বাংলার জন্য ক্লিক করুন
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|

   খেলাধূলা -
                                                                                                                                                                                                                                                                                                                                 
সালাহ চমকে লিভারপুলের জয়

নীল আকাশের নিচে নতুন কিছু ঘটে না কথাটি মিথ্যা প্রমাণ করে চলেছে লিভারপুল। রাতে ইংলিশ প্রিমিয়ার লিগের ম্যাচে ম্যানচেস্টার ইউনাইটেডকে ২-০ গোলে হারিয়েছে তারা। গোলকিপার অ্যালিসন বেকারের সহায়তায় দারুণ গোল করেছেন লিভারপুলের ঈজিপসিয়ান তারকা মোহামেদ সালাহ। অপর গোলটি করেছেন ভার্জিল ভ্যান ডাইক। 

প্রিমিয়ার লিগের শিরোপা জয় এখন সময়ের ব্যাপার মাত্র। ২২ ম্যাচে ৬৪ পয়েন্ট নিয়ে তালিকার শীর্ষে লিভারপুল। দ্বিতীয়স্থানে থাকা ম্যানচেস্টার সিটি , যারা বর্তমান চ্যাম্পিয়ন তারা ২৩ ম্যাচ খেলে ৪৮ পয়েন্ট অর্জন করেছে। মজার ব্যাপার হচ্ছে, ইউনাইটেড থেকে লিভারপুলের পয়েন্ট ব্যবধান ৩০! লিগে আরো ১৬টি ম্যাচ খেলবে লিভারপুল। ৩৮ ম্যাচের মৌসুম। লিভারপুল হয়তো মৌসুমে শেষ করার অনেক আগেই শিরোপা নিশ্চিত করে ফেলবে। সেক্ষেত্রে এবার কোনো প্রতিযোগিতায় হবে না প্রিমিয়ার লিগে। 

লিভারপুল চ্যাম্পিয়নস লিগ জিতেছে গত মৌসুমে। ক্লাব বিশ্বকাপও রয়েছে তাদের। এখন প্রিমিয়ার লিগের দিকে ছুঁটছে তারা। এই ম্যাচে ১৪ মিনিটে গোল করেন ভ্যান ডাইক। আর সালাহ ব্যবধান দ্বিগুণ করেন ম্যাচের যোগ করা সময়ে (৯০+৩)। 

সালাহ চমকে লিভারপুলের জয়
                                  

নীল আকাশের নিচে নতুন কিছু ঘটে না কথাটি মিথ্যা প্রমাণ করে চলেছে লিভারপুল। রাতে ইংলিশ প্রিমিয়ার লিগের ম্যাচে ম্যানচেস্টার ইউনাইটেডকে ২-০ গোলে হারিয়েছে তারা। গোলকিপার অ্যালিসন বেকারের সহায়তায় দারুণ গোল করেছেন লিভারপুলের ঈজিপসিয়ান তারকা মোহামেদ সালাহ। অপর গোলটি করেছেন ভার্জিল ভ্যান ডাইক। 

প্রিমিয়ার লিগের শিরোপা জয় এখন সময়ের ব্যাপার মাত্র। ২২ ম্যাচে ৬৪ পয়েন্ট নিয়ে তালিকার শীর্ষে লিভারপুল। দ্বিতীয়স্থানে থাকা ম্যানচেস্টার সিটি , যারা বর্তমান চ্যাম্পিয়ন তারা ২৩ ম্যাচ খেলে ৪৮ পয়েন্ট অর্জন করেছে। মজার ব্যাপার হচ্ছে, ইউনাইটেড থেকে লিভারপুলের পয়েন্ট ব্যবধান ৩০! লিগে আরো ১৬টি ম্যাচ খেলবে লিভারপুল। ৩৮ ম্যাচের মৌসুম। লিভারপুল হয়তো মৌসুমে শেষ করার অনেক আগেই শিরোপা নিশ্চিত করে ফেলবে। সেক্ষেত্রে এবার কোনো প্রতিযোগিতায় হবে না প্রিমিয়ার লিগে। 

লিভারপুল চ্যাম্পিয়নস লিগ জিতেছে গত মৌসুমে। ক্লাব বিশ্বকাপও রয়েছে তাদের। এখন প্রিমিয়ার লিগের দিকে ছুঁটছে তারা। এই ম্যাচে ১৪ মিনিটে গোল করেন ভ্যান ডাইক। আর সালাহ ব্যবধান দ্বিগুণ করেন ম্যাচের যোগ করা সময়ে (৯০+৩)। 

মেসির গোলে জয়সূচকে বার্সেলোনা
                                  

নতুন কোচ সেতিয়েনকে গোল উপহারের পাশাপাশি জয় এনে দিলেন লিওনেল মেসি। রাতে লা লিগার ম্যাচে দশজনের গ্রানাডাকে ১-০ গোলে হারিয়েছে বার্সেলোনা। মেসি জয়সূচক গোলটি করেছেন। এখন ২০ ম্যাচে ৪৩ পয়েন্ট নিয়ে তালিকার শীর্ষে রয়েছে কাতালান জায়ান্টরা। সমান পয়েন্ট নিয়ে দ্বিতীয়স্থানে রয়েছে রিয়াল মাদ্রিদ। 

প্রথমার্ধ গোলশূন্য ছিল। বার্সেলোনা ভাল আক্রমণ করেও গোল পায়নি। ৬৯ মিনিটে গ্রানাডার বারাহোনা লাল কার্ড নিয়ে মাঠ ছাড়েন। ফলে দশজনের দল হয়ে যায় তারা। ন্যু ক্যাম্পে ৭৬ মিনিটে বার্সেলোনাকে জয়সূচক গোলটি এনে দেন প্রাণভোমরা মেসি।  

বিসিবি সভাপতি পাকিস্তান দলের সঙ্গেই থাকবেন, খাবেন
                                  

ক্রিকেটাররা তখন মাত্র হালকা স্ট্রেচিং শুরু করেছেন। মাঠে ঢুকলেন বিসিবি সভাপতি নাজমুল হাসান, সঙ্গে বোর্ডের আরও কয়েকজন কর্তা। বেশ কিছুক্ষণ ধরে ক্রিকেটারদের সঙ্গে কথা বললেন বিসিবি প্রধান। দলকে জোগালেন সাহস, মাথা থেকে দূর করতে বললেন নিরাপত্তার দুর্ভাবনা। জানালেন, তিনি নিজেও পাকিস্তান সফরে দলের সঙ্গে থাকবেন সবসময়। পাকিস্তান সফরের আগে বাংলাদেশের তিন দিনের ছোট্ট প্রস্তুতি পর্ব শুরু হয়েছে রোববার দুপুরে। দলকে উৎসাহ দিতে প্রথম দিন মাঠে ছিলেন বিসিবি সভাপতি। পরে সংবাদমাধ্যমের মুখোমুখি হয়ে জানালেন, প্রথম দফার সফরে তিনি দলের সঙ্গে থাকবেন পুরো সময়।

“জরুরি প্রয়োজনে আমার কালকে রাতে বাইরে যেতে হচ্ছে। ফিরে আসব ২২ তারিখ। তাই ওদের সঙ্গে যেতে পারছি না। ওরা আবার ভাবতে পারে যে আমি যাবই না। এজন্যই ওদেরকে বললাম যে, ২৩ তারিখে পাকিস্তানে গিয়ে তোমাদের সঙ্গে দেখা করব।”পাকিস্তানে তিন দফায় বাংলাদেশ দলকে পাঠাতে সম্মত হয়েছে বিসিবি। প্রথম দফার সফরে তিনটি টি-টোয়েন্টি ম্যাচ আগামি শুক্র, শনি ও সোমবার। বাংলাদেশ দল ঢাকা ছাড়বে বুধবার রাতে, লাহোরে পৌঁছানোর কথা বৃহস্পতিবার সকালে। বিসিবি সভাপতি জানালেন, পাকিস্তানের কড়া নিরাপত্তা ব্যবস্থার পাশাপাশি বাংলাদেশ থেকেও একটি অগ্রবর্তী নিরাপত্তা দল যাবে সেখানে। “আমাদের এডভান্স একটি দল যাচ্ছে নিরাপত্তার। এনএসআই থেকে যাবে, ডিজিএফআই থেকেও লোক যাওয়ার কথা।

আমাদের পক্ষ থেকে নিরাপত্তা নিয়ে যত প্রস্তুতি আছে, সব নেওয়া হবে।” তবে ক্রিকেটারদের সঙ্গে আলোচনায় নিরাপত্তা প্রসঙ্গে বেশি যেতেই চাননি নাজমুল হাসান। দলকে তিনি বলেছেন, শুধু মাঠের ক্রিকেট নিয়েই ভাবতে। “আমি ওদের সঙ্গে নিরাপত্তা নিয়ে আলাপ করতেই চাইনি। কথা উঠেছিল তবু হালকা, আমি বলেছি চিন্তার কিছু নেই। খেলা নিয়ে চিন্তা করতে বলেছি। মাথার মধ্যে এসব চিন্তা থাকলে তো ন্যাচারাল পারফরম্যান্স আসবে না। মানসিক শান্তি ছাড়া ক্রিকেট খেলা অনেক কঠিন। টি-টোয়েন্টি এমনিতেই অনেক টেনশনের খেলা। সেকেন্ডে খেলা ঘুরে যায়।” “ওদেরকে বললাম যে চিন্তার কিছু নেই, ঠান্ডা মাথায় খেলবে।

ইনশাল্লাহ কিছু হবে না। আমি আসছি, একসঙ্গে থাকব, একসঙ্গে খাব। কোনো অসুবিধা নেই।”এমনিতে বাংলাদেশের প্রায় প্রতিটি বিদেশ সফরেই বিসিবি সভাপতিসহ বোর্ডের বড় কর্তাদের অনেককেই যেতে দেখা যায়। এই সফরকেও অন্যান্য সফরের মতো করে দেখা হবে বলে জানালেন বিসিবি সভাপতি। প্রধান নির্বাচক, বিসিবির প্রধান নির্বাহী ও আরও কয়েকজন পরিচালক যাবেন পাকিস্তানে।

শ্রীলংকাকে হারিয়ে সেমিফাইনালে বাংলাদেশ
                                  

মতিন মিয়ার জোড়া এবং ইব্রাহিমের গোলে বঙ্গবন্ধু গোল্ডকাপ আন্তর্জাতিক ফুটবল টুর্নামেন্টের সেমিফাইনালে উঠেছে বাংলাদেশ। গতকাল রোববার বঙ্গবন্ধু জাতীয় স্টেডিয়ামে বাংলাদেশ প্রথমার্ধে ১-০ গোলে এগিয়ে থেকে দ্বিতীয়ার্ধে আরো দুই গোল করে, ৩-০ ব্যবধানে সহজ জয় নিয়ে মাঠ ছাড়ে। এ জয়ে ‘এ’ গ্রুপ রানার্সআপ হয়ে বাংলাদেশ সেমিফাইনাল খেলবে ‘বি’ গ্রুপ চ্যাম্পিয়ন বুরুন্ডির বিপক্ষে ২৩ জানুয়ারি বিকেল ৫ টায়।

১৮ মিনিটে এগিয়ে যাওয়া বাংলাদেশ ব্যবধান দ্বিগুণ করে ৬৫ মিনিটে। মতিনের দ্বিতীয় গোলটি ছিল আরো চমৎকার। মাঝ সীমানায় শ্রীলংকার ডিফেন্ডার সুপনের পা থেকে বল কেড়ে নিয়ে একক প্রচেষ্টায় ঢুকে পড়ের ডি বক্সে। লংকান গোলরক্ষক এগিয়ে এলে তাকেও কাটিয়ে বল জালে পাঠান মতিন। ৮৫ মিনিটে বাংলাদেশের তৃতীয় গোল করেন মোহাম্মদ ইব্রাহিম। বাম দিক দিয়ে ঢুকে বদলি রাকিব বল বাড়িয়ে দেন ইব্রাহিমকে। আগে দুইবার ব্যর্থতার পরিচয় দেওয়া ইব্রাহিম এবার ভুল করেননি- বল জালে পাঠান ঠান্ডা মাথায়।


গুরুত্বপূর্ণ ম্যাচটি দেখতে বঙ্গবন্ধু জাতীয় স্টেডিয়ামের গ্যালারিতে আসন নিয়েছিল উল্লেখযোগ্য দর্শক। পশ্চিম গ্যালারির পুরোটাই দর্শকে ঠাসা। সমর্থকরা ঢোল-বাদ্য-বাজনা নিয়ে বাংলাদেশ-বাংলাদেশ স্লোগানে মুখরিত করে তুলেছিল পুরো গ্যালারি।


বাংলাদেশ একাদশ
আশরাফুল রানা, রহমত মিয়া, তপু বর্মন, সাদ উদ্দিন, মতিন মিয়া, সোহেল রানা, বিশ্বনাথ ঘোষ, ইব্রাহিম (সুশান্ত ত্রিপুরা), রিয়াদুল হাসান, মানিক মোল্লা (রাকিব) ও সুফিল (মামুনুল)।

বিপিএলের নতুন চ্যাম্পিয়ন রাজশাহী
                                  

বাংলাদেশ প্রিমিয়ার লিগের (বিপিএল) নতুন চ্যাম্পিয়ন হয়েছে রাজশাহী র‌য়্যালস। এবারের বিশেষ আসর বঙ্গবন্ধু বিপিএলে রাজশাহীর প্রতিপক্ষ ছিল খুলনা টাইগার্স।

মিরপুর শেরে বাংলা স্টেডিয়ামে ফাইনাল এ ম্যাচে মুশফিকুর রহীমের খুলনা টাইগার্সকে ২১ রানে হারিয়েছে আন্দ্রে রাসেলের রাজশাহী।

টসে জিতে প্রথমে রাজশাহীকে ব্যাটিংয়ে পাঠায় খুলনা। নির্ধারিত ২০ ওভার শেষে রাজশাহীর সংগ্রহ দাঁড়ায় ১৭০ রান। এর মাঝে আছে ইরফান শুকুরের ৫২ রান। এছাড়া উল্লেখযোগ্য হলো, লিটন দাসের ২৫। অধিনায়ক আন্দ্রে রাসেল ২৭ ও মোহাম্মদ নওয়াজ অপরাজিত থাকেন ৪১ রান নিয়ে।

খুলনার হয়ে মোহাম্মদ ইরফান ২টি, রবি ফ্রাইলিঙ্ক ও শহীদুল ইসলাম নেন একটি করে উইকেট।

জয়ের লক্ষে খেলতে নেমে শুরুতেই হোঁচট খায় পুরো টুর্নামেন্টে দুর্দান্ত খেলা খুলনা। মোহাম্মদ ইরফানের করা প্রথম ওভারের দ্বিতীয় বলেই সাজঘরের পথ ধরেন নাজমুল হোসেন শান্ত (০)। পরের ওভারে আবু জায়েদ রাহির শিকার আরেক ওপেনার মেহেদী হাসান মিরাজও (২)। ১১ রানের মধ্যে ২ উইকেট হারায় খুলনা।

সেখান থেকে দলকে অনেকটা এগিয়ে নিয়েছেন শামসুর রহমান শুভ আর রাইলি রুশো। ইনিংসের ১১তম ওভারে রুশোকে (৩৭) ফিরিয়ে রাজশাহীর মুখে হাসি ফোটান মোহাম্মদ নওয়াজ।

দুই ওভার পর খুলনাকে ম্যাচ থেকেই ছিটকে দেন কামরুল ইসলাম রাব্বি। হাফসেঞ্চুরিয়ান শুভকে (৫২) ফেরানোর সঙ্গে মারকুটে আরেক ব্যাটসম্যান নাজিবুল্লাহ জাদরানকেও (৪) তুলে নেন ডানহাতি এই পেসার।

খুলনার শেষ ভরসা হয়ে ছিলেন মুশফিক। আন্দ্রে রাসেলের দুর্দান্ত এক ডেলিভারিতে তিনিও শেষতক বোল্ড হয়ে গেলে শিরোপা স্বপ্ন ভেঙে যায় দলটির।

রাজশাহীর পক্ষে ২টি করে উইকেট নেন মোহাম্মদ ইরফান, আন্দ্রে রাসেল আর কামরুল ইসলাম রাব্বি।

ওয়ার্নার-ফিঞ্চের জোড়া সেঞ্চুরিতে ১৫বছর পর লজ্জা পেল ভারত
                                  

মুম্বাইতে ভারতের ছুড়ে দেয়া ২৫৬ রানের টার্গেট উদ্বোধনী জুটিতেই স্পর্শ করে ফেললেন অস্ট্রেলিয়ার দুই ওপেনার ডেভিড ওয়ার্নার ও অধিনায়ক অ্যারন ফিঞ্চ। ম্যাচের সেরা ওয়ার্নারের ১২৮ ও ফিঞ্চের ১১০ রানের সুবাদে ভারতকে সিরিজের প্রথম ম্যাচে ১০ উইকেটে হারালো সফরকারী অস্ট্রেলিয়া। যার মাধ্যমে ২০০৫ সালের পর আবারো দেশের মাটিতে ১০ উইকেটের ব্যবধানে ম্যাচ হারের লজ্জা পেল বিরাট কোহলির দল।

এই জয়ে তিন ম্যাচের সিরিজে ১-০ ব্যবধানে এগিয়ে গেল অস্ট্রেলিয়া। মুম্বাইয়ে টস জিতে প্রথমে বোলিং করতে নামে অস্ট্রেলিয়া। বল হাতে ভারতের ব্যাটসম্যানদের উপর চেপে বসেন অস্ট্রেলিয়ার তিন পেসার ও দুই স্পিনার। সময় মতো উইকেট তুলে নিয়ে ভারতকে ২৫৫ রানেই গুটিয়ে দেন তারা। শিখর ধাওয়ান ও লোকেশ রাহুলের ১২১ রানের জুটির পর ভারতের অন্যান্য ব্যাটসম্যানদের বড় স্কোর গড়ার সুযোগই দেননি অসি বোলাররা। ৭৪ রানের ইনিংস খেলে ধাওয়ান ভারতের পক্ষে সর্বোচ্চ রান সংগ্রাহক। ৪৭ রান করেন রাহুল। অস্ট্রেলিয়ার পেসার মিচেল স্টার্ক ৩টি, প্যাট কামিন্স-কেন রিচার্ডসন ২টি করে উইকেট নেন। জবাবে ২৫৬ রানের টার্গেট ৭৪ বল বাকী রেখেই স্পর্শ করে ফেলেন অস্ট্রেলিয়ার দুই ওপেনার ওয়ার্নার ও ফিঞ্চ। ১৭টি চার ও ৩টি ছক্কায় ১১২ বলে ওয়ার্নার এবং ১৩টি চার ও ২টি ছক্কায় ১১৪ বলে নিজের ইনিংস সাজান ফিঞ্চ। এই ইনিংস দিয়ে ভারতের বিপক্ষে যেকোন উইকেট জুটিতে সর্বোচ্চ রানের রেকর্ড গড়লেন ওয়ার্নার ও ফিঞ্চ।

একই সাথে ওয়ানডেতে অস্ট্রেলিয়ার পক্ষে সবচেয়ে কম সময়ে ৫হাজার রান করার রেকর্ড গড়েন ওয়ার্নার। দলের জয়ে প্রধান ভূমিকা রাখলেও, বোলারদের প্রশংসা করলেন অস্ট্রেলিয়ার অধিনায়ক ফিঞ্চ, ‘বোলাররা ভারতকে বড় জুটি গড়তে দেয়নি। তাই আমাদের জন্য কাজটা সহজ হয়েছে। ভারতের মাটিতে তাদের বিপক্ষে যেকোন জয়ই স্পেশাল। ওয়ার্নার সব সময়ই দুর্দান্ত। এটি তার ১৮তম সেঞ্চুরি, তবে গেল ২-৩ বছরে ১০টি সেঞ্চুরি করেছেন তিনি।’ লজ্জার হারে হতাশা ছাড়া কিছুই প্রকাশ করতে পারেননি ভারতের অধিনায়ক বিরাট কোহলি, ‘তিন ডিপার্টমেন্টেই হতাশাজনক পারফরমেন্স। অস্ট্রেলিয়ার মত দলের সাথে জিততে হলে দুর্দান্ত খেলতে হবে আমাদের।

তাদের বোলাররা দুর্দান্ত পারফরমেন্স করেছে। এরপর ওয়ার্নার-ফিঞ্চের ব্যাটিং ছিলো প্রশংসনীয়।’ আগামী ১৭ জানুয়ারি রাজকোটে অনুষ্ঠিত হবে সিরিজের দ্বিতীয় ওয়ানডে।

 

আইসিসির বর্ষসেরা ক্রিকেটার বেন স্টোকস
                                  

আইসিসির ২০১৯ এর বর্ষসেরা ক্রিকেটার নির্বাাচিত হয়েছেন ইংল্যান্ডের বেন স্টোকস। বুধবার আইসিসির অফিসিয়াল ফেইসবুক পেইজে এ তথ্য নিশ্চিত করেছে কর্তৃপক্ষ। ২০১৯ ক্রিকেট বিশ্বকাপে অনবদ্য অবদান রেখে নিজ দল ইংল্যান্ডকে প্রথমবারের মতো বিশ্বকাপের শিরোপা এনে দেওয়ায় তাকে বর্ষ সেরার সম্মানে ভুষিত করা হলও। সেই সঙ্গে গতবছরের আগস্টে অ্যাশেজ সিরিজে এক দুর্দান্ত সেঞ্চুরি করে ইংল্যান্ডকে জয় এনে দিয়েছিলও বেন স্টোকস। মূলত এই দুটি কারনেই তাকে আইসিসির বর্ষসেরা ক্রিকেটার হিসেবে ঘোষণা করা হয়।

এদিকে, ভারতের ওপেনার ব্যাটসম্যান রোহিত শর্মাকে সেরা ওয়ানডে খেলোয়াড় হিসেবে ঘোষণা করেছে আইসিসি। ভারতের এ ব্যাটসম্যান গতবছর একদিনের ক্রিকেট সর্বোচ্চ সাতটি সেঞ্চুরি হাঁকিয়েছেন। যার মধ্যে পাঁচটিই ছিলও বিশ্বকাপের আসরে।

আর গতবছরে টেস্টে ৫৯টি উইকেট নিয়ে সেরা টেস্ট ক্রিকেটার হিসেবে নির্বাচিত হয়েছে অস্ট্রেলিয়ার প্যাট কামিন্স। আর টি-টোয়েন্টিতে বাংলাদেশের বিপক্ষে হ্যাটট্টিকসহ ৬ উইকেট নিয়ে আইসিসির বর্ষসেরা টি-টোয়েন্টি খেলোয়াড় নির্বাচিত হয়েছেন ভারতের দিপক চাহর।

মাত্র ১১ ম্যাচে ১১০৪ রান করে টেস্ট ক্রিকেট অবদান রাখায় অস্ট্রেলিয়ার লাবুশানে আইসিসির ইর্মাজিং খেলোয়াড় নির্বাচিত হয়েছেন। আর ভারতের অধিনায়ক বিরাট কোহলি আইসিসির স্পিরিট অব ক্রিকেটার নির্বাচিত হয়েছেন।

বিপিএলের প্রথম ফাইনালিস্ট হলো খুলনা টাইগার্স
                                  

মোহাম্মদ আমিরের ঝলকে প্রথম কোয়ালিফায়ার ম্যাচে রাজশাহী রয়্যালসকে হারিয়ে বঙ্গবন্ধু বিপিএলের প্রথম ফাইনালিস্ট হলো খুলনা টাইগার্স। ২৭ রানে জয় পেয়ে ফাইনালের টিকিট নিশ্চিত করেন মুশফিকুর রহিমের দল। খুলনার হয়ে মোহাম্মদ আমির একাই নেন ছয় উইকেট। বিপিএলের ইতিহাসে এটিই সর্বোচ্চ বোলিং ফিগার।

অন্যদিকে অবিশ্বাস্য ব্যাটিং করেও রাজশাহীকে জেতাতে পারেননি শোয়েব মালিক। হেরে গেলেও বাদ পড়ে যায়নি রাজশাহী। দলটি দ্বিতীয় কোয়ালিফায়ারে চট্টগ্রাম চ্যালেঞ্জার্সের বিপক্ষে খেলতে নামবে। এই ম্যাচে জয়ী দল ১৭ তারিখ ফাইনাল ম্যাচে ট্রফির লড়াইয়ে নামবে খুলনার বিপক্ষে। 

আজ সোমবার সন্ধ্যা সাড়ে ৬টায় শুরু হওয়া এই ম্যাচে টস জিতে খুলনাকে ব্যাটিংয়ে পাঠায় রাজশাহী। ব্যাটিং করতে নেমেই মিরাজ দ্রুত ফিরে গেলেও অন্য ওপেনার নাজমুল হোসেন শান্ত সাজঘরে ফেরেন ৭৮ রান করেই। ৫৭ বলে সাতটি ৪ ও চারটি ৬ মারেন শান্ত। এই ইনিংসেই ভর করে খুলনা ১৫৮ রান করতে সক্ষম হয়। আগের ম্যাচে সেঞ্চুরি হাঁকানো বাঁহাতি ব্যাটসম্যান এই ম্যাচেও খেলেন দুর্দান্ত। এ ছাড়া শামসুর রহমান ৩২ ও মুশফিক ২১ রান করেন। রাজশাহীর হয়ে ইরফান সর্বোচ্চ দুটি উইকেট নেন।

১৫৯ তাড়া করে খেলতে নেমে এই টুর্নামেন্টে অন্যতম ধারাবাহিক ব্যাটসম্যান লিটন দাস ২ রান করেই আমিরের বলে বোল্ড হয়ে ফেরেন সাজঘরে। এরপর একে একে আউট হয়ে সাজঘরে ফেরেন আফিফ হোসেন, অলক কাপালী, রবি বোপারা, আন্দ্রে রাসেল ও ফরহাদ রেজা। শুরুর এই ছয় ব্যাটসম্যানের মধ্যে সর্বোচ্চ ১১ রান করেন আফিফ হোসেন।

তবে লিটন-আফিফদের মতো সহজেই হার মানেননি শোয়েব মালিক। প্রথম ওভারে ব্যাটিং করতে নেমে মাঠে ছিলেন ১৮ ওভার ওভার পর্যন্ত। সর্বোচ্চ ৮০  রান আসে তার ব্যাট থেকে। মাত্র ৪৯ বলে দশটি ৪ ও চারটি ৬ মেরে এই রান করেন মালিক।  তাইজুলের সঙ্গে সপ্তম উইকেটে ৭৪ রানের জুটিতে দলের হাল ধরেন মালিক। তবুও শেষ পর্যন্ত ২৭ রানের হার নিয়ে মাঠ ছাড়তে হয়। শেষ পর্যন্ত রাজশাহী করে ১৩১ রান।

চার ওভার বোলিং করে মাত্র ১৭ রান দিয়ে ছয় উইকেট নেন মোহাম্মদ আমির। বিপিএলের ইতিহাসে এর আগে এক ম্যাচে ছয় উইকেট পায়নি কোনো বোলার। এর আগে পাঁচ উইকেট করে নিয়ে নিয়েছিলেন ওহাব রিয়াজ, রবি ফ্রাইলিঙ্ক ও থিসারা পেরেরা। এ ছাড়া ফ্রাইলিঙ্ক ও শহীদুল ইসলাম নেন একটি করে উইকেট।

ঢাকা প্লাটুনকে উড়িয়ে টিকে রইলো চট্টগ্রাম
                                  

 হাতে ১৪ সেলাই নিয়েও মাঠে নেমে গিয়েছিলেন মাশরাফি বিন মুর্তজা। কিন্তু অধিনায়কের এমন সাহসিকতাও খুব উজ্জীবিত করতে পারল না ঢাকা প্লাটুনকে। ব্যাটে-বলে গোছানো পারফরম্যান্সে ঢাকাকে সহজে হারিয়ে ফাইনালে ওঠার লড়াইয়ে টিকে থাকল চট্টগ্রাম চ্যালেঞ্জার্স। বঙ্গবন্ধু বিপিএলের এলিমিনেটর ম্যাচে ঢাকা প্লাটুনকে ৭ উইকেটে হারিয়েছে চট্টগ্রাম চ্যালেঞ্জার্স। বুধবার দ্বিতীয় কোয়ালিফায়ারে চট্টগ্রাম লড়বে ফাইনালে ওঠার শেষ ধাপে। মিরপুর শের-ই-বাংলা স্টেডিয়ামে সোমবার ঢাকা ২০ ওভারে করতে পারে ১৪৪ রান। চট্টগ্রাম জিতেছে ১৪ বল বাকি রেখে। ২৩ রানে ৩ উইকেট নিয়ে চট্টগ্রামের জয়ের ভিত গড়ে দেওয়া পারফরম্যান্সে ম্যাচের সেরা হয়েছেন রায়াদ এমরিট। ঢাকার পরাজয়ের বীজ বোনা হয়ে যায় ব্যাটিংয়ের শুরুর ভাগেই। ৬০ রানে হারিয়েছিল তারা ৭ উইকেট। শাদাব খানের দুর্দান্ত ইনিংস তাদেরকে নিয়ে যায় দেড়শর কাছে।

কিন্তু সেই রানে লড়াইও জমাতে পারেনি ঢাকা। ম্যাচের শুরুর দিকে অন্যতম আলোচিত নাম অবশ্য মাশরাফি বিন মুর্তজা। শনিবারের ম্যাচে চোট পেয়ে ১৪ সেলাই পড়েছিল তার বাঁহাতে। সেই হাত ব্যান্ডেজে মুড়িয়ে মাশরাফি নেমে গেছেন ঢাকাকে নেতৃত্ব দিতে। কিন্তু দলকে ডোবান তাদের ব্যাটসম্যানরা। ঢাকার দুর্যোগের শুরু সবচেয়ে বড় ভরসা তামিম ইকবালের বিদায় দিয়ে। যথারীতি শুরু করেছিলেন তিনি মন্থরতায়। কিন্তু আউট হয়েছেন রুবেলকে বেরিয়ে এসে তেড়েফুঁড়ে মারতে গিয়ে। ১০ বলে বাঁহাতি ওপেনার করেন ৩ রান। বাজে শটের সেই ধারা ছড়িয়ে গেল যেন ঢাকার অন্যান্যের মধ্যেও। বাঁহাতি স্পিনার নাসুম আহমেদকে তুলে মারতে গিয়ে উইকেট বিলিয়ে এলেন এনামুল হক। দলে ফেরা লুইস রিস সুযোগ হেলায় হারালেন মাহমুদউল্লাহকে উইকেট উপহার দিয়ে। এই দুজনই করতে পারেননি রান। ১১ বার শূন্য রানে আউট হয়ে এনামুল গড়েছেন বিপিএল রেকর্ড। এক পাশে মুমিনুল খেলছিলেন দারুণ।

কিন্তু অন্যান্যের ব্যর্থতায় পাওয়ার প্লে শেষে ঢাকার রান ৩ উইকেটে কেবল ২৮! তাতে মুমিনুলেরই ছিল ১৭ বলে ২০। পাঁচে নেমে মেহেদি হাসান সহজ ক্যাচ দিয়েও বেঁচে যান শুরুতেই। কিন্তু এবারের বিপিএলে দারুণ পারফর্ম করা অলরাউন্ডার এদিন কাজে লাগাতে পারেননি জীবন। সীমানায় ক্যাচ দেন এমরিটের স্লোয়ার বাউন্সারে। এমরিটের পরের বলেই নুরুল হাসান সোহানের দারুণ ক্যাচে ফিরেন জাকের আলি। এমরিট-সোহান জুটির সমন্বয়ে কাটা পড়েন ঢাকার ভরসা হয়ে থাকা মুমিনুলও। উইকেটের পেছনে আরেকটি ভালো ক্যাচ নেন সোহান, মুমিনুল থামেন ৩১ বলে ৩১ করে। এরপর নাসুমকে ফিরতি ক্যাচ দিয়ে যখন ফেরেন আসিফ আহমেদ, ত্রয়োদশ ওভারে ঢাকার রান তখন ৭ উইকেটে ৬০। ঢাকার ঘুরে দাঁড়ানোর পর্ব শুরু এরপরই। থিসারা পেরেরাকে নিয়ে ৩০ বলে ৪৪ রানের জুটি গড়েন শাদাব।

১৩ বলে ২৫ রানের ক্যামিও খেলে আউট হন থিসারা। শাদাব শেষ দিকে চালান তান্ডব। নবম উইকেট জুটিতে মাশরাফি ২ বল খেলে রান করেননি কোনো, শাদাব করেন ১৩ বলে ৩৮! পাকিস্তানের এই লেগ স্পিনারের সৌজন্যেই শেষ ৩ ওভারে ৫১ রান তোলে ঢাকা। জিয়াউর রহমানের করা শেষ ওভার থেকে আসে ২৩ রান। নিজের খরচ করা রান জিয়া অনেকটা পুষিয়ে দেন ব্যাটিংয়ে। ওপেনিংয়ে তার আগ্রাসী ব্যাটিংয়েই উড়ন্ত সূচনা পায় চট্টগ্রাম। মেহেদির অফ স্পিনে দুটি ছক্কা মারলেও ক্রিস গেইল বাকি সময়টায় ছিলেন সাবধানী। মূলত জিয়ার সৌজন্যেই ৫ ওভারে ৪১ তুলে ফেলে দল। ১২ বলে ২৫ করে আউট হন জিয়া। তিনে নেমে আক্রমণের সেই ধারা ধরে রাখেন ইমরুল কায়েস। চট্টগ্রাম এগোতে থাকে অনায়াসে। মাশরাফির স্পেলের শেষ দুই বলে দুটি ছক্কায় ইমরুল রাখেন দাপটের ছাপ। থিসারা পেরেরাকে টানা দুই বলে চার ও ছক্কায় সহজ করে দেন রান রেটের হিসাব। দুই বাঁহাতি দেখে হয়তো লেগ স্পিনার শাদাব খানকে আক্রমণে আনছিলেন না মাশরাফি। সেই শাদাবই পরে ভাঙেন জুটি।

নিজের প্রথম ওভারে ফেরান ২২ বলে ৩২ রান করা ইমরুলকে। শাদাব পরে আউট করেন গেইলকেও। ৪৯ বলে ৩৮ করে ক্যারিবিয়ান ব্যাটসম্যান আউট হন মাশরাফির এক হাতের ক্যাচে। তবে চট্টগ্রামের জিততে সমস্যা হয়নি। দুর্দান্ত ঝড়ো ইনিংসে দলের জয় সঙ্গে নিয়ে ফেরেন মাহমুদউল্লাহ। টানা দুই ছক্কায় ম্যাচ শেষ করেন অভিজ্ঞ ব্যাটসম্যান। ৪ ছক্কায় চট্টগ্রাম অধিনায়ক অপরাজিত থাকেন ১৪ বলে ৩৪ রান করে।


সংক্ষিপ্ত স্কোর:
ঢাকা প্লাটুন: ২০ ওভারে ১৪৪/৮ (তামিম ৩, মুমিনুল ৩১, এনামুল ০, রিস ০, মেহেদি ৭, জাকের ০, শাদাব ৬৪*, আসিফ ৫, থিসারা ২৫, মাশরাফি ০*; রুবেল ৪-০-৩৩-২, মেহেদি রানা ৪-০-২৫-০, নাসুম ২-০-১১-২, মাহমুদউল্লাহ ২-০-৫-১, এমরিট ৪-০-২৩-৩, জিয়াউর ৪-০-৩৯-০)।
চট্টগ্রাম চ্যালেঞ্জার্স: ১৭.৪ ওভারে ১৪৭/৩ (গেইল ৩৮, জিয়া ২৫, ইমরুল ৩২, মাহমুদউল্লাহ ৩৪*, ওয়ালটন ১২*; মাশরাফি ৪-০-৩৩-০, মেহেদি ৪-০-২০-১, হাসান ৪-০-৩৫-০, রিস ২-০-১০-০, থিসারা ১-০-১৪-০, শাদাব ২.৪-০-৩২-২)।
ফল: চট্টগ্রাম চ্যালেঞ্জার্স ৭ উইকেটে জয়ী
ম্যান অব দা ম্যাচ: রায়াদ এমরিট

অধিনায়কত্ব ছেড়ে দিতে প্রস্তুত মালিঙ্গা
                                  

শ্রীলংকা টি-২০ ক্রিকেট দলের অধিনায়কত্ব ছেড়ে দিতে প্রস্তুত লাসিথ মালিঙ্গা। সর্বশেষ বিদেশ সফর ভারতের মাটিতে দল ২-০ ব্যবধানে পরাজিত হওযার পর অধিনায়কত্ব ছেড়ে দিতে তিনি প্রস্তুত বলে জানিয়েছেন মালিঙ্গা। দেশে ফিরে সাংবাদিকদের ৩৬ বছর বয়সী মালিঙ্গা বলেন টি-২০ ভার্সনে যথেষ্ট ভালো করতে পারছে না শ্রীলংকা। তিনি বলেন লংকান বোরাররা প্রতিপক্ষকে আটকে রাখতে সক্ষম পারেনি এবং একটি ম্যাচ জিততে লড়াই করার মতো ১৭০ রান করতে পারেনি ব্যাটসম্যানরা। মালিঙ্গা বলেন,‘ এটা করার সক্ষমতা আমাদের নেই।’ মাত্র এক বছর আগে অধিনায়কত্ব পাওয়ার সময় বিশ্ব র‌্যাংকিংয়ের নয় নম্বরে থাকা দলের কাছ থেকে ম্যাচ জয়ী পারফরমেন্স আশা করাটাও ঠিক নয় বলে মন্তব্য করেন তিনি। তবে নিজ দলের এমন বাজে পারফরমেন্সের দায়িত্ব নিতে ‘প্রস্তুত’ বলে জানান মালিঙ্গা। মালিঙ্গার নেতৃত্বে ২০১৪ টি-২০ বিশ্বকাপের শিরোপা জয় করে লঙ্কা এবং ২০১৬ সালের শুরুর দিক পর্যন্ত তিনিই দলের নেতৃত্ব দেন।
তবে বিস্ময়কর ব্যাপার হচ্ছে-ইনজুরির কারণে বিভিন্ন টুর্নামেন্ট মিস করে এমনকি দলে জায়গা না পেলেও পুনরায় সুস্থ হয়ে ফিরে ২০১৮ সালের ডিসেম্বরে পুনরায় অধিনায়ক নির্বাচিত হন তিনি। মালিঙ্গা নেতৃত্ব নিয়ে দলে বিভাজন আছে বলে স্থানীয় সানডে টাইমস পত্রিকায় প্রকাশিত এক রিপোর্টে বলা হয়। দলে বিভাজন সৃষ্টি হয়েছে বলে প্রকাশিতক রিপোর্টে বলা হয় থিসারা পেরেরা ও এ্যাঞ্জেলো ম্যাথুজসহ সাবেক অধিনায়কদেরে সাইড লাইনে রেখেছেন মালিঙ্গা।

 

খালেদ মাহমুদের প্রতি সেঞ্চুরিয়ান শান্তর কৃতজ্ঞতা
                                  

৫০ টি-টোয়েন্টি ম্যাচ খেলে মোটে একটি ফিফটি। সেটিও সেই অভিষেক ম্যাচে! হতাশায় মুষড়ে পড়েছিলেন নাজমুল হোসেন শান্ত। নিজের ওপর বিশ্বাস হারিয়ে ফেলেছিলেন প্রায়। সবাইকে চমকে দিয়ে সেই শান্তই বঙ্গবন্ধু বিপিএলে সেঞ্চুরি করলেন বাংলাদেশের সব ব্যাটসম্যানের আগে। অবিশ্বাস্য এই ঘুরে দাঁড়ানোর মূল কৃতিত্ব শান্ত দিলেন খালেদ মাহমুদকে, যার প্রেরণায় খুঁজে পেয়েছেন হারানো বিশ্বাস। বিপিএলে এবার নিজের প্রথম আট ম্যাচ মিলিয়ে ১১৫ রান করতে পেরেছিলেন শান্ত। অথচ শনিবার এক ইনিংসেই করলেন ১১৫! ৮ চার ও ৭ ছক্কায় ৫৭ বলে খেলা তার বিধ্বংসী ইনিংসে রান তাড়ার নতুন রেকর্ড গড়ে জেতে খুলনা টাইগার্স।

২০১৬ সালে টি-টোয়েন্টি অভিষেকের পর এই যে দীর্ঘ পথচলা, রানের জন্য ধুঁকতে থাকা, ২০ ওভারের ক্রিকেটে আত্মপরিচয় খুঁজে ফেরা, মাঝেমধ্যেই এই সময়টায় হতাশা পেয়ে বসেছিল তাকে। তবে সে সময়টায় পাশে পেয়েছেন খালেদ মাহমুদকে। এই বিসিবি পরিচালক এবারের বিপিএলে যুক্ত আছেন খুলনা দলের সঙ্গেই। তার প্রতি কৃতজ্ঞতা জানালেন শান্ত। পাশাপাশি বললেন আরেক স্থানীয় কোচ সোহেল ইসলামের কথাও। “সত্যি বলতে আমি অনেক হতাশ ছিলাম। অস্বীকার করার কিছু নেই। এই একটা ফরম্যাটে হতাশ হয়ে যাচ্ছিলাম, লুকানোর কিছু নেই। তবে শেষ দুই মাসের কথা যদি বলি, একজনের কথা না বললেই নয়। তিনি হলেন খালেদ মাহমুদ সুজন স্যার। আরেকজন সোহেল স্যার (বিসিবির কোচ, বিপিএলে কাজ করছেন কুমিল্লা ওয়ারিয়র্সে)। এই দুজন সব সময় বিশ্বাস রেখেছেন আমার ওপর।” “এই দুজন যেভাবে আমার পাশে থেকেছেন এবং এখনও সাপোর্ট দিয়ে যাচ্ছেন, এটি আমাকে অনেক সাহায্য করেছে। আমার বিশ্বাসটা এসেছে যে আমিও পারব।” এই টুর্নামেন্টের প্রথম চার ম্যাচে শান্ত করতে পেরেছিলেন কেবল ৫ রান, শূন্য রানে আউট হয়েছিলেন ২ ইনিংসে। সেই সময়ে খালেদ মাহমুদ আরও বেশি সাহস জুগিয়েছেন শান্তকে। “এবার প্রথম চার ম্যাচে কোনো রানই করিনি। তারপরও খুব মন খারাপ করতে হয়নি। কারণ ওই দুজন খুব সাহায্য করেছেন। চার ম্যাচ খারাপ করার পর সুজন স্যার এসে বললেন যে, ‘তুই এই দলের মূল ক্রিকেটার। তুই অবশ্যই পারবি।’ এই ধরনের কথা আসলে অনেক অনুপ্রাণিত করে। এজন্যই হয়তো আজকের ইনিংসটি খেলতে পেরেছি।” শান্তর এখন আশা, এই এক ম্যাচের রান পাওয়াকে ধারাবাহিকতায় রূপ দেওয়া। “সবসময় যেটি বলে আসছি, ক্রিকেট খেলায় কখনও খারাপ হবে, কখনও ভালো, এটিই নিয়ম। ধারাবাহিক রান করতে পারাটাই সবচেয়ে বড় ব্যাপার। চেষ্টা করব পরের ম্যাচগুলোয় ধারাবাহিক রান করার।” শান্তর এই সেঞ্চুরি আবার জাগিয়ে তুলেছে তাকে নিয়ে দেশের ক্রিকেটের পুরোনো আশাও। বয়সভিত্তিক ক্রিকেট থেকেই তাকে মনে করা হচ্ছিল দেশের ব্যাটিংয়ের ভবিষ্যৎ। যুব ওয়ানডেতে গড়েছিলেন রানের রেকর্ড। ঘরোয়া ক্রিকেট থেকে শুরু করে অন্য পর্যায়গুলোতেও রান করেছেন। তাকে দীর্ঘ সময় ধরে অনেক যত্ন করে গড়ে তোলার চেষ্টা করা হয়েছে।

কিন্তু আন্তর্জাতিক ক্রিকেটে যেটুকু সুযোগ মিলেছে, শান্ত করতে পারেননি আশা জাগানিয়া কিছু। তবে ২১ বছর বয়সী ব্যাটসম্যান আত্মবিশ্বাস নিয়েই বলছেন তার ওপর ভরসা রাখতে। “তিনটি ফরম্যাটেই খেলেছি (আন্তর্জাতিক ক্রিকেটে)। যাওয়া-আসার মধ্যেই আছি। একটু তো হতাশ অবশ্যই যে জায়গাটি ধরতে পারছি না। ঘরোয়া ও অন্যান্য জায়গায় ভালো করেছি। জাতীয় দলে আবার যদি সুযোগ হয়, তা হলে চেষ্টা থাকবে পাকাপোক্ত করে জায়গা করে নেওয়ার।” “কিন্তু আপাতত ওসব ভাবছি না। কারণ আমি বিশ্বাস করি, অন্যান্য জায়গায় রান করতে থাকলে বিশ্বাসটা আসবে। তারপর জাতীয় দলেও রান করা শুরু করব ইনশাল্লাহ।”

বিশ্ব মঞ্চে আলো ছড়াতে সম্পূর্ণ প্রস্তুত বাংলাদেশের যুবারা
                                  

পচেফস্ট্রুমে এক সপ্তাহের ক্যাম্প শেষে অনূর্ধ্ব-১৯ বিশ্বকাপের চ্যালেঞ্জে মুখোমুখি হতে সম্পূর্ণ প্রস্তুত বাংলাদেশ। অধিনায়ক আকবর আলী জানিয়েছেন, এবারের আসরকে তারা দেখছেন নিজেদের দক্ষতা দেখানোর মঞ্চ হিসেবে। তার বিশ্বাস, সামর্থ্য অনুযায়ী খেলতে পারলে শেষ পর্যন্ত লড়াইয়ে থাকা সম্ভব। দক্ষিণ আফ্রিকায় ১৭ জানুয়ারি শুরু হতে যাওয়া টুর্নামেন্টে খেলতে ৩ জানুয়ারি ঢাকা ছাড়ে বাংলাদেশ অনূর্ধ্ব-১৯ দল। কন্ডিশনের সঙ্গে মানিয়ে নিতে পচেফস্ট্রুমে একটি ক্যাম্প করেছে তারা।

শনিবার জোহানেসবার্গে নিউ জিল্যান্ড ও কানাডার অধিনায়কের সঙ্গে সংবাদ মাধ্যমের মুখোমুখি হয়ে আকবর জানান নিজেদের লক্ষ্যের কথা। “এখানে খেলতে পেরে ভালো লাগছে। আমি মনে করি, বিশ্বকে আমাদের দক্ষতা দেখানোর এটি দারুণ সুযোগ। আমরা ভালো প্রস্তুতি নিয়েছি। এখন মুখিয়ে আছি এই বৈশ্বিক আসরে খেলার জন্য। ছেলেরাও বেশ রোমাঞ্চিত বিশ্বকাপ খেলতে পেরে।” গত যুব বিশ্বকাপের পর থেকে ৩৩টি ওয়ানডে খেলে ১৮টিতে জিতেছে বাংলাদেশ। হেরেছে ৮টিতে, টাই হয়েছে একটি, পরিত্যক্ত হয়েছে ছয়টি ম্যাচ। তিন বিভাগেই ভালো করে মেলে এই সাফল্য। বিশ্বকাপেও সেটি ধরে রাখতে আশাবাদী অধিনায়ক। “আমাদের স্কোয়াড বেশ ভারসাম্যপূর্ণ, ব্যাটিং, বোলিং ও ফিল্ডিং, তিন বিভাগই ভালো অবস্থানে আছে। আমাদের দলের সবাই খুবই প্রতিভাবান। আমি কারও নাম নিতে পারব না।

আমরা যদি সামর্থ্য অনুযায়ী খেলতে পারি, তা হলে আমরা টুর্নামেন্টের শেষের দিকে যেতে পারব।” নিজেদের প্রথম ম্যাচে ১৮ জানুয়ারি জিম্বাবুয়ের মুখোমুখি হবে বাংলাদেশ। ২১ জানুয়ারি খেলবে স্কটল্যান্ডের বিপক্ষে। ২৪ জানুয়ারি গ্রুপে নিজেদের শেষ ম্যাচে আকবরদের প্রতিপক্ষ পাকিস্তান। আপাতত কেবল জিম্বাবুয়েকে নিয়েই ভাবছেন আকবর। “এটি ম্যাচ ধরে ধরে খেলার বিষয়। জিম্বাবুয়ে ভালো দল। আমরা ওদের সবশেষ সিরিজটি দেখেছি।

ওদের হারাতে হলে আমাদের সেরা খেলাটাই খেলতে হবে।” ১৩ জানুয়ারি অস্ট্রেলিয়ার বিপক্ষে প্রথম অফিসিয়াল প্রস্তুতি ম্যাচ খেলবে বাংলাদেশ। এক দিন পর দ্বিতীয় ও শেষ প্রস্তুতি ম্যাচে মুখোমুখি হবে নিউ জিল্যান্ডের। চার গ্রুপের খেলা শেষে ২৮ থেকে ৩১ জানুয়ারি হবে চারটি কোয়ার্টার-ফাইনাল। ৪ ও ৬ ফেব্রুয়ারি হবে দুটি সেমি-ফাইনাল। ৯ ফেব্রুয়ারি হবে ত্রয়োদশ আসরের ফাইনাল।

 

বিশ্ব মঞ্চে আলো ছড়াতে সম্পূর্ণ প্রস্তুত বাংলাদেশের যুবারা
                                  

পচেফস্ট্রুমে এক সপ্তাহের ক্যাম্প শেষে অনূর্ধ্ব-১৯ বিশ্বকাপের চ্যালেঞ্জে মুখোমুখি হতে সম্পূর্ণ প্রস্তুত বাংলাদেশ। অধিনায়ক আকবর আলী জানিয়েছেন, এবারের আসরকে তারা দেখছেন নিজেদের দক্ষতা দেখানোর মঞ্চ হিসেবে। তার বিশ্বাস, সামর্থ্য অনুযায়ী খেলতে পারলে শেষ পর্যন্ত লড়াইয়ে থাকা সম্ভব। দক্ষিণ আফ্রিকায় ১৭ জানুয়ারি শুরু হতে যাওয়া টুর্নামেন্টে খেলতে ৩ জানুয়ারি ঢাকা ছাড়ে বাংলাদেশ অনূর্ধ্ব-১৯ দল। কন্ডিশনের সঙ্গে মানিয়ে নিতে পচেফস্ট্রুমে একটি ক্যাম্প করেছে তারা।

শনিবার জোহানেসবার্গে নিউ জিল্যান্ড ও কানাডার অধিনায়কের সঙ্গে সংবাদ মাধ্যমের মুখোমুখি হয়ে আকবর জানান নিজেদের লক্ষ্যের কথা। “এখানে খেলতে পেরে ভালো লাগছে। আমি মনে করি, বিশ্বকে আমাদের দক্ষতা দেখানোর এটি দারুণ সুযোগ। আমরা ভালো প্রস্তুতি নিয়েছি। এখন মুখিয়ে আছি এই বৈশ্বিক আসরে খেলার জন্য। ছেলেরাও বেশ রোমাঞ্চিত বিশ্বকাপ খেলতে পেরে।” গত যুব বিশ্বকাপের পর থেকে ৩৩টি ওয়ানডে খেলে ১৮টিতে জিতেছে বাংলাদেশ। হেরেছে ৮টিতে, টাই হয়েছে একটি, পরিত্যক্ত হয়েছে ছয়টি ম্যাচ। তিন বিভাগেই ভালো করে মেলে এই সাফল্য। বিশ্বকাপেও সেটি ধরে রাখতে আশাবাদী অধিনায়ক। “আমাদের স্কোয়াড বেশ ভারসাম্যপূর্ণ, ব্যাটিং, বোলিং ও ফিল্ডিং, তিন বিভাগই ভালো অবস্থানে আছে। আমাদের দলের সবাই খুবই প্রতিভাবান। আমি কারও নাম নিতে পারব না।

আমরা যদি সামর্থ্য অনুযায়ী খেলতে পারি, তা হলে আমরা টুর্নামেন্টের শেষের দিকে যেতে পারব।” নিজেদের প্রথম ম্যাচে ১৮ জানুয়ারি জিম্বাবুয়ের মুখোমুখি হবে বাংলাদেশ। ২১ জানুয়ারি খেলবে স্কটল্যান্ডের বিপক্ষে। ২৪ জানুয়ারি গ্রুপে নিজেদের শেষ ম্যাচে আকবরদের প্রতিপক্ষ পাকিস্তান। আপাতত কেবল জিম্বাবুয়েকে নিয়েই ভাবছেন আকবর। “এটি ম্যাচ ধরে ধরে খেলার বিষয়। জিম্বাবুয়ে ভালো দল। আমরা ওদের সবশেষ সিরিজটি দেখেছি।

ওদের হারাতে হলে আমাদের সেরা খেলাটাই খেলতে হবে।” ১৩ জানুয়ারি অস্ট্রেলিয়ার বিপক্ষে প্রথম অফিসিয়াল প্রস্তুতি ম্যাচ খেলবে বাংলাদেশ। এক দিন পর দ্বিতীয় ও শেষ প্রস্তুতি ম্যাচে মুখোমুখি হবে নিউ জিল্যান্ডের। চার গ্রুপের খেলা শেষে ২৮ থেকে ৩১ জানুয়ারি হবে চারটি কোয়ার্টার-ফাইনাল। ৪ ও ৬ ফেব্রুয়ারি হবে দুটি সেমি-ফাইনাল। ৯ ফেব্রুয়ারি হবে ত্রয়োদশ আসরের ফাইনাল।

 

বাংলাদেশে আসতে ভালো লাগে হাশিম আমলার
                                  

বাংলাদেশের মানুষ, পরিবেশসহ সবকিছু ভালো লাগে বলে জানিয়েছেন দক্ষিণ আফ্রিকার সাবেক ক্রিকেটার হাশিম আমলা। খুলনা টাইগার্সের হয়ে বঙ্গবন্ধু বিপিএল খেলতে এসে এমন মন্তব্য করেন তিনি।

বঙ্গবন্ধু বিপিএলে তিন পর্ব শেষে আজ বৃহস্পতিবার থেকে মাঠে গড়াচ্ছে চতুর্থ পর্ব। ঢাকা-চট্টগ্রাম-ঢাকার পর এবার খেলা শুরু হলো চায়ের দেশ সিলেটে। হাশিম আমলাকে সিলেট পর্ব থেকেই দেখা যাবে মাঠ মাতাতে। দলের সঙ্গে আজ অনুশীলনও করেছেন তিনি। 

অনুশীলন শেষে গণমাধ্যমের মুখোমুখি হয়ে আমলা বলেন, `সবসময় বাংলাদেশে আসতে ভালো লাগে। অনেক বছর হলো আসছি, এখানকার মানুষ, পরিবেশ সবকিছু অনেক ভালো লাগে। ক্রিকেটের সংস্কৃতি অনেক ভালো,  দর্শকদের কথা বলতেই হয়।`

বিপিএলের এই আসরের প্রায় শেষ ঘনিয়ে আসছে। শেষ সময়ে এসেও মানিয়ে নিতে কষ্ট হবে না বলে জানান আমলা। তার ভাষ্যমতে, ‘প্রথম দিকে আসতে না পারলেও দ্রুত মানিয়ে নেবো এবং আমার দল খুলনা টাইগার্স’র হয়ে খেলতে মুখিয়ে আছি। আসলেই আমি খুব উপভোগ করছি। জীবনের সবগুলো মুহূর্ত আসলে উপভোগ করার মতো। জাতীয় দলের হয়ে এত দিন খেলতে পেরে আমি কৃতজ্ঞ, এখন অন্যরকম সময়ে আছি। বিপিএলে খেলতে এসেছি, ভালো করতে চাইব।`

আমলা এই টুর্নামেন্টকে বিশ্বের অন্যতম সেরা লিগ হিসেবে বলেছেন। তিনি বলেন, `বিপিএল তো বিশ্বের অন্যতম সেরা টি-টুয়েন্টি লিগ, এখানে ভালো করলে সে অভিজ্ঞতা আন্তর্জাতিক ক্রিকেটেও কাজে লাগে।`

এই আসরে দুরন্ত ফর্মে রয়েছে মুশফিকের নেতৃত্বে খেলা খুলনা টাইগার্স। সাত ম্যাচ খেলে দলটির পয়েন্ট ১০। এই ধারাবাহিকতা বজায় রাখতে পারলে এক-দুইয়ে থেকে প্লে-অফে যেতে পারবেন মুশফিকরা। দলের সঙ্গে আমলার মতো কার্যকর ব্যাটসম্যান যুক্ত হওয়ায় দলটির শক্তি আরও বেড়ে যাবে নিঃসন্দেহে।

নতুন বছরে ফুটবল দল বদলের জন্য যারা উন্মুক্ত
                                  

নতুন বছর শুরুর সাথে সাথে শুধুমাত্র শীতকালীন ট্রান্সফার উইন্ডোই খুলে যায় না, বরং এই তারিখে যে সমস্ত ফুটবলারদের সাথে ক্লাবের চুক্তি গ্রীষ্মে শেষ হয়ে যাবে তারা দলবদলের জন্য উন্মুক্ত হয়ে যায়। চুক্তি শেষে তারা কোথায় যাবে এ ব্যপারে আলোচনার জন্য ক্লাবের পক্ষ থেকে তারা ফ্রি হয়ে যায়। চুক্তির শেষ ছয় মাসে অনেক ক্লাবই তাদেরকে কম অর্থে ছেড়ে দেয়, অনেকেই রেখে দেয় আবার জুনে যাবার জন্য অনেক ক্লাবই তাদের উন্মুক্ত করে দেয়।


এ বছর শীতকালীন দলবদলে বাজারে সারা ইউরোপা জুড়েই বেশ কয়েকজন তারকা আলোচনার জন্য উন্মুক্ত হয়ে গেছেন। লা লিগা, প্রিমিয়ার লিগ, সিরি-এ, বুন্দেসলিগা ও লিগ ওয়ানের বেশ কিছু তারকা খেলোয়াড়ের সাথে এ বছর চুক্তি শেষ হয়ে যাচ্ছে ক্লাবগুলোর।


২০২০ সালে চুক্তি শেষ হয়ে যাওয়া খেলোয়াড়রা হলেন :
১. ক্রিস্টিয়ান এরিকসেন (টটেনহ্যাম)
২. উইলিয়ান (চেলসি)
৩. থমাস মুলার (পিএসজি)
৪. নেমাঞ্জা ম্যাটিচ (ম্যানচেস্টার ইউনাইটেড)
৫. দ্রিয়েস মার্টিনস (নাপোলি)
৬. ব্লেইস মাতৌদি (জুভেন্টাস)
৭. এডাম লালানা (লিভারপুল)
৮. এভার বানেগা (সেভিয়া)
৯. অলিভার গিরুদ (চেলসি)
১০. এজেকুয়েল গ্যারে (ভ্যালেন্সিয়া)
১১. আর্টেম ডিজুবা (জেনিত)
১২. ইয়ান ভারটোনগেন (টটেনহ্যাম)
১৩. এরিক বেইলি (ম্যানচেস্টার ইউনাইটেড)
১৪ . মারিও গোৎশে (ডর্টমুন্ড)
১৫. থিয়াগো সিলভা (পিএসজি)
কাতালান জায়ান্টরা উইলিয়ানের জন্য দারুণ আগ্রহ প্রকাশ করেছে। অন্যদিকে মাদ্রিদের লক্ষ্য জুভেন্টাস থেকে এরিকসেনকে উড়িয়ে আনা। এ্যাথলেটিকো মাদ্রিদ ইতোমধ্যে পিএসজি থেকে এডিনসন কাভানিকে দলে নিতে আগ্রহ জানিয়েছে। স্প্যানিশ দুই তারকা পেড্রো ও ডেভিড সিলাভাকে দলে নিতেও চেলসি ও ম্যানচেস্টার সিটি আগ্রহ জানিয়েছে।

ক্রিকইনফোর দশকসেরা ওয়ানডে একাদশে সাকিব
                                  

ক্রিকেটের বাইবেল খ্যাত উইজডেন অ্যালমানাকের দশকসেরা ওয়ানডে একাদশে জায়গা হয়েছে সাকিব আল হাসানের। জুয়াড়ির প্রস্তাব গোপন করে দুই বছর নিষিদ্ধ থাকলেও দশকের অন্যতম সেরা ক্রিকেটার তিনি। তাই পারফরম্যান্সের ভিত্তিতে তাকে দশকসেরা ওয়ানডে একাদশে জায়গা দিয়েছে ক্রিকেটের ওয়েবসাইট ক্রিকইনফো। এই দশকে শুধু অলরাউন্ডার হিসেবেই নয়। ধীরে ধীরে বাংলাদেশকে ক্রিকেটের নতুন পাওয়ার হাউজ হিসেবে গড়ে তুলতে তার ভূমিকা অসামান্য। রানের পাশাপাশি দলের প্রয়োজনে উইকেট নিয়ে ভারসাম্য রেখেছেন। এই সময়ে ৩৮.৮৭ গড়ে তিনি রান করেছেন ৪ হাজার ২৭৬। বল হাতে ৩০.১৫ গড়ে নিয়েছেন ১৭৭ উইকেট! তাই তার এই একাদশে জায়গা হয়েছে অলরাউন্ডার হিসেবেই। একাদশে বিশেষজ্ঞ স্পিনার হিসেবে থাকা ইমরান তাহিরের চেয়েও তার উইকেট সংখ্যা বেশি। তাহির নিয়েছেন ১৭৩টি উইকেট।

ওয়ানডে এই একাদশটি গড়া হয়েছে ৬টি বিভিন্ন দেশের ক্রিকেটারের সমন্বয়ে। এরা হলেন−হাশিম আমলা, রোহিত শর্মা, বিরাট কোহলি, এবি ডি ভিলিয়ার্স, রস টেলর, মহেন্দ্র সিং ধোনি, ট্রেন্ট বোল্ট, মিচেল স্টার্ক, লাসিথ মালিঙ্গা ও ইমরান তাহির। যে দলটির অধিনায়ক মহেন্দ্র সিং ধোনি।


ক্রিকইনফোর দশকসেরা টেস্ট একাদশে অবশ্য বাংলাদেশের কারো জায়গা হয়নি। এই দলে রয়েছেন অ্যালিস্টার কুক, ডেভিড ওয়ার্নার, কেন উইলিয়ামসন, বিরাট কোহলি, স্টিভেন স্মিথ, বেন স্টোকস, এবি ডি ভিলিয়ার্স, রবিচন্দ্রন অশ্বিন, জেমস অ্যান্ডারসন, ডেল স্টেইন ও রঙ্গনা হেরাথ।


টি-টোয়েন্টি একাদশেও একই চিত্র। তবে এখানে ক্যারিবীয়দের ছড়াছড়ি। একাদশে আছেন ক্রিস গেইল, সুনীল নারাইন, বিরাট কোহলি, এবি ডি ভিলিয়ার্স, মহেন্দ্র সিং ধোনি, কাইরন পোলার্ড, আন্দ্রে রাসেল, ডোয়াইন ব্রাভো, রশিদ খান, লাসিথ মালিঙ্গা ও জসপ্রীত বুমরা


   Page 1 of 184
     খেলাধূলা
সালাহ চমকে লিভারপুলের জয়
.............................................................................................
মেসির গোলে জয়সূচকে বার্সেলোনা
.............................................................................................
বিসিবি সভাপতি পাকিস্তান দলের সঙ্গেই থাকবেন, খাবেন
.............................................................................................
শ্রীলংকাকে হারিয়ে সেমিফাইনালে বাংলাদেশ
.............................................................................................
বিপিএলের নতুন চ্যাম্পিয়ন রাজশাহী
.............................................................................................
ওয়ার্নার-ফিঞ্চের জোড়া সেঞ্চুরিতে ১৫বছর পর লজ্জা পেল ভারত
.............................................................................................
আইসিসির বর্ষসেরা ক্রিকেটার বেন স্টোকস
.............................................................................................
বিপিএলের প্রথম ফাইনালিস্ট হলো খুলনা টাইগার্স
.............................................................................................
ঢাকা প্লাটুনকে উড়িয়ে টিকে রইলো চট্টগ্রাম
.............................................................................................
অধিনায়কত্ব ছেড়ে দিতে প্রস্তুত মালিঙ্গা
.............................................................................................
খালেদ মাহমুদের প্রতি সেঞ্চুরিয়ান শান্তর কৃতজ্ঞতা
.............................................................................................
বিশ্ব মঞ্চে আলো ছড়াতে সম্পূর্ণ প্রস্তুত বাংলাদেশের যুবারা
.............................................................................................
বিশ্ব মঞ্চে আলো ছড়াতে সম্পূর্ণ প্রস্তুত বাংলাদেশের যুবারা
.............................................................................................
বাংলাদেশে আসতে ভালো লাগে হাশিম আমলার
.............................................................................................
নতুন বছরে ফুটবল দল বদলের জন্য যারা উন্মুক্ত
.............................................................................................
ক্রিকইনফোর দশকসেরা ওয়ানডে একাদশে সাকিব
.............................................................................................
পাকিস্তান সফরে যেতে আপত্তি নেই ডোমিঙ্গোর
.............................................................................................
বাংলাদেশের অনীহায় ভারতের ইন্ধন: রশিদ খান
.............................................................................................
মালানকে ছাপিয়ে আফিফ
.............................................................................................
মেহেদির ২৯ বলে ৫৯ রানের হিটিং চমকে ঢাকা প্লাটুনের জয়
.............................................................................................
ক্রিকেট অস্ট্রেলিয়ার দশক সেরা ওয়ানডে একাদশে সাকিব, বিকল্পে মুশফিক
.............................................................................................
লিভারপুলের প্রথমবার ক্লাব বিশ্বকাপ জয়, মোহাম্মদ সালাহ টুর্নামেন্ট সেরা
.............................................................................................
দক্ষিণ আফ্রিকা সফরে ইংল্যান্ড দলে অসুস্থতার হানা
.............................................................................................
বাংলাদেশ ছেড়ে নিজ দেশের দায়িত্ব নিচ্ছেন ল্যাঙ্গেভেল্ড
.............................................................................................
লিভারপুলকে বিধ্বস্ত করে লিগ কাপের সেমিফাইনালে এ্যাস্টন ভিলা
.............................................................................................
পারিশ্রমিক বৈষম্য নিয়ে অসন্তুষ্টি মুশফিকের
.............................................................................................
বার্সার কাছে হেরে ইন্টার মিলানের বিদায়
.............................................................................................
ক্রিকেটে স্বর্ণের পদক জিতলো বাংলাদেশ
.............................................................................................
ভারতের বিপক্ষে ৮ উইকেটে জিতলো ওয়েস্ট ইন্ডিজ
.............................................................................................
‘বঙ্গবন্ধু বিপিএল` উদ্বোধন করলেন প্রধানমন্ত্রী
.............................................................................................
বিপিএলের জমকালো উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে দেখা যায়নি কাঙ্খিত দর্শক, আগ্রহ নেই টিকিট ক্রয়ে
.............................................................................................
ভুটানকে ১০ উইকেটে হারাল বাংলাদেশ অনূর্ধ্ব-২৩ দল
.............................................................................................
বাংলাদেশ নিরপেক্ষ ভেন্যুতে খেলার বিষয়ে পাকিস্তানের সাথে আলোচনা করবে
.............................................................................................
ইতিহাসের প্রথম ফুটবলার হিসেবে ষষ্ঠবারের মতো ব্যালন ডি`অর মেসির
.............................................................................................
চট্টগ্রাম চ্যালেঞ্জার্সের জার্সিতে খেলবেন গেইল
.............................................................................................
ইংল্যান্ডের লড়াই রুট-বার্নসের সেঞ্চুরিতে
.............................................................................................
এসএ গেমসে আজ বাংলাদেশ-ভুটান লড়াই
.............................................................................................
শেষ মুহূর্তে মেসির জাদু, শীর্ষে ফিরল বার্সা
.............................................................................................
মাশরাফি হলেন ঢাকা প্লাটুনের অধিনায়ক!
.............................................................................................
পাকিস্তান সফরে পূর্ণশক্তির দল ঘোষণা করলো শ্রীলঙ্কা
.............................................................................................
মুশফিক-এ ভর করে তৃতীয় দিনে গোলাপি ইডেন গার্ডেন্স টেস্ট
.............................................................................................
ইডেন গার্ডেন্সে টস জিতে ব্যাট করার সিদ্ধান্ত নিয়েছেন বাংলাদেশ
.............................................................................................
ভেটোরি, গোলাপি বলে তাইজুলদের কাছে যা চাইছেন
.............................................................................................
সরকার টেনিস খেলাকে যথাযথ গুরুত্ব দিচ্ছে: প্রধানমন্ত্রী
.............................................................................................
টানা তৃতীয় সেঞ্চুরি হৃদয়ের, বাংলাদেশের জয়
.............................................................................................
৫ বছরের জন্য নিষিদ্ধ হলেন শাহাদাত
.............................................................................................
বিপিএল খেলে কোন ক্রিকেটার কত টাকা পাবেন
.............................................................................................
বিপর্যয়ে বাংলাদেশ
.............................................................................................
বাংলাদেশের সামনে রানের পাহাড় দাঁড় করার পথে এগিয়ে যাচ্ছে ভারত
.............................................................................................
প্রথম টেস্ট শুরু আজ : জয়ের ভাবনায় বাংলাদেশ
.............................................................................................

|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
স্বাধীন বাংলা ডট কম
মো. খয়রুল ইসলাম চৌধুরী কর্তৃক সম্পাদিত ও ঢাকা-১০০০ হতে প্রকাশিত ।

প্রধান উপদেষ্টা: ফিরোজ আহমেদ (সাবেক সচিব, বাণিজ্য মন্ত্রণালয়)
সম্পাদক মন্ডলীর সভাপতি: ডাঃ মো: হারুনুর রশীদ
ব্যবস্থাপনা সম্পাদক : মো: খায়রুজ্জামান
বার্তা সম্পাদক: মো: শরিফুল ইসলাম রানা
সহ: সম্পাদক: জুবায়ের আহমদ
বিশেষ প্রতিনিধি : মো: আকরাম খাঁন
যুক্তরাজ্য প্রতিনিধি: জুবের আহমদ
যোগাযোগ করুন: swadhinbangla24@gmail.com
    2015 @ All Right Reserved By swadhinbangla.com

Developed By: Dynamicsolution IT [01686797756]