বাংলার জন্য ক্লিক করুন
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|

   আন্তর্জাতিক -
                                                                                                                                                                                                                                                                                                                                 
সাইবেরিয়ায় অগ্নিকাণ্ডে নিহত ১১

রাশিয়ার সাইবেরিয়ায় টমস্ক গ্রামে অগ্নিকাণ্ডের ঘটনায় ১১ শ্রমিক নিহত হয়েছেন। মঙ্গলবার ঘটা এই দুর্ঘটনায় নিহত শ্রমিকরা বেশিরভাগই উজবেকিস্তানের নাগরিক বলে জানিয়েছে রাশিয়ার সংবাদ সংস্থা তাস নিউজ।

রাশিয়ার সংবাদ সংস্থা রিয়া জানিয়েছে, নিহতদের মধ্যে দশজন উজবেকিস্তানের নাগরিক এবং একজন রাশিয়ান নারী রয়েছেন।

সংবাদ সংস্থা রয়টার্সের প্রতিবেদনে বলা হয়, নিহতরা কাঠ কাটার কাজে সংশ্লিষ্ট ছিল। একটি একতলা ভবনে আগুন লেগে গেলে দুইজন সেখান থেকে পালাতে সক্ষম হয়। ধারণা করা হচ্ছে, শর্ট সার্কিট থেকেই এই আগুনের সূত্রপাত হয়।

সাইবেরিয়ায় অগ্নিকাণ্ডে নিহত ১১
                                  

রাশিয়ার সাইবেরিয়ায় টমস্ক গ্রামে অগ্নিকাণ্ডের ঘটনায় ১১ শ্রমিক নিহত হয়েছেন। মঙ্গলবার ঘটা এই দুর্ঘটনায় নিহত শ্রমিকরা বেশিরভাগই উজবেকিস্তানের নাগরিক বলে জানিয়েছে রাশিয়ার সংবাদ সংস্থা তাস নিউজ।

রাশিয়ার সংবাদ সংস্থা রিয়া জানিয়েছে, নিহতদের মধ্যে দশজন উজবেকিস্তানের নাগরিক এবং একজন রাশিয়ান নারী রয়েছেন।

সংবাদ সংস্থা রয়টার্সের প্রতিবেদনে বলা হয়, নিহতরা কাঠ কাটার কাজে সংশ্লিষ্ট ছিল। একটি একতলা ভবনে আগুন লেগে গেলে দুইজন সেখান থেকে পালাতে সক্ষম হয়। ধারণা করা হচ্ছে, শর্ট সার্কিট থেকেই এই আগুনের সূত্রপাত হয়।

নদীতে ব্রিজ ভেঙে পড়ে ৭ কিশোর নিহত
                                  

 ইন্দোনেশিয়ায় নদীতে আস্ত ফুটওভারব্রিজ ভেঙে পড়ার ঘটনায় কমপক্ষে সাতজন প্রাণ হারিয়েছে। এখনও নিখোঁজ রয়েছে আরো তিনজন। তারা আর বেঁচে নেই বলেই আশঙ্কা করা হচ্ছে। এ ঘটনায় আহত হয়েছে আরো ২০ জন। হতাহতদের বেশিরভাগই কিশোর। অকস্মাৎ ব্রিজটি ভেঙে পড়ার কারণ হিসাবে বলা হয়েছে, অতিরিক্ত ভারেই এটি ভেঙে নদীতে পড়ে গিয়েছিলো।সোমবার সকালে স্থানীয় কর্মকর্তার বরাত দিয়ে এক আন্তর্জাতিক সংবাদ মাধ্যম জানায়, রোববার বিকেলে সুমাত্রা দ্বীপের বেনংকুলু প্রদেশের কাউর জেলায় এই ফুটওভার ব্রিজটি ভেঙে পড়ে। এতে নদীতে পড়ে যায় ৩০ জনের মতো অল্পবয়সী কিশোর। এদের মধ্যে সাতজন নদীর স্রোতের টানে হারিয়ে যায়। পরে দুর্ঘটনাস্থলের ১২ কিলোমিটার দূর থেকে তাদের মরদেহ উদ্ধার করে উদ্ধারকর্মীরা। এ ঘটনায় এখনও নিখোঁজ রয়েছে ১৪ থেকে ১৭ বছর বয়সী তিন কিশোর। তবে তারা আর বেঁচে নেই বলেই আশঙ্কা করছেন স্থানীয় দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা বিভাগের প্রধান। ওই বিভাগের প্রধান উজাং সাইফিরি জানান, রোববার বিকেলে সুমাত্রা দ্বীপের একটি জলবিদ্যুৎ কেন্দ্র পরিদর্শনে বের হয়েছিল ৩০ জন কিশোর-কিশোরী। ফেরার পথে তারা ওই ফুটওভার ব্রিজের ওপর থেকে স্রোতস্বিনী নদীর ফটো ও ভিডিও করতে থাকে। এ সময় কেউ কেউ আবার মজা করে ব্রিজটি দোলাতে থাকে। কিন্তু একসঙ্গে এত মানুষের চাপ বহন করতে না পেরে নদীতে ভেঙে পড়ে ব্রিজটি। ব্রিজটি ভেঙে যাওয়ার সঙ্গে সঙ্গে ওইসব কিশোরও নদীতে পড়ে যায়। আর নদীর স্রোতের টানে দ্রুত হারিয়ে যায় এদের ১০ জন। ইতোমধ্যে সাতজনের মরদেহ উদ্ধার করা হয়েছে। এখনও নিখোঁজ রয়েছে আরো তিনজন। তবে উদ্ধারকারীরা নদী থেকে ২০ জনকে জীবিত উদ্ধার করতে সক্ষম হয়েছে। এদের প্রায় সবাই আহত। যদিও তাদের কারো আঘাতই গুরুতর নয়।

 

চীনের জিনজিয়াং প্রদেশে শক্তিশালী ভূমিকম্প
                                  

 চীনের উত্তর-পশ্চিমাঞ্চলে উইগুরঅধ্যুষিত জিনজিয়াং অঞ্চলে ৬.০ মাত্রার একটি শক্তিশালী ভূমিকম্প আঘাত হেনেছে। রোববার স্থানীয় সময় রাত ৯:২৭ মিনিটে প্রাচীন সিল্ক রোড শহর কাশগড়ের ১০০ কিলোমিটার পূর্ব-উত্তরপূর্বে ওই ভূমিকম্প আঘাত হানে। মার্কিন ভূতাত্ত্বিক জরিপ সংস্থার বরাত দিয়ে আন্তর্জাতিক সংবাদমাধ্যম এ তথ্য জানায়। খবরে বলা হয়, ভূমিকম্পটির উপকেন্দ্র অগভীর, অর্থাৎ ভূপৃষ্ঠের তুলনামূলক কাছাকাছি।

উৎপত্তিস্থলের কাছাকাছি এলাকায় মানুষজনের বসতি খুব বেশি না থাকলেও যেসব বাড়িঘর আছে তার অনেককাংশই মেটে ইট দিয়ে নির্মিত। ফলে ক্ষয়ক্ষতির আশঙ্কা রয়েছে। এটি মূলত পাহাড়ি ও মরুভূমি অঞ্চল। মার্কিন ভূতাত্ত্বিক জরিপ সংস্থার মতে, এ ভূমিকম্পের ফলে হতাহতের সম্ভাবনা কম।

চীনে নিয়মিতই ভূমিকম্প আঘাত হানে। বিশেষ করে দেশটির পশ্চিম ও দক্ষিণপশ্চিমাঞ্চলের পাহাড়ি এলাকায়। ২০০৩ সালে জিনজিয়াং প্রদেশে ৬.৮ মাত্রার শক্তিশালী এক ভূমিকম্পে ২৬৮ জন নিহত হন। সেবার ওই এলাকার ব্যাপক ক্ষয়ক্ষতি হয়।

ইউক্রেনে বিধ্বস্ত বিমানের ব্ল্যাক-বক্স পাঠাবে ইরান
                                  

 ইরানের রাজধানী তেহরানে গত ৮ জানুয়ারি ইউক্রেনের একটি যাত্রীবাহী বিমান বিধ্বস্তের ঘটনার তদন্ত চলছে। এর মধ্যেই ইরান জানিয়েছে যে, তারা ইউক্রেনকে ওই বিধ্বস্ত বিমানের ব্ল্যাক-বক্স পাঠাবে। ওই দুর্ঘটনায় ১৭৬ জন আরোহীর মৃত্যু হয়। প্রথমদিকে বিমান বিধ্বস্তের ঘটনায় নিজেদের দায় অস্বীকার করলেও দুর্ঘটনার তিনদিন পর ইরান জানায় যে, ভুলবশত বিমানটি গুলি করে ভূপাতিত করা হয়েছে।

ইরানের কর্মকর্তারা জানিয়েছেন, আরও অনুসন্ধানের জন্য তারা বিমানের ব্ল্যাক-বক্সের রেকর্ডার ইউক্রেনকে পাঠাবে। ইরানের বেসামরিক বিমান চলাচল বিভাগের প্রধান হাসান রেজাইফার জানিয়েছেন, ইরানে ওই ব্ল্যাক-বক্সের রেকর্ড উদ্ধার করা সম্ভব নয়। তবে এ বিষয়ে তিনি বিস্তারিত কিছু জানাননি। তিনি বলেন, যদি ইউক্রেনে ব্ল্যাক-বক্সের রেকর্ড উদ্ধার করা সম্ভব না হয় তবে এটি ফ্রান্সে পাঠানো হবে। গত ৮ জানুয়ারি তেহরানের ইমাম খামেনি বিমানবন্দর থেকে উড্ডয়নের মাত্র দুই মিনিটের মাথায় ভুলবশত বিমানটিকে গুলি করে ভূপাতিত করে ইরানের বিপ্লবী গার্ড বাহিনী। ওই বিমান দুর্ঘটনায় ইরানের ৮২ জন, কানাডার ৫৭ জন, ইউক্রেনের ১১ জন, সুইডেনের ১০ জন, আফগানিস্তানের চারজন এবং যুক্তরাজ্যের তিনজন নিহত হয়। ইউক্রেনের ওই বিমানটি এমন এক সময় বিধ্বস্ত হয়েছে যখন যুক্তরাষ্ট্র এবং ইরানের মধ্যে তীব্র উত্তেজনা বিরাজ করছে। গত ৩ জানুয়ারি ইরাকের রাজধানী বাগদাদের আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরে ড্রোন হামলা চালিয়ে ইরানের বিপ্লবী গার্ড বাহিনী কুদস ফোর্সের প্রধান জেনারেল কাসেম সোলেইমানিকে হত্যা করা হয়।

ইরানের সর্বোচ্চ নেতা আয়াতুল্লাহ আলী খামেনির পর দ্বিতীয় শক্তিধর ব্যক্তি ছিলেন জেনারেল সোলেইমানি। তার মৃত্যুর প্রতিশোধ হিসেবে গত ৮ জানুয়ারি ইরাকে মার্কিন ঘাঁটিতে হামলা চালায় তেহরান। এর কয়েক ঘণ্টার মধ্যেই ইউক্রেনের যাত্রীবাহী বিমানটি বিধ্বস্ত হয়। এদিকে, নিজেদের ভুল স্বীকার করে বিমান বিধ্বস্তের ঘটনায় সঠিক তদন্তের আশ্বাস দিয়েছে ইরান। স্বচ্ছভাবে ব্ল্যাক-বক্সের তথ্য বিশ্লেষণের প্রতিশ্রুতি দেওয়া হয়েছে।

লিবিয়া সংকট: বার্লিনে আলোচনায় বসছেন বিশ্বনেতারা
                                  

লিবিয়া সংকটের সমাধানে জার্মানির বার্লিনে আলোচনায় বসছেন বিশ্বনেতারা। রোববার লিবিয়ায় স্থায়ী যুদ্ধবিরতি কার্যকর ও চলমান সংকটের যথার্থ সমাধানের জন্য বিশ্বনেতাদের এ আলোচনা অনুষ্ঠিত হওয়ার তথ্য জানায় আন্তর্জাতিক সংবাদমাধ্যম। ত্রিপোলি ভিত্তিক জাতিসংঘ স্বীকৃত লিবিয়ার জাতীয় সরকারের প্রধানমন্ত্রী ফায়াজ আল-সাররাজ এবং বেনগাজি ভিত্তিক বিদ্রোহী জেনারেল খলীফা হাফতার আলোচনায় অংশগ্রহণ করবেন।

জার্মান চ্যান্সেলর অ্যাঞ্জেলা মার্কেল ও জাতিসংঘের মহাসচিব অ্যান্টোনিও গুতরেসের যৌথ সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত এ আলোচনায় আরও অংশ নেবেন রুশ প্রেসিডেন্ট ভ্লাদিমির পুতিন, ব্রিটিশ প্রধানমন্ত্রী বরিস জনসন, ফরাসি প্রেসিডেন্ট ইম্যানুয়েল ম্যাকরন, তুর্কি প্রেসিডেন্ট রজব তাইয়্যিপ এরদোগানসহ অন্য নেতারা। এর আগে ১২ জানুয়ারি তুরস্ক ও রাশিয়ার যৌথ আহ্বানে সাড়া দিয়ে যুদ্ধবিরতিতে সম্মত হয় লিবিয়ায় যুদ্ধরত আন্তর্জাতিক স্বীকৃত সরকার ও বিদ্রোহী জেনারেল খলীফা হাফতারের বাহিনী। পরে রাশিয়ায় উভয়পক্ষ স্থায়ী যুদ্ধবিরতির জন্য আলোচনায় বসলে কোনো প্রকার চুক্তি স্বাক্ষর ছাড়াই মস্কো ছাড়েন জেনারেল হাফতার।

২০১১ সালে আরব বসন্তের প্রভাবে বিক্ষোভ ও গৃহযুদ্ধে লিবিয়ার দীর্ঘকালীন শাসক মুয়াম্মার আল-গাদ্দাফির পদচ্যুতি ও নিহত হওয়ার পর দেশটি দু’পক্ষে বিভক্ত হয়ে পড়ে। জাতিসংঘ স্বীকৃত লিবিয়ার সরকার রাজধানী ত্রিপোলিসহ দেশটির পশ্চিমাঞ্চল নিয়ন্ত্রণ করতে থাকেন এবং বেনগাজিকে কেন্দ্র করে মিশর ও সংযুক্ত আরব আমিরাতের সমর্থিত বিদ্রোহী জেনারেল খলিফা হাফতারের বাহিনী দেশটির পূর্বাঞ্চলের দখল নেয়।

 

বিমান বিধ্বস্তে নিহত প্রতি পরিবারে ২৫০০০ ডলার দেবে কানাডা
                                  

 ইরানের রাজধানী তেহরানে ইমাম খামেনি বিমানবন্দরে বিমান বিধ্বস্তের ঘটনায় নিহত কানাডার নাগরিকদের প্রত্যেকের পরিবারকে ২৫ হাজার ডলার দেওয়ার ঘোষণা দিয়েছে কানাডা। গত ৮ জানুয়ারি ভুলবশত ইউক্রেনের একটি যাত্রীবাহী বিমান গুলি করে ভূপাতিত করে তেহরান। ওই বিমানটিতে ইরানের ৮২ জন, কানাডার ৫৭ জন, ইউক্রেনের ১১ জন, সুইডেনের ১০ জন, আফগানিস্তানের চারজন এবং যুক্তরাজ্যের তিনজন নিহত হয়।

কানাডা জানিয়েছে, নিহত ৫৭ জনের প্রত্যেকের পরিবারকে ২৫ হাজার ডলার করে দেওয়া হবে। এক প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, শুক্রবার এক সংবাদ সম্মেলনে কানাডার প্রধানমন্ত্রী জাস্টিন ট্রুডো এই ঘোষণা দিয়েছেন। তিনি যখন এই ঘোষণা দেন তখন ওমানের রাজধানী মাসকাটে মুখোমুখি বৈঠক করছিলেন কানাডার পররাষ্ট্রমন্ত্রী ফ্রাসোয়া ফিলিপ এবং ইরানের পররাষ্ট্রমন্ত্রী মোহাম্মদ জাভেদ জারিফ। ইউক্রেনের ওই বিমানটি এমন এক সময় বিধ্বস্ত হয়েছে যখন যুক্তরাষ্ট্র এবং ইরানের মধ্যে তীব্র উত্তেজনা বিরাজ করছে। গত ৩ জানুয়ারি ইরাকের রাজধানী বাগদাদের আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরে ড্রোন হামলা চালিয়ে ইরানের বিপ্লবী গার্ড বাহিনী কুদস ফোর্সের প্রধান জেনারেল কাসেম সোলেইমানিকে হত্যা করা হয়। ইরানের সর্বোচ্চ নেতা আয়াতুল্লাহ আলী খামেনির পর দ্বিতীয় শক্তিধর ব্যক্তি ছিলেন জেনারেল সোলেইমানি। তার মৃত্যুর প্রতিশোধ হিসেবে গত ৮ জানুয়ারি ইরাকে মার্কিন ঘাঁটিতে হামলা চালায় তেহরান। এর কয়েক ঘণ্টার পরেই ইউক্রেনের যাত্রীবাহী বিমানটি বিধ্বস্ত হয়। প্রথমদিকে বিমান বিধ্বস্তের ঘটনায় নিজেদের দায় অস্বীকার করে ইরান। তবে দুর্ঘটনার তিনদিন পর ওই ঘটনার দায় স্বীকার করে ইরান জানায় যে, ভুলবশত ওই বিমানটি ভূপাতিত করা হয়েছে।

বিমান বিধ্বস্তের ঘটনা তদন্তে ইউক্রেনকে অংশ নেয়ার জন্য আমন্ত্রণ জানিয়েছে ইরান। তারা স্বচ্ছভাবে ব্ল্যাক-বক্সের তথ্য বিশ্লেষণের প্রতিশ্রুতি দিয়েছে। ট্রুডো জানিয়েছেন, দ্বিপাক্ষিক বৈঠকে ইরান ও যুক্তরাষ্ট্রের মধ্যকার সাম্প্রতিক উত্তেজনা কমিয়ে আনতে জাভেদ জারিফকে আহ্বান জানিয়েছেন ফ্রাসোয়া ফিলিপ। সংবাদ সম্মেলনে ট্রুডো বলেন, নিহতদের মরদেহ দেশে আনা, তাদের শেষকৃত্য সম্পন্ন এবং অন্যান্য কাজে ব্যয়ের জন্য ২৫ হাজার ডলার করে সহায়তা দেওয়া হবে। এর পুরোটাই কানাডা কর্তৃপক্ষের সহায়তা। এখনও নিহতদের পরিবারকে ইরানের তরফ থেকে কোনো ক্ষতিপূরণ দেওয়া হয়নি। ট্রুডো বলেন, আমরা আশা করছি ইরান এই ক্ষতিগ্রস্ত পরিবারগুলোকে সহায়তা প্রদান করবে।

চীনে রহস্যজনক ভাইরাসে অসুস্থ ১৭০০ মানুষ
                                  

 চীনে রহস্যজনক ভাইরাসে আক্রান্ত হয়ে অসুস্থ হয়ে পড়েছেন শত শত মানুষ। সরকারিভাবে আক্রান্তের সংখ্যা যা বলা হচ্ছে প্রকৃতপক্ষে এই সংখ্যা আরও বেশি বলে ধারণা করছেন বিজ্ঞানীরা। ল্যাবরেটরিতে পরীক্ষা-নিরীক্ষার পর এখন পর্যন্ত ৪১ জনের নতুন এই ভাইরাসের আক্রান্তের বিষয়টি নিশ্চিত হওয়া গেছে। তবে যুক্তরাজ্যের বিশেষজ্ঞরা বলছেন, এই ভাইরাসে আক্রান্ত মানুষের সংখ্যা প্রায় ১৭শ। এই ভাইরাসে আক্রান্ত হয়ে এখন পর্যন্ত দু`জনের মৃত্যু হয়েছে। গত ডিসেম্বরে উহান শহরে এই ভাইরাসের আবির্ভাব ঘটে। রোগের প্রাদুর্ভাব নিয়ে গবেষণা করা অধ্যাপক নেইল ফার্গুসন বলেন, এক সপ্তাহ আগের চেয়ে আমি এখন এই বিষয়ে অনেক বেশি চিন্তিত। চীনের উহান থেকে আসা যাত্রীদের সিঙ্গাপুর এবং হংকংয়ের বিমানবন্দরে স্বাস্থ্য পরীক্ষা করছে কর্তৃপক্ষ।

যুক্তরাষ্ট্রও ঘোষণা করেছে যে, তারা শুক্রবার থেকে সান ফ্রান্সিসকো, লস অ্যাঞ্জেলস এবং নিউইয়র্কের প্রধান বিমানবন্দরে একই ধরনের কার্যক্রম শুরু করবে। কারণ আক্রান্ত ব্যক্তিদের দ্বারা এই ভাইরাস ছড়িয়ে পড়তে পারে বলে আশঙ্কা করা হচ্ছে। চীনের রোগ নিয়ন্ত্রণ ও প্রতিরোধ কেন্দ্র জানিয়েছে, এই ভাইরাসে আক্রান্ত রোগীদের শরীরে প্রথমেই যে লক্ষণগুলো পাওয়া গেছে সেগুলো হলো, শ্বাসকষ্ট, জ্বর, সর্দি, কাশি। এ থেকে প্রথমেই মনে হতে পারে যে রোগী নিউমোনিয়ায় আক্রান্ত হয়েছেন। অনেকটা নিউমোনিয়ার মতোই এই ভাইরাসটি এক ধরনের করোনা ভাইরাস। উহান হেলথ কমিশন জানিয়েছে, রহস্যজনক এই ভাইরাসে অনেকে আক্রান্ত হয়েছেন। এদের মধ্যে ১২ জন হাসপাতাল থেকে ছাড়া পেলেও পাঁচজন এখনও চিকিৎসা নিচ্ছেন। তাদের অবস্থা বেশ গুরুতর।

স্থানীয় কর্তৃপক্ষ জানিয়েছে, সামুদ্রিক খাবার বিক্রির একটি বাজার থেকে এই রোগ ছড়িয়ে পড়েছে। বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা জানিয়েছে, একজনের শরীর থেকে অপরজনের শরীরে এই ভাইরাস ছড়িয়ে পড়ার বিষয়টি এখনও নিশ্চিত হওয়া না গেলেও এ ধরনের সংক্রমণের সম্ভাবনা রয়েছে। বিশেষ করে পরিবারের লোকজনের মধ্যে সংক্রমণের আশঙ্কা বেশি।

সেনা মোতায়েনে যুক্তরাষ্ট্রকে ৫০ কোটি ডলার দিয়েছে সৌদি
                                  

 সৌদি আরবে মার্কিন সেনা মোতায়েনে যুক্তরাষ্ট্রকে ৫০ কোটি ডলার দিয়েছে রিয়াদ। এক প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, মার্কিন বাহিনী মোতায়েনে খরচ বাবদ এই বিপুল পরিমাণ অর্থ দিতে হয়েছে সৌদিকে। নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক এক মার্কিন কর্মকর্তা বলেছেন, গত ডিসেম্বরে যুক্তরাষ্ট্রকে এই অর্থ দিয়েছে সৌদি। যদি এই তথ্য সত্য হয় তবে তা হবে মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্পের সাম্প্রতিক সময়ে দেওয়া বক্তব্যের সঙ্গে সংঘর্ষপূর্ণ। গত সপ্তাহে ফক্স নিউজকে দেওয়া এক সাক্ষাতকারে প্রেসিডেন্ট ট্রাম্প বলেছিলেন, রিয়াদ ইতোমধ্যেই সেনা মোতায়েনের জন্য ১০০ কোটি ডলার ব্যাংকে জমা দিয়েছে।

তবে পেন্টাগন আনুষ্ঠানিকভাবে সৌদি আরবের কাছ থেকে প্রাপ্ত অর্থের পরিমাণ নিশ্চিত করেনি। এমনকি এই অর্থ যে গ্রহণ করা হয়েছে সে বিষয়েও পরিষ্কার কিছু জানানো হয়নি। অপরদিকে সিএনএর এক প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, সৌদিকে কত ব্যয় করতে হবে সে বিষয়ে দুই মিত্র দেশের মধ্যে দ্বিপক্ষীয় আলোচনা চলছে। এর মধ্যে সেনা মোতায়েনের জন্য কি পরিমাণ খরচ হবে তাও অন্তর্ভূক্ত রয়েছে। গত বছরের সেপ্টেম্বরে সৌদি তেল ক্ষেত্রে হামলার পর তেহরান ও রিয়াদের মধ্যে চলমান উত্তেজনার মধ্যেই সেখানে কয়েক হাজার মার্কিন সেনা ও ক্ষেপণাস্ত্র প্রতিরক্ষা ব্যবস্থা মোতায়েন করে যুক্তরাষ্ট্র।

রিয়াদের ওই তেলক্ষেত্রে হামলার জন্য প্রথম থেকে ইরানকেই দায়ী করে আসছে যুক্তরাষ্ট্র। সাম্প্রতিক সময়ে ইরাকে ইরানের বিপ্লবী গার্ড বাহিনীর কুদস ফোর্সের প্রধান জেনারেল কাসেম সোলেইমানিকে হত্যার ঘটনাকে কেন্দ্র করে ইরান ও যুক্তরাষ্ট্রের মধ্যে নতুন করে উত্তেজনা শুরু হয়েছে। এর মধ্যেই এমন চাঞ্চল্যকর তথ্য সামনে এসেছে।

চীনকে হুমকি যুক্তরাষ্ট্রের
                                  

ইরানের কাছ থেকে তেল কেনা বন্ধ না করলে চীনের ওপর নতুন করে নিষেধাজ্ঞা আরোপের হুমকি দিয়েছে যুক্তরাষ্ট্র। গতকাল শুক্রবার ডোনাল্ড ট্রাম্পপন্থি আমেরিকান রেডিও টকশোতে হোস্ট হিউ হুইটকে দেওয়া এক সাক্ষাৎকারে মার্কিন পররাষ্ট্রমন্ত্রী মাইক পম্পেও এমন কথা জানান বলে ইরান প্রেসের খবরে বলা হয়।

ওই সাক্ষাৎকারে মাইক পম্পেও বলেন, ‘ইরানের কাছ থেকে তেল কিনে মার্কিন আইন ভঙ্গ করেছে চীন কোম্পানিগুলো। আমাদের বিধিনিষেধ লঙ্ঘনকারী প্রত্যেকের বিরুদ্ধে নিষেধাজ্ঞা কার্যকর করতে যা যা করা প্রয়োজন সবই করা হবে।’ 

এর আগে গত বৃহস্পতিবার ওয়াশিংটনের একতরফা নিষেধাজ্ঞা ও একচ্ছত্র বিচার প্রক্রিয়ার বিষয়ে অভিযোগ তুলে চীন ও ইরানের বিরুদ্ধে নতুন নিষেধাজ্ঞা প্রত্যাখ্যান করেছে বেইজিং।  

ইরান ও চীনের বিরুদ্ধে এই নিষেধাজ্ঞার বিষয়ে চীনা পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের মুখপাত্র গ্যাং সুয়াং বলেন, ‘আমরা  একতরফা নিষেধাজ্ঞা ও একচ্ছত্র বিচার প্রক্রিয়ার বিরোধিতা করি। আমরা বিশ্বাস করি নিষেধাজ্ঞার অযৌক্তিক ব্যবহার এবং হুমকি কোনো সমস্যার সমাধান করবে না।’ 

তিনি আরও বলেন, ‘যুক্তরাষ্ট্রের উচিত এই অবৈধ নিষেধাজ্ঞাগুলো তুলে নেওয়া। আমরা চীনা ব্যবসায়ীদের বৈধ অধিকার ও স্বার্থ রক্ষার্থে সর্বদা অবিচল থাকব।’ 

ইউরেনিয়াম সমৃদ্ধি থেকে সরে আসতে ২০১৫ সালে বিশ্বের পাঁচ শক্তিধর দেশ যুক্তরাষ্ট্র, চীন, রাশিয়া, জার্মানি, ফ্রান্স, যুক্তরাজ্য ও ইউরোপীয় ইউনিয়নের সঙ্গে চুক্তি হয় ইরানের।  এরপর ২০১৮ সালে ট্রাম্প সরকার ক্ষমতায় আসার পর এই চুক্তি থেকে বেড়িয়ে এসে ইরানের ওপর নতুন করে নিষেধাজ্ঞা আরোপ করে যুক্তরাষ্ট্র। এই নিষেধাজ্ঞার ফলে ইরানের অর্থনৈতিক ভঙ্গুরতা আরও বৃদ্ধি পেয়েছে। তবে ইরানও ওই চুক্তি থেকে ধীরে ধীরে সরে আসছে। 

১৬০ দিন পর মুক্তি পেল কাশ্মীরের ৫ নেতা
                                  

 ভারত নিয়ন্ত্রিত জম্মু-কাশ্মীরের বিশেষ মর্যাদা বাতিলের সময় আটক নেতাদের মধ্যে পাঁচজনকে মুক্তি দেওয়া হয়েছে। ১৬০ দিন গৃহবন্দী রাখার পর বৃহস্পতিবার তাদের মুক্তি দেওয়া হয়। ভারতের সংবাদমাধ্যম এনডিটিভি জানায়, মুক্তিপ্রাপ্ত নেতাদের মধ্যে ন্যাশনাল কনফারেন্সের (এনসি) তিনজন এবং ডেমোক্রেটিক পার্টির (ডিপি) দুজন নেতা রয়েছেন। এদের মধ্যে এনসি`র মুক্তিপ্রাপ্ত নেতারা হলেন- আলতাফ কালু, শওকত গনাই ও সালমান সাগর এবং ডিপি`র দুই নেতা হলেন- নিজামুদ্দিন ভাট ও মুখতার বাধ। তবে এখনো কাশ্মীরের সাবেক তিন মুখ্যমন্ত্রী ফারুক আবদুল্লাহ,তার ছেলে ওমর আবদুল্লাহ ও মেহবুবা মুফতিকে মুক্তি দেওয়া হয়নি।

সাবেক এই তিন মুখ্যমন্ত্রীকে কবে নাগাদ মুক্তি দেওয়া হবে তাও স্পষ্ট করেনি স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়। তবে বৃহস্পতিবার হরি নিবাস থেকে ওমর আব্দুল্লাহকে শ্রীনগরে স্থানান্তরিত করা হয়েছে। এ ছাড়া পাঁচ মাসেরও বেশি সময় বন্ধ থাকার পর গত বুধবার থেকে কাশ্মীরে আংশিকভাবে ইন্টারনেট সেবা চালু করা হয়েছে। তবে এখনো বেশির ভাগ জায়গায় ইন্টারনেট সুবিধা থেকে বঞ্চিত কাশ্মীরবাসীরা। সম্প্রতি সুপ্রিম কোর্টের নির্দেশের পর টু জি সার্ভিস দেওয়ার জন্য অপারেটর কোম্পানিগুলোকে নির্দেশ দিয়েছে প্রশাসন। সেখানে জারিকৃত বিধিনিষেধ শিথিলের অংশ হিসেবে রাজনীতিবীদদের মুক্তি ও ইন্টারনেট সেবা চালু করা হয়েছে। এর আগে গত বছরের ৫ আগস্ট জম্মু-কাশ্মীরের বিশেষ অধিকার ও স্বায়ত্তশাসন কেড়ে নিয়ে রাজ্যটিকে দুটি কেন্দ্র শাসিত অঞ্চলে ভাগ করে কেন্দ্রীয় সরকার।

এই সিদ্ধান্তকে কেন্দ্র করে সেখানে কঠোর বিধিনিষেধ জারি করে প্রশাসন। বিশেষ রাজ্যের মর্যাদা রদের সময় থেকে ‘সতর্কতামূলক পদক্ষেপ’ হিসেবে আটক করা হয়েছিল সাবেক মুখ্যমন্ত্রীসহ অন্য নেতাদের। ধীরে ধীরে সরকারি সেসব বিধিনিষেধ তুলে নিচ্ছে কেন্দ্রীয় সরকার। সেই কৌশলের অংশ হিসেবে গত ৩০ ডিসেম্বর সাবেক পাঁচ বিধায়ককে মুক্তি দেওয়া হয়। তবে এখনো বন্দী রয়েছেন ৩০ জনেরও বেশী সাবেক মন্ত্রী ও বিধায়ক।

দাবানলের পর সিগারেট কঠোর হচ্ছে অস্ট্রেলিয়ায়
                                  

 অস্ট্রেলিয়ায় গাড়ি চালানোর সময় জানালা দিয়ে সিগারেট বের করে রাখলে চালককে ১১ হাজার ডলার জরিমানা গুনতে হবে। সম্প্রতি শাস্তির এ বিধান জারি করেছে দেশটির নিউ সাউথ ওয়েলস (এনএসইউ) সরকার। শুধু চালক নয়, যাত্রীদের ক্ষেত্রেও এ আইন প্রযোজ্য। শুক্রবার থেকে শাস্তির বিধান কার্যকর করা হয়েছে। এর আওতায় গাড়ি চালকদের জন্য সর্বনিম্ন জরিমানা ৫ ডিমেরিট পয়েন্ট যোগ হবে। তবে পরিস্থিতি বুঝে ডিমেরিট পয়েন্ট ডাবলও হতে পারে। এছাড়া চালককে ১১ হাজার ডলার পর্যন্ত জরিমানা গুনতে হবে। সেই সঙ্গে শাস্তিস্বরূপ তাৎক্ষণিকভাবে লাইসেন্সও হারাতে পারেন চালক।

গেল বছরের সেপ্টেম্বর থেকে দেশটির নিউ সাউথ ওয়েলসে শুরু হওয়া দাবানলে এখন পর্যন্ত প্রায় ২৮ জনের প্রাণহানি ঘটেছে। এরপরই সিগারেটের ব্যাপারে কঠোর হলো দেশটির সরকার। ব্রিটিশ গণমাধ্যম প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, নিউ সাউথ ওয়েলসে কোনো ব্যক্তি যদি রাস্তা বা রাস্তার আশেপাশে সিগারেটের টুকরো ফেলে, তাহলে তাকে ৬৬০ ডলার জরিমানা গুনতে হবে। অনেক ক্ষেত্রে জরিমানা ডাবলও হতে পারে। গত বছর যেখানে সেখানে সিগারেটের টুকরো ফেলার দায়ে ২০০ জনকে আটক করা হয়। নিউ সাউথ ওয়েলসের পুলিশ ও জরুরি সেবামন্ত্রী ডেভিড ইলিয়ট বলেন, ‘এ ধরনের অপরাধে এবারই প্রথম ডিমেরিট পয়েন্ট যোগ করার শাস্তির বিধান আনা হয়েছে। আমার এলাকায় গাড়ি চালকরা ঘাসের ওপর সিগারেট ফেলার কারণে এ পর্যন্ত তিনবার অগ্নিকাণ্ডের ঘটনা ঘটেছে।’

গাড়ির ভেতর থেকে কাউকে সিগারেট বের করে রাখতে দেখলে, কিংবা যত্রতত্র সিগারেটের টুকরো ফেলতে দেখলে দ্রুত অভিযোগ দেয়ার আহ্বান জানিয়েছেন স্থানীয় ফায়ার সার্ভিস অ্যাসোসিয়েশনের সেক্রেটারি স্টিভ রবিনসন। গত কয়েক মাস ধরেই নজিরবিহীন দাবানল পরিস্থিতির সঙ্গে লড়াই করছে অস্ট্রেলিয়া। দেশটির পরিবেশ বিজ্ঞানীরা জানিয়েছেন, দাবানলের লেলিহান শিখায় অন্তত ৫০ কোটি প্রাণী মারা গেছে। নিউ সাউথ ওয়েলসের কর্মকর্তা জানিয়েছেন, সেখানে আগুনে এক হাজার ৫শ ৮৮ বাড়ি-ঘর আগুনে পুড়ে গেছে। এছাড়া ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে আরও ৬শ ৫৩ বাড়ি-ঘর। দাবানল নেভাতে অস্ট্রেলিয়ার প্রধানমন্ত্রী স্কট মরিসন ৩ হাজার সৈন্য মোতায়েন করেছেন।

ধর্ষককে পুড়িয়ে মারল ক্ষুব্ধ জনতা
                                  

 বছরের এক শিশুকে ধর্ষণের পর খুনের অভিযোগে এক ব্যক্তিকে পুড়িয়ে মেরেছে বিক্ষুব্ধ গ্রামবাসী। ঘটনাটি ঘটেছে মেক্সিকোর ছিয়াপাস প্রদেশের একটি গ্রামে। গত ৯ জানুয়ারি থেকে ওই শিশুর খোঁজ পাওয়া যাচ্ছিল না। পরদিন ১০ জানুয়ারি ওই শিশুর দেহ গ্রামের রাস্তার ধারে পড়ে থাকতে দেখা যায়। এ ঘটনার আলফ্রেডো রোবলেরো নামের ওই ব্যক্তিকেই সবাই সন্দেহ করতে থাকেন। শিশুর পরিবারের লোকজন অভিযুক্তকে ধরে পুলিশের কাছে নিয়ে যাচ্ছিলেন। তখন তাদের হাত থেকে ধর্ষণকারীকে ছিনিয়ে নেন ক্ষিপ্ত গ্রামবাসীরা। তারপর তাকে একটি খুঁটিতে বেঁধে ফেলেন তারা। সেখানেই অভিযুক্তর গায়ে ঢালা হয় পেট্রল।

 

তারপর লাগিয়ে দেয়া হয় আগুন। সবার সামনেই পুড়তে থাকেন আলফ্রেডো। আগুন দিয়ে পুড়িয়ে দেয়ার ঘটনাটির ভিডিও ছড়িয়ে পড়েছে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে। আলফ্রেডোর আগুন লাগানোর খবর পেয়ে সেখানে পৌঁছায় পুলিশ। তবুও আলফ্রেডোর জীবন বাঁচানো যায়নি।

আলফ্রেডোই ওই শিশুকে ধর্ষণ করে খুন করেছিলেন কি না সে বিষয়েও নিশ্চিত কোনো প্রমাণ পুলিশকে দিতে পারেননি গ্রামবাসীরা। তবে প্রমাণ না থাকা সত্ত্বেও গ্রামবাসীদের বিরুদ্ধে কী ব্যবস্থা নেয়া হয়েছে তা এখনো জানা সম্ভব হয়নি।

তুরস্ক-মালয়েশিয়া থেকে আমদানি বন্ধ ভারতের
                                  

অবরুদ্ধ কাশ্মির নিয়ে ভারতীয় নীতির সমালোচনা করায় মোদি সরকারের রোষানলে পড়ছে মুসলিম সংখ্যাগরিষ্ঠ দুই দেশ তুরস্ক ও মালয়েশিয়া। তুরস্ক থেকে বেশ কিছু পণ্য আমদানি বন্ধ এবং মালয়েশিয়া থেকে পাম অয়েলের পর এবার তেল ও গ্যাসসহ অন্যান্য পণ্য আমদানির ক্ষেত্রেও নিষেধাজ্ঞা আরোপের পরিকল্পনা করছে ভারত।

ভারতের সরকারি কর্মকর্তারা জানিয়েছেন, ইতোমধ্যে মালয়েশিয়া থেকে পামওয়েল আমদানি বন্ধ করেছে বিশ্বের বৃহত্তম ভোজ্যতেলের ক্রেতা ভারত। মালয়েশিয়ার পরিবর্তে অন্য কোনো দেশ থেকে পাম অয়েল আমদানি করতে স্থানীয় ব্যবসায়ীদের নির্দেশনাও দিয়েছে কর্তৃপক্ষ।

নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক ভারতের দু’জন সরকারি কর্মকর্তা রয়টার্সকে জানিয়েছেন, পাম অয়েলের পর মালয়েশিয়া থেকে পেট্রোলিয়াম, অ্যালুমিনিয়াম, তরলীকৃত প্রাকৃতিক গ্যাস (এলপিজি), কম্পিউটার যন্ত্রাংশ ও মাইক্রোপ্রসেসর আমদানিতেও নিষেধাজ্ঞা আরোপের পরিকল্পনা করছে নয়াদিল্লি।

ভারতের ওই দুই সরকারি কর্মকর্তার একজন জানান, মালয়েশিয়া ছাড়াও তুরস্ক থেকে তেল ও ইস্পাতজাত পণ্য আমদানি বন্ধের পরিকল্পনাও করছে মোদি সরকার। অপরজন বলেন, ‘মালয়েশিয়া ও তুরস্ক (কাশ্মির ইস্যুতে) যে মন্তব্য করেছে তা সরকার ভালোভাবে নেয়নি। তাই উভয় দেশ থেকে আমদানির ওপর বিধিনিষেধ আরোপ হবে।’

তবে এ বিষয়ে নিশ্চিত হতে রয়টার্স ইমেইলে ভারতের বাণিজ্য মন্ত্রণালয়ের মন্তব্য জানতে চাইলেও তারা তারা এর কোনো জবাব দেয়নি। তবে কাশ্মির নিয়ে মুসলিম সংখ্যাগরিষ্ঠ এই দুই দেশের মন্তব্যের পর মোদি নেতৃত্বাধীন বিজেপি সরকারের মালয়েশিয়া ও তুরস্কের সাথে বাণিজ্য সম্পর্ক সীমিত করার পথেই হাঁটছে।

সম্প্রতি মালয়েশিয়ার প্রধানমন্ত্রী ড. মাহাথির মোহাম্মদ বলেছেন, ভারত জম্মু- কাশ্মিরে সামরিক আগ্রাসন চালিয়ে ওই এলাকা দখল করে নিচ্ছে। সূত্র : রয়টার্স।

ইরানের ক্ষেপণাস্ত্র হামলায় ১১ মার্কিন সেনা আহত : যুক্তরাষ্ট্র
                                  

গত সপ্তাহে ইরাকের আল-আসাদ বিমানঘাঁটিতে যুক্তরাষ্ট্রের সেনা ও তাদের মিত্রদের লক্ষ্য করে ইরানের ক্ষেপণাস্ত্র হামলায় ১১জন মার্কিন সেনা আহত হয়েছে। মধ্যপ্রাচ্যে যুক্তরাষ্ট্রের কেন্দ্রীয় কমান্ড এক বিবৃতিতে বলেছেন, ‘ইরানের ক্ষেপণাস্ত্র হামালায় বেশ কয়েকজন সেন্য আহত হয়েছে। তাদের এখানো চিকিৎসা দেয়া হচ্ছে।’

বিবৃতিতে বলা হয়, ‘ক্ষেপণাস্ত্র হামলার পরই আহত আল-আসাদ ঘাঁটি থেকে আটজনকে অন্য জায়গায় সরিয়ে নেয়া হয়। পরে আরো তিনজনকে আরিফজান ক্যাম্প থেকে আহত অবস্থায় উদ্ধার করে চিকিৎসার জন্য নিয়ে যাওয়া হয়।

অথচ ইরানি হামলার পরদিন সকালে জাতির উদ্দেশ্যে দেয়া ভাষণে প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প বলে ছিলেন, ‘আমাদের কেউ হতাহত হয়নি। আমাদের সব সেনারা নিরাপদে আছেন। শুধুমাত্র সামরিক ক্যাম্পগুলো সামান্য ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে।’

ইরানের সবচেয়ে ক্ষমতাধর জেনারেল কাশেম সোলাইমানি যুক্তরাষ্ট্রের ড্রোন হামলায় নিহত হন। তার প্রতিশোধ নিতেই এই হামলা চালিয়ে ছিলো তেহরান।

আহতাদের নিয়ে প্রথম রিপোর্ট করে ছিলো ডিফেন্স ওয়ান।

বিবৃতিতে আরো বলা হয়, ক্ষেপণাস্ত্র হামালয় আহত সৈন্যরা মস্তিকে আঘাত প্রাপ্ত হন। উন্নত চিকিৎসার জন্য তাদের সেখান থেকে সরিয়ে নেয়া হয়েছে। আল আসাদ বিমানঘাঁটিতে আহতদের জার্মানির ল্যান্ডস্টুল রিজনাল মেডিকেল সেন্টারে চিকিৎসার জন্য নেয়া হয়। আর আরিফজান ক্যাম্পে আহতদের কুয়েতে চিকিৎসার জন্য পাঠানো হয়েছে।

 

 
যুদ্ধ এড়াতে বিশ্বনেতাদের সঙ্গে সংলাপ চান রুহানি
                                  

মধ্যপ্রাচ্যে যুক্তরাষ্ট্র কিংবা অন্য কোনো দেশের সঙ্গে যেকোনো ধরনের সংঘাত বা যুদ্ধ এড়াতে বিশ্বনেতাদের সঙ্গে সংলাপ চাচ্ছেন ইরানের প্রেসিডেন্ট ড. হাসান রুহানি।ওয়াশিংটনের সঙ্গে চলমান তীব্র উত্তেজনার মধ্যে গতকাল বৃহস্পতিবার এক ভাষণে তিনি এ কথা জানান।

রুহানি বলেন,‘সংঘাত এড়াতে প্রতিনিয়তই কাজ করে যাচ্ছে তেহরান।’ এই প্রচেষ্টাকে আরও ফলপ্রসূ করতে বিশ্বনেতাদের সঙ্গে সংলাপ জরুরি বলে মনে করেন তিনি।

যেকোনো পরিস্থিতিতে এমন সংলাপ সম্ভব বলেও মন্তব্য করেন রুহানি। সেই লক্ষ্যেই চলমান উত্তেজনার মধ্যে গুরুত্বপূর্ণ বাণিজ্য অংশীদার ভারত সফর করছেন ইরানের পররাষ্ট্রমন্ত্রী জাভেদ জারিফ বলে উঠে এসেছে সংবাদ সংস্থা এএফপি`র এক প্রতিবেদনে।

বুধবার নয়াদিল্লিতে ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদির সঙ্গে বৈঠক করেন জারিফ। বৈঠকে দ্বিপক্ষীয় সম্পর্কের নানা দিক নিয়ে কথা হয়।

দুই নেতাই আর্থ-বাণিজ্যিক সম্পর্ক বিশেষ করে জ্বালানি ক্ষেত্রে সহযোগিতা এবং চবাহর বন্দর নিয়ে মতবিনিময় করেছেন। এর আগে ভারতের গণমাধ্যম এনডিটিভিকে দেওয়া এক সাক্ষাৎকারে পারস্য উপসাগরে উত্তেজনা কমাতে ভূমিকা রাখতে তিনি ভারতের প্রতি আহ্বান জানান।

ইরানের সঙ্গে সংঘাতময় পরিস্থিতিতে তেহরান ঘনিষ্ঠ ভারতকে পাশে চায় মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প। তবে আমেরিকা-ইরানের সঙ্গে যতটা সম্ভব ভারসাম্য বজায় রেখে চলতে চায় ভারত। ভারতের কূটনৈতিক সূত্রের বরাতে এমনটা জানিয়েছে দেশটির সংবাদমাধ্যমগুলো।

আনন্দবাজার পত্রিকা বলেছে, মার্কিন ড্রোন হামলায় ইরানের সামরিক কমান্ডার কাসেম সোলেইমানির নিহত হওয়ার পর ভারত সাবধানী বিবৃতিটি দিয়েছিল। বিবৃতিতে কোথাও ঘটনার নিন্দা ছিল না। সোলেইমানি সম্পর্কেও কোনো নেতিবাচক উল্লেখ ছিল না।

এরপরই ডোনাল্ড ট্রাম্প দিল্লিতে এক জঙ্গি হামলার সঙ্গে কাসেম সোলেইমানির যোগকে তুলে ধরে টুইট করেন। ভারত কিন্তু তাতে টুঁ শব্দও করেনি। এরপর বিশ্বের বিভিন্ন দেশের সঙ্গে তাদের ইরান-নীতি নিয়ে কথা বলার পাশাপাশি মার্কিন পররাষ্ট্র সচিব মাইক পম্পেও কথা বলেন ভারতের নতুন পররাষ্ট্র সচিব হর্ষবর্ধন শ্রিংলার সঙ্গে। গতকাল রাতেও পররাষ্ট্রমন্ত্রী জয়শঙ্করের সঙ্গে কথা বলেন পম্পেও।

ওই প্রতিবেদনে আরও বলা হয়, ফোনালাপের পর পম্পেও এক টুইট বার্তায় বলেন, ‘এস জয়শঙ্কর এবং আমি এখনই কথা বললাম ইরানের পক্ষ থেকে দেওয়া ক্রমাগত উসকানি এবং হুমকি নিয়ে। আমেরিকার নাগরিক এবং আমাদের বন্ধুদের জীবন বাঁচাতে ও নিরাপদ রাখতে ট্রাম্প প্রশাসন কোনো দ্বিধা করবে না।’

কিন্তু উল্লেখযোগ্য বিষয় হলো, পম্পেওর সঙ্গে টেলিফোন সংলাপের পর জয়শঙ্কর যে টুইটটি করেন সেখানে ইরানের নামোল্লেখ পর্যন্ত নেই।

তার বক্তব্য, ‘উপসাগরীয় অঞ্চলে উত্তেজনা বাড়া নিয়ে মার্কিন পররাষ্ট্র সচিব পম্পেওর সঙ্গে ফোনে কথা হলো। ভারতের উদ্বেগ ও স্বার্থের দিকটিকে তুলে ধরা হয়েছে।’

এর পরই প্রশ্ন উঠেছে, দুই নেতার একই বিষয়ে দুই পৃথক বক্তব্য নিয়ে। কূটনৈতিক সূত্রের বরাতে খবরে বলা হয়, ‘আমেরিকার প্রতি বিশ্বস্ত থেকেও ইরানকে চটাতে চাইছে না ভারত।চাবাহার বন্দরে বিপুল বিনিয়োগ, ইরানের সহায়তায় পাকিস্তানকে এড়িয়ে আফগানিস্তানসহ পশ্চিম এশিয়ার বাণিজ্যিক যোগাযোগ বাড়ানো, পরে ফের তেল আমদানির রাস্তা খুলে রাখার মতো বিষয়গুলো অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ ভারতের কাছে।

উল্টো দিকে আমেরিকা এর প্রতিটি খুঁটিনাটি সম্পর্কেই অবহিত। ইরান ও ভারতের ঐতিহাসিক সম্পর্কের কথাও তাদের অজ্ঞাত নয়। তাই ইরানকে বিশ্বে একঘরে করে দেওয়ার যে প্রকল্প হাতে নিয়েছে ট্রাম্প প্রশাসন, তাতে নয়াদিল্লিকে তেহরানের থেকে দূরে এবং বিচ্ছিন্ন রাখাটা জরুরি হোয়াইট হাউসের কাছে।’

পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয় সূত্রের বরাতে প্রতিবেদনে বলা হয়,ঠিক এই কারণেই দীর্ঘদিন ধরে কার্যত ভারতের পেছনে লেগে থেকে ইরান থেকে তাদের তেল আমদানি শূন্যে নিয়ে যেতে বাধ্য করেছে ওয়াশিংটন। সেই প্রয়াস অদূর ভবিষ্যতেও চালানো হবে। এই টানাপোড়েনের কূটনীতিতে ভারত কতটা জাতীয় স্বার্থ সুরক্ষিত রেখে এই ভারসাম্য বজায় রাখতে পারে এখন সেটাই দেখার।

বাংলায় স্ট্যাটাস দিলেন মার্কিন প্রেসিডেন্ট পদপ্রত্যাশী বার্নি
                                  

 মার্কিন সিনেটর ও ডেমেক্র্যাট রাজনীতিবিদ বার্নি স্যান্ডার্স। যিনি কর্পোরেট মুনাফাবাদের বিরোধী। ‘রাজনৈতিক বিপ্লব’ ঘটানোর প্রত্যয় নিয়ে ইতোমধ্যে তিনি যুক্তরাষ্ট্রের ২০২০ সালের প্রেসিডেন্ট নির্বাচনের জন্য প্রচারণা শুরু করেছেন। যুক্তরাষ্ট্রের প্রেসিডেন্ট পদপ্রত্যাশী এই নেতা তার ভেরিফাইড ফেসবুজ পেজে বাংলা ভাষায় একটি স্ট্যাটাস দিয়েছেন। যাতে তিনি লিখেছেন, ‘স্বাস্থ্যসেবা একটি মানবাধিকার।’ তার এই পোস্টে ৩ ঘণ্টায় ২ হাজার লাইক ও ৩০০ কমেন্ট পড়েছে এবং পোস্টটি শেয়ার করেছেন সাড়ে ৫০০ লোক। কমেন্টে তার প্রশংসা করছেন অনেকে। অনেক বাঙালিও এতে কমেন্ট করেছেন।

মহসিন মনসুর নামে এক বাঙালি লিখেছেন, ‘ধন্যবাদ। বার্নিকে রাষ্ট্রপতি হিসেবে দেখতে চাই।’ ফয়সাল তানিম নামে একজন লিখেছেন, ‘২০২০ এর জন্য বার্নি!!’ পলাশ সাহু নামে এক ভারতীয় বাঙালি লিখেছেন, ‘আপনার এই কথায় সহমত পোষণ করি। আগামী মার্কিন নির্বাচনের জন্য শুভকামনা রইল। ইতি, একজন ভারতীয় বাঙালি।’ বার্নি স্যান্ডার্স শিকাগো বিশ্ববিদ্যালয়ের পড়ালেখা করেন এবং ১৯৬০ ও ১৯৭০ এর দশকে যুদ্ধবিরোধী এবং নাগরিক অধিকারের জন্য হওয়া আন্দোলনে অংশগ্রহণ করেন। ১৯৯০ সালে ৪০ বছরের মধ্যে প্রথম স্বতন্ত্র প্রার্থী হিসেবে মার্কিন প্রতিনিধি সভার একজন প্রতিনিধি নির্বাচিত হন স্যান্ডার্স।

২০০৭ সালে সিনেটর হিসেবে নির্বাচিত হওয়ার আগ পর্যন্ত তিনি প্রতিনিধি সভায় অন্তর্ভুক্ত ছিলেন। ২০১৬ সালের প্রেসিডেন্ট নির্বাচনে শুরুতে খুব একটা গুরুত্বপূর্ণ প্রার্থী হিসেবে বিবেচিত না হলেও কয়েকটি টেলিভিশন অনুষ্ঠানে তার বিতর্ক প্রচারিত হবার পর হঠাৎই তার জনপ্রিয়তা বৃদ্ধি পায়। নিজেকে ডেমোক্র্যাটিক সোশ্যালিস্ট হিসেবে দাবি করা স্যান্ডার্স এমন একটি অর্থনীতি তৈরি করার প্রত্যাশা করেন, যা শুধু ধনীদের জন্য নয়, সব পর্যায়ের মানুষের জন্য কাজ করবে।


   Page 1 of 295
     আন্তর্জাতিক
সাইবেরিয়ায় অগ্নিকাণ্ডে নিহত ১১
.............................................................................................
নদীতে ব্রিজ ভেঙে পড়ে ৭ কিশোর নিহত
.............................................................................................
চীনের জিনজিয়াং প্রদেশে শক্তিশালী ভূমিকম্প
.............................................................................................
ইউক্রেনে বিধ্বস্ত বিমানের ব্ল্যাক-বক্স পাঠাবে ইরান
.............................................................................................
লিবিয়া সংকট: বার্লিনে আলোচনায় বসছেন বিশ্বনেতারা
.............................................................................................
বিমান বিধ্বস্তে নিহত প্রতি পরিবারে ২৫০০০ ডলার দেবে কানাডা
.............................................................................................
চীনে রহস্যজনক ভাইরাসে অসুস্থ ১৭০০ মানুষ
.............................................................................................
সেনা মোতায়েনে যুক্তরাষ্ট্রকে ৫০ কোটি ডলার দিয়েছে সৌদি
.............................................................................................
চীনকে হুমকি যুক্তরাষ্ট্রের
.............................................................................................
১৬০ দিন পর মুক্তি পেল কাশ্মীরের ৫ নেতা
.............................................................................................
দাবানলের পর সিগারেট কঠোর হচ্ছে অস্ট্রেলিয়ায়
.............................................................................................
ধর্ষককে পুড়িয়ে মারল ক্ষুব্ধ জনতা
.............................................................................................
তুরস্ক-মালয়েশিয়া থেকে আমদানি বন্ধ ভারতের
.............................................................................................
ইরানের ক্ষেপণাস্ত্র হামলায় ১১ মার্কিন সেনা আহত : যুক্তরাষ্ট্র
.............................................................................................
যুদ্ধ এড়াতে বিশ্বনেতাদের সঙ্গে সংলাপ চান রুহানি
.............................................................................................
বাংলায় স্ট্যাটাস দিলেন মার্কিন প্রেসিডেন্ট পদপ্রত্যাশী বার্নি
.............................................................................................
ইরাকে সামরিক ঘাঁটিতে রকেট হামলা
.............................................................................................
বিমানঘাঁটিতে ইসরাইলি হামলা রুখে দিল সিরিয়ার বাহিনী
.............................................................................................
২৩ জানুয়ারি মিয়ানমারে বিরুদ্ধে মামলার অন্তর্বর্তীকালীন আদেশ
.............................................................................................
চালকবিহীন বুলেট ট্রেন আনল চীন
.............................................................................................
ইরানের সঙ্গে সংঘাত বিশ্বের শান্তি নষ্ট করবে : শিনজো আবে
.............................................................................................
আফগানিস্তানে তীব্র শৈত্যপ্রবাহে ১৭ জনের মৃত্যু
.............................................................................................
ক্ষুধার্ত প্রাণীদের বাঁচাতে বৃষ্টির মতো খাবার ঝরছে অস্ট্রেলিয়ায়
.............................................................................................
ইউক্রেনের প্রেসিডেন্টের সঙ্গে কথা বললেন রুহানি
.............................................................................................
বাংলাদেশের তিন মন্ত্রীর সফর বাতিলে মুখ পুড়ল মোদির: ভারতীয় মিডিয়া
.............................................................................................
যুক্তরাষ্ট্র ভ্রমণে নিষেধাজ্ঞা পেতে যাচ্ছে আরও মুসলিম দেশ
.............................................................................................
ভারতে বাস-ট্রাকের সংঘর্ষে নিহত ২০ জন
.............................................................................................
যুক্তরাষ্ট্র ভ্রমণে নিষেধাজ্ঞা পেতে যাচ্ছে আরও মুসলিম দেশ
.............................................................................................
বিমান ভূপাতিত করা নিয়ে মিথ্যাচার : ইরানে বিক্ষোভ
.............................................................................................
হাইথাম বিন তারিক হচ্ছেন ওমানের নতুন শাসক
.............................................................................................
অস্ট্রেলিয়ায় উটের পর এবার গুলিতে মারা হচ্ছে ক্যাঙ্গারু
.............................................................................................
ইরাক ভ্রমণে ভারত-পাকিস্তান-ফিলিপাইনের সতকর্তা
.............................................................................................
ইরাক থেকে সৈন্য সরিয়ে নিচ্ছে কানাডা
.............................................................................................
ট্রাম্পের যুদ্ধ-ক্ষমতা কমাতে প্রতিনিধি পরিষদে ভোট
.............................................................................................
মুসলিম দেশগুলোকে ঐক্যের তাগিদ মাহাথিরের
.............................................................................................
ইরানি সাংস্কৃতিক স্থাপনায় হামলার হুমকি, সমালোচনার মুখে ট্রাম্প
.............................................................................................
ইরাকে ক্ষেপণাস্ত্র হামলায় ৮০ মার্কিন সেনা নিহত
.............................................................................................
ইরানে ইউক্রেনগামী বিমান বিধ্বস্তের ঘটনায় ১৮০ যাত্রীর সবাই নিহত
.............................................................................................
পেরুতে সড়ক দুর্ঘটনায় অন্তত ১৬ জন নিহত
.............................................................................................
আর নয় যুদ্ধ’ স্লোগানে উত্তাল ওয়াশিংটন
.............................................................................................
দাবানল বন্ধে দরকার বৃষ্টি এবং সেই বৃষ্টির জন্য অস্ট্রেলিয়ায় ইশরাকের নামাজ আদায়
.............................................................................................
কেনিয়ায় যুক্তরাষ্ট্রের সামরিক ঘাঁটিতে হামলায় অন্তত ৩ জন মার্কিনী নিহত
.............................................................................................
ট্রাম্পের মাথার বিনিময়ে কোটি কোটি ডলার পুরস্কার
.............................................................................................
ইসরাইলকেও ছাড় দিবেনা ইরান
.............................................................................................
যেকোনো পরিণতির দায় যুক্তরাষ্ট্রের : জাতিসংঘকে ইরান
.............................................................................................
মধ্যপ্রাচ্যে নতুন এই উত্তেজনা বাংলাদেশের জন্যও চিন্তার
.............................................................................................
ইরানের ৫২টি লক্ষ্যবস্তু চিহ্নিত করে আক্রমণের হুমকি ট্রাম্পের
.............................................................................................
এক মাসে মহারাষ্ট্রে আত্মহত্যা করেছেন ৩০০ জনেরও বেশি কৃষক
.............................................................................................
মধ্যপ্রাচ্যে আরও ৩ হাজার সেনা যুক্তরাষ্ট্রের
.............................................................................................
আবরো মার্কিন হামলা বাগদাদে, নিহত ৬
.............................................................................................

|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
স্বাধীন বাংলা ডট কম
মো. খয়রুল ইসলাম চৌধুরী কর্তৃক সম্পাদিত ও ঢাকা-১০০০ হতে প্রকাশিত ।

প্রধান উপদেষ্টা: ফিরোজ আহমেদ (সাবেক সচিব, বাণিজ্য মন্ত্রণালয়)
সম্পাদক মন্ডলীর সভাপতি: ডাঃ মো: হারুনুর রশীদ
ব্যবস্থাপনা সম্পাদক : মো: খায়রুজ্জামান
বার্তা সম্পাদক: মো: শরিফুল ইসলাম রানা
সহ: সম্পাদক: জুবায়ের আহমদ
বিশেষ প্রতিনিধি : মো: আকরাম খাঁন
যুক্তরাজ্য প্রতিনিধি: জুবের আহমদ
যোগাযোগ করুন: swadhinbangla24@gmail.com
    2015 @ All Right Reserved By swadhinbangla.com

Developed By: Dynamicsolution IT [01686797756]