| বাংলার জন্য ক্লিক করুন
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|

   খেলাধূলা -
                                                                                                                                                                                                                                                                                                                                 
ইরানের কাছে বাংলাদেশের বড় পরাজয় ইনডোর এশিয়া কাপ হকিতে

 বাংলাদেশ থাইল্যান্ডের চোনবুরিতে চলমান ইনডোর এশিয়া কাপ হকিতে নিজেদের দ্বিতীয় ম্যাচে বর্তমান চ্যাম্পিয়ন ইরানের কাছে ৮-০ গোলের বড় ব্যবধানে পরাজিত হয়েছে । প্রথমার্ধে বাংলাদেশ ৪-০ গোলে পিছিয়ে ছিল। দ্বিতীয়ার্ধে আরো চার গোল হজম করেছে শিটুল-জিমিরা। প্রথম তিন মিনিটে নুরানিয়ানের দু’টি ফিল্ড গোলে ২-০ গোলে পিছিয়ে যায় বাংলাদেশ। এরপর ৫ মিনিটে পেনাল্টি কর্ণার থেকে তৃতীয় গোলটি করেন নুরুজ্জাদেহ রেজা। ১৬ মিনিটে আমির মাহদীর ফিল্ড গোলে ৪-০ গোলে পিছিয়ে থেকে বিরতিতে যায় বাংলাদেশ। বিরতি থেকে ফিরে ২২ মিনিটে নুরুজ্জাদেহ পেনাল্টি কর্ণার থেকে নিজের দ্বিতীয় গোলটি করেছেন। এরপর ৩০ মিনিটে আরেকটি পেনাল্টি কর্ণার থেকে দলের পক্ষে ষষ্ঠ গোলটি করেন তাহেরিরাদ নাভিদ। ম্যাচের শেষ দুই মিনিটে নুরুজ্জাদেহ ও বেইরানভান্দ আরো দুই গোল করলে ৮-০ গোলের বড় পরাজয় নিয়ে মাঠ ছাড়তে হয়েছে বাংলাদেশকে।


আগামীকাল স্থানীয় সময় সকাল ১০টায় নিজেদের তৃতীয় ম্যাচে ফিলিপাইনের বিপক্ষে লড়বে বাংলাদেশ। এর আগে প্রথম ম্যাচে মালয়েশিয়ার বিপক্ষে ৬-০ গোলে পরাজিত হয়েছিল শিতুল বাহিনী।


উল্লেখ্য, ইনডোর এশিয়া কাপের গত ৭টি আসরেই চ্যাম্পিয়ন হবার কৃতিত্ব দেখিয়েছে ইরান। বাংলাদেশ এই প্রথমবার অংশ নিচ্ছে টুর্নামেন্টে।

ইরানের কাছে বাংলাদেশের বড় পরাজয় ইনডোর এশিয়া কাপ হকিতে
                                  

 বাংলাদেশ থাইল্যান্ডের চোনবুরিতে চলমান ইনডোর এশিয়া কাপ হকিতে নিজেদের দ্বিতীয় ম্যাচে বর্তমান চ্যাম্পিয়ন ইরানের কাছে ৮-০ গোলের বড় ব্যবধানে পরাজিত হয়েছে । প্রথমার্ধে বাংলাদেশ ৪-০ গোলে পিছিয়ে ছিল। দ্বিতীয়ার্ধে আরো চার গোল হজম করেছে শিটুল-জিমিরা। প্রথম তিন মিনিটে নুরানিয়ানের দু’টি ফিল্ড গোলে ২-০ গোলে পিছিয়ে যায় বাংলাদেশ। এরপর ৫ মিনিটে পেনাল্টি কর্ণার থেকে তৃতীয় গোলটি করেন নুরুজ্জাদেহ রেজা। ১৬ মিনিটে আমির মাহদীর ফিল্ড গোলে ৪-০ গোলে পিছিয়ে থেকে বিরতিতে যায় বাংলাদেশ। বিরতি থেকে ফিরে ২২ মিনিটে নুরুজ্জাদেহ পেনাল্টি কর্ণার থেকে নিজের দ্বিতীয় গোলটি করেছেন। এরপর ৩০ মিনিটে আরেকটি পেনাল্টি কর্ণার থেকে দলের পক্ষে ষষ্ঠ গোলটি করেন তাহেরিরাদ নাভিদ। ম্যাচের শেষ দুই মিনিটে নুরুজ্জাদেহ ও বেইরানভান্দ আরো দুই গোল করলে ৮-০ গোলের বড় পরাজয় নিয়ে মাঠ ছাড়তে হয়েছে বাংলাদেশকে।


আগামীকাল স্থানীয় সময় সকাল ১০টায় নিজেদের তৃতীয় ম্যাচে ফিলিপাইনের বিপক্ষে লড়বে বাংলাদেশ। এর আগে প্রথম ম্যাচে মালয়েশিয়ার বিপক্ষে ৬-০ গোলে পরাজিত হয়েছিল শিতুল বাহিনী।


উল্লেখ্য, ইনডোর এশিয়া কাপের গত ৭টি আসরেই চ্যাম্পিয়ন হবার কৃতিত্ব দেখিয়েছে ইরান। বাংলাদেশ এই প্রথমবার অংশ নিচ্ছে টুর্নামেন্টে।

বসুন্ধরার বড় জয় মতিনের হ্যাটট্রিকে
                                  

 বাংলাদেশ প্রিমিয়ার লিগের দ্বিতীয় পর্বে মতিন মিয়ার হ্যাটট্রিকে ব্রাদার্স ইউনিয়নকে উড়িয়ে দিয়েছে বসুন্ধরা কিংস। নোয়াখালীতে রাফায়েল ওডোইনের হ্যাটট্রিকে নোফেল স্পোর্টিং ক্লাবকে হারিয়েছে শেখ রাসেল ক্রীড়া চক্র।


নীলফামারীর শেখ কামাল স্টেডিয়ামে মঙ্গলবার ৫-০ গোলে জিতে বসুন্ধরা। দলের জয়ে অপর দুই গোলদাতা মোহাম্মদ ইব্রাহিম ও আলমগীর কবির রানা।
৩২তম মিনিটে সতীর্থের বাড়ানো বল ধরে বাঁ দিক দিয়ে ডি-বক্সে ঢুকে দারুণ শটে প্রথম পর্বে ব্রাদার্সকে ২-০ গোলে হারানো বসুন্ধরাকে এগিয়ে নেন ইব্রাহিম।
সাত মিনিট পর দেনিয়েল কলিনদ্রেস সোলেরার ক্রসে মার্কোস দি সিলভা হেড করার পর মতিন হেডেই ব্যবধান দ্বিগুণ করেন। দ্বিতীয়ার্ধের শুরুতে ডি-বক্সের জটলার ভেতর থেকে ব্যবধান আরও বাড়ান জাতীয় দলের এই ফরোয়ার্ড।


৬৭তম মিনিটে বখতিয়ার দুইশবেকভের ছোট করে বাড়ানো বল প্লেসিং শটে হ্যাটট্রিক পূরণ করেন মতিন। দ্বিতীয়ার্ধের যোগ করা সময়ে সোলেরার পাস ধরে ছোট ডি-বক্সের বাঁ প্রান্ত থেকে ব্যবধান আরও বাড়ান রানা।


২০ ম্যাচে ১৯ জয় ও এক ড্রয়ে ৫৮ পয়েন্ট নিয়ে শীর্ষে আছে বসুন্ধরা। ব্রাদার্সের পয়েন্ট ১৬।
মঙ্গলবার অন্য ম্যাচে নোয়াখালীর শহীদ ভুলু স্টেডিয়ামে নাইজেরিয়ান ফরোয়ার্ড ওডোইনের হ্যাটট্রিকে নোফেলকে ৪-০ গোলে হারানো শেখ রাসেল ২০ ম্যাচে ৪২ পয়েন্ট নিয়ে তৃতীয় স্থানে রয়েছে।


বঙ্গবন্ধু জাতীয় স্টেডিয়ামে টিম বিজেএমসিকে ৩-২ গোলে হারানো রহমতগঞ্জ মুসলিম ফ্রেন্ডস অ্যান্ড সোসাইটির পয়েন্ট ১৯। টানা পঞ্চম হারের স্বাদ পাওয়া বিজেএমসি ৮ পয়েন্ট নিয়ে তলানিতে রয়েছে।
গোপালগঞ্জের শেখ ফজলুল হক মনি স্টেডিয়ামে মুক্তিযোদ্ধা সংসদ ক্রীড়া চক্র ও আরামবাগ ক্রীড়া সংঘ ১-১ ড্র করেছে। ২১ ম্যাচে ২৭ পয়েন্ট আরামবাগের। এক ম্যাচ কম খেলা মুক্তিযোদ্ধা সংসদের পয়েন্ট ২২।

যে কারণে এনামুল-তাইজুলকে ফেরানো
                                  

শ্রীলঙ্কা সফরে সাকিব-লিটন ছুটিতে থাকায় এনামুল-তাইজুল সুযোগ পেয়েছেন । দুজনই ওয়ানডে দলে জায়গা পেলেন লম্বা বিরতিতে। তাঁর দলে নেওয়ার ব্যাখ্যা দিয়েছেন প্রধান নির্বাচক মিনহাজুল আবেদীন


এনামুল হক-তাইজুল ইসলাম দুজনই ভীষণ চেষ্টা করেছিলেন বিশ্বকাপ দলে থাকার। থাকতে পারেননি। দুজন এক সঙ্গেই ফিরলেন ওয়ানডে দলে, তবে সেটি বিশ্বকাপ-পরবর্তী সিরিজে।
গত ডিসেম্বরে জিম্বাবুয়ে-ওয়েস্ট ইন্ডিজের বিপক্ষে টেস্টে খুব ভালো বোলিং করার পর তাইজুল বলছিলেন, ছন্দটা তিনি বিপিএলেও ধরে রাখতে চান। বিপিএলে ভালো করতে পারলে তাঁর ধারণা ছিল বিশ্বকাপ দলে ঠাঁই পাবেন। লক্ষ্যটা তাঁর পূরণ হয়নি। এনামুল ঢাকা প্রিমিয়ার লিগে সেঞ্চুরির হ্যাটট্রিক করার পর যখন শুনলেন বিশ্বকাপে দলে জায়গা পাওয়ার সম্ভাবনাই নেইÑভীষণ হতোদ্যমই হয়ে পড়েছিলেন।


বাংলাদেশের বিশ্বকাপ দল বেশ আগ থেকেই তৈরি হয়ে গিয়েছিল। টপ অর্ডারে লিটন দাস-সৌম্য সরকার জায়গা নিশ্চিত করে ফেলায় এনামুলের সুযোগ ছিল না। সাকিব আল হাসান থাকায় ইংলিশ কন্ডিশনে তাইজুলের মতো আরেকজন বাঁহাতি স্পিনার রাখারও প্রয়োজন মনে করেননি নির্বাচকেরা। শ্রীলঙ্কা সিরিজে সাকিব বিশ্রামে, লিটন ছুটি নিয়েছেন ব্যক্তিগত কারণে। এতেই ভাগ্য খুলেছে এনামুল আর তাইজুলের।
এনামুল বাংলাদেশ ওয়ানডে দলে ফিরলেন এক বছর পর। আর তাইজুল ফিরলেন আড়াই বছর পর। সবশেষ রঙিন পোশাকে এ বাঁহাতি স্পিনার খেলেছেন ২০১৬ সালের সেপ্টেম্বরে। তবে গত কদিনে দুজনের পারফরম্যান্স নির্বাচকদের অনুপ্রাণিত করেছে তাঁদের দলে অন্তর্ভুক্ত করতে। গত সপ্তাহে এনামুল খুলনায় আফগানিস্তান ‘এ’ দলের বিপক্ষে খেলেছেন অপরাজিত ১২১ রানের ইনিংস। আর তাইজুল বাংলাদেশ ক্রিকেট বোর্ড (বিসিবি) একাদশের হয়ে বিদর্ভ ক্রিকেট অ্যাসোসিয়েশনের বিপক্ষে পেয়েছেন ইনিংসে ৮ উইকেট।


দুজনকে শ্রীলঙ্কা সফরে সুযোগ দেওয়া প্রসঙ্গে প্রধান নির্বাচক মিনহাজুল আবেদীনের ব্যাখ্যা, ‘একজন বাঁহাতি স্পিনার দরকার, এ কারণে তাইজুল ইসলাম যাচ্ছে। আর এনামুল হক যাচ্ছে লিটনের জায়গায়। ঘরোয়া ক্রিকেটে ও ধারাবাহিক ভালো খেলছে। সব সংস্করণেই ভালো খেলছে। এ দল, এইচপি কোচদের কাছে তার (এনামুল) সম্পর্কে ইতিবাচক রিপোর্ট পেয়েছি।’
এনামুলকে নিতে আরও একটি গুরুত্বপূর্ণ বিষয় কাজ করেছে। টপ অর্ডারে তামিম-সৌম্য দুজনই বাঁহাতি হওয়ায় একজন ডানহাতি ব্যাটসম্যান অন্তর্ভুক্ত করতে উৎসাহিত করেছে বলে জানালেন মিনহাজুল, ‘টপ অর্ডারে আমাদের একজন অভিজ্ঞ ব্যাটসম্যান দরকার ছিল। টপ অর্ডারে দুজনই বাঁহাতি (তামিম-সৌম্য), একজন ডানহাতি ব্যাটসম্যান আমাদের দরকার ছিল।’
বিশ্বকাপে বাংলাদেশ গিয়েছিল চোট-চিন্তা নিয়ে। টুর্নামেন্ট থেকে ফিরেও এ চিন্তা থেকে মুক্ত হতে পারেনি টিম ম্যানেজমেন্ট। মাহমুদউল্লাহ, মুশফিকুর রহিম পুরো সেরে উঠেছেন কি না, সেটি এখনো নিশ্চিত হওয়া যায়নি। তবে মিনহাজুল আশাবাদী, শ্রীলঙ্কায় সিরিজ শুরু হওয়ার আগে সবাই শত ভাগ ফিট হয়ে যাবেন।


বিশ্বকাপের ক্লান্তি না কাটতেই আরেকটা সিরিজ হলেও বাংলাদেশ এটি গুরুত্বের সঙ্গেই নিচ্ছে। বিশ্বকাপের ব্যর্থতা কাটিয়ে ওঠাই শুধু নয়, ওয়ানডে র‌্যাঙ্কিংয়ে নিজেদের অবস্থান শক্ত রাখতে এ সিরিজে ভালো করতে হবে।

 

ফাইনালে টাই হলে যৌথভাবে শিরোপা দেওয়া উচিৎ: কিউই কোচ
                                  

 নিউ জিল্যান্ডের কোচ গ্যারি স্টেড মনে করেন ভবিষ্যতে বিশ্বকাপের ফাইনাল টাই হলে দুই দলকে যৌথভাবে শিরোপা দেওয়ার কথা ক্রিকেট কর্তাদের বিবেচনা করা উচিত বলে।
রোববার লর্ডসে নিউ জিল্যান্ড ও ইংল্যান্ডের মধ্যে নাটকীয় ফাইনালে মূল ম্যাচ ও সুপার ওভার টাই হওয়ার পর মোট বাউন্ডারির হিসেবে এগিয়ে থেকে প্রথমবার ওয়ানডে বিশ্বকাপ জিতে স্বাগতিকরা। ফাইনালের ফলাফল নির্ধারণের নিয়মগুলো নতুন করে বিবেচনা করা উচিত বলে মনে করেন স্টেড।


“আমি নিশ্চিত যখন তারা নিয়মগুলো লিখছিলেন, তখন তারা কখনোই এমন একটা বিশ্বকাপের ফাইনাল প্রত্যাশা করেননি। আমি নিশ্চিত যে এটা পুনর্বিবেচনা করা হবে।”
ট্রফি ভাগাভাগি প্রসঙ্গে স্টেড বলেন, “সম্ভবত যখন আপনি সাত সপ্তাহের বেশি সময় ধরে খেলেন এবং চূড়ান্ত দিনেও আপনাকে আলাদা করা যায় না, তখন সেটা (ট্রফি ভাগাভাগি) বিবেচনা করা উচিত হবে।”


এভাবে ফাইনালে হারের পর নিজের অনুভূতিও তুলে ধরেন স্টেড।
“এটা খুব খুব শূন্যতার অনুভূতি যে আপনি ১০০ ওভার খেলে সমান রান করলেও ম্যাচ হারতে পারেন - কিন্তু এটা খেলার নিয়ম-কানুন।”
“এখানে সাত সপ্তাহ ধরে সত্যি দারুণ ক্রিকেট খেললাম। অনেক দিন ধরে এটা মনে দগদগে হয়ে থাকবে।”
নিউ জিল্যান্ডের আরও দুর্ভাগ্য ইংল্যান্ডকে তাদের ইনিংসের শেষ ওভারে এক রান অতিরিক্ত দেওয়া হয়।


দ্বিতীয় রান পূর্ণ করার সময়ে ডাইভ দেওয়া বেন স্টোকসের ব্যাটে লেগে ফিল্ডারের থ্রো করা বল বাউন্ডারির বাইরে গেলে ইংল্যান্ডকে ছয় রান দেওয়া হয়। কিন্তু আইন অনুযায়ী হওয়ার কথা পাঁচ। তবে এ নিয়ে মন্তব্য করতে রাজি নন স্টেড।
“সত্যি বলতে আমি সেটা জানতাম না। নির্দেশনা দেওয়ার জন্য সেখানে আম্পায়াররা ছিলেন। আর তারাও মানুষ। খেলোয়াড়দের মতো তাদেরও কখনও কখনও ভুল হয়।”

 

ওয়ানডে ইতিহাসের সেরা ম্যাচ?
                                  

 ফাইনালের শেষ মুহূর্তগুলোর উত্তেজনা ধারাভাষ্য কক্ষ থেকে যার কণ্ঠে হয়ে উঠেছিল আরও প্রাণবন্ত, সেই ইয়ান স্মিথ পরে বলছিলেন, “শত শত বছরের ক্রিকেট ইতিহাস, নাটকীয়তায় এই ম্যাচের তুলনীয় কোনোটি আছে?” এই প্রশ্ন, এই কৌতূহল থাকার কথা বিশ্বজুড়ে আরও শত কোটি ক্রিকেট অনুসারীর। উত্তরগুলো শেষ পর্যন্ত গিয়ে হয়তো মিলবে একটি উপসংহারে, ওয়ানডে ইতিহাসের সেরা ম্যাচ এটিই!


সেরা কিছুর বাছাই যে কোনো ক্ষেত্রেই ডেকে আনে তর্ক। সেরা ক্রিকেট ম্যাচের তো সুনির্দিষ্ট মানদ- ঠিক করাও কঠিন। তার পরও উপলক্ষের বিশালত্ব, ক্রিকেটের মান, উত্তেজনা, নাটকীয়তা ও শেষের ফল, সব কিছু মিলিয়ে এতদিন ধরে ওয়ানডে ইতিহাসের সেরা ম্যাচ অনেকের মতেই ছিল ২০ বছর আগের একটি ম্যাচ। সেটিও ছিল ইংল্যান্ডে এবং বিশ্বকাপের ম্যাচ!
১৯৯৯ বিশ্বকাপের দ্বিতীয় সেমি-ফাইনালে এজবাস্টনে মুখোমুখি হয়েছিল দক্ষিণ আফ্রিকা ও অস্ট্রেলিয়া। এবারের মতোই নাটকীয়তার অনেক ধাপ পেরিয়ে সেই ম্যাচ হয়েছিল টাই। সেবারও ম্যাচ শেষ হয়েছিল রান আউটে। এবং এবারের ফাইনালের মতোই টাই ম্যাচের ফলে উচ্ছ্বাসে ভেসেছিল এক দল, আরেক দলের ভেঙে গিয়েছিল হৃদয়!
ম্যাচ টাই হলেও আগের রাউন্ডে (সুপার সিক্স) পয়েন্ট টেবিলে দক্ষিণ আফ্রিকার চেয়ে এগিয়ে থাকায় অস্ট্রেলিয়া উঠে গিয়েছিল ফাইনালে। সেই এগিয়ে থাকাও ছিল সামান্য ব্যবধানে। দুই দলেরই পয়েন্ট ছিল সমান। রান রেটে কেবল খানিকটা এগিয়ে ছিল অস্ট্রেলিয়া।


নাটকীয়তা বা উত্তেজনা, সব দিক থেকেই এবারের ম্যাচ ছাড়িয়ে গেছে সেই ম্যাচকে। মঞ্চ এবার আরও বড়, ক্রিকেট তীর্থ লর্ডসে বিশ্বকাপের ফাইনাল। ৩০ হাজার দর্শকে ঠাসা গ্যালারি। দুই দলের একটি স্বাগতিক, তাই আবহও অন্যরকম।
সেবার শেষ ওভারে ল্যান্স ক্লুজনারের দুটি বাউন্ডারির পরও শেষ পর্যন্ত পাগলাটে একটি রান আউটে জিততে পারেনি দক্ষিণ আফ্রিকা। এবার শেষ ওভারে ১৫ রানের সমীকরণে প্রথম দুটি বল ডট। পরের দুটি বল থেকেই এলো ৬ করে, যার একটি সীমানা পেরিয়েছে মাটি ছুঁয়ে!


ছক্কাটি ছিল দুর্দান্ত। ট্রেন্ট বোল্টের ফুল লেংথ স্লোয়ারকে স্লগ করে গ্যালারিতে ফেলেন বেন স্টোকস। পরের বল ফুল টস, স্টোকস খেললেন মিড উইকেট। স্ট্রাইক রাখতে দুই রান চাই-ই চাই। মরিয়া স্টোকস ছুটলেন। ফিল্ডার মার্টিন গাপটিল থ্রো করলেন। বল ছুটল স্টাম্পের দিকে। নিজেকে বাঁচাতে ডাইভ দিলেন স্টোকস। বল তার ব্যাটে লেগে ছুটে গেল বাউন্ডারিতে। দৌড়ে ২ এবং ওই চার মিলিয়ে ৬ রান! শেষ দুই বলে যখন প্রয়োজন ৩, দুটিতেই দুই রানের চেষ্টায় দুটি রান আউট। একটি করে রান হওয়ায় ম্যাচ টাই।
এজবাস্টনের ম্যাচকে ছাড়িয়ে যেতে হয়তো যথেষ্ট ছিল এটুকুই। কিন্তু নাটকীয়তার অনেক তখনও বাকি! ২০ বছর আগে সুপার ওভারের অস্তিত্ব না থাকলেও এখন এটি খুবই স্বাভাবিক। ম্যাচ গড়াল সুপার ওভারে। সেখানেও টাই, একই ম্যাচে দুইবার স্কোর সমান। এবং এবারও ম্যাচ টাই হলো শেষ বলে রান আউটে!
শেষ পর্যন্ত শিরোপার ফয়সালা হলো বাউন্ডারিতে, যেখানে এগিয়ে থেকে চ্যাম্পিয়ন ইংল্যান্ড।
এক ম্যাচেই দুই দফায় টাই, অবিশ্বাস্য নাটকীয়তা, দুই দলের ক্রিকেটারদের স্কিল, ফিটনেস ও মানসিক শক্তির চূড়ান্ত পরীক্ষা, একাত্ম হয়ে যাওয়া গ্যালারি, সব কিছু মিলিয়ে এই ফাইনাল অন্য সব ম্যাচকে পেছনে ফেলে দেওয়ার কথা খুব সংশয় ছাড়াই।


বর্তমান-সাবেক অনেক ক্রিকেটারের ট্ইুটার প্রতিক্রিয়াও সাক্ষ্য দিচ্ছে এই ম্যাচের পক্ষে। ইংল্যান্ডের টেস্ট দলের পেসার ও সিনিয়র ক্রিকেটার স্টুয়ার্ট ব্রড লিখেছেন, “সাদা বলের ক্রিকেটে সর্বকালের সেরা ম্যাচ।” সাবেক অফ স্পিনার ও এখনকার ধারাভাষ্যকার গ্রায়েম সোয়ানের কাছে, “জীবনে দেখা শ্রেষ্ঠতম ম্যাচ।”
দুইবারের বিশ্বকাপ জয়ী, ক্যারিবিয়ান কিংবদন্তি ভিভ রিচার্ডস বলছেন, “ক্রিকেট ইতিহাসের অন্যতম সেরা ম্যাচ।”


ওয়েন মর্গ্যানের কথার সুরও অনেকটা এ রকমই। সেরার তুলনায় না গেলেও ম্যাচ শেষে ইংল্যান্ড অধিনায়ক এটিকে বললেন সবচেয়ে অবিশ্বাস্য ম্যাচ।
“আবেগ আমাকে যথেষ্টই ছুঁয়ে গেছে। এখনও বিশ্বাস করতে পারছি না, তাই আবেগটা যতটা সম্ভব ধরে রাখছি। এখনও বিশ্বাস করতে পারছি না, আমরা পেরে গেছি শেষ পর্যন্ত। অসাধারণ একটি দিন ছিল এটি। আপনারাও দেখেছেন, সবচেয়ে অবিশ্বাস্য ক্রিকেট ম্যাচ, যেখানে দুই দলকে আলাদা করার মতো কিছুই ছিল না।”
“আমার মনে হয়, সূক্ষ্মতম ব্যবধান ছিল আজ এবং এটি যে কোনো দিকেই যেতে পারত। সৌভাগ্যবশত, আমাদের দিকে এসেছে।”
বিশ্বাস করতে, মেনে নিতে কষ্ট হচ্ছিল কেন উইলিয়ামসনেরও। নিউ জিল্যান্ড অধিনায়ক মজা করে বললেন, কিভাবে একটি দল জিতল, বুঝেও উঠতে পারছেন না।
“একটি-দুটি দিকে যদি তাকাই, ব্যবধান এত সূক্ষ্ম ছিল যে ব্যাপারটি শেষ পর্যন্ত এমন জায়গায় গিয়েছে, যেখানে আমি জানি না... কিভাবে তারা জিতল? বাউন্ডারিতে বা এমন কিছুতে!(হাসি) কোনো একটি দলকে শিরোপা পেতেই হতো। আমি হতাশ যে সেই দলটি আমরা নই।”


২০ বছর আগের সেই সেমি-ফাইনাল নিয়ে যেমন কথা হয় এখনও, ইংল্যান্ড-নিউ জিল্যান্ড এই ফাইনাল নিয়েও নিশ্চিতভাবেই চর্চা হবে বছরের পর বছর। আসবে আরও অনেক ম্যাচ। যুক্তি-তর্কের খ-ন বা আলোচনা চলবে। কিন্তু এখনও পর্যন্ত যে ৪ হাজার ১৯২ টি ম্যাচ দেখেছে ওয়ানডে ক্রিকেটে, এই ফাইনালের মতো কোনো ম্যাচ হয়নি, এটি নিশ্চিত।

 

বিশ্বকাপ সেরা একাদশে সাকিব
                                  

বিশ্বকাপ নিয়ে মাতামাতি শেষ। ক্রিকেটের তীর্থভূমি লর্ডসে ইংল্যান্ডের ট্রফি জয়ের মধ্য দিয়ে পর্দা নেমেছে ২০১৯ ক্রিকেট বিশ্বকাপ। এরপরই আজ সোমবার বিশ্বকাপের সেরা একাদশ ঘোষণা করে আইসিসি। ব্যাটে-বলে দুর্দান্ত পারফর্মেন্সের মাধ্যমে এই একাদশে জায়গা নিয়েছেন সাকিব আল হাসান।

তবে জায়গা পাননি ভারতের অধিনায়ক বিরাট কোহলি। সেমিফাইনালে নিউজিল্যান্ডের বিপক্ষে বিব্রতকর ব্যাটিংয়ে বাদ পড়ে যায় ২০১১ সালের চ্যাম্পিয়নরা। এদিন ব্যাট হাতে ব্যর্থ ছিলেন কোহলিও, তার ব্যাট থেকে মাত্র এক রান আসে।

বিশ্বকাপ একাদশের অধিনায়ক চ্যাম্পিয়ন ইংল্যান্ডের মরগ্যান নয়, রানার্সআপ নিউজিল্যান্ডের অধিনায়ক কেন উলিয়ামসন। একাদশে ইংল্যান্ডের জেসন রয়, জো রুট, বেন স্টোকস ও জোফরা আর্চার জায়গা পেয়েছেন। ভারত থেকে রোহিত শর্মা ও যসপ্রীত বুমরাহ, বাংলাদেশ থেকে সাকিব আল হাসান জায়গা করে নিয়েছেন।

রানার্স আপ নিউজিল্যান্ড থেকে জায়গা পেয়েছেন কেন উলিয়ামসন ও লকি ফার্গুসন। দ্বাদশ খেলোয়াড় হিসেবে জায়গা করে নিয়েছেন ট্রেন্ট বোল্ট। এ ছাড়া অস্ট্রেলিয়া থেকে মিচেল স্টার্ক ও অ্যালেক্স কারে জায়গা পেয়েছেন বিশ্বকাপ একাদশে।

বিশ্বকাপ একাদশ : কেন উইলিয়ামসন, রোহিত শর্মা, জেসন রয়, জো রুট, সাকিব আল হাসান, বেন স্টোকস, অ্যালেক্স কারে, লকি ফার্গুসন, মিচেল স্টার্ক, যসপ্রীত বুমরাহ ও জোফরা আর্চার, ট্রেন্ট বোল্ট (অতিরিক্ত)।

আকাঙ্খার বিশ্বকাপে চ্যাম্পিয়ন ইংল্যান্ড
                                  

ক্রিকেটের ইতিহাসে এমন রোমাঞ্চকর ম্যাচ হয়েছে কি না, তা বোদ্ধারাই বলতে পারবেন। তবে লর্ডস যে নিঃসন্দেহে একটা ইতিহাসের সাক্ষী হয়ে থাকল, তা বলার অপেক্ষা রাখে না। সেই ঐতিহাসিক ম্যাচে শেষ হাসি হাসল ইংল্যান্ড। সেই সুবাদে প্রথমবারের মতো আইসিসি বিশ্বকাপ ঘরে তুলতে সক্ষম হলো ক্রিকেটের উদ্ভাবক এই জাতি।

লর্ডসে রবিবার টস জিতে শুরুতে ব্যাট করে নিউজিল্যান্ড নির্ধারিত ওভারে ৮ উইকেটে ২৪১ রান করে। জবাবে ৫০ ওভারে সবক’টি উইকেট হারিয়ে ইংল্যান্ডও করে সমান রান।

তাই নিয়ম অনুযায়ী ম্যাচটি করে গড়ায় সুপার ওভারে। সুপার ওভারেও দুই দল সমান ১৫ রান করে সংগ্রহ করে। তাই সুপার ওভারের খেলাও টাই হয়। তবে বাউন্ডারি বেশি থাকায় ইংল্যান্ড জিতে নেয় শিরোপা। মূল ইনিংস ও সুপার ওভার মিলে ইংল্যান্ড ২৬ ও নিউজিল্যান্ড ১৭টি বাউন্ডারি হাঁকায়। সেই ২৬-১৭ ব্যবধানেই জয় নিশ্চিত হলো ইংলিশদের।

তাই চতুর্থবারের মতো ফাইনালে ওঠে শিরোপা জিততে সক্ষম হলো ইংল্যান্ড। এর আগে ১৯৭৯, ১৯৮৭ ও ১৯৯২ সালে ফাইনালে ওঠলেও এবারই প্রথম শিরোপার মুখ দেখল তারা। আর গত আসরে রানার্সআপ নিউজিল্যান্ডকে এবারও ফিরতে হলো একই ফল নিয়ে।

লর্ডসে রবিবার টস জিতে শুরুতে ব্যাট করতে নেমে নিউজিল্যান্ড নির্ধারিত ওভার শেষে ৮ উইকেটে ২৪১ রান করেছে। হেনরি নিকোলস সর্বোচ্চ ৫৫, টম লাথাম ৪৭ ও কেন উইলিয়ামসন ৩০ রান করে। ইংলিশ বোলারদের মধ্যে ক্রিস ওকস ও লিয়াম প্লাঙ্কেট তিনটি করে উইকেট নেন।

জয়ের জন্য ২৪২ রানের লক্ষ্যে খেলতে নেমে ৮৬ রানের মধ্যে চার উইকেট হারিয়ে চরম বিপদে পড়ে স্বাগতিক ইংল্যান্ড। সেখান থেকে জোস বাটলার ও বেন স্টোকসের ১১০ রানের জুটিতে দারুণভাবে ঘুরে দাঁড়ায় তারা। এই দুজন পঞ্চম উইকেটে ১১০ রানের জুটি গড়ে দলকে লড়াইয়ে রাখতে সক্ষম হন। তবে এরপর ৫৯ করে বাটলার ফিরে গেলেও শেষ পর্বযন্ত থাকেন স্টোকস। ৮৪ রানের দারুণ ইনিংস খেলৈ হয়েছেন ম্যাচসেরাও। ৩৬ রান করেছেন জনি বেয়ারস্ট। তিনটি করে উইকেট নেন জিমি নিশাম ও লুকি ফার্গুসন।

বেন স্টোকস টিকে থাকায় শেষ বল পর্যন্ত খেলায় টিকে থাকে ইংল্যান্ড। তবে ইনিংস শেষে ‍দুই দলের স্কোর সমান হয়ে যাওয়ায় ম্যাচ গড়ায় সুপার ওভারে। সুপার ওভারে শুরুতে ব্যাট হাতে নেমে এক ওভারে ১৫ রান করেন দুই ইংলিশ ব্যাটসম্যান জোস বাটলার ও বেন স্টোকস। ৬ বল থেকে তারা করেন যথাক্রমে ৩, ১, ৪, ১, ২ ও ৪।

জয়ের জন্য ১৬ রানের লক্ষ্যে খেলতে নামে দুই কিউই ব্যাটসম্যান মার্টিন গাপটিল ও জিমি নিশাম। আর বল করেন ইংল্যান্ডের জোফ্রা আর্চার। প্রথম তিন বল থেকে ১১ রান করা নিউজিল্যান্ড তিন বলে আর সেভাবে আগাতে পারেনি। যে কারণে শেষ পর্যন্ত সমান ১৫ রানে থেমেছে কিউইরাও। আর তাই আইসিসির নিয়ম অনুযায়ী ফাইনালে সর্বোচ্চ বাউন্ডারি হাঁকানো দল হিসেবে ইংল্যান্ড জিতে নেয় শিরোপা।

খালেদ মাহমুদ জাতীয় দলের স্থায়ী কোচ হতে চান
                                  

 স্টিভ রোডস চলে যাওয়ার পর বাংলাদেশ দলের কোচের পদ আপাতত শূন্য। আগেও অস্থায়ী ভিত্তিতে কোচের দায়িত্ব পালন করা খালেদ মাহমুদ এবার স্থায়ীভাবেই কোচের দায়িত্ব পালন করতে চান। বাংলাদেশ দলের কোচ হওয়ার জন্য বাকি দায়িত্বগুলো বিসর্জন দিতে রাজি


স্টিভ রোডসের বিদায়ের পর শূন্য হয়ে পড়া দলের প্রধান কোচের জায়গাটা যে শ্রীলঙ্কা সফরের আগে পূরণ হচ্ছে না, এটি মোটামুটি নিশ্চিত। সংক্ষিপ্ত সময়ে প্রধান কোচ পাওয়া কঠিন বলেই নিদাহাস ট্রফির মতো এবারও বাংলাদেশ শ্রীলঙ্কায় যেতে পারে অন্তর্বর্তী কোচের ওপর ভরসা করে। কে হবেন অন্তর্বর্তী কোচ, সেটিও জানা যায়নি এখনো। অন্তর্বর্তী কোচ হিসেবে এবারও এসেছে খালেদ মাহমুদের নাম। তবে মাহমুদ জানালেন, অস্থায়ী ভিত্তিতে আর নয়, এবার স্থায়ীভাবেই কোচ হতে চান তিনি।


কোচ প্রসঙ্গে বিসিবির মিডিয়া কমিটির প্রধান জালাল ইউনুস বললেন, ‘২২ জুলাই বোর্ড সভায় আলোচনা হবে কোচ প্রসঙ্গে। তার আগে এটি নিয়ে কিছু বলার উপায় নেই।’ বাংলাদেশ শ্রীলঙ্কায় রওনা দেবে ২০ জুলাই, সংক্ষিপ্ত সময়ে নতুন কোচ পাওয়া কঠিন বলে বোর্ড সভার আগেই মাশরাফিদের তাই রওনা দিতে হচ্ছে অন্তর্বর্তীকালীন কোচ নিয়ে।খালেদ মাহমুদ চান লম্বা সময়ের জন্য বাংলাদেশের কোচ হতে।


খালেদ মাহমুদ চান লম্বা সময়ের জন্য বাংলাদেশের কোচ হতে। প্রথম আলো ফাইল ছবি
অন্তর্বর্তীকালীন কোচ হিসেবে ২০১৮ সালে ঘরের মাঠে শ্রীলঙ্কার বিপক্ষে সিরিজে দায়িত্ব পালন করেছিলেন মাহমুদ। সেই অভিজ্ঞতা সুখকর নয় বলে মাহমুদ এবার আর সংক্ষিপ্ত সময়ের জন্য দায়িত্বটা নিতে চান না, ‘আমাকে এমন কিছু বলেনি। তবে অন্তর্বর্তীকালীন কোচ হিসেবে আমার কথা অনেকে বলছে। স্বল্প সময়ের জন্য আমার এ দায়িত্ব নেওয়া ইচ্ছে নেই। যদি লম্বা সময়ের জন্য দেয়, তাহলে অবশ্যই করব।’


লম্বা সময় বলতে আগামি ২০২৩ বিশ্বকাপ; সেটি না হলেও অন্তত আগামি ২০২০ টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপ পর্যন্ত দায়িত্বটা চান তিনি। খালেদ মাহমুদ লম্বা সময়ের কোচিংয়ের দায়িত্ব নিলে স্বার্থের দ্বন্দ্ব চলে আসবে অবধারিতভাবে। স্বার্থের এ দ্বন্দ্ব এসেছিল ২০১৮ সালে শ্রীলঙ্কা সিরিজেও। মাহমুদ একই সঙ্গে বিসিবির পরিচালক, গেম ডেভেলপমেন্ট কমিটির প্রধান, ক্রিকেট পরিচালনা কমিটির ভাইস চেয়ারম্যান, ঘরোয়া ক্রিকেটের তিনটি দল ও একটি একাডেমির কোচ, ক্রিকেটারদের সংগঠন কোয়াবের সহসভাপতি এবং জাতীয় দলের ম্যানেজার।
মাহমুদ বললেন, লম্বা মেয়াদে যদি বাংলাদেশ দলের কোচ হওয়ার প্রস্তাব তাঁর কাছে আসে, তাহলে স্বার্থের দ্বন্দ্ব হয় এমন কোনো দায়িত্বে থাকবেন না, ‘লম্বা মেয়াদে কোচের দায়িত্ব পেলে আমার বোর্ডের পরিচালক হিসেবে থাকার কথা না। আমাকে একটাই বেছে নিতে হবে। এখন আসলে এসব নিয়ে কথা বলা কঠিন। বোর্ডের সঙ্গে চুক্তি হলে তখন এসব নিয়ে বিস্তারিত কথা বলা যায়।’

‘কোচ বদলায়, বোর্ড বদলায় না!
                                  

 বিশ্বকাপে আশানুরূপ ফল না হওয়া, সঙ্গে খেলোয়াড়দের শাসন করতে না পারার(!) দায়ে জাতীয় ক্রিকেট দলের প্রধান কোচ স্টিভ রোডসকে বিদায় জানিয়েছে বাংলাদেশ ক্রিকেট বোর্ড (বিসিবি)। পেস বোলিং কোচ কোর্টনি ওয়ালশের সঙ্গেও চুক্তির মেয়াদ বাড়ানো হচ্ছে না। ছাটাইয়ের তালিকায় আছেন ফিজিও থিহান চন্দ্রমোহনও। শোনা যাচ্ছে স্পিন বোলিং কোচ সুনীল যোশীকেও বিদায় জানাতে পারে বিসিবি। অর্থাৎ, টাইগারদের কোচিং স্টাফদের বড় অংশই বদলে ফেলছে বিসিবি।


আইপিএল-বিগব্যাশের যুগে হাই প্রোফাইল কোচ পাওয়া বেশ কষ্টসাধ্য, তা ভালোই বোঝেন বিসিবি কর্তারা। তবু, নানা সমালোচনা সত্ত্বেও বছরে বছরে কোচ বদলানোর ঘটনা ঘটছেই। এতে ক্ষুব্ধ দেশের ক্রিকেটপ্রেমীরা।


সমালোচকদের দলে এবার যোগ দিয়েছেন বিসিবির সাবেক সভাপতি সাবের হোসেন চৌধুরী। বারবার কোচ বদলালেও যারা তাদের নিয়োগ দিচ্ছেন, সে কর্তাদের মধ্যে কোনো পরিবর্তন হয় না কেন, এ নিয়ে প্রশ্ন তুলেছেন তিনি।


সম্প্রতি টুইটারে সাবের হোসেন চৌধুরী লিখেছেন, গত আট বছরে ছয় হেড কোচকে বিদায় করেছে বিসিবি- সিডন্স, ল, পাইবাস, জার্গেনসন, হাতুরেসিংহে, রোডস। কোচরা আসে-যায়, কিন্তু যারা তাদের পছন্দ করে নিয়োগ দেন, তারা থেকে যান। বোর্ড কেন জবাবদিহিতার বাইরে থাকবে?


১৯৯৬ থেকে ২০০১ সাল পর্যন্ত বাংলাদেশ ক্রিকেট বোর্ডের সভাপতির দায়িত্ব পালন করেছেন সাবের হোসেন চৌধুরী। তার সময়কালীন ২০০০ সালের জুন মাসে বাংলাদেশ আইসিসির পূর্ণ সদস্য পদ ও টেস্ট স্ট্যাটাস পায়। বাংলাদেশের ক্রিকেটের উন্নয়ন ও বিশ্ব ক্রিকেটে অবদানের স্বীকৃতিস্বরূপ ২০০২ সালে লন্ডনে মেরিলিবোর্ন ক্রিকেট ক্লাবের আজীবন সদস্যপদ পান তিনি।

 

উইম্বলডনের ফাইনালে ফেদেরার
                                  

 রাফায়েল নাদালকে হারিয়ে উইম্বলডনের ফাইনালে উঠেছেন রজার ফেদেরার। শিরোপা লড়াইয়ে রেকর্ড ২০ বারের গ্র্যান্ড স্ল্যাম চ্যাম্পিয়নের প্রতিপক্ষ এই প্রতিযোগিতার গতবারের শিরোপাজয়ী নোভাক জোকোভিচ।


সেন্টার কোর্টে শুক্রবার সেমি-ফাইনালে প্রথম সেটে হারার পর দুর্দান্তভাবে ঘুরে দাঁড়ান ১৮টি গ্র্যান্ড স্ল্যাম জয়ী নাদাল। কিন্তু মোমেন্টাম ধরে রাখতে পারেননি সবশেষ ২০১০ সালে এখানে শিরোপা জেতা এই তারকা। তিন ঘণ্টা দুই মিনিট স্থায়ী ম্যাচে ৭-৬, ১-৬, ৬-৩, ৬-৪ গেমে জিতে যান অগাস্টে ৩৯ বছরে পা দিতে যাওয়া ফেদেরার।
২০০৮ সালে পাঁচ সেটের মহাকাব্যিক লড়াইয়ে জিতে উইম্বলডনে প্রথম শিরোপার স্বাদ পেয়েছিলেন স্প্যানিশ তারকা নাদাল। ১১ বছর পর এই প্রতিযোগিতায় আবারও মুখোমুখি হয়ে প্রতিশোধ নিলেন ফেদেরার।


ফ্রেঞ্চ ওপেনের রাজা নাদালের বিপক্ষে ফেদেরারের এটি ১৬তম জয়। আগের ৩৯ বারের মুখোমুখি লড়াইয়ে ২৪টিতে জিতে এগিয়ে আছেন ৩৩ বছর বয়সী স্প্যানিয়ার্ড।
শেষ দিকে দারুণ প্রতিদ্বন্দ্বিতা গড়ে তোলা নাদালের প্রশংসা করে ফেদেরার বলেন, “আমি ক্লান্ত। শেষ দিকে লড়াইটা কঠিন ছিল। ম্যাচে থাকতে রাফা অবিশ্বাস্য কিছু শট খেলেছিল।”
সবশেষ ২০১৭ সালে এখানে শিরোপা জেতা ফেদেরার ফাইনালে জয়ের ব্যাপারে আত্মবিশ্বাসী।
“আশা করি, তাকে (জোকোভিচকে) আমি হারাতে পারব। তবে এটা খুব কঠিন হবে। আমি খুবই রোমাঞ্চিত।”
পুরুষ ও নারী মিলিয়ে উইম্বলডনের এককে রেকর্ড নয়বারের চ্যাম্পিয়ন মার্তিনা নাভ্রাতিলোভাকে ছোঁয়ার লক্ষ্যে আগামি রোববার ফাইনালে জোকোভিচের মুখোমুখি হবে সুইস তারকা ফেদেরার।


প্রথম সেমি-ফাইনালে স্পেনের রবের্তো বাউতিস্তা আগুতকে ৬-২, ৪-৬, ৬-৩, ৬-২ গেমে হারান সার্বিয়ার জোকোভিচ। এই নিয়ে গ্র্যান্ড স্ল্যামে ২৫তম বারের মতো ফাইনালে উঠলেন র‌্যাঙ্কিংয়ের শীর্ষ তারকা।


এই প্রতিযোগিতায় চারবার ও মোট ১৫ বারের গ্র্যান্ড স্ল্যাম চ্যাম্পিয়ন জোকোভিচ আবারও ফাইনালে উঠে দারুণ রোমাঞ্চিত।
“ছোট বেলা থেকেই এটা আমার কাছে স্বপ্নের টুর্নামেন্ট। তাই আরেকটি ফাইনালে উঠে স্বপ্ন সত্যি হয়েছে...অনেক ফাইনাল খেলার পরও উইম্বলডনে আরেকটি ফাইনাল খেলা ভিন্ন কিছু। তাই অবশ্যই আমি এটা উপভোগ করব।”

বাংলাদেশের এমপিরা বিশ্বকাপে রানার্সআপ
                                  

বিশ্বকাপের মাঝে ইংল্যান্ডে অনুষ্ঠিত হয়ে গেল চার দিনব্যাপী আন্তসংসদীয় বিশ্বকাপ ক্রিকেট। বাংলাদেশ-অস্ট্রেলিয়া-ইংল্যান্ডসহ বেশ কয়েকটি দেশের আইনপ্রণেতারা সংসদের আসন ছেড়ে ব্যাট-বল হাতে মাঠে নেমেছিলেন। আট দলের এই টুর্নামেন্টে পাকিস্তানের কাছে হেরে রানার্সআপ হয়েছে বাংলাদেশ।


আজ লর্ডসে বিশ্বকাপ ফাইনালের ম্যাচ। আর গতকাল হয়ে গেল আন্তসংসদীয় ক্রিকেট বিশ্বকাপের ফাইনাল। সেখানে পাকিস্তানের বিপক্ষে ৯ উইকেটে হেরে রানার্সআপ হয়েছে বাংলাদেশ। হোক না সাংসদদের বিশ্বকাপ। বিশ্বকাপ বলে কথা! আর প্রথমবারের মতো টুর্নামেন্টে রানার্সআপ হওয়ার গৌরব অর্জন করল বাংলাদেশ। টুর্নামেন্টে অংশগ্রহণ করেছিল মোট আটটি দল।
গতকাল স্বাগতিক ইংল্যান্ডকে ৩৭ রানে হারিয়ে ফাইনাল নিশ্চিত করেছিল বাংলাদেশ। একই দিনে অনুষ্ঠিত হয় ফাইনাল। সেখানে বাংলাদেশের প্রতিপক্ষ ছিল পাকিস্তান। গ্রুপ পর্বে যাদের বিপক্ষে ১২ রানের জয় নিয়ে বিশ্বকাপে শুভ সূচনা করেছিল বাংলাদেশ। কিন্তু শিরোপার লড়াইয়ে পাকিস্তানের সামনে উড়ে গিয়েছেন নাইমুর রহমান দুর্জয়, জাহিদ আহসান রাসেলরা। প্রথমে ব্যাট করতে নেমে ২০ ওভারে ৮ উইকেট হারিয়ে ১০৪ রান করে বাংলাদেশ। ব্যাটিং ব্যর্থতার দিনে বোলাররাও জ¦লে উঠতে পারেননি। ফলে, ১ উইকেট হারিয়ে ১২ ওভারেই জয় নিশ্চিত করে পাকিস্তান।


বাংলাদেশ সংসদীয় ক্রিকেট দলকে নেতৃত্ব দিচ্ছেন জাতীয় দলের সাবেক অধিনায়ক নাঈমুর রহমান। এ ছাড়া এ দলে আছেন পররাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রী শাহরিয়ার আলম, যুব ও ক্রীড়া প্রতিমন্ত্রী জাহিদ আহসান রাসেল, তথ্য ও যোগাযোগ প্রতিমন্ত্রী জুনায়েদ আহমেদ পলক, বিসিবি সভাপতি নাজমুল হাসান।


অন্য সংসদ সদস্যদের মধ্যে আছেন আবদুল্লাহ আল ইসলাম জ্যাকব (যুব ও ক্রীড়াবিষয়ক সংসদীয় কমিটির সভাপতি), নুরুন্নবী চৌধুরী শাওন, নাহিম রাজ্জাক, মুজিবুর রহমান চৌধুরী নিক্সন, জুয়েল আরেং, আনোয়ারুল আবেদীন খান তুহিন, আহসান আদিলুর রহমান আদিল, ছোট মনির, সানোয়ার হোসেন, শফিকুল ইসলাম শিমুল, ফাহিম গোলন্দাজ বাবেল, মোহাম্মদ আয়েনউদ্দিন, শামীম হায়দার পাটোয়ারি, আনোয়ারুল আজীম আনার। আজ ইংল্যান্ডের প্রধানমন্ত্রী থেরেসা মের সঙ্গে লর্ডসে বসে বিশ্বকাপ ফাইনাল উপভোগ করবেন তাঁরা। সেখানে উপস্থিত থাকার কথা রয়েছে আন্তসংসদীয় ক্রিকেট বিশ্বকাপে অংশ নেওয়া বাকি দেশগুলোর সদস্যদেরও।

নিউজিল্যান্ড যে কারণে বিশ্বকাপ জিতবে
                                  

বিশ্বকাপ ফাইনালে স্বাগতিক ইংল্যান্ডের মুখোমুখি হবে নিউজিল্যান্ড। মহা গুরুত্বপূর্ণ ম্যাচের আগে কিউইদের এগিয়ে রাখছেন নিউজিল্যান্ডের রাগবি বিশ্বকাপজয়ী কোচ স্টিভ হ্যানসেন। উইলিয়ামসনদের এগিয়ে রাখার পেছনে মোক্ষম যুক্তিও দিয়েছেন এই কোচ।


দ্বিতীয়বারের মতো বিশ্বকাপের ফাইনালে উঠেছে নিউজিল্যান্ড। ১৯৭৫ সাল থেকে নিয়মিত বিশ্বকাপে অংশগ্রহণ করা কিউইরা ২০১৫ সালের আগে ৬টি আসরের সেমিফাইনাল থেকেই বাদ পড়েছে। অবশেষে ঘরের মাঠে প্রথমবারের মতো ফাইনালের দেখা পায় তারা।


ফাইনালে সহ-স্বাগতিক অস্ট্রেলিয়ার কাছে হেরে প্রথমবারেই বাজিমাতের স্বপ্ন সাঙ্গ হয় নিউজিল্যান্ডের। কিন্তু আবার সুযোগ এসেছে, যোগ্যতাবলে টানা দ্বিতীয় বিশ্বকাপের ফাইনালে এসেছে তারা। কিন্তু এবার আর পা হড়কাবে না কিউইদের, ট্রফি হাতে নিয়েই ফিরবেন কেন উইলিয়ামসনরাÑএমনটাই মনে করেন বর্তমান রাগবি বিশ্ব চ্যাম্পিয়ন নিউজিল্যান্ডের কোচ স্টিভ হ্যানসেন।
গত বিশ্বকাপের রানার্সআপ, সে হিসেবে এবার নিউজিল্যান্ডকে নিয়ে কিছুটা মাতামাতি অনুমিত ছিল। কিন্তু অবাক করা হলেও সত্যি, ফেবারিট হিসেবে অস্ট্রেলিয়া, ইংল্যান্ড এবং ভারতের নামই সবার মুখে মুখে ফিরছিল। তাদের সঙ্গে দক্ষিণ আফ্রিকার নামও বলছিলেন কেউ কেউ। কিউইদের খুব একটা গোনায় ধরছিলেন না বোদ্ধারা। কিন্তু শুরু থেকেই দারুণ ক্রিকেট উপহার দিয়ে নিউজিল্যান্ড পয়েন্ট টেবিলের চূড়ার দিকে অবস্থান করছিল।
গ্রুপ পর্বের শেষের দিকে দু-একটি ম্যাচের ফলে সেমিফাইনাল নিশ্চিত হওয়া নিয়ে কিছুটা শঙ্কা জেগেছিল। শেষ পর্যন্ত নেট রান রেটের দৌড়ে পাকিস্তানকে পেছনে ফেলে সেমিতে জায়গা করে নেয় টেলর-হেনরিরা। তবে সেমিফাইনালে ফেবারিট ভারতকে যেভাবে ধরাশায়ী করেছে কিউইরা, তা ফাইনালের আগে স্নায়ুচাপের মুহূর্তগুলোকে পাশ কাটাতে টনিক হিসেবে কাজ করবে।


গ্রুপ পর্বের খেলায় ইংল্যান্ডের বিপক্ষে বিশাল পরাজয়ের মুখ দেখেছিল নিউজিল্যান্ড। ১১৯ রানে হারের সেই দগদগে স্মৃতি ফাইনালের আগে কিছুটা অতিরিক্ত চাপ তৈরি করতে পারে উইলিয়ামসনদের ওপর, কিন্তু বিষয়টিকে পুরোপুরি ভিন্ন আঙ্গিকে দেখছেন নিউজিল্যান্ডের রাগবি কোচ হ্যানসেন। তাঁর মতে, টুর্নামেন্টে একটি দলের বিপক্ষে দুবার খেললে প্রথমবার জয়ী দল ব্যাকফুটে থাকে, ‘প্রথম ম্যাচে যে দল হারে, তারা সুবিধাজনক অবস্থানে থাকে। কারণ, মনস্তাত্ত্বিকভাবে প্রথম ম্যাচে জয়ী দল কিছুটা “অতি” আত্মবিশ্বাসী থাকে। এতে করে অবচেতন মনেই মাঠে কিঞ্চিৎ ঢিলেমি দেওয়ার প্রবণতা লক্ষ্য করা যায়।’


নিজের যুক্তিকে আরও শক্তিশালী করতে অস্ট্রেলিয়া-ইংল্যান্ড ম্যাচের উদাহরণকে সামনে আনলেন হ্যানসেন, ‘অস্ট্রেলিয়া গ্রুপ পর্বে ইংল্যান্ডকে বাজেভাবে হারিয়েছিল। কিন্তু সেমিফাইনালে ইংল্যান্ডের বিপক্ষে অস্ট্রেলিয়ার সেই “অতি” আত্মবিশ্বাসটাই কাল হয়ে দাঁড়ায়।’


আজ লর্ডসে এবারের ফাইনালে নিউজিল্যান্ডের মোকাবিলা করবে স্বাগতিক ইংল্যান্ড। এ ক্ষেত্রে স্বাগতিক হিসেবে ইংল্যান্ডের ওপর অতিরিক্ত চাপ থাকবে বলে মনে করেন হ্যানসেন, ‘যেহেতু ইংল্যান্ডের এই দলটির স্বাগতিক হিসেবে এত বড় ম্যাচ খেলার অভিজ্ঞতা নেই, তাই নিউজিল্যান্ড সুবিধাজনক অবস্থানে থাকবে। এ ছাড়া প্রত্যাশার চাপটাও ইংল্যান্ডের ওপর বেশি, তাই নিউজিল্যান্ড পুরোপুরি চাপমুক্ত হয়ে খেলতে পারবে। আমি মনে করি, নিউজিল্যান্ড বিশ্বকাপ জয় করতে তৈরি।’

আর্চার ফাইনালেও আক্রমণাত্মক মানসিকতা ধরে রাখতে চান
                                  

 সেমি-ফাইনালে জফরা আর্চারের বাউন্সারে রক্তাক্ত হয়েছিলেন অস্ট্রেলিয়ার ব্যাটসম্যান অ্যালেক্স কেয়ারি। বিশ্বকাপের ফাইনালেও যে এমনটা হবে না তার নিশ্চয়তা দিচ্ছেন না ইংলিশ পেসার। জানিয়েছেন, নিউ জিল্যান্ডের বিপক্ষে আক্রমণাত্মক মানসিকতা ধরে রাখবেন।


সেমি-ফাইনালে অস্ট্রেলিয়ার বিপক্ষে নতুন বলে আগুন ঝরান আর্চার। ইনিংসের দ্বিতীয় আর নিজের প্রথম ওভারের প্রথম বলেই শূন্য রানে ফেরান টুর্নামেন্টে পাঁচশর বেশি রান করা অস্ট্রেলিয়ান অধিনায়ক অ্যারন ফিঞ্চকে। তার দারুণ এক বাউন্সার অ্যালেক্স কেয়ারির হেলমেটের নিচ দিয়ে থুতনিতে ছোবল দেয়। রক্ত মুছে ব্যান্ডেজ বেঁধে খেলতে হয় উইকেট-কিপার ব্যাটসম্যানকে। পরে থুতনিতে দিতে হয় ছয়টা সেলাই।


রোববার লর্ডসে শিরোপার লড়াইয়ে কিউইদের মুখোমুখি হবে ইংল্যান্ড। ব্যাটসম্যানদের আঘাত করার ইচ্ছে না থাকলেও গতি আর বাউন্সে নিজের কাজটা করে যেতে চান আর্চার।
“আপনি সবসময় তাদের আঘাত করতে চাইবেন না। এটা হতে পারে একটা উইকেট-নেওয়ার মতো বল বা ডট বল। যখন এটা তাদেরকে আঘাত করে, এমনটা করার জন্য আপনি কিছুটা খারাপ অনুভব করেন। কিন্তু এটাই ক্রিকেট। আর সে আঘাত পাওয়া শেষ ব্যক্তি হবে তেমনটা আমি মনে করি না।”
নিয়মিত দারুণ গতিতে বল করে যাওয়ার জন্য পরিচিত আর্চার সেমি-ফাইনালে দারুণ এক স্লোয়ারে ফেরান গ্লেন ম্যাক্সওয়েলকে। অন্যান্য বৈচিত্র্যের পাশাপাশি শর্ট বলকে সবসময় নিজের গুরুত্বপূর্ণ একটা অস্ত্র বলে মনে করেন ২৪ বছর বয়সী এই ক্রিকেটার।


“প্রতিটা ওভারে যে কোনোভাবেই আমি বরাদ্দ দুটো বাউন্সার ব্যবহার করার চেষ্টা করি। এটা শুধু আগে থেকে ঠিক করা কোনো পরিকল্পনা ছিল না। আমি সবসময় এটা করি।”
কেয়ারি আহত হওয়ার পর আর্চারের ২০১৩ সালে করা একটি টুইট আলোচনায় আসে। সেখানে তিনি বলেছিলেন, “সব ব্যাটসম্যান দুটো করে হেলমেট কিনুন কারণ যখন আমাদের দেখা হবে, তখন সেগুলো কাজে লাগবে।”


তবে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে এ নিয়ে আলোচনাকে খুব বেশি গুরুত্ব দিতে চান না আর্চার।
“আমি এটা দেখেছি কিন্তু কেন এটা একটা বড় ব্যাপার হওয়া উচিত তা আমি জানি না। এটা শুধুই সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম।”

অস্ট্রেলিয়ার এ্যাশেজ সিরিজে বিশ্বকাপের সেমি-ফাইনালে হারের প্রভাব পড়বে
                                  

 বিশ্বকাপ ক্রিকেটের সেমি-ফাইনালে ইংল্যন্ডের কাছে অস্ট্রেলিয়া পরাজিত হওয়ায় আসন্ন এ্যাশেজ সিরিজেও এর প্রভাব পড়বে বলে শুক্রবার অসি গণমাধ্যমে প্রকাশিত রিপোর্টে দাবী করা হয়েছে।


এজবাস্টনে বৃহস্পতিবার অস্ট্রেলিয়াকে আট উইকেটে হারিয়ে রোববারের ফাইনালে জায়গা করে নিয়েছে স্বাগতিক ইংল্যান্ড। লর্ডসে ফাইনালে নিউজিল্যান্ডের মোকাবেলা করবে তারা। দ্য এজ পত্রিকায় জন পিয়েকে বলেছেন, পাঁচ বারের বিশ্ব চ্যাম্পিয়নরা একপেশে ওই পরাজয়ের পর ‘খোলসবন্দী’ হয়ে যেতে পারে। সামান্য একটি ইনজুরি অস্ট্রেলিয়ার প্রেরনাকে বাঁধাগ্রস্ত করেছে। তিনি লিখেছেন,‘ ম্যানচেস্টারে নেটে অনুশীলনের সময় সামান্য চোট পেয়েছিলেন শন মার্স ও গ্লেন ম্যাক্সওয়েল। এরই প্রভাব পড়েছিল খেলায়।
দুইদিন পর উসমান খাজার হ্যামস্ট্রিং ইনজুরি দক্ষিন আফ্রিকার বিপক্ষে গ্রুপ পর্বের শেষ ম্যাচে দ্বিতীয় হারের স্বাধ এনে দেয় অস্ট্রেলিয়াকে।’
এবিসি ক্রিকেট করেসপন্ডেন্ট জিওফ লেমন বলেন, ইংল্যান্ডের বোলিং আক্রমণের কোন জবাবই দিতে পারেনি অস্ট্রেলিয়ার দুর্বল হয়ে যাওয়া লাইনআপ। পরে দারুন ব্যাটিংয়ের সাহায্যে সাফল্য লাভ করে ইংল্যান্ড। অস্টম সেমি-ফাইনালে এসে প্রথমবারের অস্ট্রেলিয়ার এই পরাজয়ের ঘটনায় তিনি বলেন,‘ ইংলিশ বোলাররা যথা সময়ে জ¦লে উঠেছিল। সঠিক নিশানায় বোলিং দিয়ে ইংলিশরা উত্তাপ ছড়িয়ে দেয়।’


গত মাসেই সাবেক অসি অধিনায়ক মার্ক টেইলর সতর্ক করে দিয়ে বলেছিলেন বিশ্বকাপে ইংল্যান্ডের কাছে ব্যর্থ হলে তার প্রভাব পড়বে এ্যাশেজ সিরিজে। কারণ এতে তাদের আত্মবিশ্বাসে চিড় ধরবে।’ বিশ্বকাপ শেষে শুরু হচ্ছে এ্যাশেজ সিরিজ।


তবে এজবাস্টনে ইংল্যান্ড দলের দাপট দেখে দ্য অস্ট্রেলিয়ান এর জ্যাকুয়েলিন ম্যাগনি সতর্ক করে দিয়ে বলেছেন, তারা তলানী থেকে উঠে আসছে, যা ভয়ের কারন। তিনি লিখেছেন, ‘অস্ট্রেলিয়ার এই পরাজয় আসন্ন এ্যাশেজ সিরিজের জন্য সতর্কতা সংকেত। যদিও এক বছরের আগের তুলনায় প্রত্যাশার চেয়ে বেশী উন্নতি লাভ করেছে অস্ট্রেলিয় দল।’
সিরিষ কাগজ বল টেম্পারিং কেলেঙ্কারির পর গত বছর দলের মধ্যে যে বিশৃঙ্খল পরিবেশের সৃষ্টি হয়েছিল সেখান থেকে এই আসরে দল ইতিবাচক অনেক কিছুই দেখিয়েছে বলে মনে করেন ম্যাগনি। তিনি লিখেছেন,‘ এ্যারন ফিঞ্চের নেতৃত্ব, স্টিভ স্মিথের দৃঢ়তা এবং মিডল অর্ডার অভিজাত ব্যাটসম্যান হিসেবে এ্যালেক্স ক্যারির অগ্রাভিযান, সবকিছুই এই টুর্নামেন্ট থেকে অস্ট্রেলিয়ার বড় প্রাপ্তি। তবে চাপের মধ্যে ব্যাটিং অর্ডারের ভঙ্গুরতা ভয়ের কারণ হয়ে উঠেছে।’

 

 

মাশরাফি খেলবেন শ্রীলঙ্কায়, ছুটি চেয়েছেন সাকিব-লিটন
                                  

শ্রীলঙ্কা সফরে যাচ্ছেন বিশ্বকাপে চোট নিয়ে খেলা মাশরাফি বিন মুর্তজা। অন্যতম নির্বাচক হাবিবুল বাশার জানিয়েছেন, আসন্ন তিন ম্যাচের ওয়ানডে সিরিজের সময় ছুটি চেয়েছেন সাকিব আল হাসান ও লিটন দাস।


মিরপুর শের-ই-বাংলা জাতীয় ক্রিকেট স্টেডিয়ামে শুক্রবার বাশার জানান, দল নির্বাচনের কাজ প্রায় গুছিয়ে এনেছেন তারা। শ্রীলঙ্কায় খেলবেন মাশরাফি, অনিশ্চিত সাকিব, থাকছেন না লিটন।


“বিশ্বকাপে চোট নিয়েই খেলেছে মাশরাফি। শ্রীলঙ্কায় যাওয়ার আগে ওকে একটা ফিটনেস টেস্ট দিতে হবে।”
“লিটন ছুটি চেয়েছে। ও শ্রীলঙ্কায় যেতে পারবে না। সাকিবও ছুটি চেয়েছে। তবে ওর ব্যাপারটা এখনও চূড়ান্ত হয়নি। তবে আমরা সব কিছুর জন্যই প্রস্তুতি নিয়ে রেখেছি।”
দল চূড়ান্ত করার আগে বিশ্বকাপে খেলে আসা ক্রিকেটারদের চোট নিয়ে রিপোর্টের জন্য অপেক্ষা করছেন নির্বাচকরা।
“দলে কয়েকজনের চোট সমস্যা আছে। মাহমুদউল্লাহ, মুশফিকুর রহিমের চোট নিয়ে রিপোর্টের অপেক্ষায় আছি। ওরা কিছু দিন বিশ্রাম পেয়েছে। আশা করি ওদের খেলতে কোনো সমস্যা হবে না।”


আগামী ২৬, ২৮ ও ৩১ জুলাই শ্রীলঙ্কায় তিনটি ওয়ানডে খেলবে বাংলাদেশ। ২০ জুলাই দেশ ছাড়বে মাশরাফির দল। ২৩ জুলাই একটি প্রস্তুতি ম্যাচে খেলবে তারা।

অস্ট্রেলিয়ার সমালোচনায় ওয়ার্ন
                                  

 সেমিফাইনালে ইংল্যান্ডের কাছে হেরে বাদ পড়েছে ডিফেন্ডিং চ্যাম্পিয়ন অস্ট্রেলিয়া। অ্যারন ফিঞ্চের দলের পারফরম্যান্সের কাটাছেঁড়া করতে গিয়ে নির্মম সমালোচনাই করেছেন শেন ওয়ার্ন
সেমিফাইনালের নিষ্পত্তি হওয়ার আগপর্যন্ত ফেবারিট ছিল কোন দুটি দল? ভারত ও অস্ট্রেলিয়ার দিকেই পাল্লাটা বেশি ভারী থাকবে। গ্রুপ পর্বে টেবিলের শীর্ষ দুই দল। অথচ এ দুটি দলই বাদ পড়ল সেমি থেকে। এজবাস্টনে কাল ইংল্যান্ডের সামনে বলতে গেলে দাঁড়াতেই পারেনি অস্ট্রেলিয়া। আগে ব্যাট করে আড়াই শ রানের দেখাও পায়নি অ্যারন ফিঞ্চের দল। ১০৭ বল হাতে রেখে ৮ উইকেটে জয়ে ফাইনালে উঠেছে ইংল্যান্ড। এমন পারফরম্যান্সের পর শেন ওয়ার্ন আর চুপ করে থাকতে পারেননি। ধুয়ে দিয়েছেন ফিঞ্চের দলকে।


বিশ্বকাপ ফুটবলে ব্রাজিল যেমন, বিশ্বকাপ ক্রিকেটে অস্ট্রেলিয়াও তা-ই। শুধু শিরোপাজয়ই তাদের জন্য সাফল্য। বাকি সব ব্যর্থতা হিসেবেই গণ্য হয়। অস্ট্রেলিয়ান সংবাদমাধ্যমে ফিঞ্চের দলের পারফরম্যান্সের নির্মম কাটাছেঁড়াই করেছেন কিংবদন্তি লেগ স্পিনার ওয়ার্ন। এবার বিশ্বকাপে দ্বিতীয় সর্বোচ্চ (এখন পর্যন্ত) রান সংগ্রাহক (৬৪৭) ডেভিড ওয়ার্নারকে যেমন ১০ পয়েন্টের মধ্যে মাত্র ৪ দিয়েছেন ওয়ার্ন। সেটি শুধু সেমিফাইনালে ওয়ার্নার ব্যর্থ হওয়ার জন্য। ক্রিস ওকসের দুর্দান্ত এক ডেলিভারিতে উইকেট দেন ওয়ার্নার (৯)। এ ওপেনার নিয়ে ওয়ার্নের মূল্যায়ন, ‘খুব ভালো টুর্নামেন্ট কাটিয়েছে, কিন্তু দুর্ভাগ্যজনকভাবে সে দিনের সেরা বলে আউট হয়েছে। কিছুই করার ছিল না।’


সেমিফাইনালে নিজের প্রথম বলেই ফিরেছেন ফিঞ্চ। এ ওপেনারকেও ৪ পয়েন্ট দিয়েছেন ওয়ার্ন। অস্ট্রেলীয় অধিনায়কের পারফরম্যান্স নিয়ে ওয়ার্নের উক্তি, ‘গোটা টুর্নামেন্টে সে ভালোই নেতৃত্ব দিয়েছে। দিনটা তার ছিল না। সে অবশ্যই হতাশ তবে একটা সান্ত¡না পেতে পারে যে অন্তত টস জিতেছে...।’ সাবেক অধিনায়ক স্টিভেন স্মিথের প্রশংসায় কোনো রাখঢাক রাখেননি ওয়ার্ন। আর চরম সমালোচনা করেছেন পিটার হ্যান্ডসকম্বের। কাল ৮৫ রানের ইনিংস খেলা স্মিথকে ৮ পয়েন্ট দিয়েছেন ওয়ার্ন, ‘অসাধারণ। তাকে ছাড়া অস্ট্রেলিয়া ১৫০ রানও করতে পারত না। অন্য প্রান্তে উইকেট পড়তে থাকায় তার জন্য কাজটা কঠিন হয়ে পড়েছিল।’


বিশ্বকাপের শুরুতে অস্ট্রেলিয়া দলে জায়গা পাননি পিটার হ্যান্ডসকম্ব। উসমান খাজার জায়গায় সুযোগ পাওয়া হ্যান্ডসকম্বকে মাত্র ৩ পয়েন্ট দিয়েছেন ওয়ার্ন। কাল ১২ বলে ৪ রান করে আউট হন তিনি। হ্যান্ডসকম্বকে নিয়ে ওয়ার্ন বলেন, ‘তার দলে থাকা উচিত না। দেখে মনে হয়নি রান করতে পারবে। যতক্ষণ উইকেটে (সেমিফাইনাল) ছিল আরও তিন-চারবার আউট হতে পারত।’ বিশ্বকাপে এবার এক সংস্করণে সর্বোচ্চ উইকেট নেওয়ার রেকর্ড গড়া মিচেল স্টার্কেরও সমালোচনা করেছেন ওয়ার্ন। সেমিফাইনালে স্টার্কের মধ্যে আগ্রাসী মনোভাবটুকু দেখেননি তিনি, ‘গোটা টুর্নামেন্টে ভালো খেললেও সেমিতে ইংল্যান্ডের বিপক্ষে সে তেমন একটা আগ্রাসী ছিল না। মারাত্মক কোনো ডেলিভারি কিংবা টানা শর্ট বল করে ভয় পাওয়াতে পারেনি।’ স্টার্ককে ৫ পয়েন্ট দেওয়ার পাশাপাশি ম্যাক্সওয়েল, নাথান লায়নকেও ৫ পয়েন্ট দিয়েছেন ওয়ার্ন।


   Page 1 of 171
     খেলাধূলা
ইরানের কাছে বাংলাদেশের বড় পরাজয় ইনডোর এশিয়া কাপ হকিতে
.............................................................................................
বসুন্ধরার বড় জয় মতিনের হ্যাটট্রিকে
.............................................................................................
যে কারণে এনামুল-তাইজুলকে ফেরানো
.............................................................................................
ফাইনালে টাই হলে যৌথভাবে শিরোপা দেওয়া উচিৎ: কিউই কোচ
.............................................................................................
ওয়ানডে ইতিহাসের সেরা ম্যাচ?
.............................................................................................
বিশ্বকাপ সেরা একাদশে সাকিব
.............................................................................................
আকাঙ্খার বিশ্বকাপে চ্যাম্পিয়ন ইংল্যান্ড
.............................................................................................
খালেদ মাহমুদ জাতীয় দলের স্থায়ী কোচ হতে চান
.............................................................................................
‘কোচ বদলায়, বোর্ড বদলায় না!
.............................................................................................
উইম্বলডনের ফাইনালে ফেদেরার
.............................................................................................
বাংলাদেশের এমপিরা বিশ্বকাপে রানার্সআপ
.............................................................................................
নিউজিল্যান্ড যে কারণে বিশ্বকাপ জিতবে
.............................................................................................
আর্চার ফাইনালেও আক্রমণাত্মক মানসিকতা ধরে রাখতে চান
.............................................................................................
অস্ট্রেলিয়ার এ্যাশেজ সিরিজে বিশ্বকাপের সেমি-ফাইনালে হারের প্রভাব পড়বে
.............................................................................................
মাশরাফি খেলবেন শ্রীলঙ্কায়, ছুটি চেয়েছেন সাকিব-লিটন
.............................................................................................
অস্ট্রেলিয়ার সমালোচনায় ওয়ার্ন
.............................................................................................
অস্ট্রেলিয়াকে উড়িয়ে ফাইনাল নিশ্চিত করেছে তিনবারের রানারআপ ইংল্যান্ড
.............................................................................................
এই ইংল্যান্ড ভিন্ন দল: প্লানকেট
.............................................................................................
অস্ট্রেলিয়া দলে পিটার হ্যান্ডসকম, খেলতে প্রস্তুত স্টয়নিস
.............................................................................................
ভারতকে কাদিয়ে, ফাইনালে নিউজিল্যান্ড
.............................................................................................
টাইগারদের প্রধান কোচ স্টিভ রোডস বরখাস্ত
.............................................................................................
টাইগারদের শ্রীলংকা সফরের সূচি প্রকাশ
.............................................................................................
ভারতকে হারানোর সামর্থ্য নিউ জিল্যান্ডের আছে: ভেটোরি
.............................................................................................
আফগানিস্তানে তালেবান জঙ্গিদের হামলায় নিহত ১২
.............................................................................................
ছোট দলের বড় তারকা সাকিব
.............................................................................................
৩-১ গোলে জয় পেয়ে কোপা আমেরিকায় চ্যাম্পিয়ন ব্রাজিল
.............................................................................................
সেমিফাইনালে কার সাথে কার লড়াই
.............................................................................................
ক্ষোভে পুরস্কার অনুষ্ঠানে অনুপুস্থিত মেসি
.............................................................................................
দ্বিতীয়বারের মতো লাল কার্ড দেখলো মেসি
.............................................................................................
আজ বিশ্বকাপে লীগ পর্বে শীর্ষ স্থান দখলের লড়াইয়ে অস্ট্রেলিয়া-ভারত
.............................................................................................
বাংলাদেশ ক্রিকেট বোর্ড শ্রীলঙ্কা সফর নিশ্চিত করেছে
.............................................................................................
লর্ডসের অনার্স বোর্ডে মোস্তাফিজের নাম
.............................................................................................
জয় দিয়ে শুরু করে হার দিয়ে শেষ করলো টাইগাররা
.............................................................................................
চিলিকে হারিয়ে কোপার ফাইনালে ব্রাজিলের মুখোমুখি পেরু
.............................................................................................
নিয়ম রক্ষার ম্যাচে আজ ওয়েস্ট ইন্ডিজ-আফগান
.............................................................................................
ইংল্যান্ডের জয়ে বদলে গেলো পয়েন্ট টেবিলে সমীকরন
.............................................................................................
আর্জেন্টিনাকে হারিয়ে কোপার ফাইনালে ব্রাজিল
.............................................................................................
বড় অবদান রেখে ম্যাচ সেরার পুরস্কার জিতলেন ফার্নান্দো
.............................................................................................
বাংলাদেশের সেমিফাইনালের স্বপ্নভঙ্গ, সেমিফাইনালে ভারত
.............................................................................................
দারুণ লড়াইয়ে শ্রীলংকার জয়
.............................................................................................
ব্রাজিলের সিলভা মেসিকে সর্বকালের সেরা বললেন
.............................................................................................
আইসিসি মারামারিতে জড়িয়ে পড়া সমর্থকদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেবে
.............................................................................................
ইংল্যান্ডের জয়, ভারতের বিরুদ্ধে ম্যাচ পাতানোর অভিযোগ!
.............................................................................................
নিউজিল্যান্ডকে হারালো অস্ট্রেলিয়া
.............................................................................................
আফগানিস্তানের বিপক্ষে জয় পেয়ে পাকিস্তান পয়েন্ট টেবিলে ৪ নম্বরে
.............................................................................................
কোপা আমেরিকার সেমিতে ব্রাজিলের মুখোমুখি আর্জেন্টিনা
.............................................................................................
বিদায় বেলায় জ্বলে ওঠল দক্ষিণ আফ্রিকা
.............................................................................................
আফগানিস্তানের বিপক্ষে পাকিস্তান জয়ের ধারা অব্যাহত রাখতে চায়
.............................................................................................
সেমির আশা বাঁচিয়ে রাখতে চায় শ্রীলংকা
.............................................................................................
টাইব্রেকারে জিতে কোপা আমেরিকার সেমিতে উঠল ব্রাজিল
.............................................................................................

|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
স্বাধীন বাংলা মো. খয়রুল ইসলাম চৌধুরী কর্তৃক সম্পাদিত ও ঢাকা-১০০০ হতে প্রকাশিত
প্রধান উপদেষ্টা: ফিরোজ আহমেদ (সাবেক সচিব, বাণিজ্য মন্ত্রণালয়)
উপদেষ্টা: আজাদ কবির
সম্পাদক মন্ডলীর সভাপতি: ডাঃ হারুনুর রশীদ
সম্পাদক মন্ডলীর সহ-সভাপতি: মামুনুর রশীদ
ব্যবস্থাপনা সম্পাদক : মো: খায়রুজ্জামান
যুগ্ম সম্পাদক: জুবায়ের আহমদ
বার্তা সম্পাদক: মুজিবুর রহমান ডালিম
স্পেশাল করাসপনডেন্ট : মো: শরিফুল ইসলাম রানা
যুক্তরাজ্য প্রতিনিধি: জুবের আহমদ
যোগাযোগ করুন: swadhinbangla24@gmail.com
    2015 @ All Right Reserved By swadhinbangla.com

Developed By: Dynamicsolution IT [01686797756]