বাংলার জন্য ক্লিক করুন
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|

   প্রশাসন -
                                                                                                                                                                                                                                                                                                                                 
ম্যাজিস্ট্রেটদের কার্যক্রম নিয়ে অসন্তুষ্টি, ফের ইউও নোট মাহবুব তালুকদারের

ঢাকা উত্তর ও দক্ষিণ সিটি করপোরেশন নির্বাচনে আচরণবিধি লঙ্ঘনের বিষয়ে নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেটদের কার্যক্রম দৃশ্যমান নয় বলে অভিযোগ তুলেছেন নির্বাচন কমিশনার মাহবুব তালুকদার। আচরণবিধি লঙ্ঘনের বিষয়ে নির্বাচন কমিশন (ইসি) ব্যবস্থা না নিলে কমিশনের প্রতি জনগণের আস্থার সংকট নিরসন সম্ভব হবে না বলে তিনি মনে করেন। এ বিষয়ে জরুরিভিত্তিতে ব্যবস্থা নেয়ার অনুরোধ জানিয়ে প্রধান নির্বাচন কমিশনারকে (সিইসি) ইউও নোট (আন-অফিসিয়াল নোট) দিয়েছেন তিনি। এ নিয়ে ঢাকা সিটি করপোরেশন নির্বাচন নিয়ে এই নির্বাচন কমিশনার তিনটি ইউও নোট দিলেন।

গতকাল সোমবার সিইসির কাছে তৃতীয় এই ইউও নোট পাঠানো হয় বলে ইসি সূত্র জানিয়েছে। সেই সঙ্গে অন্য তিন নির্বাচন কমিশনার এবং ঢাকা উত্তর ও দক্ষিণ সিটি করপোরেশন নির্বাচনের রিটার্নিং কর্মকর্তাদেরও এর অনুলিপি দেওয়া হয়েছে। মাহবুব তালুকদার বলেন, নির্বাচনি আচরণবিধি লঙ্ঘনের বিষয়ে ইসি ব্যবস্থা গ্রহণ না করলে কমিশনের প্রতি জনগণের আস্থার সংকট নিরসন সম্ভব হবে না। কমিশন আইনানুগভাবে দৃঢ়তার সঙ্গে নির্বাচনি কার্যক্রম পরিচালনা করতে না পারলে আসন্ন ঢাকা সিটি করপোরেশন নির্বাচনে ইসির ভূমিকা সম্পর্কে জনমনে প্রশ্নের উদ্রেক হবে এবং কমিশনের নিষ্ক্রিয়তা জনসমক্ষে প্রতিভাত হবে। মাহবুব তালুকদার আরও বলেন, এর আগে ১৩ জানুয়ারি দেওয়া এক চিঠিতে তিনি সংসদ সদস্যদের নির্বাচনি প্রচারণা বা নির্বাচনি কার্যক্রমে অংশগ্রহণ বন্ধে একটি পরিপত্র জারির অনুরোধ করেছিলেন। পত্রিকায় প্রকাশিত সংবাদ থেকে জানা যায়, নির্বাচনে সমন্বয়ের দায়িত্বপ্রাপ্ত একজন সংসদ সদস্য নির্বাচনি কার্যক্রম অব্যাহত রেখেছেন। আরেকজন সংসদ সদস্য জাতীয় সংসদে মুজিববর্ষ উপলক্ষে ঢাকা শহরে রাজনীতিক বক্তৃতা দেওয়ার ঘোষণা দিয়েছেন। এসব কার্যক্রম সম্পর্কে ইসির সুস্পষ্ট নির্দেশনাসহ পরিপত্রটি জারির আবশ্যকতা রয়েছে। তিনি বলেন, গতকাল সোমবার ‘প্রথম আলো’ পত্রিকায় ঢাকা উত্তর সিটি করপোরেশনের (ডিএনসিসি) একটি বিজ্ঞাপন প্রচারিত হয়েছে। এটির শিরোনাম ‘ফিরে দেখা ২০১৯ মশক নিয়ন্ত্রণ’।

এই বিজ্ঞাপনে ডিএনসিসি নির্বাচনে বিগত বছরে মশক নিয়ন্ত্রণের নানা ধরনের ফিরিস্তি দেওয়া হয়েছে। বিজ্ঞাপনটি ডিএনসিসির সদ্যবিদায়ী মেয়রের পক্ষে তার সাফল্যের প্রচারণা ছাড়া আর কিছু নয় মন্তব্য করে এই নির্বাচন কমিশনার বলেন, ডিএনসিসির এই প্রচারণার জন্য দায়ী কর্মকর্তাদের বিরুদ্ধে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেওয়া যেতে পারে। মাহবুব তালুকদার আরও বলেন, প্রার্থীদের হলফনামা নিয়ে নানা অভিযোগ আছে। হলফনামা যাচাইয়ের কোনও উদ্যোগ নির্বাচন কমিশনে পরিলক্ষিত হচ্ছে না। এতে হলফনামা দেওয়ার বিধান প্রশ্নের সম্মুখীন, যাতে নির্বাচন কমিশনের ভাবমূর্তি ক্ষতিগ্রস্ত হচ্ছে। এসব বিষয় বিবেচনা করে জরুরিভিত্তিতে ব্যবস্থা নেয়ার অনুরোধ জানান তিনি।

ম্যাজিস্ট্রেটদের কার্যক্রম নিয়ে অসন্তুষ্টি, ফের ইউও নোট মাহবুব তালুকদারের
                                  

ঢাকা উত্তর ও দক্ষিণ সিটি করপোরেশন নির্বাচনে আচরণবিধি লঙ্ঘনের বিষয়ে নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেটদের কার্যক্রম দৃশ্যমান নয় বলে অভিযোগ তুলেছেন নির্বাচন কমিশনার মাহবুব তালুকদার। আচরণবিধি লঙ্ঘনের বিষয়ে নির্বাচন কমিশন (ইসি) ব্যবস্থা না নিলে কমিশনের প্রতি জনগণের আস্থার সংকট নিরসন সম্ভব হবে না বলে তিনি মনে করেন। এ বিষয়ে জরুরিভিত্তিতে ব্যবস্থা নেয়ার অনুরোধ জানিয়ে প্রধান নির্বাচন কমিশনারকে (সিইসি) ইউও নোট (আন-অফিসিয়াল নোট) দিয়েছেন তিনি। এ নিয়ে ঢাকা সিটি করপোরেশন নির্বাচন নিয়ে এই নির্বাচন কমিশনার তিনটি ইউও নোট দিলেন।

গতকাল সোমবার সিইসির কাছে তৃতীয় এই ইউও নোট পাঠানো হয় বলে ইসি সূত্র জানিয়েছে। সেই সঙ্গে অন্য তিন নির্বাচন কমিশনার এবং ঢাকা উত্তর ও দক্ষিণ সিটি করপোরেশন নির্বাচনের রিটার্নিং কর্মকর্তাদেরও এর অনুলিপি দেওয়া হয়েছে। মাহবুব তালুকদার বলেন, নির্বাচনি আচরণবিধি লঙ্ঘনের বিষয়ে ইসি ব্যবস্থা গ্রহণ না করলে কমিশনের প্রতি জনগণের আস্থার সংকট নিরসন সম্ভব হবে না। কমিশন আইনানুগভাবে দৃঢ়তার সঙ্গে নির্বাচনি কার্যক্রম পরিচালনা করতে না পারলে আসন্ন ঢাকা সিটি করপোরেশন নির্বাচনে ইসির ভূমিকা সম্পর্কে জনমনে প্রশ্নের উদ্রেক হবে এবং কমিশনের নিষ্ক্রিয়তা জনসমক্ষে প্রতিভাত হবে। মাহবুব তালুকদার আরও বলেন, এর আগে ১৩ জানুয়ারি দেওয়া এক চিঠিতে তিনি সংসদ সদস্যদের নির্বাচনি প্রচারণা বা নির্বাচনি কার্যক্রমে অংশগ্রহণ বন্ধে একটি পরিপত্র জারির অনুরোধ করেছিলেন। পত্রিকায় প্রকাশিত সংবাদ থেকে জানা যায়, নির্বাচনে সমন্বয়ের দায়িত্বপ্রাপ্ত একজন সংসদ সদস্য নির্বাচনি কার্যক্রম অব্যাহত রেখেছেন। আরেকজন সংসদ সদস্য জাতীয় সংসদে মুজিববর্ষ উপলক্ষে ঢাকা শহরে রাজনীতিক বক্তৃতা দেওয়ার ঘোষণা দিয়েছেন। এসব কার্যক্রম সম্পর্কে ইসির সুস্পষ্ট নির্দেশনাসহ পরিপত্রটি জারির আবশ্যকতা রয়েছে। তিনি বলেন, গতকাল সোমবার ‘প্রথম আলো’ পত্রিকায় ঢাকা উত্তর সিটি করপোরেশনের (ডিএনসিসি) একটি বিজ্ঞাপন প্রচারিত হয়েছে। এটির শিরোনাম ‘ফিরে দেখা ২০১৯ মশক নিয়ন্ত্রণ’।

এই বিজ্ঞাপনে ডিএনসিসি নির্বাচনে বিগত বছরে মশক নিয়ন্ত্রণের নানা ধরনের ফিরিস্তি দেওয়া হয়েছে। বিজ্ঞাপনটি ডিএনসিসির সদ্যবিদায়ী মেয়রের পক্ষে তার সাফল্যের প্রচারণা ছাড়া আর কিছু নয় মন্তব্য করে এই নির্বাচন কমিশনার বলেন, ডিএনসিসির এই প্রচারণার জন্য দায়ী কর্মকর্তাদের বিরুদ্ধে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেওয়া যেতে পারে। মাহবুব তালুকদার আরও বলেন, প্রার্থীদের হলফনামা নিয়ে নানা অভিযোগ আছে। হলফনামা যাচাইয়ের কোনও উদ্যোগ নির্বাচন কমিশনে পরিলক্ষিত হচ্ছে না। এতে হলফনামা দেওয়ার বিধান প্রশ্নের সম্মুখীন, যাতে নির্বাচন কমিশনের ভাবমূর্তি ক্ষতিগ্রস্ত হচ্ছে। এসব বিষয় বিবেচনা করে জরুরিভিত্তিতে ব্যবস্থা নেয়ার অনুরোধ জানান তিনি।

ঢাকা সিটি নির্বাচন: ৩০ জানুয়ারি রাতে বন্ধ হচ্ছে মোটরসাইকেল
                                  

 ঢাকার দুই সিটি করপোরেশন (ডিএনসিসি ও ডিএসসিসি) নির্বাচন উপলক্ষে ৩০ জানুয়ারি দিবাগত রাত ১২টা থেকে ২ ফেব্রুয়ারি সকাল ৬টা পর্যন্ত মোটরসাইকেল চলাচলের ওপর নিষেধাজ্ঞা জারি করেছে নির্বাচন কমিশন (ইসি)। আর ভোটের আগের দিন মধ্যরাত অর্থাৎ ৩১ জানুয়ারি রাত ১২টা থেকে ১ ফেব্রুয়ারি সন্ধ্যা ৬টা পর্যন্ত নির্বাচনি এলাকায় যান চলাচল বন্ধ থাকবে। নিষেধাজ্ঞার আওতায় থাকা যানবাহনগুলো হলো- বেবি ট্যাক্সি/অটোরিকশা, ট্যাক্সি ক্যাব, মাইক্রোবাস, জিপ, পিকআপ, কার (ব্যক্তিগত বাদে), বাস, ট্রাক, টেম্পো।

নির্বাচন কমিশনের (ইসি) নির্বাচন পরিচালনা-২ অধিশাখার উপসচিব মো. আতিয়ার রহমান সই করা এক নথিতে এই নিষেধাজ্ঞা আরোপ করা হয়েছে। সড়ক পরিবহন ও মহাসড়ক বিভাগকে এই আদেশ কার্যকর করার জন্য বলেছে ইসি। তাতে আরও বলা হয়েছে, মোটরসাইকেল ও বিভিন্ন যানবাহনের ওপর আরোপিত নিষেধাজ্ঞা রিটার্নিং কর্মকর্তার অনুমতি সাপেক্ষে প্রতিদ্বন্দ্বী প্রার্থী/তাদের নির্বাচনি এজেন্ট, দেশি/বিদেশি পর্যবেক্ষকদের (পরিচয়পত্র থাকতে হবে), নির্বাচনের কাজে নিয়োজিত কর্মকর্তা-কর্মচারী, আইন-শৃঙ্খলা বাহিনীর সদস্য, নির্বাচনের বৈধ পরিদর্শক এবং কতিপয় জরুরি কাজ যেমন- অ্যাম্বুলেন্স, ফায়ার সার্ভিস, বিদ্যুৎ, গ্যাস, ডাক, টেলিযোগাযোগ ইত্যাদি কার্যক্রমে ব্যবহারের জন্য উল্লেখিত যানবাহন ও মোটরসাইকেল চলাচলের ক্ষেত্রে ওই নিষেধাজ্ঞা প্রযোজ্য হবে না। জাতীয় মহাসড়ক, বন্দর ও জরুরি পণ্য, ওষুধ, খাদ্য ইত্যাদি দ্রব্যাদি সরবরাহসহ অন্যান্য জরুরি প্রয়োজনে সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষ এই নিষেধাজ্ঞা শিথিলের বিষয়ে প্রয়োজনীয় কার্যকর ব্যবস্থা গ্রহণ করতে পারবেন।

ঢাকা উত্তর ও দক্ষিণ সিটি করপোরেশন এলাকায় মহাসড়ক ছাড়াও আন্তঃজেলা বা মহানগর থেকে বাহির হওয়ার জন্য গুরুত্বপূর্ণ সড়ক, মহাসড়ক ও প্রধান প্রধান রাস্তার সংযোগ সড়ক বা উক্তরূপ সব রাস্তায় নিষেধাজ্ঞা শিথিল করতে হবে। ব্যক্তিগত কাজে ব্যবহৃত প্রাইভেটকারের (রেন্টে কার বা ভাড়ায় গাড়ি ব্যতীত) এবং প্রতিবন্ধী ভোটারদের সহায়তায় নিয়োজিত গাড়ির ওপর নিষেধাজ্ঞা শিথিল থাকবে বলেও জানিয়েছে ইসি।

 

ভোটের আগে-পরের ৫ দিন অস্ত্র বহনে নিষেধাজ্ঞা
                                  

 ঢাকা দক্ষিণ ও উত্তর সিটি করপোরেশন নির্বাচনের জন্য ৩০ জানুয়ারি থেকে ৩ ফেব্রুয়ারি পর্যন্ত বৈধ অস্ত্র বহন ও প্রদর্শন নিষিদ্ধ করেছে স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়। ঢাকা সিটির নির্বাচন অবাধ, সুষ্ঠু ও শান্তিপূর্ণভাবে অনুষ্ঠানের লক্ষ্যে গতকাল রোববার বিকেলে আইন-শৃঙ্খলা সংক্রান্ত সভায় এ সিদ্ধান্ত নেওয়া হয় বলে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খাঁন কামাল জানিয়েছেন। তিনি বলেন, নির্বাচন কমিশনকে চাহিদা অনুযায়ী আইনশৃঙ্খলা সংক্রান্ত সহযোগিতা করা হবে।

৩০ জানুয়ারি থেকে ৩ ফেব্রুয়ারি পর্যন্ত বৈধ আগ্নেয়াস্ত্র পরিবহন ও প্রদর্শন করা যাবে না। ১৭২ ওয়ার্ডে ২ হাজার ৪৮৬ ভোট কেন্দ্রে সব ধরনের নিরাপত্তা ব্যবস্থা নেওয়া হবে জানিয়ে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী বলেন, নির্বাচনের দিন উত্তর ও দক্ষিণ সিটি করপোরেশন এলাকায় দুটি করে সাব-কন্ট্রোল রুম থাকবে। ওই দিন মটরসাইকেল, টেক্সিক্যাব, ট্রাক, ইজিবাইক চলবে না। তবে সীমিত আকারে পাবলিক বাস চলবে। সাইবার অপরাধ নিয়ন্ত্রণে সোশাল মিডিয়া মনিটর করা হচ্ছে বলে জানান মন্ত্রী।

ভারতে অনুপ্রবেশকালে ব্রাহ্মণবাড়িয়ার সীমান্তে নাইজেরিয়ান আটক
                                  

 অবৈধভাবে ভারতে ঢুকতে গিয়ে বিজিবির হাতে ধরা পড়েছেন এক নাইজেরিয়ান নাগরিক। গতকাল শুক্রবার দুপুরে ব্রাহ্মণবাড়িয়ার কসবা উপজেলার কাজিয়াতলী সীমান্ত এলাকা থেকে বিজিবির ২৫ ব্যাটালিয়নের সদস্যরা তাকে আটক করেন। আটক নাইজেরিয়ান নাগরিকের নাম গডউইন (৩৪)। তার কাছে পাওয়া পাসপোর্টের নম্বর অ০৭৬৮৩৭২৩। এ ঘটনায় মো. সায়েদ মিয়া (৩৭) নামে এক বাংলাদেশি নাগরিককেও আটক করেছে বিজিবি।

আটক সায়েদ কসবা উপজেলার কাজিয়াতলী গ্রামের মৃত জামশেদ মিয়ার ছেলে। বিজিবির ২৫ ব্যাটালিয়নের অধিনায়ক লে. কর্নেল মুহাম্মদ গোলাম কবির বিষয়টি নিশ্চিত করে জানান, গোপন সংবাদের ভিত্তিতে সীমান্তে টহলরত বিজিবি সদস্যরা ওই নাইজেরিয়ান নাগরিককে আটক করেন। তার কাছ থেকে বাংলাদেশি ৬৩ হাজার টাকা, একটি ল্যাপটপ চার্জার, একটি মোবাইল ফোন, একটি বাইবেল, একটি হাতঘড়ি ও দুটি বাংলাদেশি এবং একটি নাইজেরিয়ান সিম কার্ড জব্দ করা হয়েছে।

তিনি আরও জানান, ওই নাইজেরিয়ান নাগরিক অবৈধভাবে ভারতে ঢোকার চেষ্টা করছিলেন। তার দেওয়া তথ্য মতে বাংলাদেশি মানব পাচারকারী দলের সদস্য মো. সায়েদ মিয়াকেও আটক করেছে বিজিবি।

ভোটে সরাসরি থাকছে না সেনাবাহিনী
                                  

ঢাকা দুই সিটির ভোটের জন্য আইনশৃঙ্খলা বৈঠক ২২ জানুয়ারি অনুষ্ঠিত হবে। ওই দিন বিকাল ৩টায় নির্বাচন কমিশন ভবনে বৈঠক অনুষ্ঠিত হবে। প্রধান নির্বাচন কমিশনার কেএম নূরুল হুদার নেতৃত্বে অনুষ্ঠিতব্য বৈঠকে অন্য কমিশনাররা উপস্থিত থাকবেন। এ ছাড়া পুলিশ, বিজিবি, আনসার, র‌্যাবের প্রতিনিধিরা বৈঠকে থাকবেন। বৈঠকের জন্য প্রস্তুত প্রস্তাবনায় বলা হয়েছে, সিটি ভোটে সরাসরি কোনো সেনা থাকবে না। তবে ইলেকট্রনিক ভোটিং মেশিং (ইভিএম) মেইন্টেন করতে প্রতি কেন্দ্রে দুজন সেনা সদস্য রাখা হবে। সূত্র : আমাদেরসময়

প্রস্তাবে আরও বলা হয়, ঢাকা দুই সিটির নির্বাচন সুষ্ঠু ও সফলভাবে সম্পন্ন করতে সব প্রস্তুতি সম্পন্ন করেছে নির্বাচন কমিশন। প্রতিটি সাধারণ ভোটকেন্দ্রে অস্ত্রসহ দুজন পুলিশ। এর মধ্যে একজন এসআই/এএসআই ও একজন কনস্টেবল থাকবে। এ ছাড়া ১০ জন আনসার সদস্য নিরাপত্তার জন্য দায়িত্ব পালন করবেন। গুরুত্বপূর্ণ ভোটকেন্দ্রে, অস্ত্রসহ তিনজন পুলিশ দায়িত্বে থাকবে। এর মধ্যে একজন এসআই/এএসআই ও দুজন কনস্টেবল থাকবে। এ ছাড়া ১২ জন আনসার সদস্য নিরাপত্তার জন্য দায়িত্ব পালন করবেন।

প্রতিটি সাধারণ ওয়ার্ডের জন্য একটি করে মোবাইল ফোর্স থাকবে। প্রতি তিনটি সাধারণ ওয়ার্ডের জন্য একটি করে স্টাইকিং ফোর্স, প্রতিটি সাধারণ ওয়ার্ডের জন্য র‌্যাবের একটি করে টিম থাকবে। এ ছাড়া দুটি সাধারণ ওয়ার্ডে ১ প্লাটুন বিজিবি আইনশৃঙ্খলার দায়িত্বে থাকবে।

সাগরে ক্ষেপণাস্ত্র নিক্ষেপের মধ্য দিয়ে নৌবাহিনীর মহড়ার সমাপ্তি
                                  

বঙ্গোপসাগরে ক্ষেপণাস্ত্র নিক্ষেপের মধ্যে দিয়ে বাংলাদেশ নৌবাহিনীর বার্ষিক সমুদ্র মহড়া ‘এক্সারসাইজ সেফ গার্ড-২০১৯’ শেষ হয়েছে। ১৮ দিনব্যাপী এ মহড়ায় বাংলাদেশ নৌবাহিনীর বিভিন্ন ফ্রিগেট, করভেট, মাইনসুইপার, পেট্রোলক্রাফট, মিসাইলবোট ও হেলিকপ্টার প্রত্যক্ষভাবে অংশ নেয়।

মহড়ার শেষ দিন গতকাল বুধবার দূরপাল্লার সারফেস টু সারফেস মিসাইল, শোল্ডার লঞ্চড সারফেস টু এয়ার মিসাইল এবং সাবমেরিন বিধ্বংসী রকেট ডেপথ চার্জ ব্যবহার করা হয়। এছাড়া শত্রু বিমান ঘায়েল করার মহড়া হিসেবে এন্টি এয়ার র‌্যাপিড ওপেন ফায়ার এবং সোয়াডের নৌ কমান্ডো দল অংশ নেয় এবারের মহড়ায়। আয়োজন করা হয়েছিল নৌবাহিনীর সব যুদ্ধ জাহাজ ও নেভাল এভিয়েশন উইংয়ের সমন্বয়ে ফ্লিট রিভিউ। মহড়া শেষে ফ্লিট কমান্ডার রিয়ার এডমিরাল এম নাজমুল হাসান জানান, মহড়ায় নৌবাহিনীর বিভিন্ন ধরনের ৭০টি জাহাজ অংশ নিয়েছে। আগামীতে মহড়ায় সাবমেরিনও যুক্ত করা হবে।

পরিকল্পনামন্ত্রী এমএ মান্নান প্রধান অতিথি হিসেবে বানৌজা বঙ্গবন্ধু থেকে সমাপনী মহড়া প্রত্যক্ষ করেন। এ সময় উপস্থিত ছিলেন নৌবাহিনীর প্রধান এডমিরাল আওরঙ্গজেব, বিমান বাহিনী প্রধান এয়ার চিফ মার্শাল আবু এশরার, সশস্ত্র বাহিনী বিভাগের প্রিন্সিপাল স্টাফ কর্মকর্তা লেফটেন্যান্ট জেনারেল মাহফুজুর রহমানসহ সামরিক-বেসামরিক কর্মকর্তারা। অনুষ্ঠান শেষে পরিকল্পনামন্ত্রী এম এ মান্নান বলেন, ব্লু ইকোনমির অন্যতম বঙ্গোপসাগর। এ সাগরে প্রচুর সম্ভাবনা আছে। এ সমুদ্রের মাধ্যমে বিশ্বের সাথে আমাদের ৯০ ভাগ আমদানি, রপ্তানি বাণিজ্য হয়ে থাকে।

এ সমুদ্র রক্ষায় তাদের অবদান আমি স্বীকার করি। তিনি বলেন, ব্লু ইকোনমির প্রথম কাজ সার্ভে। সাগরে প্রচুর সম্পদ আছে। তবে কী পরিমাণ কোনো কোন সম্পদ আছে তা জানতে হবে। এজন্য প্রচুর গবেষণা করতে হবে। যার জন্য প্রচুর যন্ত্রপাতি, জাহাজ জোগাড় করতে হবে এবং তা পরিচালনার জন্য নাবিকদের প্রশিক্ষণের ব্যবস্থা করতে করা দরকার।

গ্রাহকের টাকা আত্মসাতের অভিযোগে নোয়াখালীতে ব্যাংক কর্মকর্তা আটক
                                  

নোয়াখালী জেলা শহর মাইজদীতে অভিযান চালিয়ে মো. নূর নবি চৌধুরী নামে সোনালী ব্যাংক দাগনভূঞা শাখার এক সিনিয়র অফিসারকে গ্রেফতার করেছে দুর্নীতি দমন কমিশন (দুদক) নোয়াখালী। ৫১ জন গ্রাহকের সাক্ষর নকল ও জাল-জালিয়াতি করে প্রকৃত গ্রাহকদের অনুকূলে ঋণের টাকা বিতরণ না করে মোট ১৭ লাখ ৯৫ হাজার টাকা আত্মসাৎ করার অভিযোগ রয়েছে তার বিরুদ্ধে। গতকাল বুধবার দুপুরে শহরের পুলিশ কেজি স্কুলের সামনে থেকে তাকে গ্রেফতার করা হয়। গ্রেফতারকৃত মো. নূর নবি চৌধুরী সুবর্ণচর উপজেলার উত্তর কচ্ছপিয়া গ্রামের মকবুল আহমেদ চৌধুরীর ছেলে।

দুদক নোয়াখালী কার্যালয় জানায়, গ্রেফতারকৃত ব্যাংক কর্মকর্তা নূর নবি চৌধুরী সোনালী ব্যাংক লিমিটেড সুবর্ণচর উপজেলার চরবাটা শাখায় ২০১০ থেকে ২০১৪ সাল পর্যন্ত কর্মরত থাকা অবস্থায় ৩০ জন গ্রাহকের নামে ভুয়া ঋণের আবেদন সংগ্রহ করে আবেদনকারীদের মিথ্যা প্রলোভন দেখিয়ে সাক্ষর নিয়ে প্রকৃত গ্রাহকদের অনুকূলে ঋণের টাকা বিতরণ না করে চরবাটা ২ নম্বর ওয়ার্ডের সাবেক মহিলা মেম্বর আলেয়া বেগম, চরবাটা গ্রামের মো. শহিদ উদ্দিনের ছেলে মহি উদ্দিন ভূঁইয়া ও উত্তর কচ্ছপিয়া গ্রামের নুরুজ্জামান প্রকাশ বাচ্চু মিয়ার ছেলে সিরাজুল ইসলামের যোগসাজশে ক্ষমতার অপব্যবহার করে প্রতারণা ও জাল-জালিয়াতির আশ্রয় নিয়ে ভুয়া ঋণবন্ড তৈরি করে ১২ লাখ ৪৫ হাজার টাকা উত্তোলন করে তা আত্মসাৎ করেন।

পরবর্তীকালে এ কর্মকর্তা ২০১৪ থেকে ২০১৬ সাল পর্যন্ত সোনালী ব্যাংক সুবর্ণচর শাখা কর্মরত অবস্থায় ওই শাখার সিনিয়র কর্মকর্তা ক্যাশ নেছার উদ্দিন আহমেদ, কর্মকর্তা মোহাম্মদ আবুল কাশেম ও কর্মকর্তা আবদুল গফুরের যোগসাজশে একই কায়দায় ২১ জন গ্রাহকের নামে ৫ লাখ ৫০ হাজার টাকা উত্তোলনপূর্বক আত্মসাৎ করেন। দুদক নোয়াখালীর সহকারী পরিচালক ও তদন্তকারী কর্মকর্তা সুবেল আহমেদ জানান, গ্রেফতারকৃত ব্যাংক কর্মকর্তা নূর নবি চৌধুরী পৃথকভাবে ৫১ জন গ্রাহকের নামে জালিয়াতির মাধ্যমে মোট ১৭ লাখ ৯৫ হাজার টাকা উত্তোলন করে আত্মসাৎ করেছেন। এ ঘটনায় তার বিরুদ্ধে পৃথক তিনটি মামলা দায়ের করা হয়েছে। গতকাল বুধবার দুপুরে তাকে আদালতের মাধ্যমে কারাগারে পাঠানো হয়েছে।

চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়ের হল থেকে দেশীয় অস্ত্র উদ্ধার
                                  

 চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়ের (চবি) সোহরাওয়ার্দী হল ও এর আশপাশে অভিযান চালিয়ে রামদাসহ দেশীয় অস্ত্র উদ্ধার করা হয়েছে। গতকাল বুধবার দুপুর সাড়ে ১২টা থেকে দেড়টা পর্যন্ত বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রক্টরিয়াল বডির উপস্থিতিতে পুলিশ সদস্যরা এ অভিযান চালান। এ সময় একটি ৪টি রামদা ও একটি শাবল উদ্ধার করা হয়।

বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রক্টর এস এম মনিরুল হাসান জানান, সোহরাওয়ার্দী হলের সামনের এস আলম স্টোর থেকে দুইটি রামদা এবং হলের ড্রেন থেকে কাপড়ে মোড়ানো আরও দুইটি রামদা উদ্ধার করা হয়েছে।

এ ঘটনায় দোকানি নান্নু গাজীকে (বিশ্ববিদ্যালয় কর্মচারী) শোকজ করা হবে। গোপন সংবাদের ভিত্তিতে এ অভিযান চালানো হয় বলে জানান তিনি। প্রক্টর এস এম মনিরুল হাসান বলেন, পর্যায়ক্রমে এ ধরনের অভিযান চলবে। হলে কোনো অস্ত্র থাকতে দেওয়া হবে না। চবি পুলিশ ফাঁড়ির ইনচার্জ পরিদর্শক আবদুর রহিম বলেন, গোপন সংবাদের ভিত্তিতে এ অভিযান চালানো হয়েছে। ৪টি রামদা জব্দ করা হয়েছে। তবে কাউকে আঁটক করা হয়নি।

র‌্যাব পরিচয় ডাকাতির অভিযোগে গ্রেফতার ডিবির এসআই রিমান্ডে
                                  

র‌্যাব পরিচয়ে প্রবাসীর সাড়ে পাঁচ লাখ টাকা ডাকাতির অভিযোগে গ্রেফতার ঢাকা মহানগর ডিবি পুলিশের এসআই রাশেদুল আলমের দুদিনের রিমান্ড মঞ্জুর করেছেন আদালত। গতকাল সোমবার তাকে ঢাকা মহানগর হাকিম আদালতে হাজির করে পুলিশ। এ সময় ওয়ারি থানার ডাকাতি মামলা সুষ্ঠু তদন্তের জন্য সাতদিনের রিমান্ড আবেদন করেন ওয়ারি থানার এসআই হারুন-অর-রশিদ। শুনানি শেষে ঢাকা মহানগর হাকিম আশেক ইমাম দুদিনের রিমান্ড মঞ্জুর করেন।

ওয়ারি থানার আদালতের সাধারণ নিবন্ধন কর্মকর্তা (এসআই) হেলাল উদ্দিন বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন। এর আগে গত রোববার নারায়ণগঞ্জ থেকে তাকে গ্রেফতার করে পুলিশ। মামলার নথি থেকে জানা যায়, ২০১৯ সালের ৫ ডিসেম্বর মামলার বাদী শফিউল আলম আজাদ তার বন্ধু গিয়াসউদ্দিন ও ভাগিনা মাহমুদুল হাসান মুন্নাসহ সিঙ্গাপুরে থাকা তার মামার বাড়ি নির্মাণের জন্য সাড়ে পাঁচ লাখ টাকা নিয়ে মাদারীপুরের উদ্দেশে রওনা হন। ওয়ারি থানার টিপু সুলতান রোডে পৌঁছালে অজ্ঞাত চার-পাঁচজন একটি সিলভার কালারের মাইক্রোবাসে এসে র‌্যাব পরিচয় দিয়ে বাদীর পেটে অস্ত্র ঠেকিয়ে তাদের গাড়িতে উঠিয়ে নেয়।

তাদের মুন্সিগঞ্জে নিয়ে হাত বেঁধে সাড়ে পাঁচ লাখ টাকাসহ অন্যান্য জিনিসপত্র নিয়ে যায় আসামিরা। ওই ঘটনায় ওয়ারি থানায় ডাকাতির অভিযোগে শফিউল আলম আজাদ বাদী হয়ে একটি মামলা করেন। মামলার পর বিভিন্ন সময় পাঁচজনকে গ্রেফতার করে। গ্রেফতারের পর তারা আদালতে স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দি দেন। জবানবন্দিতে রাশেদুল আলমের নাম উঠে আসে। এ প্রেক্ষিতে তাকে গ্রেফতার করে পুলিশ। যারা জবানবন্দি দিয়েছেন, তারা হলেন- রিপন কাজী, মুক্তার হোসেন, আশিক ইকবাল, রাসেল আহমেদ ওশরিফুল ইসলাম।

 

ইয়াবা রোধে সহযোগিতা না করায় এখন মিয়ানমারও ভুগছে: বিজিবি প্রধান
                                  

ইয়াবা বন্ধে মিয়ানমার সহযোগিতা না করার মধ্যে এবার বিজিবি প্রধান জানালেন, এই মাদক নিয়ে এখন দেশটিও ভুগছে। ঢাকায় মিয়ানমার-বাংলাদেশ সীমান্ত সম্মেলন চলার মধ্যে গতকাল বুধবার পিলখানায় বিজিবি সদর দপ্তরে এক যৌথ সংবাদ সম্মেলনে একথা জানান বাহিনীর মহাপরিচালক মেজর জেনারেল মো. সাফিনুল ইসলাম। ভারত থেকে আসা ফেনসিডিলকে ছাপিয়ে গত দেড় দশক ধরে ইয়াবার রাজত্ব চলছে বাংলাদেশের নেশার রাজ্যে।

এই ইয়াবা ট্যাবলেট আসে মিয়ানমার থেকে। ফেনসিডিল পাচার বন্ধে ভারতের সহযোগিতা পাওয়ার কথা জানিয়ে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খাঁন কামাল গত বছরই বলেছিলেন, ইয়াবা বন্ধে মিয়ানমার সহযোগিতা করছে না। পিলখানায় যৌথ সংবাদ সম্মেলনে বলা হয়, সীমান্ত এলাকায় মাদক ও নেশাজাতীয় দ্রব্য বিশেষত ইয়াবা পাচার রোধে বাংলাদেশ ‘জিরো টলারেন্স’ নীতি বজায় রাখবে এবং মিয়ানমার তাদের জাতীয় মাদক নিয়ন্ত্রণ নীতি অনুযায়ী মাদকবিরোধী কার্যক্রম অব্যাহত রাখবে। মাদক মিয়ানমারের সমাজেও একই প্রভাব ফেলছে বলে দেশটির প্রতিনিধি দল জানায়। তাই মাদক পাচার রোধে ‘পূর্ণ সহযোগিতার’ আশ্বাসও তারা দেয় বিজিবিকে। বিজিবি প্রধান সাফিনুল বলেন, মিয়ানমারও অনেক ইয়াবা জব্দ করে তা ধ্বংস করেছে। তার চাক্ষুস প্রমাণ আমাদের কাছে রয়েছে। আমরা তাদের মাদকবিরোধী অভিযান আরও বেগবান করার অনুরোধ জানিয়েছি। টেকনাফের নাফ নদী দিয়ে বর্তমানে ইয়াবা পাচার অনেক কমেছে দাবি করে তিনি বলেন, অন্যান্য পথ দিয়ে ইয়াবা বাংলাদেশে ঢোকে। বাংলাদেশের সীমান্ত রক্ষী বাহিনী বিজিবির সঙ্গে মিয়ানমার সীমান্তরক্ষী বাহিনী বিজিপির পাঁচ দিনের এই সম্মেলন শুরু হয় গত ৫ জানুয়ারি। মিয়ানমারের চিফ অব পুলিশ জেনারেল স্টাফ, পুলিশ ব্রিগেডিয়ার জেনারেল মায়ো থান তাদের ৮ সদস্যের প্রতিনিধি দলের নেতৃত্ব দিচ্ছেন। বিজিবির নেতৃত্ব দিচ্ছেন মেজর জেনারেল সাফিনুল। মিয়ানমারের পক্ষ থেকে অভিযোগ তোলা হয় যে তার দেশের কিছু সন্ত্রাসী গোষ্ঠী বাংলাদেশে অবস্থান করছে। কিন্তু আমরা তাদের জানিয়েছি, এ ধরনের কোনো সন্ত্রাসী গ্রুপ এখানে নেই।

আমাদের সরকার এদেশের ভূমি ব্যবহার করে কোনো সন্ত্রাসী কার্যক্রম করতে দেবে না, বলেন বিজিবি প্রধান। উভয় পক্ষই যেকোনো ধরনের অবৈধ সীমান্ত অতিক্রম বা প্রবেশ এবং সীমান্ত লঙ্ঘন রোধে সম্মত হয়েছে। পাশাপাশি অজ্ঞতাবশত সীমান্তরেখা লঙ্ঘনের ক্ষেত্রে উভয়ে দেশের প্রচলিত নিয়মানুযায়ী তাদেরকে ফেরত পাঠানোর ক্ষেত্রেও মতৈক্য হয়েছে। মিয়ানমারে নির্যাতনের মুখে পালিয়ে আসা ১১ লাখের বেশি রোহিঙ্গা বাংলাদেশের কক্সবাজারে শরণার্থী জীবন কাটাচ্ছেন। সংবাদ সম্মেলনে জানানো হয়, উভয় পক্ষই আন্তঃদেশীয় অপরাধ, অস্ত্র চোরাচালান, মানব পাচার, পণ্য চোরাচালান ও সন্ত্রাসবাদের বিরুদ্ধে লড়াইয়ে একে অন্যকে সহযোগিতা করতে সম্মত হয়েছে। সীমান্তে গোলাগুলি বা গুলি চালানোর ঘটনা যদি ঘটে, তা যত তাড়াতাড়ি সম্ভব একে অন্যকে জানাতে প্রতিশ্রুতিবদ্ধ হয়েছে বিজিবি ও বিজিপি। সংবাদ সম্মেলনে জানানো হয়, পরবর্তী সীমান্ত সম্মেলনটি ২০২০ সালের মে-জুন মাসে মিয়ানমারে অনুষ্ঠিত হবে।

 

‘ভোটার তালিকা (সংশোধন) আইন, ২০১৯’ এর খসড়ার অনুমোদন
                                  

চূড়ান্ত ভোটার তালিকা প্রকাশের নতুন সময়সূচি নির্ধারণের সময় এক মাস বাড়িয়ে আইন সংশোধনের প্রস্তাবে সায় দিয়েছে মন্ত্রিসভা। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সভাপতিত্বে গতকাল বুধবার তার কার্যালয়ে মন্ত্রিসভার নিয়মিত বৈঠকে ‘ভোটার তালিকা (সংশোধন) আইন, ২০১৯’ এর খসড়ার নীতিগত ও চূড়ান্ত অনুমোদন দেওয়া হয়। সভা শেষে মন্ত্রিপরিষদ সচিব খন্দকার আনোয়ারুল ইসলাম সচিবালয়ে এক ব্রিফিংয়ে সাংবাদিকদের বলেন, কম্পিউটারের ডাটাবেইজে সংরক্ষিত বিদ্যমান সব ভোটার তালিকা প্রতিবছর ২ থেকে ৩১ জানুয়ারির মধ্যে হালনাগাদের বিধান রয়েছে।

২ থেকে ৩১ জানুয়ারির মধ্যে এটা হালনাগাদ করা খুবই কষ্টসাধ্য হওয়ায় সেটাকে বাড়িয়ে ২ জানুয়ারি ১ মার্চ করার প্রস্তাব করা হলে মন্ত্রিসভা তা অনুমোদন করে। এছাড়া ২ মার্চকে জাতীয় ভোটার দিবস হিসেবে গ্রহণে মন্ত্রিসভা নীতিগত ও চূড়ান্ত অনুমোদন দিয়েছে বলে জানান মন্ত্রিপরিষদ সচিব। তিনি বলেন, আইন মন্ত্রণালয়ের মতামত নিয়ে সংশোধিত আইনটি পাস করতে সংসদে পাঠানো হবে, এটি আর মন্ত্রিসভার আনার প্রয়োজন নেই।

বিদ্যমান ভোটার তালিকা আইনে বলা ছিল, প্রতিবছর ২ জানুয়ারি থেকে ৩১ জানুয়ারি সময়ের মধ্যে নির্ধারিত পদ্ধতিতে হালনাগাদ করা হবে। তবে শর্ত থাকে যে, যদি ভোটার তালিকা এভাবে হালনাগাদ করা না হয় তা হলে এর বৈধতা বা ধারাবাহিকতা ক্ষুণ্ন হবে না। চূড়ান্ত ভোটার তালিকা প্রকাশের নতুন সময়সূচি নির্ধারণের বিষয়ে আইন সংশোধনের উদ্যোগ নেয় নির্বাচন কমিশন। আইন মন্ত্রণালয়ের লেজিসলেটিভ ও সংসদ বিষয়ক বিভাগ এই আইনটি সংশোধনের প্রস্তাব মন্ত্রিসভায় পাঠায়।

২৫ জানুয়ারি থেকে ইভিএমে ভোটের প্রশিক্ষণ
                                  

আসন্ন ঢাকা সিটি করপোরেশন ভোট সামনে রেখে আগামি ২৫ জানুয়ারি থেকে প্রতিটি ভোটকেন্দ্রে ইভিএম ভোটিং মেশিনের মক ভোটিং (প্রশিক্ষণ) দেখানো হবে বলে জানিয়েছেন ঢাকা উত্তরের রিটার্নিং কর্মকর্তা মো. আবুল কাসেম। গতকাল সোমবার দুপুরে তিনি একথা বলেন। তিনি বলেন, আগারগাঁওয়ে রিটার্নিং অফিসারের কার্যালয়ে ইভিএম প্রদর্শনী চলছে। ২৭ ডিসেম্বর থেকে এটি শুরু হয়েছে। এখানে শুধু প্রার্থী, প্রস্তাবক ও প্রার্থীর সমর্থকরা প্রদর্শন বা প্রশিক্ষণ নিতে পারবেন।

তিনি আরো বলেন, সাধারণ ভোটারদের জন্য প্রতিটি কেন্দ্রে ২৫ জানুয়ারি থেকে মক ভোটিং দেখানো হবে। এদিকে রিটার্নিং অফিসারের কার্যালয়ে সকাল থেকে ইভিএম প্রদর্শনী হলেও কোনো প্রার্থী বা সমর্থককে আসতে দেখা যায়নি। জানতে চাইলে তিনি বলেন, এখনো কোনো প্রার্থী চূড়ান্ত হয়নি। ৯ জানুয়ারি (বৃহস্পতিবার) বিকেলে চূড়ান্ত হওয়ার পরেই প্রার্থী ও সমর্থকরা এখানে এসে প্রশিক্ষণ নেবেন বলে তিনি আশা প্রকাশ করেন। এদিকে সকাল থেকে প্রদর্শনী শুরু হলেও দুপুর দুইটা পর্যন্ত কোনো প্রার্থী বা সমর্থকদের ইভিএম পরিদর্শন করতে দেখা যায়নি। ইভিএম মেশিন নিয়ে ইভিএম কারিগরি টিমের সদস্য মো. মমিনুল ইসলাম প্রদর্শনী স্থানে ছিলেন।

এদিকে, প্রথমবারের মতো ঢাকার দুই সিটি করপোরেশনের ৫৪ লাখ ভোটারের ভোট ইলেক্ট্রনিক ভোটিং মেশিনে নিতে ব্যাপক প্রচারের প্রস্তুতি নিয়েছে নির্বাচন কমিশন। ইভিএম দেখভালের দায়িত্বে থাকা ইসির জাতীয় পরিচয় নিবন্ধন অনুবিভাগের (এনআইডি উইং) মহাপরিচালক ব্রিগেডিয়ার জেনারেল মোহাম্মদ সাইদুল ইসলাম বলেন, ভোটাররা যাতে ইভিএমে ভোট দেওয়ার বিষয়ে পুরো ধারণা পান, সেজন্য বিভিন্ন স্থানে প্রচারপত্র বিলি করা হবে। তাতে লেখা থাকবে মাত্র দুই বোতাম চেপেই কী করে এ যন্ত্রে ভোট দিতে হয়। ৩০ জানুয়ারি ঢাকা সিটি করপোরেশন নির্বাচনে মেয়র, সাধারণ ও সংরক্ষিত ওয়ার্ড কাউন্সিলর পদে মোট তিন জন প্রার্থীকে ভোট দিতে হবে। ইভিএমে পছন্দের প্রতীকের পাশে সাদা বোতাম চেপে প্রার্থী বাছাই করতে হয়। এরপর সবুজ বোতামে চাপ দিলেই ভোট নিশ্চিত হয়ে যায়। মেশিনে ভোট দেওয়ার এ প্রক্রিয়া যে সহজ ও নির্ভরযোগ্য- সে বিষয়েই প্রচারে জোর দেওয়া হচ্ছে বলে নির্বাচন কমিশনের কর্মকর্তারা জানান। সাইদুল ইসলাম বলেন, ভোটারদের সচেতন করার জন্য প্রচারের পাশাপাশি নির্বাচনের প্রিজাইডিং, সহকারী প্রিজাইডিং ও পোলিং কর্মকর্তাদের প্রশিক্ষণেরও ব্যবস্থা করা হয়েছে। আগামী ২৫ জানুয়ারি থেকে সব কেন্দ্রে ইভিএম প্রদর্শন ও ভোট দেওয়ার নিয়ম জানিয়ে প্রচার চালানো হবে। ২৮ জানুয়ারি হবে ‘মক ভোটিং’ বা ইভিএমে ভোট দেওয়ার মহড়া। বিশেষ করে তরুণ ভোটারদের উদ্বুদ্ধ করার পদক্ষেপ নেওয়া হবে।

এ ছাড়া প্রতি কেন্দ্রে সেনাবাহিনীর দুই সদস্যের কারিগরি টিম রাখা হবে। উত্তর ও দক্ষিণ সিটি মিলিয়ে প্রায় ২৬০০ কেন্দ্র, এর মধ্যে ১৪ হাজার ৬০০ বা তার বেশি ভোটকক্ষ থাকবে। দুই সিটির জন্য সব মিলিয়ে প্রায় ৩৫ হাজারে ইভিএম প্রস্তুত রাখছে ইসি। ইভিএম প্রকল্পের অপারেশন প্ল্যানিং অ্যান্ড কমিউনিক্যাশন ওসি স্কোয়াড্রন লিডার কাজি আশিকুজ্জামান ৩০ জানুয়ারি ভোট সামনে রেখে গণমাধ্যমকর্মীদের জন্য গতকাল সোমবার বিকেল সাড়ে ৩টায় ইভিএম প্রদর্শনীর আয়োজনের কথা জানান। বরাবরের মতো এবারও ইভিএমে ভোটগ্রহণের বিরোধিতায় সরব হয়েছে বিএনপি। দলটির নেতাদের সন্দেহ, যন্ত্রে ভোটগ্রহণ হলে ‘ম্যানিপুলেট’ করার এবং ফলাফল ‘নিয়ন্ত্রণ’ করার সুযোগ থেকে যাবে। তবে নির্বাচন কমিশন বরাবরই বলে এসেছে, ইভিএমে বরং কারচুপির সুযোগ কমবে। ইভিএম প্রকল্পের কর্মকর্তারা বলছেন- ইভিএমে ইন্টারনেট সংযোগ থাকে না, ফলে হ্যাক করার সুযোগ নেই। জালভোট দেওয়া, কেন্দ্র দখল করে ভোট দেওয়া, একজনের ভোট আরেকজন দেওয়া, একবার ভোট দিয়ে থাকলে দ্বিতীয়বার ভোট দেওয়ার সুযোগ ইভিএমে নেই। নির্ধারিত সময়ের আগে মেশিন চালু হওয়ার সুযোগ নেই বলে ভোটগ্রহণ শুরুর সময়ের আগে অবৈধভাবে ভোট দেওয়া বা নেয়ার সুযোগ নেই। পাসওয়ার্ড সংরক্ষিত বলে প্রিজাইডিং অফিসার/সহকারী প্রিজাইডিং কর্মকর্তা ছাড়া অন্য কারো পক্ষে মেশিন চালু করা সম্ভব না। ইভিএম ছিনতাই করে নিলেও অবৈধভাবে ভোট দেওয়া যাবে না। বায়োমেট্রিক তথ্য যাচাই ও ভোটারের উপস্থিতি বাধ্যতামূলক বলে কেন্দ্র দখল বা পছন্দমত প্রিজাইডিং অফিসার/সহকারী প্রিজাইডিং কর্মকর্তা নিয়োগ করেও কারচুপি করার সুযোগ নেই।

ভোটগ্রহণের পরপরই স্বল্প সময়েই কেন্দ্রের ফলাফল ঘোষণা করা যায়। ভোট শেষে স্বয়ংক্রিয়ভাবে ফলাফল মুদ্রণ ও বিতরণ করা সম্ভব। মেশিন ব্যবহারের সম্পূর্ণ লগ সংরক্ষণ করা হয়। উল্লেখ্য যন্ত্রে ভোটগ্রহণ নিয়ে বিভ্রান্তি দূর করতে দেশের বিভিন্ন স্থানে ইভিএম মেলারও আয়োজন করেছে নির্বাচন কমিশন। এ যন্ত্রে আঙ্গুলের ছাপ, ভোটার নম্বর, জাতীয় পরিচয়পত্র নম্বর বা স্মার্ট পরিচয়পত্র ব্যবহার করে ভোটার শনাক্ত করা হয়। নির্দিষ্ট কেন্দ্রের ভোটকক্ষে একজন পোলিং কর্মকর্তা ভোটার ভেরিফিকেশনের কাজটি করেন। ডেটাবেইজে ভোটার বৈধ বা অবৈধ হিসেবে শনাক্ত হলে মনিটরের মাধ্যমে তা দেখতে পান পোলিং এজেন্টরা। ভোটার বৈধ হলে মেশিনে ভোটারকে ভোট দেওয়ার সুযোগ দেওয়া হয়। ভোটার সহকারী প্রিজাইডিং কর্মকর্তার কাছে গেলে গোপন কক্ষে থাকা ব্যালট ইউনিটে ব্যালট ইস্যু করা হয়। ভোটার পছন্দের প্রার্থী ও প্রতীক বেছে নিয়ে ব্যালট ইউনিটের সাদা বোতামে চাপ দিলে প্রতীক সিলেক্ট হবে। ওই ব্যালট ইউনিটে সবুজ রংয়ের ঈঙঘঋওজগ বোতামে চাপ দিলে তার ভোট দেওয়া হয়ে যাবে।

 

৫৯৫ পুলিশ সদস্য পাচ্ছেন ‘আইজিপি ব্যাজ’
                                  

 প্রশংসনীয় ও ভালো কাজের স্বীকৃতিস্বরূপ এবছর ‘আইজিপি’স এক্সেমপ্ল্যারি গুড সার্ভিসেস ব্যাজ’ পাচ্ছেন পুলিশের ৫৯৫ জন কর্মকর্তা ও সদস্য। আসন্ন পুলিশ সপ্তাহের অনুষ্ঠানে ছয়টি বিশেষ ক্যাটাগরিতে মনোনীতরা পুলিশের দ্বিতীয় সর্বোচ্চ এ পুরস্কার পাবেন। আগামীকাল রোববার থেকে শুরু হওয়া পুলিশ সপ্তাহের শেষদিন পুলিশের মহাপরিদর্শক (আইজিপি) ড. মোহাম্মদ জাবেদ পাটোয়ারী এ পুরস্কার দেবেন।

পুলিশ সদর দফতর সূত্র জানায়, পুলিশ সুপার (এসপি) পদমর্যাদা থেকে শুরু করে কনস্টেবল পর্যায়ে মোট ৫৯৫ জন কর্মকর্তা ও পুলিশ সদস্য ‘আইজিপি ব্যাজ’ পাচ্ছেন। গতবারের চেয়ে ৯৪ জন বেশি পুলিশ সদস্যকে এই পুরস্কারের জন্য মনোনীত করা হয়েছে। গত পুলিশ সপ্তাহে আইজিপি ব্যাজ পেয়েছিলেন ৫০১ জন সদস্য। মনোনীত ৫৯৫ জনের মধ্যে ‘এ’ ক্যাটাগরিতে ২০৬ জন, ‘বি’ ক্যাটাগরিতে ১৩৭ জন, ‘সি’ ক্যাটাগরিতে ১০৫ জন, ‘ডি’ ক্যাটাগরিতে ৫২ জন, ‘ই’ ক্যাটাগরিতে ৫১ জন ও ‘এফ’ ক্যাটাগরিতে ৪৪ জন রয়েছেন। জানা যায়, কর্মক্ষেত্রে সততা ও নিষ্ঠার সঙ্গে দায়িত্ব পালন, বাহিনীর মর্যাদা বেড়েছে এমন কর্মকাণ্ডের পাশাপাশি বিভিন্ন ভালো কাজের স্বীকৃতিস্বরূপ প্রতিবছর পুলিশ সপ্তাহে আইজিপি ব্যাজে মনোনীত পুলিশ কর্মকর্তা ও সদস্যদের এ পদক দেওয়া হয়। প্রতি বছরের মতো এবারও মাঠপর্যায়ে যাচাই-বাছাই করে কর্মক্ষেত্রে দক্ষতা, সঠিকভাবে দায়িত্ব পালনসহ বিভিন্ন ভালো কাজে অংশ নেওয়া পুলিশ কর্মকর্তাদের তালিকা তৈরি করা হয়। সেই তালিকা অনুযায়ী ৫৯৫ জনকে এ আইজিপি ব্যাজে মনোনীত করা হয়েছে।

পুলিশ সদর দফতরের এক কর্মকর্তা জানান, আইনশৃঙ্খলা রক্ষা, জননিরাপত্তা বিধান, জনসেবামূলক কর্মকাণ্ড, মামলার রহস্য উদঘাটন, ভালো পুলিশিং, সরকারি ও ব্যক্তিগত কাজের মাধ্যমে পুলিশ বাহিনীর ভাবমূর্তি বাড়ানোসহ বিভিন্ন গুরুত্বপূর্ণ কাজে অবদানের ভিত্তিতে পদকের জন্য যোগ্য কর্মকর্তা ও সদস্যদের নির্বাচিত করা হয়েছে। এই পুরস্কার তাদের জনসেবার কাজে আরও উৎসাহিত করবে। এর আগে, ২০১৯ সালে ৫০১ জন, ২০১৮ সালে ৩২৯ জন ও ২০১৭ সালে ২৮৮ জন পুলিশ কর্মকর্তা ও সদস্য ‘আইজিপি’স এক্সেমপ্ল্যারি গুড সার্ভিস ব্যাজ’ পান। গতবছর ‘আইজিপি ব্যাজ’ পদকের পাশাপাশি প্রত্যেককে ১০ হাজার টাকা আর্থিক মূল্যমানের পুরস্কারও দেওয়া হয়েছে।

আগামীকাল ৫ জানুয়ারি থেকে ১০ জানুয়ারি পর্যন্ত রাজধানীর রাজারবাগ পুলিশ লাইনসে পুলিশ সপ্তাহ-২০২০ অনুষ্ঠিত হবে। প্রথম দিন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা পুলিশ সপ্তাহ উদ্বোধন এবং পুলিশের সর্বোচ্চ পদক বাংলাদেশ পুলিশ পদক (বিপিএম) এবং প্রেসিডেন্ট পুলিশ পদকের (পিপিএম) দেওয়ার কথা রয়েছে। এবছর সেবা, সাহসিকতা ও বীরত্বপূর্ণ ভূমিকার জন্য পুরস্কারস্বরূপ চারটি ক্যাটাগরিতে পুলিশের কনস্টেবল থেকে অতিরিক্ত আইজিপি পদমর্যাদার ১১৮ জন সদস্য বিপিএম-পিপিএম পদকের জন্য মনোনীত হয়েছেন।

 

বছরের প্রথম দিনেই নারায়ণগঞ্জে ৪৮ পুলিশ কর্মকর্তাকে বদলি
                                  

বছরের প্রথম দিনেই নারায়ণগঞ্জ জেলার সাত থানার ৪৮ জন পুলিশ কর্মকর্তাকে বদ‌লি করা হ‌য়ে‌ছে। এসব কর্মকর্তার মধ্যে একজন পরিদর্শক, ২২ জন এসআই ও এএসআই, বাকি ২৫ জন কনস্টেবল। জেলায় এই প্রথম একসাথে এতসংখ্যক পুলিশ কর্মকর্তার বদলির ঘটনা ঘটলো।

বদলিকৃতদের মধ্যে আছেন- সোনারগাঁও থানার ১৪, রূপগঞ্জ থানার ১৪, আড়াইহাজার থানার ৭, ফতুল্লা থানার ৭, বন্দর থানার ৩, সিদ্ধিরগঞ্জ থানার ২, সদর মডেল থানার একজন পুলিশ কর্মকর্তা।

এ ব্যাপারে জেলা পুলিশ সুপার মোহাম্মদ জায়েদুল আলম জানান, বদ‌লি রু‌টিন ওয়ার্ক। দেখা যাচ্ছে, প্রয়োজনের তুলনায় কিছু কিছু থানায় অতিরিক্ত অফিসার রয়েছেন। কিন্তু সে তুলনায় ডিবি, ডিএসবিতে লোক সঙ্কট। তাই থানা থেকে লোক সরিয়ে এনে যেখানে সঙ্কট রয়েছে সেখানকার ঘাটতি পূরণ করা হবে।

তিনি আরো জানান, যাদের বদলি করা হয়েছে তাদের কারো বিরুদ্ধে কোনো অভিযোগ নেই। এই বদলি পুলিশের চলমান প্রক্রিয়া।

সোনারগাঁ থানা পুলিশের অফিসার-ইন-চার্জ (ওসি) মনিরুজ্জামান জানিয়েছেন, কোনো রকম অভিযোগ নয় এই বদলি রুটিনমাফিক করা হয়েছে।

ফতুল্লা মডেল থানা পুলিশের অফিসার-ইন-চার্জ (ওসি) মো: আসলাম হোসেন সাতজন বদলি করা হয়েছে শুনলেও এ সংক্রান্ত কোনো কাগজ তিনি হাতে পাননি বলে জানান।

বন্দর থানা পুলিশের অফিসার-ইন-চার্জ (ওসি) মো: রফিকুল ইসলাম জানিয়েছেন, তার থানা থেকে তিনজনকে বদলি করা হয়েছে। তবে, তিনি বাইরে থাকার কারণে বদলিকৃত তিনজনের নাম জানাতে পারেননি।

সিদ্ধিরগঞ্জ থানা পুলিশের অফিসার-ইন-চার্জ (ওসি) কামরুল ফারুক জানিয়েছেন, তার থানা থেকে আল আমিন নামে একজন এএসআইকে বদলি করা হয়েছে।

সদর থানা পুলিশের পরিদর্শক (তদন্ত) জয়নাল আবেদীন জানিয়েছেন, ৩১ ডিসেম্বর তাদের থানা থেকে শহীদ নামে একজন এসআইকে বদলি করা হয়েছে।

রূপগঞ্জ থানা পুলিশের অফিসার-ইন-চার্জ (ওসি) মাহমুদুল হাসান জানিয়েছে, তার থানা থেকে ১৪ জন এসআই ও এএসআইকে বদলি করা হয়েছে।

আড়াইহাজার থানা পুলিশের অফিসার-ইন-চার্জ (ওসি) নজরুল ইসলাম জানিয়েছে, তার থানাতে কাউকে বদলি করার তথ্য তি‌নি জা‌নেন না। তবে পুলিশের একটি সূত্র জানিয়েছে, আড়াইহাজার থানাতেও সাত কর্মকর্তাকে বদলী করা হয়েছে।

এদিকে, নারায়ণগঞ্জ জেলায় যোগদানের পাঁচ দিনের মাথায় পুলিশ সুপার এত সংখ্যক কর্মকর্তাকে বদলি করায় থানার অন্য কর্মকর্তাদের মাঝে বদলি আতঙ্ক বিরাজ করছে। তাছাড়া একই দিনে এত সংখ্যক পুলিশ কর্মকর্তার বদলির ঘটনা নারায়ণগঞ্জে এবারই প্রথম।

তবে, এমন বদলি যদি ভালো কিছু হয় তাহলে সেটি একটি ব্যতিক্রম উদাহরণ হয়ে থাকবে পুলিশ সুপারের জন্য, এমন মন্তব্যও করেছেন কেউ কেউ।

ক্যাসিনোকাণ্ডে অনুসন্ধান এখনও শেষ হয়নি: দুদক চেয়ারম্যান
                                  

ক্যাসিনোকাণ্ডের মাধ্যমে অবৈধ সম্পদ অর্জনকারীদের বিরুদ্ধে চলমান অনুসন্ধান শেষ হয়ে যায়নি বলে জানিয়েছেন দুর্নীতি দমন কমিশন (দুদক) চেয়ারম্যান ইকবাল মাহমুদ। গতকাল বুধবার সকালে রাজধানীর সেগুনবাগিচায় দুদক কার্যালয়ে ‘দুর্নীতি দমনে অনুসন্ধানী সাংবাদিকতা’ শীর্ষক প্রশিক্ষণ কর্মশালার উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি একথা বলেন। ইকবাল মাহমুদ বলেন, ক্যাসিনোকাণ্ডের মাধ্যমে অবৈধ সম্পদ অর্জনকারীদের বিরুদ্ধে অনুসন্ধান চলমান রয়েছে। দুদকের কার্যক্রম কাউকে দিয়ে প্রভাবিত হবে না। দুদক সব পর্যায়ের দুর্নীতিবাজদের ধরতে তৎপর রয়েছে।

তবে চুনোপুঁটি দুর্নীতিবাজদের গ্রেফতারে বেশি গুরুত্ব দিয়ে থাকে দুদক। কেননা গ্রামের সহজ-সরল, নিরীহ মানুষ চুনোপুঁটি দুর্নীতিবাজদের দ্বারা দুর্নীতি-অনিয়মের শিকার হয়ে থাকেন। তাই এ অনুসন্ধানটিকে গুরুত্ব দেওয়া হয়, যাতে করে গ্রামের সরল মানুষগুলো ক্ষতিগ্রস্ত না হন। তিনি বলেন, দুদকের অনুসন্ধানের ৭০ থেকে ৮০ শতাংশ অভিযোগ গণমাধ্যমে থেকে নেওয়া হয়। সাংবাদিকদের সহযোগিতা ছাড়া দুদকের কার্যক্রম এগিয়ে নেওয়া সম্ভব না। এসময় দুদকে কোনো অনিয়ম ও দুর্নীতি থাকলে সাংবাদিকদের তুলে ধরার কথা বলেন দুদক চেয়ারম্যান।

খুলনা বিআরটিএ কার্যালয়ে দুদকের অভিযান, ২ জনের সাজা
                                  

খুলনার বিআরটিএ কার্যালয়ে দুর্নীতি দমন কমিশন (দুদক) অভিযান চালিয়ে এক দালালকে আটক করেছে। এ সময় আনসার সদস্য আনোয়ারের কাছ থেকে বিপুল পরিমাণ কাগজপত্র জব্দ করা হয়। গতকাল বুধবার সকাল সাড়ে ১০টা থেকে বিকেল ৩টা পর্যন্ত এই অভিযান চলে। পরে ভ্রাম্যমাণ আদালতের মাধ্যমে আনসার সদস্য মো. আনোয়ারকে পাঁচ হাজার টাকা জরিমানা এবং দালাল আকিব মোল্লাকে চারদিনের বিনাশ্রম কারাদণ্ড দেন আদালত।

ভ্রাম্যমাণ আদালত পরিচালনা করেন জেলা প্রসাশনের নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট মো. মিজানুর রহমান। দুদকের সহকারী পরিচালক মো. শাওন মিয়া জানান, বিআরটিএতে গাড়ি হস্তান্তরের কাগজপত্র, গাড়ির রুট পারমিট, ফিটনেস এবং ড্রাইভিং লাইসেন্স তৈরিতে মানুষ প্রতিনিয়ত দালালের মাধ্যমে হয়রানি হচ্ছে। সুনির্দিষ্ট তথ্যের ভিত্তিতে সকাল সাড়ে ১০টায় অভিযান শুরু হয়। অভিযানের সময় আনসার সদস্য মো. আনোয়ারের কাছ থেকে বিভিন্ন ব্যক্তির জাতীয় পরিচয়পত্র, নাগরিক সনদপত্র, নোটারি পাবলিকের কাগজপত্র ও লার্নার ফরম পাওয়া যায়।

এছাড়া যোগীপোল এলাকার আবদুল বারিকের ছেলে দালাল আকিব মোল্লার কাছে বিভিন্ন ব্যক্তির গাড়ির কাগজপত্র পাওয়ায় তাকে আটক করা হয়। পরে ভ্রাম্যমাণ আদালতের মাধ্যমে তাদের অর্থ ও কারাদণ্ড দেওয়া হয়।


   Page 1 of 19
     প্রশাসন
ম্যাজিস্ট্রেটদের কার্যক্রম নিয়ে অসন্তুষ্টি, ফের ইউও নোট মাহবুব তালুকদারের
.............................................................................................
ঢাকা সিটি নির্বাচন: ৩০ জানুয়ারি রাতে বন্ধ হচ্ছে মোটরসাইকেল
.............................................................................................
ভোটের আগে-পরের ৫ দিন অস্ত্র বহনে নিষেধাজ্ঞা
.............................................................................................
ভারতে অনুপ্রবেশকালে ব্রাহ্মণবাড়িয়ার সীমান্তে নাইজেরিয়ান আটক
.............................................................................................
ভোটে সরাসরি থাকছে না সেনাবাহিনী
.............................................................................................
সাগরে ক্ষেপণাস্ত্র নিক্ষেপের মধ্য দিয়ে নৌবাহিনীর মহড়ার সমাপ্তি
.............................................................................................
গ্রাহকের টাকা আত্মসাতের অভিযোগে নোয়াখালীতে ব্যাংক কর্মকর্তা আটক
.............................................................................................
চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়ের হল থেকে দেশীয় অস্ত্র উদ্ধার
.............................................................................................
র‌্যাব পরিচয় ডাকাতির অভিযোগে গ্রেফতার ডিবির এসআই রিমান্ডে
.............................................................................................
ইয়াবা রোধে সহযোগিতা না করায় এখন মিয়ানমারও ভুগছে: বিজিবি প্রধান
.............................................................................................
‘ভোটার তালিকা (সংশোধন) আইন, ২০১৯’ এর খসড়ার অনুমোদন
.............................................................................................
২৫ জানুয়ারি থেকে ইভিএমে ভোটের প্রশিক্ষণ
.............................................................................................
৫৯৫ পুলিশ সদস্য পাচ্ছেন ‘আইজিপি ব্যাজ’
.............................................................................................
বছরের প্রথম দিনেই নারায়ণগঞ্জে ৪৮ পুলিশ কর্মকর্তাকে বদলি
.............................................................................................
ক্যাসিনোকাণ্ডে অনুসন্ধান এখনও শেষ হয়নি: দুদক চেয়ারম্যান
.............................................................................................
খুলনা বিআরটিএ কার্যালয়ে দুদকের অভিযান, ২ জনের সাজা
.............................................................................................
এনবিআর’র নতুন চেয়ারম্যান রহমাতুল মুনিম
.............................................................................................
দুদক কারো নির্দেশনায় চলে না : ইকবাল মাহমুদ
.............................................................................................
আড়াইহাজার থানার এসআই-এএসআই প্রত্যাহার
.............................................................................................
পুলিশ ভেরিফিকেশনের স্বয়ংক্রিয় তথ্য যাবে আবেদনকারীর মোবাইলে
.............................................................................................
দুই সিটির সব নির্বাচনী পোস্টার সরিয়ে নেয়ার নির্দেশ ইসির
.............................................................................................
মোবাইল ব্যাংকিংয়ে ঘুষ লেনদেন-জঙ্গি অর্থায়ন বন্ধ করতে হবে: দুদক চেয়ারম্যান
.............................................................................................
রূপপুর বালিশকান্ডে ক্ষতি ৩১ কোটি টাকা: দুদক চেয়ারম্যান
.............................................................................................
টিআইএনধারী সবাইকে আয়কর রিটার্ন দাখিল করতে হবে: এনবিআর চেয়ারম্যান
.............................................................................................
যোগ্যদের কর দিতে বাধ্য করা হবে : এনবিআর চেয়ারম্যান
.............................................................................................
ফরিদগঞ্জে পুলিশের অভিযানে বিভিন্ন মামলার ৫ আসামী আটক
.............................................................................................
দুর্নীতি সংঘটিত হওয়ার আগেই প্রতিরোধের চেষ্টা হচ্ছে: দুদক চেয়ারম্যান
.............................................................................................
অর্থ আত্মসাতের মামলায় বিমানের সাবেক ২ কর্মকর্তা গ্রেফতার
.............................................................................................
সজ্ঞানে দুর্নীতিতে জড়িয়ে পড়াদের কঠিন পরিণতি হবে: দুদক কমিশনার
.............................................................................................
মাদকদ্রব্য অধিদপ্তরের অনিয়ম-অব্যবস্থাপনার সমালোচনায় দুকক চেয়ারম্যান
.............................................................................................
রাজধানীতে ভূমি অফিস ও ডিপিডিসিতে দুদকের অভিযান
.............................................................................................
ওসমানী মেডিকেলের ২ কর্মকর্তাসহ চারজনের বিরুদ্ধে দুদকের চার্জশিট
.............................................................................................
রূপপুর বালিশকান্ডে আরও ৭ প্রকৌশলীকে দুদকের জিজ্ঞাসাবাদ
.............................................................................................
রূপপুরের বালিশকান্ড: গণপূর্তের ৭ প্রকৌশলীকে দুদকে জিজ্ঞাসাবাদ
.............................................................................................
ঘুষ নেওয়ার সময় দুদকের হাতে খালিশপুর জুটমিলের জিএম গ্রেফতার
.............................................................................................
শুধু চুনোপুঁটি নয়, রাঘববোয়ালদেরও ধরা হচ্ছে: দুদক চেয়ারম্যান
.............................................................................................
রূপপুরের বালিশকান্ডে ৩৩ প্রকৌশলীকে দুদকে তলব
.............................................................................................
মাদকবিরোধী অভিযান অব্যাহত রাখার নির্দেশ প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ের
.............................................................................................
নারায়ণগঞ্জে গ্রেপ্তারের পর ’বন্দুকযুদ্ধে’ একজন নিহত
.............................................................................................
দুই বছরে দুদকে ৩১ লাখ অভিযোগ জমা পড়েছে: সচিব
.............................................................................................
পুলিশকে জনগণের সাথে মিশতে হবে: ডিএমপি কমিশনার
.............................................................................................
চট্টগ্রামে যুবককে পিটিয়ে হত্যায় এসআইসহ গ্রেফতার ২
.............................................................................................
ব্যবসার নামে বিদেশে টাকা পাচার ঠেকাতে মাঠে নেমেছে কেন্দ্রীয় ব্যাংক ও এনবিআর
.............................................................................................
কাউকে হয়রানি করলে কর্মকর্তাদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেয়া হবে: দুদক চেয়ারম্যান
.............................................................................................
ইয়াবাসহ ভারতীয় নাগরিক ও ৪ সহযোগী গ্রেফতার
.............................................................................................
মেননের ক্যাসিনো সংশ্লিষ্টতা তদন্তাধীন : তথ্যমন্ত্রী
.............................................................................................
রাজস্ব ও জন্ম নিবন্ধন অফিসে দুদকের অভিযান, অনিয়মের প্রমাণ মিলেছে
.............................................................................................
বিমান বাহিনী প্রধানের সঙ্গে ইটালির বিমান প্রধানের সাক্ষাৎ
.............................................................................................
সারাদেশে দুদকের ৬ অভিযান
.............................................................................................
সততা ও নিষ্ঠার সাথে দায়িত্ব পালন করুন : দুদক চেয়ারম্যান
.............................................................................................

|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
স্বাধীন বাংলা ডট কম
মো. খয়রুল ইসলাম চৌধুরী কর্তৃক সম্পাদিত ও ঢাকা-১০০০ হতে প্রকাশিত ।

প্রধান উপদেষ্টা: ফিরোজ আহমেদ (সাবেক সচিব, বাণিজ্য মন্ত্রণালয়)
সম্পাদক মন্ডলীর সভাপতি: ডাঃ মো: হারুনুর রশীদ
ব্যবস্থাপনা সম্পাদক : মো: খায়রুজ্জামান
বার্তা সম্পাদক: মো: শরিফুল ইসলাম রানা
সহ: সম্পাদক: জুবায়ের আহমদ
বিশেষ প্রতিনিধি : মো: আকরাম খাঁন
যুক্তরাজ্য প্রতিনিধি: জুবের আহমদ
যোগাযোগ করুন: swadhinbangla24@gmail.com
    2015 @ All Right Reserved By swadhinbangla.com

Developed By: Dynamicsolution IT [01686797756]