| বাংলার জন্য ক্লিক করুন
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|

   আন্তর্জাতিক -
                                                                                                                                                                                                                                                                                                                                 
পথশিশুদের টাকা বা খাবার দিলেই কারাদন্ড

 আফ্রিকার দেশ উগান্ডায় এমন একটি আইন পাস করা হয়েছে যার ফলে এখন থেকে দেশটির রাজধানী কাম্পালায় পথশিশুদের খাবার বা টাকা দান করা আইনত অবৈধ হবে। কাম্পালার লর্ড মেয়র এরিয়াস লুকওয়াগো জানিয়েছেন ব্যবসায়িক কাজে এবং যৌন ব্যবসায় শিশুদের ব্যবহার কমানোর উদ্দেশ্যে এই আইনটি পাস করা হয়েছে।
উগান্ডার সরকারি হিসাব অনুযায়ী, কাম্পারার রাস্তায় ৭ থেকে ১৭ বছর বয়সী প্রায় ১৫ হাজার পথশিশু বসবাস করে। এই আইনের বিধি অমান্যকারীদের সর্বোচ্চ ছয় মাসের কারাদ- বা ১১ ডলার পর্যন্ত জরিমানা করা হতে পারে।


বিবিসির প্রতিবেদন অনুযায়ী উগান্ডার বিভিন্ন গ্রাম থেকে অনেক শিশুকেই শহরে নিয়ে যাওয়া হয় এবং জোর করে তাদের দিয়ে নানা রকম কাজ করানো হয়ে থাকে। এই ধরনের ব্যবসা থামাতে এই নতুন আইনের অধীনে পতিতাবৃত্তির জন্য শহরে বাসা ভাড়া করা বা ভিক্ষা করা বা শিশুদের দিয়ে ক্ষুদ্র ব্যবসা চালানোও আইনত অবৈধ হিসেবে বিবেচিত হবে। কাম্পালার ৬০ বছর বয়সী এক নারী ভিক্ষুক অ্যানি কুতুরেগিয়ে কিছু বেশি পরিমাণ ভিক্ষা পাওয়া আশায় সাথের শিশুদের দেখিয়ে মানুষের মন গলানোর চেষ্টা করেন। তিনি বলেন, ‘যতক্ষণ গ্রাম থেকে শিশুরা আসবে, ততক্ষণ আমরা রাস্তায় ভিক্ষা করব।’ ‘আমরা কারাবন্দি হতে প্রস্তুত।’


কাম্পালার মেয়র লুকওয়াগো বলেছেন যেসব অভিভাবক এবং শিশু পাচারকারী শিশুদের `পেছনে ছুটছেন`, তাদের জন্যই তৈরি করা হয়েছে এই আইন। যেসব মা-বাবার সন্তানদের রাস্তায় ভিক্ষা করতে বা রাস্তায় কাজ করতে দেখা যাবে, সেসব মা-বাবাকেও শাস্তির আওতায় আনা হবে। ‘দেশের বিভিন্ন প্রান্ত থেকে শিশুদের নিয়ে এসে কাম্পালায় ভিক্ষাবৃত্তিতে ব্যবহার করা বর্তমান একটি লাভজনক ব্যবসায় পরিণত হয়েছে। এটি বন্ধ করতে চাই আমরা’, বলেন মেয়র। বর্তমানে শুধু কাম্পালাতেই প্রযোজ্য রয়েছে এই আইন।

পথশিশুদের টাকা বা খাবার দিলেই কারাদন্ড
                                  

 আফ্রিকার দেশ উগান্ডায় এমন একটি আইন পাস করা হয়েছে যার ফলে এখন থেকে দেশটির রাজধানী কাম্পালায় পথশিশুদের খাবার বা টাকা দান করা আইনত অবৈধ হবে। কাম্পালার লর্ড মেয়র এরিয়াস লুকওয়াগো জানিয়েছেন ব্যবসায়িক কাজে এবং যৌন ব্যবসায় শিশুদের ব্যবহার কমানোর উদ্দেশ্যে এই আইনটি পাস করা হয়েছে।
উগান্ডার সরকারি হিসাব অনুযায়ী, কাম্পারার রাস্তায় ৭ থেকে ১৭ বছর বয়সী প্রায় ১৫ হাজার পথশিশু বসবাস করে। এই আইনের বিধি অমান্যকারীদের সর্বোচ্চ ছয় মাসের কারাদ- বা ১১ ডলার পর্যন্ত জরিমানা করা হতে পারে।


বিবিসির প্রতিবেদন অনুযায়ী উগান্ডার বিভিন্ন গ্রাম থেকে অনেক শিশুকেই শহরে নিয়ে যাওয়া হয় এবং জোর করে তাদের দিয়ে নানা রকম কাজ করানো হয়ে থাকে। এই ধরনের ব্যবসা থামাতে এই নতুন আইনের অধীনে পতিতাবৃত্তির জন্য শহরে বাসা ভাড়া করা বা ভিক্ষা করা বা শিশুদের দিয়ে ক্ষুদ্র ব্যবসা চালানোও আইনত অবৈধ হিসেবে বিবেচিত হবে। কাম্পালার ৬০ বছর বয়সী এক নারী ভিক্ষুক অ্যানি কুতুরেগিয়ে কিছু বেশি পরিমাণ ভিক্ষা পাওয়া আশায় সাথের শিশুদের দেখিয়ে মানুষের মন গলানোর চেষ্টা করেন। তিনি বলেন, ‘যতক্ষণ গ্রাম থেকে শিশুরা আসবে, ততক্ষণ আমরা রাস্তায় ভিক্ষা করব।’ ‘আমরা কারাবন্দি হতে প্রস্তুত।’


কাম্পালার মেয়র লুকওয়াগো বলেছেন যেসব অভিভাবক এবং শিশু পাচারকারী শিশুদের `পেছনে ছুটছেন`, তাদের জন্যই তৈরি করা হয়েছে এই আইন। যেসব মা-বাবার সন্তানদের রাস্তায় ভিক্ষা করতে বা রাস্তায় কাজ করতে দেখা যাবে, সেসব মা-বাবাকেও শাস্তির আওতায় আনা হবে। ‘দেশের বিভিন্ন প্রান্ত থেকে শিশুদের নিয়ে এসে কাম্পালায় ভিক্ষাবৃত্তিতে ব্যবহার করা বর্তমান একটি লাভজনক ব্যবসায় পরিণত হয়েছে। এটি বন্ধ করতে চাই আমরা’, বলেন মেয়র। বর্তমানে শুধু কাম্পালাতেই প্রযোজ্য রয়েছে এই আইন।

কংগ্রেসকে পাশ কাটিয়ে সৌদি আরবকে ৮০০ কোটি ডলারের অস্ত্র দিচ্ছেন ট্রাম্প
                                  

 কংগ্রেসকে পাশ কাটিয়ে সৌদি আরবের কাছে আটশো কোটি ডলারের অস্ত্র বিক্রি করতে যাচ্ছেন মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প। এধরণের অস্ত্র বিক্রির ক্ষেত্রে সাধারণত মার্কিন কংগ্রেসের অনুমোদনের দরকার হলেও জরুরি অবস্থায় প্রশাসনিক আদেশ দিয়ে তা অনুমোদনের ক্ষমতা রাখেন প্রেসিডেন্ট। এ ক্ষেত্রে ওই সুযোগই ব্যবহার করেছেন ট্রাম্প। জরুরি অবস্থা ঘোষণার কারণ হিসেবে ইরানের কাছ থেকে হুমকি বৃদ্ধির দাবি করেছেন তিনি। গত শুক্রবার ট্রাম্পের প্রশাসনিক এই আদেশের বিষয়টি কংগ্রেসকে জানিয়েছেন মার্কিন পররাষ্ট্রমন্ত্রী মাইক পম্পেও। তবে ডেমোক্র্যাট সদস্যদের অভিযোগ পার্লামেন্টে কঠোর বিরোধীতার মুখে পড়ার আশঙ্কাতেই কংগ্রেসকে পাশ কাটিয়েছেন ট্রাম্প।

ব্রিটিশ সংবাদমাধ্যম বিবিসি জানিয়েছে, সৌদি আরব ছাড়া সংযুক্ত আরব আমিরাত ও জর্ডানের কাছেও অস্ত্র বিক্রি করতে পারেন ট্রাম্প। ২০১৫ সালে ইরানের সঙ্গে ছয় বিশ্বশক্তির স্বাক্ষরিত পারমাণবিক চুক্তি থেকে গত বছর যুক্তরাষ্ট্র বের হয়ে যাওয়ার ঘোষণা দিয়ে তেহরানের ওপর নিষেধাজ্ঞা পুনর্বহাল শুরু করে ওয়াশিংটন। যুক্তরাষ্ট্রের ঘোষণার বর্ষপূর্তির দিনে চুক্তি থেকে আংশিক সরে যাওয়ার কথা জানিয়ে দেয় তেহরান। এরপর ইরানের ওপর ক্রমবর্ধমান চাপ বৃদ্ধির অংশ হিসেবে উগসাগরীয় এলাকায় বিমানবাহী রণতরী, ক্ষেপণাস্ত্রসহ যুদ্ধ সরঞ্জাম মোতায়েন করে যুক্তরাষ্ট্র। ইরানের হুমকি মোকাবিলায় ওয়াশিংটন এই পদক্ষেপ নেওয়ার কথা বললেও তেহরান যুক্তরাষ্ট্রের বিরুদ্ধে ‘মনস্তাত্ত্বিক যুদ্ধ’ শুরুর অভিযোগ এনেছে। আগামি কয়েক দিনের মধ্যে মধ্যপ্রাচ্যে নতুন করে দেড় হাজার সেনা, যুদ্ধবিমান ও ড্রোন মোতায়েনের ঘোষণা দিয়েছে ওয়াশিংটন। ওই ঘোষণার পরেই সৌদি আরবের কাছে অস্ত্র বিক্রি করতে ট্রাম্পের প্রশাসনিক সিদ্ধান্তের কথা জানা গেল।


গত শুক্রবার কংগ্রেসকে প্রেসিডেন্ট ট্রাম্পের সিদ্ধান্ত জানানোর পর পররাষ্ট্রমন্ত্রীর একটি চিঠি মার্কিন সংবাদমাধ্যমগুলোতে ব্যাপকভাবে প্রচার পাচ্ছে। ওই চিঠিতে মাইক পম্পেও বলেন, ‘ইরানের মারাত্মক কর্মকান্ডের’ কারণেই তাৎক্ষনিকভাবে অস্ত্র বিক্রির দরকার। পম্পেও লেখেন, ‘ইরানের কর্মকা- মধ্যপ্রাচ্যের স্থিতিশীলতা এবং ভেতরে-বাইরে আমেরিকার নিরাপত্তার ওপর মৌলিক হুমকি সৃষ্টি করেছে। পম্পেও বলেন, উপসাগরীয় এলাকা ও পুরো মধ্যপ্রাচ্যে হঠকারি সিদ্ধান্ত থেকে ইরানকে বিরত রাখতে যত দ্রুত সম্ভব এসব অস্ত্র অবশ্যই হস্তান্তর হতে হবে।


মধ্যপ্রাচ্যে ইরানের আঞ্চলিক প্রতিদ্বন্দ্বি সৌদি আরব। ইরান ও সৌদি আরব আঞ্চলিক প্রতিদ্বন্দ্বী। মধ্যপ্রাচ্যের সিরিয়া ও ইয়েমেন যুদ্ধ ছাড়াও ইরাক ও লেবাননে বিভিন্ন রাজনৈতিক পক্ষগুলোর মধ্যে তাদের অবস্থানও বিপরীতমুখী। অন্যদিকে মধ্যপ্রাচ্যে যুক্তরাষ্ট্রের গুরুত্বপূর্ণ মিত্র সৌদি আরব। ইয়েমেন যুদ্ধে সৌদি আরবের বিরুদ্ধে বেসামরিক মানুষের ওপর মার্কিন অস্ত্র ব্যবহারের অভিযোগ থাকলেও রিয়াদের পক্ষে অবস্থান নেওয়ার কথা বেশ কয়েকবারই স্পষ্ট করেছেন ট্রাম্প।


ট্রাম্পের নতুন প্রশাসনিক আদেশে সৌদি আরবের কাছে বিক্রি হতে যাওয়া অস্ত্রের মধ্যে রয়েছে নির্ভুল লক্ষ্যভেদে সক্ষম সামরিক সরঞ্জাম, ট্যাঙ্কবিরোধী ক্ষেপণাস্ত্রও বিভিন্ন ধরনের বোমা। ট্রাম্পের সিদ্ধান্ত প্রকাশ্যে আসার পরই সমালোচনায় মুখর হয়ে ওঠেন ডেমোক্র্যাট আইন প্রণেতারা। সিনেটের বৈদেশিক সম্পর্ক বিষয়ক কমিটির সদস্য ও ডেমোক্র্যাট সদস্য রবার্ট মেনেনদেজ ট্রাম্পের বিরুদ্ধে কর্তৃত্ববাদী দেশের পক্ষাবলম্বনের অভিযোগ আনেন। এক বিবৃতিতে তিনি বলেন, ‘আরও একবার তিনি (ট্রাম্প) আমাদের দীর্ঘ মেয়াদী জাতীয় সুরক্ষার স্বার্থকে অগ্রাধিকার দিতে আর মানবাধিকারের পক্ষে দাঁড়াতে ব্যর্থ হলেন’।

ভেনিজুয়েলায় কারাগারে সহিংসতা, নিহত ২৯
                                  

 ভেনিজুয়েলার একটি কারাগারে পুলিশের সাথে কারা বন্দিদের সহিংসতায় কমপক্ষে ২৯ জন কয়েদি নিহত হয়েছেন। শুক্রবারের এ সহিংসতায় অন্তত ২০ জন পুলিশ কর্মকর্তা আহত হয়েছেন। একটি মানবাধিকার সংস্থার বরাত দিয়ে এ তথ্য জানিয়েছে বিবিসি। ভেনিজুয়েলার কারাগার পর্যবেক্ষণ সংস্থা জানিয়েছে, অ্যাকারিগুয়া শহরে অবস্থিত কারাগারটির ধারণক্ষমতা ২৫০ জন। কিন্তু সম্প্রতি সেখানে ৫৪০ জন কয়েদিকে রাখা হয়েছিল। তবে তাৎক্ষনিকভাবে সহিংসতার কারণ জানা যায়নি।


এ সহিংসতায় গ্রেনেড বিস্ফোরণের ঘটনাও ঘটেছে বলে জানিয়েছে দেশটির পুলিশ। দেশটির কারা মন্ত্রণালয় বার্তা সংস্থা এএফপিকে জানিয়েছে, ওই কারাগারটি তাদের আওতার বাইরে। এ ঘটনায় তাদের আর কোনো মন্তব্য পাওয়া যায়নি। সাম্প্রতিক বছরগুলোতে ভেনিজুয়েলার কারাগারে বেশ কয়েকটি সহিংসতার ঘটনা ঘটেছে। গত বছরের মার্চে একটি কারাগারে সহিংসতায় ৬৮ জনের মৃত্যু হয়। এর আগের বছর ২০১৭ সালের আগস্টে দক্ষিণ ভেনিজুয়েলার একটি কারাগারে দাঙ্গা ছড়িয়ে পড়লে অন্তত ৩৭ জন নিহত হন।

মধ্যপ্রাচ্যে আরো ১৫০০ সৈন্য পাঠাচ্ছে যুক্তরাষ্ট্র
                                  

 ইরানের সঙ্গে উত্তেজনার মধ্যে আগামি সপ্তাহে মধ্যপ্রাচ্যে অতিরিক্ত আরো দেড় হাজার সৈন্য পাঠাচ্ছে যুক্তরাষ্ট্র। এই পরিকল্পনা সম্পর্কে ইতোমধ্যে কংগ্রেসকে জানানো হয়েছে বলে এক বিবৃতিতে জানিয়েছেন যুক্তরাষ্ট্রের ভারপ্রাপ্ত প্রতিরক্ষামন্ত্রী প্যাট্রিক শানাহান।


বিবৃতিতে জানানো হয়েছে, দেড় হাজার সৈন্যের পাশাপাশি মধ্যপ্রাচ্যে আরো যুদ্ধ বিমান ও সমরাস্ত্র মোতায়েন করা হবে। গত শুক্রবার সকালে যুক্তরাষ্ট্রের প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প এই পদক্ষেপের ঘোষণা দেন। এই সৈন্য ও সমরাস্ত্র মোতায়েনকে ‘তুলনামূলকভাবে স্বল্প পরিসরে’ মোতায়েন বলে বর্ণনা করেছেন তিনি।
বিশ্বজুড়ে ইরান সন্ত্রাসবাদ ছড়াচ্ছে বলে দাবি করেছেন ট্রাম্প। তবে তারপরও তিনি বিশ্বাস করেন না যে, ইরান যুদ্ধ করবে। তিনি বলেন, তাদের (ইরানের) হাতে কোনো পারমাণবিক অস্ত্র নেই। সম্ভবত বিষয়টি তারা অনুধাবন করতে পেরেছে।


চলতি মাসেই যুক্তরাষ্ট্র পারস্য উপসাগরে বিমানবাহী রণতরী মোতায়েন করার পর থেকেই ওয়াশিংটন ও তেহরানের মধ্যে উত্তেজনা বেড়েছে। গত সপ্তাহে যুক্তরাষ্ট্রের ভারপ্রাপ্ত প্রতিরক্ষা মন্ত্রী পেট্রিক শাহনাহান জানিয়েছিলেন, মধ্যপ্রাচ্যে ১০ হাজার সেনা পাঠানোর পরিকল্পনা করছে পেন্টাগন। তবে তার কয়েকদিন পরই তিনি জানান, মধ্যপ্রচ্যে ঠিক কত সেনা পাঠানো হবে সেটা এখনো নির্ধারণ করেনি নীতি নির্ধারকরা।

 

বিশ্বের সবচেয়ে দামি ওষুধের দাম কত?
                                  

 বিশ্বের সবচেয়ে দামি ওষুধ আবিষ্কার করেছে সুইজারল্যান্ডভিত্তিক নোভার্টিস। ইউএস ফুড অ্যান্ড ড্রাগ অ্যাডমিনেস্ট্রেশন (এফডিএ) সম্প্রতি ওষুধটির অনুমোদন দিয়েছে। মানুষের চলৎক্ষমতা নষ্ট করে দেয়ার মতো বিরল রোগ স্পাইনাল মাসকুলার অ্যাট্রোফির (এসএমএ) চিকিৎসায় ওষুধটি ব্যবহৃত হবে। এসএমএতে আক্রান্ত ব্যক্তির জিন থেরাপি হিসেবে কাজ করবে জোলজেন্সমা নামের এ ওষুধটি। যুক্তরাষ্ট্রের বাজারে প্রতি ডোজ জোলজেন্সমার দাম পড়বে ২১ লাখ ডলার। আর যুক্তরাষ্ট্রের বাইরে অন্যান্য দেশে তা কিছুটা কমে ১৫ লাখ ডলারে বিক্রি হতে পারে বলে ধারণা করা হচ্ছে। খবর রয়টার্স।


এসএমএ
মূলত আক্রান্ত ব্যক্তির মেরুদন্ডের মোটর নিউরন নামের নার্ভ সেলের কার্যক্ষমতা নষ্ট করে ফেলে। রোগটি মোটর নিউরন ডিজিজ নামেও পরিচিত। এতে আক্রান্ত ব্যাক্তির মাংসপেশী ধীরে ধীরে অচল হয়ে পড়ে, ফলে তিনি স্বাভাবিক চলৎক্ষমতা হারিয়ে ফেলেন। এসএমএতে আক্রান্ত বেশিরভাগ শিশু বড় হওয়া উপভোগ করার সুযোগ পায় না, শৈশবে থাকা অবস্থাতেই মৃত্যুর কোলে ঢলে পড়ে।


এতোদিন এসএমএ চিকিৎসা হিসেবে বায়োজেনের তৈরি স্পাইনরাজা নামের ওষুধটি ব্যবহৃত হতো। ওষুধটি বাজারে আসার প্রথম বছরে সাড়ে সাত লাখ ডলারে বিক্রি হয়েছে। এসএমএ চিকিৎসায় এবার স্পাইনরাজাকে টেক্কা দিবে নোভার্টিসের জোলজেন্সমা। এটি হতে যাচ্ছে বিশ্বের সবচেয়ে দামি ওষুধ। এর আগে স্পার্ক থেরাপিউটিকসের তৈরি অন্ধত্বের চিকিৎসায় ব্যবহৃত লাক্সটেরনা ছিলো সবচেয়ে দামি ওষুধ, যার প্রতি ডোজের দাম পড়ে সাড়ে ৮ লাখ ডলার।
জোলজেন্সমার আবিষ্কারকে রীতিমতো বৈপ্লবিক উদ্ভাবন হিসেবে অখ্যায়িত করা হচ্ছে। এটি শরীরের নিষ্ক্রিয় হয়ে পড়া জিনগুলোকে সারিয়ে তুলতে কাজ করবে। ফলে আক্রান্ত ব্যক্তির শরীরে আবার হারিয়ে যাওয়া প্রোটিন উৎপাদিত হবে।


নোভার্টিসের প্রধান নির্বাহী ভাস নারাসিমহান জোলজেন্সমাকে ‘ঐতিহাসিক অগ্রগতি’ হিসেবে উল্লেখ করেছেন। তিনি বলেছেন, স্পাইনাল মাসকুলার অ্যাট্রোফি চিকিৎসায় বর্তনামে যে পরিমান খরচ হচ্ছে সে তুলনায় আমাদের ওষুধের দাম অর্ধেক। এসএমএতে আক্রান্ত শিশুকে প্রথম ১০ বছর ধারাবাহিক থেরাপি দিতে ৪০ লাখ ডলারের বেশি খরচ হয়।
বিশ্লেষকদের প্রাক্কলন অনুযায়ী, প্রতি বছর বিশ্বে নোভার্টিসের এ ওষুধটি বছরে ২৬০ কোটি ডলারের বেশি বিক্রি হবে।

জীবন উৎসর্গ করা ১২ বাংলাদেশি শান্তিরক্ষীকে জাতিসংঘের সম্মাননা
                                  

 আন্তর্জাতিক জাতিসংঘ শান্তিরক্ষা দিবস উদযাপন উপলক্ষে ২০১৮ সালে শান্তিরক্ষা মিশনে দায়িত্ব পালনকালে জীবন উৎসর্গ করা ১২ জন বাংলাদেশি শান্তিরক্ষীকে গত শুক্রবার সম্মাননা জানিয়েছে জাতিসংঘ। এদিন শান্তিরক্ষা মিশনে ২৭ সদস্য রাষ্ট্রের জীবন উৎসর্গ করা ১১৯ জন সামরিক, পুলিশ ও বেসামরিক বীর শান্তিরক্ষীকে ‘মরণোত্তর ডাগ হ্যামারশেল্ড মেডেল’ প্রদান করা হয়, যাদের মধ্যে ১২ জন বাংলাদেশি ছিলেন।

আন্তর্জাতিক জাতিসংঘ শান্তিরক্ষা দিবস উদযাপন উপলক্ষে নিউইয়র্কে আয়োজিত অনুষ্ঠানটির সভাপতিত্ব করেন জাতিসংঘ মহাসচিব অ্যান্তোনিও গুতেরেস। তিনি ২৭ দেশের প্রতিনিধিদের কাছে সম্মাননা পদক তুলে দেন। বাংলাদেশের পক্ষে পদক গ্রহণ করেন জাতিসংঘে বাংলাদেশের স্থায়ী প্রতিনিধি ও রাষ্ট্রদূত মাসুদ বিন মোমেন। জাতিসংঘের শান্তিরক্ষা মিশনে জীবন দিয়ে মরণোত্তর পদকপ্রাপ্ত ১২ জন বাংলাদেশি হলেন- সৈনিক অর্জন হাওলাদার, সৈনিক মো. রিপুল মিয়া, সৈনিক মোহাম্মাদ জামাল উদ্দিন, ওয়ারেন্ট কর্মকর্তা মোহাম্মাদ আবুল কালাম আজাদ, সৈনিক মোহাম্মাদ রায়হান আলী, ল্যান্স করপোরাল মোহাম্মাদ আক্তার হোসেন, সৈনিক মোহাম্মাদ রাশেদুজ্জামান, সৈনিক মো. জানে আলম, সৈনিক মো. মতিয়ার রহমান, সৈনিক মো. মঞ্জুর আলী, ল্যান্স করপোরাল মো. মিজানুর রহমান এবং লেফটেন্যান্ট কমান্ডার মো. আশরাফ সিদ্দিকী। জাতিসংঘ সদরদপ্তরে কর্মরত মিশনের প্রতিরক্ষা উপদেষ্টা ব্রিগেডিয়ার-জেনারেল খান ফিরোজ আহমেদ, মিশন সংশ্লিষ্ট অন্য কর্মকর্তা এবং বাংলাদেশ সেনা, নৌ ও পুলিশ বাহিনীর কর্মকর্তারা অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন।

আজ শনিবার এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়, জাতিসংঘের স্থায়ী মিশন বাংলাদেশের ১২ জন শান্তিরক্ষীদের পরিবারের সদস্যদের কাছে পদক পাঠাতে বিশেষ ব্যবস্থা গ্রহণ করবে। জাতিসংঘের শান্তিরক্ষা মিশনে কর্মী পাঠানোয় অবদান রাখায় দ্বিতীয় অবস্থানে থাকা বাংলাদেশের সামরিক ও পুলিশ বাহিনীর ছয় হাজার ৬০০ জন সদস্য বর্তমানে নয়টি মিশনে- অ্যাবেই, সিএআর, ডিআর কঙ্গে, হাইতি, লেবানন, মালি, সুদান, দক্ষিণ সুদান এবং পশ্চিম সাহারায় শান্তিরক্ষাকারী হিসেবে দায়িত্ব পালন করছেন।

 

যুক্তরাষ্ট্রের মিজৌরি রাজ্যে টর্নেডোর আঘাতে ৩ জনের মৃত্যু
                                  

 যুক্তরাষ্ট্রের মধ্যঞ্চলীয় মিজৌরি রাজ্যে বুধবার রাতে টর্নেডোর আঘাতে তিন জনের মৃত্যু হয়েছে। শক্তিশালী এ ঝড়ের আঘাতে অঞ্চলটি লন্ডভন্ড হয়ে যাওয়ায় উদ্ধারকর্মীরা বৃহস্পতিবার জীবিতদের সন্ধানে দ্বারে দ্বারে গিয়ে তল্লাশি অভিযান চালায়। খবর এএফপি’র। মিজৌরি রাজ্যের কর্মকর্তারা জানান, এ প্রাকৃতিক দুর্যোগে সেখানের ছোট শহর গোল্ডেন সিটিতে তিন জনের প্রাণহানি ঘটে।


এদিকে জাতীয় আবহাওয়া সংস্থা জানায়, বুধবার রাতে আঘাত হানা শক্তিশালী টর্নেডোর কারণে রাজ্যের রাজধানী জেফারসন সিটির বাসিন্দাদের অনেক ক্ষতি হয়েছে। এক টুইটার বার্তায় গভর্নর মাইক পারসন বলেন, ‘গত রাতের টর্নেডোর আঘাতে এবং বন্যার পানি বেড়ে যাওয়ায় আমাদের রাজ্যের ব্যাপক ক্ষতি হয়েছে।

’ আবহাওয়া সংস্থা জানায়, এ টর্নেডোয় সর্বোচ্চ বাতাসের গতি ছিল ঘণ্টায় ২৫৭ কিলোমিটার। দানবীয় এ ঝড়ের আঘাতে মোট কি পরিমাণ ক্ষতি হয়েছে তা তাৎক্ষণিকভাবে জানা যায়নি। কর্মকর্তারা জানান, উদ্ধারকর্মীরা জীবিতদের সন্ধানে দ্বারে দ্বারে গিয়ে তল্লাশি অভিযান চালায়। প্রায় ২০ জনকে রাতে বিভিন্ন হাসপাতালে চিকিৎসা দেয়া হয়।

৭ বছর খ্রিস্টান ধর্ম প্রচার করে ইসলাম গ্রহণ মার্কিন নারীর
                                  

এক সময় কট্টর খ্রিস্টান মৌলবাদী ধর্ম প্রচারক ছিলেন। টানা ৭ বছর ধরে করেছেন খ্রিস্টান ধর্মের প্রচার।কিন্তু শেষমেশ ইসলাম ধর্মের মহিমায় মুগ্ধ হয়ে হয়েছেন মুসলিম।

ওই নারীর নাম সুই ওয়াটসন। ইসলাম গ্রহণ করার পর নাম পরিবর্তন করে রাখেন খাদিজা ওয়াটসন। যক্তরাষ্ট্রের ক্যালিফোর্নিয়ায় জন্ম। ধর্মতত্ত্বের ওপর রয়েছে তার সর্বোচ্চ শিক্ষা ও গবেষণা।

ইসলাম গ্রহণ করা সম্পর্কে তিনি আরব নিউজকে বলেন, আমি একদিন এক নারীর সঙ্গে দেখা করি যিনি ইসলাম গ্রহণ করেন। আমি তাকে ইসলামের চোখে কিভাবে নারীদের দেখা হয় তা জানতে চাই।

আমি তার উত্তর শুনে অবাক হই যে নারীদের সমান ও শ্রদ্ধার চোখে দেখা হয় ইসলামে।

এরপর আমি তার কাছে আল্লাহ এবং হযরত মোহাম্মদ (স.) সম্পর্কে জানতে চাই। এর জবাবে তিনি আমায় এক ইসলামিক সেন্টারে নিয়ে যান।

সেখানে তারা আমায় কিছু বই দিয়ে তা পড়তে বলে। তা পড়ে আমি মুগ্ধ হয়ে যাই। যতই এসব পড়তে থাকি আমার ইসলামের প্রতি মুগ্ধতা বাড়তেই থাকে। শেষমেশ ইসলাম গ্রহণ করি।

বর্তমানে খাদিজা তিনি সৌদি আরবের জেদ্দায় আল-হামরা এডুকেশন ফাউন্ডেশনের শিক্ষক।

ভারত আবারও জয়ী হলো: নরেন্দ্র মোদি
                                  

ভূমিধস বিজয়ের পর উচ্ছ্বসিত নরেন্দ্র মোদি তাঁর দলের জয়ের জন্য ভারতের জনগণকে অভিনন্দন জানিয়েছেন। বলেছেন, এটা ‘গণতন্ত্রের’ বিজয়। বুথ ফেরত সমীক্ষার ফলকে সত্য প্রমাণ করে গতকাল বৃহস্পতিবার দ্বিতীয় মেয়াদে প্রধানমন্ত্রীর পদে বহাল থাকা নিশ্চিত করেছেন ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি।

লোকসভা নির্বাচনের ৫৪৩টি আসনের মধ্যে মোদির দল ভারতীয় জনতা পার্টি (বিজেপি) নেতৃত্বাধীন এনডিএ জোট ৩৫০টি আসনে এগিয়ে। এর আগে ২০১৪ সাল দলটি ২৮২টি আসনে জয় পেয়েছিল। এনডিএ জোট পেয়েছিল ৩৩৬টি আসন। তিন দশকে ভারতের জাতীয় নির্বাচনে গতবার প্রথম কোনো দল একক সংখ্যাগরিষ্ঠতা পায়। ভারতে কেন্দ্রীয় সরকার গঠনের জন্য প্রয়োজন হয় ২৭২টি আসন।

এনডিটিভি অনলাইনের খবরে বলা হয়েছে, জয়ের পর প্রতিক্রিয়ায় নরেন্দ্র মোদি বলেছেন, এ জয় ‘গণতন্ত্রের’। এ সময় তিনি জনগণের উদ্দেশে তিনটি প্রতিশ্রুতি দেন, ‘অসুস্থ উদ্দেশে কখনো কিছু করব না’, ‘ব্যক্তিগত ভাগ্য উন্নয়নে কখনো কিছু করব না’ এবং ‘দেশকে সামনের দিকে এগিয়ে নিতে আমার প্রতিটি রন্ধ্র, দেহের প্রতিটি কোষ বিরামহীন কাজ করে যাবে’।

এবারের নির্বাচনে বিজেপির জয় ২০১৪ সালের ফলকেও ছাড়িয়ে গেছে। গণনা শুরু করার মাত্র তিন ঘণ্টার মধ্যে জোটের আসন ৩০০ ছাড়িয়ে যায়। এখনো গণনা চলছে। বিজেপি নেতৃত্বাধীন এনডিএ জোট প্রায় সাড়ে তিন শ আসনে এগিয়ে রয়েছে।

দলের বিজয়ে প্রধানমন্ত্রী বলেছেন, এটা নতুন উপাখ্যান রচনা করেছে। প্রতিটি দলের অন্তত দর্শন করা উচিত। 
জাতিপ্রথাভিত্তিক রাজনীতির চর্চায় দেশটি বড় আকারে জড়িয়ে পড়েছে। মোদি বলেন, এখানে শুধু দুটি গোত্র অবশিষ্ট রয়েছে। এক, যারা দরিদ্র; দুই, যারা দারিদ্র্য নির্মূল করে।উত্তর প্রদেশে দশকের পর দশক ধরে জাতিপ্রথা রাজনীতির মূল বিষয় হয়ে রয়েছে। সেখানের ভোটাররা বিজেপিকে দ্বিতীয়বারের মতো বড় ধরনের জয় এনে দিতে যাচ্ছে। ওই রাজ্যে ২০১৪ সালের নির্বাচনে বিজেপি এবং এর জোট আপনা দল ৮০টি আসনের মধ্যে ৭৩টিতে জয় পেয়েছিল। এবার মায়াবতী এবং অখিলেশ যাদবের সমাজবাদী পার্টির বড় জোটের কাছে চ্যালেঞ্জের মুখে পড়ে বিজেপি। এরপরও বিজেপি সেখানে ৬১ আসনে এগিয়ে রয়েছে। মায়াবতী–যাদবের জোট পিছিয়ে থাকা প্রান্তিক গোত্র ও মুসলিমদের ব্যাপক সমর্থন নিয়ে ২০টি বা এর কম আসনে জয় পেতে যাচ্ছে।

গতকাল বৃহস্পতিবার দিল্লিতে দলের সদর দপ্তরে শত শত কর্মী–সমর্থকের উদ্দেশে মোদি বলেন, ‘আমরা জনগণের সিদ্ধান্ত জানতে তাদের কাছে গিয়েছিলাম। আজ কোটি মানুষ এই “ফকির কি ঝোলি” (গরিবের থলে) ভরে দিয়েছে। এটা গণতন্ত্রের সবচেয়ে বড় ঘটনা।’

গরিবের থলের বিষয়টি তিনি উল্লেখ করেছেন কংগ্রেসকে খোঁচা দিতে। দলের নতুন সদস্য শত্রুঘ্ন সিনহা প্রধানমন্ত্রীকে ব্যঙ্গ করে সম্প্রতি বলেছিলেন, ‘এখন প্রধানমন্ত্রী মোদির সময় হয়েছে তাঁর থলে তুলে নেওয়া এবং চলে যাওয়া।’ অভিনেতা থেকে রাজনীতিক বনে যাওয়া শত্রুঘ্ন সিনহা মোদির একটি পুরোনো বক্তব্যকে তুলে এনে এ মন্তব্য করেছিলেন। 
২০১৬ সালে রাতারাতি বড় নোট (পাঁচ শ ও এক হাজার রুপির) নিষিদ্ধ করে দেয় মোদি সরকার। ঘটনাটি নিয়ে বিরোধী দলগুলোর কঠোর সমালোচনার মুখে পড়েন তিনি। ওই সময় এক সমাবেশে মোদি বলেছিলেন, ‘আমার বিরোধীরা আমার কী করতে পারে? আমি ফকির। আমি আমার ঝোলা তুলে নেব এবং চলে যাব।’

মেক্সিকোতে অপরাধী চক্রের মধ্যে বন্দুকযুদ্ধে নিহত ১০
                                  

 মেক্সিকোর পশ্চিমাঞ্চলীয় মিচোয়াকান রাজ্যে গত বুধবার কথিত অপরাধী চক্রের সদস্যদের মধ্যে বন্দুকযুদ্ধে ১০ জন নিহত হয়েছে। আঞ্চলিক প্রসিকিউটর’স দপ্তর একথা জানায়। খবর এএফপি’র।
ওই দপ্তর জানায়, উরুসাপান পৌরসভার পার্শ্ববর্তী অ্যারোয়ো কলোরাডোর কাছে তাদের মধ্যে এ ভয়াবহ বন্দুকযুদ্ধ হয়। এতে প্রাথমিকভাবে ১০ জন নিহত ও কমপক্ষে চারজন আহত হয়েছে।


কর্তৃপক্ষ জানায়, তারা ঘটনাস্থল থেকে সামরিক-ধাচের বিভিন্ন অস্ত্র, বিস্ফোরক ও বুলেটের খোসা উদ্ধার করে। মিচোয়াকান রাজ্য দীর্ঘদিন ধরে অপরাধমূলক কর্মকা- মোকাবেলা করায় সেখানে ছয় বছর আগে আত্ম প্রতিরক্ষামূলক বিভিন্ন গ্রুপের সংখ্যা বৃদ্ধি পায় এবং ২০১৪ সালে এ রাজ্যে সেনা মোতায়েন করা হয়। মেক্সিকোর মাদক চোরা-কারবারীদের দমনে ২০০৬ সালে সরকার সৈন্য মোতায়ের পর থেকেই দেশটিতে সহিংসতা ব্যাপক বেড়ে যায়।


তখন থেকে সরকারি বাহিনী এবং বিভিন্ন গ্রুপের মধ্যে সংঘর্ষে আড়াই লাখের বেশি মানুষ নিহত হয়।

যুক্তরাষ্ট্র, জাপান ও দ.কোরিয়ার অংশগ্রহণে প্রথম নৌ মহড়া শুরু
                                  

 যুক্তরাষ্ট্র, জাপান, দক্ষিণ কোরিয়া ও অস্ট্রেলিয়া গুয়ামের কাছে নৌ মহড়া শুরু করেছে। এ ধাচের এটি তাদের প্রথম সামরিক মহড়া। চীন ও উত্তর কোরিয়ার সাথে উত্তেজনা বেড়ে যাওয়ার প্রেক্ষাপটে তারা এমন মহড়া শুরু করলো। মার্কিন নৌবাহিনী গতকাল বৃহস্পতিবার এ খবর জানায়। সূত্র: এএফপি।


মার্কিন সেভেনথ ফ্লীটের এক বিবৃতিতে বলা হয়, ‘সমুদ্র যুদ্ধে দক্ষতা বৃদ্ধি এবং ব্যবহারিক সহযোগিতা জোরদারে এই চারটি দেশের তিন হাজারেরও বেশি সৈন্যের অংশগ্রহণে ‘প্যাসিফিক ভ্যানগার্ড’ নামের এ নৌ মহড়া শুরু হয়েছে।


বিবৃতিতে আরো বলা হয়, এ মহড়ায় সাগরে ‘সরাসরি গুলিবর্ষণ, আত্মরক্ষামূলক আকাশ-প্রতিরক্ষা অভিযান, ডুবোজাহাজ বিধ্বংসী যুদ্ধাস্ত্র’ ব্যবহারের ওপর বেশি গুরুত্ব দেয়া হবে।
মহড়ায় অস্ট্রেলিয়ার দু’টি ফ্রিগেট, জাপানের দু’টি ডেস্ট্রয়ার ও দক্ষিণ কোরিয়ার একটি ডেস্ট্রয়ার অংশ নিয়েছে। যুক্তরাষ্ট্রের পক্ষে এ অভিযানের নেতৃত্বে রয়েছে সেভেনথ ফ্লীটের পতাকাবাহী জাহাজ ইউএসএস ব্লু রিজ।


ওয়াশিংটন ও বেইজিংয়ের মধ্যে বাণিজ্য নিয়ে ক্রমবর্ধমান উত্তেজনার কারণে চীন এ সপ্তাহের গোড়ার দিকে দক্ষিণ চীন সাগরে বিতর্কিত দ্বীপপুঞ্জের কাছে একটি মার্কিন যুদ্ধজাহাজ অবস্থানের নিন্দা জানিয়েছে।


২০১৭ সালে ওয়াশিংটন ও পিয়ংইয়ংয়ের মধ্যে পারমাণবিক উত্তেজনার কেন্দ্রবিন্দুতে ছিল গুয়াম। সেখানে এক লাখ ৬০ হাজারের বেশি মানুষ বসবাস করে। এ উত্তেজনাকে কেন্দ্র করে উত্তর কোরিয়া মার্কিন ভূখন্ড বোমা মেরে ধ্বংস করে দেয়ার হুমকি দিয়েছিল।

সব পরাজয়ই পরাজয় নয়: মমতা
                                  

 ভারতীয় পার্লামেন্টের নিম্নকক্ষ লোকসভা নির্বাচনে বিজয়ীদের শুভেচ্ছা জানিয়েছেন পশ্চিমবঙ্গের মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। গতকাল বৃহস্পতিবার পশ্চিমবঙ্গসহ অন্যান্য আসনে ভোটের ফল ঘোষণা হয়। পশ্চিমবঙ্গে মমতার তৃণমূল ৪২ আসনের মধ্যে ২৩ আসন এবং বিজেপি পেয়েছে ১৭টি আসন। ওই ফল ঘোষণার পর এক টুইট বার্তায় মমতা বিজয়ীদের শুভেচ্ছা জানান বলে এনডিটিভির প্রতিবেদনে বলা হয়েছে। টুইটারে মমতা বলেন, `বিজয়ীদের অভিনন্দন। তবে সব পরাজয়ই পরাজয় নয়।`


তৃণমূল নেত্রীর আরও বলেন, আমাদের ফলাফল কী হল তা আমরা খতিয়ে দেখব। গণনা প্রক্রিয়া এখনও বাকি আছে। ইভিএমের সঙ্গে ভিভিপ্যাট মিলিয়ে দেখার কাজও বাকি আছে। সেটা হয়ে গেলে ফল নিয়ে আলোচনা করতে হবে। গতবারের নির্বাচনে পশ্চিমবঙ্গে ৩৪ আসন পেয়েছিল তৃণমূল; সেখানে বিজেপি পেয়েছিল মাত্র দুটি আসন। এপ্রিল মাসে শুরু হয়ে গত রোববার শেষ হয় ভারতে পার্লামেন্টের নিম্নকক্ষ লোকসভার নির্বাচনের ভোট। ৮৩ কোটির বেশি ভোটারের জন্য ৫৪২টি আসনের নয় লাখ কেন্দ্রে মোট সাত পর্বে চলে এই ভোটগ্রহণ। কোনো দলকে সরকার গঠন করতে হলে পেতে হয় ২৭২টি আসন। বিজেপি পেয়েছে ৩৫২ আসন। এর আগে ২০০৯ সালে অনুষ্ঠিত ১৫তম লোকসভা নির্বাচনে বিজেপি পেয়েছিল ১১২ আসন। ২০১৪ সালে বিজেপি নেতৃত্বাধীন জোট এনডিএর শরিক দলগুলো পেয়েছিল ৫৪ আসন। সব মিলিয়ে এনডিএর আসন হয় ৩৩৮টি।

 

ফিলিস্তিন সংকটের সমাধান ছাড়া বিশ্বে শান্তি আসবে না: মাহাথির
                                  

 মালয়েশিয়ার প্রধানমন্ত্রী ড. মাহাথির মোহাম্মাদ বলেছেন, ফিলিস্তিনিদের ওপর ইসরায়েলি হামলা, জুলুম-নির্যাতনের কারণেই মধ্যপ্রাচ্যে সন্ত্রাসবাদ ছড়িয়ে পড়েছে। ফলে ফিলিস্তিন সংকটের সমাধান ছাড়া বিশ্বে শান্তি আসবে না। গত বুধবার মালয়েশিয়ার পুত্রজায়ায় ফিলিস্তিনি প্রতিরোধ আন্দোলন হামাসের রাজনৈতিক শাখার সাবেক প্রধান খালিদ মাশালের সঙ্গে এক ইফতার অনুষ্ঠানে দেওয়া বক্তব্যে তিনি এসব কথা বলেন। ইসরায়েলি সন্ত্রাসবাদের সঙ্গে মধ্যপ্রাচ্যের সন্ত্রাসবাদ ও উগ্রপন্থার সরাসরি সম্পর্ক রয়েছে বলেও উল্লেখ করেন আধুনিক মালয়েশিয়ার এ রূপকার।


মাহাথির মোহাম্মদ বলেন, মালয়েশিয়া ফিলিস্তিনিদের পাশে রয়েছে। মালয়েশিয়ার জনগণ গাজায় ইসরায়েলি অবরোধ ভাঙার নানা উদ্যোগে অংশ নিয়েছে। এ ইস্যুতে তারা রাজপথে বিক্ষোভ প্রদর্শন করেছে। ফিলিস্তিন ইস্যুকে মানবিক দিক থেকে বিবেচনা করে ইসরায়েলকে অধিকৃত অঞ্চল ছেড়ে দেওয়ার আহ্বান জানান মাহাথির।


তিনি বলেন, আন্তর্জাতিক সম্প্রদায়ের উচিত ফিলিস্তিনিদেরকে পুর্বপুরুষদের ভিটেমাটিতে ফিরে যাওয়ার অনুমতি দিতে ইসরায়েলকে বাধ্য করা। এটা আন্তর্জাতিক সম্প্রদায়ের দায়িত্ব।
ট্রাম্পের ফিলিস্তিনবিরোধী মহাপরিকল্পনা ডিল অব দ্য সেঞ্চুরিরও সমালোচনা করেন মাহাথির। এ সময় ফিলিস্তিনিদের প্রতি মালয়েশিয়ার সমর্থন ও সহযোগিতার প্রশংসা করেন হামাস নেতা খালিদ মিশাল। এদিন ফিলিস্তিনি শিক্ষার্থীদের জন্য মালয়েশীয় স্কলারশিপ বাড়ানোরও ঘোষণা দেন ড. মাহাথির মোহাম্মদ। সূত্র: পার্স টুডে, দ্য স্টার।

রাত জেগে ইভিএম পাহারা দিচ্ছে বিরোধী দলগুলো
                                  

ভারতের বিভিন্ন রাজ্যে ভোট জালিয়াতির আশঙ্কায় রাত জেগে ইলেকট্রনিক ভোটিং মেশিন (ইভিএম) পাহারা দিচ্ছেন দেশটির বিরোধী রাজনৈতিক দলগুলো। দেশটিতে ভোটগ্রহণ শেষে ইভিএম মেশিনগুলো যেখানে রাখা হয় সেই কক্ষকে স্ট্রংরুম বলা হয়। এই কক্ষটিকে ঘিরে থাকে তিন স্তরের নিরাপত্তাবেষ্টনী। ভোট গণনার আগ পর্যন্ত এখানেই থাকে ইভিএমগুলো। তবে বিরোধীদের আশঙ্কা, ইভিএম বদল করে ভোটের ফল উল্টে দেওয়ার অপচেষ্টা করতে পারে ক্ষমতাসীন বিজেপি। আর এমন আশঙ্কায় ঘি ঢেলে দিয়েছে সোশ্যাল মিডিয়ায় ভাইরাল হওয়া কিছু ভিডিও।

এসব ভিডিওতে ইভিএমে জালিয়াতির ইঙ্গিত মিলেছে। এমন একটি ভাইরাল ভিডিও নিয়ে উত্তর প্রদেশের বিভিন্ন স্থানে বিক্ষোভের ঘটনা ঘটেছে। ওই ভিডিওতে দেখা যাচ্ছে, উত্তর প্রদেশের চান্দৌলি এবং গাজিপুর কেন্দ্রে ভোটের একদিন পর একটি ট্রাক থেকে ইভিএম নামানো হচ্ছে। ইভিএম অন্যত্র পাঠানো হচ্ছে এবং অননুমোদিত গাড়িতে সেগুলোকে রাখা হচ্ছে কোনও রকম নিরাপত্তা ছাড়াই। এমন বেশ কিছু ছবিও প্রকাশিত হয়েছে। বিহার, হরিয়ানা এবং পাঞ্জাবের বিভিন্ন জায়গা থেকে ইভিএমের কারচুপির অভিযোগ উঠেছে। বিক্ষোভকারীরা বলছেন, স্ট্রং রুমের বাইরে নিয়ে ইভিএম-এর ফলাফল বদলে দেওয়া হচ্ছে। উদ্ভূত পরিস্থিতিতে নেতাকর্মীদের স্ট্রং রুম পাহারা দেওয়ার নির্দেশ দিয়েছে বিরোধী দলগুলো।

সে মোতাবেক পালা করে পাহারা দেওয়া হচ্ছে স্ট্রং রুম। গত মঙ্গলবার রাতে স্ত্রীকে সঙ্গে নিয়ে দিল্লিতে একটি স্টোর রুম পরিদর্শন করেছেন কংগ্রেসের জ্যেষ্ঠ নেতা দিগি¦জয় সিং। উত্তর প্রদেশের মেরুত ও রায়বেরেলিতে ইভিএম স্টোর রুমের সামনে অবস্থান নিয়েছে কংগ্রেস নেতাকর্মীরা। কারচুপির আশঙ্কায় ভোটগণনার আগে ভিভিপ্যাটের স্লিপের সঙ্গে ইভিএম মিলিয়ে দেখার দাবি জানিয়ে গত মঙ্গলবার নির্বাচন কমিশনে স্মারকলিপি দিয়েছে ভারতের ২২টি বিরোধী দল। সূত্র: এনডিটিভি, জি নিউজ।

আয়ারল্যান্ডের মধ্য দিয়ে ইউরোপ সফর শুরু করবেন ট্রাম্প
                                  

 মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প আয়ারল্যান্ডের মধ্য দিয়ে আগামি মাসে তার ইউরোপ সফর শুরু করবেন। গত মঙ্গলবার হোয়াইট হাউস একথা জানিয়েছে। হোয়াইট হাউস আয়ারল্যান্ডের প্রধানমন্ত্রীর আনুষ্ঠানিক পদবি উল্লেখ করে এক বিবৃতিতে জানিয়েছে, ‘প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড জে. ট্রাম্প ও ফার্স্ট লেডি মেলিনিয়া ট্রাম্প আয়ারল্যান্ডের টাইওইসার্চ লিও ভারদকারের আমন্ত্রণে সেদেশে যাবেন।’ খবর বার্তা সংস্থা এএফপি’র।

দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধে মিত্রবাহিনীর নরম্যান্ডিতে অবতরণের ৭৫তম বার্ষিকী উপলক্ষে স্মরণউৎসবে যোগ দিতে ট্রাম্প পূর্ব নির্ধারিত এই সফরে ব্রিটেন ও ফ্রান্সে যাবেন। তিনি ৫ জুন আয়ারল্যান্ড সফর করবেন। ফ্রান্সের নরম্যান্ডি উপকূলে মিত্রবাহিনীর অবতরণকে ডি-ডে হিসেবে অভিহিত করা হয়। ২০১৭ সালে ক্ষমতায় আসার পর এটাই হবে ট্রাম্পের প্রথম আয়ারল্যান্ড সফর। শ্যানোন নগরী থেকে ৩৯ মাইল পশ্চিমে ডুনবেগে ভারদকারের সঙ্গে ট্রাম্প বৈঠকে বসবেন। ট্রাম্প ও ফার্স্ট লেডি মেলানিয়া ট্রাম্প ৩ জুন থেকে ৫ জুন পর্যন্ত ব্রিটেনে রাষ্ট্রীয় সফরে থাকবেন। সেখানে তারা ৯৩ বছর বয়সী রানী দ্বিতীয় এলিজাবেথের সাথে দেখা করবেন। ব্রিটেন সফরকালে ট্রাম্প ব্রিটিশ প্রধানমন্ত্রী থেরেসা মে’র সাথেও বৈঠকে বসবেন। ট্রাম্প ইংল্যান্ডের দক্ষিণাঞ্চলীয় পোর্টসমাউথে একটি সামরিক অনুষ্ঠানে যোগ দিবেন।

১৯৪৪ সালে সেখান থেকে জাহাজ ডি-ডে অবতরণের উদ্দেশে যাত্রা শুরু করেছিল। এটি ছিল ইতিহাসের সমুদ্র পথে সবচেয়ে বড় সামরিক অভিযান। জার্মানির দখলদারিত্ব থেকে ফ্রান্সকে মুক্ত করার লক্ষে এ অভিযান চালানো হয়। এরপর মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডি-ডে’র প্রধান স্মরণ উৎসবে যোগ দিতে ফ্রান্সে যাবেন।অনুষ্ঠানে যোগদান শেষে তিনি প্রেসিডেন্ট ইমানুয়েল ম্যাক্রোঁর সাথে বৈঠকে বসবেন।

 

সিরিয়া নতুন করে রাসায়নিক হামলায় যুক্তরাষ্ট্রের হুমকি
                                  

যুক্তরাষ্ট্র গত মঙ্গলবার বলছে, তারা সন্দেহ করছে যে সিরিয়ার সরকারি বাহিনী নতুন করে রাসায়নিক হামলা চালিয়েছে। তারা এর পাল্টা ব্যবস্থা নেয়ার হুমকি দিয়েছে। খবর এএফপি’র। মার্কিন পররাষ্ট্র দপ্তর জানিয়েছে, গত রোববার ইদলিবে সরকারি বাহিনীর অভিযান চলাকালে সিরিয়া রাসায়নিক অস্ত্র ব্যবহার করেছে তারা এমন আভাস পর্যালোচনা করছে। ইদলিব সিরিয়ায় জিহাদিদের অত্যন্ত শক্তিশালী ঘাঁটি।

এক বিবৃতিতে পররাষ্ট্র দপ্তরের নারী মুখপাত্র মর্গান ওর্তেগাস বলেন, ‘আমরা এখন তথ্য সংগ্রহ করছি। কিন্তু আমরা আবারো সতর্ক করে বলছি, আসাদ সরকার রাসায়নিক অস্ত্র ব্যবহার করলে যুক্তরাষ্ট্র ও আমাদের মিত্র দেশগুলো এর দ্রুত ও যথাযথ জবাব দেবে।’ রাসায়নিক হামলার জন্য অন্য দলগুলোকে দায়ী করার চেষ্টা করায় তিনি দামেস্ক’র গুরুত্বপূর্ণ মিত্র দেশ রাশিয়ারও নিন্দা করেন। ওর্তেগাস বলেন, ‘আসাদ সরকারের এ নিন্দনীয় ও ভয়ঙ্কর রাসায়নিক হামলাকে কোনভাবে ছাড় দেয়া যায় না।’


   Page 1 of 247
     আন্তর্জাতিক
পথশিশুদের টাকা বা খাবার দিলেই কারাদন্ড
.............................................................................................
কংগ্রেসকে পাশ কাটিয়ে সৌদি আরবকে ৮০০ কোটি ডলারের অস্ত্র দিচ্ছেন ট্রাম্প
.............................................................................................
ভেনিজুয়েলায় কারাগারে সহিংসতা, নিহত ২৯
.............................................................................................
মধ্যপ্রাচ্যে আরো ১৫০০ সৈন্য পাঠাচ্ছে যুক্তরাষ্ট্র
.............................................................................................
বিশ্বের সবচেয়ে দামি ওষুধের দাম কত?
.............................................................................................
জীবন উৎসর্গ করা ১২ বাংলাদেশি শান্তিরক্ষীকে জাতিসংঘের সম্মাননা
.............................................................................................
যুক্তরাষ্ট্রের মিজৌরি রাজ্যে টর্নেডোর আঘাতে ৩ জনের মৃত্যু
.............................................................................................
৭ বছর খ্রিস্টান ধর্ম প্রচার করে ইসলাম গ্রহণ মার্কিন নারীর
.............................................................................................
ভারত আবারও জয়ী হলো: নরেন্দ্র মোদি
.............................................................................................
মেক্সিকোতে অপরাধী চক্রের মধ্যে বন্দুকযুদ্ধে নিহত ১০
.............................................................................................
যুক্তরাষ্ট্র, জাপান ও দ.কোরিয়ার অংশগ্রহণে প্রথম নৌ মহড়া শুরু
.............................................................................................
সব পরাজয়ই পরাজয় নয়: মমতা
.............................................................................................
ফিলিস্তিন সংকটের সমাধান ছাড়া বিশ্বে শান্তি আসবে না: মাহাথির
.............................................................................................
রাত জেগে ইভিএম পাহারা দিচ্ছে বিরোধী দলগুলো
.............................................................................................
আয়ারল্যান্ডের মধ্য দিয়ে ইউরোপ সফর শুরু করবেন ট্রাম্প
.............................................................................................
সিরিয়া নতুন করে রাসায়নিক হামলায় যুক্তরাষ্ট্রের হুমকি
.............................................................................................
যুদ্ধ নয়, বাধা দিতেই ইরানের বিরুদ্ধে যুক্তরাষ্ট্রের অবস্থান : পেন্টাগণ প্রধান
.............................................................................................
মার্কিন বিমান বাহিনীর প্রধান হিসেবে নারীকে মনোনয়ন দিলেন ট্রাম্প
.............................................................................................
মাত্র ৮ বছর বয়সেই ১০৬টি ভাষা জানে যে বালক!
.............................................................................................
তিনজন ইসলামি চিন্তাবিদের মৃত্যুদন্ড কার্যকর করছে সৌদি
.............................................................................................
কাশ্মীরে নিরাপত্তা হেফাজতে বেসামরিক মানুষ নির্যাতনের শিকার
.............................................................................................
ভারতে জঙ্গি হামলা, বিধায়কসহ নিহত ১১
.............................................................................................
রুখে দাঁড়াতে হবে এখনই: প্রেসিডেন্ট হাসান রুহানি
.............................................................................................
সৌদি আরব-আমিরাত ৩০ কোটি ডলারের মার্কিন রণতরী আনছে
.............................................................................................
রূপপুর পারমাণবিক বিদ্যুৎ কেন্দ্রের কেনাকাটার অনুসন্ধানে দুদক
.............................................................................................
পাকিস্তানিদের জন্য বাংলাদেশী ভিসা বন্ধ নেই : পররাষ্ট্রমন্ত্রী
.............................................................................................
অ্যাপল পণ্য বর্জনের ডাক বেইজিংয়ে
.............................................................................................
বঙ্গবন্ধুর জন্মশত বার্ষিকীতে প্রীতি ম্যাচ খেলতে রোনালদো’র নেতৃত্বে বাংলাদেশে আসবে পর্তুগাল দল: বাফুফে
.............................................................................................
তাজিকিস্তানের কারাগারে দাঙ্গা লাগালো আইএস, নিহত ৩২
.............................................................................................
সৌদি-আমিরাতের ৩০০ স্থাপনায় হামলার হুমকি হুতিদের
.............................................................................................
যুক্তরাষ্ট্রের যুদ্ধের হুমকি ঠেকাতে প্রস্তুত ইরান
.............................................................................................
ইরান ধ্বংসের হুমকি দিল ট্রাম্প
.............................................................................................
হন্ডুরাসে বিমান দুর্ঘটনা ॥ বিদেশি পর্যটকসহ নিহত ৫
.............................................................................................
‘ট্রাম্প টয়লেট ব্রাশ’ কিনতে ক্রেতাদের হিড়িক
.............................................................................................
হঠাৎ ধসে পড়ল বহুতল ভবন, নিহত ১০
.............................................................................................
ন্যাটো বাহিনীর বিমান হামলায় ১৭ আফগান পুলিশ নিহত
.............................................................................................
উত্তপ্ত কাশ্মীর, সংঘর্ষে নিহত ৯
.............................................................................................
যুক্তরাষ্ট্রে দ. এশীয় অভিবাসীদের মধ্যে দারিদ্র্যে দ্বিতীয় বাংলাদেশিরা
.............................................................................................
চীনে ভবন ধসে নিহতের সংখ্যা বেড়ে ১০
.............................................................................................
যে কারণে পাকিস্তানের আকাশে ভারতীয় বিমান প্রবেশে নিষেধাজ্ঞা
.............................................................................................
যুক্তরাষ্ট্রের সঙ্গে কোন আলোচনা নয় : ইরান
.............................................................................................
কাশ্মীরের পুলওয়ামায় সেনাসহ নিহত ৪
.............................................................................................
চীনা সেনার সঙ্গে জড়িত বিজ্ঞানীদের তালিকা করছে যুক্তরাষ্ট্র
.............................................................................................
আলাস্কায় দুটি বিমানের সংঘর্ষে নিহত ৫
.............................................................................................
ভেনিজুয়েলাকে ৭১ টন চিকিৎসা সরবরাহ পাঠিয়েছে চীন
.............................................................................................
জাহাজ আটক ট্রাম্প-কিম বৈঠকের উদ্দেশ্যকে ব্যাহত করেছে: উত্তর কোরিয়া
.............................................................................................
মোদি ভারতের সবচেয়ে বড় বিপদ: মমতা
.............................................................................................
পাকিস্তানে বোমা বিস্ফোরণে ৪ পুলিশ সদস্য নিহত
.............................................................................................
সৌদি জাহাজে হামলা
.............................................................................................
বুরকিনা ফাসোর ক্যাথলিক চার্চে বন্দুক হামলায় নিহত ৬
.............................................................................................

|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
স্বাধীন বাংলা মো. খয়রুল ইসলাম চৌধুরী কর্তৃক সম্পাদিত ও ঢাকা-১০০০ হতে প্রকাশিত
প্রধান উপদেষ্টা: ফিরোজ আহমেদ (সাবেক সচিব, বাণিজ্য মন্ত্রণালয়)
উপদেষ্টা: আজাদ কবির
সম্পাদক মন্ডলীর সভাপতি: ডাঃ হারুনুর রশীদ
সম্পাদক মন্ডলীর সহ-সভাপতি: মামুনুর রশীদ
ব্যবস্থাপনা সম্পাদক : মো: খায়রুজ্জামান
যুগ্ম সম্পাদক: জুবায়ের আহমদ
বার্তা সম্পাদক: মুজিবুর রহমান ডালিম
স্পেশাল করাসপনডেন্ট : মো: শরিফুল ইসলাম রানা
যুক্তরাজ্য প্রতিনিধি: জুবের আহমদ
যোগাযোগ করুন: swadhinbangla24@gmail.com
    2015 @ All Right Reserved By swadhinbangla.com

Developed By: Dynamicsolution IT [01686797756]