| বাংলার জন্য ক্লিক করুন
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|

   রাজনীতি -
                                                                                                                                                                                                                                                                                                                                 
খালেদা জিয়ার মুক্তির দাবিতে নয়াপল্টনে বিএনপির বিক্ষোভ

কারাবন্দি বিএনপি চেয়ারপারসন খালেদা জিয়ার মুক্তির দাবিতে রাজধানীর নয়াপল্টনে বিক্ষোভ মিছিল করেছে বিএনপি।


শুক্রবার বেলা পৌনে ১১টার দিকে শুরু হওয়া বিক্ষোভ মিছিলে নেতৃত্ব দেন দলের সিনিয়র যুগ্ম মহাসচিব রুহুল কবির রিজভী।

মিছিলটি নয়াপল্টনে বিএনপি কেন্দ্রীয় কার্যালয়ের সামনে থেকে শুরু হয়ে নাইটিঙ্গেল দিয়ে ফকিরাপুল হয়ে কেন্দ্রীয় কার্যালয়ের সামনে এসে শেষ হয়।

পরে বিএনপির জাতীয় নির্বাহী কমিটির সদস্য অ্যাডভোকেট নিপুন রায়ের উপস্থাপনায় বিক্ষোভ সমাবেশ অনুষ্ঠিত হয়।


এতে রিজভী বলেন, দেশে নৈরাজ্যজনক পরিস্থিতি আর চলতে দেয়া যায় না। স্বৈরশাসনের কষাঘাতে জনগণের মনে বিষাদঘন অবস্থা বিরাজমান। দেশনেত্রী খালেদা জিয়াকে আটকিয়ে রাখা হয়েছে দস্যুবৃত্তির পন্থায়। তাকে চিকিৎসা না দিয়ে অসুস্থতাকে গুরুতর করার যাবতীয় ব্যবস্থা করে যাচ্ছে সরকার।
বিএনপির এ নেতা আরও বলেন, ক্ষমতায় এসে এরা গণতন্ত্রকে নির্বাসনে পাঠিয়ে কর্তৃত্ববাদী শাসন চালিয়ে জনগণকে বারবার ক্রীতদাস বানিয়েছে। বাকশাল সেই ক্রীতদাস বানানোরই ব্যবস্থা। গণতন্ত্র যাতে পুনরুজ্জীবিত হতে না পারে, সে জন্য এ দেশের জনপ্রিয় নেত্রী দেশনেত্রী বেগম জিয়াকে বিনাদোষে, বিনাকারণে মিথ্যা মামলা দিয়ে কারান্তরালে রাখা হয়েছে।

বিক্ষোভ মিছিলে মৎস্যজীবী দলের সদস্য সচিব আবদুর রহিম, নীলফামারী জেলা বিএনপির আহ্বায়ক আলমগীর সরকারসহ ঢাকা জেলার কেরানীগঞ্জ দক্ষিণ থানা বিএনপি, মৎস্যজীবী ও তাঁতী দলের বিপুলসংখ্যক নেতাকর্মী অংশ নেন।

খালেদা জিয়ার মুক্তির দাবিতে নয়াপল্টনে বিএনপির বিক্ষোভ
                                  

কারাবন্দি বিএনপি চেয়ারপারসন খালেদা জিয়ার মুক্তির দাবিতে রাজধানীর নয়াপল্টনে বিক্ষোভ মিছিল করেছে বিএনপি।


শুক্রবার বেলা পৌনে ১১টার দিকে শুরু হওয়া বিক্ষোভ মিছিলে নেতৃত্ব দেন দলের সিনিয়র যুগ্ম মহাসচিব রুহুল কবির রিজভী।

মিছিলটি নয়াপল্টনে বিএনপি কেন্দ্রীয় কার্যালয়ের সামনে থেকে শুরু হয়ে নাইটিঙ্গেল দিয়ে ফকিরাপুল হয়ে কেন্দ্রীয় কার্যালয়ের সামনে এসে শেষ হয়।

পরে বিএনপির জাতীয় নির্বাহী কমিটির সদস্য অ্যাডভোকেট নিপুন রায়ের উপস্থাপনায় বিক্ষোভ সমাবেশ অনুষ্ঠিত হয়।


এতে রিজভী বলেন, দেশে নৈরাজ্যজনক পরিস্থিতি আর চলতে দেয়া যায় না। স্বৈরশাসনের কষাঘাতে জনগণের মনে বিষাদঘন অবস্থা বিরাজমান। দেশনেত্রী খালেদা জিয়াকে আটকিয়ে রাখা হয়েছে দস্যুবৃত্তির পন্থায়। তাকে চিকিৎসা না দিয়ে অসুস্থতাকে গুরুতর করার যাবতীয় ব্যবস্থা করে যাচ্ছে সরকার।
বিএনপির এ নেতা আরও বলেন, ক্ষমতায় এসে এরা গণতন্ত্রকে নির্বাসনে পাঠিয়ে কর্তৃত্ববাদী শাসন চালিয়ে জনগণকে বারবার ক্রীতদাস বানিয়েছে। বাকশাল সেই ক্রীতদাস বানানোরই ব্যবস্থা। গণতন্ত্র যাতে পুনরুজ্জীবিত হতে না পারে, সে জন্য এ দেশের জনপ্রিয় নেত্রী দেশনেত্রী বেগম জিয়াকে বিনাদোষে, বিনাকারণে মিথ্যা মামলা দিয়ে কারান্তরালে রাখা হয়েছে।

বিক্ষোভ মিছিলে মৎস্যজীবী দলের সদস্য সচিব আবদুর রহিম, নীলফামারী জেলা বিএনপির আহ্বায়ক আলমগীর সরকারসহ ঢাকা জেলার কেরানীগঞ্জ দক্ষিণ থানা বিএনপি, মৎস্যজীবী ও তাঁতী দলের বিপুলসংখ্যক নেতাকর্মী অংশ নেন।

মানুষের বিবেকের ওপরে আঘাত করা হচ্ছে: সুলতানা কামাল
                                  

মানুষের বিবেকের ওপরে আজ আঘাত করা হচ্ছে বলে মন্তব্য করেছেন মানবাধিকারকর্মী ও তত্ত্বাবধায়ক সরকারের সাবেক উপদেষ্টা সুলতানা কামাল। 
আন্তর্জাতিক বর্ণবৈষম্য বিলোপ দিবস উপলক্ষে বৃহস্পতিবার যশোরের কেশবপুরে আঞ্চলিক দলিত সমাবেশে এই মন্তব্য করেন তিনি।
সুলতানা কামাল বলেন, গণতান্ত্রিক ব্যবস্থায় বিচার ব্যতীত কাউকে জেলে নেওয়া যায় না। মানুষের বিবেকের ওপরে আজ আঘাত করা হচ্ছে। কথা বলার অধিকার হরণ করা হচ্ছে। এটা হতে পারে না। রাষ্ট্রে কোনো বৈষম্য থাকবে না। রাষ্ট্রের উচিত সবার অধিকার সমুন্নত রাখা।

সুলতানা কামাল আরও বলেন, সব মানুষের সমান অধিকার ও সমান মর্যাদা প্রতিষ্ঠা করতে হবে। বসবাসের জন্য বাংলাদেশ গড়ে তুলতে হবে। সমাজে বৈষম্য থাকলে রাষ্ট্রকে তা দূর করতে হবে।
দিবসটি উপলক্ষে দলিত পরিষদ ও পরিত্রাণ সংগঠনের উদ্যোগে কেশবপুর উপজেলার আবু শারাফ সাদেক অডিটরিয়ামে আলোচনা সভা ও ত্রিমোহিনী মোড়ে মানববন্ধন কর্মসূচি পালন করা হয়। সভায় সভাপতিত্ব করেন বাংলাদেশ দলিত পরিষদের সদস্য তপন দাস। অন্যদের মধ্যে বক্তব্য দেন বাংলাদেশ দলিত পরিষদের কেন্দ্রীয় কমিটির সভাপতি উদয় কৃষ্ণ দাস, বাংলাদেশ হিন্দু বৌদ্ধ খ্রিস্টান ঐক্য পরিষদ কেশবপুর শাখার সভাপতি অসিত কুমার মোদক, সাধারণ সম্পাদক মিলন মিত্র, কেশবপুর পৌরসভার মেয়র রফিকুল ইসলাম, আওয়ামী লীগের উপজেলা সহসভাপতি তপন কুমার ঘোষ, কেশবপুর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা মো. শাহিন, দলিত পরিষদের কেন্দ্রীয় কমিটির সাধারণ সম্পাদক অশোক দাস, পরিত্রাণের নির্বাহী পরিচালক মিলন দাস, দলিত শিশু প্রতিনিধি মিনা দাসী। অনুষ্ঠানে মানবাধিকার ও মর্যাদা প্রতিষ্ঠার জন্য সুলতানা কামালকে সম্মাননা ক্রেস্ট দেওয়া হয়।

আ.লীগ কখনোই গণতন্ত্র চায়নি: মঈন খান
                                  

আওয়ামী লীগের রন্দ্রে রন্দ্রে বাকশাল ঢুকে আছে মন্তব্য করে বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য ড. আবদুল মঈন খান বলেছেন, আওয়ামী লীগ কখনো গণতন্ত্র চায়নি। তারা সবসময় একদলীয় শাসন চেয়েছে।
আজ শুক্রবার সকালে জাতীয় প্রেস ক্লাবের বিএনপি চেয়ারপারসন খালেদা জিয়ার মুক্তির দাবিতে জাতীয়তাবাদী মহিলা দল আয়োজিত এক মানববন্ধনে তিনি একথা বলেন।
মঈন খান বলেন, একাত্তরে দেশ স্বাধীন হয়েছিল গণতন্ত্রের জন্য। অথচ দেশে এখন সেই গণতন্ত্রই নেই।
মঈন খান আরও বলেন, আওয়ামী লীগ সরকার এখনও একদলীয় শাসন প্রতিষ্ঠার পথেই হাঁটছে । দেশে ন্যায় বিচার তো নাই। বরং কর্তার ইচ্ছাই কর্ম এমন একটা দেশে পরিণত হয়েছে বাংলাদেশ।
এ সময় তিনি বিএনপির চেয়ারপারসন খালেদা জিয়ার মুক্তি দাবি করেন।
মানববন্ধনে সভাপতিত্ব করেন মহিলা দলের সভাপতি আফরোজা আব্বাস, যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক হেলেন জেরিন খান প্রমুখ।

বিএনপি সঠিক পথেই চলছে: খসরু
                                  

বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য আমীর খসরু মাহমুদ চৌধুরী বলেছেন, বর্তমান সময়ে বিএনপি যেভাবে চলছে এটি সঠিক পথ। অতীতেও এভাবে চলে এসেছে, আগামীতেও এমনভাবেই চলবে।
আজ শুক্রবার রাজধানীর জাতীয় প্রেসক্লাবে জিয়া পরিষদের ৩১তম প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী উপলক্ষে আয়োজিত এক আলোচনাসভায় এ কথা বলেন তিনি।
যারা বিএনপিকে ঘুরে দাঁড়ানোর কথা বলেন, তাদের উদ্দেশে খসরু বলেন, বিএনপি নয়, আওয়ামী লীগ কীভাবে ঘুরে দাঁড়াবে সেটি এখন চিন্তার বিষয়। 

প্রধানমন্ত্রীর কথায় বাকশাল প্রতিষ্ঠার প্রমাণ: রিজভী
                                  

 শেখ হাসিনা আজীবন ক্ষমতায় থাকার ‘খোয়াব’ দেখছেন বলে মন্তব্য করেছেন রুহুল কবির রিজভী। নয়া পল্টনে দলের কেন্দ্রীয় কার্যালয়ে গতকাল বৃহস্পতিবার দুপুরে এক সংবাদ সম্মেলনে দলের জ্যেষ্ঠ যুগ্ম মহাসচিব বলেন, “সম্প্রতি প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা আওয়ামী লীগের এক আলোচনা সভায় বলেছেন, বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান প্রবর্তিত বাকশাল থাকলে নির্বাচন নিয়ে কোনো বির্তক থাকত না, প্রশ্ন উঠত না। বাকশাল ছিল সর্বোত্তম পন্থা।
“প্রধানমন্ত্রীর কথায় প্রমাণ পাওয়া যাচ্ছে, একদলীয় স্বৈরতান্ত্রিক বাকশাল পুনঃপ্রতিষ্ঠার মাধ্যমে মরহুম শেখ মুজিবুর রহমানের মতো বিনাভোটে, বিনা প্রতিদ্বন্দ্বিতায় আজীবন ক্ষমতায় থাকার খোয়াব দেখছেন শেখ হাসিনা। তিনি আগে-ভাগে জানিয়ে দেন তিনি কি করতে চাচ্ছেন।”
রিজভী প্রশ্ন রেখে বলেন, “বাকশালের ভোট কোথায়? বাকশাল মানে তো একদলীয় ব্যবস্থা। তার মানে আওয়ামী সরকার ও তার যে প্রধান জনগণকে একেবারে বেকুব, একেবারে বোকা মনে করে। উনি মনে করেন, তার অবৈধ ক্ষমতার জোরে যা ইচ্ছে বলবেন, সেটাই মানুষ বিশ্বাস করবে। অথচ মানুষ এত বেকুব নয়। মানুষ যদি বোকা হত তাহলে ৩০ ডিসেম্বরের নির্বাচন এবং উপজেলা পরিষদের দুই দফা নির্বাচনে ভোট দিতে মানুষ ভোট কেন্দ্রে যেত। খালেদা জিয়াকে মুক্তি না দিলে পরিণতি শুভ হবে না বলেও হুঁশিয়ারি উচ্চারণ করেন রুহুল কবির রিজভী। মঙ্গলবার পুরান ঢাকার পুরনো কেন্দ্রীয় কারাগারের ভেতরে স্থাপিত ঢাকার ৯ নম্বর বিশেষ জজ আদালতের বিশেষ এজলাসে একটি মামলায় হাজিরা দেন খালেদা জিয়া। সেখানে তার সঙ্গে দেখা হয় মহাসচিব মির্জা ফখরুলের। পরে এক কর্মসূচিতে ফখরুল জানান, খালেদা জিয়ার অসুস্থতা আরও বেড়েছে। কারাবন্দি তাদের নেত্রীকে সরকার ‘পরিকল্পিতভাবে মৃত্যুর দিকে ঠেলে দিচ্ছে’ বলেও মন্তব্য করেন ফখরুল।
রিজভী বলেন, চিকিৎসার অভাবে গুরুতর অসুস্থ ৭৪ বছরের একজন নারী দেশনেত্রী বেগম খালেদা জিয়াকে প্রহসনমূলক বিচারের জন্য কারাগারে স্থাপিত মিডনাইট ইলেকশনের প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার ক্যাঙ্গারু আদালতে টেনে-হিঁচড়ে প্রায় প্রতিদিনই হাজির করা হচ্ছে। তিনি হুঁশিয়ার করে দিয়ে বলেন, “সরকারের বিরুদ্ধে অভিমান, ক্ষোভ ও বিদ্রোহে জনগণ অগ্নিগর্ভ হয়ে আছে। যেকোনো সময় জনতার বিস্ফোরণ শুরু হবে- যা কল্পনাও করতে পারছেন না।
সংবাদ সম্মেলনে দলের চেয়ারপারসনের উপদেষ্টা কাউন্সিলের সদস্য আবদুস সালাম, যুগ্ম মহাসচিব খায়রুল কবির খোকন, সাংগঠনিক সম্পাদক মাহবুবে রহমান শামীম, কেন্দ্রীয় নেতা এবিএম মোশাররফ হোসেন, আবদুস সালাম আজাদ, মুনির হোসেন উপস্থিত ছিলেন।

 

 

বাইপাস সার্জারি শেষে ভাল আছেন ওবায়দুল কাদের
                                  

আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক এবং সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের ভাল আছেন। সফল বাইপাস সার্জারি শেষে তিনি এখন আইসিইউতে রয়েছেন।

সিঙ্গাপুরে ওবায়দুল কাদেরের চিকিৎসা সমন্বয়ক ও বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিক্যাল বিশ্ববিদ্যালয়ের পরিচালক নিউরোলজিস্ট প্রফেসর ডা. আবু নাসার রিজভী এ তথ্য জানান। বৃহস্পতিবার বিকালে মেডিকেল বোর্ডকে উদ্ধৃত করে হাসপাতাল লবিতে উপস্থিত পরিবারের সদস্য ও অন্যান্যদের এ কথা জানানো হয়।

ডা. রিজভী জানান, ওবায়দুল কাদেরের স্বাস্থ্যের উন্নতি হচ্ছে। এ ধারা অব্যাহত থাকলে আগামী সপ্তাহের মাঝামাঝি তাকে কেবিনে স্থানান্তরে আশাবাদী চিকিৎসকগণ।

উল্লেখ্য, গতকাল মাউন্ট এলিজাবেথ হাসপাতালে কার্ডিও থোরাসিক সার্জন ডা. সিবাস্টিন কুমার সামির নেতৃত্বে ওবায়দুল কাদেরের বাইপাস সার্জারি হয়।

১৪ হাজার কোটি টাকা লুটকারী নীরব মোদি লন্ডনে গ্রেফতার
                                  

লন্ডনে গ্রেফতার হলেন ব্যাংক থেকে হাজার হাজার কোটি টাকা ঋণ নিয়ে পলাতক ভারতীয় নামকরা হীরা ব্যবসায়ী নীরব মোদি। পাঞ্জাব ন্যাশনাল ব্যাংকের (পিএনবি) ১৪ হাজার কোটি টাকা ঋণ কেলেঙ্কারির ঘটনায় অভিযুক্ত মোদিকে মঙ্গলবার লন্ডন পুলিশ গ্রেফতার করেছে।

ভারতীয় টেলিভিশন এনডিটিভির অনলাইন প্রতিবেদনে জানানো হয়েছে, নীরব মোদিকে লন্ডনে গ্রেফতার করার খবর নিশ্চিত করেছে ব্রিটিশ পুলিশ। সম্প্রতি বেশ কিছু গণমাধ্যমের প্রতিবেদনে জানানো হয় পলাতক নীরব মোদিকে লন্ডনের বেশ কিছু স্থানে দেখা গেছে।

ব্যবসায়ী নীরব মোদি ভারতের সবচেয়ে বড় ঋণ কেলেঙ্কারির সঙ্গে জড়িত। ব্যাংকে ভুয়া কাগজপত্র দেখিয়ে তিনি ও তার পরিবারের সদস্যরা তুলে নেন হাজার হাজার কোটি রুপি। দেশ থেকে পালিয়ে তিনি বুড়ো আঙুল দেখাচ্ছেন দেশটির গোয়েন্দা সংস্থাকেও। শুধু তাই নয় ভারতের নাগরতিকত্বও ত্যাগ করেছেন তিনি।

ব্রিটিশ বার্তা সংস্থা রয়টার্সের এক প্রতিবেদনে জানানো হয়েছে, ৪৮ বছর বয়সী নীরব মোদিকে মঙ্গলবার লন্ডনের হোলবর্ণ নামক এলাকা থেকে গ্রেফতার করা হয়। তাকে বুধবার লন্ডনের ওয়েস্টমিনিস্টার ম্যাজিস্ট্রেট কোর্টে হাজির করা হবে বলেও জানিয়েছেন তারা।

২০১৮ সালের আগস্টে ভারত সরকার যুক্তরাজ্যকে নীরব মোদিকে গ্রেফতার করে প্রত্যার্পণের অনুরোধ করে। ভারতের সবচেয়ে বড় ঋণ কেলেঙ্কারির সঙ্গে যুক্ত নীরব মোদি ২০০ কোটি ডলার ঋণ জালিয়াতির সঙ্গে যুক্ত বলে কাতারভিত্তিক সংবাদমাধ্যম আলজাজিরার প্রতিবেদনে জানানো হয়েছে।

গত বছরের শুরুর দিকে ২৮০ কোটি রুপি জালিয়াতিতে একজন হীরা ব্যবসায়ীর সম্পৃক্ততার বিষয়টি নিয়ে তদন্ত করতে গিয়ে নীরব মোদির বিরুদ্ধে হাজার হাজার কোটি জালিয়াতির খোঁজ পায় পাঞ্জাব ন্যাশনাল ব্যাংক। তারপর ব্যাংকসহ দেশটির গোয়েন্দা সংস্থা তৎপর হলে দেশ ছেড়ে পালান নীরব মোদি।

ভারতের নীরব মোদি নামের ওই হীরা ব্যবসায়ীর প্রতিষ্ঠানের হীরার গয়নার দারুণ সুনাম রয়েছে বিশ্বজুড়েই। তার দোকানের গহনার ক্রেতা বলিউড তারকারা। তাছাড়া হলিউড এমনকি অনেক দেশের রাজপরিবারের সদস্যরাও তার দোকান থেকে গয়না ব্যবহার করেন।

মসজিদে হামলায় উল্লাস প্রকাশ করে চাকরি থেকে বরখাস্ত
                                  

নিউজিল্যান্ডের মসজিদে মুসলিম গণহত্যার ঘটনায় উল্লাস প্রকাশ করায় এক কর্মচারীকে চাকরিচ্যুত করেছে মধ্যপ্রাচ্যের দেশ সংযুক্ত আরব আমিরাতের একটি কোম্পানি। গত সপ্তাহে ক্রাইস্টচার্চের মসজিদে হামলার ঘটনার পর ওই কর্মচারী সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে উল্লাস প্রকাশ করেছিলেন।

গত শুক্রবার ক্রাইস্টচার্চের দুটি মসজিদে আধা স্বয়ংক্রিয় অস্ত্র নিয়ে হামলা চালায় অস্ট্রেলীয় বংশোদ্ভূত শেতাঙ্গ আধিপত্যবাদী সন্ত্রাসী ব্রেন্টন ব্যারান্ট। তার ওই হামলায় ৫০ মুসল্লির প্রাণহানি ঘটে। আধুনিক নিউজিল্যান্ডের ইতিহাসে মসজিদে হামলার এই ঘটনাকে কালো অধ্যায় হিসেবে অভিহিত করেছেন দেশটির প্রধানমন্ত্রী জেসিন্ডা আর্ডার্ন।

আমিরাতের নিরাপত্তা কোম্পানি ট্রান্সগার্ড এক বিবৃতিতে বলছে, ট্রান্সগার্ডের এক কর্মচারী তার ব্যক্তিগত ফেসবুক অ্যাকাউন্টে ক্রাইস্টচার্চে মসজিদে ঘৃণ্য হামলার ঘটনায় উচ্ছ্বাস প্রকাশ করে অপমানসূচক মন্তব্য করেছে।

ট্রান্সগার্ডের ব্যবস্থাপনা পরিচালক গ্রেগ ওয়ার্ড বলেছেন, সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমের অপব্যবহারের বিষয়ে আমাদের জিরো টলারেন্স নীতি রয়েছে। ফলে ওই মন্তব্যের কারণে তাকে তাৎক্ষণিকভাবে চাকরি থেকে বরখাস্ত করা হয়েছে। বিচারের মুখোমুখি করার জন্য তাকে যথাযথ কর্তৃপক্ষের হাতে তুলে দেয়া হয়েছে।

পরে ওই কর্মচারী আরব আমিরাত সরকার নিজ দেশে ফেরত পাঠিয়েছে বলে বিবৃতিতে জানিয়েছে কোম্পানিটি। তবে অভিযুক্ত ওই কর্মচারীর নাম পরিচয় প্রকাশ করে ট্রান্সগার্ড।

মনের জোরে এগিয়ে যাচ্ছি : এরশাদ
                                  

আমার মতো অত্যাচারিত ও নির্যাতিত নেতা আর কেউ নেই বলে মন্তব্য করেছেন সাবেক রাষ্ট্রপতি, বিরোধীদলীয় নেতা ও জাতীয় পার্টির চেয়ারম্যান হুসেইন মুহম্মদ এরশাদ। বুধবার দুপুরে রাজধানীর গুলশান-১ সার্কেলের ইমানুয়েলস মিলনায়তনে এরশাদের ৯০তম জন্মদিনে কেক কাটেন নেতাকর্মীরা।

এ সময় এরশাদ বলেন, ‘দীর্ঘদিন কারাগারে ছিলাম, কেউ পাশে ছিল না। শত অত্যাচার আমাদের দমাতে পারেনি। শুধু মনের জোরে এগিয়ে চলছি, শত ষড়যন্ত্র আমাদের ধংস করতে পারেনি।’

জাতীয় পার্টির কথা উল্লেখ করে তিনি বলেন, ‘অবিচার আর অত্যাচারে যে দল ভেঙে পড়ে না, সে দলকে কেউই ধ্বংস করতে পারবে না। নেতাকর্মীদের প্রতি আহ্বান জানিয়ে বিরোধীদলীয় এ নেতা বলেন, ‘জাতীয় পার্টিকে শক্তিশালী করে তোলো, যাতে আগামী নির্বাচনে ক্ষমতায় যেতে পারে।’

এর আগে আনন্দঘন পরিবেশে পার্টির সিনিয়র কো-চেয়ারম্যান রওশন এরশাদ এমপি বলেন, ‘সবাই পার্টির চেয়ারম্যানের জন্য দোয়া করুন, যাতে তিনি সুস্থ হয়ে দেশের মানুষের জন্য কাজ করতে পারেন।’ বলেন, ‘হুসেইন মুহম্মদ এরশাদের ৯ বছরে উন্নয়নের যে রেকর্ড গড়েছেন তা কেউ ভাঙতে পারবে না। বঙ্গবন্ধু একটি স্বাধীন দেশ দিয়েছিলেন। কিন্তু দেশটি গড়ার জন্য পর্যাপ্ত সময় বঙ্গবন্ধু পাননি। কিন্তু দেশ গড়ার জন্য এরশাদের অসংখ্য কীর্তি অক্ষয় হয়ে আছে।’

নেতাকর্মীদের প্রশ্নের জবাবে রওশন এরশাদ বলেন, ‘সম্মিলিত সামরিক হাসপাতালে (সিএমএইচে) পল্লীবন্ধুর কখনোই ভুল চিকিৎসা হয়নি। সিএমএইচে কখনোই ভুল চিকিৎসা হতে পারে না।’

অনুষ্ঠানে পার্টির কো-চেয়ারম্যান ও বিরোধীদলীয় উপনেতা জিএম কাদের এমপি বলেন, ‘আজ শপথ নেয়ার দিন। আমরা শপথ নিচ্ছি, নতুন বাংলাদেশ আমরা গড়বোই। জাতীয় পার্টি এরশাদের আদর্শ নিয়ে এগিয়ে যাবে। জিএম কাদের পার্টি চেয়ারম্যান পল্লীবন্ধুর জন্য সবার কাছে দোয়া কামনা করেন।’

সকাল থেকে নেতাকর্মীরা স্লোগানে উৎসবমুখর করে তোলে গুলশান-১ সার্কেলের ইমানুয়েলস মিলনায়তন। বিভিন্ন অঙ্গ সংগঠনের পক্ষ থেকে ফুল ও কেক নিয়ে হাজির হন আনন্দঘন পরিবেশে। দুপুর ১২টার দিকে এরশাদ মিলনায়তনে পৌঁছালে সেখানে এক আবেগঘন পরিবেশ সৃষ্টি হয়।

তার সঙ্গে মিলনায়তনে প্রবেশ করেন ছোট ভাই পার্টির কো-চেয়ারম্যান ও বিরোধীদলীয় উপনেতা জিএম কাদের এমপি। এর আগেই পার্টির সিনিয়র কো-চেয়ারম্যান রওশান এরশাদ এমপি সভাস্থলে পৌঁছেন। ১২টার পর ৯০ পাউন্ডের কেক কেটে নিজের জন্মদিনের উৎসবের সূচনা করেন জাতীয় পার্টির চেয়ারম্যান এরশাদ।

 

অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন প্রেসিডিয়াম সদস্য গোলাম কিবরিয়া টিপু এমপি, সৈয়দ আব্দুল মান্নান, অ্যাডভোকেট শেখ সিরাজুল ইসলাম, মাসুদা এম. রশিদ চৌধুরী এমপি, ফখরুল ইমাম এমপি, সুনীল শুভ রায়, এস.এম. ফয়সল চিশতী, মো. আজম খান, এটিইউ তাজ রহমান, মেজর অব. মো. খালেদ আখতার, লেঃ জেঃ (অব.) মাসুদ উদ্দিন চৌধুরী এমপি, ফখরুজ্জামান জাহাঙ্গীর, অ্যাড. রেজাউল ইসলাম ভূঁইয়া, আলহাজ্ব মো. মিজানুর রহমান, উপদেষ্টা- ক্বারী হাবিবুল্লাহ বেলালী।

রওশন আরা মান্নান এমপি, নাজমা আখতার এমপি, অ্যাড. আজাহার উদ্দিন, ভাইস চেয়ারম্যান- অধ্যাপক ইকবাল হোসেন রাজু, জহিরুল ইসলাম জহির, মো. আরিফুর রহমান খান, আলমগীর সিকদার লোটন, নুরুল ইসলাম নুরু, সরদার শাহজাহান, এমরান হোসেন মিয়া, আবু বক্কর, যুগ্ম মহাসচিব গোলাম মোহাম্মদ রাজু, নুরুল ইসলাম ওমর, আশরাফ সিদ্দিকী, শেখ আলমগীর হোসেন, ইয়াহইয়া চৌধুরী, জহিরুল আলম রুবেল, সাংগঠনিক সম্পাদক মো. শামসুল হক, সুলতান আহমেদ সেলিম, আমির উদ্দিন আহমেদ ঢালু, ইসহাক ভূঁইয়া, মো. জসীম উদ্দিন, মুনিম চৌধুরী বাবু, মো. হেলাল উদ্দিন, একেএম আশরাফুজ্জামান খান উপস্থিত ছিলেন।

আরও উপস্থিত ছিলেন- মো. নাসির উদ্দিন, সম্পাদক মণ্ডলীর সদস্য- সুলতান মাহমুদ, মো. বেলাল হোসেন, অনন্যা হুসাইন মৌসুমী, আনিসুর রহমান খোকন, অ্যাড. লাকী বেগম, এম.এ. রাজ্জাক খান, শারমিন পারভিন লিজা, গোলাম মোস্তফা, হুমায়ন খান, লিয়াকত চাকলাদার, এটিইউ আহাদ চৌধুরী, কাজী আবুল খায়ের, সুমন আশরাফ, আবু সাঈদ স্বপন, মোস্তফা কামাল, ক্বারী হাফেজ ইসারুহুল্লাহ আসিফ, কেন্দ্রীয় নেতা- মাহমুদ আলম, মো. নেওয়াজ আলী ভূঁইয়া, সাজ্জাদ পারভেজ চৌধুরী, বাহাদুর ইমতিয়াজ, মো. নাজমুল খান, হাসান মঞ্জুর, মিজানুর রহমান দুলাল, জাকির হোসেন মৃধা, মামুনুর রহমান, তাসলিম আক্তার রুনা, জেসমিন নূর প্রিয়াংকা, মোতাহার হোসেন মানিক, ফারুক আহমেদ, দ্বীন ইসলাম শেখ, সুলেমান সামী, শফিকুল ইসলাম দুলাল, আবুল কাশেম, মোস্তফা আল মাহমুদ।

ওবায়দুল কাদেরের বাইপাস সার্জারি সম্পন্ন
                                  

 সিঙ্গাপুরের মাউন্ট এলিজাবেথ হাসপাতালে চিকিৎধীন আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক এবং সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদেরের সফল বাইপাস সার্জারি হয়েছে।
বুধবার দুপুরে সড়ক পরিবহন ও মহাসড়ক বিভাগের উপপ্রধান তথ্য কর্মকর্তা আবু নাছের গণমাধ্যমকে এ তথ্য জানিয়েছেন।
তিনি জানান, ওবায়দুল কাদেরের বাইপাস সার্জারি সফল হয়েছে। এখনও তিনি অপারেশন থিয়েটারেই আছেন। তার পরিবার দেশবাসীর কাছে দোয়া চেয়েছেন।
এর আগে মঙ্গলবার সিঙ্গাপুরে অবস্থানরত ওবায়দুল কাদেরের চিকিৎসা সমন্বয়ক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিক্যাল বিশ্ববিদ্যালয়ের পরিচালক এবং নিওরোলজিস্ট অধ্যাপক ডা. আবু নাসের রিজভী জানান, ওবায়দুল কাদেরের রক্তচাপ, ডায়াবেটিস নিয়ন্ত্রণে রয়েছে এবং শারীরিক অবস্থা স্থিতিশীল বলে হাসপাতালের চিকিৎসকরা জানিয়েছেন। ওবায়দুল কাদেরের পরিবারের পক্ষ থেকে তার সুস্থতার জন্য দেশবাসীর কাছে দোয়া চাওয়া হয়েছে।
এ সময় অন্যদের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন ওবায়দুল কাদেরের সহধর্মিণী বেগম ইসরাতুন্নেসা কাদের, ছোট ভাই বসুরহাট পৌরসভার মেয়র আব্দুল কাদের মীর্জা, আওয়ামী লীগ নেতা আলাউদ্দীন নাসিম, সড়ক পরিবহন ও মহাসড়ক বিভাগের সচিব মো. নজরুল ইসলাম, সিঙ্গাপুরে নিযুক্ত বাংলাদেশের হাইকমিশনার মোস্তাফিজুর রহমান ও চট্টগ্রাম উন্নয়ন কর্তৃপক্ষের চেয়ারম্যান আবদুচ সালাম।

আবরারের রক্তে প্রমাণিত হলো নিরাপদ সড়ক ব্যবস্থায় সরকার ব্যর্থ: মোশাররফ
                                  

বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য ড. খন্দকার মোশাররফ হোসেন বলেছেন, সরকার ছাত্রদের আন্দোলন থেকে বিরত থাকার জন্য যে কথা দিয়েছিল। তারা সেই কথা রাখে নাই। তাই সেই জন্যই নিরাপদ সড়কের দাবিতে যে ছেলেটি রাস্তায় নেমেছিল, তাকে জীবন দিতে হয়েছে। আমরা এই আন্দোলনের পুর্নসমর্থন জানাচ্ছি। এবং সরকারকে ছাত্রদের ন্যায্য দাবি মেনে নেওয়ার আহবান জানাচ্ছি।
বুধবার (২০মার্চ) রাজধানীর ঢাকা রিপোটার্স ইউনিটির (ডি আর ইউ) ভবনের তৃতীয় তলায় স্বাধীনতা হলে নাগরিক অধিকার আন্দোলন ফোরাম আয়োজিত ‘বিএনপির চেয়ারপারসন খালেদা জিয়ার অবিলম্বে সুচিকিৎসা ও মুক্তির দাবিতে’ প্রতিবাদ সমাবেশে তিনি এ কথা বলেন।
মোশাররফ বলেন, এই সরকার জনগণের সরকার নয়। ফ্যাসিবাদী সরকার তাই তারা যা বলে তা করে না। আর এজন্যই সড়কে অস্বাভাবিক ঘটনা ঘটছে। ডাকসু নির্বাচন, জাতীয় নির্বাচন সকল ক্ষেত্রেই অস্বাভাবিক ঘটনা ঘটেছে। অস্বাভাবিক সরকারের আমলে অস্বাভাবিক ঘটনা অতি স্বাভাবিক। তবে এই অস্বাভাবিক ঘটনা বেশিদিন চলতে পারে না।
খালেদা জিয়ার সুচিকিৎসার দাবি জানিয়ে তিনি বলেন, সুচিকিৎসার জন্য হলেও বেগম জিয়ার মুক্তি প্রয়োজন। তার মুক্তির জন্য আমাদের ঐক্যবদ্ধ হতে হবে। দলকে আরও শক্তিশালী মজবুত করে লড়াইয়ে নামতে হবে। 
৬)প্রধানমন্ত্রীর দেওয়া এক বক্তব্যের সমালোচনা করে মোশারফ বলেন, ইতিহাস দেখেন, স্বাধীনতার পরে যে নির্বাচন হলো সেখানে মাত্র ৬ জন বিরোধী দলকে রেখে, সব তারা লুট করে নিয়ে গেছে। সেই লুট হয়েছিল দিনে আর এবার ২০১৮ সালে লুট হয়েছে ভোটের আগের দিন রাতে। 

বিএনপি গাদ্দার, আমি পদত্যাগ করলাম
                                  

‘গাদ্দার’ রাজনৈতিক দল আখ্যা দিয়ে বিএনপির পদ ও দলের সব ধরনের কার্যক্রম থেকে পদত্যাগের ঘোষণা দিয়েছেন জাতীয়তাবাদী মহিলা দল সিলেট জেলা শাখার শিক্ষা বিষয়ক সম্পাদক ও ফেঞ্চুগঞ্জ উপজেলা মহিলা দলের আহ্বায়ক ফেরদৌসী ইকবাল।

সারাদেশে পঞ্চম উপজেলা পরিষদ নির্বাচন বর্জন করে বিএনপি। কিন্তু দলীয় সিদ্ধান্ত অমান্য করে ফেঞ্চুগঞ্জ উপজেলায় মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান পদে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করেন বিএনপি নেত্রী ফেরদৌসী ইকবাল।

দলীয় নির্দেশ অমান্য করায় দল থেকে বহিষ্কার হলেও নির্বাচন থেকে সরে দাঁড়াননি তিনি। তবে শেষ পর্যন্ত জয়ী কিংবা প্রতিদ্বন্দ্বিতায়ও আসতে পারেননি ফেরদৌসী ইকবাল। চতুর্থ অবস্থানে থেকে প্রজাপতি প্রতীকে পেয়েছেন চার হাজার ২২৮ ভোট।

এই নির্বাচনে যারা তাকে ভোট দিয়েছেন তাদের প্রতি কৃতজ্ঞতা জানান ফেরদৌসী ইকবাল। একই সঙ্গে বিএনপির ভোটাররা তাকে একটি ভোটও দেননি উল্লেখ করে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেসবুকে একটি স্ট্যাটাস দেন তিনি।

সেখানে তিনি ‘গাদ্দার’ রাজনৈতিক দলের সঙ্গে যুক্ত ছিলেন বলে আফসোস করেন। বিএনপির জেলা ও উপজেলা পর্যায়ের সব কার্যক্রম থেকে নিজেকে গুঁটিয়ে নেয়ার ঘোষণা দিয়ে তিনি বলেন, বিএনপির সঙ্গে আমার আর কোনো সম্পর্ক নেই।

ফেসবুক স্ট্যাটাসে ভোটারদের কাছে কৃতজ্ঞতা জানিয়ে ফেরদৌসী ইকবাল বলেন, যারা আমাকে ভোট দিয়েছেন, যারা আমাকে ভোট দেননি তাদের সবার কাছে আমি ঋণী এবং কৃতজ্ঞ। এবারের নির্বাচনে আমিসহ যারা বিএনপির প্রার্থী ছিলাম তারা বিএনপি নেতাকর্মীদের একটা ভোটও পাইনি। যে ভোটগুলো পেয়েছি, সেগুলো উপজেলার সাধারণ মানুষ দিয়েছে।

 

স্ট্যাটাসে তিনি লিখেছেন, দিন শেষে মনে হয়েছে, আমি ভুল কিংবা গাদ্দার রাজনৈতিক দলের সঙ্গে জড়িত ছিলাম। আমি ভুল পথে আমার শ্রম দিয়েছি। শুধু দলীয় ভোটগুলো পেলেই আমি অনেক দূর এগিয়ে যেতে পারতাম। কিন্তু তা আর হলো না। কাজেই স্বেচ্ছায় উপজেলা ও জেলার সব রাজনৈতিক পদ থেকে আমি পদত্যাগ করলাম।

তার এই স্ট্যাটাস দেয়ার চার ঘণ্টার মধ্যে ১১৪টি কমেন্ট ও ২০৮টি লাইক পড়েছে। স্থানীয় বিএনপি কর্মী তাজরিয়ান আহমেদ রিয়াজ কমেন্ট করেছেন, ‘আপা অনেক সময় আছে, আরও বড় হতে পারবেন। শুধু কিছুদিন অপেক্ষা করতে হবে। আমরা যারা সাধারণ কর্মী বা আপনারা নেতা-নেত্রী আছেন, আপনাদের জন্য এই যুদ্ধ একটি পরীক্ষা মাত্র।’

সজীবুর রহমান সজীব নামের একজন কমেন্ট করেছেন, ‘আমি মহিদপুর এলাকার মানুষ, আমরা আপনাকে ভোট দিয়েছি এই বলে যে আপনি জাতীয়তাবাদী দলের লোক। তাহলে আমরা কি করেছি।’

মহসিন রাজা নামে একজন কমেন্ট করেছেন, ‘ফেরদৌসী আপা, আপনি হয়তো রাগে বা অভিমানে এমন সিদ্ধান্ত নিয়েছেন। আপনার অনেক ধারণাই হয়তো ভুল। ৭২ হাজার ভোটের মধ্যে ১০-১২ হাজার ভোটে সবাই পাস করেছেন। তার মানে বিএনপির বড় একটা অংশ ভোট দিতেই কেন্দ্রে যাননি। এছাড়া দল যেহেতু অনুমতি দেয়নি সেহেতু ইচ্ছা থাকা সত্ত্বেও অনেকে নির্বাচনী প্রচারণায় নামেননি। তারপরও যারা ভোট দিয়েছেন অবশ্যই আপনাকে ভোট দিয়েছেন, দু-একজন ছাড়া। যার সাক্ষী আমি নিজেই। আপনি মানিককোনা কেন্দ্রের ফলাফল দেখুন। আমাদের আশা এবং বিশ্বাস, দু-একদিন গেলে এসব মন থেকে মুছে ফেলে দেশনেত্রীর মুক্তির মিছিলে আবারও সক্রিয় হবেন আপনি।

দল থেকে পদত্যাগের কারণ জানতে চাইলে ফেঞ্চুগঞ্জ উপজেলা মহিলা দলের আহ্বায়ক ফেরদৌসী ইকবাল বলেন, দলীয় নির্দেশ অমান্য করে প্রার্থী হওয়ায় আমাকে বহিষ্কার করা হয়েছে। এরপরও আমি নির্বাচন থেকে সরে দাঁড়াইনি। আমার বিশ্বাস ছিল দলের নেতাকর্মী ও সমর্থকরা আমাকে ভোট দেবেন। কিন্তু সাধারণ মানুষ ছাড়া বিএনপি নেতাকর্মীরা ভোট দেননি। যদি তারা ভোট দিতেন আমি জিতে যেতাম। তাই স্বেচ্ছায় উপজেলা ও জেলার সব রাজনৈতিক পদ থেকে আমি পদত্যাগ করলাম।

দানবের রাজত্বে মানববন্ধন বেমানান: গয়েশ্বর
                                  

দলের নেতাদের সমালোচনা করে বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য গয়েশ্বর চন্দ্র রায় বলেছেন, দানবের রাজত্বে মানববন্ধন বেমানান। এর থেকে যাত্রা শুরু করা যায় কিন্তু চূড়ান্ত ফল আশা করা উচিত নয়। আপনারা প্রত্যাশা করতে পারেন। কিন্তু কোন প্রত্যাশায় বাস্তবায়িত হয় না প্রচেষ্টা ছাড়া। কিছু করতে গেলে কিছু ক্ষতি হবে এ কথাটা মেনে পথ চলতে হবে। আমি নিরাপদে থাকবো, আমি চলে যাবো না, আমি মামলা খাবো না, আমার সম্পদ রক্ষা করতে হবে, এই ভয় যদি আপনাদের মাঝে কাজ করে, তাহলে আমাদের নেত্রী কারাগারে থাকবে।

জাতীয় প্রেসক্লাবের সামনে মঙ্গলবার (১৯ মার্চ) সকালে খালেদা জিয়ার সুচিকিৎসা ও মুক্তির দাবিতে এক মানববন্ধনে তিনি এসব কথা বলেন। মানববন্ধনের আয়োজন করে বাংলাদেশ জাতীয়তাবাদী কৃষকদল।
গয়েশ্বর বলেন, আপনি একটি রাজনৈতিক দল করেন, যে দলটি বার বার মানুষের ভোটে নির্বাচিত হয়ে ক্ষমতায় গেছে। তার বিপরিতে যে দলটি আছে তার চরিত্র কি? ভাষা কি, ইচ্ছে কি, রাজ পথে থেকে এটা বুঝা দরকার। সেটা যদি বুঝতে না পারেন তাহলে যে দুর্গতিতে থাকার কথা সেটাই আসছে। খালেদা জিয়াকে কারাগারে রেখে নির্বাচন হবে না, শেখ হাসিনাকে রেখে নির্বাচন হবে না, কোনোটাই কার্য্যকর করলেন না।

খালেদা জিয়া ছাড়া নির্বাচন হবে না, হাসিনাকে রেখে নির্বাচন হবে না। দুটি শব্দের একটি ও কার্যকর করলেন না। হাসিনা কেউ রাখবেন খালেদা জিয়াকে জেলখানা থেকে মুক্ত না করে নির্বাচনে গেলেন। সেই নির্বাচনে কেউ থাকলো জেলে, কেউ হাসপাতালে, কেউ বাড়িতে লুকিয়ে রইলেন মাঠেও নামলেন না। পারবেন না যখন, দানবের সাথে লড়াই করতে যান কেনো?
প্রধানমন্ত্রী শেখা হাসিনার সমালোচনা করে বলেছেন, খালেদা জিয়া জেলখানায় আছে এটা তার (প্রধানমন্ত্রীর) স্বস্তি নয়, জেলখানায় খালেদা জিয়ার মৃত্যুর সংবাদ যতক্ষণ পর্যন্ত না শুনবেন ততক্ষণ পর্যন্ত তিনি বিচলিত থাকবেন।’
খালেদা জিয়াকে সরকার ছাড়ার জন্য কারাগারে নেয়নি। সরকার তাকে শুধু কারাগারে রেখেই সন্তুষ্ট নয়, বাংলাদেশের বর্তমান প্রধানমন্ত্রীর কোনো কিছুতেই তৃপ্তি হয় না। সে তার অতৃপ্ত বাসনা নিয়েই রাজত্ব চালাবে, যতই পান ততই চান। মানুষের দুঃখ, কষ্ট, যন্ত্রণা তাকে পুলকিত করে, আনন্দিত করে। মানুষের জন্য তিনি কিছু করে আনন্দ লাভ করতে পারেন না। এরকম একটা বিকৃত মানসিকতা সম্পন্ন মানুষের কবলে সারা দেশ।
তিনি বলেন, খালেদা জিয়া জেলখানায় আছে, এটাই তার স্বস্তি নয়, জেলখানায় খালেদা জিয়ার মৃত্যুর সংবাদ তিনি যতক্ষণ পর্যন্ত না শুনবেন ততক্ষণ পর্যন্ত তিনি বিচলিত। এটা তার পণ, অঙ্গিকার। আর এজন্য তাকে এক সঙ্গে সহযোগিতা করছে প্রশাসন ও আদালত।

যে দানবের কাছে থেকে আপনার অধিকার আদায় করতে পারবেন না, সেই দানবকে রাষ্ট্র ক্ষমতায় রেখে মানবিকতা কায়েম করবেন সেটা হতে পারে না। তিনি বলেন, রাজনীতিতে পাণ্ডিত্য থেকে মানুষের বেশী প্রয়োজন মানুষের মনোভাব বোঝা। মানুষের মনোভাব বুঝতে পারে না তারা রাজনীতিতে কখনো সফলতা অর্জন করতে পারে না। জনগন কেউ কিছু দিতে পারে না। আপনারা মুখে যা বলবেন কাজে তা করতে হবে। কারো কাছে চাওয়া নয় দাবি আদায় করুন। আপনি আপনার শক্তি আপনার সমর্থন দিয়ে। আপনারা যদি নেতৃত্ব দিতে পারেন জনগণ আপনাদের নেতৃত্বে যুদ্ধ করার জন্য প্রস্তুত আছে।
বিএনপির ভাইস-চেয়ারম্যান ও কৃষকদলের আহ্বায়ক শামসুজ্জামান দুদুর সভাপতিত্বে এবং সদস্য এসকে সাদীর সঞ্চালনায় মানববন্ধনে আরও উপস্থিত ছিলেন, বিএনপি চেয়ারপারসনের উপদেষ্টা হাবিবুর রহমান হাবিব, যুগ্ম-মহাসচিব খায়রুল কবির খোকন, সহ-সাংগঠনিক সম্পাদক আব্দুস সালাম আজাদ, কৃষকদলের যুগ্ম-আহ্বায়ক তকদির হোসেন মোহাম্মাদ জসিম, নাজিম উদ্দীন মাষ্টার, সদস্য সচিব কৃষিবিদ হাসান জাফির তুহিন, আহ্বায়ক কমিটির সদস্য মাইনুল ইসলাম, মিয়া মো: আনোয়ার, কে এম রকিবুল ইসলাম রিপন, এম জাহাঙ্গীর আলম,আব্দুর রাজি প্রমুখ।

বিএনপির আরও পাঁচ নেতা বহিষ্কার
                                  

দলের সিদ্ধান্ত অমান্য করে উপজেলা নির্বাচনে অংশগ্রহণ করায় বিএনপির আরও পাঁচ নেতাকে দলের প্রাথমিক সদস্য পদসহ সকল পর্যায়ের পদ থেকে বহিষ্কার করা হয়েছে।

বহিষ্কৃতরা হলেন- বরগুনা জেলা বিএনপির সহ-সভাপতি মো. শাহজাহান কবির, জেলা বিএনপির সদস্য ও সদর উপজেলা মহিলা দলের আহ্বায়ক শারমিন সুলতানা আসমা, বেতাগী উপজেলা বিএনপির যুগ্ম আহ্বায়ক অধ্যাপিকা আমেনা বেগম, মো. গোলাম সরোয়ার রিয়াদ খান এবং সাতক্ষীরার শ্যামনগর উপজেলা বিএনপি নেতা ও উপজেলা মহিলা দল সভানেত্রী নুরজাহান এলাহী ঝরনা।

দলটির সহ-দফতর সম্পাদক মুহাম্মদ মুনির হোসেন স্বাক্ষরিত এক বিজ্ঞপ্তিতে এ তথ্য জানানো হয়েছে।

এর আগে সহ-দফতর সম্পাদক তাইফুল ইসলাম স্বাক্ষরিত অপর বিজ্ঞপ্তিতে পাঁচজনের বহিষ্কারের কথা বলা হয়।

জনগণের অধিকার ফিরিয়ে দেয়ার দায়িত্ব নেবে বিএনপি : ড. মোশাররফ
                                  

বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য ও সাবেক মন্ত্রী ড. খন্দকার মোশাররফ হোসেন বলেছেন, আগামী দিনে জনগণের অধিকার ফিরিয়ে দেয়ার দায়িত্ব নেবে বিএনপি। আওয়ামী লীগ যেখানে গণতন্ত্র হত্যা করেছে, জনগণের অধিকার লুণ্ঠন করেছে, সেখানে আগামী দিনে বিএনপিকেই ঘুরে দাঁড়াতে হবে। তিনি আরো বলেন,খন্দকার দেলোয়ার হোসেন ছিলেন বিএনপি’র দুঃসময়ের কান্ডারী । প্রতিটি গণতান্ত্রিক আন্দোলনে খন্দকার দেলোয়ার হোসেন অগ্রণী ভূমিকা পালন করেছেন।

সোমবার বিকেলে জাতীয় প্রেসক্লাবে বিএনপির সাবেক মহাসচিব মরহুম খন্দকার দেলোয়ার হোসেনের ৮ম মৃত্যুবার্ষিকী উপলক্ষে আয়োজিত দোয়া মাহফিল ও স্মরণ সভায় প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি এ কথা বলেন। 
খন্দকার দেলোয়ার হোসেন স্মৃতি ফাউন্ডেশনের উদ্যোগে আয়োজিত অনুষ্ঠানে সভাপতিত্ব করেন বিশিষ্ট রাষ্ট্রবিজ্ঞানী ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের সাবেক ভিসি অধ্যাপক এমাজ উদ্দিন আহমদ। অনুষ্ঠানে বক্তব্য রাখেন বিএনপি’র ভাইসচেয়ারম্যান সাবেক মন্ত্রী চৌধুরী কামাল ইবনে ইউসুফ, শামসুজ্জামান দুদু, যুগ্ম মহাসচিব এডভোকেট সৈয়দ মোয়াজ্জেম হোসেন আলাল, সাবেক এমপি মেজর আক্তারুজ্জামান, বিশিষ্ট ছড়াকার আবু সালেহ প্রমূখ।
ড. খন্দকার মোশাররফ হোসেন বলেন, মরহুম দেলোয়ার হোসেন দেশের যেকোন ক্রান্তিকালেই সাহসী ভূমিকা নিয়ে সামনে এগিয়ে গেছেন। ভাষা আন্দোলন থেকে শুরু করে স্বাধীনতা যুদ্ধেও তার ভূমিকা ছিল অগ্রনায়কের মতোই। যেকোনো গণতান্ত্রিক আন্দোলনে তিনি অগ্রণী ভূমিকা পালন করেছেন। বিএনপিকে যখনি নিশ্চিহ্ন করার ষড়যন্ত্র হয়েছে খন্দকার দেলোয়ার সেখানেই সোচ্চার ভূমিকা রেখেছেন। এক এগারো’র অগণতান্ত্রিক সরকার যখন দেশে অসাংবিধানিক কাজ শুরু করে সেখানে তিনি উচ্চ কণ্ঠে প্রতিবাদ জানিয়েছেন।

ড. খন্দকার মোশাররফ হোসেন আরো বলেন, দেশের ৮০ ভাগ লোকের ভোট ডাকাতি করেছে এই সরকার। জনগণ ভোট দিতে পারলে গণতন্ত্রের বিজয় নিশ্চিত ছিল। কিন্তু সরকার ভোট ডাকাতি করে বিজয়ী হয়েছে ঠিক কিন্তু তাদের নৈতিকতা চরম পরাজয় হয়েছে। ৩০ ডিসেম্বরের নির্বাচনে জনগণের কাছে আওয়ামী লীগের পরাজয় হয়েছে বলেও তিনি উল্লেখ করেন।

চৌধুরী কামাল ইবনে ইউসুফ বলেন, নেতৃত্বের সঠিক নির্দেশনা পেলে বিএনপি আবারো ঘুরে দাঁড়াবে। হতাশ হওয়ার কিছু নেই। নেতা আর কর্মীরা ঐক্য গড়তে পারলে আগামী দিনে আবারো এদেশে গণতন্ত্র ফিরিয়ে আনবো।
শামসুজ্জামান দুদু বলেন, খন্দকার দেলোয়ার হোসেন সব সময়ই ভেতরে-বাইরে অন্যায়ের বিরুদ্ধে ছিলেন। যেকোনো সংকটময় সময়ে তিনি বিএনপিকে নব জীবন দিয়েছিলেন। খন্দকার দেলোয়ার গণতন্ত্রের সিংহপুরুষ ছিলেন বলেও তিনি মন্তব্য করেন।

কেন্দ্র দখলের অভিযোগে আ’ লীগ প্রার্থীর ভোট বর্জন
                                  

নির্বাচনে এক প্রার্থীর বিপক্ষে বল প্রয়োগের অভিযোগ এনে ভোট বর্জন করলেন রাজনগর উপজেলা আওয়ামী লীগের প্রার্থী বর্তমান চেয়ারম্যান মো. আছকির খান। দুপুর দেড়টার দিকে সহকারী রিটার্নিং কর্মকর্তা রাজনগর উপজেলা নির্বাহী অফিসার  ফেরদৌসি আকতারের কাছে লিখিত অভিযোগ দিয়ে তিনি ভোট বর্জন করেন।

আওয়ামী লীগের স্বতন্ত্র প্রার্থী শাহজাহান খানের (কাপ পিরিস) বিরুদ্ধে ভোট কেন্দ্রে  বল প্রয়োগ, সেন্টার দখল, পুলিশ প্রশাসনের অসহযোগিতা, জাল ভোট প্রদানসহ বিভিন্ন অভিযোগ করা হয়।

আওয়ামী লীগ প্রার্থীর পক্ষে ইউপি চেয়ারম্যান মিলন বখত বলেন, বিভিন্ন কেন্দ্রে বল প্রয়োগ করা হয়েছে, জাল ভোট দেয়া হয়েছে। এ জন্য আমরা ভোট বর্জন করেছি। এদিকে ইউএনও ফেরদৌসি আক্তার বলেন, আমি এখনো লিখিত অভিযোগ পাইনি। 


   Page 1 of 232
     রাজনীতি
খালেদা জিয়ার মুক্তির দাবিতে নয়াপল্টনে বিএনপির বিক্ষোভ
.............................................................................................
মানুষের বিবেকের ওপরে আঘাত করা হচ্ছে: সুলতানা কামাল
.............................................................................................
আ.লীগ কখনোই গণতন্ত্র চায়নি: মঈন খান
.............................................................................................
বিএনপি সঠিক পথেই চলছে: খসরু
.............................................................................................
প্রধানমন্ত্রীর কথায় বাকশাল প্রতিষ্ঠার প্রমাণ: রিজভী
.............................................................................................
বাইপাস সার্জারি শেষে ভাল আছেন ওবায়দুল কাদের
.............................................................................................
১৪ হাজার কোটি টাকা লুটকারী নীরব মোদি লন্ডনে গ্রেফতার
.............................................................................................
মসজিদে হামলায় উল্লাস প্রকাশ করে চাকরি থেকে বরখাস্ত
.............................................................................................
মনের জোরে এগিয়ে যাচ্ছি : এরশাদ
.............................................................................................
ওবায়দুল কাদেরের বাইপাস সার্জারি সম্পন্ন
.............................................................................................
আবরারের রক্তে প্রমাণিত হলো নিরাপদ সড়ক ব্যবস্থায় সরকার ব্যর্থ: মোশাররফ
.............................................................................................
বিএনপি গাদ্দার, আমি পদত্যাগ করলাম
.............................................................................................
দানবের রাজত্বে মানববন্ধন বেমানান: গয়েশ্বর
.............................................................................................
বিএনপির আরও পাঁচ নেতা বহিষ্কার
.............................................................................................
জনগণের অধিকার ফিরিয়ে দেয়ার দায়িত্ব নেবে বিএনপি : ড. মোশাররফ
.............................................................................................
কেন্দ্র দখলের অভিযোগে আ’ লীগ প্রার্থীর ভোট বর্জন
.............................................................................................
লড়াই একটা হবে, দিন-তারিখ দিয়ে নয়: দুদু
.............................................................................................
বঙ্গবন্ধুর সোনার বাংলা গড়ার লক্ষ্যেই কাজ করছে সরকার
.............................................................................................
বঙ্গবন্ধুর জন্মদিনে মুক্তিযোদ্ধাদের শ্রদ্ধা
.............................................................................................
গ্যাসের দাম বাড়ালে সাধ্য মতো প্রতিবাদ
.............................................................................................
ইনু-মেননরা মুক্তিযুদ্ধবিরোধী ছিল: বাবুনগরী
.............................................................................................
ওবায়দুল কাদেরের সঙ্গে অশোভন আচরণ : নোয়াখালীর ৪ আ. লীগ নেতাকে বহিষ্কারের সুপারিশ
.............................................................................................
এশিয়া প্যাসিফিক ডেমোক্রেটিক ইউনিয়নের ভাইস চেয়ারম্যান মির্জা ফখরুল
.............................................................................................
বিএনপির নেতা ব্যারিস্টার আমিনুল হকের অবস্থা সংকটাপন্ন
.............................................................................................
উপজেলা নির্বাচনে অংশ নেয়ায় বিএনপির ১৬জন বহিষ্কার
.............................................................................................
ভারতের রাষ্ট্রপতির সঙ্গে বাংলাদেশের তরুণ নেতাদের সাক্ষাৎ
.............................................................................................
ডাকসুর ফলাফল ‘অস্বাভাবিক’: বিএনপি
.............................................................................................
ডাকসু নির্বাচনেও জাতীয় নির্বাচনের ছায়া
.............................................................................................
এবার বিমানবন্দরে অস্ত্রসহ আওয়ামী লীগ নেতা আটক
.............................................................................................
ভয়ে হাসপাতাল থেকে পালিয়েও বাঁচল না ফাহিমা
.............................................................................................
রাতেই ব্যালট বাক্স ভর্তি, ডাকসু নির্বাচনও কলঙ্কিত হল: বিএনপি
.............................................................................................
স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয় সম্পর্কিত কমিটিতে সুলতান মনসুর
.............................................................................................
‘পাকিস্তান আমলেও ডাকসুতে এমন কলঙ্ক হয়নি’
.............................................................................................
হিরো হওয়ার চেষ্টা করবেন না, নতুন মন্ত্রীদের নাসিম
.............................................................................................
নির্বাচনের প্রতি জনগণের আস্থা নেই: ফখরুল
.............................................................................................
খালেদাকে হাসপাতালে নিতে কারা কর্তৃপক্ষের প্রস্তুতি
.............................................................................................
বাংলাদেশের গণতন্ত্র ধ্বংস করে দিয়েছে এক দানব: ফখরুল
.............................................................................................
স্বাভাবিক কথা বলছেন কাদের, আইসিইউ থেকে কেবিনে নেয়া হবে কাল
.............................................................................................
খালেদা জিয়া অত্যন্ত অসুস্থ, সোজা হয়ে বসতে পারেন না: ফখরুল
.............................................................................................
আফসোস হয় ছোটবেলা থেকেই যদি ধর্মীয় শিক্ষা পেতাম: স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী
.............................................................................................
খালেদা জিয়াকে সানগ্লাস পরা দেখে অসুস্থ মনে হয় না: তথ্যমন্ত্রী
.............................................................................................
ঢাকা বার নির্বাচনে অনিয়ম হয়েছে: বিএনপি
.............................................................................................
সিইসি মুখ ফসকে সত্য বলে ফেলেছেন: বিএনপি
.............................................................................................
সিইসির নির্দেশেই ৩০ ডিসেম্বর ব্যালট বাক্স ভরা হয়েছে: বিএনপি
.............................................................................................
ওবায়দুল কাদেরকে দুয়েক দিনের মধ্যে কেবিনে নেয়া হবে: চিকিৎসক
.............................................................................................
পরিবারের সদস্যদের সঙ্গে কথা বলেছেন ওবায়দুল কাদের
.............................................................................................
মনসুরের শপথে ‘টাকা-পয়সার লেনদেন’ দেখছেন জাফরুল্লাহ
.............................................................................................
নির্বাচনের পরেই দলে ফিরবেন বিএনপির বহিষ্কৃতরা!
.............................................................................................
বিএনপি ধোঁকাবাজের দল: তথ্যমন্ত্রী
.............................................................................................
ঐক্যফ্রন্টের অন্যরাও সুলতান মনসুরের পথ ধরবে: হানিফ
.............................................................................................

|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
স্বাধীন বাংলা মো. খয়রুল ইসলাম চৌধুরী কর্তৃক সম্পাদিত ও ঢাকা-১০০০ হতে প্রকাশিত
প্রধান উপদেষ্টা: ফিরোজ আহমেদ (সাবেক সচিব, বাণিজ্য মন্ত্রণালয়)
উপদেষ্টা: আজাদ কবির
সম্পাদক মন্ডলীর সভাপতি: ডাঃ হারুনুর রশীদ
সম্পাদক মন্ডলীর সহ-সভাপতি: মামুনুর রশীদ
ব্যবস্থাপনা সম্পাদক : মো: খায়রুজ্জামান
যুগ্ম সম্পাদক: জুবায়ের আহমদ
বার্তা সম্পাদক: মুজিবুর রহমান ডালিম
স্পেশাল করাসপনডেন্ট : মো: শরিফুল ইসলাম রানা
যুক্তরাজ্য প্রতিনিধি: জুবের আহমদ
যোগাযোগ করুন: swadhinbangla24@gmail.com
    2015 @ All Right Reserved By swadhinbangla.com

Developed By: Dynamicsolution IT [01686797756]