| বাংলার জন্য ক্লিক করুন
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|

   রাজনীতি -
                                                                                                                                                                                                                                                                                                                                 
এরশাদের আসন শূন্য ঘোষণা, ৯০ দিনের মধ্যে ভোট

 সাবেক রাষ্ট্রপতি, জাতীয় পার্টির চেয়ারম্যান হুসেইন মুহম্মদ এরশাদ মারা যাওয়ায় তার আসনটি শূন্য ঘোষণা করেছে সংসদ সচিবালয়। রংপুর-৩ আসন থেকে একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে জয়ী হয়ে সাবেক এই সামরিক শাসক আমৃত্যু বিরোধীদলীয় নেতার দায়িত্বে ছিলেন। সংসদ সচিবালয়ের সচিব (রুটিন দায়িত্ব) আ ই ম গোলাম কিবরিয়া গতকাল মঙ্গলবার আসনটি শূন্য হওয়ার গেজেট প্রকাশ করেন।

গেজেটে উল্লেখ করা হয়েছে- বাংলাদেশের জাতীয় সংসদের মাননীয় সংসদ সদস্য জনাব হুসেইন মুহম্মদ এরশাদ ৩০ আষাঢ় ১৪২৬/১৪ জুলাই ২০১৯ তারিখ পূর্বাহ্ণে মৃত্যুবরণ করায় একাদশ জাতীয় সংসদের ২১ রংপুর-৩ আসনটি ওই তারিখে শূন্য হয়েছে। সংবিধানের ১২৩(৪) দফায় বলা হয়েছে- ‘সংসদ ভাঙিয়া যাওয়া ব্যতীত অন্য কোনো কারণে সংসদের কোনো সদস্যপদ শূন্য হইলে পদটি শূন্য হইবার নব্বই দিনের মধ্যে ওই শূন্যপদ পূর্ণ করিবার জন্য নির্বাচন অনুষ্ঠিত হইবে (তবে শর্ত থাকে যে, যদি প্রধান নির্বাচন কমিশনারের মতে, কোনো দৈব-দুর্বিপাকের কারণে এই দফার নির্ধারিত মেয়াদের মধ্যে ওই নির্বাচন অনুষ্ঠান সম্ভব না হয়, তাহা হইলে ওই মেয়াদের শেষ দিনের পরবর্তী নব্বই দিনের মধ্যে ওই নির্বাচন অনুষ্ঠিত হইবে)।’ ইসি কর্মকর্তারা বলছেন, আসন শূন্য হওয়ার দিন থেকেই নব্বই দিন গণনা করা হয়।

এ ক্ষেত্রে আগামি ১১ অক্টোবরের মধ্যে ওই আসনে নির্বাচন অনুষ্ঠিত হবে। এ বিষয়ে ইসির নির্বাচন ব্যবস্থাপনা শাখার যুগ্ম সচিব ফরহাদ আহাম্মদ খান জানান, সংসদ সচিবালয় গেজেট প্রকাশের পর আমরা উপ-নির্বাচনের জন্য বিষয়টি কমিশনের কাছে উত্থাপন করি। কমিশনই সিদ্ধান্ত নেন কখন ভোট হবে। বিষয়টি শিগগিরই কমিশনে তোলা হবে। সংসদ সচিবালয় ইতোমধ্যে এইচএম এরশাদের আসনটি শূন্য ঘোষণা করার পাশপাশি ওয়েবসাইট থেকে তার নামটি সরিয়ে নিয়েছে। গত ১৪ জুলাই ঢাকায় সম্মিলিত সামরিক হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থান মৃত্যুবরণ করেন এরশাদ।

 

এরশাদের আসন শূন্য ঘোষণা, ৯০ দিনের মধ্যে ভোট
                                  

 সাবেক রাষ্ট্রপতি, জাতীয় পার্টির চেয়ারম্যান হুসেইন মুহম্মদ এরশাদ মারা যাওয়ায় তার আসনটি শূন্য ঘোষণা করেছে সংসদ সচিবালয়। রংপুর-৩ আসন থেকে একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে জয়ী হয়ে সাবেক এই সামরিক শাসক আমৃত্যু বিরোধীদলীয় নেতার দায়িত্বে ছিলেন। সংসদ সচিবালয়ের সচিব (রুটিন দায়িত্ব) আ ই ম গোলাম কিবরিয়া গতকাল মঙ্গলবার আসনটি শূন্য হওয়ার গেজেট প্রকাশ করেন।

গেজেটে উল্লেখ করা হয়েছে- বাংলাদেশের জাতীয় সংসদের মাননীয় সংসদ সদস্য জনাব হুসেইন মুহম্মদ এরশাদ ৩০ আষাঢ় ১৪২৬/১৪ জুলাই ২০১৯ তারিখ পূর্বাহ্ণে মৃত্যুবরণ করায় একাদশ জাতীয় সংসদের ২১ রংপুর-৩ আসনটি ওই তারিখে শূন্য হয়েছে। সংবিধানের ১২৩(৪) দফায় বলা হয়েছে- ‘সংসদ ভাঙিয়া যাওয়া ব্যতীত অন্য কোনো কারণে সংসদের কোনো সদস্যপদ শূন্য হইলে পদটি শূন্য হইবার নব্বই দিনের মধ্যে ওই শূন্যপদ পূর্ণ করিবার জন্য নির্বাচন অনুষ্ঠিত হইবে (তবে শর্ত থাকে যে, যদি প্রধান নির্বাচন কমিশনারের মতে, কোনো দৈব-দুর্বিপাকের কারণে এই দফার নির্ধারিত মেয়াদের মধ্যে ওই নির্বাচন অনুষ্ঠান সম্ভব না হয়, তাহা হইলে ওই মেয়াদের শেষ দিনের পরবর্তী নব্বই দিনের মধ্যে ওই নির্বাচন অনুষ্ঠিত হইবে)।’ ইসি কর্মকর্তারা বলছেন, আসন শূন্য হওয়ার দিন থেকেই নব্বই দিন গণনা করা হয়।

এ ক্ষেত্রে আগামি ১১ অক্টোবরের মধ্যে ওই আসনে নির্বাচন অনুষ্ঠিত হবে। এ বিষয়ে ইসির নির্বাচন ব্যবস্থাপনা শাখার যুগ্ম সচিব ফরহাদ আহাম্মদ খান জানান, সংসদ সচিবালয় গেজেট প্রকাশের পর আমরা উপ-নির্বাচনের জন্য বিষয়টি কমিশনের কাছে উত্থাপন করি। কমিশনই সিদ্ধান্ত নেন কখন ভোট হবে। বিষয়টি শিগগিরই কমিশনে তোলা হবে। সংসদ সচিবালয় ইতোমধ্যে এইচএম এরশাদের আসনটি শূন্য ঘোষণা করার পাশপাশি ওয়েবসাইট থেকে তার নামটি সরিয়ে নিয়েছে। গত ১৪ জুলাই ঢাকায় সম্মিলিত সামরিক হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থান মৃত্যুবরণ করেন এরশাদ।

 

জনগণকে দমিয়ে রাখতে খালেদাকে বন্দি করে রাখা: রিজভী
                                  

 বিএনপির চেয়ারপারসন খালেদা জিয়ার নেতৃত্বে দেশের জনগণ যেন সোচ্চার হতে না পারে, এজন্য তাঁকে জেলখানায় বন্দি করা হয়েছে বলে মন্তব্য করেছেন দলটির জ্যেষ্ঠ যুগ্ম মহাসচিব অ্যাডভোকেট রুহুল কবির রিজভী। গ্যাসের মূল্যবৃদ্ধির সিদ্ধান্তের প্রতিবাদে এবং বিএনপির চেয়ারপারসন ও সাবেক প্রধানমন্ত্রী খালেদা জিয়ার নিঃশর্ত মুক্তির দাবিতে গতকাল শুক্রবার সকালে এক মিছিল শেষে এ কথা বলেন রিজভী।

তিনি বলেন, খালেদা জিয়াকে কারামুক্ত করে মানুষের মৌলিক মানবাধিকার ও গণতান্ত্রিক অধিকার প্রতিষ্ঠা করতে জাতীয়তাবাদী শক্তি দৃঢ় সংকল্পবদ্ধ। খালেদা জিয়ার নেতৃত্বে দেশের জনগণ যাতে বর্তমান অবৈধ সরকারের এই জুলুমের শাসনের বিরুদ্ধে সোচ্চার হতে না পারে, সে জন্য তাঁকে ৩০ ডিসেম্বরের নির্বাচনের ১০ মাস আগেই মিথ্যা মামলায় সাজা দিয়ে কারান্তরীণ করা হয়েছে। বিএনপির জ্যেষ্ঠ যুগ্ম মহাসচিব আরো বলেন, মধ্যরাতের ভোটের সরকার বলেই বর্তমান অবৈধ শাসকগোষ্ঠী জনগণের গণতান্ত্রিক অধিকারকে মাটিচাপা দিয়ে বিএনপিসহ সব বিরোধী দলকে নিশ্চিহ্ন করার লক্ষ্যে একদলীয় বাকশালী শাসন প্রতিষ্ঠা করতে মরিয়া হয়ে উঠেছে।

কিন্তু জনগণ আওয়ামী শাসকগোষ্ঠীর লালিত অলীক-অবাস্তব স্বপ্ন কোনোদিনই বাস্তবায়িত হতে দেবে না। দেশের আপামর জনগণের আস্থাভাজন নেত্রী দেশনেত্রী খালেদা জিয়াকে কারামুক্ত করে মানুষের মৌলিক মানবাধিকার ও গণতান্ত্রিক অধিকার প্রতিষ্ঠা করতে জাতীয়তাবাদী শক্তি দৃঢ় সংকল্পবদ্ধ। আমি আবারও অবিলম্বে দেশনেত্রী খালেদা জিয়ার নিঃশর্ত মুক্তির জোর দাবি জানাচ্ছি। এ সময় গ্যাসের মূল্যবৃদ্ধির সমালোচনা করে বিএনপির এই নেতা বলেন, বর্তমান মধ্যরাতের ভোটের সরকার জনগণের ভোটে বিশ্বাসী না হওয়ার কারণে তারা জনগণ নয় বরং নিজেদের সুখ-স্বাচ্ছন্দ্যের নীতিতেই বিশ্বাস করে। বর্তমান ফ্যাসিবাদী সরকার জনগণের নার্ভ বুঝতে পেরেছে যে, জনগণ আওয়ামী দুঃশাসনের কারণে তাদেরকে ঘৃণা করে। আর ঘৃণা করার প্রতিশোধের অংশ হিসেবে ধারাবাহিক জুলুম চালানো হচ্ছে জনগণের ওপর। সেটিরই আরো একটি নির্মম বহিঃপ্রকাশ ভোক্তা পর্যায়ে গ্যাসের মূল্যবৃদ্ধি। জনগণের ওপর জুলুম, শোষণ ও নির্যাতন চালিয়ে দেশের সম্পদ লুট এবং জনগণের রক্ত চুষতে একের পর এক গণবিরোধী সিদ্ধান্ত গ্রহণ করে যাচ্ছে বর্তমান অবৈধ আওয়ামী সরকার। রিজভী আরো বলেন, জনগণের ওপর নিপীড়ন চালিয়ে অবৈধ অর্থ উপার্জনের দ্বারা সরকারের লোকজন ‘আঙুল ফুলে কলাগাছ’ হয়ে উঠছে।

আর এই অনৈতিক সুযোগ করে দিচ্ছে সরকার। গ্যাসের মূল্যবৃদ্ধির গণবিরোধী সিদ্ধান্তের প্রতিবাদে আমরা তীব্র নিন্দা ও প্রতিবাদ জানাচ্ছি এবং অবিলম্বে ভোক্তা পর্যায়ে গ্যাসের মূল্যবৃদ্ধি বন্ধ করার জন্য জোর দাবি জানাচ্ছি। গ্যাসের মূল্যবৃদ্ধির সিদ্ধান্ত বাতিল করা না হলে জনগণের উত্তাল আন্দোলন ও ক্ষোভে-বিক্ষোভে শামিল হতে বিএনপি দৃঢ় অঙ্গীকারবদ্ধ বলেও হুঁশিয়ারি দেন রিজভী। গ্যাসের মূল্যবৃদ্ধির সিদ্ধান্তের প্রতিবাদে এবং বিএনপির চেয়ারপারসন ও সাবেক প্রধানমন্ত্রী খালেদা জিয়ার নিঃশর্ত মুক্তির দাবিতে মিছিল করেন জাতীয়তাবাদী মহিলা দলের নেতাকর্মীরা। গতকাল শুক্রবার সকাল ১০টায় মহিলা দলের নেতাকর্মীদের অংশগ্রহণে একটি বিক্ষোভ মিছিল নয়াপল্টনে বিএনপির কেন্দ্রীয় কার্যালয়ের সামনে থেকে শুরু হয়। নাইটিংগেল মোড় ঘুরে আবারও নয়াপল্টন কার্যালয়ের সামনে এসে শেষ হয়।

মিছিলে নেতৃত্ব দেন বিএনপির জ্যেষ্ঠ যুগ্ম মহাসচিব অ্যাডভোকেট রুহুল কবির রিজভী। মিছিলে জাতীয়তাবাদী মহিলা দলের সভাপতি আফরোজা আব্বাস, সাধারণ সম্পাদক সুলতানা আহমেদ, ঢাকা মহানগর দক্ষিণ মহিলা দলের সভানেত্রী রাজিয়া আলিম, উত্তরের সভানেত্রী পেয়ারা মোস্তফা, সাধারণ সম্পাদক আমেনা বেগম, সহসাংগঠনিক সম্পাদক তাহমিনা শাহীন, মিলি জাকারিয়া, কেন্দ্রীয় মহিলা দলের শিক্ষাবিষয়ক সম্পাদক অ্যাডভোকেট মিনা বেগম মিনি, স্বনির্ভরবিষয়ক সম্পাদক অ্যাডভোকেট জেসমিন জাহান, সহদপ্তর সম্পাদক গুলশান আরা মিতা, সদস্য স্বপ্না আহমেদসহ কয়েকশ নেতাকর্মী অংশ নেন। মিছিল শেষে নাইটিংগেল মোড়ে জাতীয়তাবাদী মহিলা দলের সভাপতি আফরোজা আব্বাসের সভাপতিত্বে এবং সাধারণ সম্পাদক সুলতানা আহমেদের সঞ্চালনায় বক্তব্য দেন রুহুল কবির রিজভী।

এমপি হিসেবে শপথ নিলেন বিএনপির সিরাজ
                                  

জাতীয় সংসদের বগুড়া-৬ আসনের উপ-নির্বাচনে বিজয়ী বিএনপির গোলাম মোহাম্মদ সিরাজ সংসদ সদস্য (এমপি) হিসেবে শপথ নিয়েছেন। গতকাল বৃহস্পতিবার জাতীয় সংসদের স্পিকার ড. শিরীন শারমিন চৌধুরী সংসদ ভবনে তার কার্যালয়ে গোলাম মোহাম্মদ সিরাজকে শপথ বাক্য পাঠ করান।

শপথ অনুষ্ঠানে জাতীয় সংসদের ডেপুটি স্পিকার মো. ফজলে রাব্বী মিয়া, চিফ হুইপ নূর-ই-আলম চৌধুরী, হুইপ ইকবালুর রহিম, হুইপ আবু সাঈদ আল মাহমুদ স্বপন, দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা ও ত্রাণ মন্ত্রণালয় সম্পর্কিত সংসদীয় স্থায়ী কমিটির সভাপতি এ বি তাজুল ইসলাম, হারুনুর রশীদ এমপি, আমিনুল ইসলাম এমপি, মোশাররফ হোসেন এমপি, জাহিদুর রহমান জাহিদ এমপি ও রুমিন ফারহানা এমপি উপস্থিত ছিলেন। শপথ গ্রহণ শেষে গোলাম মোহাম্মদ সিরাজ রীতি অনুযায়ী শপথ বইয়ে স্বাক্ষর করেন। শপথ গ্রহণ অনুষ্ঠানটি পরিচালনা করেন জাতীয় সংসদ সচিবালয়ের সিনিয়র সচিব ড. জাফর আহমেদ খান।

প্রসঙ্গত, গত ৩০ ডিসেম্বর অনুষ্ঠিত একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে বগুড়া-৬ (সদর) আসনে ২ লাখ ৭ হাজার ২৫ ভোট পেয়ে জয়ী হয়েছিলেন বিএনপির প্রার্থী মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর। তবে তিনি নির্ধারিত সময়ে শপথ গ্রহণ না করায় আসনটি শূন্য ঘোষণা করে উপ-নির্বাচন দেওয়া হয়। এতে বিএনপি মনোনীত প্রার্থী গোলাম মোহাম্মদ সিরাজ ৮৯ হাজার ৭৪২ ভোট পেয়ে বিজয়ী হন।

আওয়ামী লীগ দেশকে অকার্যকর রাষ্ট্রে পরিণত করেছে: বিএনপি
                                  

 বিচার বিভাগে হস্তক্ষেপ এবং সাংবিধানিক প্রতিষ্ঠান ধ্বংসের মাধ্যমে দেশকে অকার্যকর রাষ্ট্রে পরিণত করেছে আওয়ামী লীগ। এমন অভিযোগ করে বিএনপি বলছে, পাবনায় শেখ হাসিনার ট্রেন বহরে হামলা মামলায় ফরমায়েশি রায় দিয়েছেন আদালত। গতকাল সোমবার দুপুরে রাজধানীর নয়াপল্টনে দলীয় কার্যালয়ে আয়োজিত সংবাদ সম্মেলনে এসব কথা বলেন বিএনপি মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর।


মির্জা ফখরুল বলেন, বাংলাদেশের গণতান্ত্রিক রাষ্ট্র কাঠামো প্রায় ভেঙে পড়েছে। আওয়ামী লীগ ২০০৮ সালে ক্ষমতায় আসার পর থেকেই ক্ষমতাকে নিরঙ্কুশ করার লক্ষ্যে বিচার বিভাগকে দলীয়করণ করছে অত্যন্ত সুচতুরভাবে। খায়রুল হকের রায়ের মধ্য দিয়ে সংবিধানের পঞ্চদশ সংশোধনীতে নির্বাচনকালীন তত্ত্বাবধায়ক সরকার বাতিল করে সরকারের অধীনে নির্বাচন ব্যবস্থার পুনঃপ্রবর্তন-একে একে সংবিধানের গণতান্ত্রিক বিধানগুলোকে বাদ দিয়ে রাষ্ট্রের সব প্রতিষ্ঠানকে দলীয় নিয়ন্ত্রণে নিয়ে আসার মারাত্মক প্রক্রিয়া তারা সম্পন্ন করেছে। তারই ধারাবাহিকতায় নির্বাচন ব্যবস্থা, প্রশাসন, আইনশৃঙ্খলা ব্যবস্থা, প্রতিরক্ষা ব্যবস্থা, এমনকি বিচার ব্যবস্থাকে আজ সম্পূর্ণভাবে দলীয়করণ করা হয়েছে। ফলে জনগণের যে নূন্যতম আস্থা সেই বিচার বিভাগের নিকট মানুষ ন্যায়বিচার থেকে বঞ্চিত হচ্ছে।


বিএনপি মহাসচিব বলেন, সাবেক প্রধান বিচারপতি এস কে সিনহা সংবিধান সংশোধন সম্পর্কিত রায়ে পরিষ্কারভাবে এই কথা বলেছেন যে, বিচার ব্যবস্থা দলীয়করণের শিকার হয়েছে এবং জনগণ ন্যায়বিচার থেকে বঞ্চিত হচ্ছে। নিম্ন আদালতে আইন মন্ত্রণালয়ের নিরঙ্কুশ প্রভাব নিশ্চিত করা হয়েছে এবং ন্যায়বিচার তিরোহিত হচ্ছে। বিচার বিভাগের স্বাধীনতা বিলুপ্ত হচ্ছে। উচ্চ আদালতেও এর প্রভাব আমরা দুঃখজনকভাবে দেখতে পাচ্ছি। বিচারপতি সিনহাকে বলপ্রয়োগের মাধ্যমে অপসারণ-দেশত্যাগে বাধ্য করার ফলে ভীতি সর্বগ্রাসী হয়েছে এবং দলীয় ব্যক্তিদের নিয়োগের কারণে পরিস্থিতির গুরুতর অবনতি ঘটেছে। দেশনেত্রীর মামলায় এই বিষয়গুলো স্পষ্ট হয়ে উঠেছে।
মির্জা ফখরুল বলেন, অতি সম্প্রতি পাবনার ঈশ্বরদীতে ১৯৯৪ সালে তৎকালীন বিরোধী দলের নেতার ট্রেনের ওপর হামলা সংক্রান্ত মামলায় নিম্ন আদালতে যে রায় দেওয়া হয়েছে তা বিচার ব্যবস্থায় একই চিত্র তুলে ধরেছে। এই মামলার রায়ে নয়জনকে মৃত্যুদন্ড, ২৫ জনকে যাবজ্জীবন কারাদ- ও ১৩ জনকে ১০ বছরের সশ্রম কারাদ-ের শাস্তি প্রদানের আদেশ সমগ্র জাতিকে বিস্মিত, হতাশ ও ক্ষুব্ধ করেছে।


বিএনপি মহাসচিব আরো বলেন, আমরা যেকোনো সন্ত্রাসের বিরুদ্ধে, আমরা সবসময়ই সন্ত্রাসের ঘটনায় নিন্দা করেছি, প্রতিবাদ জানিয়েছি এবং সুষ্ঠু বিচার চেয়েছি। কিন্তু আওয়ামী লীগ ক্ষমতায় আসার পর ঘটনাগুলোকে রাজনৈতিকভাবে ব্যবহার করতে চেয়েছে। ঈশ্বরদীতে ১৯৯৪ সালে সংঘটিত এই হামলায় কোনো হতাহতের ঘটনা ঘটেনি। অথচ একটি রাজনৈতিক দলের প্রায় সব কর্মকর্তাকে এই ঘটনার সঙ্গে সম্পৃক্ত করে তিন বছর পর অভিযোগপত্র দিয়ে ২৫ বছর পর এই আদেশ প্রমাণ করেছে যে, এই আদেশ ন্যায়বিচার পরিপন্থী ও রাজনৈতিক উদ্দেশ্যপ্রণোদিত। আমরা এর তীব্র নিন্দা ও প্রতিবাদ জানাচ্ছি।
সাবেক এ প্রতিমন্ত্রী বলেন, শুধু ক্ষমতাকে চিরস্থায়ী করবার জন্য একের পর এক গণতান্ত্রিক সব প্রতিষ্ঠানকে ধ্বংস করে, বিরোধী রাজনীতিকে ধ্বংস করে, বাংলাদেশে গণতন্ত্রকে চিরতরে নির্বাসিত করার আয়োজন সম্পন্ন করেছে আওয়ামী লীগ। জনগণের আশ্রয়ের শেষস্থল বিচার বিভাগকে দলীয়করণ করার মাধ্যমে রাষ্ট্রকে একদলীয় শাসন ব্যবস্থা, একনায়কতন্ত্র ও ফ্যাসিবাদী রাষ্ট্রে পরিণত করে ব্যর্থ রাষ্ট্রে পরিণত করেছে।


সংবাদ সম্মেলনে উপস্থিত ছিলেন বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য ব্যারিস্টার মওদুদ আহমদ ও সেলিমা রহমান, ভাইস চেয়ারম্যান খন্দকার মাহবুব হোসেন ও জয়নুল আবেদীন, যুগ্ম মহাসচিব ব্যারিস্টার মাহবুব উদ্দিন খোকন ও আন্তর্জাতিক বিষয়ক সম্পাদক মাসুদ আহমেদ তালুকদার।

 

পরিণতি ভালো হবে না, সরকারকে রিজভীর হুঁশিয়ারি
                                  

 গ্যাসের দাম বাড়ানোর সিদ্ধান্ত প্রত্যাহার না হলে তার ‘পরিণতি’ নিয়ে সরকারকে হুঁশিয়ার করেছেন বিএনপির জ্যেষ্ঠ যুগ্ম মহাসচিব রুহুল কবির রিজভী। নয়া পল্টনে দলের কার্যালয়ে গতকাল রোববার দুপুরে এক সংবাদ সম্মেলনে তিনি বলেন, যে সরকারের জনগণের ম্যান্ডেট নাই তারা কি করবে না করবে আমরা জানি না, তবে এই যে সংগ্রাম, তা এই পর্যায়ে থাকবে না, এর স্ফুলিঙ্গ দাবানল আকারে ছড়িয়ে পড়বে একদিন।

এই সরকারের যদি বোধদয় না হয়, উপলব্ধি না হয়, তাহলে তাদের পরিণতি খুব ভালো হবে না। বেশি দামে আমদানি করা এলপিজিতে ভর্তুকির চাপ কমাতে সমাজের বিভিন্ন অংশের আপত্তির মধ্যেই সম্প্রতি সব পর্যায়ে গ্যাসের দাম গড়ে ৩২.৮ শতাংশ বাড়িয়েছে সরকার। গ্যাসের বাড়তি দাম নিয়ে আপত্তি এসেছে আওযামী লীগ নেতৃত্বাধীন চৌদ্দ দল থেকেও। গ্যাসের দাম বাড়ানোর প্রতিবাদে গতকাল রোববার সারাদশে আধাবেলা হরতাল পালন করে বাম গণতান্ত্রিক জোট। হরতালে বিএনপিওসহ বিভিন্ন রাজনৈতিক দলেরও সমর্থন ছিল। তবে গ্যাসের বাড়তি দাম মেনে নিতে আহ্বান জানিয়েছেন আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদের।
নয়া পল্টনের সংবাদ সম্মেলনে রিজভী বলেন, ওবায়দুল কাদের সাহেব বলছেন, মেনে নেন।


আপনারা মধ্য রাতের নির্বাচন করবেন সেটা মেনে নিতে হবে, আপনারা একতরফা নির্বাচন করবেন সেটা মেনে নিতে হবে, আপনারা ইভিএম দিয়ে একটা জোচ্চুরি নির্বাচন করবেন সেটা মেনে নিতে হবে, আপনারা গ্যাসের দাম বাড়াবেন সেটা মেনে নিতে হবে, আপনারা বিদ্যুতের দাম বাড়াবেন সেটা মেনে নিতে হবে। আপনারা কারা?”


গত শুক্র ও শনিবার কেন্দ্রীয় কার্যালয়ের সামনে থেকে বিএনপির নেতাকর্মীদের গ্রেপ্তারের নিন্দা জানিয়ে অবিলম্বে তাদের মুক্তির দাবি জানান রিজভী।
সংবাদ সম্মেলনে দলের চেয়ারপারসনের উপদেষ্টা কাউন্সিলের সদস্য নাজমুল হক নান্নু, আবুল খায়ের ভুঁইয়া, কেন্দ্রীয় নেতা আবদুস সালাম আজাদ, ফিরোজ-উজ জামান প্রমুখ উপস্থিত ছিলেন।

‘গণতন্ত্র পুনরুদ্ধারে’ গণআন্দোলনের আশা সেলিমার
                                  

বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য সেলিমা রহমান ‘গণতন্ত্র পুনরুদ্ধারে’ ভবিষ্যতে গণআন্দোলনের আশা করছেন। গতকাল শনিবার এক আলোচনা অনুষ্ঠানে তিনি দলীয় নেতা-কর্মীদের নিজের এই আশার কথা জানান। সেলিমা বলেন, আজকে আপনারা যে বলেছেন, জনগণের সম্পৃক্ততা ক্রমশ বাড়ছে, উত্তাপ ক্রমশ বাড়ছে। আমরা জানি, এই উত্তাপ গণআন্দোলনে রূপ নেবে। যে কোনো আন্দোলন যতক্ষণ গণআন্দোলনে রূপ না নেয়, সেই আন্দোলন কিন্তু ফলপ্রসূ হয় নাই।

আপনারা দেখেছেন ’৬৯ এর আন্দোলন, আপনারা দেখেছেন আমাদের ’৯০ এর আন্দোলন। দলীয় চেয়ারপারসন খালেদা জিয়ার মুক্তি দাবি করে সেলিমা বলেন, বাংলাদেশের জনগণের মুক্তি বলেন, গণতন্ত্রের মুক্তি বলেন, বাংলাদেশের স্বাধীনতা রক্ষাকারী বলেন, সব কিছুর জন্য বাংলাদেশের একজন আছেন, তিনি হচ্ছেন দেশনেত্রী বেগম খালেদা জিয়া। আজকে প্রতিটি ঘরে ঘরে একটি আওয়াজই ধ্বনিত হচ্ছে, একটি আওয়াজই বার বার উচ্চারিত হচ্ছে- আমাদের দেশনেত্রী গণতন্ত্রের মাতা কবে মুক্তি পাবেন? আমি দৃঢ়তার সাথে বলতে চাই, তাকে আমরা মুক্ত করবোই। যেভাবে হোক আমরা সকলে মিলে একসাথে দেশনেত্রীকে মুক্ত করব। এই শপথ নিতে হবে। বিএনপি চেয়ারপারসনের মুক্তি দাবিতে বিএনপি সমর্থক কৃষিবিদদের সংগঠন অ্যাসোসিয়েশন অব এগ্রিকালচারিস্ট (এএবি) এর জাতীয় প্রেস ক্লাবে অনুষ্ঠিত সমাবেশে বক্তব্য রাখেন সেলিমা।

সংগঠনের আহ্বায়ক রাশিদুল হাসান হারুনের সভাপতিত্বে ও সদস্য সচিব জি কে মোস্তাফিজুর রহমানের পরিচালনায় সমাবেশে বক্তব্য রাখেন বিএনপি নেতা হাবিবুর রহমান হাবিব, ফরহাদ হালিম ডোনার, সৈয়দ মোয়াজ্জেম হোসেন আলাল, খায়রুল কবির খোকন, শামীমুর রহমান শামীম, কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তরের সাবেক মহাপরিচালক ইব্রাহীম খলিল, এএবি‘র অধ্যাপক গোলাম হাফিজ কেনেডি, অধ্যাপক বাদল সরকার, রজব আলী, শফিকুল ইসলাম, হাসান জাফির তুহিন, আতিকুল ইসলাম, সাহাদত হোসেন চঞ্চল প্রমুখ।

 

ফরিদগঞ্জে বিএনপির মতবিনিময় সভা পন্ড
                                  

এস.এম ইকবাল :

ফরিদগঞ্জের একটি প্রেসক্লাবে বিএনপি আয়োজিত মতবিনিময় সভাটি অবশেষে পন্ড করতে বাধ্য হয়েছেন আয়োজকরা। দলের দীর্ঘ দিনের সকল ত্যাগী নেতাকর্মীদের না জানিয়ে বিএনপির এমন সভার পক্ষে বিপক্ষে তুমুল আলোচনা ও সমালোচনার মুখে পড়ে আয়োজকরা ওই মতবিনিময় সভাটি বন্ধ করতে বাধ্য হয়েছেন। বিএনপির বর্তমানে লেজে-গোবরে পরিস্থিতি বিরাজ করছে।

শনিবার সকাল ১০টায় অনুষ্ঠিত সভাটি শুরুর কিছু সময়ের মধ্যে কথা কাটাকাটি ও হাতাহাতি চলতে থাকে দু‘গ্রুপের নেতা-কর্মীদের মধ্যে। ফলে পরিস্থিতি বেগতিক দেখে সভাটি স্থগিত করে দিতে বাধ্য হয় আয়োজকরা।

সাবেক এমপি ও উপজেলা বিএনপির সভাপতি লায়ন হারুনুর রশিদ মুঠোফোনে জানান, ফরিদগঞ্জের বিএনপিকে আমি সু-সংগঠিত করে রেখেছি। শনিবার জেলা সাংগঠনিক টিমের আয়োজিত সভাটিতে মূলতঃ বিএনপির ত্যাগী নেতাদের উপযুক্ত সম্মান না দেওয়ায় নেতা-কর্মীরা ক্ষুর্দ হয়। পরিস্থিতি বেগতিক দেখে সভাটি স্থগিত করে দেয় আয়োজকরা। আমি দীর্ঘদিন মামলা –হামলা থেকে নেতা-কর্মীদের সকল ধরণের সহযোগীতা ও আশ্রয় দিয়ে সংগঠনকে টিকিয়ে রেখেছি। তাই এখনও ফরিদগঞ্জে কোন ধরণের বিশৃংখলা করার সুযোগ দেওয়া হবে না। প্রকৃত নেতা-কর্মীদের অব-মূল্যায়ণ ভবিষ্যতে সাংগঠনিক অশনি শংকেত বলা চলে।

উপজেলা বিএনপির সাংগঠনিক সম্পাদক মোঃ মজিবুর রহমান দুলাল জানান, উপজেলা বিএনপির একটি সাংগঠনিক সভার আয়োজন করা হয়েছে। বিভিন্ন ইউনিয়নের সভাপতি ও সেক্রেটারী এবং সাবেক চেয়ারম্যান ও এ্যলিট পারসনদের নিয়ে। সভা চলাকালিন লায়ন হারুনুর রশিদের লোকজন এসে বিশৃংখলা সৃষ্টি করতে চাইলে সভাটি স্থগিত করে দেওয়া হয়।

উপজেলা বিএনপির সহ-সভাপতি মাহাবুবুর রহমান মফু জানান, জেলা বিএনপির সাংগঠনিক টিমের যুগ্ন আহবায়ক ও ফরিদগঞ্জ থানার সাংগঠনিক আহবায়ক এড. সেলিমুছ সালাম,মুনির চৌধুরী ,বাবর ,জলিল ও কামালসহ ৮/১০ জনের একটি টিম এসেছে কমিটি গঠনের জন্য প্রস্তুতি সভা করতে। সভায় বিধি মোতাবেক ইউনিয়ন সভাপতি ও সেক্রেটারীদের শুধুমাত্র থাকার কথা। কিন্তু সাবেক এমপি ও উপজেলা বিএনপির সভাপতি লায়ন হারুনুর রশিদ প্রতিটি ইউনিয়ন থেকে ১০/১৫জন করে ক্ষেত মজুর এনে বিশৃংখলা সৃষ্টি করতে চাইলে জেলা নেতৃবৃন্দ সভাটি স্থগিত করে চলে যান। তাছাড়া ওনারা জেলা কমিটির নিকট এ বিষয়ে রিপোর্ট করবেন বলে জানাযায়।

অপর গ্রুপের নেতা উপজেলা বিএনপির সাবেক সভাপতি শিল্পপতি এম.এ হান্নানকে একাধিকবার মুঠোফোনে বক্তব্য নিতে চেয়ে ফোন দিলে মোবাইল রিসিভ না করায় বক্তব্য নেওয়া সম্ভব হয়নি।

এ বিষয়ে থানার ওসি আব্দুর রকিব জানান, বিএনপির দু‘গ্রুপের মধ্যে বাক-বিতন্ডা হয়। এতে পরিস্থিতি আশংকাজন দেখে সভাপটি বন্ধ করে দিতে অনুরোধ করি। তাছাড়া শান্তিপূর্ণ পরিবেশ বজায়ে রাখতে বলা হয়েছে।

‘গণঐক্য গড়ে তুলে সরকারের পতন করা হবে’
                                  

সমস্ত রাজনীতিক দলগুলোকে ঐক্যবদ্ধ করে জনগণকে ঐক্যবদ্ধ করে সর্বোপরি সারা দেশে গণঐক্য গড়ে তুলে গণবিরোধী ও গণতন্ত্র বিনাশী সরকারের পতন নিশ্চিত করা হবে বলে হুঁশিয়ারি উচ্চারণ করেছেন বিএনপির মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর।

শনিবার (৬ জুলাই) দুপুরে জাতীয় প্রেসক্লাবের সামনে এক মানববন্ধনে তিনি এসব কথা বলেন। বিএনপির চেয়ারপারসন বেগম খালেদা জিয়া, ঢাকা মহানগর দক্ষিণ বিএনপির সভাপতি হাবিব-উন নবী খান সোহেলসহ সকল রাজবন্দিদের নিঃর্শত মুক্তির দাবিতে মানববন্ধনের আয়োজন করে ঢাকা মহানগর দক্ষিণ বিএনপি।

ফখরুল আরো বলেন, ‘ভয়ংকর গণতন্ত্র বিনাশী সরকার মানুষের অধিকার সমূলে কেড়ে নিচ্ছে। এই সরকারকে অপসারণ করতে হলে জনগণের ঐক্যের গণঐক্যের আরও কোনও বিকল্প নেই। আজকে সেই গণঐক্য আমাদেরকে সৃষ্টি করতে হবে।’

মির্জা ফখরুল বলেন, ‘বিচার বিভাগের ওপর আমাদের নির্ভর করার কথা, সাধারণ জণগণের নির্ভর করার কথা। কিন্তু এই বিচার বিভাগের কাছে আমরা কোনও বিচার পাই না। এই বিচার বিভাগ সম্পূর্ণভাবে আওয়ামী লীগ সরকার নিয়ন্ত্রণ করছে। সরকার যা নির্দেশ দেয় আদালতও সেই বিচারই করে।’

বিএনপি চেয়ারপারসন বেগম খালেদা জিয়ার মুক্তি দাবি করে দলের মহাসচিব বলেন, ‘আজকে খালেদা জিয়ার মুক্তি আমরা চাচ্ছি এ কারণে যে, তাঁর মামলাগুলো সম্পূর্ণভাবে সাজানো। দ্বিতীয়ত, একই ধরনের মামলায় সরকারের অনুসারীদের জামিন দেয়া হচ্ছে। কিন্তু আমাদেরকে জামিন দিচ্ছেন না। দেশনেত্রীকে জামিন দেয়া হচ্ছে না। এটা সম্পূর্ণভাবে বেআইনি।’

এ প্রসঙ্গে ফখরুল আরও বলেন, ‘আজকে বেগম খালেদা জিয়াকে যে মামলায় সাজা দেয়া হয়েছে, একই ধরনের মামলা বর্তমান প্রধানমন্ত্রীর বিরুদ্ধে ছিলো ১/১১-এর সময়। সেই ১৫টা মামলা তারা খারিজ করে দিয়েছে, বাতিল করে দিয়েছে। অথচ খালেদা জিয়ার জামিন না দিয়ে তাঁর বিরুদ্ধে উল্টো নতুন করে আরও মামলা যোগ করা হয়েছে।’

গ্যাসের দাম বাড়ানোর প্রতিবাদে বাম জোটের ডাকা হরতালে বিএনপির সমর্থন
                                  

 গ্যাসের মূল্য বৃদ্ধির প্রতিবাদে বাম গণতান্ত্রিক জোটের ডাকা অর্ধদিবস হরতালে নৈতিক সমর্থন জানিয়েছে বিএনপি। গতকাল শুক্রবার দলের স্থায়ী কমিটির বৈঠকের পর বিএনপি মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর এই সিদ্ধান্তের কথা জানান। তিনি বলেন, বাম দল যারা আছেন তারা আগামি ৭ জুলাই (রোববার) হরতাল আহ্বান করেছেন। আমরা এই হরতালের প্রতি নৈতিক সমর্থন জানাচ্ছি। সারা দেশের মানুষ এই গ্যাসের মূল্য বৃদ্ধিতে ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছেন।

সেই কারণে এটা একটা যৌক্তিক হরতাল বলে আমরা মনে করি। সেই কারণেই এই হরতালে আমরা নীতিগত সমর্থন জানাচ্ছি। উচ্চ দামে আমদানি করা এলপিজিতে ভর্তুকির ভার লাঘবের জন্য সমাজের বিভিন্ন অংশের আপত্তির মধ্যেই সম্প্রতি সব পর্যায়ে গ্যাসের দাম গড়ে ৩২.৮ শতাংশ বাড়িয়েছে সরকার। এর প্রতিবাদে রোববার সারা দেশে আধা বেলা হরতালের ডাক দিয়েছে বামপন্থি দলগুলোর সমন্বয়ে গঠিত বাম গণতান্ত্রিক জোট। তাদের এই হরতালে ইতোমধ্যে সমর্থন জানিয়েছে কামাল হোসেনের গণফোরাম, আ স ম আবদুর রবের জেএসডি ও মাহমুদুর রহমান মান্নার নাগরিক ঐক্য। মির্জা ফখরুল বলেন, জাতীয় স্থায়ী কমিটি মনে করে, গ্যাসের মূল্য বৃদ্ধি সম্পূর্ণ অযৌক্তিক।

শুধু মাত্র দুর্নীতির যে ধাপগুলো আছে বিশেষ করে গ্যাস ও জ¦ালানি তেল সংক্রান্ত এসবকে অর্থায়ন করার জন্য মূলত গ্যাসের মূল্য বাড়ানো হয়েছে। গ্যাসের এই মূল্য বৃদ্ধির ফলে সমগ্র অর্থনীতিতে নেতিবাচক প্রভাব পড়বে এবং সেটা অর্থনীতিকে ক্ষতিগ্রস্ত করবে বলেই স্থায়ী কমিটি মনে করে। এতে করে প্রত্যেকটি নিত্যপ্রয়োজনীয় দ্রব্যের দাম বাড়বে, শিল্প উৎপাদন খরচ বেড়ে যাবে, সামগ্রিকভাবে অর্থনীতিতে নেতিবাচক প্রভাব পড়বে। গ্যাসের মূল্য বৃদ্ধির প্রতিবাদে গত ১ জুলাই জেলা ও মহানগরে বিক্ষোভ সমাবেশ ও মিছিল করে বিএনপি। জনগণের সর্বস্তর থেকে এই গ্যাসের মূল্য বৃদ্ধির প্রতিবাদ হয়েছে। বিএনপিসহ অন্যান্য রাজনৈতিক দল কর্মসূচি দিয়েছে, নিন্দা ও প্রতিবাদ করেছে। কিন্তু সরকার এটাকে মেনে নেয়নি অর্থাৎ মূল্য বৃদ্ধির সিদ্ধান্ত প্রত্যাহার করেনি, বলেন ফখরুল।

বিএনপি গ্যাসের মূল্য বৃদ্ধির বিরুদ্ধে আর কোনো কর্মসূচি দেবে কি না প্রশ্ন করা হলে বিএনপি মহাসচিব বলেন, আমরা কর্মসূচি দিয়েছি। বাম দলের কর্মসূচিতে সমর্থন দিলাম।এরপর আমরা চেষ্টা করব যদি অন্য কোনো কর্মসূচি দেওয়া যায়। বিকাল ৪টা থেকে দুই ঘণ্টা গুলশানে বিএনপি চেয়ারপারসনের কার্যালয়ে স্থায়ী কমিটির এই বৈঠক হয়। বৈঠকে মহাসচিব ছাড়াও খন্দকার মোশাররফ হোসেন, মওদুদ আহমদ, জমিরউদ্দিন সরকার, মির্জা আব্বাস, গয়েশ্বর চন্দ্র রায়, আবদুল মঈন খান, নজরুল ইসলাম খান, সেলিমা রহমান উপস্থিত ছিলেন। দলের ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান তারেক রহমান লন্ডন থেকে স্কাইপের মাধ্যমে বৈঠকে যোগ দেন।

সব স্থানীয় নির্বাচনে অংশ নেবে বিএনপির
                                  

স্থানীয় সরকার নির্বাচন বর্জনের পূর্বের সিদ্ধান্ত থেকে সরে এসেছে বিএনপি। এই সরকারের আমলে আসন্ন স্থানীয় সরকার নির্বাচনগুলো নিয়ে কৌশল বদল করেছে বিএনপি। এখন থেকে অনুষ্ঠিতব্য সকল স্থানীয় নির্বাচনে অংশগ্রহণ করবে দলটি। তবে বিএনপি প্রার্থীদের ধানের শীষ প্রতীক বরাদ্দ দেয়া হবে না। স্বতন্ত্রভাবে নির্বাচনে লড়বেন বিএনপি মনোনীতরা।

তাই আগামীতে আসন্ন তিন সিটি নির্বাচন, ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচন, পৌরসভা নির্বাচনসহ সকল নির্বাচনে থাকবেন বিএনপির প্রার্থী। গতকাল শুক্রবার বিএনপির স্থায়ী কমিটির এক বৈঠকে এই সিদ্ধান্ত গৃহীত হয়।

প্রসঙ্গত, একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে ফল বিপর্যয়ের পর বিএনপি আর কোনো নির্বাচনে অংশ না নেওয়ার বিষয়ে সিদ্ধান্ত ঘোষণা করে। বিশেষ করে উপজেলা নির্বাচন ৪ ধাপ পর্যন্ত বর্জন করে বিএনপি। যারা দলের সিদ্ধান্ত অমান্য করে নির্বাচনে প্রার্থী হন তাদেরকেও বহিষ্কার করে দলটি। ফলে দুই শতাধিক প্রার্থী এখনো বহিষ্কৃত রয়েছেন। সর্বশেষ গত ঈদুল ফিতরের পর শেষ ধাপের উপজেলা নির্বাচনে স্বতন্ত্রভাবে অংশ নেন বিএনপির প্রার্থীরা। সেক্ষেত্রে দলের পক্ষ থেকে আর বাধা দেয়া হয়নি।

জানা যায়, দলীয় ৬ এমপির সংসদে যোগদানের পর বগুড়া-৬ আসনের নির্বাচনে অংশ নেয় বিএনপি। সেখানে বিএনপি প্রার্থী জিএম সিরাজ বিজয়ী হন। স্থায়ী কমিটির এক সদস্য জানান, তিন সিটিসহ স্থানীয় সরকারের নির্বাচনে ভোট বর্জন করলে তৃণমূলে হতাশা বেড়ে যাবে। বরং নির্বাচনে অংশগ্রহণের মাধ্যমে নেতাকর্মীরা সক্রিয় হওয়ার সুযোগ পাবেন। এছাড়া আওয়ামী লীগকে ফাঁকা মাঠে গোল দিতে দেয়া ঠিক হবে না। সব মিলিয়ে নির্বাচন বর্জনের চেয়ে অংশগ্রহণকেই ইতিবাচক ভাবছেন তারা।

আর এই বিষয়টি বিবেচনা করেই স্থানীয় নির্বাচনে অংশ নেয়ার সিদ্ধান্ত হয়েছে। নির্বাচন কমিশন সূত্রে জানা গেছে, আগামী বছরের শুরুতে ঢাকা উত্তর-দক্ষিণ ও চট্টগ্রাম সিটিতে নির্বাচন অনুষ্ঠানের প্রস্তুতি নিচ্ছে ইসি। বিএনপি অংশ না নেওয়ায় চলতি বছরের ২৮ ফেব্রুয়ারি অনুষ্ঠিত ঢাকা উত্তর সিটির উপ-নির্বাচনে আওয়ামী লীগ প্রার্থী হিসেবে অনেকটা ফাঁকা মাঠে মেয়র পদে বিজয়ী হন ব্যবসায়ী নেতা মো. আতিকুল ইসলাম।

এদিকে গতকাল দলের স্থায়ী কমিটির বৈঠকের পর বিএনপি মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর বলেন, ইউনিয়ন পরিষদের উপনির্বাচন হচ্ছে। এখনো পুরো সিডিউল আসেনি। এর মধ্যে আমাদের কাছে বিভিন্নভাবে নেতা-কর্মীরা জানতে চাচ্ছেন আমাদের অবস্থান কি ? আমরা এখনো মনে করি, স্থানীয় সরকার নির্বাচনে মার্কা ব্যবস্থা তুলে নেয়া উচিত। সেই ক্ষেত্রে আমাদের সিদ্ধান্ত হচ্ছে, বিএনপির যেসব নেতা-কর্মী বা যারা ইউনিয়ন পরিষদ চেয়ারম্যান ছিলেন তারা যদি কেউ অংশ নিতে চান, অংশ নিতে পারবেন। কিন্তু সেক্ষেত্রে আমরা মার্কা বরাদ্দ করব না।

মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর বলেন, রিফাত হত্যার পর যে ঘটনাটি ঘটেছে সেটা বাংলাদেশের আইন-আদালত ও রাষ্ট্রের প্রতি চরম অবজ্ঞা প্রকাশ করা হয়েছে। আমরা মনে করি, নয়ন বন্ডকে হত্যা করার মূল উদ্দেশ্য হচ্ছে আসল মদদদাতা যারা তাদেরকে আড়াল করা।

রাজপথে বিএনপির গণআন্দোলনের হুঁশিয়ারি
                                  

গ্যাসের মূল্য বৃদ্ধির সিদ্ধান্ত বাতিল না হলে রাজপথে গণআন্দোলনের হুঁশিয়ারি দিয়েছেন বিএনপির সিনিয়র যুগ্ম মহাসচিব অ্যাডভোকেট রুহুল কবির রিজভী। তিনি বলেছেন, নিত্যপ্রয়োজনীয় দ্রব্যমূল্যের ঊর্ধ্বগতিতে জনগণের যখন ওষ্ঠাগত তখন কোনো কারণ ছাড়াই ভোক্তা পর্যায়ে গ্যাসের মূল্যবৃদ্ধি দেশের মানুষের ওপর যেন ‘মরার ওপর খাঁড়ার ঘা’।

আজ বুধবার দুপুর ১২টায় গ্যাসের মূল্যবৃদ্ধির গণবিরোধী সিদ্ধান্তের প্রতিবাদ এবং দেশনেত্রী বেগম খালেদা জিয়ার নিঃশর্ত মুক্তির দাবিতে বিক্ষোভ মিছিলের পর সংক্ষিপ্ত পথসভায় তিনি এ হুঁশিয়ারি দেন।

রিজভী বলেন, জনগণের পকেট কেটে সরকারি লোকদেরকে অবৈধ অর্থ উপার্জনের সুযোগ করে দিতেই জনগণের ওপর গ্যাসের মূল্যবৃদ্ধির অনৈতিক ও অমানবিক সিদ্ধান্ত চাপিয়ে দেওয়া হয়েছে। এ ধরনের নিষ্ঠুর আদেশের ফলে সাধারণ মানুষের পিঠ এখন দেয়ালে ঠেকে গেছে। আমরা সরকারের এই বেআইনি সিদ্ধান্তের বিরুদ্ধে তীব্র নিন্দা ও প্রতিবাদ জানাচ্ছি এবং অবিলম্বে ভোক্তা পর্যায়ে গ্যাসের মূল্যবৃদ্ধি প্রত্যাহারের জোর দাবি জানাচ্ছি।

অভিযোগ করে বলেন, অবৈধ উপায়ে ক্ষমতা দখল এবং সেই ক্ষমতা দীর্ঘ মেয়াদে ভোগ করার মাস্টারপ্ল্যান বাস্তবায়ন করতেই গণতন্ত্রের মা দেশনেত্রী বেগম খালেদা জিয়াকে একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনের ১০ মাস আগেই মিথ্যা ও সাজানো মামলায় জড়িয়ে সরকার অন্যায়ভাবে সাজা দিয়ে কারাবন্দি করে রেখেছে।

তিনি এ সময় বলেন, আমি আবারও অবিলম্বে খালেদা জিয়ার নিঃশর্ত মুক্তি এবং তারেক রহমানের বিরুদ্ধে দায়েরকৃত সকল মিথ্যা মামলা প্রত্যাহারের দাবি জানাচ্ছি।

এর আগে মিছিলে অংশ নেন বিএনপির সহ-সাংগঠনিক সম্পাদক অ্যাডভোকেট আব্দুস সালাম আজাদ, ঢাকা মহানগর উত্তরের সাধারণ সম্পাদক আহসান উল্লাহ হাসান, যুবদল ঢাকা মহানগর উত্তরের সভাপতি এস এম জাহাঙ্গীর, যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক এ জি এম শামসুল হক, দক্ষিণের সাধারণ সম্পাদক গোলাম মাওলা শাহীন, স্বেচ্ছাসেবক দল ঢাকা মহানগর উত্তরের সভাপতি ফখরুল ইসলাম রবিন, ঢাকা মহানগর উত্তরের যুগ্ম সম্পাদক সাইফুর রহমান মিহির প্রমুখ।

বিক্ষোভ মিছিলটি নয়াপল্টনস্থ বিএনপি কেন্দ্রীয় কার্যালয়ের সামনে থেকে শুরু হয়ে নাইটেঙ্গেল মোড় ঘুরে আবারও বিএনপি কেন্দ্রীয় কার্যালয়ের সামনে এসে শেষ হয়। 

গ্যাসের মূল্যবৃদ্ধির প্রতিবাদে বিএনপির কর্মসূচি
                                  

গ্যাসের দাম বাড়ানোর সিদ্ধান্তের প্রতিবাদে আজ মঙ্গলবার জেলা ও মহানগরে প্রতিবাদ কর্মসূচি ঘোষণা করেছে বিএনপি। গতকাল সোমবার বিকালে এক সংবাদ সম্মেলনে দলের জ্যেষ্ঠ যুগ্ম মহাসচিব রুহুল কবির রিজভী এই কর্মসূচি ঘোষণা করেন। তিনি বলেন, গ্যাসের মূল্য বৃদ্ধির গণবিরোধী সিদ্ধান্তের প্রতিবাদে বিএনপির উদ্যোগে মঙ্গলবার দেশব্যাপী জেলা সদর ও মহানগরগুলোতে প্রতিবাদ কর্মসূচি পালিত হবে। একই দাবিতে রাজধানী ঢাকার উত্তর ও দক্ষিণের থানায় থানায় এই কর্মসূচি পালিত হবে। এই প্রতিবাদ কর্মসূচি হচ্ছে, এলাকায় যার যার সুবিধা অনুয়ায়ী প্রতিবাদ সমাবেশ অথবা মিছিল করবেন। গত রোববার সরকার গ্যাসের মূল্য গড়ে ৩২ দশমিক ৮ শতাংশ বাড়িয়েছে, যা কার্য্কর হয়েছে জুলাইয়ের প্রথম দিন থেকেই। গ্যাসের দাম বাড়ানোর প্রতিবাদে ৭ জুলাই সারাদেশে আধাবলো হরতালের ডাক দিয়েছে বাম দলগুলো।

রিজভী বলেন, মানুষের জীবন-জীবিকা, মানুষের জীবন নির্বাহ এগুলোর মধ্যেও সরকার তার রাষ্ট্রীয় পলিসির মাধ্যমে মানুষের ওপর আঘাত অব্যাহত রেখেছে। মিডনাইট সরকার আবারও গ্যাসের মূল্য বাড়িয়েছে। আওয়ামী লীগ ১০ বছরে গ্যাসের দাম ছয় বার বাড়িয়েছে। মূলত ক্ষমতাসীনদের আত্মীয় স্বজনদের লুটপাটের জন্য গ্যাসের মূল্য বৃদ্ধি করেছে সরকার। এ মূল্যবৃদ্ধির প্রভাব সর্বত্র পড়বে, কৃষিতে পড়বে, শিল্পে পড়বে, বিদ্যুতে পড়বে, পরিবহনে পড়বে। তাতে সবচাইতে বেশি কষ্ট পাবে সীমিত আয়ের লোকজন। আমরা সরকারের এই বেআইনি সিদ্ধান্তের তীব্র প্রতিবাদ ও নিন্দা জানাচ্ছি। তিনি আরও বলেন, পৃথিবী অন্যান্য দেশে গ্যাসের দাম কমানো হচ্ছে।

আজকেও ভারতে গ্যাসের দাম কমানো হয়েছে। যেখানে ভারতে আজকে গ্যাসের দাম কমালো, সেখানে এই সরকার গ্যাসের দাম বাড়িয়েছে। এরা জনগণের শত্রু বলেই শত্রুতা শুরু করেছে নানাভাবে। নয়া পল্টনে দলের কেন্দ্রীয় কার্যালয়ে সংবাদ সম্মেলনে বিএনপির ভাইস চেয়ারম্যান আহমেদ আজম খান, যুগ্ম মহাসচিব সৈয়দ মোয়াজ্জেম হোসেন আলাল, কেন্দ্রীয় নেতা মুনির হোসেন, ফিরোজ -উজ-জামান, কাজী রফিক, আহসান উদ্দিন খান শিপন, শেখ আবদুল হালিম খোকন, গোলাম মাওলা শাহিন উপস্থিত ছিলেন।

রংপুরে বাসচাপায় ৩ মোটরসাইকেল আরোহী নিহত
                                  

রংপুরের মিঠাপুকুর উপজেলায় যাত্রীবাহী বাসের ধাক্কায় তিন মোটরসাইকেল আরোহী নিহত হয়েছেন। গত শুক্রবার দিবাগত রাত ১১টার দিকে উপজেলার শঠিবাড়ি ফিলিং স্টেশনের সংলগ্ন ঢাকা-রংপুর মহাসড়কে এ দুর্ঘটনা ঘটে। নিহতরা হলেন-মুরাদ (৩৩), মধু (৩৪) এবং শম্ভু (৩৩)। এদের মধ্যে মুরাদ হোসেন ঘটনাস্থলে মধু মিয়া মিঠাপুকুর উপজেলা হাসপাতালে এবং শম্ভু রংপুর মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে মারা গেছেন। তাদের সবার বাড়ি রংপুর সদর উপজেলার সদ্যপুস্করণী ইউনিয়নের ভুরারঘাট এলাকায়। বিষয়টি মিঠাপুকুর থানার ওসি জাফর আলী বিশ্বাস নিশ্চিত করেছেন।

প্রত্যক্ষদর্শী ও পুলিশ সূত্রে জানা যায়, শম্ভু শঠিবাড়ির একটি মোটর গ্যারেজে বডিমিস্ত্রির কাজ করতেন। গত শুক্রবার রাত ১১টার দিকে অপর দুইজনকে নিয়ে মোটরসাইকেলে গ্যারেজ থেকে বের হচ্ছিলেন শম্ভু। এ সময় রংপুর-ঢাকা মহাসড়ক পার হতে গেলে রংপুর থেকে ছেড়ে আসা ঢাকাগামী নাবিল পরিবহনের একটি বাস মোটরসাইকেলটিকে সামনে থেকে চাপা দেয়। এতে মুরাদ ঘটনাস্থলেই নিহত ও অপর দুইজন গুরুতর আহত হন। পরে স্থানীয়রা তাদের উদ্ধার করে মিঠাপুকুর উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নিলে দায়িত্বরত চিকিৎসক মধুকে মৃত ঘোষণা করেন। আশঙ্কাজনক অবস্থায় শম্ভুকে সেখান থেকে রমেক হাসপাতালে ভর্তি করা হয়।

সেখানে চিকিৎসাধীন অবস্থায় রাত দেড়টার দিকে মারা যান শম্ভু। এদিকে দুর্ঘটনার পর উত্তেজিত লোকজন বাসটি আটক করে ভাঙচুর করে। তবে চালক ও হেলপার পালিয়ে যায়। বিষয়টি নিয়ে মিঠাপুকুর থানার ওসি জাফর আলী বিশ্বাস বলেন, লাশ ময়নাতদন্তের ব্যবস্থা করা হচ্ছে। ময়নাতদন্ত শেষে পরিবারের সঙ্গে কথা বলে পরবর্তী পদক্ষেপ নেওয়া হবে।

অর্থবছর পরিবর্তন চান রওশন এরশাদ
                                  

অর্থবছরের পরিবর্তন, রাজস্ব আদায়ের বাস্তব লক্ষ্যমাত্রা নির্ধারণ, কালোটাকা সাদা করার সুযোগ যৌক্তিক বলে মনে করেন জাতীয় সংসদের বিরোধীদলীয় উপনেতা রওশন এরশাদ। তিনি অর্থবছরের পরিবর্তন করার বিষয়টি বিবেচনার আবেদন করেন। নতুন অর্থবছরের শুরু হয় ভরা বর্ষা মৌসুম জুলাই মাসে। একই সঙ্গে অর্থবছরের শেষ সময়ে এসে হিড়িক পড়ে প্রকল্প বাস্তবায়নের। এই সময়টাও ভরা বৃষ্টি থাকে। তাই অর্থবছরটি পরিবর্তন করা উচিত বলে মনে করেন বিরোধীদলীয় উপনেতা। গতকাল শনিবার জাতীয় সংসদে ২০১৯-২০ অর্থবছরের প্রস্তাবিত বাজেট আলোচনায় এসব কথা বলেন বিরোধীদলীয় উপনেতা।

তিনি বলেন, শিক্ষার মানোন্নয়নে কালো টাকা সাদা করার সুযোগ প্রত্যেক দেশেই আছে। বড় বড় ব্যবসায়ীদের বিনিয়োগের জন্য সরকার এই সুযোগ করে দেয়। আমাদের এখানে যাদের কালো টাকা আছে, তাদের এই সুবিধা দেওয়া হোক। তা না হলে টাকা বিদেশে নিয়ে যাবে। তারা যাতে বিনিয়োগ করতে পারেন সে সুযোগ করে দিন। বিরোধীদলীয় উপনেতা বলেন, নারী উদ্যোক্তাদের সুবিধা করে দেওয়া এবং নারীদের বিনিয়োগ বাড়ানোর জন্য মেয়েদের জন্য একটি ব্যাংক করে দিন। একই সঙ্গে প্রত্যেকটি উপজেলায় এই ব্যাংকের শাখা করে দিন। যাতে নারী উদ্যোক্তা বাড়বে, স্বনির্ভরতা বাড়বে। রওশন এরশাদ বলেন, ধান নিয়ে এবার কৃষকের মাথায় হাত। তারা ধান পুড়িয়ে দিলো। এটা কেন হলো কৃষি ও খাদ্যমন্ত্রীর কাছে জবাব চাই। কৃষকদের ভর্তুকি দিয়ে এই সমস্যা সমাধান করবেন। যুক্তরাজ্যসহ উন্নত দেশগুলো কৃষকদের ভর্তুকি দেয়। যেমন করেই হোক আমাদের কৃষকের বাঁচার ব্যবস্থা করে দিতে হবে। তিনি বলেন, আমাদের নিজেদের অর্থায়নে বাজেট করতে হবে। অন্যের উপর নির্ভর না করি।

কতটুকু আয় করতে পারবো, কতুটুকু কর আদায় করতে পারবো। এসব বিষয় মাথায় রেখে বাজেট দিতে হবে। স্বপ্ন থাকবে কিন্তু সেই স্বপ্ন কতটুকু বাস্তবায়ন করতে পারবো সেই সামর্থ্যটাও দেখতে হবে। আয় বুঝে ব্যয় করার পরামর্শ দেন রওশন এরশাদ। বক্তব্যের শুরুতেই রওশন এরশাদ জাপা চেয়ারম্যানের অসুস্থতার খবর জানিয়ে সবার কাছে দোয়া চান। তিনি বলেন, জাতীয় সংসদের বিরোধীদলীয় নেতা হুসেইন মুহম্মদ এরশাদ এখন আগের চেয়ে অনেকটা ভালোর দিকে। আমি আশা করবো উনি ধীরে ধীরে সুস্থ হয়ে উঠবেন। এজন্য আপনারা সবাই দোয়া করবেন।

নির্দোষ ব্যক্তিদের ফাঁসানো হয় বলে মানুষ এগিয়ে আসে না: মান্না
                                  

 বরগুনার রিফাত শরীফ হত্যাকা- প্রসঙ্গে নাগরিক ঐক্যের আহ্বায়ক মাহমুদুর রহমান মান্না বলেছেন, আইনের শাসন না থাকায় প্রভাবশালীরা নির্দোষ ব্যক্তিদের ফাঁসিয়ে অপরাধীদের আড়াল করে বলে সাধারণ মানুষ এখন আর অপরাধ দেখলে এগিয়ে আসছে না। গতকাল শনিবার জাতীয় প্রেসক্লাবে জিয়া পরিষদ আয়োজিত এক আলোচনা অনুষ্ঠানে এ কথা বলেন মাহমুদুর রহমান মান্না। এ সময় মান্না আরো বলেন, আইনের শাসন যে নেই, সে বিষয়টি আড়াল করতে এখন উল্টো বরগুনার ঘটনার জন্য সাধারণ মানুষের ওপর দোষ চাপানো হচ্ছে। এ বিষয়ে নাগরিক ঐক্যের আহ্বায়ক আরো বলেন, বুদ্ধিজীবীরা বলছেন, মানুষ কেন গেল না? কেন সেই ছেলেটাকে বাঁচাতে কোনো বিবেক সাড়া দিল না? আমি আপনাদের প্রশ্ন করি, কেউ যদি যেত ওদের দা, রামদা, চাপাতি এগুলোকে ধরে ফেলত, তারপর ওরই নামে যে মামলা হতো না হত্যাকা-ের, তার কোনো গ্যারান্টি আছে? বাংলাদেশে এ রকম তো হয়েছে, হচ্ছে। উদোর পি-ি বুদোর ঘাড়ে, যে দোষ করেনি তার ঘাড়ে দোষ চাপিয়ে দেওয়া হচ্ছে। বিনা দোষে মানুষ ২০, ৩০ থেকে ৪০ বছর জেল খেটেছে। এর মধ্যেই আমরা কতগুলো দেখলাম।

এ দেশের মানুষ সব সময়ই অন্যায়ের প্রতিবাদ করে এসেছে উল্লেখ করে মাহমুদুর রহমান মান্না বলেন, এখন অন্যায়ের বিরুদ্ধে রুখে দাঁড়ানোর মতো যোগ্য নেতৃত্ব নেই বলে জনগণ সংগঠিত হতে পারছে না। একাদশ জাতীয় সংসদকে ‘নেত্রী বন্দনার সংসদ’ আখ্যায়িত করে মান্না বলেন, এই সংসদে যোগ দিয়ে বিএনপি তাদের দাবি আদায় করতে পারবে না। মান্না বলেন, আমাদের সংসদ মানে একেবারে প্রধানমন্ত্রী, অর্থমন্ত্রী এক একাকার। সংসদের মধ্যে একেকজন সদস্য দাঁড়িয়ে কেবল নেত্রীর বন্দনা করেন। সমস্ত প্রশংসা তোমার, আর কারও প্রাপ্য নয়। যাকে প্রশংসা করে বলেন, উনিও (প্রধানমন্ত্রী) মিটিমিটি হাসেন।

এরকম সার্কাস, এরকম কেরিক্যাচার দেখেছেন? সংসদে যোগ দেওয়া বিএনপি ও গণফোরামের সদস্যদের দিকে ইঙ্গিত করে মান্না বলেন, এরপরেও যদি মনে করেন, সেই জায়গায় গিয়ে লড়াই করতে না পারলে বোধহয় এই লড়াইয়ে কখনও জিতব না। আমি তাদেরকে বলি, রাজপথের লড়াইয়ের কথা বাদ দিয়ে যারা সংসদের কথা ভাবেন, তারা মূলত কোনো লড়াই করতে পারবেন না। আমাদের রাজপথ ছাড়া অন্য কোথাও লড়াই করার জায়গা আছে? সংসদে লড়াই করে জিততে পারবেন? একজন সংসদ সদস্যকে দুই মিনিট কথা বলবার সময় দেওয়া হয়, এক মিনিট পরে মাইক বন্ধ করে দেওয়া হয়। স্পিকারের ভূমিকার সমালোচনা করে তিনি বলেন, স্পিকার আগেই বলেন, ‘মাননীয় সংসদ সদস্য, আপনি যেসব বলবেন, তার মধ্যে যদি অসংসদীয় কোনো কথাবার্তা থাকে, তাহলে কিন্তু বাদ দিয়ে দেব’। কী রকম করে উনি (স্পিকার) জানেন যে সংসদ সদস্য কী বলবেন। উনি কি আগেই কিছু বাদ দেওয়ার ক্ষমতা রাখেন? রাজপথের আন্দআলনে জোর দিয়ে নাগরিক ঐক্যের আহ্বায়ক বলেন, আপনারা যে যে দল করেন, নিজের দল গোছান। যখন উপযুক্ত সময়, তখন প্রতিবাদের জন্য রাজপথে নামব। নিশ্চয়ই রাজপথে গণতন্ত্রের শক্তি লাগবে।

আজ হোক, কাল হোক, এই বছর হোক, সামনের বছর হোক, বড় জোর দুই বছর, এর মধ্যে আপনাকে নামতে হবে। সেই রকম প্রস্তুতি নিন, সামনের দিকে যান। ‘জাতীয় রাজনীতি : গণতন্ত্রের মুক্তি’ শীর্ষক এই আলোচনা সভায় শহীদ জিয়া স্মৃতি পরিষদের সভাপতি জাহাঙ্গীর চৌধুরী, ইশতিয়াক আহমেদ বাবুল, ইসমাইল হোসেন বেঙ্গল, আবু নাসের মুহাম্মদ রহমাতুল্লাহ বক্তব্য রাখেন।

 

জাগপা-খেলাফত মজলিশ নিয়ে অলির নেতৃত্বে ‘জাতীয় মুক্তি মঞ্চ’
                                  

নতুন একটি রাজনৈতিক মঞ্চের ঘোষণা দিয়েছেন এলডিপি সভাপতি অলি আহমদ। ‘জাতীয় মুক্তি মঞ্চ’ নামে নবগঠিত এই প্ল্যাটফর্মে কল্যাণ পার্টির সঙ্গে রয়েছে ২০ দলীয় জোট শরিক জাতীয় গণতান্ত্রিক পার্টি-জাগপা, বাংলাদেশ খেলাফত মজলিশ ও ন্যাশনাল মুভমেন্ট। তবে নতুন প্ল্যাটফর্ম নিয়ে এগিয়ে চললেও বিএনপি নেতৃত্বাধীন ২০ দলীয় জোটেও থাকছেন বলে জানিয়েছেন অলি আহমদ। বিএনপির এক সময়ের নীতি-নির্ধারকদের একজন অলি দেড় দশক আগে এলডিপি গঠন করে রাজনীতির মাঠে সক্রিয়।

প্রথমে আওয়ামী লীগের জোটে তারা গেলেও পরে পথ পরিবর্তন করে বিএনপির জোটে যোগ দিয়ে এখনও রয়েছে। গত ৩০ ডিসেম্বর অনুষ্ঠিত একাদশ সংসদ নির্বাচনের আগে বিএনপি ২০ দলের বাইরে কামাল হোসেনের নেতৃত্বে আলাদা জাতীয় ঐক্যফ্রন্ট গঠন করে। ২০ দল ও ঐক্যফ্রন্ট বিএনপির সমন্বয়ের মধ্যে ওই নির্বাচনে অংশ নেয়। ওই ভোটের ফল প্রত্যাখ্যানের পর সংসদে যোগ না দেওয়ার ঘোষণা ছিল ঐক্যফ্রন্ট ও ২০ দলের। কিন্তু বিএনপি ও গণফোরামের বিজয়ীদের শপথ গ্রহণ করলে তাতে ক্ষুব্ধ হন অলিসহ অন্যরা। তা নিয়ে মন কষাকষি চলার মধ্যেই গতকাল বৃহস্পতিবার জাতীয় প্রেস ক্লাব মিলনায়তনে সংবাদ সম্মেলনে এসে অলি ‘জাতীয় মুক্তিমঞ্চ’ গঠনের ঘোষণা দেন। তাহলে আপনারা ২০ দলীয় জোটে থাকবেন কি না- প্রশ্ন করা হলে তিনি বলেন, “জাতীয় মুক্তিমঞ্চ কোনো জোট নয়। আমরা ২০ দলীয় জোটে আছি এবং থাকব। এই প্রসঙ্গে বিএনপির জাতীয় ঐক্যফ্রন্ট গঠনের বিষয়টি তুলে ধরেন তিনি। ২০ দলীয় জোটের মূল দল বিএনপি। তারা তো ওই জোটে থেকেই ড. কামাল হোসেন সাথে (জাতীয় ঐক্যফ্রন্ট) কাজ করছেন।

এই মঞ্চ নিয়ে বিএনপিরও আপত্তি থাকার কারণ নেই বলে মনে করেন অলি। ১৩ মে ২০ দলীয় ঐক্যজোটের মিটিংয়ে বিএনপির নজরুল ইসলাম খান পরিষ্কারভাবে বলেছেন, আপনারা যে যেভাবে পারেন, বেগম জিয়ার মুক্তির জন্য নিজ নিজ মঞ্চ থেকে আন্দোলন শুরু করেন। আমরা আজকে নয়, বেগম জিয়া জেলে যাওয়ার পর থেকে এলডিপি বহুবার তার মুক্তির জন্য সভা-সমাবেশ করেছে। আজকে যারা আমার দুই পাশে আছেন, তারা অনেকে আমার সাথে ছিলেন। তারা মুক্তিযুদ্ধের চেতনার শক্তি, চেতনার পক্ষের শক্তি এবং জাতিকে মুক্ত করতে জাতীয় মুক্তি মঞ্চে থাকতে চায়। এই মঞ্চ গঠনের প্রেক্ষাপট তুলে ধরে সাবেক এই সেনা কর্মকর্তা বলেন, দেশের বর্তমান নাজুক অর্থনৈতিক ও রাজনৈতিক পরিস্থিতিতে আমরা নির্বিকার থাকতে পারি না। তাই আমরা সিদ্ধান্ত নিয়েছি যে, বেগম খালেদা জিয়াকে মুক্ত করতে হবে এবং গণতন্ত্র পুনরুদ্ধার করতে হবে। বেগম জিয়া যদি কারাগার থেকে মুক্ত হন, একনায়কতন্ত্র থেকে যদি দেশ মুক্ত হয়, তখন জাঁতি মুক্ত হবে। এই লক্ষ্য অর্জনের জন্য আমরা ‘জাতীয় মুক্তি মঞ্চ’ ঘোষণা করছি। আমি আশা করি, জাতীয়তাবাদে বিশ্বাসী সকল শক্তি আমাদের সাথে কাঁধে কাঁধ মিলিয়ে ঐক্যবদ্ধভাবে জাতিকে মুক্ত করতে এগিয়ে আসবে। জনগণ ভয় পেয়ে ঘরে ঢুকে আছে, তাদেরকে ঘর থেকে বের করতে হবে এবং সরকারকে বোঝাতে হবে আপনারা ভুল পথে আছেন, সোজা পথে আসুন। জাতীয় মুক্তিমঞ্চ থেকে নির্দলীয় নিরপক্ষে সরকারের অধীনে পুনরায় সংসদ নির্বাচন আয়োজন, খালেদা জিয়ার মুক্তিসহ ১৮ দফা দাবি তুলে ধরা হয়। অলি বলেন, আমরা আমাদের ১৮ দফা নিয়ে জনগণের কাছে যাব।

আমরা পরিষ্কারভাবে বলতে চাই, আমাদের এই জাতীয় মুক্তিমঞ্চ কোনো ধরনের ধ্বংসাত্মক কর্মকা-ে লিপ্ত হবে না, কোনো সন্ত্রাসী কর্মকা-ে কাউকে আমরা সাহায্য করব না, লিপ্তও হবে না। আমরা আশা করি, বিরোধী দলসমূহ এবং বিবেকবান ব্যক্তিগণ দলে দলে জাতীয় মুক্তি মঞ্চে যোগদান করে জাতিকে মুক্তি এবং সমাজে ন্যায়বিচার প্রতিষ্ঠায় সাহায্য করার লক্ষ্যে এগিয়ে আসবেন। মঞ্চের ১৮ দফায় রয়েছে- অর্থনৈতিক কেলেঙ্কারি, শেয়ারবাজার লুটপাট, অর্থ পাচারসহ দুর্নীতি রোধে সুপ্রিম কোর্টের নেতৃত্বে এক বা একাধিক জাতীয় বিশেষজ্ঞ কমিটি গঠন করে দোষীদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা গ্রহণ, নিপীড়ন-নির্যাতনের শিকার নেতা-কর্মীদের আইনি সহায়তা প্রদানে লিগ্যাল এইড কমিটি গঠন, খাদ্যে ভেজাল রোধে মৃত্যুদ-ের বিধান সম্বলিত নতুন আইন প্রণয়ন, ডিজিটাল সিকিউরিটি অ্যাক্ট বাতিল ও বন্ধ মিডিয়া খুলে দেওয়া, রাজনৈতিক দলের জন্য সংবিধান অনুযায়ী সমান সুযোগ সৃষ্টি করা, দুর্নীতি দমন কমিশনকে শক্তিশালী করতে তার আইনের সংশোধনী আনা ইত্যাদি। সংবাদ সম্মেলনে কল্যাণ পার্টির সভাপতি সৈয়দ মুহাম্মদ ইবরাহিম, জাগপা সভানেত্রী তাসমিয়া প্রধান, বাংলাদেশ খেলাফত মজলিশের একাংশের যুগ্ম হাসচিব মাওলানা আহমেদ আলী কাশেমী, ন্যাশনাল মুভমেন্টের সভাপতি মুহিব খান এবং এলডিপির মহাসচিব রেদোয়ান আহমেদ, যুগ্ম মহাসচিব সাহাদাত হোসেন সেলিম উপস্থিত ছিলেন। সংবাদ সম্মেলনের শুরুতে মুক্তিযোদ্ধা ইসমাইল হোসেন বেঙ্গলেএকটি ফুলের তোড়া অলির হাতে তুলে নিয়ে জাতীয় মুক্তি মঞ্চে যোগ দেন। অনুষ্ঠানে বিএনপির গোলাম মাওলা রনি, সারোয়ার হোসেনসহ একদল নেতা-কর্মীদেরও দেখা গেছে।


   Page 1 of 240
     রাজনীতি
এরশাদের আসন শূন্য ঘোষণা, ৯০ দিনের মধ্যে ভোট
.............................................................................................
জনগণকে দমিয়ে রাখতে খালেদাকে বন্দি করে রাখা: রিজভী
.............................................................................................
এমপি হিসেবে শপথ নিলেন বিএনপির সিরাজ
.............................................................................................
আওয়ামী লীগ দেশকে অকার্যকর রাষ্ট্রে পরিণত করেছে: বিএনপি
.............................................................................................
পরিণতি ভালো হবে না, সরকারকে রিজভীর হুঁশিয়ারি
.............................................................................................
‘গণতন্ত্র পুনরুদ্ধারে’ গণআন্দোলনের আশা সেলিমার
.............................................................................................
ফরিদগঞ্জে বিএনপির মতবিনিময় সভা পন্ড
.............................................................................................
‘গণঐক্য গড়ে তুলে সরকারের পতন করা হবে’
.............................................................................................
গ্যাসের দাম বাড়ানোর প্রতিবাদে বাম জোটের ডাকা হরতালে বিএনপির সমর্থন
.............................................................................................
সব স্থানীয় নির্বাচনে অংশ নেবে বিএনপির
.............................................................................................
রাজপথে বিএনপির গণআন্দোলনের হুঁশিয়ারি
.............................................................................................
গ্যাসের মূল্যবৃদ্ধির প্রতিবাদে বিএনপির কর্মসূচি
.............................................................................................
রংপুরে বাসচাপায় ৩ মোটরসাইকেল আরোহী নিহত
.............................................................................................
অর্থবছর পরিবর্তন চান রওশন এরশাদ
.............................................................................................
নির্দোষ ব্যক্তিদের ফাঁসানো হয় বলে মানুষ এগিয়ে আসে না: মান্না
.............................................................................................
জাগপা-খেলাফত মজলিশ নিয়ে অলির নেতৃত্বে ‘জাতীয় মুক্তি মঞ্চ’
.............................................................................................
জামায়াতকে দেশপ্রেমিক শক্তি বললেন অলি
.............................................................................................
আ. লীগ ক্ষমতা পেয়ে জাপার সাথে যে আচরণ করেছে তা মেনে নেওয়া যায় না: রাঙ্গা
.............................................................................................
বগুড়ায় ইভিএমে ভোট গ্রহণ, ভোটার উপস্থিতি কম
.............................................................................................
খালেদার মুক্তি দাবিতে আইনজীবীদের বিক্ষোভ
.............................................................................................
জাতীয় পার্টি ঘুরে দাঁড়িয়েছে: জিএম কাদের
.............................................................................................
বর্তমান ইসি সরকারের তাঁবেদার ও কোমরভাঙা: ফখরুল
.............................................................................................
শেষ ধাপের উপজেলা নির্বাচনে বিজয়ী যাঁরা
.............................................................................................
মসজিদের মাইকে ভোটারদের ডেকেও মেলেনি সাড়া
.............................................................................................
নৌকায় ভোট দিতে রাজি না হওয়ায় কুপিয়ে জখমের অভিযোগ
.............................................................................................
এবারের বাজেট উচ্চাভিলাষী: বিএনপি
.............................................................................................
ছাত্রলীগের বিক্ষুব্ধদের অবস্থান কর্মসূচি অব্যাহত
.............................................................................................
মাদারীপুরে আ. লীগের ২৩ নেতাকর্মীকে বহিষ্কার
.............................................................................................
ফের সক্রিয় হতে চায় ঐক্যফ্রন্ট, দূরত্ব কমাতে নেতারা বসছেন আজ
.............................................................................................
বিএসএমএমইউতে পাওয়া বোমার সাথে বিএনপির সংযোগ আছে কিনা দেখা প্রয়োজন: হাছান মাহমুদ
.............................................................................................
শোলাকিয়া ঈদগাহে শুধু জায়নামাজ নিয়ে আসার আহ্বান
.............................................................................................
ক্ষমতাসীনদের তৈরি করা ইতিহাস টেকেনি:আমীর খসরু মাহমুদ চৌধুরী
.............................................................................................
আপনাদের দুঃখ-কষ্টের অবসান হবেই
.............................................................................................
চোর বাটপার জামিনে মুক্তি পেলেও খালেদা জিয়া পাচ্ছেন না: দুদু
.............................................................................................
স্বাধীনতার পর থেকে যত অপকর্ম হয়েছে তাতে আ.লীগ জড়িত: ফখরুল
.............................................................................................
বিভেদ বিভাজন নয়, বিএনপি উঠে দাঁড়াবে : ফখরুল
.............................................................................................
বিএনপির মধ্যবর্তী নির্বাচনের দাবি নাকচ করলেন তথ্যমন্ত্রী
.............................................................................................
রাজনীতি ব্যবসায়ীদের কাছে জিম্মি হয়ে পড়েছে: জিএম কাদের
.............................................................................................
বগুড়া-৬ আসনে উপনির্বাচন: ৩ জনের মনোনয়নপত্র বাতিল
.............................................................................................
ডাকসু ভিপি নুরের ওপর ছাত্রলীগের হামলা
.............................................................................................
বগুড়া-৬ আসনে বিএনপির প্রার্থী খালেদা জিয়াসহ ৫ জন
.............................................................................................
ঢাবিতে ছাত্রলীগের পদবঞ্চিতদের অবস্থান কর্মসূচি চলছে
.............................................................................................
জাতীয় পার্টি প্রতিষ্ঠার পর থেকে উত্তরবঙ্গবাসীর সুখে দুখে পাশে আছে - জি এম কাদের
.............................................................................................
খালেদা জিয়াকে নিয়ে ‘ডার্টি গেম’ বন্ধ করুন: রিজভী
.............................................................................................
কমিটি পুনর্গঠন চেয়ে ৪৮ ঘন্টার সময় বেঁধে দিলেন ছাত্রলীগের পদবঞ্চিতরা
.............................................................................................
সহজ কাজ না হলেও আমাদেরকে পথ বের করতে হবে: ফখরুল
.............................................................................................
বিএনপি’র একটি নারী আসনের জন্য তফসিল ঘোষণা
.............................................................................................
এক ব্যক্তির শাসন থেকে জাতিকে মুক্ত করতে হবে: ড. কামাল
.............................................................................................
গণতন্ত্রের বিজয় ও খালেদা জিয়ার মুক্তি সমার্থক: মান্না
.............................................................................................
খালেদা জিয়ার মুক্তির জন্য রাজপথের আন্দোলনই একমাত্র পথ: খন্দকার মাহবুব
.............................................................................................

|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
স্বাধীন বাংলা মো. খয়রুল ইসলাম চৌধুরী কর্তৃক সম্পাদিত ও ঢাকা-১০০০ হতে প্রকাশিত
প্রধান উপদেষ্টা: ফিরোজ আহমেদ (সাবেক সচিব, বাণিজ্য মন্ত্রণালয়)
উপদেষ্টা: আজাদ কবির
সম্পাদক মন্ডলীর সভাপতি: ডাঃ হারুনুর রশীদ
সম্পাদক মন্ডলীর সহ-সভাপতি: মামুনুর রশীদ
ব্যবস্থাপনা সম্পাদক : মো: খায়রুজ্জামান
যুগ্ম সম্পাদক: জুবায়ের আহমদ
বার্তা সম্পাদক: মুজিবুর রহমান ডালিম
স্পেশাল করাসপনডেন্ট : মো: শরিফুল ইসলাম রানা
যুক্তরাজ্য প্রতিনিধি: জুবের আহমদ
যোগাযোগ করুন: swadhinbangla24@gmail.com
    2015 @ All Right Reserved By swadhinbangla.com

Developed By: Dynamicsolution IT [01686797756]