| বাংলার জন্য ক্লিক করুন
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|

   তথ্যপ্রযুক্তি -
                                                                                                                                                                                                                                                                                                                                 
এনআইডি যাচাইয়ের গেটওয়ে ‘পরিচয়’ উদ্বোধন করবেন জয়

সহজে এবং দ্রুত জাতীয় পরিচয়পত্র (এনআইডি) যাচাইয়ের গেটওয়ে Ôwww.porichoy.gov.bdÕ উদ্বোধন করবেন প্রধানমন্ত্রীর তথ্য ও প্রযুক্তি বিষয়ক উপদেষ্টা সজীব ওয়াজেদ জয়। আজ বুধবার বিকেল ৩ টায় তথ্য ও প্রযুক্তি মন্ত্রণালয়ে এক অনুষ্ঠানের মাধ্যমে এই সেবার উদ্বোধন করবেন তিনি। প্রধানমন্ত্রীর প্রেস উইং থেকে এ তথ্য জানানো হয়। অনুষ্ঠানে সভাপতিত্ব করবেন তথ্য ও প্রযুক্তি প্রতিমন্ত্রী জুনায়েদ আহমেদ পলক। ‘পরিচয়’ হচ্ছে একটি গেটওয়ে সার্ভার; যা নির্বাচন কমিশনের জাতীয় ডাটা বেসের সঙ্গে সংযুক্ত।

এটি এমন একটি অ্যাপ্লিকেশন প্রোগ্রামিং যা সরকারি-বেসরকারি বা ব্যক্তিগত যেকোনো সংস্থার গ্রাহকদের, তাদের জাতীয় পরিচয়পত্র (এনআইডি) যাচাই করে নিমিষেই সেবা দিতে পারবে। এনআইডি যাচাই করার জন্য এখন থেকে আর আগের মতো ৩-৫ কর্মদিবস অপেক্ষা করতে হবে না। বর্তমান প্রক্রিয়ায়, নির্বাচন কমিশনের ওয়েবসাইটে লগ ইন করে সংস্থাগুলো জাতীয় পরিচয়পত্রের তথ্য ম্যানুয়ালি যাচাই করে থাকে। আবার অনেক সংস্থা এনআইডি যাচাইকরণও করে না, কারণ নির্বাচন কমিশনের এনআইডি ডাটাবেসের অ্যাক্সেস তাদের নেই। যা গ্রাহকদের জাল বা সঠিক আইডি যাচাই করার জন্য অনুমতি দেয়। কিন্তু ‘পরিচয়’ গেটওয়ে ব্যবহার করলে এনআইডি যাচাই করার জন্য কোনো মানুষের প্রয়োজন নেই। যেকোনো প্রতিষ্ঠান সফ্টওয়্যারের মাধ্যমে ‘পরিচয়’র সার্ভারের সঙ্গে সংযোগ স্থাপন করলে এনআইডি শনাক্তের ফলাফল সঙ্গে সঙ্গেই স্বয়ংক্রিয়ভাবে পেয়ে যাবে। সংশ্লিষ্টরা বলেছেন, এটি দেশের জনগণের জন্য এমন দুর্দান্ত সুবিধা আনবে যারা এখন ব্যাংক অ্যাকাউন্ট খোলা, ডিজিটাল ওয়ালেট অ্যাকাউন্ট খোলা বা যে কাজগুলোতে জাতীয় পরিচয়পত্র নিবন্ধনের প্রয়োজন হয় তারা খুব উপকৃত হবে। তাদের জন্য অনেক সহজ ও সময় সাশ্রয় হবে। নিজের নাম নিবন্ধন করে যাচাইয়ের জন্য আর ৪/৫ দিন অপেক্ষা করতে হবে না, ভোগান্তিও পোহাতে হবে না। এটি সঙ্গে সঙ্গেই জাল আইডিগুলো শনাক্ত করে জালিয়াতি প্রতিরোধ করবে এবং পরিসেবাগুলোকে আরও নিরাপদ করবে। ‘পরিচয়’ গেটওয়ে গোপনীয়তা ও নিরাপত্তা বজায় রাখবে এবং জাতীয় পরিচয়পত্র যাচাইয়ের খরচ কমিয়ে কাজকে দ্রুত করবে।

এনআইডি যাচাইয়ের গেটওয়ে ‘পরিচয়’ উদ্বোধন করবেন জয়
                                  

সহজে এবং দ্রুত জাতীয় পরিচয়পত্র (এনআইডি) যাচাইয়ের গেটওয়ে Ôwww.porichoy.gov.bdÕ উদ্বোধন করবেন প্রধানমন্ত্রীর তথ্য ও প্রযুক্তি বিষয়ক উপদেষ্টা সজীব ওয়াজেদ জয়। আজ বুধবার বিকেল ৩ টায় তথ্য ও প্রযুক্তি মন্ত্রণালয়ে এক অনুষ্ঠানের মাধ্যমে এই সেবার উদ্বোধন করবেন তিনি। প্রধানমন্ত্রীর প্রেস উইং থেকে এ তথ্য জানানো হয়। অনুষ্ঠানে সভাপতিত্ব করবেন তথ্য ও প্রযুক্তি প্রতিমন্ত্রী জুনায়েদ আহমেদ পলক। ‘পরিচয়’ হচ্ছে একটি গেটওয়ে সার্ভার; যা নির্বাচন কমিশনের জাতীয় ডাটা বেসের সঙ্গে সংযুক্ত।

এটি এমন একটি অ্যাপ্লিকেশন প্রোগ্রামিং যা সরকারি-বেসরকারি বা ব্যক্তিগত যেকোনো সংস্থার গ্রাহকদের, তাদের জাতীয় পরিচয়পত্র (এনআইডি) যাচাই করে নিমিষেই সেবা দিতে পারবে। এনআইডি যাচাই করার জন্য এখন থেকে আর আগের মতো ৩-৫ কর্মদিবস অপেক্ষা করতে হবে না। বর্তমান প্রক্রিয়ায়, নির্বাচন কমিশনের ওয়েবসাইটে লগ ইন করে সংস্থাগুলো জাতীয় পরিচয়পত্রের তথ্য ম্যানুয়ালি যাচাই করে থাকে। আবার অনেক সংস্থা এনআইডি যাচাইকরণও করে না, কারণ নির্বাচন কমিশনের এনআইডি ডাটাবেসের অ্যাক্সেস তাদের নেই। যা গ্রাহকদের জাল বা সঠিক আইডি যাচাই করার জন্য অনুমতি দেয়। কিন্তু ‘পরিচয়’ গেটওয়ে ব্যবহার করলে এনআইডি যাচাই করার জন্য কোনো মানুষের প্রয়োজন নেই। যেকোনো প্রতিষ্ঠান সফ্টওয়্যারের মাধ্যমে ‘পরিচয়’র সার্ভারের সঙ্গে সংযোগ স্থাপন করলে এনআইডি শনাক্তের ফলাফল সঙ্গে সঙ্গেই স্বয়ংক্রিয়ভাবে পেয়ে যাবে। সংশ্লিষ্টরা বলেছেন, এটি দেশের জনগণের জন্য এমন দুর্দান্ত সুবিধা আনবে যারা এখন ব্যাংক অ্যাকাউন্ট খোলা, ডিজিটাল ওয়ালেট অ্যাকাউন্ট খোলা বা যে কাজগুলোতে জাতীয় পরিচয়পত্র নিবন্ধনের প্রয়োজন হয় তারা খুব উপকৃত হবে। তাদের জন্য অনেক সহজ ও সময় সাশ্রয় হবে। নিজের নাম নিবন্ধন করে যাচাইয়ের জন্য আর ৪/৫ দিন অপেক্ষা করতে হবে না, ভোগান্তিও পোহাতে হবে না। এটি সঙ্গে সঙ্গেই জাল আইডিগুলো শনাক্ত করে জালিয়াতি প্রতিরোধ করবে এবং পরিসেবাগুলোকে আরও নিরাপদ করবে। ‘পরিচয়’ গেটওয়ে গোপনীয়তা ও নিরাপত্তা বজায় রাখবে এবং জাতীয় পরিচয়পত্র যাচাইয়ের খরচ কমিয়ে কাজকে দ্রুত করবে।

সামান্য ব্যয় বাড়বে তথ্যপ্রযুক্তি খাতে
                                  

তথ্যপ্রযুক্তি খাতে এ বছর বৈশ্বিক ব্যয় সামান্য বাড়ছে। বাজার গবেষণা প্রতিষ্ঠান গার্টনারের সাম্প্রতিক এক গবেষণায় বলা হয়, গত বছরের তুলনায় এ বছর বৈশ্বিক পর্যায়ে তথ্যপ্রযুক্তি বিভিন্ন খাতে প্রাতিষ্ঠানিক ক্রয়ে গড়ে দশমিক ৬ শতাংশ খরচ বাড়তে পারে। চলতি বছর মোট ৩ দশমিক ৭৪ ট্রিলিয়ন মার্কিন ডলার প্রযুক্তি খাতে ব্যয় হচ্ছে। গত বুধবার গার্টনার ওই প্রতিবেদন প্রকাশ করেছে।


গার্টনারের ভাইস প্রেসিডেন্ট জন ডেভিড লাভলক বলেন, আর্থিক মন্দাভাবের গুঞ্জন, ব্রেক্সিট, বাণিজ্যযুদ্ধ ও করারোপের মতো নানা ঘটনা সত্ত্বেও তথ্যপ্রযুক্তি খাতের ব্যয় চলতি বছর প্রায় একই রকম থাকছে। এ বছর তথ্যপ্রযুক্তি খাতে খুব বেশি খরচ বাড়ায়নি প্রতিষ্ঠানগুলো।
গার্টনারের প্রতিবেদন অনুসারে, চলতি বছরে দেশভেদে তথ্যপ্রযুক্তি খাতে ব্যয়ের চিত্র বিভিন্ন রকম। তবে প্রতিটি দেশেই তথ্যপ্রযুক্তি খাতে ব্যয়ের ক্ষেত্রে কিছুটা ঊর্ধ্বগতি লক্ষ করা গেছে। বাণিজ্যযুদ্ধ সত্ত্বেও উত্তর আমেরিকায় এ বছর তথ্যপ্রযুক্তি ব্যয় ৩ দশমিক ৭ শতাংশ বাড়তে পারে। চীনে এ খাতে ব্যয় বাড়বে ২ দশমিক ৮ শতাংশ।
চলতি বছর সবচেয়ে বেশি প্রবৃদ্ধি হবে এন্টারপ্রাইজ সফটওয়্যার খাতে। ২০১৮ সালে এ খাতের ব্যয় ছিল ৪১৯ বিলিয়ন মার্কিন ডলার, যা এ বছর ৪৫৭ বিলিয়ন মার্কিন ডলারে পৌঁছাবে। এ বছর মোট প্রবৃদ্ধি হতে পারে ৯ শতাংশ।
গার্টনারের বিশেষজ্ঞ লাভলক বলেন, আগামি কয়েক বছর ধরে ক্লাউড প্রযুক্তি মূলধারায় চলে আসবে। ফলে প্রতিষ্ঠানের প্রধান কারিগরি কর্মকর্তারা প্রতিষ্ঠানের অবকাঠামোর ক্ষেত্রে এ প্রযুক্তি গ্রহণ করবেন। ডেটা সেন্টারের মতো পুরোনো প্রযুক্তিতে বিনিয়োগ কমতে দেখা যাবে।
বৈশ্বিক পর্যায়ে তথ্যপ্রযুক্তির মোট ব্যয়ের ক্ষেত্রে গ্রাহকের ব্যয় করা প্রযুক্তিপণ্যের ব্যয় ক্রমে কমছে। পিসি, ল্যাপটপ, ট্যাবলেটের মতো পণ্য এখন অনেক জায়গায় মানুষের হাতে হাতে চলে এসেছে। ফলে সেখানে নতুন পণ্য বিক্রি হচ্ছে কম। তথ্যপ্রযুক্তি খাতে গ্রাহক পণ্যে ব্যয় কমেছে। ক্লাউড অ্যাপ্লিকেশন এসব ডিভাইসের সুবিধা আরও বাড়াচ্ছে। ডিভাইস চালু রাখতে কম শক্তির যন্ত্রপাতি হলেই চলছে। চলতি বছর ডিভাইসের বাজার ৪ দশমিক ৩ শতাংশ কমে যাবে বলে পূর্বাভাস দিয়েছে গার্টনার।

ব্যাংকের নিয়মে আসতে হবে ফেসবুককে: ট্রাম্প
                                  

মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প বলেছেন, তিনি ক্রিপটোকারেন্সির ভক্ত নন। ফেসবুককে যদি লিবরা নামের ক্রিপটোকারেন্সি চালু করতে হয়, তবে তাদের ব্যাংকিং চার্টারের প্রয়োজন পড়তে পারে। বৃহস্পতিবার এক টুইটে তিনি এসব কথা বলেছেন।


ফেসবুকের পক্ষ থেকে নতুন ভার্চ্যুয়াল মুদ্রা চালুর পরিকল্পনা জানানোর পর থেকে অনেকেই এর সমালোচনা করছেন। সে তালিকায় এবার যুক্ত হলেন মার্কিন প্রেসিডেন্ট। এর আগে সেন্ট্রাল ব্যাংকের প্রধান, ফেডারেল রিজার্ভের চেয়ার জেরোম পাওয়েল, ফ্রান্সের অর্থনমন্ত্রী ব্রুনো লা মারি, ব্যাংক অব ইংল্যান্ডের গভর্নর মার্ক কার্নি ফেসবুকের লিবরার সমালোচনা করেছেন।
ট্রাম্প বলেছেন, মার্কিন ডলারের মতো নির্ভরযোগ্য, বিশ্বাসযোগ্য মুদ্রাই হতে পারে যুক্তরাষ্ট্রের প্রকৃত মুদ্রা।


ট্রাম্প তাঁর টুইটে বলেছেন, ক্রিপটোকারেন্সি প্রকৃত অর্থ নয়। অনিয়ন্ত্রিত ক্রিপটো সম্পদ বেআইনি আচরণ, বিশেষ করে মাদক ও অন্যান্য অনৈতিক কার্যক্রম বাড়াতে পারে। ফেসবুক ও অন্যান্য প্রতিষ্ঠান যদি ব্যাংক হতে চায়, তবে তাদের নতুন ব্যাংকিং চার্টার খুঁজতে হবে এবং পুরোপুরি ব্যাংকিং নিয়মনীতির আওতায় আসতে হবে। ফেসবুকের পক্ষ থেকে ট্রাম্পের টুইট বিষয়ে কোনো মন্তব্য করা হয়নি।


বিশেষজ্ঞরা বলছেন, ফেসবুকের এ মুদ্রা যদি মূলধারার লেনদেন পদ্ধতি হিসেবে ঢুকে পড়ে, তবে গ্রাহকদের জন্য নতুন ঝুঁকি তৈরি হবে। অনেকের বাজে খরচের অভ্যাস গড়ে উঠবে। যুক্তরাষ্ট্রের অনেক আইনপ্রণেতা এ মুদ্রা আনার বিপক্ষে। সমালোচকেরাও এ নিয়ে মুখ খুলেছেন।
কনসোর্টিয়াম সহযোগী, পেমেন্ট সেবাদাতা, ক্রেডিট কার্ড কোম্পানি ও গ্রাহক কোম্পানিদের সঙ্গে নিয়ে নতুন মুদ্রা আনতে বেশ আটঘাট বেঁধে নেমেছে ফেসবুক। ২০২০ সালের প্রথমার্ধ্বে এ মুদ্রা আনার পরিকল্পনা রয়েছে প্রতিষ্ঠানটির। ফেসবুকের লিবরা সবাইকে একটি ইলেকট্রনিক ওয়ালেটের সুবিধা দেবে। ফেসবুক বলছে, আন্তর্জাতিক সব মুদ্রার মূল্যমানের সঙ্গে সংগতি রেখে এই মুদ্রার মূল্যমান ধরা হবে। প্রচলিত মুদ্রা দিয়ে লিবরা কেনা যাবে।


ফেসবুকের এক শ্বেতপত্রে বলা হয়, লিবরার সঙ্গে ফেসবুক ব্যবহারকারীর তথ্যের যোগসূত্র থাকবে না বলে তাদের লক্ষ্য করে বিজ্ঞাপন প্রদর্শন করা হবে না। তবে ফেসবুকের পক্ষ থেকে লিবরা পেমেন্টের সঙ্গে ফেসবুকের বিভিন্ন পণ্য যুক্ত করার পরিকল্পনা রয়েছে ফেসবুকের। ফেসবুকের এসব পণ্য কয়েক শ কোটি ব্যবহারকারী নিয়মিত ব্যবহার করছেন। বিষয়টি নিয়ে উদ্বেগ প্রকাশ করছেন বিশেষজ্ঞরা।
বিটকয়েনের মতো ক্রিপটোকারেন্সির সঙ্গে এর পার্থক্য হবে সহজলভ্য ও সহজে ব্যবহার করার সুবিধা। বিটকয়েন ব্যবহার করে বিভিন্ন বিল দেওয়া, নিত্যপ্রয়োজনীয় জিনিস ও সেবার দাম দেওয়া যাবে।


বিশেষজ্ঞ রস বলেন, লিবরা মূলত কোনো কিছু বিনিময়ের মুদ্রা বা কারেন্সি হিসেবে তৈরি করা হচ্ছে। এটি বিটকয়েনের মতো কোনো বিনিয়োগ হিসেবে ব্যবহার করা যাবে না। একে স্থিতিশীল ডিজিটাল ক্রিপটোকারেন্সি হিসেবে বর্ণনা করেছে ফেসবুক। এর পেছনে বাস্তব সম্পদের সম্পূর্ণ বিনিয়োগ থাকবে।


ফেসবুক বলছে, ভার্চ্যুয়াল মুদ্রায় ব্যাংক ডিপোজিট, স্বল্পমেয়াদি সরকারি নিরাপত্তার মতো বিষয় যুক্ত থাকবে। এতে অন্যান্য ক্রিপটোকারেন্সির মতো মুদ্রাস্ফীতি হবে না।
লিবরার উন্নয়নকারী ফেসবুকের ক্যালিব্রা বিভাগের প্রধান ডেভিড মার্কাস বলেন, ভবিষ্যতে ভার্চ্যুয়াল মুদ্রায় তাঁরা নানা আর্থিক সুবিধা দেওয়ার পরিকল্পনা করছেন। এর মধ্যে ঋণদানের মতো বিষয়ও রয়েছে। লক্ষণীয় বিষয় হলো, একজন ফেসবুক ব্যবহারকারী তাঁর অ্যাকাউন্টে যে লিবরা জমা রাখবেন, তার বিপরীতে ফেসবুক তাঁকে কোনো সুদ দেবে না। কিন্তু ফেসবুক গ্রাহকের জমা রাখা সেই লিবরা বিনিয়োগ করে তা দিয়ে আয় করা যাবে। কোটি কোটি গ্রাহকের জমা রাখা কোটি কোটি লিবরা লগ্নি করে ফেসবুক আয় করবে, কিন্তু সেই আয়ের কোনো অংশ গ্রাহক পাবেন না।

 

ফ্রান্সে ফেসবুক-গুগলের ওপর ৩ শতাংশ কর
                                  

ফেসবুক, গুগল ও আমাজনের মতো প্রযুক্তি প্রতিষ্ঠানের ওপর ৩ শতাংশ কর ধার্য করছে ফ্রান্স সরকার। ফ্রান্সের পার্লামেন্টের নিম্নকক্ষে গতকাল বৃহস্পতিবার বিষয়টি অনুমোদন করেছে। ফ্রান্স সরকার আশা করছে, তাদের মতো অন্যান্য দেশও প্রযুক্তি প্রতিষ্ঠানগুলোর ওপর ট্যাক্স বসাবে।


ফ্রান্সের কর্তৃপক্ষ বলছে, ইউরোপের যেসব অঞ্চলে ট্যাক্স কম, সেখানে কার্যালয় স্থাপন করা ঠেকাতে এ বিল এনেছে দেশটি। ফ্রান্সের মতো দেশে যেখানে বিজ্ঞাপন থেকে ব্যাপক অর্থ আয় করে প্রতিষ্ঠানগুলো, সেখানে প্রায় কোনো ট্যাক্সই দেয় না।


বিলে ডিজিটাল কোম্পানিগুলোর ওপর ৩ শতাংশ কর আরোপের প্রস্তাব আনা হয়েছে। আগামি সপ্তাহে এটি সিনেটে যাবে এবং সেখানে চূড়ান্ত অনুমোদন পাবে বলে আশা করা যাচ্ছে।
প্রযুক্তি প্রতিষ্ঠানগুলো সতর্ক করে বলছে, কর আরোপ করা হলে তা গ্রাহকদের জন্য বেশি খরচ হবে।


ফ্রান্স কর আরোপ করলে মার্কিন প্রতিষ্ঠান এয়ারবিএনবি ও উবারের মতো চীন ও ইউরোপের কয়েকটি প্রতিষ্ঠানের ওপরেও প্রভাব পড়বে। যেসব প্রতিষ্ঠান গ্রাহকের তথ্য ব্যবহার করে অনলাইন বিজ্ঞাপন থেকে অর্থ আয় করে, তাদের লক্ষ্য করে এ বিল এনেছে দেশটি।

গ্রামীণফোন, টেলিনর ও ইউনিসেফের চুক্তি স্বাক্ষর
                                  

একটি কৌশল নির্ধারণের মাধ্যমে বাংলাদেশে শিশুদের জন্য অনলাইন সুরক্ষা জোরদার করতে গ্রামীণফোন, টেলিনর গ্রুপ ও ইউনিসেফ চুক্তি স্বাক্ষর করেছে। বৃহস্পতিবার (৪ জুলাই) এ চুক্তি স্বাক্ষর অনুষ্ঠিত হয়।


“বাংলাদেশে শিশুর অনলাইন সুরক্ষার মাত্রা বাড়ানো ও জোরদার করা” শীর্ষক প্রকল্প ১২ লাখ শিশু-কিশোরকে অনলাইনে নিরাপদ থাকার বিষয়ে প্রশিক্ষণ দেবে। বাবা-মায়েদের সংবেদনশীল করে তোলাও এই প্রকল্পের অন্যতম উদ্দেশ্য, কারণ ইন্টারনেটে শিশুরা কী ধরনের বিষয়বস্তুর সম্মুখীন হয় তা নিয়ে ভীতির কারণে অনেক বাবা-মা তাদের সন্তানদের ইন্টারনেট ব্যবহার করতে বাধা দেয়। এটা শিশুদের ইন্টারনেট থেকে উপকৃত হওয়ার সুযোগকে ব্যাহত করে। শিশুদের অনলাইন সুরক্ষায় সহায়তা দিতে এই প্রকল্পের আওতায় চার লাখ বাবা-মা, শিক্ষক ও সংশ্লিষ্ট সবাইকে প্রশিক্ষণ দেওয়া হবে।


ইউনিসেফ-এর ডেপুটি রিপ্রেসেনটেটিভ ডারা জনস্টন বলেন, ‘বাংলাদেশে প্রতিটি শিশু যাতে সুরক্ষিত এবং সব ধরনের সহিংসতা থেকে মুক্ত থাকে তা নিশ্চিত করতে কাজ করে ইউনিসেফ। বাংলাদেশের সব শিশুকে অবশ্যই যথাযথ দক্ষতা অর্জন করে নিরাপদে এবং উপযুক্ত পরিবেশে ইন্টারনেট ব্যবহারে সক্ষম হতে হবে। আমরা আশা করি, এই অংশীদারিত্ব শিশুর অনলাইন সুরক্ষা সম্পর্কে বাস্তবসম্মত পরামর্শগুলোর প্রাতিষ্ঠানিকরণ করবে এবং এগুলো বাংলাদেশে শিশুদের জন্য শিক্ষার গুরুত্বপূর্ণ অংশ হয়ে উঠবে।”
গ্রামীণফোন লিমিটেডের চিফ করপোরেট অ্যাফেয়ার্স কর্মকর্তা ওলে বিয়র্ন বলেন, ‘আমরা যেহেতু ডেটা যুগে প্রবেশ করেছি, তাই সববয়সী মানুষের বিশেষ করে শিশুদের ক্ষেত্রে অনলাইনে নিরাপত্তার বিষয়টি কীভাবে আমাদের সমাজকে ও ভবিষ্যৎ প্রজন্মকে প্রভাবিত করে তা চিন্তার কারণ হয়ে দাঁড়িয়েছে। তবে ইন্টারনেট যেভাবে একটি শিশুর শেখা, বিকাশ ও বৃদ্ধির জন্য প্রয়োজনীয় হয়ে উঠেছে তা আমরা অস্বীকার করতে পারি না।”


চুক্তি স্বাক্ষরের সময় টেলিনর গ্রুপের ভাইস প্রেসিডেন্ট, (সাসটেইনইবিলিটি) মনীষা ডগরা বলেন, ‘টেলিনর গ্রুপ বিশ্বাস করে যে সংযোগ সমাজের ক্ষমতায়ন করতে এবং বৈষম্য কমাতে পারে। জাতিসংঘের টেকসই উন্নয়ন লক্ষ্যমাত্রার ১০ নম্বর লাখ অর্থাৎ বৈষম্য কমানোর ক্ষেত্রে আমাদের বৈশ্বিক অঙ্গীকারের অংশ হিসেবে আমরা ২০২০ সালের মধ্যে যেসব দেশে আমাদের কার্যক্রম রয়েছে সেসব দেশজুড়ে ৪০ লাখ শিশুকে অনলাইনে শিশুর নিরাপত্তা বিষয়ে শিক্ষিত করে তুলতে আমরা প্রতিশ্রুতিবদ্ধ।’


এই প্রকল্প দেশব্যাপী ১১ থেকে ১৬ বছর বয়সী চার লাখেরও বেশি শিক্ষার্থী এবং ৭০ হাজারেরও বেশি শিক্ষক, বাবা-মা ও লালন-পালনকালীদের কাছে ছড়িয়ে দেওয়ার কার্যক্রম সম্পন্ন হয়েছে। নিরাপত্তা পদক্ষেপকে ঘিরে আরও ভালো বোঝাপড়া, সচেতনতা ও সংবেদনশীলতা গড়ে তুলতে এই প্রকল্প চালু করা হয়েছিল এবং একটি ইতিবাচক ডিজিটাল শিক্ষার অভিজ্ঞতা নিশ্চিত করতে শিক্ষার্থী ও অভিভাবকÑ উভয়েই এটা গ্রহণ করতে পারে।’

দাম বেড়েছে ব্যাংকিং কার্ডের
                                  

 নতুন অর্থবছরের বাজেটে (২০১৯-২০) ব্যাংকিং কার্ডের শুল্কহার আগের চেয়ে অনেক বেড়েছে। সর্বশেষ গেজেট অনুযায়ী, ম্যাগনেটিক স্ট্রিপ কার্ডের শুল্কহার প্রতি কার্ডে শূন্য দশমিক ৭০ ডলার, ইএমভি চিপ কার্ডে ২ ডলার এবং ডুয়াল ইন্টারফেস কার্ডে ২ দশমিক ৫ ডলার করে বেড়েছে। এর ফলে কার্ডের দাম ২০০ থেকে ৩০০ শতাংশ বেড়ে যাবে।
প্রসঙ্গত, বাংলাদেশে বর্তমানে তিন ধরনের কার্ড চালু আছে। এগুলো হলো ম্যাগনেটিক স্ট্রিপ কার্ড, ইএমভি চিপ কার্ড ও ডুয়াল ইন্টারফেস কার্ড।


বাংলাদেশ পর্যায়ক্রমে নগদ টাকার পরিবর্তে কার্ড বা ডিজিটাল ওয়ালেটের দিকে ঝুঁকছে। কিন্তু এভাবে দাম বাড়ার কারণে ডিজিটাল এই যাত্রায় ব্যাঘাত ঘটতে পারে। কোনা সফটওয়্যার ল্যাব লিমিটেড গত কয়েক বছর ধরে এ ধরনের ব্যাংকিং কার্ডের জন্য প্রয়োজনীয় সফটওয়্যার তৈরি করছে। কোনা সফটওয়্যার ল্যাব লিমিটেড হলো দক্ষিণ কোরিয়ান স্মার্ট কার্ড শিল্পের পথপ্রদর্শক কোনা ইন্টারন্যাশনাল কোম্পানি লিমিটেডের একটি শাখা।


প্রতিষ্ঠানটি স্মার্ট কার্ড উৎপাদন, পেমেন্টের বিভিন্ন ধরন উদ্ভাবন, আন্তর্জাতিক ও স্থানীয় পর্যায়ের অংশীদার এবং গ্রাহকদের সুরক্ষা, বিভিন্ন ক্ষেত্র থেকে সুরক্ষিত পেমেন্ট ব্যবস্থা নিশ্চি ছাড়াও বিভিন্ন বিষয় নিয়ে কাজ করে।


বৈশ্বিক স্মার্ট কার্ড অ্যান্ড সলিউশন ইন্ডাস্ট্রিতে কোনার অভিজ্ঞতা ২০ বছরেরও বেশি। বাংলাদেশের স্থানীয় প্রায় ৩০টিরও বেশি বাণিজ্যিক ব্যাংক-কে সেবা দিয়ে যাচ্ছে প্রতিষ্ঠানটি। এই সেবা মূলত কার্ড ও চিপের ক্ষেত্রে দিয়ে যাচ্ছে তারা এবং বাংলাদেশের কার্ড মার্কেটে ভালো একটি মার্কেট শেয়ার ধরে রেখেছে।


কোনা বলছে, কার্ডে উচ্চহারে শুল্ক আরোপ দেশের ব্যাংকিং কার্ড ব্যবহারের সংখ্যা কমিয়ে দেবে। ফলে কার্ড থেকে রাজস্ব আয়ও কমে যাবে। এজন্য কার্ডের ওপর শুল্ক না বাড়িয়ে কার্ড ব্যবহারে জনগণকে আরও উৎসাহিত করা যেতে পারে। এতে মোট কার্ড ব্যবহারকারীর সংখ্যা বাড়বে, সরকার আরও বেশি রাজস্ব পাবে। তাহলে উভয় পক্ষই লাভবান হবে।

মোবাইল ফোন বিস্ফোরণ ঠেকাতে করনীয়
                                  

 সম্প্রতি ঢাকায় শাওমি ব্র্যান্ডের একটি স্মার্টফোন বিস্ফোরণের অভিযোগ উঠেছে। বিষয়টি নিয়ে চীনা স্মার্টফোন নির্মাতা শাওমি বিবৃতি দিয়ে বলেছে, শাওমিতে গ্রাহকদের নিরাপত্তাকে সর্বাধিক গুরুত্ব দেওয়া হয়। গ্রাহকের সঙ্গে যোগাযোগ করা হয়েছে। ঘটনাটি তদন্ত করা হচ্ছে। স্মার্টফোন বিস্ফোরণের এমন ঘটনা একেবারে নতুন নয়।


টাইমস অব ইন্ডিয়ার খবরে জানানো হয়, সম্প্রতি যুক্তরাজ্যে স্যামসাংয়ের একটি ট্যাব বিস্ফোরণে অল্পের জন্য বেঁচে গেছে ১১ বছর বয়সী এক শিশু। বিস্ফোরণে ম্যাট্রেসে আগুন লেগে যায়। গত বছরে এ ধরনের এক ঘটনায় ক্রেডল ফান্ডের প্রধান নির্বাহী নাজরিন হাসান মারা যান। তাঁর ফোন চার্জে থাকা অবস্থায় বিস্ফোরণ ঘটে। তিনি ব্ল্যাকবেরি ও হুয়াওয়ের স্মার্টফোন ব্যবহার করতেন। দুটি ফোন তাঁর শোয়ার ঘরে চার্জ দেওয়া অবস্থায় ছিল। স্মার্টফোন বিস্ফোরণ বা আগুন লাগার এ ধরনের ঝুঁকি এড়াতে নিজে থেকে সাবধান হতে হবে। জেনে নিন কিছু পরামর্শ:
১. প্রকৃত কেবল বা অ্যাডাপটার ছাড়া থার্ড পার্টির চার্জিং কেবল বা অ্যাডাপটার ব্যবহার করবেন না। আসল চার্জার নিরাপদ। স্মার্টফোন কেনার সময় প্রকৃত চার্জার বা অ্যাডাপ্টার দেওয়া হচ্ছে কি না, তা দেখে কিনবেন। ওয়ারেন্টির বিষয়টি নিশ্চিত হয়ে নেবেন।
২. আপনার ডিভাইসের যদি ব্যাটারি পরিবর্তন করতে হয়, তবে যে প্রতিষ্ঠানের ডিভাইস, তাদের তৈরি ব্যাটারি কিনুন। তা না হলে ব্যাটারি কিছুদিন পরে ঠিকমতো কাজ করবে না।
৩. স্মার্টফোন, ট্যাবলেট বা লিথিয়াম-আয়ন ব্যাটারিযুক্ত ডিভাইসে অতিরিক্ত চার্জ দেবেন না। জার্মান ব্যাটারি প্রযুক্তি পরামর্শক প্রতিষ্ঠান ব্যাটারি ইঞ্জিনিয়ার ব্যবস্থাপনা পরিচালক ডমিনিক শুলঠে বলেন, যদি ফোনে শতভাগ চার্জ দেন এবং দীর্ঘক্ষণ শতভাগ চার্জ ধরে রাখেন, তা ব্যাটারির আয়ুর ওপর নেতিবাচক প্রভাব ফেলবে। স্মার্টফোনের ব্যাটারির চার্জ ৩০ থেকে ৫০ শতাংশ থাকলে তার আয়ু থাকে বেশি দিন।
৪. দাহ্য পৃষ্ঠের আসবাব, বিছানা, কাগজের কাছাকাছি ডিভাইস রেখে চার্জ দেবেন না। অনেক সময় অতিরিক্ত গরম হয়ে দুর্ঘটনা ঘটতে পারে।
৫. ঘুমানোর সময় বালিশের নিচে স্মার্টফোন রেখে চার্জ দেবেন না।
৬. সরাসরি সূর্যের আলোতে বেশিক্ষণ স্মার্টফোন বা ডিভাইস রাখবেন না।
৭. স্মার্টফোন বা ডিভাইস সারাতে অননুমোদিত কোনো দোকানে যাবেন না। এতে যন্ত্রাংশ নষ্ট হওয়ার আশঙ্কা বেশি থাকে। অথরাইজড সেন্টার থেকে সেবা নিন।
৮. চার্জে থাকা অবস্থায় ডিভাইসের ওপর যাতে বাড়তি চাপ না পড়ে, সেদিকে খেয়াল রাখবেন।
৯. স্মার্টফোন বা ডিভাইস চার্জ দেওয়ার সময় পারলে এর কেস খুলে নিন।
১০. ফোন চার্জের সময় ইয়ারফোন ব্যবহার বা ফোনে কথা বলার সময় চার্জ দেবেন না।
১১. অনেকে সস্তা খোলা বাজারের পাওয়ার ব্যাংক ব্যবহার করেন। পাওয়ার ব্যাংক মোবাইলের ব্যাটারি নষ্ট করে দিতে পারে। ঘটাতে পারে বিস্ফোরণ।
১২. মোবাইল ব্যবহার করতে করতে ব্যাটারি একটু ফুলে গেলে সঙ্গে সঙ্গে ব্যাটারি চেঞ্জ করা দরকার।

গুগলে জানা যাবে বাস, ট্রেনে ভিড়ের তথ্য
                                  

 পথে জ্যামের আশঙ্কা কি-না আছে তা জানাতে নতুন ফিচার আনতে যাচ্ছে গুগল। যাত্রা শুরু করার আগেই গুগল ম্যাপস অ্যাপে নির্দিষ্ট গন্তব্যের যানবাহনগুলোর ভিড়ের ধারণা পাবেন গ্রাহক।
আগের যাত্রাগুলোর তথ্য জোগাড় করে যাত্রীদেরকে ভিড়ের কথা জানানো হবে।

কয়েক মাস ধরে গুগল ম্যাপস ব্যবহারকারীদেরকে বাড়তি তথ্য দেওয়ার কথা বলে আসছে গুগল। কোনো যাত্রা শেষ করার পর যাত্রীদেরকে চারটি অপশন দেওয়া হচ্ছে, যানবাহনে অনেক আসন খালি আছে, অল্প কিছু আসন খালি আছে, দাঁড়ানোর জায়গা আছে শুধু, সামান্য দাঁড়ানোর জায়গা আছে এমন।
প্রযুক্তি সাইট ভার্জের প্রতিবেদনে বলা হয়, ইতোমধ্যেই যথেষ্ট ডেটা সংগ্রহ হওয়ায় ফিচারটি চালু করার সিদ্ধান্ত নিয়েছে গুগল। বৃহস্পতিবার বিশ্বজুড়ে ২০০টি শহরে চালু হয়েছে এই ফিচার।
এর পাশাপাশি লাইভ ট্রাফিক বিলম্বও দেখা যাবে গুগল ম্যাপস-এ।

এই ফিচারের মাধ্যমে বাস আসতে দেরি হবে কিনা, কত দেরি হতে পারে এমন তথ্যগুলো পাওয়া যাবে। এমনকি রাস্তার কোন জায়গায় বিলম্ব হচ্ছে তাও জানা যাবে এই ফিচারের মাধ্যমে।

অ্যাপল ছেড়ে দিচ্ছেন জনি আইভ
                                  

দুই দশকেরও বেশি সময় অ্যাপলের নকশা বিভাগে নেতৃত্ব দেওয়ার পর প্রতিষ্ঠান ছাড়ছেন জনি আইভ। ১৯৯৭ সালে প্রায় দেউলিয়া অবস্থা থেকে অ্যাপলকে বিশ্বের সবচেয়ে দামি প্রতিষ্ঠান হিসেবে রূপান্তরে স্টিভ জবসের সবচেয়ে কাছের মানুষ হিসেবে বিবেচনা করা হতো এই ডিজাইন গুরুকে।


ফিন্যান্সিশায়ল টাইমসের সঙ্গে এক সাক্ষাৎকারে জনি আইভ অ্যাপল ছেড়ে যাওয়ার সিদ্ধান্ত প্রকাশ করেছেন। তিনি এ বছরের শেষ পর্যন্ত অ্যাপলে কাজ করবেন।
গত দুই দশকে অ্যাপল যেসব আইকনিক পণ্য বাজারে এনেছে তার প্রত্যেকটির প্রধান নকশাবিদ ছিলেন আইভ। এরমধ্যে রয়েছে ২০০৪ সালের আইপড মিনি, ২০০৭ সালে আইফোন, ২০০৮ সালে ম্যাকবুক এয়ার, ২০১০ সালে আইপ্যাড, ২০১৫ সালে অ্যাপল ওয়াচ এবং ২০১৬ সালের এয়াপডস। স্টিভ জবসের সঙ্গে জনি আইভের সর্বশেষ প্রকল্প ছিল অ্যাপল পার্ক নামে প্রতিষ্ঠানটির নতুন প্রধান কার্যালয়ের ডিজাইন।


নকশাবিদ হিসেবে বিভিন্ন শীর্ষ পুরস্কার জয়ী এই ব্রিটিশ নাগরিক ২০১২ সালে রানী দ্বিতীয় এলিজাবেথের কাছ থেকে নাইটহুড অর্জন করেন। বর্তমানে স্যার জনাথন পাঁচ হাজারেরও বেশি পেটেন্টের মালিক।


জনি আইভ অ্যাপল ছেড়ে নিজের প্রতিষ্ঠান গড়ার পরিকল্পনা প্রকাশ করেছেন। `লাভফ্রম` নামে তার প্রতিষ্ঠানটি পণ্য নকশাসহ বিভিন্ন ক্ষেত্রে কাজ করবে, তবে এ বিষয়ে বিস্তারিত আর কিছু তিনি বলেননি। লাভফ্রমের অন্যতম ক্রেতা অ্যাপল হবে বলেও জানিয়েছেন তিনি। অ্যাপলের ঘনিষ্ট হিসেবে পরিচিত আরেক শীর্ষ ডিজাইনার মার্ক নিউসনও যোগ দিচ্ছেন লাভফর্মের সহপ্রতিষ্ঠাতা হিসেবে।


১৯৯৭ সালে স্টিভ জবস অ্যাপলে ফেরার কয়েক বছর আগে থেকেই সেখানে কাজ করছিলেন জনি আইভ। স্টিভ জবস অ্যাপলে ফিরেই যে কয়টি বড় সিদ্ধান্ত নেন তার মধ্যে অন্যতম ছিল জনি আইভকে নকশা বিভাগের প্রধান করা। জবসের পরিকল্পনা আর জনি আইভের ডিজাইন মিলিয়ে প্রথম যে পণ্যটি বাজার মাত করে সেটি ছিল আইম্যাক। একটি মনিটরসদৃশ কম্পিউটার যার মধ্যে একটি ঈষদচ্ছ কেসিংয়েই সিপিইউ, মনিটর, ডিস্ক ড্রাইভ ছিল। ওই সময়ে আইম্যাক অসম্ভব জনপ্রিয়তা পাওয়ায় ঘুরে যায় অ্যাপলের আর্থিক সঙ্কটাবস্থা।


২০১১ সালে স্টিভ জবসের মৃত্যুর পর টিম কুক অ্যাপলের নেতৃত্বে এলে জনি আইভকে একইসঙ্গে হার্ডওয়্যার ও সফটওয়্যার নকশার প্রধান করা হয়। তার প্রস্থানে ওই দুই বিভাগ ফের আলাদা দলপ্রধানের অধীনে চলে যাবে বলে জানানো হয়েছে অ্যাপলের তরফ থেকে।


সাম্প্রতিক সময়ে অ্যাপলের শীর্ষ নেতৃত্বের অনেকেই প্রতিষ্ঠানটি ছেড়েছেন। তবে, এ ক্ষেত্রে জনি আইভকেই বিবেচনা করা হচ্ছে সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ প্রস্থান হিসেবে।
স্টিভ জবস জনি আইভ সম্পর্কে একসময় বলেছিলেন, "অ্যাপলে যদি আমার কোনো আত্মজ থেকে থাকে, সেটা জনি।"

মহাকাশযানের জ্বালানি চাঁদের বরফ থেকে!
                                  

পরবর্তী চন্দ্রাভিযানের জন্য ব্লু অরিজিনের পরিকল্পনার কথা জানিয়েছেন প্রতিষ্ঠাতা জেফ বেজোস। চাঁদে যাওয়ার জন্য যে মহাকাশযানটি বানানো হবে সেটি চাঁদের বরফ থেকে পাওয়া জ্বালানি দিয়েই পুনরায় ভরা হবে বলে জানানো হয়।

যুক্তরাষ্ট্রের ম্যাসাচুসেটসের বস্টনে জেএফকে স্পেস সামিট-এ কথা বলার সময় বেজোস বলেন, “আমরা এখন চাঁদের বিষয়গুলো জানি, অ্যাপোলো মিশনের সময় আমরা জানতাম না।”-- খবর সিএনবিসি’র।

বেজোস আরও বলেন, অ্যাপোলো মিশনের সময় যে বিষয় জেনেছি তা হলো চাঁদের নীচের স্তরে পানীয় বরফের মজুদ রয়েছে।

“আমরা এই বরফ চাষ করতে পারি এবং এর থেকে হাইড্রোজেন ও অক্সিজেন বানাতে পারি এবং এর থেকে রকেটের জ্বালানি তৈরি করতে পারি।”
“আমরা এই জ্বালানি বাছাই করেছি কারণ আমরা জানি একদিন আমরা চাঁদের বুকে ওই মহাকাশযানে জ্বালানি ভরবো চাঁদে পাওয়া পানীয় বরফ থেকে বানানো জ্বালানি থেকেই।”

চাঁদে যাওয়ার জন্য ব্লু মুন নামে একটি মহাকাশযান বানিয়েছে ব্লু অরিজিন। কার্গোর পাশাপাশি বেশ কয়েকজন যাত্রী বহন করতে পারবে মহাকাশযানটি। বেজোস এর আগে আরও বলেছেন ২০২৪ সালে চাঁদে নভোচারী ফেরাতে নাসার পরিকল্পনার সঙ্গে সামঞ্জস্যপূর্ণ ব্লু মুন।

একসঙ্গে অনেকগুলো মহাকাশ ব্যবস্থা নিয়ে কাজ করছে ব্লু অরিজিন। ব্লু মুনের পাশাপাশি মহাকাশে ভ্রমণার্থী নেওয়ার লক্ষ্যে নিউ শেফার্ড রকেট এবং নিউ গ্লেন নামে একটি বিশাল রকেট বানাচ্ছে প্রতিষ্ঠানটি।

নিউ গ্লেন রকেটের মাধ্যমে স্যাটেলাইট এবং অন্যান্য মহাকাশযান পাঠানোর লক্ষ্য রয়েছে ব্লু অরিজিনের।

প্রতি বছর অ্যামাজন শেয়ার বিক্রি করে ব্লু অরিজিনে একশ’ কোটি মার্কিন ডলারের বেশি বিনিয়োগ করেন বেজোস।

সুপারকম্পিউটারের তালিকায় পেছালো চীন
                                  

 বিশ্বের সবচেয়ে ক্ষমতাসম্পন্ন সুপারকম্পিউটারের তালিকায় শীর্ষস্থান আগেই হারিয়েছে চীন। সর্বশেষ তালিকায় এখন দেশটির শীর্ষ সুপারকম্পিউটারটির অবস্থান তৃতীয়।

’দ্যা টপ ৫০০’ নামের তালিকাটি প্রতি ছয় মাস অন্তর বিশ্বের শীর্ষ ৫০০টি সুপারকম্পিউটারের তালিকা হালনাগাদ করে। সে তালিকাতেই প্রথম দুটি অবস্থান নিয়েছে দুটি মার্কিন সুপারকম্পিউটার।

তালিকায় ২০০ পেটাফ্লপ প্রসেসিং ক্ষমতা নিয়ে শীর্ষে রয়েছে ’সামিট’ নামের সুপারকম্পিউটার। এক পেটাফ্লপ মানে হচ্ছে সেকেন্ডে ১০ লক্ষ বিলিয়ন হিসাব করার ক্ষমতা। বিবিসির প্রতিবেদনে বলা হচ্ছে- ৩০ বছর ধরে কোনো ডেস্কটপ কম্পিউটার যে হিসাব করবে সেই হিসাব করতে এই সুপারকিম্পিউটারের লাগবে ¯্রফে এক ঘণ্টা।

ছয় মাস আগের হিসাব থেকে সুপারকম্পিউটারের তালিকায় মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের অবস্থান জোরদার হয়েছে। ৫০০টি সুপারকম্পিউটারের মধ্যে ছয়মাস আগে আমেরিকার ছিল ১০৯টি সুপারকম্পিউটার আর নতুন তালিকায় রয়েছে ১১৬টি।

অবশ্য সুপারকম্পিউটার সংখ্যার দিক থেকে চীনের অবস্থান এখনও ১ নম্বরে- মোট ২১৯টি, যদিও ছয় মাস আগে তাদের ছিল মোট ২২৭টি।

সুপারকম্পিউটারগুলো বিশেষায়িত কাজ করে থাকে। এর মধ্যে রয়েছে জেট ইঞ্জিন ডিজাইন থেকে শুরু করে নিউরাল নেটওয়ার্ককে ট্রেইনিং করানোসহ বিভিন্ন জটিল হিসাব।

সর্বশেষ তালিকায় শীর্ষে রয়েছে মার্কিন এনার্জি বিভাগের সামিট, যেটি তৈরি করেছে আইবিএম। দ্বিতীয় অবস্থানেও রয়েছে আইবিএম-এরই আরেকটি সুপারকম্পিউটার- ’সিয়েরা’। এটিও কাজ করছে মার্কিন এনার্জি বিভাগের জন্য। তৃতীয় অবস্থানে আছে চীনের ‘সানওয়ে তাইহুলাইট’। এটি আছে চীনের ন্যাশনাল সুপারকম্পিউটিং সেন্টারের অধীনে।

এই প্রথমবারের মতো দেখা যাচ্ছে শীর্ষ ৫০০টি সুপারকম্পিউটারের সবগুলোর ক্ষমতা অন্তত এক পেটাফ্লপের বেশি। আর সবগুলো সুপারকম্পিউটারের মিলিত ক্ষমতা ১.৫৬ এক্সাফ্লপ বা ১৫৬০ পেটাফ্লপ। শীর্ষ ৫০০ সুপারকম্পিউটারের মিলিত ক্ষমতা গত ছয়মাসে বেড়েছে শতকরা ১০ভাগ। আগের তালিকায় এটি ছিল ১.৪১ এক্সাফ্লপ।

চীন ও যুক্তরোষ্ট্রের পর তালিকায় সবচেয়ে বেশি সুপারকম্পিউটার জাপানের- ১৯টি। এরপর ১৮টি নিয়ে অবস্থান করছে যুক্তরাজ্য এবং ফ্রান্স। আর তালিকায় জার্মানির আছে ১৪টি সুপারকম্পিউটার।

মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র এরইমধ্যে আরও ক্ষমতাধর দুটি সুপারকম্পিউটার তৈরির পরিকল্পনা হাতে নিয়েছে। ফন্টিয়ার এবং অরোরা নামের ওই দুটি সুপারকম্পিউটারের প্রতিটির ক্ষমতা হবে হাজার পেটাফ্লপের বেশি।

 

mycviKw¤úDUv‡ii ZvwjKvq †cQv‡jv Pxb

GdGbGm AvBwU: we‡k¦i me‡P‡q ¶gZvm¤úbœ mycviKw¤úDUv‡ii ZvwjKvq kxl©¯’vb Av‡MB nvwi‡q‡Q Pxb| me©‡kl ZvwjKvq GLb †`kwUi kxl© mycviKw¤úDUviwUi Ae¯’vb Z…Zxq|

Õ`¨v Uc 500Õ bv‡gi ZvwjKvwU cÖwZ Qq gvm AšÍi we‡k¦i kxl© 500wU mycviKw¤úDUv‡ii ZvwjKv nvjbvMv` K‡i| †m ZvwjKv‡ZB cÖ_g `ywU Ae¯’vb wb‡q‡Q `ywU gvwK©b mycviKw¤úDUvi|

ZvwjKvq 200 †cUvd¬c cÖ‡mwms ¶gZv wb‡q kx‡l© i‡q‡Q ÕmvwgUÕ bv‡gi mycviKw¤úDUvi| GK †cUvd¬c gv‡b n‡”Q †m‡K‡Û 10 j¶ wewjqb wnmve Kivi ¶gZv| wewewmi cÖwZ‡e`‡b ejv n‡”Q- 30 eQi a‡i †Kv‡bv †W¯‹Uc Kw¤úDUvi †h wnmve Ki‡e †mB wnmve Ki‡Z GB mycviwKw¤úDUv‡ii jvM‡e †¯ªd GK NÈv|

Qq gvm Av‡Mi wnmve †_‡K mycviKw¤úDUv‡ii ZvwjKvq gvwK©b hy³iv‡óªi Ae¯’vb †Rvi`vi n‡q‡Q| 500wU mycviKw¤úDUv‡ii g‡a¨ Qqgvm Av‡M Av‡gwiKvi wQj 109wU mycviKw¤úDUvi Avi bZzb ZvwjKvq i‡q‡Q 116wU|

Aek¨ mycviKw¤úDUvi msL¨vi w`K †_‡K Px‡bi Ae¯’vb GLbI 1 b¤^‡i- †gvU 219wU, hw`I Qq gvm Av‡M Zv‡`i wQj †gvU 227wU|

mycviKw¤úDUvi¸‡jv we‡klvwqZ KvR K‡i _v‡K| Gi g‡a¨ i‡q‡Q †RU BwÄb wWRvBb †_‡K ïiæ K‡i wbDivj †bUIqvK©‡K †UªBwbs Kiv‡bvmn wewfbœ RwUj wnmve|

me©‡kl ZvwjKvq kx‡l© i‡q‡Q gvwK©b GbvwR© wefv‡Mi mvwgU, †hwU ˆZwi K‡i‡Q AvBweGg| wØZxq Ae¯’v‡bI i‡q‡Q AvBweGg-GiB Av‡iKwU mycviKw¤úDUvi- Õwm‡qivÕ| GwUI KvR Ki‡Q gvwK©b GbvwR© wefv‡Mi Rb¨| Z…Zxq Ae¯’v‡b Av‡Q Px‡bi ÔmvbI‡q ZvBûjvBUÕ| GwU Av‡Q Px‡bi b¨vkbvj mycviKw¤úDwUs †m›Uv‡ii Aax‡b|

GB cÖ_gev‡ii g‡Zv †`Lv hv‡”Q kxl© 500wU mycviKw¤úDUv‡ii me¸‡jvi ¶gZv AšÍZ GK †cUvd¬‡ci †ewk| Avi me¸‡jv mycviKw¤úDUv‡ii wgwjZ ¶gZv 1.56 G·vd¬c ev 1560 †cUvd¬c| kxl© 500 mycviKw¤úDUv‡ii wgwjZ ¶gZv MZ Qqgv‡m †e‡o‡Q kZKiv 10fvM| Av‡Mi ZvwjKvq GwU wQj 1.41 G·vd¬c|

Pxb I hy³‡iv‡óªi ci ZvwjKvq me‡P‡q †ewk mycviKw¤úDUvi Rvcv‡bi- 19wU| Gici 18wU wb‡q Ae¯’vb Ki‡Q hy³ivR¨ Ges d«vÝ| Avi ZvwjKvq Rvg©vwbi Av‡Q 14wU mycviKw¤úDUvi|

gvwK©b hy³ivóª GiBg‡a¨ AviI ¶gZvai `ywU mycviKw¤úDUvi ˆZwii cwiKíbv nv‡Z wb‡q‡Q| dw›Uqvi Ges A‡iviv bv‡gi IB `ywU mycviKw¤úDUv‡ii cÖwZwUi ¶gZv n‡e nvRvi †cUvd¬‡ci †ewk|

 

ফোর্ড তৃতীয় প্রজন্মের স্বচালিত গাড়ির পরীক্ষায়
                                  

মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের ডেট্রয়েট-এ তৃতীয় প্রজন্মের স্বচালিত গাড়ি ফিউশন হাইব্রিড-এর পরীক্ষা চালাবে ফোর্ড।
ইতোমধ্যেই পিটসবার্গ, পলো অল্টো, মায়ামি, ওয়াশিংটন ডিসি এবং ফোর্ডের নিজের এলাকা মিশিগান অঙ্গরাজ্যের ডিয়ারবর্নে গাড়িগুলোর পরীক্ষা চালানো হচ্ছে বলে প্রতিবেদনে জানিয়েছে প্রযুক্তি সাইট ভার্জ।


“প্রতিটি শহরেরই কিছু ভিন্নতা রয়েছে যা আমাদের স্বচালিত ব্যবস্থাকে আরও স্মার্ট করতে সহায়তা করে, রাস্তার ভিন্ন ভিন্ন নকশা, চালনা ব্যবস্থা এবং ট্রাফিক বাতির অবস্থান সবই এর জন্য সহায়ক,” বলেন অর্গো এআই প্রেসিডেন্ট পিটার র‌্যান্ডার।


ফোর্ডের স্বচালিত ব্যবস্থা উন্নত করতে কাজ করছে অর্গো এআই। “পাঁচটি ভিন্ন স্থানে একসঙ্গে পরীক্ষা চালানোর কারণেই আমরা ভালো উন্নতি করছি,” বলেন র‌্যান্ডার। এই স্টার্টআপ প্রতিষ্ঠানটিকে গবেষণার কাজে শুরু থেকেই সহায়তা করে আসছে ফোর্ড।


তৃতীয় প্রজন্মের গাড়িতে বেশ কিছু উন্নতির কথা বলেছেন র‌্যান্ডার।। এর মধ্যে রয়েছে আগের চেয়ে অনেক উন্নত সেন্সর, উচ্চ রেজুলিউশানের ক্যামেরা, উন্নত কম্পিউটার ব্যবস্থা যা আরও বেশি তাপ ও শব্দসহায়ক। এ ছাড়া এর ব্রেকিং এবং নিয়ন্ত্রণ ব্যবস্থাও উন্নত করা হয়েছে বলে প্রতিবেদনে বলা হয়েছে।

মোড়ানো যায় এমন স্মার্টফোন আনবে স্যামসাং
                                  

নিজেদের ভবিষ্যতের গ্যালাক্সি ফোল্ড কীভাবে আনা যায় তা নিয়ে এখনও ‘ভাবছে’ স্যামসাং।
সম্প্রতি লেট’স গো ডিজিটাল-এর সন্ধানে স্যামসাংয়ের নতুন এক পেটেন্টের দেখা পাওয়া গেছে। প্রথম দেখায় স্মার্টফোনটি দেখতে প্রচলিত স্মার্টফোনের মতোই লাগে। কিন্তু আসলে এতে একটি গোপন রোলএবল বা মোড়ানো যায় এমন ডিসপ্লে রয়েছে।


একদম উপরে রয়েছে সেলফি ক্যামেরা আর এর ইয়ারপিস দেখে মনে হয় এটি ফোনটি থেকে বাইরে নিয়ে আসা সম্ভব, এমনটাই ভাষ্য প্রযুক্তি সাইট ভার্জ-এর।
প্রতিবেদনে আরও বলা হয়, পেটেন্টে দেখানো ফোনটি ব্ল্যাকবেরি প্রিভ-এর মতো, শুধু এতে কোয়ার্টি কিবোর্ড নেই আর স্ক্রিনও অত্যন্ত লম্বা।
রোলএবল ডিসপ্লে অসম্ভব কিছু নয়। এলজি চলতি বছর তাদের রোলএবল এলইডি ডিসপ্লে বাজারে এনছে। এ ছাড়া স্মার্টফোন স্ক্রিন নির্মাতা প্রতিষ্ঠান কর্নিং জানিয়েছে, তারা স্মার্টফোনের জন্য ভাঁজযোগ্য গ্লাস বানাতে কাজ করছে। তবে স্যামসাং যা দেখাচ্ছে তা একটি স্মার্টফোনে এসেছে এমনটা দেখতে আমাদেরকে আরও কয়েক বছর ধরে অপেক্ষা করতে হবে, এমনটাই বলা হয়েছে প্রতিবেদনটিতে।


এই স্মার্টফোন আনা হলেও তা কতদিন টিকবে তা নিয়ে প্রশ্ন রয়েছে। আগের গ্যালাক্সি ফোল্ড-এর ক্ষেত্রে অভিজ্ঞতাটা এ ক্ষেত্রে খুব একটা ইতিবাচক ছিল না। এ ছাড়াও ভাঁজযোগ্য ডিসপ্লে’র স্মার্টফোন আনার ক্ষেত্রে এর ভাঁজযোগ্য ডিসপ্লে আর অন্যান্য যন্ত্রাংশ উত্তেজনার চেয়ে সন্দেহই বেশি টানে। এ ক্ষেত্রে স্যামসাং কী করতে পারে তা দেখার অপেক্ষা ছাড়া আর কোনো বিকল্প এখন নেই।

 

করের আওতায় আসছে ফেইসবুক-গুগল-অ্যামাজন
                                  

 ফেইসবুকসহ বড় প্রযুক্তি কোম্পানিগুলো নিজেদের করপোরেট কর ফাঁকির উপায় হিসেবে যেসব ফাঁকফোকর ব্যবহার করে তা বন্ধে অভিন্ন নীতিমালা প্রণয়নে সম্মত হয়েছে ইউরোপীয় ইউনিয়নকে নিয়ে গঠিত ১৯টি দেশের জোট জি টোয়েন্টির অর্থমন্ত্রীরা।


জাপানের ওসাকায় সমৃদ্ধ অর্থনীতিগুলোর আন্তর্জাতিক এই জোটের অর্থমন্ত্রী ও কেন্দ্রীয় ব্যাংকের গভর্নরদের বৈঠকের চূড়ান্ত যৌথ ঘোষণার বরাত দিয়ে বার্তা সংস্থা রয়টার্স এখবর দিয়েছে।
কর ফাঁকি দিতে ফেইসবুক, গুগল ও অ্যামাজনসহ বড় প্রযুক্তি কোম্পানিগুলো তাদের পণ্য বা সেবা যে দেশেই বিক্রি করুক না কেন মুনাফার উৎস দেশ হিসেবে সব সময় নিম্ন-করের দেশগুলোকে দেখায় বলে সমালোচনা আছে। এ ধরনের চর্চাকে অনেকেই অনৈতিক হিসেবে দেখেন।


নতুন বিধিমালা বড় বহুজাতিক কোম্পানিগুলোর উপর যেমন উচ্চ করের বোঝা চাপাবে তেমনি ‘নাম-মাত্র’ কর আরোপের প্রতিশ্রুতি দিয়ে আয়ারল্যান্ডের মতো দেশে সরাসরি বিদেশি বিনিয়োগ টানাও কঠিন করে তুলবে।
যৌথ ঘোষণায় বলা হয়েছে, “ডিজিটাইজেশন থেকে উদ্ভূত কর ব্যবস্থার চ্যালেঞ্জ মোকাবেলায় সাম্প্রতিক অগ্রগতিকে আমরা স্বাগত জানাই এবং ‘টু পিলার অ্যাপ্রোচ’ নিয়ে তৈরি উচ্চাভিলাষী কর্মসূচিকে সমর্থন করি।


“২০২০ সাল নাগাদ একটি চূড়ান্ত প্রতিবেদনসহ ঐকমত্যের ভিত্তিতে সমাধানে পৌঁছতে আমরা আমাদের প্রচেষ্টা দ্বিগুণ করব।”
কর ব্যবস্থার পরিবর্তনের বিষয়ে জি টোয়েন্টির বিতর্কের কেন্দ্রে রয়েছে টু পিলার বা দ্বি-স্তম্ভ নীতি, যা কিছু কোম্পানির জন্য উভয় সংকট হিসেবে দেখা দিতে পারে।
প্রথম স্তম্ভ হলো- কোনো দেশে ব্যবসায়িক উপস্থিতি না থাকলেও সেখানে যদি কোম্পানির পণ্য বা সেবা বিক্রি হয় তাহলে সংশ্লিষ্ট দেশ ওই কোম্পানির উপর কর আরোপের অধিকার পাবে।
এরপরও কোম্পানিগুলো নিম্ন করের দেশে মুনাফা সরিয়ে নিতে পারলেও দ্বিতীয় স্তম্ভের অধীনে কোম্পানিগুলোর উপর নূন্যতম কর আরোপ করা যাবে, যার হার পরে ঠিক হবে।
মুনাফা সরিয়ে নিম্ন করের অঞ্চলে নেওয়া কঠিন করতে বড় প্রযুক্তি কোম্পানিগুলোর উপর করারোপের পাশাপাশি নূন্যতম করপোরেট কর হার প্রবর্তনের প্রস্তাবের পক্ষে সোচ্চার রয়েছে ব্রিটেন ও ফ্রান্স।


দেশ দুটির সঙ্গে ভিন্নমত পোষণ করে যুক্তরাষ্ট্র উদ্বেগ প্রকাশ করে বলছে, বৈশ্বিক কর ব্যবস্থা সরকারের বড় উদ্যোগের মধ্যে যুক্তরাষ্ট্রের ইন্টারনেট কোম্পানিগুলোকে অন্যায়ভাবে লক্ষ্যবস্তু করা হচ্ছে।


বৃহৎ ইন্টারনেট কোম্পানিগুলোর ভাষ্য, তারা করনীতি অনুসরণ করেন। কিন্তু যেটা করেন সেটা হলো- আয়ারল্যান্ড ও লুক্সেমবুর্গের মতো নিম্ন করের দেশকে বিক্রয়ের মাধ্যম হিসেবে ব্যবহার করার মধ্য দিয়ে ইউরোপে সামান্য কর পরিশোধ করেন।
সম্প্রতি বাংলাদেশ সরকার ফেইসবুক ও ইউটিউবের মতো ইন্টারনেট যোগাযোগ মাধ্যমে দেশীয় বিজ্ঞাপনদাতাদের পরিশোধিত অর্থের উপর ১৫ শতাংশ হারে ভ্যাট আরোপ করেছে।

জাকারবার্গকে চেয়ারম্যান পদ থেকে সরাতে ভোট!
                                  

 মার্ক জাকারবার্গকে ফেইসবুকের চেয়ারম্যান পদ থেকে সরাতে ভোট গ্রহণ হতে পারে বৃহস্পতিবার প্রতিষ্ঠানের বার্ষিক সাধারণ সভায়।
বর্তমানে প্রধান নির্বাহীর পাশাপাশি ফেইসবুক বোর্ড চেয়ারম্যানেরও দায়িত্বে রয়েছেন জাকারবার্গ। চেয়ারম্যান পদ ছাড়তে যারা আহ্বান জানিয়েছেন তাদের দাবি, এতে প্রতিষ্ঠান পরিচালনায় আরও বেশি নজর দিতে পারবেন তিনি-- খবর বিবিসি’র।


ভোট হলেও এতে জাকারবার্গের হারার সম্ভাবনা সামান্যই। প্রতিষ্ঠানের ৬০ শতাংশ শেয়ারের মালিক তিনি নিজেই। কিন্তু শেয়ারধারী যেসব ব্যক্তি তার বিরুদ্ধে ভোট দেবেন তাতে জাকারবার্গের নেতৃত্বে তাদের আস্থা নিয়ে প্রশ্ন ওঠে।


ফেইসবুকের প্রায় ৭০ লাখ মার্কিন ডলার মূল্যের শেয়ার রয়েছে ট্রিলিয়াম অ্যাসেট ম্যানেজমেন্ট-এর। এছাড়াও ফেইসবুকের লাখো কোটি ডলার মূল্যের শেয়ারের মালিক প্রতিষ্ঠানগুলোর সঙ্গে ব্যবসা করে ট্রিলিয়াম অ্যাসেট ম্যানেজমেন্ট। জাকারবার্গের পদত্যাগের দাবি করেছে এই প্রতিষ্ঠান।


ট্রিলিয়ামের জেষ্ঠ্য ভাইস-প্রেসিডেন্ট জোনাস ক্রোন বলেন, “বিশ্বের সবচেয়ে উচ্চমানের একটি প্রতিষ্ঠানের দুইটি পূর্ণকালীন পদ ধরে রেখেছেন তিনি। যদি তিনি প্রধান নির্বাহী হওয়ার দিকে নজর দেন এবং অন্য কাউকে স্বাধীন বোর্ড চেয়ার হওয়ার দিকে নজর দিতে দেন, সেটা অনেক ভালো ফল দেবে।”


“তার কাছে উদাহরণ আছে ল্যারি পেইজ ও অ্যালফাবেট, বিল গেটস ও মাইক্রোসফট, যেখানে একজন প্রতিষ্ঠাতাকে বোর্ড চেয়ারম্যান হিসেবে দেখা হয় না।”
“আমি জানি এই পদক্ষেপ নেওয়া সহজ হবে না, কিন্তু এটা গুরুত্বপূর্ণ একটা পদক্ষেপ, যাতে তার এবং শেয়ারধারীদের লাভ হবে।”

 

বেড়েছে বিটকয়েনের মূল্য
                                  

 এক বছরের বেশি সময় পর আবারও লাফিয়ে বেড়েছে বিটকয়েনের মূল্য। সোমবার প্রতি বিটকয়েনের মূল্য উঠেছে প্রায় ৯০০০ মার্কিন ডলার।
কয়েনডেস্ক-এর বিটকয়েন প্রাইস ইনডেক্স অনুসারে এদিন বিটকয়েন মূল্য পৌঁছেছে ৮৯৩৭.২৫ মার্কিন ডলারে। বিভিন্ন এক্সচেঞ্জে বিটকয়েনের মূল্য পর্যবেক্ষণ করে বিটকয়েন প্রাইস ইনডেক্স।
মার্কিন সংবাদমাধ্যম সিএনবিসি’র প্রতিবেদনে বলা হয়, ২০১৮ সালের ১১ মে’র পর এবারই প্রথম সর্বোচ্চ মূল্যে উঠলো বিটকয়েন।


সোমবার সকালে এইচকে/এসআইএন-এ ২৪ ঘন্টায় বিটকয়েনের মূল্য বেড়েছে নয় শতাংশের বেশি। সেসময় এর বাজার মূল্য ছিল ৮৭৮৮.৮৭ মার্কিন ডলার।
আগের কয়েক সপ্তাহজুড়েই বেড়ে চলেছে ক্রিপ্টোকারেন্সির মূল্য। চলতি বছর এর মূল্য বেড়েছে ১৪০ শতাংশের বেশি।


বড় প্রতিষ্ঠানগুলো ক্রিপ্টোকারেন্সিভিত্তিক পণ্য নিয়ে কাজ শুরু করায় বেড়েছে এর চাহিদা। নিজস্ব ক্রিপ্টোকারেন্সি আনছে বিশ্বের সবচেয়ে বড় সামাজিক মাধ্যম ফেইসবুকও।
বিটকয়েনের পাশাপাশি সোমবার অন্যান্য ক্রিপ্টোকারেন্সির দামও বেড়েছে।
বাজারে বর্তমানে ভালো অবস্থানে থাকলেও এখন পর্যন্ত সর্বোচ্চ মূল্য থেকে অনেক দূরে রয়েছে বিটকয়েন। ২০১৭ সালে প্রতি বিটকয়েনের মূল্য উঠেছিল ১৯০০০ মার্কিন ডলারের বেশি।


   Page 1 of 60
     তথ্যপ্রযুক্তি
এনআইডি যাচাইয়ের গেটওয়ে ‘পরিচয়’ উদ্বোধন করবেন জয়
.............................................................................................
সামান্য ব্যয় বাড়বে তথ্যপ্রযুক্তি খাতে
.............................................................................................
ব্যাংকের নিয়মে আসতে হবে ফেসবুককে: ট্রাম্প
.............................................................................................
ফ্রান্সে ফেসবুক-গুগলের ওপর ৩ শতাংশ কর
.............................................................................................
গ্রামীণফোন, টেলিনর ও ইউনিসেফের চুক্তি স্বাক্ষর
.............................................................................................
দাম বেড়েছে ব্যাংকিং কার্ডের
.............................................................................................
মোবাইল ফোন বিস্ফোরণ ঠেকাতে করনীয়
.............................................................................................
গুগলে জানা যাবে বাস, ট্রেনে ভিড়ের তথ্য
.............................................................................................
অ্যাপল ছেড়ে দিচ্ছেন জনি আইভ
.............................................................................................
মহাকাশযানের জ্বালানি চাঁদের বরফ থেকে!
.............................................................................................
সুপারকম্পিউটারের তালিকায় পেছালো চীন
.............................................................................................
ফোর্ড তৃতীয় প্রজন্মের স্বচালিত গাড়ির পরীক্ষায়
.............................................................................................
মোড়ানো যায় এমন স্মার্টফোন আনবে স্যামসাং
.............................................................................................
করের আওতায় আসছে ফেইসবুক-গুগল-অ্যামাজন
.............................................................................................
জাকারবার্গকে চেয়ারম্যান পদ থেকে সরাতে ভোট!
.............................................................................................
বেড়েছে বিটকয়েনের মূল্য
.............................................................................................
ভ্যাট নিবন্ধন ছাড়া ব্যবসা করতে পারবে না ফেসবুক-গুগল
.............................................................................................
ডিজেআই ড্রোন শনাক্ত করবে প্লেন, হেলিকপ্টার
.............................................................................................
নতুন স্টারহপার রকেটের পরীক্ষায় স্পেসএক্স
.............................................................................................
তিনশ’ কোটি প্রোফাইল সরিয়েছে ফেইসবুক
.............................................................................................
ফেসবুক ইউটিউবে সরকারি নিয়ন্ত্রণ সেপ্টেম্বর থেকে
.............................................................................................
জাপানি মহাকাশযান কৃত্রিম গর্ত বানাতে গ্রহাণুতে ‘বোমা মেরেছে’
.............................................................................................
এবার ফোনে আসছে ৬৪ মেগাপিক্সেল ক্যামেরা
.............................................................................................
গুগলের ডিরেক্টর হলেন প্রথম বাংলাদেশি জাহিদ সবুর
.............................................................................................
সহজে ইমিগ্রেশন পার হতে বিমান ও স্থলবন্দরে ই-গেট বসানোর উদ্যোগ
.............................................................................................
স্বয়ংক্রিয়ভাবে গুগল লোকেশন ডেটা মুছতে দেবে
.............................................................................................
উবারের বিরুদ্ধে অস্ট্রেলিয়ায় ক্লাস অ্যাকশন মামলা
.............................................................................................
রমজানে ‘৩৩৩’ নম্বরে ফোন করে পাওয়া যাবে ইসলামিক সেবা
.............................................................................................
কৃত্রিম বুদ্ধিমত্তাসম্পন্ন সফটওয়্যারের যাত্রা শুরু
.............................................................................................
ট্রেনের টিকিট কাটার মোবাইল অ্যাপ চালু
.............................................................................................
বঙ্গবন্ধু স্যাটেলাইটে যুক্ত হচ্ছে এটিএম বুথ ও টিভি চ্যানেল
.............................................................................................
এই রোবট ঘন্টায় ২০০ আইফোন খুলতে পারে
.............................................................................................
মাইক্রোসফট ফাইল সমর্থন আসছে গুগল ডকস-এ
.............................................................................................
গ্যালাক্সি ফোল্ডের ‘প্রি-অর্ডার’ শুরু!
.............................................................................................
শীঘ্রই কৃষ্ণ গহ্বরের ছবি দেখবে বিশ্ববাসী: নাসা
.............................................................................................
নাসা মহাকাশে রোবট ‘মৌমাছি’ পাঠাচ্ছে
.............................................................................................
আসছে আইফোন এসই ২
.............................................................................................
২৫৬ গিগাবাইট র‌্যাম নিয়ে আইম্যাক প্রো
.............................................................................................
আবারো গুগলকে জরিমানা
.............................................................................................
ফেসবুকে দেওয়া মেসেজ যেভাবে ডিলিট করবেন
.............................................................................................
আমরা মাদারবোর্ড বানানোর যুগে পৌঁছে গেছি: মোস্তফা জব্বার
.............................................................................................
সিম কার্ডের মতো হ্যান্ডসেটও নিবন্ধন করতে হবে
.............................................................................................
চার ক্যামেরার স্মার্টফোনেই তারবিহীন চার্জার!
.............................................................................................
ফেসবুক নজরদারি করবেন দুই হাজার তথ্যপ্রযুক্তিবিদ প্রকাশ: ৯ ঘণ্টা আগে
.............................................................................................
টুইট সরানো হলে টুইটার তা বলে দেবে
.............................................................................................
মার্কিনীরা অ্যাপল সার্ভার থেকে নিজ ডেটা নামাতে পারবেন
.............................................................................................
এ মাসেই আসছে নতুন ম্যাক, আইপ্যাড?
.............................................................................................
ইউটিউবারদের জন্য অ্যাডবির সম্পাদনা অ্যাপ
.............................................................................................
ডিজিটাল আইনের বিরোধী নই, তবে ৯ ধারা সংশোধন করতে হবে
.............................................................................................
মাইক্রোসফট অ্যাপল টিভি থেকে মাইনক্রাফট সরালো
.............................................................................................

|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
স্বাধীন বাংলা মো. খয়রুল ইসলাম চৌধুরী কর্তৃক সম্পাদিত ও ঢাকা-১০০০ হতে প্রকাশিত
প্রধান উপদেষ্টা: ফিরোজ আহমেদ (সাবেক সচিব, বাণিজ্য মন্ত্রণালয়)
উপদেষ্টা: আজাদ কবির
সম্পাদক মন্ডলীর সভাপতি: ডাঃ হারুনুর রশীদ
সম্পাদক মন্ডলীর সহ-সভাপতি: মামুনুর রশীদ
ব্যবস্থাপনা সম্পাদক : মো: খায়রুজ্জামান
যুগ্ম সম্পাদক: জুবায়ের আহমদ
বার্তা সম্পাদক: মুজিবুর রহমান ডালিম
স্পেশাল করাসপনডেন্ট : মো: শরিফুল ইসলাম রানা
যুক্তরাজ্য প্রতিনিধি: জুবের আহমদ
যোগাযোগ করুন: swadhinbangla24@gmail.com
    2015 @ All Right Reserved By swadhinbangla.com

Developed By: Dynamicsolution IT [01686797756]