গ্রহণের তারিখ থেকে ১৫ বছর সময় অতিক্রান্তের পর তাদের পেনশন পুনঃস্থাপন করা হবে। প্রচলিত পদ্ধতি ও নিয়ম অনুসরণ করে শতভাগ পেনশন সমর্পণকারীদের নতুন পেনশন সুবিধাদি নির্ধারণ করা হবে। আর পেনশন পুনঃস্থাপনের সুবিধা ২০১৭ সালের ১ জুলাই থেকে কার্যকর করা যেতে পারে। তবে ওই তারিখের আগের কোনো বকেয়া আর্থিক সুবিধা দেওয়া হবে না।

অর্থ মন্ত্রণালয় সূত্র জানায়, এ সুবিধার আওতায় আসবেন প্রায় ২০ হাজার অবসরপ্রাপ্ত সরকারি চাকরিজীবী। এজন্য সরকারের পেনশন খাতে অতিরিক্ত ব্যয় হবে ১৪৫ কোটি টাকা।

জলবায়ু বিপর্যয়রোধে শিক্ষার্থীরাদের সাথে সচেতনতামূলক মতবিনিময় সভা
                                  

জলবায়ুর বিপর্যয়ের ক্ষতিকর প্রভাবে সারা বিশ্বের প্রাণ-প্রকৃতি আজ হুমকির মুখে। প্রাণ প্রকৃতির বিপর্যয়ের পাশাপাশি লাখ লাখ মানুষ অভ্যন্তরীণ এবং আন্তর্জাতিকভাবে অভিবাসনে বাধ্য হবে। উন্নত দেশগুলো তাদের নিজেদের ভোগ-বিলাসের জন্য আমাদের মত ছোট রাষ্ট্রগুলোকে দিনের পর দিন ধ্বংসের দিকে ঠেলে দিচ্ছে। তাদের অতিমাত্রায় কার্বন নিঃসরণের জন্য আমরা আজ বাস্তুহারা হচ্ছি। জলবায়ু পরিবর্তনে সৃষ্ট বিরূপ প্রভাব মোকবেলায় সরকার ইতোমধ্যে বিভিন্ন পদক্ষেপ নিয়েছে।  
 
স্টপ এমিশনস নাও এর উদ্যোগে রাজধানীর রায়েরবাজার এলাকার আজ ২৮ অক্টোবর ২০১৯ তারিখে সকাল ১১ টায় শের-ই-বাংলা আইডিয়াল বিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীদের সাথে জলবায়ু পরিবর্তনের বিষয়ে সচেতনা বৃদ্ধির লক্ষ্যে মতবিনিময় সভা অনুষ্ঠীত হয়, যার উদ্দ্যেশ্য হল বাংলাদেশ সরকারের মাধ্যমে বিশ^নেতৃবৃন্দকে কার্বণ নিঃসরণ কমাতে কার্যকর ব্যবস্থা গ্রহন করার জন্য আহবার জানানো। শের-ই-বাংলা আইডিয়াল বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক জনাব কামাল হোসেন অপু এর সভাপতিত্তে উক্ত অনুষ্ঠানটি সঞ্চালনা করেন স্টপ এমিশনস নাও এর সদস্য সচিব মনজুর হাসান দিলু। উক্ত অনুষ্ঠানে আরো বক্ত্যব্য রাখেন, ইনস্টিটিউট অব ওয়েলবীংই বাংলাদেশ এর পলিসি অফিসার জনাব আ. ন. ম. মাছুম বিল্লাহ ভূঞা, বাংলাদেশ ইয়ুথ ক্লাইমেট নেটওয়ার্ক কর্মকর্তা জনাব মাহামুদুল হাসান।  
মতনিময় সভায় ছাত্র-ছাত্রীদের সচেতনতা বৃদ্ধি করতে প্রথমে একটি ভিডিও প্রদ্রর্শন করা হয়। এরপর একটি উপস্থাপনার মাধ্যমে জলবায়ু বিপর্যয়ের কারন ও তার প্রভাব এবং করণীয় সম্পর্কে তুলে ধরেন সামিউল হাসান সজীব। তাছাড়াও উক্ত মতবিনিময় সভায় শিক্ষার্থীদের মাঝে কুইজ প্রতিযোগীতা অনুষ্ঠিত হয় এবং কুইজ বিজয়ী শিক্ষার্থীদের মাঝে পুরষ্কার বিতরন করা হয়।  


বক্তারা তাদের বক্ত্যেবের মাধ্যমে জলবায়ু বিপর্যয়রোধের তরুণদের এগিয়ে আসার আহ্ববান জানান। এই বিপর্যয়, কোন একক দেশ বা জাতির নয় বরং পৃথিবীর অস্তিত্ব রক্ষায় আমাদের সবাইকে ঐক্যবদ্ধ হতে হবে এবং অধিক কার্বন নি:সরণকারী দেশগুলোকে চাপ প্রয়োগ করতে হবে যাতে তারা আমাদের আহ্বানে সাড়া দেয়। জলবায়ু বিপর্যয়ের ক্ষতিকর প্রভাবে সমগ্র প্রাণ প্রকৃতি হুমকির মুখে। এ অবস্থা চলতে থাকলে আগামীতে লাখ লাখ মানুষ বাস্তুহারা হয়ে অভ্যন্তরীণ ও আন্তর্জাতিকভাবে শরনার্থী হতে বাধ্য হবে। এটি মানবসৃষ্ট দূর্যোগ। এ বিপর্যয় রুখতে অতিস্বত্ত্বর কার্যকর ব্যবস্থা গ্রহণ করতে হবে। জলবায়ুর বিপর্যয়ের ফলে আগামী ২১০০ সালেই বাংলাদেশ তার অস্তিত্ব হারাতে পারে। আমরা শুধু আমাদের স্বদেশ রক্ষায় যুদ্ধে নেমেছি তা নয়, এ আন্দোলন সমগ্র পৃথিবীকে রক্ষার আন্দোলন।


শিক্ষার্থীরা তাদের বক্ত্যবে বলেন, জলবায়ু পরিবর্তনের কারনে আমার দেশ আজ হুমকির মুখে। শিল্প উন্নত দেশগুলোর অতিমাত্রায় কার্বন নিঃসরণের জন্য আমরা আজ বাস্তুহারা হচ্ছি। এভাবে চলতে থাকলে অদূর ভবিষ্যতে আমরা হয়তো আমাদের বাংলাদেশ নামক দেশটিকেও বিশ্ব মানচিত্র থেকে হারাবো। তাই, আমরা আজ সকলে এক হয়ে জলবায়ু বিপর্যয়রোধে কার্বন নিঃসরণকারী দেশগুলোকে আহ্বান জানাতে চাই যে, “তোমরা তোমাদের অধিক কার্বন নিঃসরণ বন্ধ করো।”

১ নভেম্বর থেকে কার্যকর হচ্ছে সড়ক পরিবহন আইন
                                  

বহুল আলোচিত সড়ক পরিবহন আইন আগামি ১ নভেম্বর থেকে কার্যকর হচ্ছে। আইনটি কার্যকরের তারিখ ঘোষণা করে সড়ক পরিবহন ও মহাসড়ক বিভাগ থেকে গতকাল বুধবার প্রজ্ঞাপন হয়েছে। সড়ক পরিবহন ও মহাসড়ক বিভাগের সচিব মো. নজরুল ইসলাম স্বাক্ষরিত আদেশে বলা হয়, সড়ক পরিবহন আইন, ২০১৮ এর ধারা ১ এর উপ-ধারা (২) এ দেওয়া ক্ষমতাবলে সরকার ১ নভেম্বর তারিখকে আইন কার্যকর হওয়ার তারিখ নির্ধারণ করল।

গত বছরের ৮ অক্টোবর ‘সড়ক পরিবহন আইন, ২০১৮’ এর গেজেট জারি করা হলেও তার কার্যকারিতা ঝুলে ছিল। গত বছর ঢাকায় বাসচাপায় দুই ছাত্র-ছাত্রীর মৃত্যুর পর নিরাপদ সড়কের দাবিতে শিক্ষার্থীদের নজিরবিহীন আন্দোলনের মুখে আগের আইন কঠোর করে ২০১৮ সালে আগের আইন কঠোর করে এই আইনটি করা হয়েছিল। এই আইনে সড়ক দুর্ঘটনায় প্রাণহানির ঘটনায় সর্বোচ্চ পাঁচ বছরের কারাদ- ও অর্থদ-ের বিধান রয়েছে। গত বছর অগাস্টে আইনের খসড়ায় চূড়ান্ত অনুমোদন দেয় সরকার। জাতীয় সংসদে পাস হওয়ার পর গত বছরের ৮ অক্টোবর ‘সড়ক পরিবহন আইন, ২০১৮’ এর গেজেট প্রকাশ হয়। এই আইন অনুযায়ী, মোটরযান চালনাজনিত কোনো দুর্ঘটনায় কোনো ব্যক্তি গুরুতর আহত বা নিহত হলে এ-সংক্রান্ত অপরাধ দ-বিধি-১৮৬০ এর এ-সংক্রান্ত বিধান অনুযায়ী অপরাধ হিসেবে গণ্য হবে। তবে দ-বিধির ৩০৪বি ধারাতে যাই থাকুক না কেন, কোনো ব্যক্তির বেপরোয়া বা অবহেলাজনিত মোটরযান চালনার কারণে সংঘটিত কোনো দুর্ঘটনায় কোনো ব্যক্তি গুরুতরভাবে আহত বা নিহত হলে চালক সর্বোচ্চ পাঁচ বছরের কারাদ- বা সর্বোচ্চ পাঁচ লাখ টাকা জরিমানা অথবা উভয় দ-ে দ-িত হবে।

আইনের ১১৪ ধারায় বলা হয়েছে, এই আইনের অধীন অপরাধের তদন্ত, বিচার, আপিল ইত্যাদির ক্ষেত্রে ফৌজদারি কার্যবিধি (১৮৯৮) প্রযোজ্য হবে। কিন্তু গেজেট প্রকাশের পরও আইনটি কার্যকর না হওয়ায় আদালতে রিট আবেদনও হয়েছিল। আইনটি প্রণয়নের পর থেকে তার প্রবল বিরোধিতা করে আসছিল পরিবহন মালিক-শ্রমিক সংগঠনগুলো। তাদের দাবি, সড়ক দুর্ঘটনায় মৃত্যুর ঘটনার মামলায় নতুন আইনে শাস্তির মাত্রা ‘অযৌক্তিক’ বেশি। এরপর গত ২৫ সেপ্টেম্বর পরিবহন মালিক ও শ্রমিক নেতাদের সঙ্গে উপ-কমিটির সভা শেষে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খাঁন কামাল ও আইনমন্ত্রী আনিসুল হক আইন সংশোধনের সুপারিশ সম্বলিত একটি প্রতিবেদন জাতীয় সড়ক নিরাপত্তা কাউন্সিলের কাছে দেবেন বলে জানিয়েছিলেন। তবে পরে সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের আইনটি সংশোধনের প্রস্তাব নাকচ করে দেন। এরপরই আইনটি কার্যকরের তারিখ ঘোষণা হল।

নির্বাচনপ্রক্রিয়া দুর্নীতির আওতামুক্ত নয়: মাহবুব তালুকদার
                                  

নির্বাচন কমিশনার মাহবুব তালুকদার বলেছেন, দেশের নির্বাচনপ্রক্রিয়া দুর্নীতির আওতামুক্ত নয়। যেসব জনপ্রতিনিধি অবৈধ উপায়ে বা দুর্নীতির আশ্রয় নিয়ে নির্বাচনে জয়ী হন, তাঁদের নির্বাচনের কোনো বৈধতা থাকে না। গতকাল রোববার আগারগাঁওয়ে নির্বাচন প্রশিক্ষণ ইনস্টিটিউটে ভোটার তালিকা হালনাগাদসংক্রান্ত এক কর্মশালায় মাহবুব তালুকদার এ কথা বলেন।
মাহবুব তালুকদার বলেন, জনগণের প্রতি অবৈধ জনপ্রতিনিধিদের দায়বদ্ধতা ও জবাবদিহি থাকে না। এতে গণতন্ত্র সুসংহত ও যথাযথভাবে সংরক্ষিত হতে পারে না। অবাধ ও সুষ্ঠু নির্বাচনের মাধ্যমে গণতন্ত্র প্রতিষ্ঠাই সব জাতির লক্ষ্য হয়ে থাকে। কারণ, গণতন্ত্রহীন জাতির কোনো ধরনের আত্মমর্যাদা থাকে না।


নির্বাচন কমিশন, কমিশন সচিবালয় ও এর মাঠ কর্মকর্তাদের বিষয়ে দুর্নীতির অভিযোগ দুঃখজনক বলে উল্লেখ করেন মাহবুব তালুকদার। তিনি বলেন, জাঁতি সব সময়ে একটি দুর্নীতিমুক্ত ও স্বচ্ছ কমিশন প্রত্যাশা করে।


মাহবুব তালুকদার বলেন, রোহিঙ্গারা যাতে ভোটার হতে না পারে, সে ব্যাপারে সর্বোচ্চ সতর্কতা অবলম্বন করতে হবে। রোহিঙ্গাদের ভোটার করার ব্যাপারে কোনো নির্বাচন কর্মকর্তার সংশ্লিষ্টতা পাওয়া গেলে তাঁর বিরুদ্ধে কঠোর ব্যবস্থা নিতে হবে। তিনি আরও বলেন, ভোটার তালিকা আইন ও বিধিমালায় কিছু অসংগতি আছে। সে জন্য সংশোধন আবশ্যক। ভোটার তালিকা হালনাগাদ পদ্ধতি যুগোপযোগী করার জন্য এর ফরমগুলো আরও সহজ করা দরকার।

৩ বছরে বিদেশ সফর করেছেন বিদ্যুৎ বিভাগের ৩ হাজার কর্মকর্তা
                                  

 বিদ্যুৎ বিভাগের চলমান প্রকল্পগুলোর আওতায় তিন বছরে প্রায় তিন হাজার কমকর্তা বিদেশ সফর করেছেন। একাদশ জাতীয় সংসদের বিদ্যুৎ, জ¦ালানি ও খনিজ সম্পদ মন্ত্রণালয় সর্ম্পকিত সংসদীয় কমিটির বৈঠকে কর্মকর্তাদের বিদেশ সফরের বিষয়টি আলোচনা হয়। গতকাল বৃহস্পতিবার এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে জানায়, জাতীয় সংসদ ভবনে অনুষ্ঠিত সভায় সভাপতিত্ব করেন সভাপতি মো. শহীদুজ্জামান সরকার।

বৈঠকে কমিটির সদস্য বিদ্যুৎ, জ¦ালানি ও খনিজসম্পদ প্রতিমন্ত্রী নসরুল হামিদ, মো. আবু জাহির, মো. আছলাম হোসেন সওদাগর, মোছা. খালেদা খানম ও বেগম নার্গিস রহমান উপস্থিত ছিলেন। বৈঠকে বিদ্যুৎ বিভাগের চলমান প্রকল্প থেকে কমকর্তাদের বিদেশ সফর নিয়ে আলোচনা করা হয়। বলা হয়, গত তিন বছরে মোট ২ হাজার ৯শ ৬১ জন কর্মকর্তা বিদেশ সফর করেছেন। এসময় কমিটিকে জানানো হয়, গ্রামাঞ্চল ও অফগ্রিড এলাকায় সোলার বিদ্যুৎ সংযোগের জন্য ২১টি সোলার মিনিগ্রিড, ১ হাজার ৩৭৪টি সোলার ইরিগেশন পাম্প ও ৫ দশমিক ৮ মিলিয়ন সোলার হোম সিস্টেম স্থাপন করা হয়েছে। আরও ছয়টি সোলার মিনিগ্রিড ও ২৩২টি সোলার ইরিগেশন পাম্প স্থাপনের প্রক্রিয়া চলমান। এছাড়াও যে সব অবিদ্যুতায়িত পকেটে গ্রিড বিদ্যুৎ পৌঁছানো সম্ভব হয়নি এমন ১ হাজার ৬৯টি অফগ্রিড গ্রাম চিহ্নিত করা হয়েছে যার মধ্যে ৬২০টি গ্রামে জুন, ২০২০ সালের মধ্যে গ্রিডের মাধ্যমে বিদ্যুৎ সংযোগ দেওয়া সম্ভব হবে।

এসময় কমিটি বাংলাদেশকে উন্নত দেশের কাতারে রূপান্তরিত করতে দেশের সব স্থান ২০২০ সালের মধ্যে শতভাগ বিদ্যুতের আওতায় আনয়নের জন্য মন্ত্রণালয়কে ব্যবস্থা নেওয়ার সুপারিশ করে। এছাড়াও বিদ্যুতের অবৈধ সংযোগ ও চুরি রোধে মনিটরিং কার্যক্রম জোরদার করতে মন্ত্রণালয়কে ব্যবস্থা নেওয়ার সুপারিশ করা হয়। বৈঠকে বিদ্যুৎ বিভাগের সিনিয়র সচিব ড. আহমদ কায়কাউসসহ বিদ্যুৎ, জ¦ালানি ও খনিজ সম্পদ মন্ত্রণালয় এবং বাংলাদেশ জাতীয় সংসদ সচিবালয়ের কর্মকর্তারা উপস্থিত ছিলেন।

শিশু নির্যাতন ও ধর্ষণের ঘটনা দ্রুত বিচার ট্রাইব্যুনালে নিষ্পত্তির দাবি
                                  

নির্যাতন বা ধর্ষণের শিকার কেউ আইনের আশ্রয় নিতে গেলে তাকে হয়রানি না করে সর্বোচ্চ সহযোগিতার দাবি জানিয়েছে আন্তর্জাতিক গ্রামীণ নারী দিবস উদযাপন জাতীয় কমিটি। সংগঠনটির পক্ষ থেকে বলা হয়, শিশু নির্যাতন ও ধর্ষণের ঘটনা দ্রুত বিচার ট্রাইব্যুনালে নিষ্পত্তি করতে হবে। থানায় ভুক্তভোগী বা তার পরিবার মামলা করতে গেলে দোষারোপ না করে মামলা গ্রহণ করতে হবে এবং দ্রুত অভিযুক্তকে গ্রেফতার করতে হবে।

গতকাল সোমবার জাতীয় প্রেস ক্লাবের তফাজ্জল হোসেন মানিক মিয়া হলে আয়োজিত সভায় এই দাবি জানানো হয়। মঙ্গলবার ‘আন্তর্জাতিক গ্রামীণ নারী দিবস ২০১৯’ উপলক্ষে ‘শিশু যৌন নির্যাতন, ধর্ষণ বন্ধ কর: আওয়াজ তোল এখনই’ শীর্ষক এই সভার আয়োজন করা হয়। সভায় বক্তারা জানান, সারাদেশে জানুয়ারি থেকে জুন মাস পর্যন্ত শিশু ধর্ষণ ও নিপীড়নের শিকার হয়েছে ৫৭২ শিশু। ধর্ষণের পর এই শিশুদের মধ্যে একজন ছেলে শিশুসহ ২৩ জনকে হত্যা করা হয়েছে। যৌন হয়রানির শিকার হয়েছে ৩ জন ছেলে শিশুসহ মোট ৭৫ শিশু। বিভিন্ন গণমাধ্যমে প্রকাশিত সংবাদের ভিত্তিতে এই সংখ্যা নির্ণয় করা হয়েছে। আরও বলা হয়, শতকরা ৭৫ ভাগ শিশু যৌন হয়রানির ঘটনাই ঘটে পরিবারের ঘনিষ্ঠজন, বন্ধু বা আত্মীয়দের মাধ্যমে। এই ঘটনাগুলোর বেশির ভাগ বাড়িতে,আত্মীয় বা পারিবারিক বন্ধুদের বাড়িতে, স্কুলে বা স্কুলে যাওয়ার পথে এবং পরিচিত পরিবেশে ঘটছে। সাধারণত নিম্নবিত্ত পরিবারের শিশুরা যৌন নির্যাতনের শিকার হয় বেশি।

পারিবারিক সুরক্ষা নেই অথবা সুরক্ষা বিষয়ে তাদের ধারণাও তেমন একটা নেই। এ ছাড়া ভয় দেখিয়েও শিশুদের চুপ করিয়ে রাখা যায়। অভিভাবকরাও পারিবারিক সম্মানের কথা শিশুদের চুপ করিয়ে রাখেন। বক্তারা বলেন, শিশু যৌন নির্যাতন বা ধর্ষণের ঘটনা দ্রুত বিচার ট্রাইব্যুনালে বিচার করতে হবে, অন্যথায় এই ধরনের অপরাধ কমানো সম্ভব হবে না। এসময় জাতীয় মহিলা সংস্থার চেয়ারম্যান প্রফেসর মমতাজ বেগম অ্যাডভোকেট বলেন, শিশুদের সঙ্গে বন্ধুত্বপূর্ণ সম্পর্ক তৈরি করে তার কথাগুলো মনোযোগ দিয়ে শুনতে হবে। প্রয়োজনীয় নিরাপত্তা ও নির্ভরতা দিয়ে তার জন্য স্বাভাবিক পরিবেশ সৃষ্টি করতে হবে।

আন্তর্জাতিক গ্রামীণ নারী দিবস উদযাপন জাতীয় কমিটির সভাপ্রধান শামীমা আক্তারের সভাপতিত্বে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন জাতীয় মহিলা সংস্থার চেয়ারম্যান প্রফেসর মমতাজ বেগম অ্যাডভোকেট। ফেরদৌস আরা রুমীর সঞ্চালনায় মূল বক্তব্য উপস্থাপন করেন কমিটির সদস্য তামান্না রহমান। আরও বক্তব্য রাখেন জাতীয় কমিটির সদস্য মাহবুব আলম ফিরোজ, ঢাকা জেলা কমিটির সম্পাদক সৈয়দা শামীমা সুলতানা, বাংলাদেশ কৃষক ফেডারেশনের সভাপতি বদরুল, ইক্যুইটিবিডি’র মোস্তফা কামাল আকন্দ প্রমুখ।

জানুয়ারির মধ্যে ঢাকা-ম্যানচেস্টার সরাসরি ফ্লাইট চালু হবে: বিমান সচিব
                                  

২০২০ সালের জানুয়ারির মধ্যে ঢাকা-ম্যানচেস্টার সরাসরি ফ্লাইট চালু করা হবে। গতকাল শনিবার হোটেল ইন্টারকন্টিনেন্টালে যুক্তরাজ্যের গ্রেটার ম্যানচেস্টারের মেয়র অ্যান্ডি বার্নহ্যাম ও ব্রিটিশ হাইকমিশনার রবার্ট সি ডিকসন এর সাথে বৈঠককালে বেসামরিক বিমান পরিবহন ও পর্যটন সচিব মো. মহিবুল হক একথা জানান। সচিব বলেন, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার দূরদর্শী নেতৃত্বে ও ঐকান্তিক আগ্রহে বিমান বাংলাদেশ এয়ারলাইন্সের বিমান বহর এখন অনেক আধুনিক।

বিমানবহরে রয়েছে বিশ্বের সর্বাধুনিক প্রযুক্তির সব উড়োজাহাজ। প্রবাসী বাংলাদেশীদের সুবিধার জন্য প্রধানমন্ত্রী ইতোমধ্যেই ম্যানচেস্টারে ফ্লাইট চালুর অনুমোদন দিয়েছেন। ঢাকা-ম্যানচেস্টার সরাসরি ফ্লাইট চালু করার সকল প্রস্তুতিই ইতোমধ্যে সম্পন্ন হয়েছে। বিমান তার সক্ষমতা পূর্ণ মাত্রায় ব্যবহার করার জন্য শিগগিরই আরও কিছু নতুন রুটে সরাসরি ফ্লাইট চালু করবে। ম্যানচেস্টারের মেয়র অ্যান্ডি বার্নহ্যাম বলেন, ম্যানচেস্টারে সরাসরি বিমান যোগাযোগ স্থাপন করা হলে তা হবে অত্যন্ত আনন্দের এবং লাভজনক একটি রুট। এতে ম্যানচেস্টারে বসবাসরত প্রবাসী বাংলাদেশিরাসহ উত্তর-দক্ষিণ ইংল্যান্ডে বসবাসরত সকল প্রবাসী বাংলাদেশী উপকৃত হবে। তিনি বলেন, ম্যানচেস্টারে সরাসরি বিমান যোগাযোগ স্থাপন করার জন্য প্রয়োজনীয় সব ধরনের সহযোগিতা বাংলাদেশকে প্রদান করা হবে।

বৈঠকে অন্যান্যের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন হোটেল ইন্টারকন্টিনেন্টাল এর ব্যবস্থাপনা পরিচালক মো. আইয়ুব হোসেন, বেসামরিক বিমান পরিবহন ও পর্যটন মন্ত্রণালয়ের যুগ্ম সচিব ড. মো. মোশাররফ হোসেন, ওল্ডহ্যাম কাউন্সিলের ডেপুটি লিডার আবদুল জব্বার, ব্রিটিশ হাইকমিশন ঢাকার প্রথম সচিব নকীব আকবর, ম্যানচেস্টার এয়ারপোর্ট গ্রুপের কর্পোরেট অ্যাফেয়ার্স ডিরেক্টর অ্যাডাম জাপ ও ম্যানচেস্টার ইনভেস্টমেন্ট ডেভেলপমেন্ট এজেন্সি সার্ভিসের বিজনেস ডেভেলপমেন্ট ডিরেক্টর ডেনিয়েল স্টোরের।

 

জানুয়ারির মধ্যে ঢাকা-ম্যানচেস্টার সরাসরি ফ্লাইট চালু হবে: বিমান সচিব
                                  

২০২০ সালের জানুয়ারির মধ্যে ঢাকা-ম্যানচেস্টার সরাসরি ফ্লাইট চালু করা হবে। গতকাল শনিবার হোটেল ইন্টারকন্টিনেন্টালে যুক্তরাজ্যের গ্রেটার ম্যানচেস্টারের মেয়র অ্যান্ডি বার্নহ্যাম ও ব্রিটিশ হাইকমিশনার রবার্ট সি ডিকসন এর সাথে বৈঠককালে বেসামরিক বিমান পরিবহন ও পর্যটন সচিব মো. মহিবুল হক একথা জানান। সচিব বলেন, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার দূরদর্শী নেতৃত্বে ও ঐকান্তিক আগ্রহে বিমান বাংলাদেশ এয়ারলাইন্সের বিমান বহর এখন অনেক আধুনিক।

বিমানবহরে রয়েছে বিশ্বের সর্বাধুনিক প্রযুক্তির সব উড়োজাহাজ। প্রবাসী বাংলাদেশীদের সুবিধার জন্য প্রধানমন্ত্রী ইতোমধ্যেই ম্যানচেস্টারে ফ্লাইট চালুর অনুমোদন দিয়েছেন। ঢাকা-ম্যানচেস্টার সরাসরি ফ্লাইট চালু করার সকল প্রস্তুতিই ইতোমধ্যে সম্পন্ন হয়েছে। বিমান তার সক্ষমতা পূর্ণ মাত্রায় ব্যবহার করার জন্য শিগগিরই আরও কিছু নতুন রুটে সরাসরি ফ্লাইট চালু করবে। ম্যানচেস্টারের মেয়র অ্যান্ডি বার্নহ্যাম বলেন, ম্যানচেস্টারে সরাসরি বিমান যোগাযোগ স্থাপন করা হলে তা হবে অত্যন্ত আনন্দের এবং লাভজনক একটি রুট। এতে ম্যানচেস্টারে বসবাসরত প্রবাসী বাংলাদেশিরাসহ উত্তর-দক্ষিণ ইংল্যান্ডে বসবাসরত সকল প্রবাসী বাংলাদেশী উপকৃত হবে। তিনি বলেন, ম্যানচেস্টারে সরাসরি বিমান যোগাযোগ স্থাপন করার জন্য প্রয়োজনীয় সব ধরনের সহযোগিতা বাংলাদেশকে প্রদান করা হবে।

বৈঠকে অন্যান্যের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন হোটেল ইন্টারকন্টিনেন্টাল এর ব্যবস্থাপনা পরিচালক মো. আইয়ুব হোসেন, বেসামরিক বিমান পরিবহন ও পর্যটন মন্ত্রণালয়ের যুগ্ম সচিব ড. মো. মোশাররফ হোসেন, ওল্ডহ্যাম কাউন্সিলের ডেপুটি লিডার আবদুল জব্বার, ব্রিটিশ হাইকমিশন ঢাকার প্রথম সচিব নকীব আকবর, ম্যানচেস্টার এয়ারপোর্ট গ্রুপের কর্পোরেট অ্যাফেয়ার্স ডিরেক্টর অ্যাডাম জাপ ও ম্যানচেস্টার ইনভেস্টমেন্ট ডেভেলপমেন্ট এজেন্সি সার্ভিসের বিজনেস ডেভেলপমেন্ট ডিরেক্টর ডেনিয়েল স্টোরের।

 

ডাবল লাইনের বঙ্গবন্ধু রেল সেতুর নির্মাণ কাজ শুরু জানুয়ারিতে: রেলমন্ত্রী
                                  

রেলমন্ত্রী নুরুল ইসলাম সুজন বলেছেন, আগামি জানুয়ারিতেই যমুনা নদীর উপরে ডাবল লাইনের বঙ্গবন্ধু রেল সেতু নির্মাণের কাজ শুরু হবে। তিনি গতকাল বুধবার টাঙ্গাইল বঙ্গবন্ধু সেতু পূর্ব স্টেশনে যাত্রা বিরতিকালে সাংবাদিকদের এ কথা জানান। তিনি বলেন, এ ছাড়া বঙ্গবন্ধু সেতু পূর্ব ও গাজীপুরের জয়দেবপুর পর্যন্ত ডাবল রেল লাইন হবে। আর এই লাইনের কাজ শেষ হলে উত্তরবঙ্গের সাথে ঢাকার সাথে যোগাযোগসহ রেলের সিডিউল আর বিপর্যয় হবে না। মন্ত্রী বলেন, রেলের ব্যবস্থাপনার মধ্যে ঘাটতি রয়েছে। তবে এ ঘাটতি দূর করার চেষ্টা করা হচ্ছে।

রেল খাতে যত বেশি তথ্য প্রযুক্তি ব্যবহার করা হবে, ততবেশি উন্নত হবে। এর ফলে রেল নিয়ে যে অভিযোগগুলো আছে সেগুলোর সমাধান হয়ে যাবে। ক্যাসিনো নিয়ে মন্ত্রী বলেন, দল যখন ক্ষমতায় আসে তখন যারা দল করে না তখন সবাই দাবি করে আমি দল করি। বিএনপির তারেক রহমান আয়কর রিটার্ন দাখিলে তার উপার্জনে ক্যাসিনোর কথা উল্লেখ করেছেন। বর্তমানে যারা ক্যাসিনো ব্যবসার জন্য ধরা পড়েছে। তাদের পুরনো অতীত কিন্তু বিএনপি’র সংগে সম্পর্ক রয়েছে।

বিএনপি’র ছাত্রদল, যুবদল এমনকি রেলওয়ে শ্রমিক লীগে যারা এখানে আছেন তারাও আগে বিএনপিতে ছিল। এখন তারা আওয়ামী লীগের হয়ে গেছে। যারা দলে প্রবেশ করে অপকর্ম করছে তাদের বিরুদ্ধে অবশ্যই ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে। এ সময় তথ্য প্রতিমন্ত্রী ডা. মুরাদ হাসানসহ স্থানীয় নেতৃবৃন্দ এবং রেলের বিভিন্ন পর্যায়ের ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তারা উপস্থিত ছিলেন।

 

ছুটির নোটিশ
                                  

সম্মানিত পাঠকবৃন্দ আপনাদের অবগতির জন্য জানানো যাচ্ছে যে, পবিত্র ঈদুল আযাহা উপলক্ষে আগামীকাল ১১-০৮-২০১৯ইং তারিখ রোববার থেকে আগামী ১৬-০৮-২০১৯ইং তারিখ শুক্রবার পর্যন্ত স্বাধীন বাংলা ডট কম বার্তা বিভাগসহ সকল বিভাগ বন্ধ থাকবে। ১৭-০৮-২০১৯ইং তারিখ শনিবার থেকে আবার যথারীতি সংবাদ আপলোড করা হবে।

- সম্পাদক

রাজধানীসহ দেশের বিভিন্ন স্থানে ভূমিকম্প
                                  

রাজধানীসহ দেশের বিভিন্ন স্থানে ভূকম্পন অনুভূত হয়েছে। আজ শুক্রবার বেলা ৩টা ২২ মিনিটে এই ভূমিকম্প হয়। এর উৎপত্তিস্থল ছিল ভারতের অরুণাচল প্রদেশের ক্যামেং জেলার বমডিলা এলাকায়।

আবহাওয়া অধিদপ্তরের সিসমিক সেন্টারের দেওয়া তথ্যমতে, অরুনাচলে উৎপত্তিস্থলে ভূমিকম্পের মাত্রা রিখটার স্কেলে ছিল ৫ দশমিক ৫।

ঢাকার আবহাওয়া পর্যবেক্ষণ কেন্দ্র থেকে উৎপত্তিস্থল ৪৯৯ কিলোমিটার উত্তরপূর্বে অবস্থিত। সিলেট জেলা থেকে এর দূরত্ব ৩২৫ কিলোমিটার।

ভূমিকম্প পর্যবেক্ষণ ও গবেষণা কেন্দ্রের ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা মো. মমিনুল ইসলাম গণমাধ্যমকে বলেন, ‘আজ বেলা ৩টা ২২ মিনিটে বাংলাদেশের বিভিন্ন স্থানে ভূকম্পন অনুভূত হয়েছে। এটি মাঝারি ধরনের ভূমিকম্প ছিল।’

  

 
 
মিরপুরের ছয়টি পার্ক ও খেলার মাঠের ত্রিমাত্রিকনকশা প্রণয়ন করলেন স্থানীয়রা
                                  

একটি শহরে পার্ক ও খেলার মাঠের গুরুত্ব অপরিসীম। কিন্তু ঢাকা শহরের প্রতিটি কমিউনিটিতে পার্ক ও খেলার মাঠ সুনিশ্চিত হয়নি। আবার যে সকল এলাকায় মাঠ-পার্ক রয়েছে তাও এলাকাবাসী যথাযথভাবে ব্যবহার করতে পারেন না। একটি মাঠ তখনই সকলের জন্য ব্যবহার উপযোগী হবে, যখন তাতে সকলের চাহিদার প্রতিফলন থাকবে। ঢাকা উত্তর সিটি কর্পোরেশন, হেল্থব্রিজ-কানাডা, ওয়ার্ক ফর এ বেটার বাংলাদেশ ট্রাস্ট, ব্লক বাই ব্লক এবং ইউএনহ্যাবিটেট সম্মিলিত উদ্যোগেমিরপুরের পাঁচটি ওয়ার্ডের (২,৪,৫,৭ এবং ৯ নং) ৬ টি স্থানের পার্ক ও খেলার মাঠগুলোকে সকলের জন্য ব্যবহার উপযোগী করে তৈরির জন্য মাইনক্র্যাফ্ট খেলার মাধ্যমে এলাকাবাসী নকশা প্রণয়ন করেন।এলাকাবাসীর অংশগ্রহণে সকলের জন্য ব্যবহার উপযোগী মাঠের নকশা তৈরির এ উদ্যোগ অত্যন্ত প্রয়োজনীয়। কারণ এলাকাবাসীই জানেন যে কিভাবে মাঠের যথাযথ উন্নয়ন, ব্যবহার এবং রক্ষণাবেক্ষণ সম্ভব।  ওয়ার্ক ফর এ বেটার বাংলাদেশ ট্রাস্ট এর কৈবর্ত সভাকক্ষে দুইদিন দিনব্যাপী কর্মশালার সমাপনী অনুষ্ঠানে বক্তারা এ কথা বলেন।
কর্মশালায় অংশগ্রহণকারীগণ ছয়টি ভাগে বিভক্ত হয়ে মাইনক্র্যাফ্ট খেলার মাধ্যমে ছয়টি ভিন্ন নকশা প্রণয়ন করেন। কর্মশালার শেষদিনে সকল গ্রুপ তাদের নিজস্ব ত্রিমাত্রিক নকশা উপস্থাপন করেন। প্রস্তাবিত সকল উপাদানের মধ্য যে বিষয়গুলো গুরুত্বপূর্ণ উপাদান চিহ্নিত করা হয় তা হল-শিশুদের পৃথক খেলার জায়গা, প্রশস্ত হাঁটার রাস্তা, সলিড ওয়ালের পরিবর্তেগ্রিলের ব্যবস্থা করা যাতে বাইরে থেকে ভিতরের কর্মকান্ড দেখা যায়, গণশৌচাগার, আলোর ব্যবস্থা করা, নিরাপত্তা কর্মী ইত্যাদির মাধ্যমে মাঠের নিরাপত্তা নিশ্চিতকরণ।
সমাপনী অনুষ্ঠানে হেলথ ব্রিজ কানাডা এর আঞ্চলিক পরিচালক দেবরা ইফরইমসন বলেন, ছোট একটি পরিবর্তনের মাধ্যমে আমরা খেলার মাঠ বা পার্ক সকলের উপযোগী করে গড়ে তুলতে পারি। যার উজ্জবল দৃষ্টান্ত বৈশাখী খেলার মাঠ। আগে মাঠটি নারীরা শুধু সকাল- সন্ধ্যা হাঁটার কাজে ব্যবহার করতেন। কিন্তু শিশু অঞ্চল তৈরি করার পর মাঠে নারী ও শিুশুদের উপস্থিতি বৃদ্ধি পেয়েছে।
রাজধানী উন্নয়ন কর্তৃপক্ষ (রাজউক) এর পরিচালক আশরাফুল ইসলাম বলেন, আমরা সকলের জন্য ব্যবহার উপযোগী গণপরিসর তৈরির চেষ্টা করছি। কিন্তু বাজেট স্বল্পতার কারণে আমরা করতে পারছি না। অন্যদিকে ব্যবস্থাপনায় বিশাল সংখ্যক জনগোষ্ঠীর অংশগ্রহণ না থাকায় রক্ষণাবেক্ষণের প্রক্রিয়া ব্যহত হচ্ছে। নগরে ছোট আকারে অনেক পরিত্যক্ত জায়গা রয়েছে সেগুলো সঠিক পরিকল্পনার মাধ্যমে ব্যবহার উপযোগী করা গেলে গণপরিসরে চাহিদা পূরণে ভূমিকা রাখবে। ২ দিন ব্যাপি মিরপরের ৫ টি ওয়ার্ডের ৬টি খেলার মাঠ বা পার্কের নকশা প্রণয়ন করা হয়েছে তা বাস্তবায়ন করা সম্ভব। এক্ষেত্রে এলাকাবাসীর অংশগ্রঞন খুবই গুরুত্বপূর্ণ।
ঢাক উত্তর সিটি কর্পোরেশনের আরবান রেজিলিয়েন্স প্রকল্পের প্রকল্প পরিচালকতারেক বিন ইফসুফ বলেন, মাইনক্র্যাফ্ট গেমস এর মাধ্যমে খেলার মাঠ বা পার্ক উন্নয়নে সকলের অংশগ্রহণ নিশ্চিত করা সম্ভব। মাঠ ও পার্কের নকশা অংশগ্রহণমূলক এবং অন্তর্ভূক্তিমূলক হলে সকলের জন্য ব্যবহার উপযোগী হবে। এলাকাবাসী এবং এলাকার যারা নেতৃস্থানীয় আছেন তাদের এ মাঠের নকশা বাস্তবায়ন এবং রক্ষণাবেক্ষণে এগিয়ে আসতে হবে।
অনুষ্ঠান সঞ্চালনা করেন ওয়ার্ক ফর এ বেটার বাংলাদেশ ট্রাস্ট এর প্রোগ্রাম ম্যানেজার মারুফ হোসেন। সমাপনী অনুষ্ঠানে আরো উপস্থিত ছিলেন ইউএনহ্যাবিটেট এর আঞ্চলিক সমন্বয়কারী এবং গণপরিসর বিশেষজ্ঞ সোহেল রানা, মাইনক্র্যাফট বিশেষজ্ঞ ইউহেনিও ইজাসটেলাম,মিরপুরের ৬ টি এলাকার শিশু-কিশোর, বয়োজ্যেষ্ঠ, পেশাজীবি, রাজনৈতিক কর্মী ও প্রতিবন্ধী ব্যক্তি, সেফ দ্যা চিলড্রেন এর প্রতিনিধি এবং ওয়ার্ক ফর এ বেটার বাংলাদেশ ট্রাস্ট এর কর্মকর্তাগণ অংশগ্রহণ করেন। পরিশেষে কর্মশালয় অংশগ্রহণকারী সকলকে সনদপত্র প্রদান করা হয়।

আহসানগঞ্জ স্টেশনে ঢাকাগামী আন্ত:নগর ট্রেনের যাত্রা বিরতীর জন্য এলাকাবাসীর মানববন্ধন
                                  

মো: শরিফুল ইসলাম রানা : গত সাতদিন ধরে ধারাবাহিক ভাবে ঢাকাগামী আন্তঃনগর ট্রেনের স্টপেজের দাবিতে নওগাঁর আত্রাইয়ের আহসানগঞ্জ রেলওয়ে স্টেশনে প্রতিদিন বেলা সাড়ে ১২ টা থেকে দ্রুতযান এক্সপ্রেস ট্রেন আসা পর্যন্ত  মানববন্ধন, বিক্ষোভ মিছিল ও রেললাইন অবরোধ করে ট্রেন দাঁড় করানোর মত বিভিন্ন কর্মসূচী পালন করছে উপজেলার সর্বস্তরের জনগণ। ঢাকাগামী দ্রুতযান এক্সপ্রেস ট্রেনটি আসলে আন্দোলনকারীদের অবরোধের মুখে চালক ট্রেন থামিয়ে দেন। প্রায় ১০ মিটিন বিরতির পর আবার ট্রেন ছেড়ে চলে যায়। আহসানগঞ্জ রেলওয়ে স্টেশনে ঢাকাগামী আন্ত:নগর ট্রেনের স্টপেজের দাবি কার্যকর না হওয়া পর্যন্ত প্রতিদিন কর্মসূচি পালন করার ঘোষণা দেন আন্দোলনকারীরা। এতে নেতৃত্ব দিচ্ছেন আত্রাই উপজেলা চেয়ারম্যান আলহাজ এবাদুর রহমান ও মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান মমতাজ বেগম।

বর্তমানে আহসানগঞ্জ ষ্টেশনের উপর দিয়ে প্রতিদিন ঢাকাগামী 6 জোড়া আন্তঃনগর ট্রেন চলাচল করলেও কেবলমাত্র নীলসাগর এক্সপ্রেসের স্টপেজ এ ষ্টেশনে রয়েছে। যাহা ঢাকার উদ্দেশ্যে রাত 1.25 টার সময় অতিক্রম করে। ফলে আত্রাই উপজেলাসহ পার্শ্ববর্তী রানীনগর, বাগমারা, নলডাঙ্গা, সিংড়া-এর ঢাকাগামী যাত্রীদের যারপর নেই দুর্ভোগের শিকার হতে হয়। প্রতিদিন আত্রাই থেকে প্রায় ২শতাধিক যাত্রী ঢাকা যাতায়াত করেন । ফলে বানিজ্যিক ভাবে আহসানগঞ্জ রেলওয়ে স্টেশনটি সফল কারণ পূর্বের একই সময়ে সম পর্যায়ের ষ্টেশন আক্কেলপুর স্টেশন, বিরামপুর স্টেশন, ফুলবাড়ী স্টেশন গুলোর সঙ্গে আহসানগঞ্জ স্টেশনের আয়ের পর্যালোচনা করলে দেখা যায়, যেখানে আক্কেলপুর স্টেশন, বিরামপুর স্টেশন, ফুলবাড়ী স্টেশন ০৪ জোড়া জোনাল ট্রেন ও ০৩ জোড়া ঢাকাগামী আন্ত:নগর ট্রেনের যাত্রাবিরতি থেকে আয় করে যথাক্রমে-১০,৫৪,৮১৮/-টাকা ৯,৪৭,৮০৭/-টাকা, এবং ১০,৭৮,৮৮০/- টাকা সেখানে আহসানগঞ্জ স্টেশন ০৩ জোড়া জোনাল ট্রেন এবং ০১ জোড়া ঢাকাগামী ট্রেন যাত্রাবিরতি থেকে আয় করে-১৩,৯৯,৮৭৪/-টাকা ( 2016 সালে পরিসংখ্যান)।

আবার আহসানগঞ্জ রেলওয়ে স্টেশনটি ঐতিহাসিক ও ঐতিহ্যবাহী কারণ সেই ব্রিটিশ ও পাকিস্তান আমলে কলকাতা থেকে উত্তরবঙ্গ হয়ে আসামে যতগুলো ট্রেন চলাচল করত তার প্রায় সবগুলো ট্রেন আহসানগঞ্জ স্টেশনে যাত্রা বিরতি করত। মহাত্মা গান্ধী, বিশ্ব কবি রবীন্দ্রনাথ ঠাকুর, আচার্য প্রফুল্ল চন্দ্র রায় সহ বহু মনিষীর পদস্পর্শ ঘটেছে আহসানগঞ্জ রেল স্টেশনে। জ্ঞান তাপস স্যার যদুনাথ সরকার কলকাতা থেকে তাঁর গ্রামের বাড়ী সিংড়া উপজেলা করচমাড়িয়া গ্রামে যাতায়াত করতেন এই আহসানগঞ্জ রেল স্টেশনের মাধ্যমে। বিশ্ব কবি রবীন্দ্রনাথ ঠাকুর তাঁর কুঠিরবাড়ী পতিসরে যেতেন এই আহসানগঞ্জ রেল স্টেশনের মাধ্যমে। বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান 26/10/1970 সালে (9 কার্তিক) রোজ সোমবার আত্রাই এসেছিলেন রেলগাড়ীতে করে এবং এই আহসানগঞ্জ প্লাটফরমে ঐতিহাসিক ভাষণ দিয়েছিলেন।

এ ব্যাপারে আত্রাই উপজেলা চেয়ারম্যান আলহাজ এবাদুর রহমান এবং মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান মমতাজ বেগমের সঙ্গে যোগাযোগ করলে তারা বলেন  আহসানগঞ্জ রেলওয়ে স্টেশনে ঢাকাগামী দ্রুতযান এক্সপ্রেস, লালমনি এক্সপ্রেস, একতা এক্সপ্রেস, পঞ্চগড় এক্সপ্রেস এবং খুলনা গামী সিমান্ত এক্সপ্রেস আন্ত:নগর ট্রেনের যাত্রা বিরতীর ঘোষনা না করা হলে আগামীতে অবরোধসহ কঠিন কর্মসূচির ঘোষনা করা হবে।


   Page 1 of 10
     এক্সক্লুসিভ
সবার জন্য পেনশন ব্যবস্থা চালু করতে চায় সরকার: পরিকল্পনামন্ত্রী
.............................................................................................
নিউইয়র্কে সাদেক হোসেন খোকার জানাযায় সর্বস্তরের মানুষের ঢল
.............................................................................................
আরও ২২টি মিটারগেজ কোচ আসছে: রেলমন্ত্রী
.............................................................................................
পেনশন নিয়ে নতুন সুখবর দিল সরকার
.............................................................................................
জলবায়ু বিপর্যয়রোধে শিক্ষার্থীরাদের সাথে সচেতনতামূলক মতবিনিময় সভা
.............................................................................................
১ নভেম্বর থেকে কার্যকর হচ্ছে সড়ক পরিবহন আইন
.............................................................................................
নির্বাচনপ্রক্রিয়া দুর্নীতির আওতামুক্ত নয়: মাহবুব তালুকদার
.............................................................................................
৩ বছরে বিদেশ সফর করেছেন বিদ্যুৎ বিভাগের ৩ হাজার কর্মকর্তা
.............................................................................................
শিশু নির্যাতন ও ধর্ষণের ঘটনা দ্রুত বিচার ট্রাইব্যুনালে নিষ্পত্তির দাবি
.............................................................................................
জানুয়ারির মধ্যে ঢাকা-ম্যানচেস্টার সরাসরি ফ্লাইট চালু হবে: বিমান সচিব
.............................................................................................
জানুয়ারির মধ্যে ঢাকা-ম্যানচেস্টার সরাসরি ফ্লাইট চালু হবে: বিমান সচিব
.............................................................................................
ডাবল লাইনের বঙ্গবন্ধু রেল সেতুর নির্মাণ কাজ শুরু জানুয়ারিতে: রেলমন্ত্রী
.............................................................................................
ছুটির নোটিশ
.............................................................................................
রাজধানীসহ দেশের বিভিন্ন স্থানে ভূমিকম্প
.............................................................................................
মিরপুরের ছয়টি পার্ক ও খেলার মাঠের ত্রিমাত্রিকনকশা প্রণয়ন করলেন স্থানীয়রা
.............................................................................................
আহসানগঞ্জ স্টেশনে ঢাকাগামী আন্ত:নগর ট্রেনের যাত্রা বিরতীর জন্য এলাকাবাসীর মানববন্ধন
.............................................................................................
কর্মস্থলে ফেরার পালা
.............................................................................................
পবিত্র ঈদুল ফিতর উপলক্ষে স্বাধীন বাংলা ডট কম ৪ দিন বন্ধ থাকবে
.............................................................................................
সড়ক দুর্ঘটনায় নিহত নাবিকের পরিবারকে ৮৩ লাখ টাকা ক্ষতিপূরণ
.............................................................................................
নারী নির্যাতন বন্ধে পাঠ্যপুস্তকে পরিবর্তন আনা দরকার: খুশি কবির
.............................................................................................
হামলার হুমকি দিয়ে বাংলায় পোস্টার প্রকাশ করেছে আইএস
.............................................................................................
দক্ষ জনশক্তি গড়তে মানবসম্পদ মন্ত্রণালয় চায় বিএসএইচআরএম
.............................................................................................
সড়ক দূর্ঘটনা হ্রাসে সমতলে সড়ক পারাপারে জেব্রা ক্রসিং এর দাবি
.............................................................................................
বৈষম্যহীন রাষ্ট্র গঠনে বিশেষভাবে সক্ষমব্যক্তিদের অধিকার প্রতিষ্ঠা করতে হবে
.............................................................................................
‘তাজমহল দেখা ও বউয়ের জন্য শাড়ি কেনা ছাড়া’ ভারতে আমলাদের প্রশিক্ষণে পাওয়ার কিছু নেই : এম হাফিজউদ্দিন খান
.............................................................................................
চীনা ঋণের ফাঁদে এবার কেনিয়া, হারাচ্ছে সমুদ্রবন্দর
.............................................................................................
চীনা ঋণের ফাঁদে এবার কেনিয়া, হারাচ্ছে সমুদ্রবন্দর
.............................................................................................
কে হচ্ছেন সংসদ উপনেতা?
.............................................................................................
বিশ্ব খাদ্য দিবস ২০১৮ ফাস্টফুড, কোমল পানীয় ও এনার্জি ড্রিংক্স নিষিদ্ধে কার্যকর পদক্ষেপ গ্রহণের দাবী
.............................................................................................
রায়েরবাজার বৈশাখী খেলার মাঠে শিশু অঞ্চল তৈরির কার্যক্রম শুরু
.............................................................................................
রায়েরবাজারের এ্যাকশন এরিয়া প্ল্যান প্রণয়ন
.............................................................................................
সুস্থ্য জীবনের জন্য স্বাস্থ্যকর খাবার নিশ্চিত জরুরী
.............................................................................................
চিকিৎসা সংক্রান্ত অভিযোগ জানাতে হটলাইন চালু করছে স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়
.............................................................................................
পানির ফোয়ারায় জাতীয় পতাকা!
.............................................................................................
আজ থেকে চট্টগ্রামে আবাসন মেলা
.............................................................................................
বাংলাদেশের ওয়ান ইলেভেন সম্পর্কে মুখ খুললেন মুহাম্মদ ইউনুস
.............................................................................................
জাতিসংঘ ঘোষিত প্রথম বিশ্ব বাইসাইকেল দিবস উদযাপন
.............................................................................................
ঈদের তিনদিন আগে থেকে মহাসড়কে ট্রাক-লরি চলা নিষেধ
.............................................................................................
গাজীপুরে আইইউটি পরিদর্শনে ওআইসির মহাসচিব
.............................................................................................
রমজানে ৬ ঘণ্টা সিএনজি স্টেশন বন্ধ
.............................................................................................
কুয়াকাটার কলেজ ছাত্র শাওনের চালকবিহীন সোলার গাড়ি
.............................................................................................
নিরাপত্তা পরিষদের সদস্য হতে বাংলাদেশের সহযোগিতা চায় ভিয়েতনাম
.............................................................................................
শিশুদের সঠিক বিকাশে শব্দ দূষণ নিয়ন্ত্রণের দাবি
.............................................................................................
এসডিজি অর্জনে তামাকজাত দ্রব্যের উপর অধিক হারে কর বৃদ্ধির করতে হবে
.............................................................................................
রূপপুর পারমাণবিক বিদ্যুৎ প্রকল্পে যুক্ত হচ্ছে নতুন রেলপথ
.............................................................................................
ভুয়া ডিগ্রীধারী ডাক্তারদের কারণে প্রশ্নবিদ্ধ দেশের চিকিৎসা ব্যবস্থা
.............................................................................................
ছেড়ে দেওয়া হয়েছে কোটা সংস্কার আন্দোলনের ৩ নেতাকে
.............................................................................................
স্থানীয়দের সম্পৃক্ততায় খেলার মাঠের নকশা প্রণয়ন শুরু
.............................................................................................
ঢাকা শহরের তিনটি সড়কে গাড়িমুক্ত কর্মসূচি পালনের সুপারিশ
.............................................................................................
স্বাধীনতার ইতিহাস বিকৃতিকারী ঢাবি অধ্যাপক মোর্শেদকে অব্যাহতি
.............................................................................................

|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
স্বাধীন বাংলা ডট কম
মো. খয়রুল ইসলাম চৌধুরী কর্তৃক সম্পাদিত ও ঢাকা-১০০০ হতে প্রকাশিত ।

প্রধান উপদেষ্টা: ফিরোজ আহমেদ (সাবেক সচিব, বাণিজ্য মন্ত্রণালয়)
সম্পাদক মন্ডলীর সভাপতি: ডাঃ মো: হারুনুর রশীদ
ব্যবস্থাপনা সম্পাদক : মো: খায়রুজ্জামান
বার্তা সম্পাদক: মো: শরিফুল ইসলাম রানা
সহ: সম্পাদক: জুবায়ের আহমদ
বিশেষ প্রতিনিধি : মো: আকরাম খাঁন
যুক্তরাজ্য প্রতিনিধি: জুবের আহমদ
যোগাযোগ করুন: swadhinbangla24@gmail.com
    2015 @ All Right Reserved By swadhinbangla.com

Developed By: Dynamicsolution IT [01686797756]