| বাংলার জন্য ক্লিক করুন
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|

   অপরাধ -
                                                                                                                                                                                                                                                                                                                                 
বাসায় খাদ্যমন্ত্রীর মেয়ে জামাইয়ের মৃত্যু, স্বজনদের দাবি হত্যাকাণ্ড

খাদ্যমন্ত্রী সাধন চন্দ্র কর্মকারের বড় মেয়ের জামাই রাজন কর্মকারের (৪২) মৃত্যু হয়েছে। তবে রাজনের স্বজনদের দাবি মৃত্যুটি রহস্যজনক, এটি একটি হত্যাকাণ্ড। 
রাজন কর্মকার বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয়ের (বিএসএমএমইউ) ডেন্টাল বিভাগের সহযোগি অধ্যাপক। রাজনের স্ত্রী-ও বিএসএমএমইউ’র সার্জারি বিভাগের সহযোগী অধ্যাপক।
আজ ভোরে ফার্মগেটের ইন্দিরা রোডের বাসা থেকে স্কয়ার হাসপাতালে আনা হলে কর্তব্যরত চিকিৎসক তাকে মৃত ঘোষণা করেন। খাদ্যমন্ত্রীর ছোট মেয়ে রাজনকে হাসপাতালে নিয়ে আসে। কিছু সময় পর হাসপাতালে আসে রাজনের স্ত্রী কৃষ্ণা কাবেরী। তার সহকর্মীরা- রাজনের ময়নাতদন্ত দাবি করে মৃত্যুর কারণ পরিষ্কার করার দাবি জানিয়েছেন।
প্রসঙ্গত, বছর খানেক আগে কৃষ্ণার দ্বারা মাথায় আঘাতপ্রাপ্ত রাজন মাসখানেক ঢাকার পপুলার হাসপাতাল, সিরাজুল ইসলাম মেডিকেল কলেজ হাসপাতাল ও বিএসএমএমইউ’র আইসিইউতে চিকিৎসাধীন ছিলেন।

বাসায় খাদ্যমন্ত্রীর মেয়ে জামাইয়ের মৃত্যু, স্বজনদের দাবি হত্যাকাণ্ড
                                  

খাদ্যমন্ত্রী সাধন চন্দ্র কর্মকারের বড় মেয়ের জামাই রাজন কর্মকারের (৪২) মৃত্যু হয়েছে। তবে রাজনের স্বজনদের দাবি মৃত্যুটি রহস্যজনক, এটি একটি হত্যাকাণ্ড। 
রাজন কর্মকার বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয়ের (বিএসএমএমইউ) ডেন্টাল বিভাগের সহযোগি অধ্যাপক। রাজনের স্ত্রী-ও বিএসএমএমইউ’র সার্জারি বিভাগের সহযোগী অধ্যাপক।
আজ ভোরে ফার্মগেটের ইন্দিরা রোডের বাসা থেকে স্কয়ার হাসপাতালে আনা হলে কর্তব্যরত চিকিৎসক তাকে মৃত ঘোষণা করেন। খাদ্যমন্ত্রীর ছোট মেয়ে রাজনকে হাসপাতালে নিয়ে আসে। কিছু সময় পর হাসপাতালে আসে রাজনের স্ত্রী কৃষ্ণা কাবেরী। তার সহকর্মীরা- রাজনের ময়নাতদন্ত দাবি করে মৃত্যুর কারণ পরিষ্কার করার দাবি জানিয়েছেন।
প্রসঙ্গত, বছর খানেক আগে কৃষ্ণার দ্বারা মাথায় আঘাতপ্রাপ্ত রাজন মাসখানেক ঢাকার পপুলার হাসপাতাল, সিরাজুল ইসলাম মেডিকেল কলেজ হাসপাতাল ও বিএসএমএমইউ’র আইসিইউতে চিকিৎসাধীন ছিলেন।

এবার চকবাজারে ভাঙারি দোকানে বিস্ফোরণ, দগ্ধ ৩
                                  

পুরান ঢাকার চকবাজারে ভাঙারির একটি দোকানে বিস্ফোরণে তিনজন দগ্ধ হয়েছেন। আজ শনিবার বিকেল সাড়ে ৪ টার দিকে চকবাজারের কামালবাগ এলাকায় এই দুর্ঘটনা ঘটে।

দগ্ধ ব্যক্তিরা হলেন- দোকানটির মালিক টুকু মিয়ার ছেলে সুমন খান, কর্মচারী নূর আলম ও মো. সুমন। পরে দগ্ধ তিনজনকে উদ্ধার করে ঢাকা মেডিক্যাল কলেজ (ঢামেক) হাসপাতালের বার্ন ইউনিটে ভর্তি করা হয়।

দগ্ধ নুর আলম সাংবাদিকদের জানান, চকবাজার কামালবাগ বেড়িবাঁধ সংলগ্ন একটি ভাঙারির দোকানের কর্মচারি তারা দু’জন ও মালিক হচ্ছেন সুমন খান। বিকেলে দোকানে ভাঙারির মালামাল একটি মেশিনের চাপ দেওয়ার সময় সেখান থেকে বিস্ফোরিত হয়। এতে তারা দগ্ধ হয়।

ঢাকা মেডিক্যাল পুলিশ বক্স (পরিদর্শক) বাচ্চু মিয়া এর সত্যতা নিশ্চিত করে জানান, তিনজনের শরীরের বিভিন্ন অংশ আগুনে ঝলসে গেছে। এতে সুমন খানের শরীরের শতকরা ২৬ ভাগ, নূর আলমের ৩০ ভাগ, সুমনের ১৮ ভাগ পুড়ে গেছে।

আগুন লাগা বস্তির পাশের ডোবায় মিলল ২ শিশুর লাশ
                                  

 মিরপুরের ভাসানটেক থানাধীন জাহাঙ্গীর বস্তির পাশের একটি ডোবা থেকে দুই শিশুর মরদেহ উদ্ধার করেছেন ফায়ার সার্ভিসের কর্মীরা।
বৃহস্পতিবার দুপুর সোয়া ১২টার দিকে ওই দুই শিশুর মৃতদেহ উদ্ধার করা হয়। তবে তাৎক্ষণিকভাবে তাদের পরিচয় জানা যায়নি। তবে একজনের বয়স ৬ মাস ও অন্যটির বয়স সাত বছর হবে।
ফায়ার সার্ভিস অ্যান্ড সিভিল ডিফেন্স নিয়ন্ত্রণ কক্ষের ডিউটি অফিসার মাহফুজ রিবেন জানান, ফায়ার সার্ভিসের নিয়ন্ত্রণকক্ষের অপারেটর বাবুল মিয়া যুগান্তরকে এ তথ্য নিশ্চিত করেছেন।
তিনি জানান, বুধবার দিবাগত রাত ১টা ৩৪ মিনিটে মিরপুরের ভাসানটেক সিআরপি হাসপাতালের পেছনে জাহাঙ্গীর বস্তিতে আগুন লাগে। পরে ফায়ার সার্ভিসের ২১টি ইউনিট চেষ্টা চালিয়ে বৃহস্পতিবার সকাল ৮টায় আগুন নিয়ন্ত্রণে আনে।

পরে খবর পেয়ে দুপুর ১২টার পর ঘটনাস্থলের পাশের একটি ডোবা থেকে ওই দুই শিশুর মৃতদেহ উদ্ধার করা হয়।
ভাসানটেক থানার উপপরিদর্শক আবু জাফর তালুকদার মানিক জানান, বস্তিটিতে বহু মানুষের বাস। আগুন লাগার পর বিপুলসংখ্যক মানুষ রাস্তায় বেরিয়ে আসে। এর পর ফায়ার সার্ভিস কর্মীরা আগুন নিয়ন্ত্রণে আনেন।
পরে বেলা সোয়া দুপুর ১২টার দিকে জাহাঙ্গীর বস্তির পাশের একটি ডোবা থেকে দুই শিশুর মৃতদেহ উদ্ধার করা হয়। নিহতদের উদ্ধার করে থানায় আনা হচ্ছে বলে জানান পুলিশের ওই কর্মকর্তা।

স্মার্টরা যেভাবে ধ্বংস করে তাদের ক্যারিয়ার
                                  

স্মার্ট কর্মচারী হওয়ায় যেসব কারণে আপনি ওপরে যেতে পারেন আপনার সহকর্মীদের টপকে, সেই একই কারণে আপনি ধপ করে নিচে পড়ে যেতে পারেন করপোরেট সিঁড়ি থেকে।

প্রকৃতপক্ষে, স্মার্ট কর্মচারীরাই বোকার মতো ভুল করেন বেশি এবং নিজের সাফল্যের মূলে আঘাত করেন। যেসব কারণে এমনটি ঘটে তা নিচে তুলে ধরা হলো:

১। সম্পর্ক গঠন 
স্মার্ট লোকদের ভেতর সহকর্মীদের দক্ষতাকে তাচ্ছিল্য করার প্রবণতা বেশি। এই প্রবণতা দল গঠনের জন্য প্রয়োজনীয় সামাজিক দক্ষতার অভাবের বিষয়টি স্পষ্ট করে। তারা সবসময় চেষ্টা করেন নিজেদেরকে উচ্চমানের স্ট্যান্ডার্ডের মধ্যে রাখতে। যখন তারা দেখেন তাদের সহকর্মীরা তাদের গতির সঙ্গে মিলতে না পারছেন না তখন তারা হতাশ হয়ে পড়েন।

২। কাজের প্রতিনিধিত্ব 
স্মার্টরা বেশিরভাগই নিজস্ব পথে কাজ করতে পছন্দ করেন এবং সহকর্মীদের সঙ্গে কাজের বিষয়টি ভাগাভাগি করা কঠিন বলে মনে করেন। কখনো কখনো মনে করেন প্রকল্পটি তারা একাই চালাতে পারেন এবং তাদের সহকর্মীদের কাছ থেকেও যে শেখার রয়েছে তা অস্বীকার করেন।

৩। সহজে অস্বস্তিতে ভোগেন 
স্মার্টদের বেলায় কর্মস্থল বা প্রজেক্টের কাজ ভালোভাবে সম্পন্ন করার ক্ষেত্রে কিংবা সেখান থেকে অভিজ্ঞতা সঞ্চয়ের বিষয়টি বেশিরভাগই হতাশাজনক। একটি কাজ থেকে অপরটিতে কেবল লাফানোর প্রবণতা তাদের ভেতর বেশি। প্রায়ই তাদের ভেতর ধৈর্য ও স্থিতির অভাব থাকে।

৪। কাজে ভুল করার প্রবণতা 
কিছু মানুষ আছে যারা কার্যনির্বাহের চেয়ে বিষয়টি নিয়ে চিন্তা ও বিশ্লেষণের পেছনে বেশি সময় ব্যয় করেন। তারা বিষয়টির পরিপূর্ণতা অর্জন করতে বেশি পছন্দ করেন। কিন্তু তারা বিষয়টি উপলব্ধি করতে ব্যর্থ হন যে কাজটি সঠিক সময়ের ভেতর শেষ করা বেশি জরুরি।

৫। সাধারণ ভুল
স্মার্টরা তাদের কাজের ব্যাপারে অহংকারী হয়ে ওঠে। তারা প্রায়ই ভুল পথে কাজটি শুরু করেন। যখন অন্য সহকর্মীরা কোনো সমস্যার জন্য অপেক্ষাকৃত ভালো পদ্ধতির পরামর্শ দেন বা কেউ তাদের কাজ নিয়ে প্রশ্ন তোলেন তখন বিষয়টিকে তারা আত্মসম্মানে আঘাত বলে মনে করেন। তারা যেমন নিজেদের ভুলগুলো ধরতে পারেন না তেমনি অন্যের কাছ থেকে সমালোচনামূলক প্রতিক্রিয়া গ্রহণ করতে পারেন না।

৬। সর্বদা স্মরণযোগ্য 
স্মার্টনেস মানেই কিন্তু সাফল্য নয়। স্মার্ট হলে করপোরেট বিশ্বে তা সাহায্য করে কিন্তু সাফল্যের জন্য কোনো শর্টকাট বলে কিছু নেই। কঠোর পরিশ্রমকে কেউ এড়াতে পারেন না। কিছু লোক রাতারাতি সাফল্য চান। কিন্তু সফলতার জন্য প্রয়োজন ইতিবাচক মনোভাবসহ ধৈর্য ও দৃঢ়তা। 

ঢা‌বিতে গাছ প‌ড়ে নারী নিহত, আহত ৭
                                  

ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের (ঢাবি) দোয়েল চত্ত্বর-সংলগ্ন শিশু একাডেমির সামনের রাস্তায় একটি নারিকেল গাছ পড়ে রিকসা আরোহী এক নারী নিহত হয়েছে। একই ঘটনায় শিশু ও নারীসহ আরও ৭ পথচারী আহত হয়েছেন। আহতদের ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। 
শুক্রবার রাতে অমর একুশে বইমেলা থেকে ফেরার পথে এ ঘটনা ঘটে।
নিহতের নাম মিতু ঘোষ (২২) নামের এক নারী। আর আহতরা হলেন -মিতুর স্বামী ধনঞ্জয় (৩০), খুরশিদ আলম (৬০), তার স্ত্রী সেলিনা আলম (৪০) এবং তাদের বড় মেয়ে শেহরিন আলম (২০) ও ছোট মেয়ে সাজরিন আলম (৮), আবু জর গিফারী কলেজের বিবিএ তৃতীয় বর্ষের ছাত্র মহসিন খান (২১)। এছাড়া অজ্ঞাতনামা এক মহিলা (৪০)।
আহত সেলিনা আলমের ভাই হৃদয় জানান, খুরশিদ আলম স্ত্রী এবং দুই মেয়ে নিয়ে শাহবাগ বই মেলায় এসেছিলেন। সেখান থেকে রাতে সিএনজি যোগে মগবাজার বাজার রেলগেট এলাকায় বাসায় ফিরছিলেন। পথে দোয়েল চত্ত্বর পার হলে শিশু একাডেমির ভিতরের একটি নারকেল গাছ ভেঙে রাস্তার উপর তাদের সিএনজিসহ বেশ কিছু গাড়ির উপর পড়ে। এতে তারা আহত হয়।
আহত ধনঞ্জয় জানান, মিতুর সাথে তার এনগেইজমেন্ট হয়েছে। আজকে তারা দুজনে মিলে বই মেলায় এসেছিলেন। সেখান থেকে রিকশাযোগে তাদের বাসা সূত্রাপুর থানার পাশে ফিরছিলেন। পথে এই দুর্ঘটনার শিকার হন।
এ বিষয়ে ঢামেক হাসপাতালের পুলিশ ক্যাম্পের ইনচার্জ (ইন্সপেক্টর) বাচ্চু মিয়া জানান, নিহতের লাশ ময়না তদন্তের জন্য মর্গে রাখা হয়েছে। আর আহত সাতজনকে জরুরি বিভাগে চিকিৎসা দেয়া হয়েছে। এদের মধ্যে অজ্ঞাতনামা ওই নারীর অবস্থা সঙ্কটাপন্ন।

রাজধানীতে গ্যাসলাইন বিস্ফোরণ, দুই গাড়িতে আগুন
                                  

রাজধানীর মানিকমিয়া এভিনিউ’র আড়ং মোড়ে সড়কে গ্যাস লাইন বিস্ফোরণ হয়েছে। গ্যাস লাইন বিস্ফোরিত হওয়ায় ওই সড়কে যান চলাচল বন্ধ রয়েছে। বুধবার বেলা সাড়ে তিনটার দিকে হঠাৎ গ্যাস লাইন বিস্ফোরিত হয়ে গ্যাস বের হতে দেখেন পথচারিরা। এসময় ওই স্থান দিয়ে যাওয়া দুটি গাড়িতে আগুন ধরে যায়। এতে এক যাত্রী দগ্ধ হয়েছেন। তাকে হাসপাতালে নেয়া হয়েছে। ঘটনার পরপরই ট্রাফিক পুলিশ দুই দিক থেকে যানবাহন চলাচল বন্ধ করে দেয়। এতে ওই এলাকায় তীব্র যানজট দেখা দিয়েছে।

উচ্ছেদ অভিযানে বাধা: আটক ছাত্রলীগ নেতা মুচলেকায় মুক্ত
                                  

রাজধানীর বুড়িগঙ্গা নদীর বসিলা অংশে উচ্ছেদ অভিযানে বাধা দেওয়ার অভিযোগে আটক ছাত্রলীগ নেতা আসাদুজ্জামান তালুকদার লাবুকে মুচলেকা নিয়ে ছেড়ে দেওয়া হয়েছে। মঙ্গলবার (১৯ ফেব্রুয়ারি) দুপুরে বাংলাদেশ অভ্যন্তরীণ নৌপরিহন কর্তৃপক্ষের (বিআইডাব্লিউটিএ) চালানো একটি খাল উদ্ধার অভিযানে বাধা দেওয়ায় তাকে আটক করা হয়েছিল।
মুচলেকা নিয়ে ছাত্রলীগ নেতা লাবুকে ছেড়ে দেওয়ার বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন বিআইডাব্লিউটিএ’র উচ্ছেদ অভিযানের দায়িত্বে থাকা নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট মোস্তাফিজুর রহমান।
লাবু নিজেকে মাদারীপুরের কালকিনি পৌর ছাত্রলীগের সিনিয়র সহসভাপতি হিসেবে পরিচয় দিয়েছেন।
নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট মোস্তাফিজুর রহমান বলেন, ‘বাধা দেওয়ার ঘটনায় ক্ষমা চাওয়া ও ভবিষ্যতে এ ধরনের কাজে অংশ নেবে না, এই মর্মে মুচলেকা রেখে তাকে (আসাদুজ্জামান তালুকদার লাবু) ছেড়ে দেওয়া হয়েছে।’
প্রত্যক্ষদর্শীরা জানান, উচ্ছেদ অভিযান চলার সময় লাবু নামে এক যুবক বাধা দেওয়ার চেষ্টা করেন। তিনি নিজেকে ছাত্রলীগ নেতা পরিচয় দেন এবং দায়িত্বে থাকা কর্মকর্তাদের সঙ্গে দুর্ব্যবহার করেন। লাবু ঘটনাস্থলে উচ্ছেদ অভিযানে বাধা দেওয়ার সময় পাঁচ-ছয়টি মোটরসাইকেল বসা কয়েকজন যুবক বসিলা আমিন মোমিন হাউজিংয়ের গেটে অবস্থান করছিল। সরকারি কাজে বাধা দেওয়ায় ঘটনাস্থলে থাকা নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেটের নির্দেশে লাবুকে আটক করা হয়। তাকে আটক করার পর গেটে থাকা যুবকরা সরে যায়।
আসাদুজ্জামান তালুকদার লাবু মাদারীপুরের কালকিনি পৌর ছাত্রলীগের সিনিয়র সহসভাপতি বলে নিজের পরিচয় উপস্থিত সাংবাদিকদের জানান। বিআইডাব্লিউটিএ বসিলা আমিন মোমিন হাউজিং এলাকায় মঙ্গলবার একটি খাল উদ্ধারে অভিযান চালায়।

কোটি টাকার সরকারি ও নকল ক্যান্সার ঔষধ জব্দ, গ্রেফতার ২
                                  

রাজধানীর মোহাম্মদপুরের কলেজগেট এলাকায় কসমোপলিটান সেন্টারের নরসিংদী ফার্মা, রয়েল মেডিকেল হল ও হামিদা ফার্মাসির গোডাউনে অভিযান পরিচালনা করেছে র্যাবের ভ্রাম্যমাণ আদালত। এ সময় সরকারি ফ্রি বিতরণের জন্য ঔষধ ও নকল ক্যান্সারের কোটি টাকা মূল্যের ঔষধ জব্দ করে র্যাব।

সোমবার দুপুরে থেকে অভিযান শুরু করে র্যাব। অভিযানে ৩ টি ফার্মাসির গোডাউনে বিপুল পরিমাণ সরকারি, নকল ক্যান্সারের ঔষধ, মরফিন ও প্যাথেটিন জব্দ করে র্যাব। এ ঘটনায় ২ জনকে আটক করা হয়।

এদের মধ্যে হামিদা ফার্মেসির রফিকুল ইসলামকে ১ বছরের জেল ও ২ লাখ টাকা জরিমানা করা হয়। পরে রয়েল মেডিকেল হলের মোহাম্মদপুরের হুমায়ূন রোডের ৬/২৬ বাসায় ও অভিযান পরিচালনা করে বিপুল পরিমাণ জি-ক্যাটামিন ও নকল স্যালাইন জব্দ করা হয়।

এ ব্যাপারে র্যাবের নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট সারওয়ার আলম যুগান্তরকে বলেন, গোপন সংবাদের ভিত্তিতে র্যাব-২ ও বাংলাদেশ ঔষধ প্রশাসনের সদস্যদের সহযোগিতায় দুপুর থেকে মোহাম্মদপুর এলাকার বিভিন্ন ফার্মেসিতে অভিযান চালানো হয়।

তিনি বলেন, অভিযানে সরকারি হাসপাতালের বিপুল পরিমাণ ফ্রি ঔষধ ও ইন্ডিয়ান কোম্পানির নামে নকল ক্যান্সারের ঔষধ জব্দ করি যা বাংলাদেশে তৈরি করা হয়। রয়েল মেডিকেল হলের ও নরসিংদী ফার্মার গোডাউন থেকে প্যাথেটিন, মরফিন ও জি-ক্যাটামিন জব্দ করা হয়। যেগুলো বিক্রয়ের জন্য মাদকদ্রব্য নিয়ন্ত্রণ অধিদফতর থেকে লাইসেন্স গ্রহণ করতে হয় কিন্তু এদের কোনো লাইসেন্স নেই। এ ব্যাপারে মাদকদ্রব্য নিয়ন্ত্রণ আইনে ও দ্রুত বিচার আইনে মামলা করা হবে। এখনও কলেজগেট এলাকার ফার্মেসিগুলোতে র্যাবের অভিযান অব্যাহত রয়েছে। 

সবুজবাগে বাসায় নটর ডেম কলেজ ছাত্রের লাশ
                                  

 রাজধানীর সবুজবাগে একটি বাসা থেকে নটর ডেম কলেজ ছাত্রের লাশ উদ্ধার করেছে পুলিশ।
বুধবার বেলা সাড়ে ১২টার দিকে সবুজবাগের কদমতলা এলাকার ৯ নম্বর লেনের হীরাঝিল মসজিদ গলির একটি বাসা থেকে ইয়োগেন হেনোসি গুনসালভেস (২২) নামে ওই শিক্ষার্থীর লাশ উদ্ধার করা হয়। এটা হত্যা না আত্মহত্যা তা নিশ্চিত করতে পারেনি পুলিশ।
ঘটনাস্থলে যাওয়া সবুজবাগ থানার এসআই মো. কামরুজ্জামান জানান, নটর ডেম কলেজের ওই ছাত্রের লাশ উদ্ধার করে ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের মর্গে পাঠানো হয়েছে। ময়নাতদন্তের পর মৃত্যুর কারণ জানা যাবে। খবর পেয়ে তার বোন ডলি ঢামেক মর্গে ভাইয়ের লাশ আনতে গেছেন।

ইন্টারভিউ দিতে এসে প্রাণ গেল নারী ‍চিকিৎসকের
                                  

রাজধানীর তেজগাঁওয়ের বিজয় সরণি এলাকায় সড়ক দুর্ঘটনায় আক্তার জাহান রুম্পা (২৮) নামে এক চিকিৎসকের মৃত্যু হয়েছে।
আজ মঙ্গলবার ভোরে তেজগাঁও বিজয় সরণি এলাকায় এ দুর্ঘটনা ঘটে। 
নিহত রুম্পা সিলেট ওসমানী নগর বাট আই হাসপাতালের চিকিৎসক ছিলেন। সে চট্টগ্রাম হালিশহরের বাসিন্দা আক্তারুজ্জামানের মেয়ে। 
তেজগাঁও থানার উপ-পরিদর্শক (এসআই) মিনহাজ উদ্দিন জানায়, ভোরে বিজয় সরণীতে অজ্ঞাত কোনো যানবাহন একটি সিনএজি অটোরিকশাকে ধাক্কা দিলে সিএনজির যাত্রী ও চালক আহত হয়। পরে যাত্রীকে অজ্ঞাত হিসাবে হাসপাতালে নিয়ে গেলে চিকিৎসক মৃত ঘোষণা করে।
তিনি আরও জানান, এ ঘটনায় আহত সিএনজি চালককে পাওয়া যায়নি। ওই নারী চিকিৎসকের লাশ ময়নাতদন্তের জন্য মর্গে রাখা হয়েছে।
দুর্ঘটনার খবর পেয়ে হাসপাতালে ছুটে আসেন ওই চিকিৎসকের সহকর্মী ডা. মহসিন ফারুক। 
তিনি জানান, তার বাড়ি চট্টগ্রামের হালিশহরে. বাবার নাম আক্তারুজ্জামান। সে সিলেট ওসমানী নগর বার্ডস চক্ষু হাসপাতালে কর্মরত ছিল। ঢাকার ধানমন্ডি বাংলাদেশ চক্ষু হাসপাতালে তার ইন্টারভিউ ছিল। সে জন্য চট্টগ্রাম থেকে ঢাকায় এসেছিলো রুমা। সিএনজি যোগে ধানমন্ডিতে যাওয়ার সময় দুর্ঘটনার শিকার হয় সে।

পাকিস্তান হাই কমিশনে চুরি, ৬ চোর পাকড়াও
                                  

ঢাকায় পাকিস্তান হাই কমিশনে চুরির ঘটনায় জড়িত সন্দেহে ছয়জনকে গ্রেফতার করেছে পুলিশ। সিসিটিভির ফুটেজ দেখে তাদেরকে গ্রেফতার করা হয়েছে।
গ্রেফতারকৃত ছয়জন হলেন- মো. মোস্তফা (৩৫), দুলাল মিয়া (৩৪), মো. সজল ওরফে কালু (২২), জাহাঙ্গীর আলম (৪৫), নিমাই বাবু (৪২) এবং সেকুল ইসলাম (৩৫)।
বুধবার গুলশান থানায় এক সংবাদ সম্মেলনে মহানগর পুলিশের পক্ষ থেকে জানানো হয়, মঙ্গলবার দিনের বিভিন্ন সময়ে ওই ছয়জনকে গ্রেফতার করা হয়।
এর আগে গত বৃহস্পতিবার রাতে পাকিস্তান হাই কমিশনের কনস্যুলার শাখায় ওই চুরির ঘটনা ঘটে। গত রোববার সকালে অফিস খোলার পর চুরির বিষয়টি বুঝতে পেরে হাই কমিশনের পক্ষ থেকে গুলশান থানায় অভিযোগ করা হয়।
পরে সিসিটিভির ফুটেজ পরীক্ষা করে পুলিশের পক্ষ থেকে বলা হয়, তিন চোর নিচতলার জানালা কেটে লাগানো শীতাতপ নিয়ন্ত্রত যন্ত্র খুলে ভেতরে ঢোকে।
সেখান থেকে তারা একটি মনিটর, তিনটি পিসি, চারটি ইউপিএস এবং একটি শীতাতপ নিয়ন্ত্রণযন্ত্র নিয়ে যায়। চুরির মালামাল তারা নিয়ে যায় রিকশা ভ্যান ও অটো রিকশায় করে।
অভিযোগ পাওয়ার পর পুলিশ অভিযানে নেমে ওই ছয়জনকে গ্রেফতার করে।

তেজগাঁওয়ে মালবাহী ট্রেনের বগি লাইনচ্যুত
                                  

রাজধানীর তেজগাঁও রেলগেট এলাকায় মালবাহী একটি ট্রেনের কয়েকটি বগি লাইনচ্যুত হয়েছে। 
আজ বুধবার ভোররাত সোয়া ৪টার দিকে এ দুর্ঘটনা ঘটে। 
তেজগাঁও রেলগেটের গেটম্যান মো. রেজাউল গণমাধ্যমকে বলেন, মালবাহী ট্রেনটি রাজধানীর কমলাপুর থেকে ছেড়ে চট্টগ্রাম যাচ্ছিল। ভোর সোয়া ৪টার দিকে ট্রেনটির ইঞ্জিনের পরের একটি বগি লাইনচ্যুত হয়। এ ছাড়া আরও তিনটি বগির চাকা রেললাইনের বাইরে চলে যায়। 

বগি লাইনচ্যুত হওয়ার পর অন্য লাইন দিয়ে সীমিত আকারে ট্রেন চলাচল করছে বলে জানান মো. রেজাউল।
ঢাকার রেলথানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) ইয়াসিন ফারুক সকাল সোয়া ১০টার দিকে গণমাধ্যমকে বলেন, চারটি বগি লাইনচ্যুত হয়। ইতিমধ্যে দুটি বগি ঠিক করা হয়েছে। বাকি দুটি বগি তোলার কাজ চলছে।

লঞ্চের কেবিন থেকে ব্লগার জুলভার্ন ‘নিখোঁজ’
                                  

লেখক ও ব্লগার জুলভার্ন দু’দিন ধরে নিখোঁজ রয়েছেন। পরিবারের অভিযোগ, গত শনিবার সন্ধ্যায় রাজধানীর সদরঘাট থেকে পিরোজপুরগামী একটি লঞ্চে উঠেন হুমায়ূন কবির। এরপর থেকে তার কোনো সন্ধান পাওয়া যাচ্ছে না।
জুলভার্ন নামে সামহোয়্যারইন ব্লগ ও অন্যান্য ব্লগ সাইটে লেখালেখি করলেও তার আসল নাম হুমায়ূন কবির। রাজধানীর গ্রিনরোডে পরিবার নিয়ে তিনি বসবাস করেন। একইসঙ্গে সার্জিক্যাল ইকুইপমেন্টের ব্যবসার সঙ্গে জড়িত।
ওই ঘটনায় হুমায়ূন কবিরের পরিবার রাজধানীর শেরেবাংলা নগর থানায় একটি সাধারণ ডায়েরি (জিডি নং- ১৯৮২) করেছেন।
হুমায়ূন কবিরের স্ত্রী মৌসুমী কবির গণমাধ্যমকে জানান, পিরোজপুরের উদ্দেশে গত শনিবার বিকেল সাড়ে ৩টার দিকে গ্রিনরোডের বাসা থেকে সদরঘাট যান হুমায়ূন। সন্ধ্যা সাড়ে ৭টায় লঞ্চটি ছাড়ার কথা ছিল। রাত ৮টার দিকে ফোনে চেষ্টা করে সেটি বন্ধ পান। এরপর যতবার চেষ্টা করা হয়েছে, মোবাইল ফোন বন্ধই রয়েছে।
নিখোঁজের ছেলে আহমেদ ইমতিয়াজ শুভ গণমাধ্যমকে বলেন, ‘বাবার কোনো সন্ধান না পেয়ে শনিবার রাতেই আমরা শেরেবাংলা নগর থানায় একটি সাধারণ ডায়েরি (জিডি নং- ১৯৮২) করেছি। তবে দু’দিনেও তারা বাবার কোনো সন্ধান দিতে পারেনি।’
জিডির তদন্ত কর্মকর্তা শেরেবাংলা নগর থানার উপ-পরিদর্শক (এসআই) সুধাংশু সরকার গণমাধ্যমকে বলেন, ‘জিডির পরপরই আমরা তদন্ত শুরু করেছি। নিখোঁজ হুমায়ূন কবিরের কললিস্ট চেক করেছি। তিনি নিজের মোবাইল ফোন থেকে সর্বশেষ ঘটনার দিন দুপুর দেড়টার দিকে এক আত্মীয়ের সঙ্গে কথা বলেছেন। তখন তিনি বাসাতেই ছিলেন।’
তিনি বলেন, ‘এরপর হুমায়ূন কবির আর মোবাইল ফোনে কারও সঙ্গে কথা বলেননি। তার সর্বশেষ লোকেশন কোথায় ছিল জানার চেষ্টা চলছে। এ বিষয়ে পরে বিস্তারিত জানানো যাবে।’

পোস্তগোলা ব্রিজ এলাকায় শ্রমিক-পুলিশ সংঘর্ষ-গোলাগুলি, নিহত ১, আহত শতাধিক পুলিশ
                                  

শীর্ষনিউজ, ঢাকা: টোল বাড়ানোকে কেন্দ্র করে পুলিশের সঙ্গে শ্রমিকদের সংঘর্ষে পোস্তগোলা ব্রিজ এলাকা রণক্ষেত্রে পরিণত হয়েছে। সংঘর্ষে পুলিশের গুলিতে একজনের মৃত্যু হয়েছে। গুলিবিদ্ধ হয়েছেন আরও দুই জন। অন্যদিকে, শতাধিক পুলিশ সদস্য আহত হয়েছেন বলে জানিয়েছেন এক পুলিশ সদস্য।


শুক্রবার (২৬ অক্টোবর) সকাল থেকে শুরু হওয়া এই সংঘর্ষ এখনও দফায় দফায় চলছে। গোটা এলাকায় থমথমে পরিস্থিতি বিরাজ করছে। পাশাপাশি সংঘর্ষের কারণে পোস্তগোলা ব্রিজ ঘিরে উভয় পাশের যানচলাচল সম্পূর্ণ বন্ধ হয়ে গেছে। এতে ব্রিজের দুই পাশেই তৈরি হয়েছে দীর্ঘ যানজট।
জানা গেছে, শুক্রবার সকাল ৮টায় পোস্তগোলা ব্রিজে টোল বাড়ানোকে কেন্দ্র করে টোল প্লাজায় কর্মরতদের সঙ্গে ট্রাক শ্রমিকদের কথা কাটাকাটি হয়। একপর্যায়ে তা সংঘর্ষে রূপ নেয়। পুলিশ এ সংঘর্ষ থামাতে গেলে তাদের ওপর চড়াও হয় শ্রমিকরা।

 


এসময় শ্রমিকরা পুলিশকে লক্ষ্য করে ইট-পাটকেল ছুঁড়তে থাকে। পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনতে গুলি ছুঁড়তে শুরু করে পুলিশ।
একজন পুলিশ সদস্য জানান, শ্রমিকরা বেশকিছু পুলিশকে পোস্তগোলা ব্রিজের নিচের দিকে একটি দোকানে অবরোধ করে রাখে। পরে ওই দোকানে আগুন দেওয়ার চেষ্টাও করে শ্রমিকরা।
কেরাণীগঞ্জ থানার কনস্টেবল রফিক জানান, শ্রমিকরা পুলিশের ওপর চড়াও হয়ে ইট-পাটকেল ছুঁড়তে থাকে। তারা প্রায় দুই ট্রাক ইট ফেলে রাস্তা অবরোধ করে। পরে সেগুলোই পুলিশের ওপর ছুঁড়তে থাকে। এতে একের পর এক পুলিশ সদস্য আহত হতে থাকলে পুলিশ অ্যাকশনে যাওয়ার সিদ্ধান্ত নেয়। এ ঘটনায় শতাধিক পুলিশ সদস্য আহত হয়েছেন বলে জানান তিনি।

 


এদিকে, পুলিশের গুলিতে একজন ট্রাকচালক নিহত হয়েছেন। এর বাইরে একজন ভিক্ষুক ও একজন পথচারীও গুলিবিদ্ধ হয়েছেন।
কেরাণীগঞ্জের ইকুরিয়া জেনারেল হাসপাতালের ম্যানেজার কারিমুল হাসান বলেন, সকাল ১০টা ১০ মিনিটে গুলিবিদ্ধ অবস্থায় তিন জন হাসপাতালে আসেন। এর মধ্যে একজন ছিলেন ট্রাকচালক। তার পেটে গুলি লেগেছিল। চিকিৎসাধীন অবস্থাতে তার মৃত্যু হয়।


কারিমুল হাসান জানান, বাকি দুজনের দুই পায়েই গুলি লেগেছিল। তাদের প্রাথমিক চিকিৎসা দিয়ে ঢাকা মেডিকেল কলেজ (ঢামেক) হাসপাতালে পাঠানো হয়েছে।
শ্রমিকরা বলছেন, পোস্তগোলা ব্রিজে আগের ট্রাকের টোল ছিল ৩০ টাকা। গত ২২ অক্টোবর সেই টোল বাড়িয়ে করা হয় ২৪০ টাকা। হঠাৎ করে এত বেশি টোল বাড়ানোয় তারা বিপাকে পড়েছেন। অবিলম্বে এই টোল কমিয়ে আনার দাবি জানান তারা।
শীর্ষনিউজ/এনএস

বঙ্গবন্ধুর খুনি রশিদের জামাতা গ্রেফতারের পর রিমান্ডে
                                  

 বঙ্গবন্ধু হত্যা মামলায় মৃত্যুদন্ডে দন্ডিত সুলতান শাহরিয়ার রশিদ খানের জামাতা ফুয়াদ জামানকে তথ্য-প্রযুক্তি আইনের একটি মামলায় গ্রেফতার করেছে পুলিশের কাউন্টার টেররিজম ইউনিট। পুলিশের বিশেষায়িত এ ইউনিটের অতিরিক্ত উপকমিশনার নাজমুল ইসলাম বলেন, গত বুধবার মধ্যরাতে রাজধানীর হাতিরঝিল এলাকা থেকে ফুয়াদকে তারা গ্রেফতার করেন। তিনি বলেন, বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানকে নিয়ে কটূক্তি এবং তার আত্মস্বীকৃত খুনিদের প্রশংসা করে ফেসবুকে পোস্ট দেওয়ায় অভিযোগে এক মামলায় তাকে গ্রেফতার করা হয়েছে। বঙ্গবন্ধু প্রকৌশলী পরিষদের আহছানউল্লাহ বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয় শাখার সদস্য মোহাম্মদ নাজমুল হাসান পিয়াস গত ২৩ আগস্ট ধানমন্ডি মডেল থানায় তথ্যপ্রযুক্তি আইনে ওই মামলা করেন। আসামি ফুয়াদ জামান জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের খুনি অবসরপ্রাপ্ত লেফটেন্যান্ট কর্নেল সুলতান শাহরিয়ার রশিদের মেয়ে শেহনাজ রশিদ খানের স্বামী বলে এজাহারে উল্লেখ করা হয়। মামলার এজাহারে বলা হয়, বঙ্গবন্ধুর নৃশংস হত্যাকান্ড নিয়ে কটূক্তি করে এবং আদালতের রায়ে প্রমাণিত হত্যাকারীদের প্রকাশ্যে সমর্থন জানিয়ে গত ১৫ অগাস্ট ফেসবুকে একটি পোস্ট দেন ফুয়াদ। বিষয়টি জাতির পিতার প্রতি ‘চরম অসম্মান ও মানহানিকর এবং উসকানিমূলক’ বলে অভিযোগ করা হয় মামলায়। এদিকে এ মামলায় ফুয়াদ জামানকে তিনদিনের রিমান্ড দিয়েছেন আদালত। গতকাল বৃহস্পতিবার ঢাকার অতিরিক্ত মুখ্য মহানগর হাকিম কায়সারুল ইসলাম এ আদেশ দেন। আদালতের সাধারণ নিবন্ধন কর্মকর্তা (জিআরও) মকবুল হোসেন বলেন, ঢাকার মুখ্য মহানগর হাকিমের আদালতে ধানমন্ডি থানা পুলিশ বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের আত্মস্বীকৃত খুনি লেফটেন্যান্ট কর্নেল (অব.) সুলতান শাহরিয়ার রশিদ খানের জামাতা ফুয়াদ জামানকে হাজির করে সাতদিন রিমান্ডে নেওয়ার আবেদন করেন। সে আবেদনের পরিপ্রেক্ষিতে বিচারক তিনদিনের রিমান্ডের আদেশ দেন। ঢাকা মহানগর পুলিশের (ডিএমপি) উপকমিশনার (ডিসি-মিডিয়া) মাসুদুর রহমান বলেন, ফুয়াদ জামানকে ধানমন্ডি থানার আইসিটি আইনের একটি মামলায় গ্রেফতার করা হয়েছে এবং সাতদিনের রিমান্ডের আবেদন করে তাঁকে আদালতে পাঠানো হয়েছে। বাংলাদেশের স্বাধীনতার চার বছরের মধ্যে ১৯৭৫ সালের ১৫ অগাস্ট স্বাধীনতার স্থপতি শেখ মুজিবুর রহমানকে সপরিবারে হত্যা করে একদল সেনা সদস্য। তারপর ইনডেমিনিটি অধ্যাদেশের মাধ্যমে বিচারের পথও রুদ্ধ করে দেওয়া হয়। ১৯৯৬ সালে আওয়ামী লীগ ক্ষমতায় ফেরার পর বিচারের পথ খোলে; মামলার পর বিচার শুরু হলেও বিএনপি-জামায়াত জোট ক্ষমতায় যাওয়ার পর ফের শ্লথ হয়ে যায় মামলার গতি। আওয়ামী লীগ ২০০৯ সালে পুনরায় ক্ষমতায় ফেরার পর মামলার চূড়ান্ত নিষ্পত্তি করে দ-িত সুলতান শাহরিয়ার রশিদসহ পাঁচজনের ফাঁসি ২০১০ সালের ২৭ জানুয়ারি কার্যকর হয়। রশিদ খানের গ্রামের বাড়ি ব্রাহ্মণবাড়িয়ার কসবা উপজেলার গোপীনাথপুর গ্রামে।

 

‘ফেসবুকে গুজব ছড়ানোয়’ গ্রেপ্তার ফারিয়া রিমান্ডে
                                  

 

নিরাপদ সড়কের আন্দোলনের মধ্যে ফেইসবুকে ‘উসকানিমূলক পোস্ট দিয়ে গুজব ছড়ানোর’ অভিযোগে গ্রেপ্তার ফারিয়া মাহজবিনকে তথ্য প্রযুক্তি আইনের এক মামলায় তিন দিনের রিমান্ডে দিয়েছেন আদালত।

পুলিশের রিমান্ড আবেদনের শুনানি শেষে ঢাকার মহানগর হাকিম এ কে এম মাইনুদ্দীন শুক্রবার এই রিমান্ড মঞ্জুর করেন।

 

ঢাকার নর্থ ওয়েস্টার্ন ইউনিভার্সিটিতে লেখাপড়া করা ফারিয়া মাহজাবিন (২৮) ধানমণ্ডিতে নার্ডি বিন কফি হাউজ নামে একটা কফিশপ চালান।

বৃহস্পতিবার রাতে হাজারীবাগ থানাধীন হাজী আফসার উদ্দিন রোডের বাসা থেকে ফারিয়াকে গ্রেপ্তার করা হয় বলে শুক্রবার সকালে র‌্যাবের পক্ষ থেকে জানানো হয়।

শুক্রবার বেলা ১১টার দিকে র‌্যাব ফারিয়াকে হাজারীবাগ থানায় সোপর্দ করে তার বিরুদ্ধে তথ্য প্রযুক্তি আইনের ৫৭(২) ধারার মামলা দায়ের করে। সেখানে আরেকজনকে আসামি করে তাকে পলাতক দেখানো হয়।

গত ২৯ জুলাই রাজধানীর কুর্মিটোলার বিমানবন্দর সড়কে জাবালে নূর পরিবহনের বাসের চাপায় দুই কলেজ শিক্ষার্থী নিহত হয়। এ ছাড়া আহত হয়েছে বেশ কয়েকজন। নিহত শিক্ষার্থীরা হলো শহীদ রমিজ উদ্দিন ক্যান্টনমেন্ট কলেজের একাদশ শ্রেণির বিজ্ঞান বিভাগের ছাত্রী দিয়া খানম মিম ও দ্বাদশ শ্রেণির ছাত্র আবদুল করিম রাজীব।

এ ঘটনার পর নিরাপদ সড়কের দাবিতে রাজধানীতে আন্দোলনে নামে স্কুল-কলেজের কোমলমতি শিক্ষার্থীরা। পরে এই আন্দোলন সারা দেশে ছড়িয়ে পড়ে। আন্দোলনের শেষ দিকে এসে এতে বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীরাও যোগ দেন। তখন পুলিশের সঙ্গে বিভিন্ন স্থানে শিক্ষার্থীদের সংঘর্ষ হয়।

গত মঙ্গলবার ঢাকা মেট্রোপলিটন পুলিশের (ডিএমপি) সংবাদভিত্তিক পোর্টাল ডিএমপি নিউজের এক প্রতিবেদনে বলা হয়, সপ্তাহব্যাপী ধরে চলা এ আন্দোলনে সহিংসতা, ভাঙচুর, অগ্নিসংযোগ এবং ইন্টারনেটে সামাজিক যোগযোগমাধ্যমে উসকানি ও গুজব ছড়ানোর ঘটনায় ঢাকার বিভিন্ন থানায় মোট ৫১টি মামলা হয়েছে; গ্রেফতার করা হয়েছে ৯৭ জনকে।

ফারিয়া মাহজাবিনকে গ্রেফতারের পর সংখ্যাটি গিয়ে দাঁড়াল ৯৮ জনে।

এর মধ্যে তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি (আইসিটি) আইন, দণ্ডবিধি ও বিশেষ ক্ষমতা আইনের মামলা রয়েছে। গ্রেপ্তারকৃতদের মধ্যে বিভিন্ন বিশ্ববিদ্যালয়ের ২২ শিক্ষার্থী, প্রখ্যাত আলোকচিত্রী ড. শহিদুল আলম, অভিনেত্রী কাজী নওশাবা আহমেদও রয়েছেন। তাদের সবাই এখন কারাগারে আছেন।

র‍্যাপিড অ্যাকশন ব্যাটালিয়নের (র‍্যাব-২) জ্যেষ্ঠ সহকারী পরিচালক (মিডিয়া) রবিউল ইসলাম বলেন, গোয়েন্দা তথ্যের ভিত্তিতে র‌্যাব-২-এর একটি দল গতকাল রাত পৌনে ১১টার দিকে অভিযান চালিয়ে ধানমন্ডির ওই বাসা থেকে ফারিয়া মাহজাবিনকে গ্রেফতর করে। তার কাছ থেকে একটি মোবাইল ফোন সেট, এক পাতা করে ফেসবুক আইডি প্রোফাইলের প্রিন্ট কপি এবং অডিও ক্লিপের প্রিন্ট কপি জব্দ করা হয়।

ফারিয়ার দেয়া তথ্যের বরাতে রবিউল জানান, প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদে তিনি বলেছেন যে, ছাত্র আন্দোলনকে ভিন্ন খাতে প্রবাহিত ও দীর্ঘায়িত করে আইনশৃঙ্খলা পরিস্থিতির অবনতি ঘটানোর উদ্দেশ্যে ফেসবুক আইডি মেসেঞ্জার থেকে বিভিন্ন রকম স্ট্যাটাস ও উসকানিমূলক মিথ্যা তথ্যসংবলিত অডিও ক্লিপ রেকর্ড করে পোস্ট করতেন।

র‍্যাব জানায়, এসব তিনি ব্যক্তিগত মোবাইলে ইন্টারনেট ব্যবহার করে করতেন।

র‌্যাব আরো জানায়, বাসের চাপায় দুই শিক্ষার্থী নিহত হওয়ার ঘটনার পর ‘নিরাপদ চড়ক চাই’ আন্দোলন শুরু করে শিক্ষার্থীরা। ফারিয়া আন্দোলনরত শিক্ষার্থীদের সঙ্গে উদ্দেশ্যমূলকভাবে সংহতি প্রকাশ করে ফেসবুকে বিভিন্ন ধরনের মিথ্যা, বানোয়াট ছবি, গুজব সংবাদ, বানোয়াট ভিডিও ভাইরাল, দেশের আইনশৃঙ্খলা পরিস্থিতি ভিন্ন খাতে নেওয়ার জন্য বিভ্রান্তমূলক স্ট্যাটাস দিতেন। ‘নিরাপদ সড়ক চাই’ আন্দোলনের পরিপ্রেক্ষিতে সরকার ছাত্রদের সব দাবি মেনে নিলেও অন্য সহযোগীদের নিয়ে অন্যায়ভাবে বিক্ষোভ কর্মসূচি পরিচালনা এবং রাস্তায় সাধারণ মানুষের ওপর হামলা করার উদ্দেশ্যে অপতৎপরতা করে আসছেন ফারিয়া। তাকে জিজ্ঞাসাবাদে প্রাপ্ত গুরুত্বপূর্ণ তথ্য যাচাই-বাছাই করে ভবিষ্যতে এ ধরনের অভিযান অব্যাহত থাকবে বলে জানায় র‍্যাব।

 

বিভিন্ন বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীকে কেন গ্রেফতার করা হচ্ছে?
বিবিসি বাংলা
বাংলাদেশে নিরাপদ সড়কের দাবিতে আন্দোলনের পর এ পর্যন্ত বিভিন্ন বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রায় শ`খানেক শিক্ষার্থী গ্রেপ্তারের বিষয়ে পুলিশ বলেছে, আন্দোলনের সময় অনলাইনে সামাজিক নেটওয়ার্কের মাধ্যমে উস্কানি দেয়া এবং সহিংসতায় অংশ নেয়ার সুনির্দিষ্ট অভিযোগে তাদের গ্রেফতার করা হয়েছে।

সাধারণ শিক্ষার্থীদের অনেকে বলেছেন, তাদের মধ্যে গ্রেফতার আতঙ্ক তৈরি হয়েছে।

মানবাধিকার কর্মীরা বলছেন, সরকার দমন নীতি চালাচ্ছে।

গত ২৯ জুলাই ঢাকায় বাস চাপায় দু`জন শিক্ষার্থীর মৃত্যুর পর নিরাপদ সড়কের দাবিতে স্কুল-কলেজের ছাত্র-ছাত্রীদের বিক্ষুব্ধ আন্দোলনের এক পর্যায়ে বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীরাও যোগ দেয়।

এপর্যন্ত যাদের গ্রেফতার করা হয়েছে, তাদের মধ্যে নর্থ সাউথ এবং ইস্ট ওয়েস্ট -এই দু`টি বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয়ের ২২ শিক্ষার্থীকে গত সপ্তাহেই দু`দিনের করে রিমান্ড শেষে কারাগারে রাখা হয়েছে।

এরপর গত কয়েকদিনে গ্রেফতারকৃত বাকি শিক্ষার্থীরা ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়সহ নগরীর বিভিন্ন বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থী।

নিরাপদ সড়কের দাবিতে স্কুল কলেজ শিক্ষার্থীদের আন্দোলনের আগে সরকারি চাকরিতে কোটা পদ্ধতিতে সংস্কারের দাবিতে যে আন্দোলন হয়েছিল। সেই আন্দোলনেরও কয়েকজন নেতা এখন গ্রেফতারকৃতদের মধ্যে রয়েছেন।

কোটা সংস্কার আন্দোলনের একজন নেতা লুৎফুন্নাহার লুমাকে সিরাজগঞ্জ থেকে গ্রেফতার করা হয় গত বুধবার। নিরাপদ সড়কের দাবিতে আন্দোলনে সামাজিক মাধ্যমে গুজব ছড়ানোর অভিযোগ আনা হয়েছে তার বিরুদ্ধে।

নাম প্রকাশ না করার শর্তে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের একজন শিক্ষার্থী বলছিলেন, পরিস্থিতির কারণে তাদের সাধারণ শিক্ষার্থীদের মধ্যেও ভয় তৈরি হয়েছে।

‘অনেকের মধ্যে অনেক ভয় কাজ করতেছে।এখন অনেক জেনারেল স্টুডেন্ট ছিল, যারা এরআগে কখনও কোনো ধরণের আন্দোলনে আসেনি। তাদের ক্ষেত্রে যেটা হয়, এই যে ধরে নিয়ে যাওয়া বা জেলে নিয়ে যাওয়া, এই এক্সপেরিয়েন্সটাতো কারো নাই। এখন যে মামলা দিয়ে দিলো, ধরে নিয়ে গেলো, এটাতো তাদের সারা জীবন ট্রমা হিসেবে থাকবে।’

‘মামলার কারণে চাকরি পাওয়ার ক্ষেত্রেও সমস্যা হতে পারে। আবার মামলা চালানোরও একটা ব্যাপার আছে।পরিবারকে দীর্ঘসময় মামলা চালাতে হতে পারে।’

নিরাপদ সড়কের দাবিতে আন্দোলনকে কেন্দ্র করে ঢাকার বিভিন্ন থানায় মামলা হয়েছে ৫১টি।

এসব মামলায় অভিযুক্ত করা হয়েছে অজ্ঞাতনামা কয়েকশ।

ফলে যাদের আটক করা হয়, তাদের পরে এসব মামলায় গ্রেফতার দেখানো হয়েছে।

পুলিশ বলছে, স্কুল কলেজের শিক্ষার্থীরা তাদের আন্দোলন শেষ করে ক্লাসে ফিরে গিয়েছিল।কিন্তু পরে বিভিন্ন বিশ্ববিদ্যারয়ের শিক্ষার্থীরা নেমেছিলেন। তখনই সহিংসতা হয়েছে এবং গুজব ছড়ানোসহ নানান ধরণের উস্কানিমূলক কর্মকাণ্ড চলেছে বলে পুলিশ উল্লেখ করেছে।

ঢাকা মহানগর পুলিশের মুখপাত্র মাসুদুর রহমান বলেছেন,সুনির্দিষ্ট দু`টি অভিযোগে ভাগ করে মামলাগুলো হয়েছে।

‘৫১টি মামলার মধ্যে আটটি তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি আইনে রুজু হয়েছে। যেখানে ফেসবুক বা অন্যান্য সামাজিক মাধ্যম ব্যবহার করে বিভিন্ন ধরণের অপপ্রচার বা গুজব, এ ধরণের কনটেন্ট বা কমেন্ট লেখা বা লাইক দেয়া-এ রকম কিছু বিষয় ছিল।আর বাকি ৪৩টি মামলা হয়েছে ভাঙচুর, অগ্নিসংযোগসহ সহিংসতার বিভিন্ন অভিযোগে।’

তবে শিক্ষার্থীদের উপর পুলিশের হেলমেট পরা যুবকদের হামলার ঘটনাগুলোও আলোচনার সৃষ্টি করেছিল। সে ব্যাপারে কোনো ব্যবস্থা না নিয়ে শিক্ষার্থীদের উপর দমননীতি চালানো হচ্ছে বলে মনে করেন মানবাধিকার কর্মি সুলতানা কামাল।

‘হেলমেট পরে লাঠিসোটা নিয়ে নামলা, তাদের বিরুদ্ধে এখনও কোনো পদক্ষেপ নিতে দেখলাম না।কিন্তু খুঁজে খুঁজে ছাত্রদের এমনকি সিরাজগঞ্জ থেকেও একজন ছাত্রীকে ধরে আনা হয়েছে।এ ধরণের পদক্ষেপগুলো কিন্তু সরকারের হার্ডলাইনে মানে দমননীতির পর্যায়ে পরে যায়।’

সরকারের সিনিয়র একাধিক মন্ত্রীর সাথে কথা বলে মনে হয়েছে যে, নির্বাচনের আগে তাদেরকে বিরোধীপক্ষ চাপে ফেলতে চাইবে। সেজন্য সামাজিক ইস্যু ধরে রাজপথ উত্তপ্ত করার আরও চেষ্টা হতে পারে বলে তারা মনে করেন।

আর সেকারণে তারা এখন কঠোর অবস্থান নিয়ে একটা বার্তা দিতে চাইছেন।

এছাড়া তারা মনে করেন, কোটা সংস্কার এবং নিরাপদ সড়কের দাবিতে আন্দোলনের এক পর্যায় তাতে রাজনীতি ঢুকে পড়েছিল।

পুলিশ কর্মকর্তা মাসুদুর রহমান বলেছেন, সুনির্দিষ্ট অভিযোগে তথ্য-প্রমাণ যাদের বিরুদ্ধে পাওয়া গেছে, তাদেরকেই গ্রেফতার করা হয়েছে।


   Page 1 of 7
     অপরাধ
বাসায় খাদ্যমন্ত্রীর মেয়ে জামাইয়ের মৃত্যু, স্বজনদের দাবি হত্যাকাণ্ড
.............................................................................................
এবার চকবাজারে ভাঙারি দোকানে বিস্ফোরণ, দগ্ধ ৩
.............................................................................................
আগুন লাগা বস্তির পাশের ডোবায় মিলল ২ শিশুর লাশ
.............................................................................................
স্মার্টরা যেভাবে ধ্বংস করে তাদের ক্যারিয়ার
.............................................................................................
ঢা‌বিতে গাছ প‌ড়ে নারী নিহত, আহত ৭
.............................................................................................
রাজধানীতে গ্যাসলাইন বিস্ফোরণ, দুই গাড়িতে আগুন
.............................................................................................
উচ্ছেদ অভিযানে বাধা: আটক ছাত্রলীগ নেতা মুচলেকায় মুক্ত
.............................................................................................
কোটি টাকার সরকারি ও নকল ক্যান্সার ঔষধ জব্দ, গ্রেফতার ২
.............................................................................................
সবুজবাগে বাসায় নটর ডেম কলেজ ছাত্রের লাশ
.............................................................................................
ইন্টারভিউ দিতে এসে প্রাণ গেল নারী ‍চিকিৎসকের
.............................................................................................
পাকিস্তান হাই কমিশনে চুরি, ৬ চোর পাকড়াও
.............................................................................................
তেজগাঁওয়ে মালবাহী ট্রেনের বগি লাইনচ্যুত
.............................................................................................
লঞ্চের কেবিন থেকে ব্লগার জুলভার্ন ‘নিখোঁজ’
.............................................................................................
পোস্তগোলা ব্রিজ এলাকায় শ্রমিক-পুলিশ সংঘর্ষ-গোলাগুলি, নিহত ১, আহত শতাধিক পুলিশ
.............................................................................................
বঙ্গবন্ধুর খুনি রশিদের জামাতা গ্রেফতারের পর রিমান্ডে
.............................................................................................
‘ফেসবুকে গুজব ছড়ানোয়’ গ্রেপ্তার ফারিয়া রিমান্ডে
.............................................................................................
পরিবহন শ্রমিকদের জন্য অবাধ ‘নেশা
.............................................................................................
গুজব ছড়ানোর দায় স্বীকার করেছে নওশাবা : র‌্যাব
.............................................................................................
উদ্বোধনের আগেই ট্রেনের মূল্যবান যন্ত্রাংশ চুরি!
.............................................................................................
মৌলভীবাজারে ঘুষ গ্রহণের অভিযোগে প্রকৌশলী আটক
.............................................................................................
কোটি টাকার ইয়াবাসহ শ্যামলী বাস আটক
.............................................................................................
ইউনাইটেড হাসপাতালকে ২০ লাখ টাকা জরিমানা
.............................................................................................
বাংলাদেশে তৈরি হয়ে ভারতে পাচার হচ্ছে জাল রুপি
.............................................................................................
হাত দিয়ে জিন ধরেন ‘টেরট বাবা’
.............................................................................................
চোরাচালানকারীদের হাতকড়া পরানোর অনুমতি চায় শুল্ক গোয়েন্দা
.............................................................................................
ঘুষ গ্রহণের অভিযোগে কৃষি ব্যাংকের ঋণ কর্মকর্তাসহ দু’জন আটক
.............................................................................................
পাহাড়ে এত অস্ত্র আসছে কোত্থেকে
.............................................................................................
অবৈধভাবে পারাপারের সময় বেনাপোল সীমান্তে ৩২ বাংলাদেশি আটক
.............................................................................................
মুন্সীগঞ্জে সেতু প্রকল্পের তেল চুরির দায়ে আটক তিনজন কারাগারে
.............................................................................................
ডিবি পুলিশ পরিচয়ে প্রতারক চক্রের ৫ সদস্য আটক
.............................................................................................
রাজনৈতিক পরিচয়ে চলছে আন্ডারওয়ার্ল্ডের চাঁদাবাজি
.............................................................................................
এবি ব্যাংকের অর্থ পাচার: দুদকের জিজ্ঞাসাবাদে ব্যবসায়ী সাইফুল
.............................................................................................
৪ লাখ টাকায় বিসিএসের প্রশ্ন!
.............................................................................................
পিডিবির সাবেক প্রধান প্রকৌশলীর বিরুদ্ধে দুদকের ২ মামলা
.............................................................................................
অবৈধ সম্পদ অর্জনের অভিযোগে দুদক কর্মকর্তা বরখাস্ত
.............................................................................................
ব্রাহ্মণবাড়িয়ায় কৃষি মন্ত্রণালয়ের গাড়িতে ফেন্সিডিল, অ্যাম্বুলেন্সে আড়াই মণ গাঁজা
.............................................................................................
নোয়াখালীতে সোনালী ব্যাংকের ৫ কর্মকর্তা গ্রেফতার
.............................................................................................
ঘুষের টাকা গ্রহণকালে ভূমি কর্মকর্তা গ্রেপ্তার
.............................................................................................
উড়োজাহাজ ভাড়া করায় অনিয়ম: বাংলাদেশ বিমানের সাবেক চেয়ারম্যানকে তলব
.............................................................................................
৩০ কোটি টাকা আত্মসাৎ, কারখানা মালিক গ্রেপ্তার
.............................................................................................
রোহিঙ্গাদের কাছে অবৈধভাবে ২ লাখ সিম বিক্রির অভিযোগ
.............................................................................................
৪৯ কোটি টাকা আত্মসাতে কৃষি ব্যাংক কর্মকর্তা গ্রেপ্তার
.............................................................................................
গ্যালাক্সি সোয়েটার্সের ৬৫ কোটি টাকার শুল্ক ফাঁকি, মামলা
.............................................................................................
ঘুষবাণিজ্য বন্ধে ব্যবস্থা গ্রহণের নির্দেশ
.............................................................................................
লঘু শাস্তিতে কমছে না পুলিশের অসাধু সদস্যদের অপরাধ
.............................................................................................
পুলিশে অপরাধ কমছে না
.............................................................................................
ভূমি ডিজিটাল সেন্টারেও গ্রাহকদের পদে পদে হয়রানি
.............................................................................................
রাবির হলে গভীর রাতে ককটেল বিস্ফোরণ
.............................................................................................
কাঁঠালিয়ায় র‌্যাব সদস্যকে কোপাল মাদক ব্যবসায়ীরা
.............................................................................................
`হজের মতো একটি পবিত্র কাজেও ঘুষ দিতে হয়`
.............................................................................................

|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
স্বাধীন বাংলা মো. খয়রুল ইসলাম চৌধুরী কর্তৃক সম্পাদিত ও ঢাকা-১০০০ হতে প্রকাশিত
প্রধান উপদেষ্টা: ফিরোজ আহমেদ (সাবেক সচিব, বাণিজ্য মন্ত্রণালয়)
উপদেষ্টা: আজাদ কবির
সম্পাদক মন্ডলীর সভাপতি: ডাঃ হারুনুর রশীদ
সম্পাদক মন্ডলীর সহ-সভাপতি: মামুনুর রশীদ
ব্যবস্থাপনা সম্পাদক : মো: খায়রুজ্জামান
যুগ্ম সম্পাদক: জুবায়ের আহমদ
বার্তা সম্পাদক: মুজিবুর রহমান ডালিম
স্পেশাল করাসপনডেন্ট : মো: শরিফুল ইসলাম রানা
যুক্তরাজ্য প্রতিনিধি: জুবের আহমদ
যোগাযোগ করুন: swadhinbangla24@gmail.com
    2015 @ All Right Reserved By swadhinbangla.com

Developed By: Dynamicsolution IT [01686797756]