| বাংলার জন্য ক্লিক করুন
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|

   রাজনীতি -
                                                                                                                                                                                                                                                                                                                                 
কাউন্সিল স্থগিতাদেশের প্রতিবাদে ছাত্রদলের বিক্ষোভ

জাতীয়তাবাদী ছাত্রদলের কাউন্সিলে আদালতের অস্থায়ী নিষেধাজ্ঞার প্রতিবাদে বিক্ষোভ অব্যাহত রেখেছেন ছাত্রদলের নেতাকর্মীরা। গতকাল শনিবার বিকেলে রাজধানীর নয়াপল্টন এলাকায় বিক্ষোভ প্রদর্শন করেন তারা। ছাত্রদলের সাধারণ সম্পাদক প্রার্থী মো. মোস্তাফিজুর রহমানের নেতৃত্বে ছাত্রদল নেতারা বিক্ষোভ মিছিল করেন। বিএনপির কেন্দ্রীয় কার্যালয়ের সামনে থেকে বিক্ষোভ মিছিলটি শুরু হয়ে নাইটিঙ্গেল মোড় হয়ে আবার বিএনপি কার্যালয়ের সামনে এসে শেষ হয়।

মিছিলে অন্যান্যের মধ্যে মো. ফরিদ উদ্দিন খান, ওলি আব্বাসী, মোস্তাহিদ খান, মোন্তাসির হাসান সোহাগ, আরিফ খান সজীব, আহমুদুল্লাহ চঞ্চল প্রমুখ অংশ নেন। কাউন্সিলে আদালতের অস্থায়ী নিষেধাজ্ঞার জন্য বিক্ষোভকারীরা সরকারকে দায়ী করেন। একই ইস্যুতে গত শুক্রবারও ছাত্রদল নেতারা নয়াপল্টনে বিক্ষোভ দেখান।

কাউন্সিল স্থগিতাদেশের প্রতিবাদে ছাত্রদলের বিক্ষোভ
                                  

জাতীয়তাবাদী ছাত্রদলের কাউন্সিলে আদালতের অস্থায়ী নিষেধাজ্ঞার প্রতিবাদে বিক্ষোভ অব্যাহত রেখেছেন ছাত্রদলের নেতাকর্মীরা। গতকাল শনিবার বিকেলে রাজধানীর নয়াপল্টন এলাকায় বিক্ষোভ প্রদর্শন করেন তারা। ছাত্রদলের সাধারণ সম্পাদক প্রার্থী মো. মোস্তাফিজুর রহমানের নেতৃত্বে ছাত্রদল নেতারা বিক্ষোভ মিছিল করেন। বিএনপির কেন্দ্রীয় কার্যালয়ের সামনে থেকে বিক্ষোভ মিছিলটি শুরু হয়ে নাইটিঙ্গেল মোড় হয়ে আবার বিএনপি কার্যালয়ের সামনে এসে শেষ হয়।

মিছিলে অন্যান্যের মধ্যে মো. ফরিদ উদ্দিন খান, ওলি আব্বাসী, মোস্তাহিদ খান, মোন্তাসির হাসান সোহাগ, আরিফ খান সজীব, আহমুদুল্লাহ চঞ্চল প্রমুখ অংশ নেন। কাউন্সিলে আদালতের অস্থায়ী নিষেধাজ্ঞার জন্য বিক্ষোভকারীরা সরকারকে দায়ী করেন। একই ইস্যুতে গত শুক্রবারও ছাত্রদল নেতারা নয়াপল্টনে বিক্ষোভ দেখান।

রাবিতে ছাত্রলীগের দু’পক্ষের সংঘর্ষে আহত ৪
                                  

 রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ে হলের অতিথি কক্ষে বসা নিয়ে ছাত্রলীগের দুই পক্ষের মারামারিতে চারজন আহত হয়েছেন। বিশ্ববিদ্যালয়ের মাদারবখশ হলে গতকাল শুক্রবার বেলা সাড়ে ১২টার দিকে এ ঘটনা ঘটে। বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রক্টর মো. লুৎফর রহমান বলেন, অতিথি কক্ষে বসাবসি নিয়ে দ্বন্দ্ব থেকে এই মারামারি হয়। এতে চারজন আহত হলে তাদের বিশ্ববিদ্যালয়ের মেডিকেল সেন্টারে প্রাথমিক চিকিৎসা দেওয়া হয়েছে। এখন পরিস্থিতি কর্তৃপক্ষের নিয়ন্ত্রণে রয়েছে। ঘটনার প্রত্যক্ষদর্শীরা জানান, কেন্দ্রীয় ছাত্রলীগের সাবেক সদস্য সাকিবুল হাসান বাকির অনুসারী লিমন হোসেন তার দুই বান্ধবীকে নিয়ে মাদারবখশ হলের অতিথি কক্ষে আসেন।

সে সময় সেখানে বিশ্ববিদ্যালয় ছাত্রলীগের সভাপতি গোলাম কিবরিয়ার অনুসারী কামরুল ইসলাম তার এক বন্ধুকে নিয়ে বসে ছিলেন। লিমন তার বান্ধবীদের বসার জায়গা করে দিতে বললে কামরুল তাকে মারধর করেন বলে প্রত্যক্ষদর্শীরা জানান। পরে হলের সামনে বাকির অনুসারী ও কিবরিয়ার অনুসারীদের মধ্যে মারামারি হয়। লিমন বিশ্ববিদ্যালয়ের স্পোর্টস সায়েন্স বিভাগের চতুর্থ বর্ষের শিক্ষার্থী। আর কামরুল সমাজবিজ্ঞান বিভাগের তৃতীয় বর্ষের শিক্ষার্থী। দুইজনই ওই হলের আবাসিক শিক্ষার্থী বলে জানিয়েছেন হলের প্রাধ্যক্ষ মো.আব্দুল আলীম। মারামারি সম্পর্কে বাকি অভিযোগ করেছেন, তার অনুসারীদের ওপর নানা ধরনের অত্যাচার করা হচ্ছে। আড়াই বছর ধরে আমাদের কোনো পদ দেয়নি। বরং আমার কর্মীদের মারধর করেছে। তারা হলে থেকে যে ঠিকমতো পড়ালেখা চালিয়ে যাবে সে অবস্থাও নেই। বিশ্ববিদ্যালয় ছাত্রলীগের সহ-সভাপতি সুরঞ্জিত প্রসাদ বৃত্ত, আরিফ বিন জহির, মিজানুর রহমান সিনহা, সাংগঠনিক সম্পাদক চঞ্চল কুমার অর্ক, ছাত্রলীগকর্মী সুব্রত মারামারিতে নেতৃত্ব দিয়েছেন বলে তার অভিযোগ।

এসব অভিযোগ অস্বীকার করেছেন বিশ্ববিদ্যালয় ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক ফয়সাল আহমেদ রুনু। তিনি বলেন, আমরা মারামারির ঘটনা শুনে ঘটনাস্থলে গিয়ে পরিস্থিতি শান্ত করি। এখানে কোনো দল বা পক্ষের কাউকে মারধর করা হয়নি। তবে পরে তিনি বলেন, আমরা বসেছিলাম। পরিস্থিতি এখন শান্ত। ঘটনার সময় মাদারবখস হলের প্রাধ্যক্ষ মো.আব্দুল আলীম মোবাইল ফোনে বলেন, তিনি রাজশাহীর বাইরে রয়েছেন। তবে তিনি প্রক্টর ও হলের অন্যান্যের বিষয়টি নিয়ন্ত্রণে আনার চেষ্টা করতে বলেছেন। তিনি ঢাকা থেকে ফিরে তদন্ত করে তাদের বিষয়ে ব্যবস্থা নেবেন বলে জানান।

 

সরকারের হস্তক্ষেপেই ছাত্রদলের কাউন্সিলে স্থগিতাদেশ: ফখরুল
                                  

সরাসরি সরকারের হস্তক্ষেপ আছে বলেই ছাত্রদলের কাউন্সিলে স্থগিতাদেশ দেয়া হয়েছে উল্লেখ করে বিএনপির মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর দাবি করেছেন, ছাত্রদলের কাউন্সিল অনুষ্ঠানের সঙ্গে বিএনপি জড়িত নয়। গতকাল শুক্রবার সন্ধ্যায় গুলশানে বিএনপি চেয়ারপারসনের রাজনৈতিক কার্যালয়ে দলটির সিনিয়র নেতাদের সঙ্গে বৈঠক শেষে সংবাদ ব্রিফিংয়ে তিনি এ কথা বলেন। মির্জা ফখরুল বলেন, ছাত্রদলের বিষয়ে ছাত্রদল নেতারা আলাপ করছেন। তারা সিদ্ধান্ত নেবে। এটা তাদের ব্যাপার। আমরা বিএনপি এটার সঙ্গে জড়িত নই। আমাদেরকে যেটা পক্ষ করা হয়েছে আমরা আমাদের উত্তরগুলো কোর্টের কাছে যথাসময়ে দেব।

ছাত্রদলের সিদ্ধান্ত ছাত্রদলই নেবে। কাউন্সিলের কী হবে-এমন প্রশ্নে বিএনপি মহাসচিব বলেন, এটা ছাত্রদলই করবে। এটা তারা বলবে। আমি বিএনপির সেক্রেটারি জেনারেল হিসেবে এ কথা বলছি না। এটা তারা বলবে। ছাত্রদলের তো কমিটি নেই-এ বিষয়ে দৃষ্টি আকর্ষণ করা হলে ফখরুল বলেন, এ বিষয়ে যারা দায়িত্বে আছেন তারা বলবেন। ব্রিফিংয়ের শুরুতেই বিএনপি মহাসচিব বলেন, আপনারা সবাই ছাত্রদলের কাউন্সিলের স্থগিতাদেশের ব্যাপারে জানতে আগ্রহী, কী সিদ্ধান্ত? এরপর তিনি বলেন, হঠাৎ করে এ বিষয়টা সামনে এসেছে, একেবারে শেষ মুহূর্তে সকলের অগোচরে। বোঝা যায়, এখানে সরাসরি সরকারের হস্তক্ষেপ আছে বলেই স্থগিতাদেশ দেয়া হয়েছে। এ সময় তিনি প্রশ্ন রাখেন- আসলে বর্তমানে সরকার যারা আছেন তারা কি চান বাংলাদেশে নূন্যতম গণতন্ত্রের পরিস্থিতি, পরিবেশ থাকুক? বিএনপি মহাসচিব বলেন, আজকে বর্তমান সরকার যে কালচার তৈরি করেছে, রাজনৈতিক সংস্কৃতি তৈরি করেছে, এটা ভয়বাহ। তা হলো আদালতকে দিয়ে রাজনীতি নিয়ন্ত্রণ করা। গত দশ বছর ধরে তারা এই সংস্কৃতি তৈরি করেছে। সরকার আদালতকে ব্যবহার করে বিভিন্ন আইন-কানুন তৈরি করে গণতান্ত্রিক অধিকার কেড়ে নিয়েছে বলে অভিযোগ করেন বিএনপি মহাসচিব।

তিনি বলেন, আদালতকে প্রশ্নবিদ্ধ করে দেয়া, আদালতকে দলীয়করণের দিকে নেয়া দেশ ও জাতির জন্য শুভ নয়। তিনি আরও বলেন, রাজনীতিতে আদালতের হস্তক্ষেপ কখনোই কোনো গণতান্ত্রিক রাষ্ট্রের জন্য, জাতির ভবিষ্যতের জন্য শুভ হতে পারে না। তিনি বলেন, একটা দল আসবে একটা দল যাবে-এটাই নিয়ম। কিন্তু তারা যদি ভাবেন যতদিন পৃথিবী থাকবে ততদিন তারা থাকবেন, তাহলে তারা বোকার স্বর্গে বাস করছেন।

 

ফরিদগঞ্জে বেগম খালেদা জিয়ার মুক্তির দাবিতে মানববন্ধন
                                  

ফরিদগঞ্জ প্রতিনিধি:

 বিএনপি চেয়ারপার্সন ও কারা অন্তরীন বেগম খালেদা জিয়ার বিরুদ্ধে মিথ্যা মামলা ও নিঃশর্ত মুক্তির দাবিতে কেন্দ্রীয় কর্মসুচীর অংশ হিসেবে মানববন্ধন করেছেন ফরিদগঞ্জ উপজেলা বিএনপি। বৃহস্পতিবার সকালে উপজেলার শোল্লা বাজারে এ মানববন্ধন অনুষ্ঠিত হয়। সুবিদপুর পূর্ব ইউনিয়ন বিএনপি’র সভাপতি ও সাবেক চেয়ারম্যান মোঃ মফিজুল ইসলাম চৌধুরীর সভাপতিত্বে বক্তব্য রাখেন উপজেলা বিএনপির সিনিয়র যুগ্ম আহবায়ক মোঃ মজিবুর রহমান দুলাল, যুগ্ন আহবায়ক আমানত গাজী, সদস্য ডাঃ আবুল কালাম আজাদ, জেলা যুবদলের সদস্য মোঃ আব্দুল মতিন।

এসময় বক্তরা বক্তব্যে বলেন, সরকার দেশনেত্রী বেগম খালেদা জিয়াকে মিথ্যা মামলা দিয়ে কারাবন্দী করে রেখেছে। সরকারের কাছে বেগম খালেদা জিয়ার মিথ্যা মামলা প্রত্যাহার ও নিঃশর্ত মুক্তি দাবি করেন এবং অবিলম্বে মুক্তি না দিলে কঠিন আন্দোলনের হুশিয়ারী দেন।

মানববন্ধনে উপস্থিত ছিলেন সুবিদপুর পশ্চিম ইউনিয়নের চেয়ারম্যান মোঃ মহসিন হোসেন, উপজেলা বিএনপি’র যুগ্ম আহ্বায়ক মাহবুবুর রহমান মফু, সদস্য আবু জাফর খসরু মোল্লা, বালিথুবা পশ্চিম ইউনিয়ন বিএনপি`র সভাপতি ও সাবেক চেয়ারম্যান জসিম উদ্দিন স্বপন মিয়াজী, সুবিদপুর পশ্চিম ইউনিয়ন বিএনপি’র সভাপতি মোঃ জাহাঙ্গীর আলম বুলু, পাইকপাড়া উত্তর ইউনিয়ন বিএনপির সভাপতি ও সাবেক চেয়ারম্যান আব তাহের আবু পাটওয়ারী, পাইকপাড়া দক্ষিন ইউনিয়ন বিএনপি’র সভাপতি ফারুক মিয়াজী, গুপ্টি পশ্চিম ইউনিয়ন বিএনপি’র সাধারণ সম্পাদক মোঃ শাহ আলম, বালিথুবা পশ্চিম ইউনিয়ন বিএনপি’র সাধারণ সম্পাদক মোঃ শামীম পাটওয়ারী, সুবিদপুর পশ্চিম ইউনিয়ন বিএনপি’র সাধারন সম্পাদক মোঃ ইকবাল হোসেন খলিফা। পৌর যুবদলের যুগ্ম আহ্বায়ক মোঃ নাজিম হোসেন, জেলা যুবদল নেতা মোঃ হাসান পাটওয়ারী, সুবিদপুর পশ্চিম ইউনিয়ন বিএনপি’র সাংগঠনিক সম্পাদক মোঃ জাকির হোসেন, গুপ্টি পশ্চিম ইউনিয়ন বিএনপি’র সাংগঠনিক সম্পাদক মোঃ ইকবাল হোসেন  চৌধুরী, বালিথুবা পশ্চিম ইউনিয়ন বিএনপি’র সাংগঠনিক সম্পাদক মোঃ মিজানুর রহমান মৃধা, স্বেচ্ছাসেবক দলনেতা নাজমুল কবির খান, যুবদল নেতা শাহ আলম হাওলাদার, জসিম উদ্দিন, আনোয়ার হোসেন পাটওয়ারী, ছাত্রদল নেতা সালাউদ্দিন মিঠু, শামীম হোসেনসহ বিভিন্ন ইউনিয়ন বিএনপি ও অঙ্গ সংগঠনের দুই শতাধিক নেতাকর্মী উপস্থিত ছিলেন।

 

dwi`M‡Ä †eMg Lv‡j`v wRqvi gyw³i `vwe‡Z gvbeeÜb

 

Gm.Gg BKevj

 

          weGbwc †Pqvicvm©b I Kviv AšÍixb †eMg Lv‡j`v wRqvi weiæ‡× wg_¨v gvgjv I wbtkZ© gyw³i `vwe‡Z †K›`ªxq Kg©myPxi Ask wn‡m‡e gvbeeÜb K‡i‡Qb dwi`MÄ Dc‡Rjv weGbwc| e„n¯úwZevi mKv‡j Dc‡Rjvi †kvjøv evRv‡i G gvbeeÜb AbywôZ nq| mywe`cyi c~e© BDwbqb weGbwcÕi mfvcwZ I mv‡eK †Pqvig¨vb †gvt gwdRyj Bmjvg †PŠayixi mfvcwZ‡Z¡ e³e¨ iv‡Lb Dc‡Rjv weGbwci wmwbqi hyM¥ AvnevqK †gvt gwReyi ingvb `yjvj, hyMœ AvnevqK AvgvbZ MvRx, m`m¨ Wvt Aveyj Kvjvg AvRv`, †Rjv hye`‡ji m`m¨ †gvt Avãyj gwZb|

 

Gmgq e³iv e³‡e¨ e‡jb, miKvi †`k‡bÎx †eMg Lv‡j`v wRqv‡K wg_¨v gvgjv w`‡q Kvive›`x K‡i †i‡L‡Q| miKv‡ii Kv‡Q †eMg Lv‡j`v wRqvi wg_¨v gvgjv cªZ¨vnvi I wbtkZ© gyw³ `vwe K‡ib Ges Awej‡¤^ gyw³ bv w`‡j KwVb Av‡›`vj‡bi ûwkqvix †`b|

 

gvbee܇b Dcw¯’Z wQ‡jb mywe`cyi cwðg BDwbq‡bi †Pqvig¨vb †gvt gnwmb †nv‡mb, Dc‡Rjv weGbwcÕi hyM¥ AvnŸvqK gvneyeyi ingvb gdy, m`m¨ Avey Rvdi Lmiæ †gvjøv, evwj_yev cwðg BDwbqb weGbwc`i mfvcwZ I mv‡eK †Pqvig¨vb Rwmg DwÏb ¯^cb wgqvRx, mywe`cyi cwðg BDwbqb weGbwcÕi mfvcwZ †gvt Rvnv½xi Avjg eyjy, cvBKcvov DËi BDwbqb weGbwci mfvcwZ I mv‡eK †Pqvig¨vb Ave Zv‡ni Avey cvUIqvix, cvBKcvov `wÿb BDwbqb weGbwcÕi mfvcwZ dviæK wgqvRx, ¸wÞ cwðg BDwbqb weGbwcÕi mvaviY m¤úv`K †gvt kvn Avjg, evwj_yev cwðg BDwbqb weGbwcÕi mvaviY m¤úv`K †gvt kvgxg cvUIqvix, mywe`cyi cwðg BDwbqb weGbwcÕi mvavib m¤úv`K †gvt BKevj †nv‡mb Lwjdv| †cŠi hye`‡ji hyM¥ AvnŸvqK †gvt bvwRg †nv‡mb, †Rjv hye`j †bZv †gvt nvmvb cvUIqvix, mywe`cyi cwðg BDwbqb weGbwcÕi mvsMVwbK m¤úv`K †gvt RvwKi †nv‡mb, ¸wÞ cwðg BDwbqb weGbwcÕi mvsMVwbK m¤úv`K †gvt BKevj †nv‡mb  †PŠayix, evwj_yev cwðg BDwbqb weGbwcÕi mvsMVwbK m¤úv`K †gvt wgRvbyi ingvb g„av, †¯^”Qv†meK `j‡bZv bvRgyj Kwei Lvb, hye`j †bZv kvn Avjg nvIjv`vi, Rwmg DwÏb, Av‡bvqvi †nv‡mb cvUIqvix, QvÎ`j †bZv mvjvDwÏb wgVy, kvgxg †nv‡mbmn wewfbœ BDwbqb weGbwc I A½ msMV‡bi `yB kZvwaK †bZvKg©x Dcw¯’Z wQ‡jb|

 

বাংলাদেশে রাজনীতি নেই, তোষণনীতি চলছে: ন্যাপ মহাসচিব
                                  

 বাংলাদেশ ন্যাপের মহাসচিব এম গোলাম মোস্তফা ভূঁইয়া বলেছেন, রাজনীতিবিদদের হাত থেকে রাজনীতি চলে যাওয়ার কারণেই ‘রাজনীতি’ দিন দিন নির্বাসিত হতে চলছে। দেশে এখন রাজনীতি নেই, তোষণনীতি চলছে। গতকাল বুধবার দুপুরে রাজধানীর নয়াপল্টনে যাদু মিয়া মিলনায়তনে বাংলাদেশ ন্যাপ চেয়ারম্যান শফিকুল গানি স্বপনের ৭১তম জন্মবার্ষিকী উপলক্ষে আয়োজিত এক স্মরণ সভায় তিনি এসব কথা বলেন। বাংলাদেশ ন্যাপের উদ্যোগে এই অনুষ্ঠানের আয়োজন করা হয়। স্মরণ সভার সভাপতি গোলাম মোস্তফা বলেন, রাজনীতিতে রাজনীতিবিদদের স্থান দখল করেছে টাকাওয়ালারা।

‘টাকা’ রাজনীতির মাঠ দখল করার কারণে রাজনৈতিক দলেও টাকার কদর বাড়ছে। ফলে মাঠের রাজনীতিক অর্থাৎ ত্যাগী নির্যাতিতদের পরিবর্তে টাকাওয়ালারাই দলের বিভিন্ন পদ-পদবি দখল করে নিচ্ছে, উচ্ছিষ্ট থাকে তাদের জন্য যারা রাজনীতির মাঠে চুঙ্গা ফুঁকে, রোদে পোড়ে এবং বৃষ্টিতে ভিজে পুলিশের দ্বারা নিগৃহীত হয়ে জীবন কাটায়। নমিনেশন বাণিজ্যও ঠিক অনুরূপ। তিনি বলেন, শফিকুল গানি স্বপনের মতো গণতান্ত্রিক ও মেধাবী রাজনৈতিক নেতার আজ রাজনীতিতে বড়ই অভাব। বাস্তবতার নিরিখে তাই দেখা যায় রাজনীতি আজ দুর্বৃত্তায়নের কবলে। আস্থাশীল কর্মী এবং কর্মী থেকে নেতা সৃষ্টি করার পথও রুদ্ধ হয়ে যাচ্ছে ক্রমান্বয়ে।

রাজনীতির মাঠে যখন ত্যাগী নেতা-কর্মীদের মূল্যায়ন হয় না তখন দুর্বৃত্তায়নের শিকড় আরো গভীর থেকে গভীরে যেতে থাকে। সভায় এনডিপি মহাসচিব মো. মঞ্জুর হোসেন ঈসা, লেবার পার্টি মহাসচিব আবদুল্লাহ আল মামুন, বাংলাদেশ ন্যাপ সাংগঠনিক সম্পাদক মো. কামাল ভূঁইয়া, ঢাকা মহানগর যুগ্ম সম্পাদক মো. শামিম ভূঁইয়া, যুব ন্যাপ সমন্বয়কারী বাহাদুর শামিম আহমেদ পিন্টু প্রমুখ বক্তব্য দেন।

 

৩০ নভেম্বর নয়, জাপার কাউন্সিল ২১ ডিসেম্বর: জিএম কাদের
                                  

 জাতীয় পার্টির জাতীয় কাউন্সিল ৩০ নভেম্বরের পরিবর্তে ২১ ডিসেম্বর অনুষ্ঠিত হবে বলে জানিয়েছেন দলটির চেয়ারম্যান ও বিরোধীদলীয় উপনেতা গোলাম মোহাম্মদ (জিএম) কাদের। গতকাল বুধবার রাজধানীর ইঞ্জিনিয়ার্স ইনস্টিটিউশন বাংলাদেশের সেমিনার হলে জাতীয় ছাত্রসমাজের কেন্দ্রীয় সম্মেলন প্রস্তুতি কমিটির সাংগঠনিক সভায় প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি এ কথা জানান। তিনি বলেন, ব্যক্তি স্বার্থের ঊর্ধ্বে উঠে আমরা রাজনীতি করবো। যারা বলেছিলেন জাতীয় পার্টির প্রতিষ্ঠাতা চেয়ারম্যান পল্লীবন্ধু হুসেইন মুহম্মদ এরশাদের অবর্তমানে জাতীয় পার্টি ভেঙে যাবে, তাদের ধারণা মিথ্যা প্রমাণিত হয়েছে।

জাতীয় পার্টি অরো সুশৃঙ্খল এবং শক্তিশালী হিসেবে বাংলাদেশের রাজনীতির মাঠে থাকবে। তিনি আরও বলেন, পল্লীবন্ধুর অভাব হঠাৎ করেই পূরণ করা সম্ভব নয়। তিনি ৩৬ বছর রাজনৈতিক জীবনের ২৭ বছরই ক্ষমতার বাইরে থেকে গণতন্ত্র প্রতিষ্ঠার সংগ্রামে নিবেদিত ছিলেন। গণতন্ত্রকে প্রাতিষ্ঠানিক রূপ দিতে আমরণ সংগ্রাম করেছেন। দেশের বর্তমান রাজনৈতিক শূন্যতায় জাতীয় পার্টি আরো শক্তিশালী হয়ে, সাধারণ মানুষের প্রত্যাশা পূরণের কর্মসূচি দিয়ে দেশের রাজনীতিতে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রাখবে। জাতীয় পার্টি আগামি দিনে রাজনীতির নিয়ামক এবং চালিকাশক্তি হয়ে থাকবে। জাতীয় ছাত্রসমাজের নেতাদের উদ্দেশ্য তিনি বলেন, একটি সময়ে দেশের ছাত্র সংগঠনগুলো দল বা ব্যক্তির লেজুড়বৃত্তি ও লাঠিয়াল বাহিনীতে পরিণত হয়েছিল। এ কারণেই হুসেইন মুহম্মদ এরশাদ ছাত্র রাজনীতি বন্ধ করেছিলেন। তিনি বলেন, ছাত্রসমাজ যেন কারো লাঠিয়ালে পরিণত না হয়। ছাত্রসমাজকে প্রতিটি অন্যায় আর অসত্যের প্রতিবাদ করে সত্য ও ন্যায়ের পক্ষে থাকতে হবে। ছাত্রসমাজের প্রতি সততা ও ন্যায়ের সাথে রাজনীতি করতে আহ্বান জানিয়ে তিনি বলেন, রাজনীতি করতে অর্থের প্রয়োজন আছে। কিন্তু অর্থের জন্য রাজনীতি করা দুর্বৃত্তায়ন। জাতীয় পার্টি আরো সামনের দিকে এগিয়ে যাওয়ার সময় এসেছে, তাই জাতীয় ছাত্রসমাজকে আরো শক্তিশালী হতে হবে। এ সময় জাতীয় পার্টির মহাসচিব ও বিরোধীদলীয় চিফ হুইপ মসিউর রহমান রাঙ্গা বলেন, জাতীয় পার্টি এখন সব ষড়যন্ত্র থেকে মুক্ত। ২০২৩ সালের নির্বাচনকে সামনে রেখে জাতীয় পার্টি আরো শক্তিশালী হচ্ছে। তিনি বলেন, জাতীয় পার্টির যেসব নেতার সন্তানরা জাতীয় ছাত্রসমাজ করছে না, সেই সব নেতা কোনো নির্বাচনেই জাতীয় পার্টি থেকে মনোনয়ন পাবে না। জাতীয় পার্টি সংসদে বিরোধী দলের অবস্থানে আছে। আমরা সরকারের সাথে একসাথে নির্বাচন করেছি, তাই তাদের সাথে আমাদের একটা সুসম্পর্ক আছে। তাই বলে সরকার যা বলবে জাতীয় পার্টি তা করবে না। জাতীয় পার্টি স্বচ্ছ বিরোধী দল হিসেবে বাংলাদেশে রাজনীতি করবে।

জাতীয় ছাত্রসমাজ কেন্দ্রীয় সম্মেলন প্রস্তুতি কমিটির আহ্বায়ক মো. জামাল উদ্দীনের সভাপতিত্বে ও সদস্য সচিব ফয়সাল দিদার দিপু’র উপস্থাপনায় সাংগঠনিক সভায় উপস্থিত ছিলেন জাতীয় পার্টির প্রেসিডিয়াম সদস্য ও সাবেক মহাসচিব জিয়াউদ্দিন আহমেদ বাবলু, অ্যাডভোকেট রেজাউল ইসলাম ভুইয়া, ভাইস চেয়ারম্যান আহসান আদেলুর রহমান আদেল এমপি, যুগ্ম মহাসচিব গোলাম মোহাম্মদ রাজু, সাংগঠনিক সম্পাদক নির্মল দাশ, অ্যাডভোকেট আবদুল হামিদ ভাসানী, ছাত্র বিষয়ক সম্পাদক- সৈয়দ ইফতেকার আহসান হাসান, যুগ্ম-ছাত্র বিষয়ক সম্পাদক মিজানুর রহমান মিরু।

 

জনগণের ভোটেই রাষ্ট্রপতি হয়েছিলেন জিয়া: মোশাররফ
                                  

বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য ড. খন্দকার মোশাররফ হোসেন বলেছেন, ২৯ ডিসেম্বর রাতে ভোট ডাকাতির মতো নয়, জনগণের ভোটেই জিয়াউর রহমান রাষ্ট্রপতি হয়েছিলেন। জাতীয়তাবাদী মহিলা দলের ৪১তম প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী উপলক্ষে গতকাল সোমবার বিকেলে নয়াপল্টনে বিএনপির কেন্দ্রীয় কার্যালয়ের সামনে আয়োজিত শোভাযাত্রার উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্যে এসব কথা বলেন তিনি। ড. খন্দকার মোশাররফ হোসেন বলেন, কোনো কারণ ছাড়াই গত রোববার সংসদে দাঁড়িয়ে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা জিয়াউর রহমানকে কটূক্তি করেছেন। তিনি বলেছেন, প্রেসিডেন্ট জিয়াউর রহমান নাকি অবৈধ রাষ্ট্রপতি ছিলেন।

আমি বলতে চাই, ১৯৭৮ সালের জুন মাসে সাধারণ নির্বাচনের মাধ্যমে এদেশের জনগণ ভোট দিয়ে জিয়াউর রহমানকে রাষ্ট্রপতি নির্বাচিত করেছিলেন। আওয়ামী লীগের মতো ৩০ ডিসেম্বরের নির্বাচন ২৯ ডিসেম্বর রাতে ডাকাতি করে নয়। ড. মোশাররফ বলেন, যারা জিয়াউর রহমানকে অবৈধ বলেন তাদের মনে দুর্বলতা রয়েছে। এ সরকার অনির্বাচিত রাতের অন্ধকারের ভোট ডাকাতি করে ক্ষমতায় টিকে আছে। যেহেতু তারা অবৈধ তাই নিজেদের দোষ অন্যের ওপরে চাপানোর চেষ্টা করছে। তারা আজ যে অবৈধভাবে ক্ষমতায় রয়েছে সেটিকে তারা ধামাচাপা দিতে চায়। তাদের নিজেদের দোষ অন্যের ওপর চাপাতে চায়। অন্যদিকে, জিয়াউর রহমান বাকশালের পরিবর্তে বহুদলীয় গণতন্ত্র প্রতিষ্ঠা করেছিলেন। আওয়ামী লীগের রেকর্ড হচ্ছে গণতন্ত্রকে হত্যা করা। বিএনপির রেকর্ড হচ্ছে গণতন্ত্রকে পুনঃপ্রতিষ্ঠা করা। বিএনপির এ নীতিনির্ধারক বলেন, আমরা যখন মহিলা দলের প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী পালন করছি, তখন গণতন্ত্রের মাতা খালেদা জিয়া একটি মিথ্যা মামলায় অন্যায়ভাবে কারাবন্দী।

এই ধরনের মামলায় যদি কেউ সাজাপ্রাপ্ত হয়ে থাকে হাইকোর্ট থেকে সাতদিনের মধ্যে তিনি জামিনে মুক্তি লাভ করে থাকেন। কিন্তু খালেদা জিয়া দেড় বছরের ওপরে এ ফ্যাসিবাদী সরকারের কারাগারে নির্যাতিত হচ্ছেন। মহিলা দলের নেতাকর্মীদের ঐক্যবদ্ধ হওয়ার আহ্বান জানিয়ে তিনি বলেন, জনগণ এ অবৈধ সরকারের হাত থেকে মুক্তি চায়। আর এই মুক্তি এনে দিতে পারে একমাত্র বাংলাদেশ জাতীয়তাবাদী দলের নেতাকর্মীরা। তাই মহিলা দলের ওপর অনেক দায়িত্ব রয়েছে। খালেদা জিয়াকে কারাগারে রেখে গণতন্ত্র পুনঃপ্রতিষ্ঠা করা সম্ভব না। আপনারা যে যে অবস্থানে আছেন আগামি দিনে প্রস্তুত থাকবেন, এদেশে স্বৈরাচারী সরকার অতীতে টেকে নাই এবারও টিকবে না। সময় আসছে জনগণ তাদের উপযুক্ত জবাব দেবে। পরে মহিলা দলের শোভাযাত্রাটি নয়াপল্টনে বিএনপির কেন্দ্রীয় কার্যালয়ের সামনে থেকে শুরু হয়ে নাইটিঙ্গেল মোড় ঘুরে ফের বিএনপি কার্যালয়ের সামনে গিয়ে শেষ হয়।

এ সময় মহিলা দলের নেতাকর্মীরা খালেদা জিয়ার মুক্তি চেয়ে বিভিন্ন ধরনের স্লোগান দেন। শোভাযাত্রায় মহিলা দলের সভাপতি আফরোজা আব্বাস, সাধারণ সম্পাদক সুলতানা আহমেদ, সিনিয়র সহ-সভাপতি নূর জাহান ইয়াসমিন, সহ-সভাপতি জেবা খান, যুগ্ম-সাধারণ সম্পাদক হেলেন জেরিন খান, মহানগর উত্তরের সহ-সভাপতি মেহেরুন্নেসা হক, সাধারণ সম্পাদক আমেনা খাতুন, যুগ্ম-সম্পাদক রাবেয়া আলম। মহানগর দক্ষিণের সভাপতি রাজিয়া আলিম, সাধারণ সম্পাদক শামসুন্নাহার ভূইয়া, যুগ্ম-সম্পাদক রোকেয়া চৌধুরী বেবী প্রমুখ অংশ নেন।

নাটকীয়তার পর রংপুর-৩ উপনির্বাচনে জাপার প্রার্থী এরশাদ পুত্র সাদ
                                  

দলের প্রতিষ্ঠাতা হুসেইন মুহম্মদ এরশাদের মৃত্যুতে শূন্য রংপুর-৩ আসনে উপনির্বাচনে তার ছেলে রাহগীর আল মাহী সাদকেই (সাদ এরশাদ) প্রার্থী করছে জাতীয় পার্টি (জাপা)। এই উপনির্বাচনে প্রার্থী ঠিক করা নিয়ে বিভেদ থেকে নানা নাটকীয় ঘটনা এবং জাতীয় পার্টি ভেঙে যাওয়ার উপক্রম হয়েছিল। কিন্তু গত শনিবার সমঝোতা বৈঠকের পর গতকাল রোববার বনানীতে জাতীয় পার্টির চেয়ারম্যানের রাজনৈতিক কার্যালয়ে দলের ১৪ জ্যেষ্ঠ নেতাকে নিয়ে আলোচনা করে দলের মহাসচিব মসিউর রহমান রাঙ্গাঁ সাংবাদিকদের বলেন, রংপুর-৩ আসনের উপনির্বাচনে জাতীয় পার্টির প্রার্থী হচ্ছেন সাদ এরশাদ।

এরশাদের স্ত্রী ও দলের জ্যেষ্ঠ কো-চেয়ারম্যান রওশন এই আসনে ছেলে সাদকে প্রার্থী করতে চাইলেও তার বিরোধিতা করছিলেন রংপুরের নেতারা। এরশাদের ভাতিজা সাবেক সাংসদ হোসেন মকবুল শাহরিয়ার আসিফের সমর্থকরা সাদের কুশপুতুল পোড়ান। এর মধ্যে দলের চেয়ারম্যান ও সংসদে বিরোধীদলীয় নেতার পদ নিয়ে রওশন এবং তার দেবর জি এম কাদেরের দ্বন্দ্ব চরমে উঠে। ফলে এরশাদের আসনে প্রার্থী ঘোষণা আটকে যায়। তবে গত শনিবার সমঝোতার আভাস দিয়ে এরশাদের ভাই দলের চেয়ারম্যানের দায়িত্ব পালনকারী জিএম কাদের বলেন, তারা অন্য দলগুলোর প্রার্থী দেখে তাদের প্রার্থীর নাম জানাবেন। এর মধ্যে আওয়ামী লীগ তাদের প্রার্থী হিসেবে রংপুর জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক রেজাউল করিম রাজু এবং বিএনপি তাদের প্রার্থী হিসেবে জোটভুক্ত দল পিপিবির সভাপতি রিটা রহমানের নাম ঘোষণা করে। নানা কা-ে বিতর্কের জন্ম দেওয়া সাদকে বাবা এরশাদ রাজনীতি থেকে সরিয়ে বিদেশে রাখলেও তাকে রাজনীতির ময়দানে নিয়ে আসতে সচেষ্ট ছিলেন মা রওশন।

২০০০ সালে নারীঘটিত এক বিষয়ে গ্রেফতার হয়েছিলেন সাদ। এরপর তাকে বিদেশে পাঠিয়ে দিয়েছিলেন এরশাদ। এরশাদ অসুস্থ থাকার মধ্যে একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনের আগে সাদকে দেখা যায় জনসম্মুখে। মা রওশনের সঙ্গে বিভিন্ন সভায় আসতে শুরু করেন তিনি। এরশাদের মৃত্যুর পর তিনি আরও সক্রিয়। দীর্ঘ দিন মালয়েশিয়ার প্রবাস জীবন শেষে সাদ এখন ঢাকাতে থিতু হয়েছেন। জাতীয় পার্টির দপ্তর বিভাগ জানিয়েছে, সাদ এখন ব্যবসা করেন। নির্বাচন কমিশন ঘোষিত তফসিল অনুযায়ী, আগামি ৫ অক্টোবর রংপুর-৩ আসনে উপনির্বাচন হবে। এই নির্বাচনে অংশ নিতে মনোনয়নপত্র দাখিল করতে হবে ৯ সেপ্টেম্বরের মধ্যে।

তফসিল ঘোষণার পর জাতীয় পার্টি প্রার্থী ঠিক করার জন্য মনোনয়ন ফরম বিক্রি শুরু করতেই তা সংগ্রহ করেন সাদ। তখনই দলটিতে শুরু হয় গৃহবিবাদ। এরশাদের ভাতিজা আসিফ শাহরিয়ার ছাড়াও ভাগ্নি মেহেজেবেন্নুসা রহমান টুম্পাও এই আসনে মনোনয়নপ্রত্যাশী ছিলেন। এছাড়াও প্রার্থী হতে চাইছিলেন দলের সভাপতিম-লীর সদস্য এস এম ফখর উজ জামান জাহাঙ্গীর, সাংগঠনিক সম্পাদক আবদুর রাজ্জাক, যুগ্ম মহাসচিব এস এম ইয়াসির। ইয়াসির মনোনয়নপত্র কেনার সময় এরশাদের ছোট ছেলে শাহতা জারাব এরিককে (বিদিশার সন্তান) সঙ্গে নিয়েছিলেন, যা নিয়ে শুরু হয়েছিল ব্যাপক আলোচনা। সাদের বিরোধিতায় রংপুরের মেয়র ও মহানগর জাতীয় পার্টির সভাপতি মোস্তাফিজার রহমান মোস্তফা সরব হওয়ার পর জি এম কাদেরের পক্ষ ইয়াসিরকে প্রার্থী করতে চাইছিল বলে দলটির কয়েকজন নেতার কাছে শোনা গেছে। এদিকে সাদকে মনোনয়ন দেওয়ার খবর রংপুরে যেতেই ক্ষুব্ধ হয়ে উঠেছেন জাতীয় পার্টির স্থানীয় নেতারা। এস এম ইয়াসির বলেন, এমন সিদ্ধান্তে জাতীয় পার্টির নেতাকর্মীরা ভীষণ মর্মাহত।

এতদিন ধরে দলকে আমি এত সার্ভিস দিয়ে আসলাম। কিন্তু দল আমাকে মূল্যায়ন করল না। স্বতন্ত্র প্রার্থী হওয়ার ইঙ্গিত দিয়ে তিনি বলেন, আমি যদি নির্বাচন করি, তবে আমি জাতীয় পার্টি থেকে নয়, স্বতন্ত্র হিসেবে নির্বাচন করব। জাতীয় পার্টির নাম আমি কোথাও ব্যবহারও করব না। রংপুর মহানগর জাতীয় পার্টির কেউ সাদ এরশাদের পক্ষে কাজ করবেন না বলে আগেই জানিয়ে দিয়েছেন মোস্তাফিজার রহমান মোস্তফা। এরশাদের আসনে গত কয়েক বার মহাজোট শরিক হিসেবে জাতীয় পার্টিকে আওয়ামী লীগ ছাড় দিলেও এবার তারাও প্রার্থী দিচ্ছে, যা লাঙ্গল প্রতীকের প্রার্থীর জন্য চ্যালেঞ্জের। তবে ১৯৮৬ সালে জাতীয় পার্টির প্রার্থী শফিকুল গণি স্বপন জেতার পর থেকে এই আসনটি আর কখনও হাতছাড়া হয়নি তাদের। এই স্বপনের বোন হলেন বিএনপির এবারের প্রার্থী রিটা।

 

আ. লীগ সারা জীবনের জন্য ভোটের রাজনীতি থেকে বিদায় নিয়েছে: মোশাররফ
                                  

 বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য ড. খন্দকার মোশাররফ হোসেন বলেন, ২০১৮ সালের ২৯ ডিসেম্বর রাতে আওয়ামী লীগ সারা জীবনের জন্য ভোটের রাজনীতি থেকে বিদায় নিয়েছে। ফলে জনগণের কাছে ভোট চাওয়ার মুখ তাদের আর নেই। এটাই ইতিহাসে সত্য, যা মুছে দেওয়া যাবে না। গতকাল শনিবার জাতীয় প্রেসক্লাবের কনফারেন্স লাউঞ্জে বিএনপির ৪১তম প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী উপলক্ষে বাংলাদেশ গণতান্ত্রিক সাংস্কৃতিক জোট আয়োজিত ‘বহুদলীয় গণতন্ত্র ও শহীদ জিয়ার অবদান’ শীর্ষক আলোচনা সভায় তিনি এসব কথা বলেন। বাংলাদেশ গণতান্ত্রিক সাংস্কৃতিক জোটের প্রধান সমন্বয়কারী হুমায়ূন কবির বেপারীর সভাপতিত্বে সভায় প্রধান অতিথি ছিলেন বিএনপির জাতীয় স্থায়ী কমিটির সদস্য ও সাবেক মন্ত্রী ড. খন্দকার মোশাররফ হোসেন।

প্রধান বক্তা বিএনপির জাতীয় নির্বাহী কমিটির যুগ্ম মহাসচিব খায়রুল কবীর খোকন। ড. খন্দকার মোশাররফ হোসেন বলেন, আমরা যেখানেই জিয়াউর রহমানকে নিয়ে আলোচনা করবো, সেখানেই আওয়ামী লীগ ব্যর্থ; বিএনপি সফল। সেজন্য তারা জিয়াউর রহমানকে ইতিহাস থেকে মুছে দিতে চায়। আমাদের নেত্রী বেগম খালেদা জিয়া গণতন্ত্রের মা। যেহেতু গণতন্ত্র আওয়ামী লীগের পছন্দ নয়, সেজন্যই নেত্রীকে কারাগারে রাখা হয়েছে। তারা মনে করেছিল নেত্রীকে কারাগারে রাখলে আমরা একাদশ জাতীয় নির্বাচনে যাব না। তারপরও আমরা নির্বাচনে গেলাম। সেই অবস্থায় দেশের ৮০ ভাগ মানুষ ধানের শীষে ভোট দেওয়ার জন্য প্রস্তুত ছিল।

সেজন্যই তারা ২৯ ডিসেম্বর রাতে ভোট কারচুপি করেছিল। ‘বিএনপি ভোটের রাজনীতি থেকে হারিয়ে গেছে’ আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদেরের এমন মন্তব্যের প্রেক্ষিতে তিনি বলেন, ২০১৮ সালের ২৯ ডিসেম্বর রাতে আওয়ামী লীগ সারা জীবনের জন্য ভোটের রাজনীতি থেকে বিদায় নিয়ছে। আজ কারা এদেশ নেতৃত্ব দিচ্ছে ভোট ছাড়া? গায়ের জোড়ে? অস্বাভাবিক একটা সরকার। অস্বাভাবিক না হলে পারমাণবিক বিদ্যুৎ কেন্দ্রে বালিশের মতো দুর্নীতি হতো না। এখন তো সেই বালিশকেও হার মানিয়েছে মেডিক্যালের এক সেট পর্দা। এক সেট পর্দার দাম ৩৭ লাখ টাকারও বেশি। এটা হয়েছে কারণ সরকারের কোথাও কোনো নিয়ন্ত্রণ নেই। বিএনপির স্থায়ী কমিটির এই সদস্য বলেন, বর্তমান সরকার অত্যন্ত পরিকল্পিতভাবে ব্যাংকের মাধ্যমে লুট করেছে। কিন্তু এর কোনো বিচার নেই। খেলাপি ঋণ বাড়ছে, তারপরও তাদের আরও সুযোগ দেওয়া হচ্ছে। যারা বালিশ ও পর্দা কেনার দায়িত্বে ছিল, তারা মনে করে এটা বেশি কিছু না। কারণ গত ১০ বছরে তাদের সুইস ব্যাংকের অ্যাকাউন্টে সাড়ে ছয় হাজার কোটি টাকা রয়েছে। তিনি বলেন, সরকারের কোথাও কোনো নিয়ন্ত্রণ নেই। দেশের উপর থেকে নিচ পর্যন্ত কোথাও দুর্নীতি বাকি নেই। ফলে সমাজে পচন লেগেছে। আজকে এই যে দুর্নীতির প্রকারভেদ দেখছি, সেটা হয়েছে দেশে গণতন্ত্রের অভাবে। যদি সরকার জনগণ দ্বারা নির্বাচিত হতো, তাহলে জনগণের কাছে সরকারের দায়বদ্ধতা থাকতো। যেহেতু দায়বদ্ধতা নেই, সেহেতু যে যা ইচ্ছে তাই করছে। বিএনপির এই নেতা বলেন, বাংলাদেশের অর্থনীতি টিকে আছে তৈরি পোশাক ও জনশক্তি রফতানির ওপর। এই দুইটারই প্রবর্তক ছিলেন জিয়াউর রহমান। তিনিই বাংলাদেশি জাঁতি গঠনে ইস্পাত কঠিন গণঐক্য গঠন করেছিলেন। বাকশালের সময় দেশে যেই শ্বাসরুদ্ধকর অবস্থা ছিল, এখনও দেশে সেই অবস্থা বিরাজমান।

অতএব আমাদেরকেই এই পরিস্থিতি থেকে দেশের জনগণকে রক্ষা করে গণতন্ত্রকে পুনউদ্ধার করতে হবে। তিনি বলেন, আজকে প্রত্যেকটি ক্ষেত্রে জনগণকে ঐক্যবদ্ধ করতে হবে। ঐক্যবদ্ধ আন্দোলন ও আইনি লড়াইয়ের মাধ্যমে বেগম খালেদা জিয়াকে মুক্ত করবো। খালেদা জিয়া মুক্তি না পেলে গণতন্ত্র মুক্তি পাবে না। কারণ তিনি গণতন্ত্রের মা। তার মুক্তি হলেই জনগণের, গণতন্ত্রের ও অর্থনীতির মুক্তি মিলবে।

জাবিতে আন্দোলনকারীকে মারধরের অভিযোগ ছাত্রলীগ নেতার বিরুদ্ধে
                                  

জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়ে (জাবি) চলমান দুর্নীতির প্রতিবাদ করায় আন্দোলনকারী নেতা ও জাহাঙ্গীরনগর থিয়েটারের সাধারণ সম্পাদক নুরুল ইসলাম সাইমুমকে মারধরের অভিযোগ উঠেছে বিশ্ববিদ্যালয় শাখা ছাত্রলীগের এক নেতার বিরুদ্ধে। এদিকে, মারধরকারী ছাত্রলীগ নেতাকে হল থেকে বের করে দিয়ে আইনি ব্যবস্থা নেওয়ার দাবিতে তাৎক্ষণিক বিক্ষোভ মিছিল করেছে বিশ্ববিদ্যালয়ের আন্দোলনকারী শিক্ষার্থীরা। অভিযুক্ত ছাত্রলীগ নেতা হলেন বিশ্ববিদ্যালয় শাখা ছাত্রলীগের সাংগঠনিক সম্পাদক অভিষেক ম-ল। তিনি বিশ্ববিদ্যালয়ের সরকার ও রাজনীতি বিভাগের ৪১তম ব্যাচের শিক্ষার্থী এবং শহীদ রফিক জব্বার হলের আবাসিক ছাত্র।

গতকাল শনিবার সকালে বিশ্ববিদ্যালয়ের শহীদ রফিক জব্বার হল সংলগ্ন এলাকায় এ মারধরের ঘটনা ঘটে। মারধরের শিকার সাইমুম বলেন, আমি সকালের নাস্তা করতে দোকানে যাই। এ সময় আমার মোবাইল ফোনে একটা জরুরি কল এলে রিসিভ করে কথা বলতে থাকি। এ সময় আমার পাশে বসে থাকা ছাত্রলীগ নেতা অভিষেক হঠাৎ আমার ওপর চড়াও হন এবং আমার পরিচয় জিজ্ঞাসা করেন। আমি নিজের পরিচয় দেই। এ সময় জাহাঙ্গীরনগর থিয়েটারের সাধারণ সম্পাদক বলার সঙ্গে সঙ্গে তিনি আমাকে মারধর শুরু করেন। এ সময় তার সঙ্গে থাকা তার বন্ধু আমার হাত চেপে ধরেন। আর অভিষেক দোকানে থাকা বাটাম দিয়ে আমাকে মারধর করতে থাকেন। তবে তার সঙ্গে আমার পূর্ব কোনো শত্রুতা নেই। বিশ্ববিদ্যালয়ের চলমান আন্দোলনে অংশগ্রহণ করার কারণে আমাকে মারধর করা হয়েছে। মারধরের বিচার চেয়ে বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসনের কাছে লিখিত অভিযোগ দেওয়া হয়েছে বলেও জানান সাইমুম। মারধরের কথা স্বীকার করে ছাত্রলীগ নেতা অভিষেক ম-ল বলেন, মারধরের সঙ্গে আন্দোলনের কোনো সম্পর্ক নেই।

সকালে আমি এবং আমার বন্ধু দোকানে নাস্তা করতে যাই। সাইমুম আমাদের টেবিলে বসে উচ্চৈঃস্বরে কথা বলতে থাকেন এবং দোকানের কর্মচারীদের সঙ্গে খারাপ ব্যবহার শুরু করে। আমি তখন তাকে অন্য টেবিলে গিয়ে বসতে বলি। কিন্তু সেটা না করে উল্টো আমার সঙ্গে খারাপ ব্যবহার শুরু করেন। পরে তাকে মারধর করেছি। আমি জানতাম না তিনি আন্দোলনকারী অথবা বিশ্ববিদ্যালয়ের থিয়েটার নেতা। আন্দোলনকারী নেতা ও জাহাঙ্গীরনগর সাংস্কৃতিক জোটের সভাপতি আশিকুর রহমান বলেন, এক দিকে বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসন আমাদের আলোচনার আহ্বান করছেন। অন্যদিকে ছাত্রলীগ নেতার হাতে আমাদের কর্মী মারধরের শিকার হচ্ছেন।

এভাবে আলোচনা এবং মারধর এক সঙ্গে চলতে পারে না। আমরা বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসনকে জানিয়েছি আগে মারধরকারী ছাত্রলীগ নেতাকে হল থেকে বের করতে হবে এবং আইনি ব্যবস্থা গ্রহণ করতে হবে তারপর আমরা আলোচনায় বসবো। এ বিষয়ে বিশ্ববিদ্যালয়ের ভারপ্রাপ্ত প্রক্টর আ স ম ফিরোজ উল হাসান বলেন, অভিযোগ পেয়েছি, আমরা এটা নিয়ে কাজ করছি। শিগগিরই সিদ্ধান্ত জানানো হবে।

গণতন্ত্রকামী কোনো দল কিংবা লোক আ. লীগ সরকারের সঙ্গে নেই: রিজভী
                                  

সামরিক শাসক এরশাদের গড়ে যাওয়া জাতীয় পার্টির সঙ্গে আওয়ামী লীগের রাজনৈতিক জোটকে ‘গণতন্ত্রের জন্য বাধা’ হিসেবে চিহ্নিত করেছেন বিএনপি নেতা রুহুল কবির রিজভী। তিনি বলেছেন, গণতন্ত্রকামী কোনো দল কিংবা লোক আওয়ামী লীগ সরকারের সঙ্গে নেই। এরশাদ এক গণতন্ত্র হত্যাকারী ছিলেন, তার দল আজকে শেখ হাসিনার জোটের অংশীদার। এই জাতীয় পার্টি ও আওয়ামী লীগের হানিমুনের পতন না ঘটালে পরে আজকে নাগরিক স্বাধীনতা ও সত্যিকারের গণতন্ত্র ফিরে আসবে না। খালেদা জিয়ার মুক্তির দাবিতে গতকাল শনিবার নয়া পল্টনে বিএনপির কেন্দ্রীয় কার্যালয়ের সামনে মিছিল শেষে সংক্ষিপ্ত সমাবেশে দলের জ্যেষ্ঠ যুগ্ম মহাসচিব রিজভী এ কথা বলেন। ক্ষমতাসীনদের সমালোচনা করে রিজভী বলেন, আজকে গণতন্ত্রের স্পেসগুলো দেখুন সব বন্ধ করে দিচ্ছে।

মিডিয়ার স্বাধীনতা একেবারে সঙ্কুচিত করে রেখেছে। কেউ যদি সরকারের বিরুদ্ধে সত্য কথা উচ্চারণ করে, এই উচ্চারণ করতে গিয়ে তাদের বোরকা যদি খুলে যায়, বোরকার নিচে তাদের নগ্ন চরিত্র যখন প্রকাশ পায়, তখন তারা অস্থির হয়ে যায়। এ কারণে আজকে নাগরিক অধিকার, মানবাধিকার, মিডিয়া, রাজনৈতিক দল- যারা সরকারের বিরুদ্ধে সোচ্চার, তারা বন্দি, তারা গুম, তারা বিচারবর্হিভূত হত্যার শিকার। এটা চলতে পারে না।

রিজভী বলেন, স্বাধীনতা যুদ্ধে ৩০ লক্ষ লোক শুধু শেখ হাসিনাকে ক্ষমতায় রাখার জন্য জীবন দিয়েছে? ২ লক্ষ লোক শুধু শেখ হাসিনাকে ক্ষমতায় রাখার জন্য লাঞ্ছিত হয়েছে? একদল, নির্যাতনকারী দল, গণতন্ত্র হত্যাকারী দলকে ক্ষমতায় রাখার জন্য এত রক্ত শহীদরা দেননি। সরকারের বিরুদ্ধে সবাইকে সোচ্চার হওয়ার আহ্বান জানানোর পাশাপাশি কারাবন্দি খালেদা জিয়ার মুক্তির দাবি জানান রিজভী। সংক্ষিপ্ত সমাবেশের আগে জাতীয়তাবাদী সামাজিক সাংস্কৃতিক সংস্থা-জাসাসের উদ্যোগে রিজভীর নেতৃত্বে বিএনপির কার্যালয় থেকে একটি মিছিল বের হয়। নাইটিঙ্গেল মোড় ঘুরে আবার দলীয় কার্যালয়ে এসে শেষ হয় সে মিছিল।

বিরোধীদলীয় নেতা নির্বাচন: জাপার সংসদীয় দলের সভা ডেকেছেন রওশন
                                  

জাতীয় পার্টির (জাপা) সংসদীয় দলের সভা আজ রোববার অনুষ্ঠিত হবে। দুপুর ১টায় সংসদ ভবনের বিরোধীদলীয় উপনেতা রওশন এরশাদের কার্যালয়ে এ সভা অনুষ্ঠিত হবে। সভায় বিরোধীদলীয় নেতা নির্বাচন করা হবে বলেও জানানো হয়েছে।

গতকাল শনিবার) রওশন এরশাদ এক নোটিশের মাধ্যমে এই সভা ডেকেছেন। নোটিশে রওশন এরশাদকে জাপার চেয়ারম্যান উল্লেখ করা হয়েছে। রওশন এরশাদ স্বাক্ষরিত এ নোটিশে দলের সব সংসদ সদস্যকে সভায় উপস্থিত হওয়ার অনুরোধ করা হয়েছে। অন্যসব সদস্যের মতো জাতীয় পার্টির ‘চেয়ারম্যান’ গোলাম মোহাম্মদ কাদেরকেও আমন্ত্রণ জানানো হয়েছে। বৈঠকে দুটি এজেন্ডার কথা বলা হয়েছে। এগুলো হলোÑবিগত সভার সিদ্ধান্ত পাঠ, দৃঢ়ীকরণ ও জাপার সংসদীয় দলের নেতা নির্বাচন।

 

ফরিদপুরের পর্দা কেলেঙ্কারির কাছে রূপপুরের বালিশকান্ড হেরে গেছে: ফখরুল
                                  

ফরিদপুর মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের পর্দা কেনায় দুর্নীতির সমালোচনা করে বিএনপি মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর বলেছেন, একটি পর্দার মূল্য ৩৭ লাখ টাকা! এটি একটি হাসপাতালের জন্য কেনা হয়েছে। পর্দা কেলেঙ্কারির কাছে রূপপুরের বালিশকান্ড হেরে গেছে। গতকাল শুক্রবার জাতীয় প্রেসক্লাবে সাবেক অর্থমন্ত্রী এম সাইফুর রহমানের দশম মৃত্যুবার্ষিকী উপলক্ষে আয়োজিত আলোচনা সভায় তিনি এসব কথা বলেন। মির্জা ফখরুল বলেন, ব্যাঙের ছাতার মতো ব্যাংক দিয়েছে সরকার। আজ সব ব্যাংক মুখ থুবড়ে পড়ে আছে।

আজকের পত্রিকায়ই আছে, অর্থমন্ত্রী বলেছেন হলমার্ককে আবার সুযোগ দেওয়া হবে। অর্থাৎ লুটেরাদের আবার অর্থনীতিতে নিয়ে আসা হবে। এটাই হচ্ছে এই সরকারের মূল চরিত্র। এরা লুটেরা। চারদিকে লুট চলছে বলে তিনি মন্তব্য করেন। এম. সাইফুর রহমানকে ক্ষণজন্মা উল্লেখ করে মির্জা ফখরুল বলেন, সাইফুর রহমানরা সবসময় জন্মান না। তারা ক্ষণজন্মা। জিয়াউর রহমান এই উজ্জ্বল নক্ষত্রকে তুলে নিয়ে এসেছিলেন। যিনি বটমলেস বাস্কেট থেকে বাংলাদেশকে সমৃদ্ধির বাংলাদেশের নিয়ে গেছেন। মির্জা ফখরুল আরও বলেন, বিদেশিরা এখনও মনে করেন, জিয়াউর রহমানের জন্ম নাহলে পলিটিক্সে বাংলাদেশ একটা ফেইলড স্টেটে পরিণত হতো। গণমাধ্যমের উদ্দেশে বলেন, এই যে এখন যারা ছবি নিচ্ছে, তারা হয়তো এক দুই মিনিট দেখাতে পারবে। এই দোষটা হচ্ছে নীতির দোষ, এই সরকারের দোষ।

সরকার তাদের কথা বলতে দেয় না। সরকার চায় না যে সত্য কথা যাক। বিএনপি মহাসচিব বলেন, খালেদা জিয়াকে সরকার বন্দি করে রেখেছে একটি মাত্র কারণে। তিনি যদি বাইরে থাকেন, তাহলে এই লুটপাট চলবে না। এভাবে মানুষের অধিকারকে বিনষ্ট করতে দেবে না। তিনি সমগ্র মানুষকে নিয়ে এটিকে প্রতিহত করবেন। তিনি বলেন, দেশের মানুষ খালেদা জিয়াকে মুক্ত করবে আনবে, গণতন্ত্র প্রতিষ্ঠা করবে এবং তাদের প্রতিহত করবে। আলোচনা সভায় বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য ড. খন্দকার মোশাররফ হোসেন, বিএনপির ভাইস-চেয়ারম্যান শামসুজ্জামান দুদু প্রমুখ উপস্থিত ছিলেন।

 

dwi`cy‡ii c`©v †K‡j¼vwii Kv‡Q iƒccy‡ii evwjkKvÐ †n‡i †M‡Q: dLiæj

GdGbGm: dwi`cyi †gwW‡Kj K‡jR nvmcvZv‡ji c`©v †Kbvq `yb©xwZi mgv‡jvPbv K‡i weGbwc gnvmwPe wgR©v dLiæj Bmjvg AvjgMxi e‡j‡Qb, GKwU c`©vi g~j¨ 37 jvL UvKv! GwU GKwU nvmcvZv‡ji Rb¨ †Kbv n‡q‡Q| c`©v †K‡j¼vwii Kv‡Q iƒccy‡ii evwjkKvÐ †n‡i †M‡Q| MZKvj ïµevi RvZxq †cÖmK¬v‡e mv‡eK A_©gš¿x Gg mvBdzi ingv‡bi `kg g„Zz¨evwl©Kx Dcj‡¶ Av‡qvwRZ Av‡jvPbv mfvq wZwb Gme K_v e‡jb| wgR©v dLiæj e‡jb, e¨v‡Oi QvZvi g‡Zv e¨vsK w`‡q‡Q miKvi| AvR me e¨vsK gyL _ye‡o c‡o Av‡Q| AvR‡Ki cwÎKvqB Av‡Q, A_©gš¿x e‡j‡Qb njgvK©‡K Avevi my‡hvM †`Iqv n‡e| A_©vr jy‡Uiv‡`i Avevi A_©bxwZ‡Z wb‡q Avmv n‡e| GUvB n‡”Q GB miKv‡ii g~j PwiÎ| Giv jy‡Uiv| Pviw`‡K jyU Pj‡Q e‡j wZwb gšÍe¨ K‡ib| Gg. mvBdzi ingvb‡K ¶YRb¥v D‡jøL K‡i wgR©v dLiæj e‡jb, mvBdzi ingvbiv memgq Rb¥vb bv| Zviv ¶YRb¥v| wRqvDi ingvb GB D¾¡j b¶Î‡K Zz‡j wb‡q G‡mwQ‡jb| whwb eUg‡jm ev‡¯‹U †_‡K evsjv‡`k‡K mg„w×i evsjv‡`‡ki wb‡q †M‡Qb| wgR©v dLiæj AviI e‡jb, we‡`wkiv GLbI g‡b K‡ib, wRqvDi ingv‡bi Rb¥ bvn‡j cwjwU‡· evsjv‡`k GKUv †dBjW †÷‡U cwiYZ n‡Zv| MYgva¨‡gi D‡Ï‡k e‡jb, GB †h GLb hviv Qwe wb‡”Q, Zviv nq‡Zv GK `yB wgwbU †`Lv‡Z cvi‡e| GB †`vlUv n‡”Q bxwZi †`vl, GB miKv‡ii †`vl| miKvi Zv‡`i K_v ej‡Z †`q bv| miKvi Pvq bv †h mZ¨ K_v hvK| weGbwc gnvmwPe e‡jb, Lv‡j`v wRqv‡K miKvi ew›` K‡i †i‡L‡Q GKwU gvÎ Kvi‡Y| wZwb hw` evB‡i _v‡Kb, Zvn‡j GB jyUcvU Pj‡e bv| Gfv‡e gvby‡li AwaKvi‡K webó Ki‡Z †`‡e bv| wZwb mgMÖ gvbyl‡K wb‡q GwU‡K cÖwZnZ Ki‡eb| wZwb e‡jb, †`‡ki gvbyl Lv‡j`v wRqv‡K gy³ Ki‡e Avb‡e, MYZš¿ cÖwZôv Ki‡e Ges Zv‡`i cÖwZnZ Ki‡e| Av‡jvPbv mfvq weGbwci ¯’vqx KwgwUi m`m¨ W. L›`Kvi †gvkviid †nv‡mb, weGbwci fvBm-†Pqvig¨vb kvgmy¾vgvb `y`y cÖgyL Dcw¯’Z wQ‡jb|

 

রংপুরে রওশন এরশাদের বিরুদ্ধে ঝাড়ু মিছিল
                                  

জাতীয় পার্টির (জাপা) চেয়ারম্যান জিএম কাদেরের সঙ্গে বিরোধের প্রতিবাদে রংপুরে রওশন এরশাদের বিরুদ্ধে ঝাড়ু মিছিল করেছেন জাতীয় মহিলা পার্টির নেতা-কর্মী ও সমর্থকরা। গতকাল শুক্রবার বিকেলে শহরের সেন্ট্রাল রোডে জাপার দলীয় কার্যালয় থেকে ঝাড়ু মিছিলটি বের হয়ে গুরুত্বপূর্ণ সড়ক প্রদক্ষিণ করে। এসময় মিছিল থেকে রওশন এরশাদের বিরুদ্ধে বিভিন্ন স্লোগান দেন নেতা-কর্মী ও সমর্থকরা। মিছিল শেষে দলীয় কার্যালয়ে সমাবেশে করেন তারা।

সমাবেশে জাপার প্রতিষ্ঠাতা চেয়ারম্যান প্রয়াত হুসেইন মুহম্মদ এরশাদ ঘোষিত বর্তমান চেয়ারম্যান জিএম কাদেরের প্রতি সমর্থন জানিয়ে নেতারা বলেন, রওশন এরশাদকে কোনোভাবেই জাপার চেয়ারম্যান মানবেন না দলটির দুর্গখ্যাত রংপুর এবং রংপুর বিভাগের নেতা-কর্মীরা। এজন্য তারা দুর্বার আন্দোলন গড়ে তুলতে প্রস্তুত এবং রওশন এরশাদ ও ব্যারিস্টার আনিসুল ইসলাম মাহমুদসহ সব দালালদের ২৪ ঘণ্টার মধ্যে দল থেকে বহিষ্কারের দাবি জানান। এসময় সমাবেশে বক্তব্য রাখেন- জেলা জাতীয় মহিলা পার্টির সভানেত্রী নাঈম জেসমিন, সেক্রেটারি জোসনা বেগম, মহানগর সভানেত্রী জেসমিন বেগম ও সাধারণ সম্পাদক জেসমিন আখতার। এর আগে গত বৃহস্পতিবার সন্ধ্যায় লালমনিরহাটে রওশন এরশাদের কুশপুতুল দাহ করে তাকে অবাঞ্ছিত ঘোষণা করেন সেখানকার জাপার নেতা-কর্মী ও সমর্থকরা।

ফলে রওশন এরশাদবিরোধীদের বিক্ষোভে ধীরে ধীরে উত্তাল হয়ে উঠছে জাপার দুর্গখ্যাত রংপুর অঞ্চল। জাতীয় সংসদের বিরোধীদলীয় নেতা নির্ধারণকে কেন্দ্র করে জিএম কাদেরের পক্ষ থেকে স্পিকারকে চিঠি দেওয়ায় আপত্তি জানান রওশন এরশাদ। ফলে দলীয় চেয়ারম্যান পদ নিয়ে নতুন করে দ্বন্দ্ব দেখা দেয় দলটিতে। এ নিয়ে গত বৃহস্পতিবার রাজধানীতে পাল্টাপাল্টি সংবাদ সম্মেলনও করেছেন জিএম কাদের ও রওশন এরশাদ।

রওশনকে জাপার পাল্টা চেয়ারম্যান ঘোষণা, ব্যবস্থা নেওয়ার হুঁশিয়ারি জি এম কাদেরের
                                  

সংসদে বিরোধীদলীয় নেতার পদ নিয়ে দেবর-ভাবির টানাপড়েনের মধ্যে এরশাদপত্নী রওশনকে জাতীয় পার্টির চেয়ারম্যান ঘোষণা করেছেন তার অনুসারীরা। রওশনের উপস্থিতিতে গতকাল বৃহস্পতিবার তার বাসভবনে এক সংবাদ সম্মেলনে দলের সভাপতিম-লীর সদস্য আনিসুল ইসলাম মাহমুদ এ ঘোষণা দেন। তিনি বলেন, রওশন এরশাদ পার্টির চেয়ারম্যানের দায়িত্ব পালন করবেন। আগামি ছয় মাসের মধ্যে কাউন্সিল করে গণতান্ত্রিক উপায়ে স্থায়ী চেয়ারম্যান ঠিক করব। এদিকে, জাতীয় পার্টির একাংশ রওশন এরশাদকে দলের চেয়ারম্যান ঘোষণা করায় ‘গঠনতন্ত্র অনুযায়ী ব্যবস্থা নেওয়ার’ হুমকি দিয়েছেন হুসেইন মুহম্মদ এরশাদের মৃত্যুর পর দলের নেতৃত্ব পাওয়া জিএম কাদের। তিনি বলেছেন, দলের গঠনতন্ত্র অনুযায়ী হুসেইন মুহম্মদ এরশাদ তাকে চেয়ারম্যানের দায়িত্ব দিয়ে গেছেন। দলের প্রেসিডিয়ামও তাতে সমর্থন দিয়েছে। ঢাকার বনানীতে গতকাল বৃহস্পতিবার জাতীয় পার্টির চেয়ারম্যানের কার্যালয়ে এক সংবাদ সম্মেলনে এ কথা বলেন এরশাদের ভাই কাদের। এরশাদপত্নী রওশনকে ‘মায়ের মত’ সম্মান করেন মন্তব্য করে কাদের বলেন, সেই সম্মান রওশন রাখবেন বলেই তিনি আশা করছেন। এর ঘণ্টাখানেক আগেই রওশনের উপস্থিতিতে তার বাসভবনে একটি সংবাদ সম্মেলন করে জাতীয় পার্টির আরেক অংশ। দলের সভাপতিম-লীর সদস্য আনিসুল ইসলাম মাহমুদ সেখানে এরশাদের ভাই জিএম কাদের জাতীয় পার্টির ‘গঠনতন্ত্র ভেঙে’ চেয়ারম্যান হয়েছেন অভিযোগ করে বলেন, জি এম কাদেরকে কো-চেয়ারম্যানের সম্মান দেবেন রওশন এরশাদ। আর রওশন দলে বিভাজনের বিষয়টি স্বীকার করে সংবাদ সম্মেলনের শুরুতেই বলেন, পার্টি এখন উদ্বিগ্ন আছে। পার্টিতে কী হচ্ছে? জাপা অতীতেও ভাগ হয়েছে, এবারও কি সেটি হচ্ছে নাকি? হুসেইন মুহাম্মদ এরশাদ এত কষ্ট করে পার্টি গড়ে তুলেছেন, এখন সেই পার্টিটা ভালেভাবে চলুক, মান অভিমান ভুলে যারা চলে গেছে, তারা ফিরে আসুক। আমি চাই পার্টির সবাই মিলেমিশে জনগণের সেবা করব। পরে বনানীতে জাতীয় পার্টির চেয়ারম্যানের কার্যালয়ে সংবাদ সম্মেলনে এসে রওশনের দেবর কাদের বলেন, রওশন এরশাদ আমার মায়ের মত। তিনি নিজ মুখে তো আর বলেন নাই যে তিনি চেয়ারম্যান। তাকে সম্মান করি। আশা করি, তিনি এমন কিছু করবেন না, যাতে তার সম্মান নষ্ট হয়। দল ভাঙনের মুখে পড়েনি দাবি করে কাদের বলেন, যে কোনো লোক যে কোনো জায়গায় বলে দিল, তিনি রাজা। রাজার তো রাজত্ব থাকতে হবে, প্রজা থাকতে হবে। প্রেসিডিয়ামের সদস্যদের অধিকাংশদের সমর্থন নিয়েই তাকে দলের চেয়ারম্যান ঘোষণা করা হয়েছে এবং দলীয় এমপিদের অধিকাংশের সমর্থন নিয়েই সংসদে বিরোধী দলীয় নেতা হিসেবে নাম ঘোষণার জন্য স্পিকারকে চিঠি পাঠানো হয়েছে বলে দাবি করেন জি এম কাদের। তিনি বলেন, যারা শৃঙ্খলা নষ্ট করেছে, দলের গঠনতন্ত্র অনুযায়ী তাদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেওয়া হবে। তার সঙ্গে এই সংবাদ সম্মেলনে দলের প্রেসিডিয়াম সদস্য জিয়াউদ্দিন আহমেদ বাবলু, সৈয়দ আবু হোসেন বাবলা, মাসুদ উদ্দিন চৌধুরী, সালমা ইসলাম, এস এম ফখর-উজ-জামান জাহাঙ্গীর, মোস্তাফিজার রহমান মোস্তাফা, রানা মোহাম্মদ সোহেল উপস্থিত ছিলেন। অন্যদিকে রওশন এরশাদের সংবাদ সম্মেলনে আনিসুল ইসলাম মাহমুদ ছাড়াও জাতীয় পার্টির প্রেসিডিয়াম সদস্য গোলাম কিবরিয়া টিপু, মজিবুল হক চুন্নু, ফখরুল ইমাম, মাসুদ পারভেজ সোহেল রানা, এসএম ফয়সল চিশতী, মীর আবদুস সবুর আসুদ, খালেদ আখতার, শফিকুল ইসলাম সেন্টু, ভাইস চেয়ারম্যান লিয়াকত হোসেন খোকা ও নাসিম ওসমান উপস্থিত ছিলেন। দলের মহাসচিব মসিউর রহমান রাঙ্গাঁকে কোনো সংবাদ সম্মেলনেই দেখা যায়নি। তার কোনো বক্তব্যও তাৎক্ষণিকভাবে সংবাদ সম্মেলনে আসেনি। এরশাদ জীবিত থাকাকালেই জাতীয় পার্টির পদ বণ্টন ও অন্যান্য সিদ্ধান্ত নিয়ে জি এম কাদেরের সঙ্গে রওশনের দ্বন্দ্ব ছিল প্রকাশ্য। তবে, সে বিরোধ সামাল দিয়ে আসছিলেন এরশাদ। অসুস্থ থাকা অবস্থায় এরশাদ গত এপ্রিলে তার ভাই জিএম কাদেরকে দলের ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান করেন। এরপর থেকে রওশন ও তার ঘনিষ্ঠ কয়েকজন জ্যেষ্ঠ নেতাকে দলীয় কর্মসূচিতে দেখা যাচ্ছিল না। গত ১৪ জুলাই হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় মারা যান সংসদের বিরোধী দলীয় নেতা জাতীয় পার্টির চেয়ারম্যান এরশাদ। তার চার দিনের মাথায় এক সংবাদ সম্মেলনে পার্টির চেয়ারম্যান হিসেবে জি এম কাদেরের নাম ঘোষণা করা হয়। এরশাদের স্ত্রী রওশন ওই সংবাদ সম্মেলনেও উপস্থিত ছিলেন না। ১৮ জুলাই ওই সংবাদ সম্মেলনে দলের মহাসচিব মসিউর রহমান রাঙ্গাঁ বলেন, জাতীয় পার্টির গঠনতন্ত্রের ২০/১ (ক) ধারা অনুযায়ী হুসেইন মুহম্মদ এরশাদ মৃত্যুর আগে বলে গেছেন, তার অবর্তমানে জি এম কাদের দলের চেয়ারম্যান হবেন। আজ থেকে আমরা সিদ্ধান্ত নিয়েছি, জি এম কাদেরই আজ থেকে দলের চেয়ারম্যান হবেন। এর পর থেকে ভাবি রওশনের সঙ্গে কাদেরের দ্বন্দ্ব নতুন মাত্রা পায়। রওশন অভিযোগ করেন, জি এম কাদেরকে চেয়ারম্যান ঘোষণা করার আগে দলের প্রেসিডিয়াম সদস্যদের মতামত নেওয়া হয়নি। অন্যদিকে জি এম কাদের বলেছিলেন, দলে কোনো সমস্যা থাকলে আলোচনার মাধ্যমে তার সমাধান করবেন তারা। চেয়ারম্যান পদ নিয়ে দ্বন্দ্বের মধ্যে গত বুধবার জি এম কাদেরকে সংসদে বিরোধী দলীয় নেতা ঘোষণার জন্য স্পিকার শিরীন শারমিন চৌধুরীর কাছে চিঠি পাঠান হয় জাতীয় পার্টির নামে। এর পাল্টায় স্পিকারের কাছে চিঠি পাঠিয়ে রওশন বলেন, দলীয় ফোরামে কোনো সিদ্ধান্ত ছাড়াই জি এম কাদের নিজেকে বিরোধীদলীয় নেতা ঘোষণা করতে বলেছেন। এর জববে জি এম কাদের গত বুধবার সাংবাদিকদের বলেন, দলের চেয়ারম্যান হিসেবে তার ভাই এরশাদ ‘যেভাবে’ সিদ্ধান্ত নিতেন, তিনিও ‘সেভাবেই’ নিয়েছেন।

দুর্নীতি মহামারী আকার ধারণ করছে, দুদক নিরব ভূমিকা পালন করছে: রিজভী
                                  

 সরকারের নানা প্রকল্পে দুর্নীতির বিষয়ে দুর্নীতি দমন কমিশনের (দুদক) নিরব ভূমিকার সমালোচনা করেছেন বিএনপির জ্যেষ্ঠ যুগ্ম মহাসচিব রুহুল কবির রিজভী। নয়া পল্টনে দলের কেন্দ্রীয় কার্যালয়ে গতকাল বৃহস্পতিবার দুপুরে এক সংবাদ সম্মেলনে তিনি বলেন, সরকারের নানা প্রকল্পের নামে ক্ষমতাসীন দলের লুটেরাদের কর্মকা-ে উৎসাহিত হয়ে এখন প্রশাসনের লোকজনও জড়িয়ে পড়ছে স্বেচ্ছাচারিতা আর দুর্নীতিতে। রিজভী বলেন, রূপপুর পারমানবিক বিদ্যুৎ কেন্দ্রে বালিশ দুর্নীতির পর এবার দুর্নীতির বিশ্ব রেকর্ড গড়েছে স্বাস্থ্য অধিদপ্তর ও ফরিদপুর মেডিকেল কলেজ হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ। হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ একটি পর্দা কিনতে দাম দেখিয়েছি সাড়ে ৩৭ লাখ টাকা। পুকুর কাটা শিখতে রাজশাহীর বরেন্দ্র বহুমুখী উন্নয়ন কর্তৃপক্ষের ১৬ কর্মকর্তা রাষ্ট্রের ১ কোটি ২৮ লাখ টাকা ব্যয় করে ইউরোপে যাচ্ছেন, মশা মারা শিখতে সিঙ্গাপুর যাচ্ছেন সিটি করপোরেশনের কর্মকর্তারা। সিলেট বিভাগে বক্স কালভার্ট বানাতে কনসালটেন্সি বাবদ খরচ করা হয়েছে দেড় কোটি টাকা। গণমাধ্যম-মিডিয়ায় ইতিমধ্যেই এসব খবর বেরিয়েছে। দুদকের সমালোচনা করে তিনি বলেন, দেশের প্রতিটি সেক্টরে যখন দুর্নীতি মহামারী আকার ধারণ করছে তখন দুর্নীতি দমন কমিশন নিরব ভূমিকা পালন করছে। কারণ ক্ষমতাসীনদের দিকে তাকানো যাবে না। এই দুনীতি দমন কমিশন এমন আরব্য রজনীর একচোখা দৈত্য, যে তার একচোখ দিয়ে বিরোধী দলকে দেখে। সেখানে অন্যায় না থাকলেও জোর করে সরকার যেটি বলেন- এই আরব্য রজনীর সেই দৈত্যর মতো একদিকে দেখে। অন্য দিকে তারা কিছুই দেখতে পায় না। তিনি বলেন, আমরা মনে করি, এই দুদকের চোখটি তৈরি করে দিয়েছে বর্তমান শাসকগোষ্ঠী। তার হাত-পা শাসক দলের কাছে বাঁধা রয়েছে। এই দুদক কী করছে আজকে জাতি জানতে চায়। রাজশাহীর বাঘা উপজেলার কয়েকটি ইউনিয়নে অনুষ্ঠিত সাংগঠনিক সভার পর জেলা আহ্বায়ক আবু সাঈদ চাঁনসহ অসংখ্য নেতাকর্মীর বিরুদ্ধে মিথ্যা মামলা দায়ের ঘটনার নিন্দা জানিয়ে অবিলম্বে তা প্রত্যাহারের দাবি জানান রিজভী। সংবাদ সম্মেলনে বিএনপি চেয়ারপারসনের উপদেষ্টা কাউন্সিলের সদস্য আবুল খায়ের ভুঁইয়া, যুগ্ম মহাসচিব খায়রুল কবির খোকন, কেন্দ্রীয় নেতা আবদুস সালাম আজাদ, মুনির হোসেন, আবদুল আউয়াল খান, আমিনুল ইসলাম, মীর হেলাল প্রমুখ উপস্থিত ছিলেন।

 


   Page 1 of 243
     রাজনীতি
কাউন্সিল স্থগিতাদেশের প্রতিবাদে ছাত্রদলের বিক্ষোভ
.............................................................................................
রাবিতে ছাত্রলীগের দু’পক্ষের সংঘর্ষে আহত ৪
.............................................................................................
সরকারের হস্তক্ষেপেই ছাত্রদলের কাউন্সিলে স্থগিতাদেশ: ফখরুল
.............................................................................................
ফরিদগঞ্জে বেগম খালেদা জিয়ার মুক্তির দাবিতে মানববন্ধন
.............................................................................................
বাংলাদেশে রাজনীতি নেই, তোষণনীতি চলছে: ন্যাপ মহাসচিব
.............................................................................................
৩০ নভেম্বর নয়, জাপার কাউন্সিল ২১ ডিসেম্বর: জিএম কাদের
.............................................................................................
জনগণের ভোটেই রাষ্ট্রপতি হয়েছিলেন জিয়া: মোশাররফ
.............................................................................................
নাটকীয়তার পর রংপুর-৩ উপনির্বাচনে জাপার প্রার্থী এরশাদ পুত্র সাদ
.............................................................................................
আ. লীগ সারা জীবনের জন্য ভোটের রাজনীতি থেকে বিদায় নিয়েছে: মোশাররফ
.............................................................................................
জাবিতে আন্দোলনকারীকে মারধরের অভিযোগ ছাত্রলীগ নেতার বিরুদ্ধে
.............................................................................................
গণতন্ত্রকামী কোনো দল কিংবা লোক আ. লীগ সরকারের সঙ্গে নেই: রিজভী
.............................................................................................
বিরোধীদলীয় নেতা নির্বাচন: জাপার সংসদীয় দলের সভা ডেকেছেন রওশন
.............................................................................................
ফরিদপুরের পর্দা কেলেঙ্কারির কাছে রূপপুরের বালিশকান্ড হেরে গেছে: ফখরুল
.............................................................................................
রংপুরে রওশন এরশাদের বিরুদ্ধে ঝাড়ু মিছিল
.............................................................................................
রওশনকে জাপার পাল্টা চেয়ারম্যান ঘোষণা, ব্যবস্থা নেওয়ার হুঁশিয়ারি জি এম কাদেরের
.............................................................................................
দুর্নীতি মহামারী আকার ধারণ করছে, দুদক নিরব ভূমিকা পালন করছে: রিজভী
.............................................................................................
প্রার্থীর পক্ষে জাপার সবাই ঐক্যবদ্ধভাবে কাজ করবে: জিএম কাদের
.............................................................................................
৮ সেপ্টেম্বর থেকে আ. লীগের বিদ্রোহীদের বিরুদ্ধে ব্যাবস্থা: ওবায়দুল কাদের
.............................................................................................
দেশের নির্বাচন ব্যবস্থাটাই ধ্বংস করে ফেলা হয়েছে: ফখরুল
.............................................................................................
ইসির অনুমতি ছাড়া রংপুর-৩ আসনে বদলি নয়
.............................................................................................
ত্যাগ স্বীকার করে নেতাকর্মীদের রাজপথে নামার আহ্বান ফখরুলের
.............................................................................................
চট্টগ্রামে বিএনপির প্রতিষ্ঠাবার্ষিকীর সমাবেশে যুবদলের সংঘর্ষ
.............................................................................................
আ. লীগ সৃষ্ট রাজনৈতিক শূন্যতা পূরণে বিএনপির জন্ম: ফখরুল
.............................................................................................
সমতার ভিত্তিতে অন্তর্ভুক্তিমূলক সম্ভাবনাময় বিশ্ব গড়ার আহ্বান স্পিকারের
.............................................................................................
খালেদার মুক্তি না হলে গণতন্ত্র মুক্তি পাবে না: গয়েশ্বর
.............................................................................................
জনগণের সংসদ ছাড়া কোনোদিন রোহিঙ্গা সমস্যার সমাধান হবে না: ফখরুল
.............................................................................................
রোহিঙ্গা ইস্যু নিয়ে বিএনপির সেমিনার আজ
.............................................................................................
ছাত্রদলের কাউন্সিল গঠননের চূড়ান্ত তালিকা আজ, ২৭ জ‌নের প্রার্থীতা‌ বাতিল
.............................................................................................
রংপুর-৩ আসন জাপার কাছে খুবই গুরুত্বপূর্ণ: জিএম কাদের
.............................................................................................
দুর্নীতির অভিযোগ ভিত্তিহীন, রাজনৈতিক ষড়যন্ত্র: মাহী বি চৌধুরী
.............................................................................................
এরশাদের আসনে প্রার্থী নির্ধারণে জাপার ৮ সদস্যের বোর্ড
.............................................................................................
সরকার পুরোপুরি ব্যর্থ ও প্রতারক সরকারে পরিণত হয়েছে: ফখরুল
.............................................................................................
ভারত কখনোই বাংলাদেশের উপকার করেনি : ফখরুল
.............................................................................................
‘খালেদা জিয়ার মতো পরিণতির’ হুমকি ডাকসুর ভিপিকে, প্রধান মন্ত্রীর কাছে বিচার চান নুর
.............................................................................................
সঙ্কট শুধু কাশ্মীরের জনগণের একার নয়, বাংলাদেশেরও, বললেন হেফাজতে ইসলাম নেতা
.............................................................................................
ডেঙ্গু নিয়ে জনসচেতনতা বাড়াতে বিএনপির লিফলেট বিলি
.............................................................................................
ডেঙ্গু প্রতিরোধে বছরব্যাপী অভিযান চালানো আহ্বান নাসিমের
.............................................................................................
খালেদাকে মুক্ত করতে সরকার পতনের আন্দোলন ছাড়া বিকল্প নেই: গয়েশ্বর
.............................................................................................
ঈদযাত্রায় মহাসড়কে কোনও সমস্যা নেই, দাবি সেতুমন্ত্রীর
.............................................................................................
ডেঙ্গু নয়, আ. লীগ নেতাদের মস্তিস্ক পরীক্ষা দরকার: রিজভী
.............................................................................................
মাদকমুক্ত নড়াইল গড়তে সহযোগিতা চান মাশরাফি
.............................................................................................
কোনো স্বৈরাচার সরকার চিরস্থায়ী হয়নি, আওয়ামী লীগও হবে না
.............................................................................................
চাঁদ দেখা গেছে, ঈদুল আজহা ১২ আগস্ট
.............................................................................................
দেশে গজব-গুজব দুটোই এসেছে, বললেন সেলিমা রহমান
.............................................................................................
দুই মেয়রের পদত্যাগ ও স্বাস্থ্যমন্ত্রীকে বরখাস্তের দাবি আলালের
.............................................................................................
রংপুর-৩ সদর শূন্য আসনে ছাড় দেবেনা কেউ, অংশ নিচ্ছে আওয়ামী লীগ, বি.এন.পি, জাতীয় পার্টি
.............................................................................................
ডেঙ্গু-ধর্ষণ-শিশু নির্যাতন-শেয়ার বাজার লুট, কোনটা গুজব?
.............................................................................................
‘খালেদাকে জরুরি ভিত্তিতে মুক্তি দিয়ে চিকিৎসার সুযোগ দিন’
.............................................................................................
খালেদার মুক্তি দাবিতে রিজভীর নেতৃত্বে বিএনপির বিক্ষোভ
.............................................................................................
রাজশাহীতে বিএনপির বিভাগীয় মহাসমাবেশ ২৯ জুলাই
.............................................................................................

|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
স্বাধীন বাংলা মো. খয়রুল ইসলাম চৌধুরী কর্তৃক সম্পাদিত ও ঢাকা-১০০০ হতে প্রকাশিত
প্রধান উপদেষ্টা: ফিরোজ আহমেদ (সাবেক সচিব, বাণিজ্য মন্ত্রণালয়)
উপদেষ্টা: আজাদ কবির
সম্পাদক মন্ডলীর সভাপতি: ডাঃ হারুনুর রশীদ
সম্পাদক মন্ডলীর সহ-সভাপতি: মামুনুর রশীদ
ব্যবস্থাপনা সম্পাদক : মো: খায়রুজ্জামান
যুগ্ম সম্পাদক: জুবায়ের আহমদ
বার্তা সম্পাদক: মুজিবুর রহমান ডালিম
স্পেশাল করাসপনডেন্ট : মো: শরিফুল ইসলাম রানা
যুক্তরাজ্য প্রতিনিধি: জুবের আহমদ
যোগাযোগ করুন: swadhinbangla24@gmail.com
    2015 @ All Right Reserved By swadhinbangla.com

Developed By: Dynamicsolution IT [01686797756]