ঢাকা, শুক্রবার , ১০ আশ্বিন ১৪২৭ , ২৫ সেপ্টেম্বর , ২০২০ বাংলার জন্য ক্লিক করুন
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|

   প্রশাসন -
                                                                                                                                                                                                                                                                                                                                 
২২৭ কোটি টাকা পাচার করেছেন ক্যাসিনো গডফাদার সম্রাট: দুদক

যুবলীগের বহিষ্কৃত নেতা ইসমাইল হোসেন সম্রাট আবারো আলোচনায়। দুর্নীতি দমন কমিশনের তদন্তে বেরিয়ে এসেছে, ২২৭ কোটি টাকা পাচার করেছেন এই ক্যাসিনো গডফাদার। তবে এর মধ্যে অধিকাংশ অর্থই খরচ হয়ে গেছে। বাকি অর্থ ফিরিয়ে আনার ব্যাপারে আশাবাদী দুদকের সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তারা। রোববার রাতে দুদক সূত্রে এসব তথ্য জানা যায়।

ক্যাসিনোবিরোধী অভিযান শুরুর পরপরই পালিয়ে যান যুবলীগ নেতা ইসমাইল হোসেন সম্রাট। তার বিরুদ্ধে তখন একাধিক মামলা হয়। অবৈধ অর্থ আয়ের অভিযোগ এনে দুদকের পক্ষ থেকেও একটি মামলা করা হয়েছিল। মামলায় ২ কোটি ৯৪ লাখ টাকার অবৈধ সম্পদের তথ্য দেওয়া হয়েছিল। এরপরই দুদকের কর্তকর্তারা সম্রাটের বিদেশে পাচার করা অর্থের সন্ধানে নামে।

অনুসন্ধানে একের পর এক আসতে থাকে চাঞ্চল্যকর তথ্য। জানা যায়, গত ৯ বছরে সম্রাট সিঙ্গাপুরে পাচার করেছেন ৩ কোটি ৬৫ লাখ সিঙ্গাপুরি ডলার, বাংলাদেশি টাকায় এর পরিমাণ ২২৬ কোটি ৩০ লাখ। এছাড়া মালয়েশিয়ার পাচার করেছেন ৪০ লাখ টাকা। খোঁজ পাওয়া এই ২২৭ কোটি টাকার বাইরে বিদেশে সম্রাটের আরো সম্পদ থাকতে পারে বলে ধারণা দুদকের।

দুদক সূত্রে জানা যায়, বিপুল পরিমাণ এই অর্থের অধিকাংশই খরচ করে ফেলেছেন সম্রাট। সিংহভাগ খরচ করেছেন সিঙ্গাপুরের সবচেয়ে বড় জুয়ার আসর মেরিনা বে-স্যান্ডস ক্যাসিনোতে। যেটুকু এখনো বাকি আছে, সেটুকু ফেরত আনতে সিঙ্গাপুর ও মালয়েশিয়ার সংশ্লিষ্ট দপ্তরে চিঠি পাঠাবে দুর্নীতি দমন কমিশন।

২২৭ কোটি টাকা পাচার করেছেন ক্যাসিনো গডফাদার সম্রাট: দুদক
                                  

যুবলীগের বহিষ্কৃত নেতা ইসমাইল হোসেন সম্রাট আবারো আলোচনায়। দুর্নীতি দমন কমিশনের তদন্তে বেরিয়ে এসেছে, ২২৭ কোটি টাকা পাচার করেছেন এই ক্যাসিনো গডফাদার। তবে এর মধ্যে অধিকাংশ অর্থই খরচ হয়ে গেছে। বাকি অর্থ ফিরিয়ে আনার ব্যাপারে আশাবাদী দুদকের সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তারা। রোববার রাতে দুদক সূত্রে এসব তথ্য জানা যায়।

ক্যাসিনোবিরোধী অভিযান শুরুর পরপরই পালিয়ে যান যুবলীগ নেতা ইসমাইল হোসেন সম্রাট। তার বিরুদ্ধে তখন একাধিক মামলা হয়। অবৈধ অর্থ আয়ের অভিযোগ এনে দুদকের পক্ষ থেকেও একটি মামলা করা হয়েছিল। মামলায় ২ কোটি ৯৪ লাখ টাকার অবৈধ সম্পদের তথ্য দেওয়া হয়েছিল। এরপরই দুদকের কর্তকর্তারা সম্রাটের বিদেশে পাচার করা অর্থের সন্ধানে নামে।

অনুসন্ধানে একের পর এক আসতে থাকে চাঞ্চল্যকর তথ্য। জানা যায়, গত ৯ বছরে সম্রাট সিঙ্গাপুরে পাচার করেছেন ৩ কোটি ৬৫ লাখ সিঙ্গাপুরি ডলার, বাংলাদেশি টাকায় এর পরিমাণ ২২৬ কোটি ৩০ লাখ। এছাড়া মালয়েশিয়ার পাচার করেছেন ৪০ লাখ টাকা। খোঁজ পাওয়া এই ২২৭ কোটি টাকার বাইরে বিদেশে সম্রাটের আরো সম্পদ থাকতে পারে বলে ধারণা দুদকের।

দুদক সূত্রে জানা যায়, বিপুল পরিমাণ এই অর্থের অধিকাংশই খরচ করে ফেলেছেন সম্রাট। সিংহভাগ খরচ করেছেন সিঙ্গাপুরের সবচেয়ে বড় জুয়ার আসর মেরিনা বে-স্যান্ডস ক্যাসিনোতে। যেটুকু এখনো বাকি আছে, সেটুকু ফেরত আনতে সিঙ্গাপুর ও মালয়েশিয়ার সংশ্লিষ্ট দপ্তরে চিঠি পাঠাবে দুর্নীতি দমন কমিশন।

চট্টগ্রামের চার উপজেলায় ১০ প্লাটুন বিজিবি মোতায়েন করা হয়েছে
                                  

হেফাজতে ইসলামের আমির আল্লামা শাহ আহমদ শফীর নামাজে জানাজা সুষ্ঠুভাবে সম্পন্ন করতে চট্টগ্রামের চার উপজেলায় ১০ প্লাটুন বিজিবি মোতায়েন করা হয়েছে। আজ শনিবার সকাল থেকে জেলার হাটহাজারী, পটিয়া, রাঙ্গুনিয়া এবং ফটিকছড়িতে পরবর্তী নির্দেশ না দেওয়া পর্যন্ত বিজিবি সদস্যরা আইনশৃঙ্খলা রক্ষায় দায়িত্ব পালন করছেন। চট্টগ্রামের অতিরিক্ত জেলা ম্যাজিস্ট্রেট ড. বদিউল আলম বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন।

তিনি জানান, হেফাজতে ইসলামের আমির আল্লামা শাহ আহমদ শফীর মৃত্যু পরবর্তী পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণ ও তার জানাজা সুষ্ঠুভাবে সম্পন্ন করতে শনিবার সকাল থেকে চট্টগ্রামে ১০ প্লাটুন বিজিবি মোতায়েনের সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়। এর মধ্যে হাটহাজারীতে চার প্লাটুন, পটিয়ায় দুই, রাঙ্গুনিয়ায় দুই এবং ফটিকছড়িতে দুই প্লাটুন বিজিবি সদস্য মোতায়েন থাকবে। নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেটদের নেতৃত্বে বিজিবি সদস্যরা আইনশৃঙ্খলা বাহিনীকে সহায়তা করবে।

এর আগে গতকাল শুক্রবার রাতে হাটহাজারী, পটিয়া, রাঙ্গুনিয়া ও ফটিকছড়ি উপজেলায় বিজিবি মোতায়েন চেয়ে চট্টগ্রামের জেলা প্রশাসকের দায়িত্বে থাকা স্থানীয় সরকার বিভাগের উপপরিচালক ইয়াসমিন পারভিন তিবরীজি স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের জননিরাপত্তা বিভাগের সিনিয়র সচিব বরাবর চিঠি দেন। চিঠিতে হাটহাজারী উপজেলার জন্য চার প্লাটুন, বাকি তিন উপজেলার জন্য দুই প্লাটুন করে বিজিবি চাওয়া হয়।


এ ছাড়া আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীকে সহায়তার জন্য সাতজন নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেটকে দায়িত্ব দেওয়া হয়েছে অপর এক আদেশের মাধ্যমে। হাটহাজারী উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মো. রুহুল আমিন বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন।

তিনি বলেন, আইনশৃঙ্খলা পরিস্থিতি স্বাভাবিক রাখতে শনিবার সকাল থেকে বিজিবি মাঠে থাকবে। এ ছাড়া হাটহাজারীতে চারজন ম্যাজিস্ট্রেট দায়িত্বে থাকবেন। অপর তিন উপজেলায় তিন নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেটকে দায়িত্ব দেওয়া হয়েছে।

শুক্রবার সন্ধ্যায় ঢাকার গেন্ডারিয়ার আজগর আলী হাসপাতালে মারা যান শাহ আহমদ শফী, যিনি দীর্ঘদিন হাটহাজারী দারুল উলুম মুঈনুল ইসলাম মাদ্রাসার মহাপরিচালক ছিলেন। মাদ্রাসার একদল শিক্ষার্থীর বিক্ষোভের মুখে বৃহস্পতিবার রাতে ওই মাদ্রাসার মহাপরিচালকের পদ থেকে সরে দাঁড়ান আহমদ শফী।

পরে গুরুতর অসুস্থ শফীকে গভীর রাতেই চট্টগ্রাম মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। অবস্থার অবনতি হলে শুক্রবার বিকেলে তাকে হেলিকপ্টারে করে ঢাকার আজগর আলী হাসপাতালে নিয়ে যাওয়া হয়। সেখানেই সন্ধ্যায় তার মৃত্যু হয়। তার মরদেহ চট্টগ্রাম নিয়ে যাওয়া হচ্ছে এবং শনিবার বাদ জোহর জানাজা শেষে হাটহাজারী মাদ্রাসার নিজস্ব কবরস্থানে তার দাফন করার কথা রয়েছে।

অনুমতি ছাড়া মামলা করা যাবে না সরকারি কর্মকর্তাদের বিরুদ্ধে
                                  

সরকারি কর্মকর্তাদের বিরুদ্ধে অনুমতি ছাড়া মামলা করা যাবে না, এ সংক্রান্ত একটি চিঠি মন্ত্রিপরিষদ বিভাগ থেকে আইন ও বিচার বিভাগের সচিব বরাবর পাঠানো হয়েছে। এছাড়া চিঠিটির অনুলিপি দেওয়া হয়েছে প্রধানমন্ত্রীর মুখ্যসচিব, সব মন্ত্রণালয়ের সচিব, বিভাগীয় কমিশনার এবং জেলা প্রশাসকদের কাছে। নির্দেশনার ব্যাপারে যথাযথ পদক্ষেপ নেওয়ার জন্য অনুরোধ করা হয়েছে চিঠিতে।

চিঠিতে বলা হয়- ইদানীং লক্ষ্য করা যাচ্ছে, দেশের বিভিন্ন জায়গায় সরকারি কর্মকর্তাদের বিরুদ্ধে মামলা করা হচ্ছে। সরকারি দায়িত্ব পালন করার পর সেটা মনঃপূত না হওয়ায় অনেকে ব্যক্তিগতভাবে মামলা ঠুকে দিচ্ছেন। এতে করে আইন কার্যকর, শান্তি-শৃঙ্খলা রক্ষা এবং অপরাধ দমনে ব্যবস্থা গ্রহণ করতে গিয়ে বাধাগ্রস্ত হচ্ছেন দায়িত্বশীলরা। তাই সরকারি কর্মকর্তাদের নির্বিঘ্নে দায়িত্ব পালনের ব্যাপারে ব্যবস্থা নিতে হবে।

চলতি মাসের শুরুতেই এমন একটি ঘটনা ঘটেছে মাদারীপুরে। ড্রেজার পোড়ানোর অভিযোগ এনে ডিসি ড. রহিমা খাতুনসহ ৬ সরকারি কর্মকর্তার বিরুদ্ধে মামলা করেছেন স্থানীয় দুই ব্যবসায়ী। ইতোমধ্যে ওই মামলার তদন্ত শুরু হয়েছে। আর তাতে করে বিভিন্নভাবে সরকারি কাজ বাধাপ্রাপ্ত হচ্ছে।

অবশ্য সরকারি কর্মকর্তাদের বিরুদ্ধে অনুমতি ছাড়া মামলা না করতে পারার বিষয়টি নতুন কিছু নয়। অনেক আগে থেকেই এটা আইন দ্বারা সিদ্ধ। মন্ত্রিপরিষদ বিভাগ থেকে পাঠানো চিঠিতে সেটা মনে করিয়ে দেওয়া হয়েছে। ১৮৯৮ সালের ফৌজদারি কার্যবিধির সাব-সেকশন-১ অনুযায়ী- ‘ম্যাজিস্ট্রেট, বিচারক, সরকারি কর্মকর্তার দায়িত্ব পালনের পর সেই কাজের জন্য সরকারের অনুমতি ছাড়া তাদের বিরুদ্ধে মামলা করা যাবে না।’

একই কথা বলা আছে ১৮৫০ সালের ‘জুডিশিয়াল অফিসার্স প্রোটেকশন অ্যাক্ট’ এবং হালের মোবাইল কোর্ট আইন, ২০০৯-এর ১৪ নম্বর ধারায়। মন্ত্রিপরিষদ বিভাগ থেকে পাঠানো চিঠিতে এসব আইন উদ্ধৃত করে এ ব্যাপারে যথাযথ পদক্ষেপ নিতে বলা হয়েছে।

নরসিংদীতে চাঁদাবাজির মামলা ওসি-এসআইসহ তিনজনের বিরুদ্ধে
                                  

নরসিংদী মডেল থানার সাবেক ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মো. সৈয়দুজ্জামান (বর্তমানে মাধবদী থানার ওসি), উপপরিদর্শক (এসআই) মোস্তাক ও তাদের সোর্স সবুজ মিয়ার বিরুদ্ধে চাঁদাবাজি ও মারধরের অভিযোগে মামলা দায়ের হয়েছে। আজ রোববার জেলার চিফ জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট আদালতে ফার্নিচার ব্যবসায়ী হুমায়ুন কবির মুন্সি বাদী হয়ে এ মামলা দায়ের করেন।

বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন জেলা গোয়েন্দা পুলিশের (ডিবি) মিডিয়া উইং কর্মকর্তা উপপরিদর্শক রুপম কুমার সরকার। তিনি জানান, আদালত মামলাটি আমলে নিয়ে আগামী ১৮ অক্টোবরের মধ্যে পুলিশ ব্যুরো অব ইনভেস্টিগেশনকে (পিবিআই) তদন্ত করে প্রতিবেদন দাখিল করতে আদেশ দিয়েছেন।

মামলার বিবরণে উল্লেখ করা হয়, হুমায়ুন কবির মুন্সি ও তার ছেলে আতিক দীর্ঘদিন ধরে নরসিংদী শহরের বানিয়াছল বটতলা বাজারে কাঠের ফার্নিচারের ব্যবসা করে আসছেন। করোনাভাইরাসের কারণে দোকান বন্ধ রাখার ঘোষণা বাজারের ব্যবসায়ীদের জানা ছিল না। গত ২১ জুন সন্ধ্যার পর ফার্নিচারের দোকান খোলা রাখার অপরাধে হুমায়ুন কবিরের ছেলে আতিকসহ বিভিন্ন দোকান থেকে ছয়জনকে মারধর করে ধরে নিয়ে যান সদর থানার এসআই মোস্তাক ও পুলিশের কথিত সোর্স সবুজ।

দেশের সব উপজেলার নির্বাহী কর্মকর্তাদের নিরাপত্তায় আনসার নেওয়া হচ্ছে
                                  

দেশের সব উপজেলার নির্বাহী কর্মকর্তাদের জন্য আনসার সদস্যদের দিয়ে নিরাপত্তার ব্যবস্থা নেয়া হচ্ছে।

উত্তরের জেলা দিনাজপুরের ঘোড়াঘাট উপজেলার নির্বাহী কর্মকর্তা ওয়াহিদা খানমের ওপর হামলার ঘটনার প্রেক্ষাপটে প্রশাসনের মাঠের কর্মকর্তার নিরাপত্তার বিষয় আলোচনায় এসেছে।

প্রশাসনের কর্মকর্তাদের সমিতি বলেছে, এই হামলার ঘটনার অনেক আগে থেকেই মাঠ পর্যায়ের প্রশাসনের মুল কর্মকর্তাদের নিরাপত্তা নিয়ে উদ্বেগ ছিল।

নিরাপত্তার ঝুঁকি তৈরির ক্ষেত্রে রাজনৈতিক প্রভাব কাজ করে কিনা-সেই প্রশ্ন অনেকে তুলেছেন।

রাতের অন্ধকারে সরকারি বাসভবনের একেবারে বেডরুমে ঢুকে ঘোড়াঘাট উপজেলার নির্বাহী কর্মকর্তা ওয়াহিদা খানমের ওপর হামলার ঘটনার কারণ জানতে সময় প্রয়োজন বলে কর্মকর্তারা বলেছেন।

তবে এই ঘটনার প্রেক্ষাপটেই নিরাপত্তার প্রশ্ন সামনে এসেছে।

উত্তরের একটি জেলা বগুড়ার গাবতলী উপজেলার নির্বাহী কর্মকর্তা রওনক জাহান বলেছেন, মাঠ পর্যায়ে সরকারি বিভিন্ন সিদ্ধান্ত বাস্তবায়ন করতে গিয়ে বেশিরভাগ ক্ষেত্রেই স্বার্থন্বেষী অনেকে ক্ষুব্ধ হয় এবং সেজন্য নিরাপত্তার ঝুঁকিতে তারা পড়েন।

"আমরাতো কাজ করি মাঠ প্রশাসনের একেবারে সামনে থেকে। যে কোন ধরণের কেন্দ্রীয় সিদ্ধান্তগুলো আমরা যখন বাস্তবায়ন করতে যাই, সেখানে অনেকেই সংক্ষুব্ধ হয়ে যায়। তাতে আমাদের কিছু করার থাকে না। সেই জায়গা থেকে আসলে নিরাপত্তহীনতার প্রশ্নটা চলে আসে। এখানে যারা সংক্ষুব্ধ হয় বা বঞ্চিত হয়, তাদের মধ্য থেকেই বিষয়গুলো মাথা চাড়া দেয়।"

জনপ্রশাসন প্রতিমন্ত্রী ফরহাদ হোসেন জানিয়েছেন, এখন দেশের সব উপজেলার নির্বাহী কর্মকর্তা বা ইউএনওদের বাসভবনে আনসার ব্যাটালিয়নের পাঁচজন করে সদস্য দিয়ে নিরাপত্তার ব্যবস্থা সরকার নিচ্ছে।

তবে প্রশাসনের বিসিএস কর্মকর্তাদের সমিতির নেতারা জানিয়েছেন, এখনকার হামলার ঘটনার অনেক আগে ২০১৮ সালে জেলা প্রশাসকদের সম্মেলনে ইউএনওদের জন্য নিরাপত্তা ব্যবস্থা নেয়ার দাবি এসেছিল এবং প্রধানমন্ত্রীও ব্যবস্থা নেয়ার নির্দেশ দিয়েছিলেন।

বাংলাদেশ অ্যাডমিনিস্ট্রেটিভ সার্ভিস এসোসিয়শনের সভাপতি ও স্থানীয় সরকার মন্ত্রণালয়ের সিনিয়র সচিব হেলালুদ্দীন আহমেদ বলেছেন, বিভিন্ন সময় ইউএনও`র অফিস বা গাড়ি ভাঙচুরের মতো ঘটনায় নিরাপত্তার প্রশ্ন এসেছে। তবে এখন হমলায় ঘটনায় বিষয়টি আবার উঠেছে বলে তিনি উল্লেখ করেছেন।

"সরকারের বিভিন্ন আদেশ নির্দেশ পালন করতে গিয়ে মোবাইল কোর্ট করা এবং এলাকায় যারা সন্ত্রাসী কর্মকাণ্ড করে বা বালুমহাল, জলমহালসহ সরকারি জায়গা যারা অবৈধভাবে দখল করে থাকে, এদের বিরুদ্ধে ইউএনও আইনগত ব্যবস্থা নিয়ে থাকে। এসব বিভিন্ন কারণে ইউএনও`র অফিস বা গাড়ি ভাঙচুর করা, ইউএনও`র সাথে রাগারাগি করা বা গালাগালি করা বা অফিসে হামলা করা- বিভিন্ন সময় বিভিন্নভাবে হয়েছে এসব। আমাদের কাছে নজির আছে।"

হেলালুদ্দীন আহমেদ আরও বলেছেন, "এই প্রথম দেখলাম যে, ইউএনও`র বাসভবনে রাতে প্রবেশ করে ইউএনওকে হত্যার উদ্দেশ্যে তাকে আঘাত করা হয়েছে। তখন এই নিরাপত্তার বিষয়গুলো সামনে চলে আসে।"

মন্ত্রী পরিষদ বিভাগের সাবেক একজন সচিব আলী ইমাম মজুমদার আশির দশকের শুরুতে বিভিন্ন উপজেলায় সাত বছর ইউএনও হিসাবে কাজ করেছেন। তিনি মনে করেন, সময়ের সাথে সাথে মাঠ প্রশাসনের কাজের ক্ষেত্রে নিরাপত্তা ঝুঁকি বেড়েছে।

"আমরা কাজ করেছিতো। তখন পরিবেশটা এরকম ছিল না। এখন সন্ত্রাসের প্রেক্ষাপট সারা পৃথিবীতেই ব্যাপকভাবে পরিবর্তন হয়েছে। এটার প্রতিফলন আমাদের সমাজেও ঘটেছে। ক্ষোভ তখনও ছিল। কিন্তু ক্ষোভ প্রকাশের অভিব্যক্তিটা বর্তমানে অনেকটা হিংসাশ্রয়ী হয়ে গেছে। আমরা যখন ছিলাম, আমরাতো পুলিশ ছাড়াই এ জাতীয় অনেক কাজ করেছি। কিন্তু এখন পুলিশকে নিলে পুলিশকেও হামলা করে।"

নিরাপত্তা ঝুঁকির পেছনে অনেক ক্ষেত্রে রাজনৈতিক প্রভাব বিশেষ করে ক্ষমতাসীন দলের প্রশ্রয় দেয়ার অভিযোগ ওঠে।

হেলালুদ্দীন আহমেদ বলেছেন, নিরাপত্তার ঝুঁকি যারা তৈরি করে, তারা অনেকে রাজনীতিকে ব্যবহার করে।

"যারা ধরেন প্রভাবশালী বা যারা অবৈধ কাজ করে, তারা কিন্তু রাজনীতি তাদের উদ্দেশ্য না, তারা রাজনীতিকে ব্যবহার করে। তারা যাতে এই অবৈধ কাজগুলো করতে পারে, তখন তারা বিভিন্ন রাজনৈতিক ব্যানারে সামনে চলে আসে। তারা সন্ত্রাসী হোক বা চর দখলকারি হোক- তারা রাজনৈতিক ব্যানারে কাজগুলো করতে থাকে।"

ঘোড়াঘাটে ইউএনও`র ওপর হামলার ঘটনায় সন্দেহভাজন আটকদের কেউ কেউ যুবলীগের সাথে সম্পৃক্ত ছিল বলে পুলিশ বলেছে।

বিষয়টাতে সরকারের একাধিক মন্ত্রীকেও কথা বলতে হয়েছে।

তারা বলেছেন, হামলাকারির বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেয়ার ক্ষেত্রে কোন রাজনৈতিক পরিচয় বিবেচনায় নেয়া হবে না। বিবিসি

পরিবেশ দূষণের দায়ে ২টি কারখানা বন্ধ সহ ৮ লক্ষ টাকা জরিমানা করেছে পরিবেশ অধিদপ্তর
                                  

পরিবেশ অধিদপ্তর আজ ২ সেপ্টেম্বর অভিযান চালিয়ে ঢাকা উত্তরখানের নেহা এন্টারপ্রাইজ (ব্যাটারী কারখানা), -কে ৬ লক্ষ টাকা এবং সেভেন ওয়ান প্লাস্টিক ইন্ডাট্রিজ লিঃ ২ লক্ষ টাকা জরিমানা করেছে। বিদ্যুৎ সংযোগ বিচ্ছিন্ন করার মাধ্যমে অবৈধ কারখানা দুটির উৎপাদনও বন্ধ করে দেয়া হয়েছে। পরিবেশ অধিদপ্তরের মনিটরিং এন্ড এনফোর্সমেন্ট উইং এর এক্সিকিউটিভ ম্যাজিস্ট্রেট কাজী তামজীদ আহমেদ এর নেতৃত্বে আজ ঢাকা মহানগর, উত্তরখানের বেপারীপাড়া এলাকায় নদী দূষণ ও দখলের বিরুদ্ধে চলমান অভিযানের অংশ হিসেবে পরিবেশগত ছাড়পত্রবিহীন এবং তরল বর্জ্য পরিশোধনাগার (ইটিপি) বিহীন ব্যাটারী তৈরীর কারখানা ও প্লাস্টিক রিসাইক্লিং কারখানার বিরুদ্ধে মোবাইল কোর্ট পরিচালনা করে এ জরিমানা করা হয়।

 

অভিযান পরিচালনাকালে পরিবেশ অধিদপ্তর, সদর দপ্তর, ঢাকার মনিটরিং এন্ড এনফোর্সমেন্ট উইং এর এক্সিকিউটিভ ম্যাজিস্ট্রেট কাজী তামজীদ আহমেদ জানান, পরিবেশ অধিদপ্তরের মহাপরিচালক মহোদয়ের নির্দেশনায় দূষণকারী শিল্প প্রতিষ্ঠানের বিরুদ্ধে পরিবেশ অধিদপ্তরের অভিযান অব্যাহত থাকবে। এ অভিযানে তাঁকে সার্বিক সহযোগিতা করেন পরিবেশ অধিদপ্তর ঢাকা মহানগর কার্যালয়ের সহকারী পরিচালক সাইফুল আশ্রাব পরিবেশ অধিদপ্তর, মনিটরিং এন্ড এনফোর্সমেন্ট উইং এর পরিদর্শক মোঃ মির্জা আসাদুল কিবরিয়া। এছাড়া আইন শৃঙ্খলা রক্ষায় ডিএমপির রিজার্ভ পুলিশ ফোর্স সহযোগিতা করেন।

উল্লেখ্য, পরিবেশগত ছাড়পত্রবিহীন এ সকল ব্যাটারী কারখানা হতে সৃষ্ট এসিড মিশ্রিত ঝুঁকিপূর্ণ তরল বর্জ্য এবং প্লাস্টিক রিসাইক্লিং কারখানা হতে সৃষ্ট স্লাজ মিশ্রিত অপরিশোধিত ঝুঁকিপূর্ণ তরল বর্জ্য ড্রেনের মাধ্যমে অপরিশোধিত অবস্থায় তুরাগ নদীতে নির্গমনের মাধ্যমে প্রতিবেশগত সংকটাপন্ন এলাকা হিসাবে ঘোষিত তুরাগ নদীকে ব্যপকভাবে দূষিত করছিল। মহামান্য হাইকোর্ট বিভাগের আদেশে তুরাগ নদীকে জীবন্ত সত্তা/আইনি সত্তা হিসাবে ঘোষণা করে সংশ্লিষ্ট অধিদপ্তরকে এ নদী দূষণ ও দখলমুক্ত রাখার নির্দেশ দিয়েছেন । অবৈধ কারখানাসমূহ বন্ধ করলে এলাকাবাসী সন্তোষ প্রকাশ করেন।

তথ্যসূত্র: 

দীপংকর বর,

সিনিয়র তথ্য অফিসার,

পরিবেশ, বন ওজলবায়ু পরিবর্তন মন্ত্রণালয়।

শাহেদের অ্যাকাউন্টে ৯১ কোটি ৭০ লাখ টাকার লেনদেনের তথ্য পেয়েছে সিআইডি
                                  

কেঁচো খুঁড়তে গিয়ে একের পর এক সাপ বেরিয়ে আসছে। রিজেন্ট হাসপাতালের অনিয়ম নিয়ে প্রতিষ্ঠানটির চেয়ারম্যান মোহাম্মদ শাহেদ করিমকে জিজ্ঞাসাবাদ শুরু করে আইনশৃঙ্খলা বাহিনী। অনুসন্ধানে তার যে পরিমাণ ব্যাংক হিসাবের সন্ধান পাওয়া গেছে এবং সেগুলোতে যে পরিমাণ অর্থের লেনদেন হয়েছে তাতে করে এবার তার বিরুদ্ধে অর্থ পাচার মামলার সিদ্ধান্ত নিয়েছে পুলিশের অপরাধ তদন্ত বিভাগ (সিআইডি)।

সিআইডির অনুসন্ধানে বেরিয়ে এসেছে নামে-বেনামে শাহেদের ৪৩টি ব্যাংক অ্যাকাউন্ট! এমন প্রতিষ্ঠানের নামে অ্যাকাউন্ট খোলা হয়েছে, যেগুলোর অস্তিত্ব নেই। অথচ প্রতিষ্ঠানের ভুয়া পরিচিতি এবং ঠিকানা দিয়ে নিজেকে ওইসব প্রতিষ্ঠানের চেয়ারম্যান হিসেবে নথিভুক্ত করা হয়েছে। এসব অ্যাকাউন্টে ৯১ কোটি ৭০ লাখ টাকার লেনদেনের তথ্য পেয়েছে সিআইডি। ৯০ কোটি ৪৭ লাখ টাকা ইতোমধ্যেই তুলে নেওয়া হয়েছে।

অনুসন্ধানে বেরিয়ে এসেছে আলাদা আলাদা হিসেব। সিআইডির তথ্য মতে, গত ৫ বছরে বিভিন্ন ব্যক্তি বা প্রতিষ্ঠান থেকে শাহেদ করিম আত্মসাৎ করেছেন ১১ কোটি টাকারও বেশি। এর মধ্যে ২০১৭ সালের জানুয়ারি থেকে জুলাই পর্যন্ত তার অ্যাকাউন্টে জমা পড়েছে ৭ কোটি ৯০ লাখ টাকা। এছাড়া শুধু করোনার ভুয়া পরীক্ষা এবং জাল সনদ প্রদান করে মানুষের কাছ থেকে হাতিয়ে নিয়েছেন ৩ কোটি ১১ লাখ টাকা।

এসব তথ্য উদঘাটনের পর এবার পুলিশের তদন্ত বিভাগ তথা সিআইডি শাহেদের বিরুদ্ধে অর্থপাচার আইনে নতুন মামলা করার সিদ্ধান্ত নিয়েছে। জানা গেছে, শিগগিরই মামলাটি করা হবে উত্তরা পশ্চিম থানায়।

চেকপোস্টে দ্রুত সিসিটিভি এবং বডি ওর্ন ক্যামেরা ব্যবহারের তাগিদ
                                  

টেকনাফের বাহারছড়া ইউনিয়নের শামলাপুর চেকপোস্টে সেনাবাহিনীর অবসরপ্রাপ্ত মেজর সিনহা মোহাম্মদ রাশেদ খান হত্যাকাণ্ডের ঘটনায় এখনো তোলপাড় চলছে। কী এমন ঘটেছিল ওই চেকপোস্টে, যার কারণে প্রাণ দিতে হলো অবসরপ্রাপ্ত একজন মেজরকে- এই জিজ্ঞাসা সকলের। অপরাধ বিশেষজ্ঞরা বলছেন, চেকপোস্টে সিসি ক্যামেরা থাকলে তদন্তে এত অর্থ কিংবা সময় ব্যয় হতো না।

পুলিশের পক্ষ থেকে প্রথমে বলা হয়েছিল, মেজর সিনহা আগে গুলি করতে উদ্যত হয়েছিলেন, বাধ্য হয়ে পুলিশ তাকে লক্ষ্য করে গুলি ছোঁড়ে। কিন্তু র‌্যাবের তদন্তে বেরিয়ে এসেছে, ওই সময় কোনো অস্ত্রই ছিল না সিনহার হাতে। সম্পূর্ণ বিপরীত এই বক্তব্যই বুঝিয়ে দিচ্ছে সিসি ক্যামেরার গুরুত্ব। মেজর সিনহার হত্যাকাণ্ডের পর এর গুরুত্ব অনুধাবন করতে পারছে সরকার।

পুলিশ সদর দপ্তরের একটি সূত্র জানিয়েছে, দেশের সকল চেকপোস্ট সিসিটিভির আওতায় আনার জন্য একটি প্রস্তাব ইতোমধ্যেই স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ে জমা দেওয়া হয়েছে। গুরুত্ব বিবেচনায় দ্রুতই এর অনুমোদন দেওয়া হবে। চেকপোস্টের এসব অনাকাঙ্খিত ঘটনা নিয়ে পুলিশও আর দুর্নামের ভাগীদার হতে চায় না।

উন্নত বিশ্বে শুধু সিসি ক্যামেরা নয়, এসব ক্ষেত্রে পুলিশ সদস্যদের জন্য থাকে ‘বডি ওর্ন ক্যামেরা’। তাতে করে পুলিশের সব আচরণ এমনকি কথাবার্তাও রেকর্ড হয়ে যায়। মেজর সিনহার ঘটনার পর সরকার এই বডি ওর্ন ক্যামেরার কথাও ভাবছে। কারণ বিচারের ক্ষেত্রে প্রত্যক্ষ বা পরোক্ষ সাক্ষী-প্রমাণের চেয়ে প্রযুক্তিগত এসব পর্যবেক্ষণ অনেক বেশি শক্তিশালী।

কক্সবাজারের ঘটনার পর অপরাধ বিশেষজ্ঞরা দ্রুত সিসিটিভি এবং বডি ওর্ন ক্যামেরার ব্যবহার শুরু করার তাগিদ দিয়েছেন। সরকারি সূত্রও জানিয়েছে, শিগগিরই সব চেকপোস্টে সিসিটিভি বসবে। এছাড়া বডি ওর্ন ক্যামেরার কথাও আছে বিবেচনায়। তবে এর আগে সীমিত আকারে ট্রাফিক পুলিশদেরকে বডি ওর্ন ক্যামেরা দেওয়া হয়েছিল, কিন্তু দেখা গেছে দায়িত্ব পালনের সমস তারা সেটি বন্ধ করে রাখে।

মেজর সিনহা হত্যায় তদন্তকারী কর্মকর্তার পরিষ্কার তথ্যচিত্র সংগ্রহ
                                  

অবসরপ্রাপ্ত মেজর সিনহা মোহাম্মদ রাশেদ খান হত্যার ঘটনা সম্পর্কে মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা একটি পরিষ্কার তথ্যচিত্র পেয়েছেন বলে জানিয়েছেন র‌্যাবের আইন ও গণমাধ্যম শাখার মুখপাত্র লে. কর্ণেল আশিক বিল্লাহ। গতকাল বুধবার রাত ১০টার দিকে কক্সবাজারে র‌্যাব-১৫ এর কার্যালয়ে আয়োজিত এক সংবাদ সম্মেলনে তিনি এ কথা জানান।

লে. কর্ণেল আশিক বিল্লাহ বলেন, গ্রেপ্তারকৃত আসামিদের রিমান্ড জিজ্ঞাসাবাদ, প্রত্যক্ষদর্শীর বক্তব্য, আলামতসহ সংশ্লিষ্ট সামগ্রিক কিছু নিয়ে এই মামলাটির তদন্ত কার্যক্রম এগিয়ে চলছে। রিমান্ডে থাকা আসামিরা চাঞ্চল্যকর ও গুরুত্বপূর্ণ তথ্য দিয়েছেন। চারজন পুলিশ সদস্য এবং তিনজন স্বাক্ষীর রিমান্ড শেষ হয়েছে।

আজ বৃহস্পতিবার আসামিদের বিজ্ঞ আদালতে সোপর্দ করার পর পরবর্তী সময়ে তদন্তকারী কর্মকর্তা তাদের রিমান্ডে আনার প্রয়োজন মনে করলে পুনরায় তাদের রিমান্ডে আনার জন্য আবেদন হবে বলে জানান র‌্যাবের এই কর্মকর্তা। তিনি বলেন, প্রাপ্ত তথ্য যাচাই-বাছাই করে তদন্তের কার্যক্রম আরও এগিয়ে নেওয়া হবে। তবে তদন্তের স্বার্থে তাদের দেওয়া তথ্য আপাতত প্রকাশ করা যাবে না।

আশিক বিল্লাহ বলেন, ‌‌`রামু থানায় নীলিমা রিসোর্ট থেকে উদ্ধার ২৯টি উপকরণ জিডিমূলে সংরক্ষিত আছে। সিনহা ও শিপ্রার ব্যবহৃত সকল ব্যক্তিগত ডিভাইস, ২৯টি উপকরণ তদন্তকারী কর্মকর্তা বৃহস্পতিবার গ্রহণ করবেন বলে আমরা আশা করছি।`

এক প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, গত ২৫ তারিখ থেকে থেকে ৬ আগস্ট তারিখ তারিখ পর্যন্ত সময়ের টেকনাফ থানার সিসিটিভি ফুটেজ পাওয়ার জন্য আদালতের কাছে আবেদন করেন তদন্তকারী কর্মকর্তা। আদালত সেসব উপকরণ তদন্তকারী কর্মকর্তার হেফাজতে নেওয়ার অনুমতি দিয়েছেন। এর পরিপ্রেক্ষিতে টেকনাফ থানা থেকে সিসিটিভি ফুটেজ চাওয়া হলে কারিগরি ত্রুটির কারণে ফুটেজ উদ্ধার করা সম্ভব হয়নি।

ডোপ টেস্ট পজিটিভ হলেই চলে যাবে পুলিশের চাকরি
                                  

পুলিশ সদস্যদের মধ্যে যাদের মাদকসেবী হিসেবে সন্দেহ হবে, তাদের ডোপটেস্ট করা হবে। আর এই ডোপটেস্টের রেজাল্ট পজিটিভ হলে তাকে চাকরি হারাতে হবে। ঢাকা মহানগর পুলিশ (ডিএমপি) কমিশনার মোহা. শফিকুল ইসলাম এমনই সতর্কবার্তা দিয়েছেন।

রোববার রাজারবাগ পুলিশ অডিটরিয়ামে আয়োজিত ডিএমপির মাসিক অপরাধ সভায় তিনি পুলিশ সদস্যদের এ বার্তা দেন।

শফিকুল ইসলাম বলেন, মাদকের সঙ্গে সম্পৃক্ত পুলিশ সদস্যদের বিরুদ্ধে গোয়েন্দা নজরদারি করা হচ্ছে। মাদকের বিরুদ্ধে যে উদ্দেশ্য ও শক্তি নিয়ে কাজ করা হচ্ছে, তা অব্যাহত থাকবে।

ডিএমপি প্রধান পথশিশুদের মধ্যে যারা মাদক ও ড্যান্ডি খাচ্ছে, তাদের দিকে বিশেষভাবে লক্ষ রাখতে হবে। কারণ ভবিষ্যতে বড় হয়ে তাদের ছিনতাইসহ নানা অপরাধমূলক কাজে জড়িয়ে পড়ার সম্ভাবনা আছে। শিশুদের কাছে জুতার সলুশন আঠা বিক্রি না করতে সংশ্লিষ্টদের কঠোরভাবে সতর্ক করার নির্দেশও দেন তিনি।ডিএমপির লোগো

তিনি জানান, বিট পুলিশিং এবং যেসব মাদক ব্যবসায়ী গ্রেপ্তার হয়েছে, তাদের কাছ থেকে প্রাপ্ত তথ্য কাজে লাগিয়ে মাদকসেবীদের তালিকা করা হবে। সেই তালিকা থেকে মাদকসেবীদের পুনর্বাসনে সহাযোগিতা করবে পুলিশ।

ডিএমপি কমিশনার আরো বলেন, ঢাকা মহানগর পুলিশের মনিটরিং সেলের মাধ্যমে বিভিন্ন থানায় সেবা প্রত্যাশীদের সঙ্গে যোগোযোগ করে দেখা যাচ্ছে যে, মামলা ও জিডি গ্রহণের ক্ষেত্রে পুলিশের আচরণে জনগণ সন্তোষ প্রকাশ করছে। এটা যেমন ধরে রাখতে হবে, তেমনি সেবার মান আরো বাড়াতে হবে।

এ ছাড়াও ঢাকা মহানগরীতে সংঘটিত হত্যা, ডাকাতি ও ছিনতাই মামলার ডিটেকশনের পরিমাণ অনেক ভালো বলেও জানান ঢাকা মহানগর পুলিশের প্রধান।

গেল জুলাই মাসে যেসব পুলিশ সদস্য ভালো কাজ করেছেন, মাসিক অপরাধ সভায় স্বীকৃতিস্বরূপ তাদের বিভিন্ন ক্যাটাগরিতে পুরস্কৃত করা হয়। সভায় বিজয়ীদের হাতে পুরস্কার তুলে দেন ডিএমপি কমিশনার শফিকুল ইসলাম।

ফরিদগঞ্জে ওয়ারেন্টের ভুক্ত দুই আসামি গ্রেফতার
                                  

এস.এম ইকবাল:

ফরিদগঞ্জে ওয়ারেন্ট ভুক্ত দুই আসামীকে ১৩ আগষ্ট  বৃহস্পতিবার রাতে মো.ফয়সাল ও জসিম উদ্দিন  নামে  দুই আসামীকে আটক করেছে ফরিদগঞ্জ থানা পুলিশ ।

ফরিদগঞ্জ থানার অফিসার ইনচার্জ আব্দুর রকিবের নির্দেশে এসআই নুরুল ইসলাম সঙ্গিয় ফোর্সসহ  জিআর ২৩/১৮ এর ওয়ারেন্ট ভুক্ত আসমী পৌর এলাকার চর বড়ালী গ্রামের মো. হোসেনের ছেলে মাদক ব্যবসায়ী মো. ফয়সাল(২৭) ও জিরআর ৩৩৯/১৮ এর ওয়ারেন্ট ভুক্ত আসমী কাচিয়াড়া এলাকার আঃ হক পাটওয়ারীর ছেলে মাদক ব্যবসায়ী মো.জসিম উদ্দিন(৪০)কে আটক করেছে।

ফরিদগঞ্জ থানার ওসি মো: আব্দুর রকিব জানান, ওয়ারেন্ট ভুক্ত দুই আসামীকে আটক করো আদালতে প্রেরন করা হয়েছে।

মীরজাদি সেব্রিনা ফ্লোরা স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের অতিরিক্ত মহাপরিচালক
                                  

স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের অতিরিক্ত মহাপরিচালক (প্রশাসন) হয়েছেন অধ্যাপক মীরজাদি সেব্রিনা ফ্লোরা। এর আগে তিনি আইইডিসিআরের পরিচালক ছিলেন।

মীরজাদী সেব্রিনা ফ্লোরা ২০১৬ সালে রোগতত্ত্ব, রোগ নিয়ন্ত্রণ ও গবেষণা ইনস্টিটিউটের পরিচালক হিসেবে নিয়োগ পান। পরিচালক হিসেবে নিয়োগ পাওয়ার পর তিনি বাংলাদেশের বিভিন্ন গুরুত্বপূর্ণ স্থানে মহামারি সৃষ্টিকারী ভাইরাস ও রোগ বিস্তার প্রতিরোধে বিভিন্ন নিরাপত্তা ব্যবস্থা নিয়ে গবেষণা করেন।

মীরজাদী সেব্রিনা ফ্লোরা ১৯৮৩ সালে ঢাকা মেডিকেল কলেজে ভর্তি হন। ঢাকা মেডিকেল কলেজ থেকে এমবিবিএস ডিগ্রি লাভ করার পর বেশ কিছু প্রতিষ্ঠানে কাজ করেন। পরে জাতীয় প্রতিষেধক ও সামাজিক চিকিৎসা প্রতিষ্ঠান (নিপসম) থেকে রোগতত্ত্বে স্নাতকোত্তর ডিগ্রি লাভ করেন।

এরপর তিনি বাংলাদেশ মেডিকেল রিসার্চ কাউন্সিলে সহকারী পরিচালক হিসেবে যোগদান করে তিন বছর গবেষণা করেন। তিনি নিপসমে সহকারী অধ্যাপক হিসেবে যোগদান করেন। পরে কেমব্রিজ বিশ্ববিদ্যালয় থেকে পিএইচডি ডিগ্রি লাভ করেন। তিনি ইন্টারন্যাশনাল এসাসিয়েশন অব দ্য ন্যাশনাল পাবলিক হেল্‌থ ইনস্টিটিউটের সহ-সভাপতি হিসেবেও দায়িত্ব পালন করছেন।

আরো এক পরিচালককে বদলি করে স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের
                                  

স্বাস্থ্যখাতের অনিয়মের বিরুদ্ধে কঠোর অবস্থানে রয়েছে সরকার। সেই ধারাবাহিকতায় এবার স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের আরো এক পরিচালককে বদলি করা হলো। রোববার স্বাস্থ্যসেবা বিভাগের এক প্রজ্ঞাপনে তথ্যটি নিশ্চিত করা হয়েছে।

সেখানে বলা হয়, স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের পরিচালক (প্রশাসন) ডা. মো. বেলাল হোসেনকে বদলির আদেশ দেয়া হলো। তার জায়গায় নতুন পরিচালক হিসেবে যোগ দেবেন ডা. শেখ মোহাম্মদ হাসান।

নিয়োগপ্রাপ্ত নতুন পরিচালক ডা. শেখ মোহাম্মদ হাসান ইমাম ঢাকা বিভাগের স্বাস্থ্য পরিচালকের কার্যালয়ে পরিচালক হিসেবে কর্মরত ছিলেন।

স্বাস্থ্যসেবা বিভাগের উপসচিব শারমিন আকতার জাহান স্বাক্ষরিত প্রজ্ঞাপনে আরো উল্লেখ করা  হয়েছে, ডা. মো. বেলাল হোসেন এখন থেকে ঢাকা বিভাগের স্বাস্থ্য পরিচালকের কার্যালয়ে যোগ দেবেন। পদায়ণকৃত কর্মকর্তাকে আগামী তিন কার্যদিবসের মধ্যে বদলিকৃত কর্মস্থলে যোগদান করতে হবে। নয়তো চতুর্থ কর্মদিবসে বর্তমান কর্মস্থল থেকে তাকে তাৎক্ষণিক অব্যাহতি দেয়া হবে।

ডিসি-এডিসিসহ ঊর্ধ্বতন ৬ কর্মকর্তাকে বদলি
                                  

ঢাকা মেট্রোপলিটন পুলিশের (ডিএমপি) মিরপুর বিভাগের ঊর্ধ্বতন ৬ কর্মকর্তাকে বদলি করা হয়েছে। শনিবার ডিএমপি কমিশনার মোহা. শফিকুল ইসলাম স্বাক্ষরিত দুইটি পৃথক অফিস আদেশে তাদের বদলির কথা বলা হয়।

সেখানে বলা হয়, পরবর্তী নির্দেশ না দেয়া পর্যন্ত মিরপুর বিভাগের উপ-কমিশনার (ডিসি) মোস্তাক আহমেদকে ডিএমপির প্রোটেকশন বিভাগে, পল্লবী জোনের অতিরিক্ত উপ-কমিশনার (এডিসি) মো. মিজানুর রহমানকে ডিএমপির অপারেশন্স বিভাগে এবং সহকারী পুলিশ কমিশনার (এসি) মো. ফিরোজ কাউছারকে ডিএমপির ওয়েলফেয়ার ও স্পোর্টস বিভাগে স্থানান্তরিত করা হলো।

অপর এক আদেশে পল্লবী থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মো. নজরুল ইসলামকে প্রসিকিউশন বিভাগে, পল্লবীর ইন্সপেক্টর-তদন্ত অফিসার মোহাম্মদ আবদুল মাবুদ গোয়েন্দা-লালবাগ বিভাগে এবং ইন্সপেক্টর-অপারেশন্স অফিসার মোহাম্মদ এমরানুল ইসলামকে গোয়েন্দা ওয়ারী বিভাগে স্থানান্তরিত করা হয়েছে। একইসঙ্গে তা অবিলম্বে কার্যকরের নির্দেশ দেয়া হয়েছে।

ওসি প্রদীপ কুমার দাশসহ সাত আসামিকে চাকরি থেকে বরখাস্ত
                                  

বাংলাদেশ সেনাবাহিনীর অবসরপ্রাপ্ত মেজর সিনহা মোহাম্মদ রাশেদ খান হত্যা মামলার আসামি ওসি প্রদীপ কুমার দাশসহ সাত আসামিকে চাকরি থেকে বরখাস্ত করা হয়েছে। শুক্রবার রাত ৯টার দিকে গণমাধ্যমকে তথ্যটি নিশ্চিত করেছেন কক্সবাজার জেলা পুলিশ সুপার এবিএম মাসুদ হোসেন।

তিনি বলেন, ওসি প্রদীপ কুমার দাশ ও পরিদর্শক লিয়াকত আলীকে সরাসরি পুলিশ সদর দপ্তর থেকে বরখাস্ত করা হয়েছে। এ ছাড়া এসআই নন্দলাল রক্ষিত, কনস্টেবল সাফানুর করিম, কনস্টেবল কামাল হোসেন, কনস্টেবল আবদুল্লাহ আল মামুন ও এএসআই লিটন মিয়াকে পুলিশ সুপার নিজে বরখাস্ত করেছেন।

এবিএম মাসুদ হোসেন বলেন, হত্যাকাণ্ডের ঘটনায় দায়ের করা মামলায় টেকনাফের সিনিয়র জুডিসিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট আদালত কর্তৃক কক্সবাজার জেলা পুলিশের ৭ সদস্যের জামিন আবেদন নাকচ করে তাদের জেলে পাঠানোর বিষয়টি গত ৬ আগস্ট সন্ধ্যায় পুলিশ অবহিত হয়।

এরপরই প্রদীপ কুমার দাশ ও লিয়াকত আলী ইন্সপেক্টর হওয়ায় তাদের পুলিশ সদর দপ্তর থেকে বরখাস্ত করা হয়। বাকি ৫ আসামি এসআই নন্দলাল রক্ষিত, কনস্টেবল সাফানুর করিম, কনস্টেবল কামাল হোসেন, কনস্টেবল আবদুল্লাহ আল মামুন ও এএসআই লিটন মিয়াকে নিজ ক্ষমতাবলে তাৎক্ষণিক চাকরি থেকে বরখাস্ত করেছেন পুলিশ সুপার।

এর আগে গতকাল বৃহস্পতিবার ওসি প্রদীপসহ ৭ আসামি কক্সবাজার সিনিয়র জুডিসিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট আদালতে আত্মসমর্পণ করেন। তখন র‌্যাবের পক্ষ থেকে ১০ দিনের রিমান্ড আবেদন করা হয়। শুনানি শেষে প্রথমে ওসি প্রদীপসহ তিন জনকে সাত দিন করে রিমান্ড মঞ্জুর করেন আদালত এবং বাকি চার আসামিকে দুদিন করে জেলগেটে জিজ্ঞাসাবাদ করার অনুমতি দেন। পরে র‌্যাবের আরেক আবেদনের প্রেক্ষিতে আদালত সাত আসামিকেই সাত দিন করে রিমান্ড দেন।

সাবেক সেনা কর্মকর্তা মেজর সিনহা হত্যা মামলায় ওসি প্রদীপ গ্রেপ্তার
                                  

সাবেক সেনা কর্মকর্তা মেজর সিনহা মোহাম্মদ রাশেদ খান নিহতের ঘটনায় দায়ের হওয়া হত্যা মামলায় টেকনাফ থানার ওসি প্রদীপ কুমার দাস (৪৮) গ্রেপ্তার করে হেফাজতে নিয়েছে চট্টগ্রাম মেট্রোপলিটন পুলিশের (সিএমপি)। বিশেষ নিরাপত্তায় বর্তমানে তাকে কক্সবাজার নিয়ে যাওয়া হচ্ছে। সেখানে প্রদীপ কুমার আত্মসমর্পণ করবেন বলে জানা গেছে।

আজ বৃহস্পতিবার চট্টগ্রাম থেকে তাকে হেফাজতে নেওয়া হয়। সিএমপি কমিশনার মো. মাহাবুবর রহমান গণমাধ্যমকে এ তথ্য নিশ্চিত করেছেন।

প্রসঙ্গত, পুলিশের গুলিতে সাবেক মেজর সিনহা নিহতের ঘটনায় তার বড় বোন শারমিন শাহরিয়া যে হত্যার মামলা দায়ের করেছেন, তাতে দুই নম্বর আসামি প্রদীপ কুমার। টেকনাফ উপজেলা জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট তামান্না ফারহার আদালতে ৯ পুলিশ সদস্যকে আসামি করে মামলা করেন তিনি। এর আগে বুধাবার রাতে ওসি প্রদীপ ও পরিদর্শক লিয়াকতসহ ৯ জনের বিরুদ্ধে গ্রেপ্তারি পরোয়ানা জারি করেন আদালত।

এ ছাড়া গতকাল বুবধবার রাতে ওসি প্রদীপকে প্রত্যাহার করা হয়। এ নিয়ে এ হত্যাকাণ্ডের মোট ২১ জনকে প্রত্যাহার করা হয়েছে বলে জানা গেছে।

গত ৩১ জুলাই রাতে কক্সবাজার-টেকনাফ মেরিন ড্রাইভের বাহারছড়া ইউনিয়নের শামলাপুর চেকপোস্টে পুলিশের গুলিতে নিহত হন সিনহা রাশেদ। পুলিশের পক্ষ থেকে ওই সময় বলা হয়, রাশেদ সিনহা তার পরিচয় দিয়ে ‘তল্লাশিতে বাধা দেন’। এর পর তিনি ‘পিস্তল বের করলে’ দায়িত্বরত পুলিশ তাকে গুলি করে। ঘটনাস্থল থেকে অস্ত্র ও মাদক উদ্ধারের কথাও জানায় পুলিশ। এ নিয়ে পুলিশের পক্ষ থেকেও মামলা করা হয়েছে।

সিনহা ২০১৮ সালে সৈয়দপুর সেনানিবাসে থাকা অবস্থায় স্বেচ্ছায় অবসরে যান। ৫১ বিএমএ লং কোর্সে অংশ নিয়ে সেনাবাহিনীতে কমিশন পেয়েছিলেন তিনি। অবসরে যাওয়ার পর থেকে সিনহা ভ্রমণ বিষয়ক একটি ডকুমেন্টারি বানানোর কাজ করছিলেন। ‘লেটস গো’ নামে ওই ডকুমেন্টারির কাজেই গত এক মাস ধরে কক্সবাজারের হিমছড়ি এলাকায় ছিলেন। আরো তিন সঙ্গীসহ তারা উঠেছিলেন নীলিমা রিসোর্টে।


   Page 1 of 23
     প্রশাসন
২২৭ কোটি টাকা পাচার করেছেন ক্যাসিনো গডফাদার সম্রাট: দুদক
.............................................................................................
চট্টগ্রামের চার উপজেলায় ১০ প্লাটুন বিজিবি মোতায়েন করা হয়েছে
.............................................................................................
অনুমতি ছাড়া মামলা করা যাবে না সরকারি কর্মকর্তাদের বিরুদ্ধে
.............................................................................................
নরসিংদীতে চাঁদাবাজির মামলা ওসি-এসআইসহ তিনজনের বিরুদ্ধে
.............................................................................................
দেশের সব উপজেলার নির্বাহী কর্মকর্তাদের নিরাপত্তায় আনসার নেওয়া হচ্ছে
.............................................................................................
পরিবেশ দূষণের দায়ে ২টি কারখানা বন্ধ সহ ৮ লক্ষ টাকা জরিমানা করেছে পরিবেশ অধিদপ্তর
.............................................................................................
শাহেদের অ্যাকাউন্টে ৯১ কোটি ৭০ লাখ টাকার লেনদেনের তথ্য পেয়েছে সিআইডি
.............................................................................................
চেকপোস্টে দ্রুত সিসিটিভি এবং বডি ওর্ন ক্যামেরা ব্যবহারের তাগিদ
.............................................................................................
মেজর সিনহা হত্যায় তদন্তকারী কর্মকর্তার পরিষ্কার তথ্যচিত্র সংগ্রহ
.............................................................................................
ডোপ টেস্ট পজিটিভ হলেই চলে যাবে পুলিশের চাকরি
.............................................................................................
ফরিদগঞ্জে ওয়ারেন্টের ভুক্ত দুই আসামি গ্রেফতার
.............................................................................................
মীরজাদি সেব্রিনা ফ্লোরা স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের অতিরিক্ত মহাপরিচালক
.............................................................................................
আরো এক পরিচালককে বদলি করে স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের
.............................................................................................
ডিসি-এডিসিসহ ঊর্ধ্বতন ৬ কর্মকর্তাকে বদলি
.............................................................................................
ওসি প্রদীপ কুমার দাশসহ সাত আসামিকে চাকরি থেকে বরখাস্ত
.............................................................................................
সাবেক সেনা কর্মকর্তা মেজর সিনহা হত্যা মামলায় ওসি প্রদীপ গ্রেপ্তার
.............................................................................................
‘পানি সরবরাহ’ কাজ দেখতে ৪০ লাখ টাকা ব্যায় করে বিদেশ যাচ্ছে ১০ কর্মকর্তা
.............................................................................................
ঈদের পর শিক্ষা প্রতিষ্ঠান খোলার খবর ‘গুজব’
.............................................................................................
বগুড়ার কাহালুতে সবজি বোঝাই ট্রাকে অস্ত্রের চালান আটক
.............................................................................................
স্বেচ্ছায় পদত্যাগ করেছেন স্বাস্থ্যের ডিজির
.............................................................................................
স্বাস্থ্যের ডিজিসহ ১২ জনকে জিজ্ঞাসাবাদ করবে দুদক
.............................................................................................
নতুন নৌবাহিনীর প্রধান হলেন মোহাম্মদ শাহীন ইকবাল
.............................................................................................
সিরাজগঞ্জ পুলিশ সুপার সপরিবারে করোনায় আক্রান্ত
.............................................................................................
চীনের ‘টার্গেটে’ ভারতের আরো কয়েকটি অঞ্চল
.............................................................................................
আসামির ছুরিকাঘাতে প্রাণ হারালেন পুলিশের এএসআই
.............................................................................................
বদলির তদবিরকে পুলিশ থেকে বিদায় করা হবে: আইজিপি
.............................................................................................
অনিয়মের অভিযোগে আরো দুই জনপ্রতিনিধি বরখাস্ত
.............................................................................................
করোনাভাইরাসে আক্রান্ত ৯৯৪৮ পুলিশ সদস্য
.............................................................................................
করোনায় জীবন দিলেন পুলিশের আরো এক সম্মুখযোদ্ধা
.............................................................................................
অতিরিক্ত বিদ্যুৎ বিল করা জড়িতদের বিরুদ্ধে শাস্তি মূলক ব্যবস্থা নিচ্ছে সরকার
.............................................................................................
‘সশস্ত্রবাহিনী’তে সংক্রমিত ৪১৫৭, মৃত ২৬
.............................................................................................
চট্টগ্রামে ইয়াবা উদ্ধারে গিয়ে মিলল ৭০ লাখ টাকার স্বর্ণ
.............................................................................................
সরকার ঘোষিত রেড জোনগুলোতে সেনাবাহিনীর টহল
.............................................................................................
১৬ জুন থেকেও সীমিত পরিসরেই চলবে অফিস ও গণপরিবহন
.............................................................................................
করোনা জয় করে কাজে ফিরেছেন র‍্যাব -১১ এর ১০৮ সদস্য
.............................................................................................
অতিরিক্ত ভাড়ার অভিযোগ পেলেই গণপরিবহনের নিবন্ধন-পারমিট বাতিল
.............................................................................................
শরীর তল্লাশি করে টাকা হাতিয়ে নেওয়া সেই ৪ পুলিশ প্রত্যাহার
.............................................................................................
প্রথম সারির সম্মুখ যোদ্ধার দায়িত্ব পালনকারী ৩ বাহিনীর করোনা আক্রান্ত ৭ হাজার ৫৮৩
.............................................................................................
করোনায় ২ হাজারের বেশি সেনা সদস্য আক্রান্ত, মৃত ১৭
.............................................................................................
দেশে করোনায় আক্রান্ত পুলিশ সদস্য ছয় হাজার, মৃত্যু ১৯
.............................................................................................
চট্টগ্রাম সিটির ভোটসহ সকল নির্বাচন স্থগিত
.............................................................................................
জনসমাগমে নিষেধাজ্ঞা থাকলেও চট্টগ্রামে ২৫০০ কর্মকর্তাকে ইসির প্রশিক্ষণ
.............................................................................................
ফরিদগঞ্জে মূল্যবৃদ্ধি ঠেকাতে প্রশাসন মাঠে, ভাম্রমান আদালতে বিভিন্ন দোকানির জরিমানা
.............................................................................................
রাঙ্গামাটির বাজারগুলোতে মোবাইল কোর্ট অভিযান
.............................................................................................
কক্সবাজারে স্বর্ণ, ইয়াবা ও অস্ত্রসহ রোহিঙ্গা যুবক আটক
.............................................................................................
প্রাইম এশিয়ার সাবেক চেয়ারম্যান এম এ খালেকের দেশত্যাগে নিষেধাজ্ঞা
.............................................................................................
বেনাপোলে ৪০ কেজি গাঁজাসহ আটক ১
.............................................................................................
না. গঞ্জে ২ হাজার লিটার চোরাই তেল জব্দ, গ্রেফতার ৩
.............................................................................................
পদ্মা-মেঘনায় আজ থেকে মাছ ধরতে মানা
.............................................................................................
ভারতের সিমান্ত থেকে ফরিদগঞ্জের পালাতক আসামী আট
.............................................................................................

|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
স্বাধীন বাংলা ডট কম
সম্পাদক মো. খয়রুল ইসলাম চৌধুরী
সম্পাদক কর্তৃক ৩৭/২, ফায়েনাজ অ্যাপার্টমেন্ট (১৫ম তলা), কালভার্ট রোড, পুরানা পল্টন, ঢাকা-১০০০ হতে প্রকাশিত ।
প্রধান উপদেষ্টা: ফিরোজ আহমেদ (সাবেক সচিব, বাণিজ্য মন্ত্রণালয়)
সম্পাদক মন্ডলীর সভাপতি: ডাঃ মো: হারুনুর রশীদ
ইউরোপ মহাদেশ বিষয়ক সম্পাদক- প্রফেসর জাকি মোস্তফা (টুটুল)
ব্যবস্থাপনা সম্পাদক : মো: খায়রুজ্জামান
যুগ্ম সম্পাদক: জুবায়ের আহমেদ
নির্বাহী সম্পাদক: শরিফুল ইসলাম রানা
বার্তা সম্পাদক : মোঃ আকরাম খাঁন
সহঃ সম্পাদক: হোসাইন আহমদ চৌধুরী
সম্পাদকীয় ও বাণিজ্যিক কার্যালয়: ৩৭/২, ফায়েনাজ অ্যাপার্টমেন্ট (১৫ম তলা), কালভার্ট রোড, পুরানা পল্টন, ঢাকা-১০০০।
ফোন : ০২-৯৫৬২৮৯৯ মোবাইল: ০১৬৭০-২৮৯২৮০
ই-মেইল : swadhinbangla24@gmail.com
    2015 @ All Right Reserved By swadhinbangla.com

Developed BY : Dynamic Solution IT   Dynamic Scale BD