| বাংলার জন্য ক্লিক করুন
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|

   খেলাধূলা -
                                                                                                                                                                                                                                                                                                                                 
ভ্যালেন্সিয়াকে উড়িয়ে বার্সার দাপুটে জয়

লা লিগায় নিজেদের চতুর্থ রাউন্ডের ম্যাচে হেসে-খেলেই জিতেছে বার্সেলোনা। প্রতিপক্ষের জালে গুনে গুনে পাঁচবার বল জড়িয়েছেন কাতালানরা। ফাতি, ডি জং, পিকে একটি করে আর ম্যাচের শেষ ভাগে ফাতির বদলি হিসেবে মাঠে নেমে জোড়া গোল করেন সুয়ারেজ। ৫-২ গোলের বড় জয় নিয়ে মাঠ ছাড়ে আর্নেস্তো ভালভার্দের শিষ্যরা।

বাংলাদেশ সময় শনিবার রাত একটায় মাঠে নামে বর্তমান চ্যাম্পিয়ন বার্সেলোনা। এ ম্যাচ উপলক্ষ্যে স্কোয়াডে ফিরেন দলের তারকা স্ট্রাইকার লুইস সুয়ারেজ ও সদ্য বার্সেলোনায় যোগ দেয়া জুনিয়র ফিরপো। তবে ক্যাম্প ন্যু’র দর্শকরা এ ম্যাচেও মাঠে পায়নি কাফ ইনজুরিতে পড়া অধিনায়ক লিওনেল মেসিকে।

ন্যু ক্যাম্পে এদিন বার্সার শুরুটা ছিল দুর্দান্ত। ম্যাচের দ্বিতীয় মিনিটে বার্সার হয়ে উঁচু প্লেসিং শটে প্রথম লক্ষ্যভেদ করেন ১৬ বছর বয়সী তরুণ বার্সা ফরোয়ার্ড ফাতি। ৫ মিনিট পর আরেকটি করান ডি ইয়াংকে দিয়ে। বলের দখল রেখে আধিপত্য ধরে রাখে স্বাগতিকরা।

ম্যাচের ২৭তম মিনিটে বার্সার জালে বল জড়িয়ে স্কোরবোর্ডে ব্যবধান কমান ভ্যালেন্সিয়ার কেভিন গামেইরো। রদ্রিগোর পাস জর্ডি আলবা ও ক্লেমোঁ লংলেকে ফাঁকি দিয়ে গামেইরোকে খুঁজে নেয়। ডান প্রান্ত থেকে কোনাকুনি শটে মার্ক আন্দ্রে টের স্টেগেনকে পরাস্ত করেন ফরাসি ফরোয়ার্ড।

৫১তম মিনিটে গ্রিজম্যানের জোরালো শট দখলে নিতে পারেননি বার্সার সাবেক গোলরক্ষক জেসপার সিলিসেন। বল তার হাতে লেগে পোস্টে বাধা পেয়ে ফিরে আসে। সিলিসেনকে টপকে ফিরতি বল জালে টুকে দেন পিকে।

ম্যাচের ৬০তম মিনিটে ফাতির বদলি নামেন সুয়ারেজ। পরের মিনিটেই প্রথম গোলের দেখা পেয়ে যান উরুগুইয়ান স্ট্রাইকার। ৮২তম মিনিটে গ্রিজম্যানের পাস থেকে দ্বিতীয় বারের মতো বল জালে জড়িয়ে ব্যবধান ৫-১ করে দেন সুয়ারেজ। পরে ম্যাচের যোগ করা সময়ে নতুন ক্লাবের হয়ে প্রথম গোল করেন ম্যাক্সি গোমেজ। এরপর আর কোন দল গোলের দেখা পায়নি।

লা লিগায় চার ম্যাচে ৯ পয়েন্ট নিয়ে তালিকার শীর্ষে অ্যাটলেটিকো মাদ্রিদ। সমান ম্যাচে সমান ৮ পয়েন্ট নিয়ে দুই ও তিনে যথাক্রমে রিয়াল মাদ্রিদ ও অ্যাথলেটিক বিলবাও। সমান ম্যাচে দুই জয় ও একটি করে ড্র ও হারে ৭ পয়েন্ট নিয়ে চারে বার্সেলোনা।

ভ্যালেন্সিয়াকে উড়িয়ে বার্সার দাপুটে জয়
                                  

লা লিগায় নিজেদের চতুর্থ রাউন্ডের ম্যাচে হেসে-খেলেই জিতেছে বার্সেলোনা। প্রতিপক্ষের জালে গুনে গুনে পাঁচবার বল জড়িয়েছেন কাতালানরা। ফাতি, ডি জং, পিকে একটি করে আর ম্যাচের শেষ ভাগে ফাতির বদলি হিসেবে মাঠে নেমে জোড়া গোল করেন সুয়ারেজ। ৫-২ গোলের বড় জয় নিয়ে মাঠ ছাড়ে আর্নেস্তো ভালভার্দের শিষ্যরা।

বাংলাদেশ সময় শনিবার রাত একটায় মাঠে নামে বর্তমান চ্যাম্পিয়ন বার্সেলোনা। এ ম্যাচ উপলক্ষ্যে স্কোয়াডে ফিরেন দলের তারকা স্ট্রাইকার লুইস সুয়ারেজ ও সদ্য বার্সেলোনায় যোগ দেয়া জুনিয়র ফিরপো। তবে ক্যাম্প ন্যু’র দর্শকরা এ ম্যাচেও মাঠে পায়নি কাফ ইনজুরিতে পড়া অধিনায়ক লিওনেল মেসিকে।

ন্যু ক্যাম্পে এদিন বার্সার শুরুটা ছিল দুর্দান্ত। ম্যাচের দ্বিতীয় মিনিটে বার্সার হয়ে উঁচু প্লেসিং শটে প্রথম লক্ষ্যভেদ করেন ১৬ বছর বয়সী তরুণ বার্সা ফরোয়ার্ড ফাতি। ৫ মিনিট পর আরেকটি করান ডি ইয়াংকে দিয়ে। বলের দখল রেখে আধিপত্য ধরে রাখে স্বাগতিকরা।

ম্যাচের ২৭তম মিনিটে বার্সার জালে বল জড়িয়ে স্কোরবোর্ডে ব্যবধান কমান ভ্যালেন্সিয়ার কেভিন গামেইরো। রদ্রিগোর পাস জর্ডি আলবা ও ক্লেমোঁ লংলেকে ফাঁকি দিয়ে গামেইরোকে খুঁজে নেয়। ডান প্রান্ত থেকে কোনাকুনি শটে মার্ক আন্দ্রে টের স্টেগেনকে পরাস্ত করেন ফরাসি ফরোয়ার্ড।

৫১তম মিনিটে গ্রিজম্যানের জোরালো শট দখলে নিতে পারেননি বার্সার সাবেক গোলরক্ষক জেসপার সিলিসেন। বল তার হাতে লেগে পোস্টে বাধা পেয়ে ফিরে আসে। সিলিসেনকে টপকে ফিরতি বল জালে টুকে দেন পিকে।

ম্যাচের ৬০তম মিনিটে ফাতির বদলি নামেন সুয়ারেজ। পরের মিনিটেই প্রথম গোলের দেখা পেয়ে যান উরুগুইয়ান স্ট্রাইকার। ৮২তম মিনিটে গ্রিজম্যানের পাস থেকে দ্বিতীয় বারের মতো বল জালে জড়িয়ে ব্যবধান ৫-১ করে দেন সুয়ারেজ। পরে ম্যাচের যোগ করা সময়ে নতুন ক্লাবের হয়ে প্রথম গোল করেন ম্যাক্সি গোমেজ। এরপর আর কোন দল গোলের দেখা পায়নি।

লা লিগায় চার ম্যাচে ৯ পয়েন্ট নিয়ে তালিকার শীর্ষে অ্যাটলেটিকো মাদ্রিদ। সমান ম্যাচে সমান ৮ পয়েন্ট নিয়ে দুই ও তিনে যথাক্রমে রিয়াল মাদ্রিদ ও অ্যাথলেটিক বিলবাও। সমান ম্যাচে দুই জয় ও একটি করে ড্র ও হারে ৭ পয়েন্ট নিয়ে চারে বার্সেলোনা।

আজ আফগানিস্তানের মুখোমুখি আত্মবিশ্বাসী বাংলাদেশ
                                  

 ত্রিদেশীয় টি-২০ সিরিজের তৃতীয় ও নিজেদের দ্বিতীয় ম্যাচে আজ শক্তিশালী আফগানিস্তানের মুখোমুখি হবে বাংলাদেশ। নিজেদের প্রথম ম্যাচে জিম্বাবুয়ের বিপক্ষে ৩ উইকেটের জয় পেয়েছে সাকিব বাহিনী। তাই আত্মবিশ্বাস নিয়েই আজ আফগানদের বিপক্ষে খেলতে নামবে টাইগাররা। মিরপুর শেরে বাংলা জাতীয় ক্রিকেট স্টেডিয়ামে সন্ধ্যা ৬টা ৩০ মিনিটে শুরু হবে ম্যাচটি।
বিশ্বকাপে ব্যর্থতার পর শ্রীলংকার মাটিতে তিন ম্যাচের ওয়ানডে সিরিজে হোয়াইটওয়াশ হয় বাংলাদেশ। তাই হারের মধ্যে ঘুরপাক খেতে থাকা বাংলাদেশ বড় ফরম্যাটে গিয়ে বড় ধরনের ধাক্কা খায়। দেশের মাটিতে আফগানিস্তানের কাছে একমাত্র টেস্টে ২২৪ রানের বড় ব্যবধানে হারে বাংলাদেশ।


আফগানিস্তানের কাছে এমন হার বড়ই লজ্জার বাংলাদেশের। তারপরও অতীতকে পিছনে ফেলে ত্রিদেশীয় সিরিজ শুরু করে টাইগাররা। প্রথম ম্যাচে জিম্বাবুয়ের মুখোমুখি হয় বাংলাদেশ। কিন্তু এখানেও এলোমেলো দেখালো সাকিবের দলকে।
১৮ ওভারে জিম্বাবুয়ের ছুড়ে দেয়া ১৪৫ রানের জয়ের লক্ষ্যে খেলতে নেমে ৬০ রানে ৬ উইকেট হারিয়ে ম্যাচ হারের পথ দেখে ফেলে বাংলাদেশ। চিন্তায় তখন মশগুল বাংলাদেশের ড্রেসিং রুম।


কিন্তু আট নম্বরে ব্যাট হাতে নেমে ম্যাচের চিত্রপট পরির্বতন করে ফেলেন বাঁ-হাতি ব্যাটসম্যান আফিফ হোসেন। সাধারণত মিডল-অর্ডারেই ব্যাট করে থাকা আফিফ আট নম্বরে নেমেও লড়াকু ব্যাটিং উপহার দেন। টি-২০ মেজাজে দ্রুত রান তুলে জিম্বাবুয়ের বোলারদের আত্মবিশ্বাসে চিড় ধড়িয়ে দেন তিনি। তাই ২৪ বলেই হাফ- সেঞ্চুরির স্বাদ নেন দ্বিতীয় টি-২০ খেলতে নামা আফিফ। পরবর্তীতে ২৬ বলে ৫২ রানের ম্যাচ জয়ী ইনিংস খেলেন এই বাঁ-হাতি ব্যাটস্যান। তাতেই ৩ উইকেটে জয় পায় বাংলাদেশ।


হারের মধ্যে ঘুরপাক খেতে থাকা বাংলাদেশ দুর্দান্ত জয়ে স্বস্তির নিঃশ্বাস ফেলে। ম্যাচ শেষে অধিনায়ক সাকিব আল হাসানের কন্ঠে তেমনই সুর, ‘এই জয় থেকে আমরা আত্মবিশ্বাস ফিরে পেলাম। কঠিন সময়ের মাঝে এমন জয় স্বস্তির বটে। আশা করি, জয়ের ধারাবাহিকতা পরের ম্যাচে কঠিন প্রতিপক্ষের বিপক্ষে অব্যাহত থাকবে।’
তবে আফগানিস্তানের বিপক্ষে টি-২০তে বাংলাদেশের পারফরমেন্স খুব বেশি ভালো নয়। চারবারের দেখায় তিনবারই হার টাইগারদের। গেল বছর জুনে তিন ম্যাচের টি-২০ সিরিজে আফগানদের কাছে হোয়াইটওয়াশ হয়েছিলো বাংলাদেশ।

 

বেনজেমার জোড়া গোলে জয়ে ফিরল রিয়াল
                                  

 প্রথমার্ধে করিম বেনজেমার জোড়া গোল আর কাসেমিরোর লক্ষ্যভেদে ম্যাচের নিয়ন্ত্রণ নেয় রিয়াল মাদ্রিদ। দ্বিতীয়ার্ধে উজ্জ্বীবিত ফুটবল খেলে দুটি গোল শোধ করে ম্যাচ জমিয়ে তোলে লেভান্তে। তবে শেষ পর্যন্ত জয় নিয়েই মাঠ ছেড়েছে জিনেদিন জিদানের শিষ্যরা।


সান্তিয়াগো বের্নাবেউয়ে শনিবার স্থানীয় সময় দুপুরে লা লিগার ম্যাচটি ৩-২ গোলে জেতে প্রতিযোগিতার সফলতম ক্লাবটি।
গ্রীষ্মের দল-বদলে চেলসি থেকে আসা এদেন আজার দ্বিতীয়ার্ধে বদলি নেমেই সতীর্থকে দিয়ে গোলের সুযোগ তৈরি করেছিলেন, তাতে সাফল্যের দেখা অবশ্য মেলেনি। তবে দল জয়ে ফেরায় অভিষেকটা ভালোই হলো বেলজিয়ান ফরোয়ার্ডের।


সেল্তা ভিগোকে হারিয়ে লিগ শুরু করা রিয়াল পরের দুই রাউন্ডে ভাইয়াদলিদ ও ভিয়ারিয়ালের সঙ্গে ড্র করেছিল।
টানা দুই ড্রয়ের হতাশা ঝেড়ে ফেলার লক্ষ্যে মাঠে নামা রিয়ালের শুরুটা ছিল সাদামাটা। তবে দ্রুতই নিজেদের গুছিয়ে নিয়ে একের পর এক আক্রমণে লেভান্তের রক্ষণে ভীতি ছড়ায় তারা।
ম্যাচের প্রথম উল্লেখযোগ্য সুযোগটি ২১তম মিনিটে পান বেনজেমা। তার শট দারুণ নৈপুণ্যে রুখে দেন গোলরক্ষক। পরের মিনিটেই লুকাস ভাসকেসের প্রচেষ্টা এক ডিফেন্ডারের গায়ে লেগে পোস্টে বাধা পায়।


২৫তম মিনিটে আর ব্যর্থ হননি বেনজেমা। ডান দিক থেকে দানি কারভাহালের দারুণ ক্রসে লাফিয়ে নেওয়া হেডে ঠিকানা খুঁজে নেন ফরাসি স্ট্রাইকার। ছয় মিনিট পর হামেস রদ্রিগেসের পাস ডি-বক্সে পেয়ে কোনাকুনি শটে ব্যবধান দ্বিগুণ করেন তিনি।
আসরে চার ম্যাচে ৩১ বয়র বয়সী এই স্ট্রাইকারের গোল হলো চারটি।


মাঠ জুড়ে দুর্দান্ত খেলা কাসেমিরো ৪০তম মিনিটে ব্যবধান আরও বাড়ালে ম্যাচের নিয়ন্ত্রণ পেয়ে যায় রিয়াল। স্বদেশি ফরোয়ার্ড ভিনিসিউস জুনিয়রের পাস ডি-বক্সে ফাঁকায় প্রথম ছোঁয়ায় প্লেসিং শটে বল জালে পাঠান ব্রাজিলিয়ান এই মিডফিল্ডার।
দ্বিতীয়ার্ধের শুরুতেই একটি গোল শোধ করে লেভান্তে। ৪৯তম মিনিটে সতীর্থের বাড়ানো বল ১০ গজ দূর থেকে কাছের পোস্ট ঘেঁষে লক্ষ্যে পাঠান বোরহা মায়োরাল।
৫৭তম মিনিটে একজনকে কাটিয়ে ডি-বক্সের বাইরে থেকে বেনজেমার নেওয়া জোরালো শট দূরের পোস্টে বাধা পায়। খানিক পর জালে বল পাঠিয়েছিলেন ভিনিসিউস; কিন্তু ভিএআরের সাহায্যে অফসাইডের বাঁশি বাজান রেফারি।


৭৫তম মিনিটে ব্যবধান আরও কমিয়ে রোমাঞ্চকর শেষের সম্ভাবনা জাগান গনসালো মেলেরো। সতীর্থের দারুণ ক্রস পেয়ে কাছ থেকে হেডে গোলটি করেন রিয়ালের অ্যাকাডেমিতে বেড়ে ওঠা স্প্যানিশ এই মিডফিল্ডার।
যোগ করা সময়ে থিবো কোর্তোয়ার নৈপুণ্যে বেঁচে যায় রিয়াল। রুবেন ভেজোর হেড ঠেকিয়ে দলের জয় নিশ্চিত করেন বেলজিয়ামের এই গোলরক্ষক।
চলতি মৌসুমে ঘরের মাঠে প্রথম জয় পাওয়া রিয়ালের পয়েন্ট ৮।

ভারতের কাছে হারল বাংলাদেশ
                                  

ভারতের বিপক্ষে ১০৭ রানের সহজ লক্ষ্য নিয়েও পারল না বাংলাদেশ। অনূর্ধ্ব-১৯ এশিয়া কাপের ফাইনালে এই লক্ষ্য তাড়া করতে নেমে ৩৩ ওভারে ১০১ রানে গুটিয়ে যায় বাংলাদেশের যুবাদের ইনিংস। তাই লক্ষ্যের খুব কাছে গিয়েও মাত্র ৫ রানের হারে যুব এশিয়া কাপের শিরোপা হাতছাড়া হয়ে গেলো বাংলাদেশের।


শনিবার এশিয়া কাপে শ্রীলঙ্কার প্রেমাদাসা স্টেডিয়ামে লক্ষ্য তাড়া করতে নেমে মাত্র ১৪ রানে চার উইকেট হারিয়ে শুরুতেই বিপর্যয়ে পড়ে বাংলাদেশ। সেখান থেকে আকবর ও শাহাদাত জুটি গড়ে এগুতে থাকেন। তবে দলীয় ৪০ রানে পঞ্চম ব্যাটসম্যান হিসেবে বিদায় নেন শাহাদাত। সেই ধারায় শামীমও ফিরে যান দলীয় স্কোরে ১১ রান যোগ হতেই।


সপ্তম উইকেটে আকবর ও মৃত্যুঞ্জয় ২৭ রানের জুটি গড়ে ফের আশা জাগান। দলীয় ৭৬ রানে বৃষ্টির কারণে খেলা বন্ধ থাকে। বৃষ্টির পর খেলা শুরু হতেই আউট হয়ে যান দুই সেট ব্যাটসম্যান আকবর ও মৃত্যুঞ্জয়। আকবর ইনিংস সর্বোচ্চ ২৩ ও মৃত্যুঞ্জয় ২১ রান করেন। নবম উইকেটে তানজিম সাকিব ও রকিবুল ফের দলের হাল ধরেন। এই দুজন জুটিতে করেন ২৩ রান।
দলীয় শত রান পূর্ণ হতেই তানজিম (১২) ফিরেন। আর কোনো রান যোগ হওয়ার আগেই নতুন করে মাঠে নামা শাহিন আলম আউট হলে হার নিশ্চিত হয়ে যায় বাংলাদেশের। রকিবুল ১১ রান নিয়ে অপরাজিত থাকেন। অন্য কোনো ব্যাটসম্যান দুই অঙ্ক ছুঁতে পারেননি। ভারতের অথর্ব অঙ্কলেকার একাই পাঁচ উইকেট নেন। এ ছাড়া তিন উইকেট নেন আকাশ সিং।
এর আগে শুরুতে ব্যাট করতে নেমে বাংলাদেশ যুবাদের বোলিংয়ে তোপের মুখে পড়ে ভারত। শুরু থেকেই নিয়ন্ত্রিত বোলিং করে জুনিয়র টাইগাররা। দুই পেসার মৃত্যুঞ্জয় চৌধুরী ও তানজিম হাসান সাকিব পরপর দুই ওভারে অরুন আজাদ (০) ও তিলাক বার্মাকে (২) ফেরান। রান আউটে কাঁটা পড়ে পার্কার (৪)।


চতুর্থ উইকেটে থিতু হওয়ার চেষ্টা করেন অধিনায়ক ধ্রুব জুরেল ও রাওয়াত। তারা ৪৫ রানের জুটি গড়েন। কিন্তু বাংলাদেশের অফস্পিনার শামীম নিজের প্রথম ওভারেই নেন দুই উইকেট। রাওয়াত ১৯ রানে এলডিব্লিউ হওয়ার পর লাভান্ডে পয়েন্টে মৃত্যুঞ্জয়ের হাতে ক্যাচ দেন শূন্য রানে। আনকোলেকারকে রান আউট করেন মাহমুদুল হাসান জয়। শামীমের চতুর্থ ওভারে কাট করতে গিয়ে পয়েন্টে ক্যাচ দেন ভারতের অধিনায়ক জুরেল।


কারান লালের কল্যাণে কোনোমতে তিন অঙ্কের দেখা পায় ভারত। মৃত্যুঞ্জয়ের বলে ক্যাচ দেওয়ার আগে কারান লাল করেন ৩৭ রান। বাংলাদেশের সেরা বোলার স্পিনার শামীম। ছয় ওভারে দুই মেডেনে আট রানে তিন উইকেট নেন তিনি। মৃত্যুঞ্জয় পেয়েছেন তিন উইকেট।

একজন খেলোয়াড়-ক্রীড়ামোদি- একজন ভালো ছাত্র: উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান জাহিদুল ইসলাম রোমান
                                  

এস.এম ইকবাল:

ফরিদগঞ্জ উপজেলা চেয়ারম্যান এ্যাডভোকেট জাহিদুল ইসলাস রোমান বলেছেন, একজন খেলোয়াড়-ক্রীড়ামোদি- একজন ভালো ছাত্র। শিক্ষায় উন্নতি, শরীর-মন সতেজ ও সুস্থ্য রাখতে খেলাধুলার বিকল্প নেই। মাদকের হাত থেকে যুব সমাজকে রক্ষা করতে খেলাধুলা বিশেষ ভূমিকা রাখছে। ক্রীড়া ও সংস্কৃতিতে তরুন সমাজকে সহযোগিতা করলে মাদক, ইভটিজিং, ধর্ষণ, বাল্যবিবাহ ইত্যাদি অপরাধমূলক কর্মকান্ড থেকে তাদেরকে বিরত রাখা সম্ভব হবে। তিনি শনিবার বিকালে ফরিদগঞ্জ এ আর পাইলট উচ্চ বিদ্যালয় মাঠে ‘অনুর্ধ-১৭ বঙ্গবন্ধু গোল্ডকাপ ফুটবল টুর্ণামেন্ট’ এর জমকালো ফাইনাল ও পুরস্কার বিতরনী অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্যে এ কথা বলেন।

তিনি আরও বলেন, “আমি আমার সোনার বাংলায় সোনার মানুষ চাই; ক্ষুধা, দারিদ্র্য ও দুর্নীতিমুক্ত বাংলাদেশ চাই। তোমরা আমায় তা দাও। আর তা যদি করতে পারি তাহলে দেখবে, আমার বাংলাদেশ খুব অল্প দিনে উন্নত অনেক দেশকে ছাড়িয়ে আমরা মাথা উঁচু করে দাঁড়াতে পারবো।” তিনি বলেন, আজ আমরা বিশ^বাসীর সামনে মাথা উঁচু করে দাঁড়িয়েছি, কিন্তু বঙ্গবন্ধু তা দেখে যেতে পারেননি।

উপজেলা প্রশাসন আয়োজিত, ফরিদগঞ্জ উপজেলা নির্বাহী অফিসার (ভারপ্রাপ্ত) ও এসি (ল্যান্ড) মমতা আফরিনের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন উপজেলা পরিষদের ভাইস চেয়ারম্যান জিএস তছলিম, পৌর মেয়র মাহফুজুল হক, থানার অফিসার ইনচার্জ আব্দুর রকিব, উপজেলা মুক্তিযোদ্ধা কমান্ডার সহিদ উল্লা তপদার, প্রকল্প বাস্তবায়ন কর্মকর্তা আওরঙ্গজেব, জেলা পরিষদ সদস্য সাইফুল ইসলাম রিপন, মাধ্যমিক শিক্ষা অফিসের একাডেমিক সুপার ভাইজার আবদুল্লাহ আল মামুন, উপজেলা যুবলীগের যুগ্ন আহবায়ক কামরুজ্জামান সবুজ, আকবর হোসেন মনির, উপজেলা ছাত্রলীগের সভাপতি মাহাবুব আলম সোহাগ প্রমূখ।

খেলায় ফরিদগঞ্জ পৌরসভা একাদশ ১-০ গোলে ১৬ নং রুপসা দক্ষিন ইউনিয়নকে পরাজিত করে।

 

আফিফ ঝড়ে অবশেষে জিতলো বাংলাদেশ
                                  

অবশেষে রাজধানীর মিরপুর শের-ই-বাংলা স্টেডিয়ামে ত্রিদেশীয় সিরিজের উদ্বোধনী ম্যাচে জিম্বাবুয়ের বিপক্ষে ৩ উইকেটে জিতেছে বাংলাদেশ। এদিন ব্যাটিংয়ে ধুঁকতে থাকা বাংলাদেশকে খাদের কিনারা থেকে তুলে আনেন তরুণ ব্যাটসম্যান আফিফ হোসেন। আফিফ হোসেনের ৫২ রানের ঝড়ো ব্যাটিংয়ে জয়ের দ্বারপ্রান্তে পৌঁছে যায় বাংলাদেশ দল। অন্যপ্রান্তে থাকা মোসাদ্দেক হোসেনও দেন দারুণ সঙ্গ।

জিম্বাবুয়ের বিপক্ষে ১৪৫ রানের জয়ের লক্ষে খেলতে নেমে ধুঁকতে শুরু করে বাংলাদেশ দল। দলীয় ৬০ রানের মাথায় দলটি হারায় ৬ টি মূল্যবান উইকেট।

বাংলাদেশের উইকেটের পতন ঘটে লিটন দাসের সাজঘরে ফেরার মধ্য দিয়ে। সেসময় দলীয় রান ৩ ওভার শেষে ২৬। এর পরের ওভারের প্রথম বলেই জারভিসের বলে ক্যাচ তুলে দেন সৌম্য সরকার। এরপরই শুরু হয় বাংলাদেশ দলের এক ধরণের বিপর্যয়।

এরপরে দলীয় ১ রান মাত্র যোগ হয়। দলীয় ২৭ রানের মাথায় বাংলাদেশের আরেক নির্ভরযোগ্য ব্যাটসম্যান মুশফিকুর রহমানও শূন্য রানে ফিরে যান।

মাঠে নামেন সাকিব আল হাসান। মুশফিকুর রহমান শূন্য রানে ফিরলে সাকিব নিজের রানের খাতায় ১ যোগ করে ক্যাচ দিয়ে সাজঘরে ফিরে। বাংলাদেশের দলীয় রান তখন ২৯, ৪ উইকেটের বিনিময়ে।

এরপর একটু হলেও বাংলাদেশকে আশা দেখাতে শুরু করেন মাহমুদুল্লাহ। তবে সে আশার স্থায়িত্ব বেশিক্ষণ হতে দেয়নি জিম্বাবুয়ের বোলাররা। ব্যক্তিগত ১৪ রান তুলে রায়ান বার্ল`র বলে এলবিডব্লিউ এর ফাঁদে পড়েন মাহমুদুল্লাহ। বাংলাদেশের দলীয় রান তখন ৮.১ বল শেষে ৫৬।

মাহমুদুল্লাহ সাজঘরে ফেরার পর বেশিক্ষণ মাঠে টিকতে পারেননি সাব্বিরও। পরের ওভারে ক্যাচ তুলে সাজঘরে যান।

এরপর আবারো স্বপ্ন দেখাতে শুরু করেন বাংলাদেশের দুই তরুণ ব্যাটসম্যান মোসাদ্দেক হোসেন ও আফিফ হোসেন। দুই এ তরুণ ব্যাটসম্যানের ঝড়ো ব্যাটিংয়ে জয় পায় বাংলাদেশ। আফিফ হোসেন ৫২ রানে সাজঘরে ফিরলেও ততক্ষণে জয়ের দ্বারপ্রান্তে পৌঁছে যায় বাংলাদেশ দল। অবশেষে ১৭ ওভার ৪ বলে ৩ উইকেটে জয় পায় বাংলাদেশ।

এদিন রাজধানীর মিরপুর শের-ই-বাংলা স্টেডিয়ামে ত্রিদেশীয় সিরিজের উদ্বোধনী ম্যাচে টস জিতে বোলিং নেয় বাংলাদেশ। ফলে প্রথমে ব্যাটিংয়ে নেমে দ্রুত ৫ উইকেট হারিয়ে বসে জিম্বাবুয়ে। শেষে বার্লের দুর্দান্ত হাফ সেঞ্চুরিতে এগিয়ে যায় জিম্বাবুয়ে। তিনি ৩২ বলে ৫৭ রান করে অপরাজিত থাকেন। জিম্বাবুয়ে ১৮ ওভারে ৫ উইকেট হারিয়ে তুলে ১৪৪ রান।

এর আগে শুরুতে ইনিংসের দ্বিতীয় ওভারে প্রথম উইকেট তুলে নেন তাইজুল। ৭ম ওভারে ক্রেইগ এরভিনকে মাত্র ১১ রানের মাথায় সাজঘরে ফিরিয়ে এই ইনিংসের ব্যক্তিগত প্রথম উইকেট নেন মুস্তাফিজুর রহমান। ৬ ওভার ৩ বলের মাথায় মুস্তাফিজের বলে ক্যাচ তুলে দেন মোসাদ্দেক হোসেনের হাতে।

৮ম ওভারে হ্যামিল্টন মাসাকাদজাকে ফেরান মোহাম্মদ সাইফুদ্দিন। ৭ ওভার ৫ বলে সাব্বিরের হাতে ক্যাচ তুলে দেন মাসাকাদজা। ইনিংসের ৯ম ওভারের প্রথম বলে শন উইলিয়ামসের উইকেট তুলে নেন মোসাদ্দেক হোসেন। সবশেষ ইনিংসের ১০ম ওভারে মাত্র ১ রানে সাকিবের থ্রোতে টিমিসেন মারুমাকে রান আউট করেন মুস্তাফিজ।

এদিকে বৃষ্টির কারণে ভেজা মাঠ প্রস্তুত হওয়ার পর টস হয় সন্ধ্যা সাড়ে ৭টার পর। টস জিতে ফিল্ডিংয়ের সিদ্ধান্ত নেন টাইগার অধিনায়ক সাকিব আল হাসান। বৃষ্টির কারণে ১৮ ওভারে নামে উদ্বোধনী ম্যাচটি।

মার্শের বোলিং চমক বাটলারের লড়াই
                                  

বোলিংয়ে একটি বিকল্প বাড়ানো আর লম্বা সিরিজের শেষ ম্যাচে মূল ফাস্ট বোলারদের একটু বিশ্রামের সুযোগ দেওয়া। মূলত এই ভাবনা থেকেই একাদশে ফেরানো হলো মিচেল মার্শকে। কিন্তু সহকারীর ভূমিকায় এসে তিনিই হয়ে উঠলেন কেন্দ্রীয় চরিত্র। দুর্দান্ত বোলিংয়ে কাঁপিয়ে দিলেন ইংলিশ ব্যাটিং। কিন্তু একজন দাঁড়িলে গেলেন ব্যাট হাতে। দারুণ ব্যাটিংয়ে জস বাটলার কিছুটা উদ্ধার করলেন ইংল্যান্ডকে। অ্যাশেজের শেষ টেস্টের প্রথম দিনে ওভালে ব্যাট-বলের লড়াই হলো জমজমাট। খেলা হয়েছে ৮২ ওভার। টস হেরে ব্যাটিংয়ে নামা ইংল্যান্ড ৮ উইকেটে করেছে ২৭১ রান। ওভালের উইকেটে পেসারদের জন্য যেমন সুইং ছিল, ব্যাটসম্যানদের জন্যও ছিল টিকে থাকা ও রান করার সুযোগ। স্পোর্টিং উইকেটে লড়াই হয়েছে তুমুল। ইংলিশদের বেশ কয়েকজন ব্যাটসম্যান আউট হয়েছেন থিতু হয়েও। অস্ট্রেলিয়ান পেসাররা দেখিয়েছেন গতি ও স্কিল। মূলত ব্যাটিং অলরাউন্ডার হলেও মার্শ চমকে দিয়েছেন বল হাতে। গতি ছিল দারুণ, ৯০ মাইল ছুঁইছুঁই ছিল অনেক সময়ই। সুইং করিয়েছেন বল, ছুঁড়েছেন চোখধাঁধানো ইয়র্কার। দিন শেষে ৩৫ রানে নিয়েছেন ৪ উইকেট, তার ক্যারিয়ার সেরা বোলিং। শুরুর আঘাত যদিও এসেছে যথারীতি সিরিজের সফলতম বোলার প্যাট কামিন্সের হাত ধরে। ফিরিয়ে দেন ১৪ রান করা জো ডেনলিকে। তবে ররি বার্নস ও জো রুট দ্বিতীয় উইকেটে গড়ে দারুণ জুটি। ১ উইকেটে ৮৬ রান নিয়ে লাঞ্চে যায় ইংল্যান্ড। টস হেরে ব্যাটিংয়ে নামা দলের জন্য বলা যায় দারুণ শুরু। এই জুটিতেই ইংল্যান্ড পেরিয়ে যায় একশ। কামিন্সের বলে দুইবার ক্যাচ দিয়ে বেঁচে যান রুট। ২৪ রানে একবার, আরেকবার ২৫ রানে। ৭৬ রানের জুটি ভাঙে জশ হেইজেলউডের সৌজন্যে। ৪৭ রান করা বার্নসের ক্যাচ নেন মার্শ। এরপর মার্শ দৃশ্যপটে চলে আসেন বল হাতে। বেন স্টোকসকে ফেরান ২০ রানে। ফিফটি পেরিয়ে রুট টিকে ছিলেন তখনও। দ্বিতীয় সেশন শেষেও বেশ ভালো অবস্থানে ছিল ইংল্যান্ড, স্কোর ছিল ৩ উইকেটে ১৬৯। চা বিরতির পর বদলে যায় চিত্র। অসাধারণ একটি ডেলিভারিতে কামিন্স উড়িয়ে দেন রুটের বেলস। এরপর মার্শ মেলে ধরেন নিজেকে। ২২ রান করা জনি বেয়ারস্টোকে ফেরান দারুণ ইয়র্কারে। জেসন রয়ের জায়গায় একাদশে সুযোগ পাওয়া স্যাম কারান আউট হন একটি করে চার ও ছক্কায় ১৫ রান করে। ক্রিস ওকসও জবাব পাননি মার্শের ইয়র্কারের। এরপর জশ হেইজেলউডের দুর্দান্ত ডেলিভারি যখন ফেরাল জফরা আর্চারকে, ইংল্যান্ডের রান ৮ উইকেটে ২২৬। অপেক্ষা ইনিংস শেষের। বাটলার তখন পর্যন্ত এক প্রান্ত আগলে ছিলেন। ইনিংস শেষ দিকে দেখে শুরু করলেন শট খেলা। তাকে আর থামানোর পথই পেল না অস্ট্রেলিয়া। হেইজেলউডকে ছক্কায় ওড়ালেন টানা দুই বলে। পরে হেইজেলউডকেই আরেকবার আছড়ে ফেললেন গ্যালারিতে। তাকে দারুণ সঙ্গ দিলেন জ্যাক লিচ। দ্বিতীয় নতুন বলের সুযোগ হওয়া মাত্র নিতে দেরি করেনি অস্ট্রেলিয়া। তবে ২ ওভার বোলিংয়ের পরই আলোকস্বল্পতায় শেষ দিনের খেলা। বাটলার তখন অপরাজিত ৬৪ রানে। নবম উইকেটে লিচের সঙ্গে জুটি হয়ে গেছে ৪৫ রানের। ইংল্যান্ড দিন শেষ করেছে কিছুটা স্বস্তিতে।
সংক্ষিপ্ত স্কোর:
ইংল্যান্ড ১ম ইনিংস: ৮২ ওভারে ২৭১/৮ (বার্নস ৪৭, ডেনলি ১৪, রুট ৫৭, স্টোকস ২০, বেয়ারস্টো ২২, বাটলার ৬৪*, কারান ১৫, ওকস ২, আর্চার ৯, লিচ ১০*; কামিন্স ২২.৫-৫-৭৩-২, হেইজেলউড ২১-২-৭৬-২, সিডল ১৭-১-৬১-০, মার্শ ১৬.১-৪-৩৫-৪, লায়ন ৪-০-১২-০,লাবুশেন ১-০-৫-০)।

 

অনির্দিষ্টকালের জন্য টেস্ট থেকে অবসরে ওয়াহাব রিয়াজ
                                  

 আরো বেশি সীমিত ওভারের ক্রিকেট খেলতে টেস্ট থেকে অনির্দিষ্টকালের জন্য বিরতি নিয়েছেন পাকিস্তানি পেসার ওয়াহাব রিয়াজ। বৃহস্পতিবার (১২ সেপ্টেম্বর) এই বাঁ-হাতি বোলার জানান, কায়েদ-ই-আজম ট্রফি এবং লাল বলের ক্রিকেট থেকে অনির্দিষ্টকালের জন্য বিরতি নেওয়ার সিদ্ধান্তের কথা। পাকিস্তান ক্রিকেট বোর্ডকে (পিসিবি) দেওয়া এক বিবৃতিতে রিয়াজ জানান, ‘গত দুই বছর ধরে লাল বলের ক্রিকেট আমার পারফর্ম্যান্স এবং আসন্ন সীমিত ওভারের ক্রিকেটে নিয়ে পুনর্বিচার করার পরে, আমি সিদ্ধান্ত নিয়েছি প্রথম শ্রেণীর ক্রিকেট থেকে কিছুদিন বিরতি নেওয়ার।

৩৪ বছর বয়সী তারকা আরো বলেন, ‘এই সময়, আমি ৫০ ও ২০ ওভারের ক্রিকেটের দিকে নজর দেবো, এবং দীর্ঘ পরিসরের ম্যাচের জন্য আমার ফিটনেস নিয়ে কাজ করব। এই পর্যায়ে আমি অনুভব করছি, কেবল খেললেই হবে না, লাল বলে পারফর্মও করতে হবে। এছাড়াও লাল বল থেকে অনির্দিষ্টকালের জন্য বিরতিতে যাওয়ার বিষয়টা সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে জানিয়েছেন রিয়াজ। নিজের অফিসিয়াল টুইটারে তিনি লিখেন, ‘পরিবার এবং বোর্ডের সঙ্গে অনেক আলোচনা ও চিন্তা-ভাবনার পরে, আমি সিদ্ধান্ত নিয়েছি লাল বলের ক্রিকেট থেকে কিছুদিন বিরতি নেওয়ার এবং দেশের জন্য স্বল্প দৈর্ঘ্যরে ক্রিকেটে আমার ফিটনেস ধরে রাখতে চাই। এটা খুব কঠিন সিদ্ধান্ত এবং এই সময়ে আমাকে সমর্থন দেওয়ার জন্য বোর্ড এবং আমার অভিভাবকদের প্রতি আমি কৃতজ্ঞ।

রিয়াজ শেষ টেস্ট খেলেছেন ২০১৮ সালের অক্টোবরে, অস্ট্রেলিয়ার বিপক্ষে। ২০১৭ সালে খেলেছেন মাত্র ৪টি টেস্ট। সাদা পোশাকের ক্রিকেটে রিয়াজের অভিষেক হয় ২০১০ সালে। পাকিস্তানের হয়ে ২৭ টেস্টে ৮৩ উইকেট নিয়েছেন তিনি। যার মধ্যে দু’বার পেয়েছেন পাঁচ উইকেট।

 

নতুন শুরুর আশায় বাংলাদেশ
                                  

প্রত্যাশিত ফলাফল আসেনি বিশ্বকাপে। শ্রীলঙ্কা সফরেও ধবলধোলাই হয়েছিল বাংলাদেশ। ঘরের মাঠে একমাত্র টেস্টে আফগানিস্তানের কাছে নাকাল হয়েছে সাকিব আল হাসানের দল। সবমিলিয়ে গত কয়েক মাসে মাঠের ক্রিকেটে বাংলাদেশের সময়টা ভালো কাটেনি।

গতকাল বিকেলে ত্রিদেশীয় সিরিজের ট্রফি উন্মোচন অনুষ্ঠানে নতুন জার্সি গায়ে হাজির হয়েছিলেন বাংলাদেশের টি-টোয়েন্টি অধিনায়ক সাকিব। জার্সিতে লাল, সবুজ রঙের সম্মিলন রয়েছে। গত কয়েক মাসে ওয়ানডে টেস্টে ব্যর্থতার বৃত্ত ভাঙতে ক্রিকেটের খুদে সংস্করণের দিকে তাকিয়ে বাংলাদেশ। আজ থেকে শুরু হতে চলা ত্রিদেশীয় টি-২০ সিরিজে নতুন শুরুর আশা করছে বাংলাদেশ।

যদিও টি-২০ ফরম্যাটে দলগতভাবে টাইগারদের পারফরম্যান্স খুব আশাবাদী হতে বলে না। ৮৫ টি-টোয়েন্টি ম্যাচে জয় মাত্র ২৬টি। তবে টানা ব্যর্থতায় দেয়ালে পিঠ ঠেকে যাওয়া বাংলাদেশ এখন ছন্দে ফিরতে মরিয়া। ত্রিদেশীয় সিরিজ দিয়েই নিজেদের সেরা ছন্দ খুঁজে পাওয়ার আশায় আছে বাংলাদেশ দল।

আরও পড়ুন : ছাত্রলীগের দেড় শতাধিক নেতা মাদকে সম্পৃক্ত!

নতুন শুরুর মিশনে প্রথম ম্যাচেই জিম্বাবুয়েকে প্রতিপক্ষ হিসেবে পাচ্ছে সাকিব বাহিনী। আজ ত্রিদেশীয় সিরিজের উদ্বোধনী ম্যাচে জিম্বাবুয়ের বিপক্ষে মাঠে নামবে বাংলাদেশ। মিরপুর শেরে বাংলা স্টেডিয়ামে ম্যাচ শুরু হবে সন্ধ্যা সাড়ে ৬টায়।

পরাজয়ের বৃত্ত ভাঙতে আজ জিম্বাবুয়ের বিরুদ্ধে নিজেদের সেরাটা নিংড়ে দিবে বাংলাদেশ। গতকাল ম্যাচপূর্ব সংবাদ সম্মেলনে এই আশাবাদ ব্যক্ত করেছেন বাংলাদেশের হেড কোচ রাসেল ডমিঙ্গো।

প্রোটিয়া এই কোচ বলেছেন, ‘আমরা এক ম্যাচ করে জিতে এগিয়ে যেতে চাই। টি-২০ ক্রিকেটে নির্দিষ্ট দিনে যে কোনো দল হারাতে পারে যে কোনো দলকে। কালকের (আজ) ম্যাচে জয়ের নিশ্চয়তা আমি দিতে পারব না। কিন্তু আমি যেটা বলতে পারি আমরা নিজেদের সেরা পারফরম্যান্সটা দিব এটা নিশ্চিত।’

এদিকে সম্প্রতি নানাবিধ জটিলতায় কিছুটা টালমাটাল রয়েছে জিম্বাবুয়ে দল। অবশ্য প্রস্তুতি ম্যাচে বিসিবি একাদশকে হারিয়ে বেশ আত্মবিশ্বাসী হ্যামিল্টন মাসাকাদজার দল। কন্ডিশন বেশ পরিচিত বলে স্বাগতিক বাংলাদেশকে হারানোর বিশ্বাসটা রয়েছে জিম্বাবুয়ে দলে। আর ফরম্যাটটা টি-টোয়েন্টি বলে আরো সাহস পাচ্ছে মাসাকাদজা বাহিনী। গতকাল সংবাদ সম্মেলনে এমনটাই বলেছেন জিম্বাবুয়ের অধিনায়ক।

পাকিস্তান, ভারতীয় ষড়যন্ত্র দেখছে
                                  

শ্রীলংকার ১০ ক্রিকেটারের পাকিস্তান সফরে না যাওয়ার সিদ্ধান্তকে ভারতীয় ষড়যন্ত্র মনে করছে পাকিস্তান। আসন্ন সফরে শ্রীলংকার শীর্ষ ১০ খেলোয়াড় পাকিস্তান না যাওয়ার সিদ্ধান্ত নিয়েছেন। এরপরই পাকিস্তানের বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি মন্ত্রী ফাওয়াদ হোসেন বলেন, শ্রীলংকার খেলোয়াড়দের হুমকি দিয়েছে ভারত। মন্ত্রীর দাবি, পাকিস্তান সফরে গেলে আইপিএল চুক্তি বাতিল করা হবে বলে ভারত ‘শ্রীলংকান খেলোয়াড়দের হুমকি’ দিয়েছে।

এক টুইটে চৌধুরী বলেন, ‘বিষয়টি সম্পর্কে ক্রিকেট ধারাভাষ্যকাররা আমাকে জানিয়েছে, ভারত শ্রীলংকার খেলোয়াড়দের হুমকি দিয়েছে। পাকিস্তান সফরে অস্বীকৃতি না জানালে আইপিএল তেকে বাদ দেয়া হবে। এটা খুবই নীচু মানসিকতা, উগ্র জাতীয়তাবাদ। ক্রীড়াঙ্গণে আমরা এমন ঘটনার নিন্দা জানাই। ভারত খুব নীচু মানসিকতার পরিচয় দিয়েছে।

শ্রীলংকান ক্রিকেট বোর্ডের নিরাপত্তা বিষয়ক একটি ব্রিফিং শেষে দেশটির শীর্ষ দশ খেলোয়াড় টি-২০ অধিনায়ক লাসিথ মালিঙ্গা, অ্যাঞ্জেলো ম্যাথুজ, দিনেশ চান্ডিমাল, থিসারা পেরেরা, আকিলা ধনঞ্জয়া, সুরাঙ্গা লাকমল, দিমুথ করুনারতেœ, ধনঞ্জয়া ডি সিলভা, কুশল পেরেরা এবং নিরোশান ডিকবেলা ২৭ সেপ্টেম্বর শুরু হওয়া পাকিস্তান সফর শেষে নিজেদের নাম প্রত্যাহার করেছেন। আসন্ন সফরে তিনটি করে ওয়ানডে ও টি-২০ ম্যাচ খেলার কথা ছিল শ্রীলংকা ক্রিকেট দলের।

এবারের বিপিএলের নাম ‘বঙ্গবন্ধু বিপিএল’
                                  

 এবারের বিপিএল নিয়ে ফ্র্যাঞ্চাইজিগুলোর সঙ্গে বিসিবির নানা টানাপোড়েনের মধ্যে এলো চমকপ্রদ ঘোষণা। কোনো ফ্র্যাঞ্চাইজিকেই কোনো দল দেওয়া হচ্ছে না এবারের বিপিএলে। বিসিবি নিজেরাই চালাবে এই আসর। সবগুলো দল পরিচালনা করা হবে বিসিবি নিজস্ব ব্যবস্থাপনায়। বঙ্গবন্ধুর জন্মশতবার্ষিকীকে সামনে রেখে এবারের বিপিএলের নাম ‘বঙ্গবন্ধু বিপিএল। বুধবার দুপুরে বিসিবিতে সংবাদ সম্মেলনে এই ঘোষণা দেন বিসিবি সভাপতি নাজমুল হাসান।

পূর্ব নির্ধারিত সময় ৬ ডিসেম্বর থেকেই হবে বিপিএল। তার আগে ৩ ডিসেম্বর হবে উদ্বোধনী অনুষ্ঠান। ফ্র্যাঞ্চাইজিগুলোর বিভিন্ন দাবি-দাওয়ার সঙ্গে বিসিবি কোনো মতেই মানিয়ে নিয়ে পারছে না বলে জানিয়েছেন বিসিবি সভাপতি। তবে মূল কারণ হিসেবে উল্লেখ করলেন বঙ্গবন্ধুরকে সম্মান জানানো। “...এটির পেছনে সবচেয়ে বড় কারণ হচ্ছে, আপনারা জানেন আগামি বছর বঙ্গবন্ধুর জন্মশতবার্ষিকী। আমরা চাচ্ছি, এবারের বিপিএল আমরা বঙ্গবন্ধুর নামে উৎসর্গ করব। ‘বঙ্গবন্ধু বিপিএল’আয়োজন করে এবছর আমরা চালাব। বঙ্গবন্ধুর জন্মশতবার্ষিকী উপলক্ষে আগামি মার্চে বিশ্ব একাদশ ও এশিয়া একাদশের টি-টোয়েন্টি সিরিজের ঘোষণা আগেই দিয়েছিল বিসিবি। বঙ্গবন্ধুর প্রতি সম্মানকে সবচেয়ে বড় কারণ বলা হলেও নিজেরাই সব দল পরিচালনার এই বিস্ময় জাগানিয়া সিদ্ধান্তের পেছনে ফ্র্যাঞ্চাইজিগুলোর সাংঘর্ষিক দাবির কথাই আগে বললেন বিসিবি সভাপতি।

“এবার ফ্র্যাঞ্চাইজিগুলোর নতুন চুক্তি হওয়ার কথা। তাদের সঙ্গে আমরা বসেছিলাম। বসে যে আলোচনা হয়েছে এবং সংবাদমাধ্যমে আমরা যা দেখেছি, আমার সঙ্গে সরাসরি আলোচনা হয়েছে, সব কিছু থেকে আমি বলতে পারি, কয়েকটি ফ্র্যাঞ্চাইজির বেশ কিছু দাবি-দাওয়া আছে। ওই দাবিগুলো বিপিএলের অরিজিনাল মডিউলের সঙ্গে পুরোপুরিই সাংঘর্ষিক। কোনোভাবেই মানিয়ে নিতে পারছি না। “আবার কয়েকটি ফ্র্যাঞ্চাইজি বলেছে যে, এই বছর দুটি বিপিএল না হোক, সেটিকেই তারা বেশি উপযুক্ত মনে করে। খেলবে না, তা নয়। তবে এক বছরে দুটি খেললে তাদের ওপরে চাপ বেশি পড়ে যায়। সবকিছু মিলিয়ে আমরা ঠিক করেছি, এবারের বিপিএল বিসিবি নিজেরাই চালাবে। কোনো ফ্র্যাঞ্চাইজিকে আমরা দিচ্ছি না। ‘নিজেরাই চালানো ‘ ব্যাপারটির ব্যখ্যাও করলেন বিসিবি সভাপতি। ফুটে উঠল ফ্র্যাঞ্চাইজিগুলোর প্রতি ক্ষোভ ও বিরক্তি। “প্রত্যেকটি দল যা ছিল, ঠিক থাকবে। শুধু ব্যবস্থাপনায় বিসিবি। ক্রিকেটারদের থাকা-খাওয়া, টাকা-পয়সা, গাড়ী, সব আমরা করব। আমি মনে করি, এত সবাই খুশি হবে। যারা এবার করতে চাচ্ছিলেন না, তারা তো অবশ্যই খুশি হবেন। যারা আর্থিক ক্ষতির কথা বলছেন, তারা তো আরও বেশি খুশি হবেন। তাদের পুরো টাকা বেঁচে যাবে। তো আমরা ঠিক করেছি, আমরাই চালাব। বিসিবি সভাপতির দাবি, অস্ট্রেলিয়ার ঘরোয়া টি-টোয়েন্ট টুর্নামেন্টের আদলে এটি পরিচালনা করা হবে, “আপনারা বিগ ব্যাশের কথা চিন্তা করতে পারেন। একইরকম ফরম্যাট। বিসিবির ব্যবস্থাপনায় সব পরিচালনা করা হলেও নাজমুল হাসান জানালেন, দলগুলির জন্য স্পন্সর নিতে তাদের আপত্তি নেই।

এমনকি কোনো দলের স্পন্সর চাইলে বিদেশী কোচ বা বিদেশী ক্রিকেটারও দলে নিতে পারবে। গত আসরের মতো সাতটি দল থাকবে এবারও। দলগুলির নাম আগের নামেই রাখার চেষ্টা করা হবে বলে জানালেন বিসিবি প্রধান। ফ্র্যাঞ্চাইজিগুলোর কোন দাবিগুলো সাংঘর্ষিক, সেসব পুরো খুলে বলেননি নাজমুল হাসান। তবে বেশ কটি ফ্র্যাঞ্চাইজি বিপিএলের রাজস্বের ভাগ দেওয়ার যে দাবি করেছিল, সেটি নিয়ে তিনি বললেন আলাদা করে। জানিয়ে দিলেন বিসিবির ভাবনা। “রাজস্বের ভাগ দেওয়া সম্ভব নয়। ব্যস, বলে দিলাম। আমাদের ৮০ কোটি টাকা করে দিক, আমরা ৪০ কোটি টাকা দিয়ে দেব। ৮ কোটি টাকা করে নেওয়া হতো ফ্র্যাঞ্চাইজিদের কাছ থেকে (ফ্র্যাঞ্চাইজি ফি), আমরা ১ কোটি টাকায় নামিয়ে এনেছি। ৭ কোটি তো ছেড়েই দিলাম, আবার কী চায়! নিয়মের মধ্যে থেকে কোনো ফ্র্যাঞ্চাইজি না পেলে এবারের পরের আসরও প্রয়োজনে বিসিবি চালাবে বলে জানিয়ে দিয়েছেন বিসিবি সভাপতি। “আমরা সব আইন লিখে বুকলেট ছাপিয়ে দেব। তার পর সেসব মেনে কেউ যদি আসতে চায় তো আসবে, নইলে আমরাই চালাব। ভবিষ্যৎ ফ্র্যাঞ্চাইজিদের জন্য আরেকটি গুরুত্বপূর্ণ বার্তা দিয়েছেন বাংলাদেশ ক্রিকেটের নিয়ন্তা সংস্থার প্রধান। বিপিএলকে ব্যবসার উপলক্ষ হতে দিতে চান না তিনি। “একটা কথা মনে রাখবেন, আমরা চাই, বিপিএলে যারা আসবে, তারা দেশের ক্রিকেটের উন্নয়নের জন্য, ক্রিকেটারদের উন্নয়নের জন্য আসবেন। ব্যবসা করার জন্য নয়। এখানে লাভের সুযোগ নেই। “শোনেন, আর্থিক ক্ষতিই যদি হয় (ফ্র্যাঞ্চাইজিগুলোর), ৮০ লাখ টাকার ক্রিকেটারকে ৪ কোটি টাকা দিয়ে নিত না। ক্ষতি হলে নিশ্চয়ই এত টাকা দিয়ে নিত না! অবশ্যই লাভ করে, আরও লাভ করতে চায়। ব্যবসার জন্য না এলে বা পেশাদারীত্বের জায়গা না থাকলে বিপিএলের সামনের পথচলা নিয়েও শঙ্কা থাকে যথেষ্টই। টুর্নামেন্টের ভবিষ্যৎ কি তাহলে অন্ধকার? বিসিবি সভাপতি উড়িয়ে দিলেন সেই ভাবনাকে। “অন্ধকার কেন? আমরা চালাব! কী অন্ধকার? বিসিবি চালাতে পারে না।

অন্ধকার কী দেখছেন, আমি তো দেখছি না। ফ্র্যাঞ্চাইজিগুলোর সঙ্গে বিসিবির এবার টানাপোড়েনের শুরু কিছুদিন আগে। গত ৪ অগাস্ট সংবাদ সম্মেলনে বিপিএল গভর্নিং কাউন্সিল জানায়, ফ্র্যাঞ্চাইজিগুলোর সঙ্গে বিসিবির প্রথম চক্রের ৬ বছরের চুক্তির মেয়াদ শেষ গতবছরই। এ বছর থেকে নতুন চক্রে নতুন করে চুক্তি করতে হবে সব ফ্র্যাঞ্চাইজিকেই। তবে গত বছর চুক্তির মেয়াদ শেষ হলেও এবারের বিপিএলের জন্য বিভিন্ন ক্রিকেটারদের দলে নেওয়ার কাজ এগিয়ে নিচ্ছিল বিভিন্ন ফ্র্যাঞ্চাইজি। আনুষ্ঠানিক ঘোষণা না দিলেও তামিম ইকবালকে নিশ্চিত করেছিল খুলনা টাইটানস, মুশফিকুর রহিমকে দলে নেওয়ার ঘোষণা দিয়েছিল কুমিল্লা ভিক্টোরিয়ান্স। এরপর গত ৩১ জুলাই রংপুর রাইডার্স বড় আয়োজন করে জানায় সাকিব আল হাসানকে দলে নেওয়ার খবর। বেশকজন বিদেশী ক্রিকেটারের সঙ্গেও দলগুলির কথা হয়ে গিয়েছিল।

এসবের প্রেক্ষিতেই বিপিএল গভর্নিং কাউন্সিল বলেছিল, ক্রিকেটারদের সঙ্গে দলগুলির চুক্তির কোনো ভিত্তি নেই। কারণ, ফ্র্যাঞ্চাইজির চুক্তির মেয়াদই শেষ! এরপর আলাদা করে সবগুলি ফ্র্যাঞ্চাইজির সঙ্গে আলোচনায় বসেছিল বিসিবি। দুই পক্ষের নানা টানাপোড়েনের মধ্যে এবার বিপিএল হবে কিনা, এ নিয়ে অনেক গুঞ্জন চলছিল। শেষ পর্যন্ত এলো এই ঘোষণা। এখন যদি আবার ফ্র্যাঞ্চাইজিগুলো ফিরতে চায় এবারের বিপিএলে? নাজমুল হাসানের উত্তর, “এগুলো সব শেষ... আর কোনো সুযোগ নেই। এখন সবাইকে নিয়মের মধ্যে আসতে হবে।”

 

রোনালদোর হ্যাটট্রিকে লিথুনিয়াকে ৫-১ গোলে হারিয়েছে পর্তুগাল
                                  

ক্রিস্টিয়ানো রোনালদোর হ্যাটট্রিকে লিথুনিয়াকে ৫-১ গোলে হারিয়েছে পর্তুগাল। পাঁচ গোলের মধ্যে রোনালদো একাই করেছেন চার গোল।

 

মঙ্গলবার দিবাগত রাতে ২০২০ ইউরো বাছাই পর্বের ‘বি’ গ্রুপে স্বাগতিক লিথুনিয়ার বিপক্ষে খেলতে নামে পর্তুগাল। ম্যাচের ৭ মিনিটে পেনাল্টি থেকে গোল করে দলকে এগিয়ে নেন রোনালদো। তবে ম্যাচের ২৮ মিনিটে অন্ডুসকেভিয়াস গোল করলে সমতায় ফেরে লিথুনিয়া। ১-১ ব্যবধানে সমতা নিয়ে বিরতিতে যায় দুই দল।

 

দ্বিতীয়ার্ধের শুরু থেকে লিথুনিয়াকে চেপে ধরে পর্তুগাল। ম্যাচের ৬১ মিনিটে রাফা সিলভার পাস থেকে নিজের দ্বিতীয় গোল করেন রোনালদো। ম্যাচের ৬৫ মিনিটে হ্যাটট্রিক করেন সিআর সেভেন। এবার বার্নাদো সিলভার পাস থেকে বল পেয়ে গোলটি করেন তিনি।

ম্যাচের ৭৬ মিনিটে নিজের চতুর্থ গোলটি করেন রোনালদো। শেষে সময়ে উইলিয়াম কারভালহো গোল করলে ৫-১ ব্যবধানে জয় নিয়ে মাঠ ছাড়ে পর্তুগাল।

লাওতারো মার্টিনেজের হ্যাটট্রিকে মেক্সিকোকে উড়িয়ে দিলো আর্জেন্টিনা
                                  

মেক্সিকোর বিপক্ষে ৪-০ গোলের বিশাল জয় পেয়েছে তারুণ্যে গড়া আর্জেন্টিনা। দলের পক্ষে লাওতারো মার্টিনেজ তিনটি ও লিওনার্দো প্যারাদেস একটি গোল করেছেন।

ম্যাচের ১৭ মিনিটের মাথায় দুর্দান্ত গোল করে দলকে এগিয়ে দেন মার্টিনেজ। মিডফিল্ড থেকে পাওয়া বল চারজনকে ফাকি দিয়ে জালে জড়ান ইন্টার মিলানের এই তারকা স্ট্রাইকার। ২২ মিনিটেই ব্যবধান দ্বিগুণ করে ফেলে মেসিহীন আর্জেন্টিনা। ৩৩ মিনিটের মাথায় পেনাল্টি থেকে গোল করে দলকে আরো এগিয়ে দেন লিওনার্দো প্যারাদেস। প্রথমার্ধের আগেই জাতীয় দলের হয়ে প্রথম হ্যাটট্রিক আদায় করেন মার্টিনেজ।

দ্বিতীয়ার্ধে কোনো দলই গোলের দেখা পায়নি। নির্ধারিত ৯০ মিনিটের খেলা শেষে স্কোর আর্জেন্টিনা ৪-০ মেক্সিকো।

অনভিজ্ঞ আফগানিস্তানের কাছে হারলো অভিজ্ঞ বাংলাদেশ
                                  

 চট্টগ্রাম টেস্টে ১১৫তম ম্যাচ খেলতে নামে বাংলাদেশ ক্রিকেট দল। আর বাংলাদেশের প্রতিপক্ষ আফগানিস্তানের এটি ছিলো তৃতীয় টেস্ট। ১১২ ম্যাচের বেশি টেস্ট খেলার অভিজ্ঞতা নিয়েও আফগানিস্তানের মত নতুন দলের কাছে ২২৪ রানের বিশাল ব্যবধানে হেরে গেলো বাংলাদেশ। ৩৯৮ রানের লক্ষ্যে ১৭৩ রানে অলআউট হয়ে নিজেদের ক্রিকেট ইতিহাসে লজ্জাস্কর হারের স্বাদ পেলো সাকিবের দল। আফগানিস্তান দুই ইনিংসে ৩৪২ ও ২৬০ রান করে। পক্ষান্তরে দুই ইনিংসে বাংলাদেশ সংগ্রহ করে যথাক্রমে ২০৫ ও ১৭৩। নিজেদের টেস্ট ইতিহাসে তৃতীয় ম্যাচে দ্বিতীয় জয় তুলে নিয়ে আফগানরা। ফলে বাংলাদেশের বিপক্ষে এক ম্যাচের সিরিজ ১-০ ব্যবধানে জিতলো আফগানিস্তান।

পঞ্চম ও শেষ দিনের সকাল থেকেই বৃষ্টি। চট্টগ্রামের জহুর আহমেদ স্টেডিয়ামের ম্যাচে বৃষ্টির দোলাচলে দুলছিলো বাংলাদেশ-আফগানিস্তানের খেলোয়াড়রা। তারপরও নিজের ভাব বজায় রেখেছিলো বৃষ্টি। তবে ১২টা ৪০ মিনিটে বৃষ্টি কমলে, দুপুর ১টায় খেলা শুরুর সিদ্বান্ত নেয় ম্যাচ পরিচালনাকারীরা। তখন দিনের ৬৩ ওভার খেলা বাকী ছিলো। যথারীতি ১টায় শুরু হয় খেলা। আগের দিনের আফগানিস্তানের ছুড়ে দেয়া ৩৯৮ রানের টার্গেটে খেলতে চতুর্থ দিন শেষে ৬ উইকেটে ১৩৬ রান করেছিলো বাংলাদেশ। ম্যাচ হারের পথও দেখে ফেলে টাইগাররা। কারণ পঞ্চম ও শেষ দিনে বাকী ৪ উইকেটে আরও ২৬২ রান করতে হবে বাংলাদেশকে। কিন্তু খেলা হয় মাত্র ১৩ বল। বৃষ্টির কারণে আবারো খেলা বন্ধ হয়ে যায়। এ সময় মাত্র ৭ রান যোগ করতে পারে বাংলাদেশ। ফলে স্কোর দাড়ায় ৬ উইকেটে ১৪৩ রান। তারপরও ম্যাচ নিয়ে আশায় বুক বেঁধেছিলো বাংলাদেশ।

কারন চতুর্থ দিন শেষে ম্যাচ নিয়ে আশার আলো শুনিয়েছিলেন বাংলাদেশ অধিনায়ক সাকিব আল হাসান। দিন শেষে বলেছিলেন, ‘টেস্ট জিততে হলে আর কত দরকার? ২৭০ (বাকী ছিলো ২৬২ রান)। এ অবস্থায় দুইজনকে সেঞ্চুরি করতে হবে। একজন ১৫০ আর অন্যজন ১২০ করলেই তো হয়ে যাবে। আর বৃষ্টি হলে তো অন্য কিছু।’ সাকিবের এমন সাহসিকতায় স্বপ্ন দেখতে শুরু করেছিলেন বাংলাদেশের ক্রিকেট ভক্তরা। দ্বাদশ বিশ্বকাপে সাকিবের অসাধারণ ব্যাটিং পারফরমেন্স চোখে ভেসে উঠে ভক্তদের। আবারো যদি জ¦লে সাকিবের ব্যাট, আবারো যদি জ¦লে উঠে সৌম্যর ব্যাট তবে পুঁচকে আফগানিস্তানের বিপক্ষে ম্যাচ জয় বা ড্র করা সম্ভব হবে। দ্বিতীয় দফায় বিকেল ৪টা ২০ মিনিটে আবারো খেলা শুরু হয়। বৃষ্টি বা আলো স্বল্পতা না হলে ১৮ দশমিক ৩ ওভার খেলা হবে। এমন সমীকরন নিয়ে ব্যাট হাতে নামেন সাকিব-সৌম্য। কিন্তু যে ব্যক্তিটি চতুর্থ দিন শেষে শুনিয়েছিলেন স্বপ্নের গল্প, সেই সাকিবই প্রথম বলেই আউট হন। আফগানিস্তানের বাঁ-হাতি স্পিনার জহির খানকে কাট করতে গিয়ে উইকেটের পেছনে ক্যাচ দেন সাকিব। ৪টি চারে ৫৪ বলে ৪৪ রান করেন সাকিব। এরপর সৌম্যকে নিয়ে উইকেটে টিকে থাকার মিশন শুরু করেন মেহেদি হাসান মিরাজ। আফগানিস্তানের বোলারদের বিপক্ষে রুখে দাঁড়ান তারা। এমন অবস্থায় ৫৩ বল মোকাবেলা করে বাংলাদেশকে চিন্তামুক্ত করছিলেন সৌম্য-মিরাজ। কিন্তু ৫৬তম ওভারের তৃতীয় বলে মিরাজকে লেগ বিফোর ফাঁদে ফেলেন আফগানিস্তানের অধিনায়ক রশিদ খান।

আম্পায়ার আউট দিলে, রিভিউ নেন মিরাজ। কিন্তু তাতেও লাভ হয়নি। আউট হন মিরাজ। এতে ভাঙ্গে সৌম্য-মিরাজ জুটি। বাংলাদেশ হারায় অষ্টম উইকেট। ২৮ বলে ১২ রান করেন মিরাজ। নয় নম্বরে উইকেটে গিয়ে ৬ বলের বেশি খেলতে পারেননি তাইজুল ইসলাম। শুন্য রানে রশিদের শিকার হন। এতে ম্যাচ হার বাংলাদেশের সময়ের ব্যাপার হয়ে দাঁড়ায়। কিন্তু স্বীকৃত ব্যাটসম্যান হিসেবে উইকেটে ছিলেন সৌম্য।


শেষ ব্যাটসম্যান নাইম হাসানকে নিয়ে মান-সম্মান বাঁচানোর লড়াই শুরু করেন সৌম্য। পরবর্তীতে ৪ ওভার টিকেও যান তারা। এতে দিনের খেলার আর মাত্র ২১বল বাকী ছিলো। কিন্তু রশিদের পরের ডেলিভারিতে শর্ট লেগে ইব্রাহিম জাদরানকে ক্যাচ দিয়ে নিজের উইকেট বিলিয়ে দেন সৌম্য। ফলে ২০ বল বাকী থাকতে লজ্জাজনকভাবে ম্যাচ হারে বাংলাদেশ। ১৭৩ রানে অলআউট হয় বাংলাদেশ। সৌম্য ১৫ রানে ফিরলেও ১ রানে অপরাজিত থাকেন নাইম। আফগানিস্তানের রশিদ ৪৯ রানে ৬টি, জহির ৫৯ রানে ৩টি ও নবী ৩৯ রানে ১টি উইকেট নেন। বল হাতে ১১ উইকেট ও ব্যাট হাতে ৭৫ রান করে এক ম্যাচের সিরিজের সেরা খেলোয়াড় হন আফগানিস্তানের রশিদ।

স্কোর কার্ড (টস-আফগানিস্তান) :
আফগানিস্তান প্রথম ইনিংস : ২৭১/৫, ৯৬ ওভার (রহমত ১০২, আসগর ৮৮*, জাজাই ৩৫*, নাইম ২/৪৩, তাইজুল ২/৭৩)।
বাংলাদেশ প্রথম ইনিংস : ২০৫/১০, ৭০.৫ ওভার (মোমিনুল ৫২, মোসাদ্দেক ৪৮*, রশিদ ৫/৫৫)।
আফগানিস্তান দ্বিতীয় ইনিংস : ২৬০/১০, ৯০.১ ওভার (জাদরান ৮৭, আসগর ৫০, সাকিব ৩/৫৮)।
বাংলাদেশ দ্বিতীয় ইনিংস : ১৭৩/১০, ৬১.৪ ওভার (সাকিব ৪৪, সাদমান ৪১, রশিদ ৬/৪৯)।

 

পর্তুগালের প্রথম জয়, জিতেছে ফ্রান্স-ইংল্যান্ড
                                  

 অনাকাক্সিক্ষত ঘটনার ম্যাচে ইউরো বাছাইয়ে প্রত্যাশিত জয় পেয়েছে ফ্রান্স। ‘এইচ’ গ্রুপের খেলায় আলবেনিয়াকে ৪-১ গোলে হারিয়েছে ফরাসিরা। অবশ্য ম্যাচের আগে অনাকাক্সিক্ষত ঘটনার জন্ম দেন আয়োজকরা। যখন আলবেনিয়ার জাতীয় সঙ্গীত প্রচার হওয়ার কথা ছিল তার বদলে ভুলে অ্যান্ডোরার জাতীয় সঙ্গীত ছেড়ে বসেন তারা। এমন ঘটনায় বিভ্রান্ত হয়ে পড়েছিলেন আলবেনিয়ার খেলোয়াড়রাও। এমন ঘটনায় ১০ মিনিট দেরিতে শুরু হয় খেলা। তারপর ম্যাচটি মাঠে গড়ালে আধিপত্য বিস্তার করে খেলেছে ফ্রান্স। কোমান ৮ মিনিটে এগিয়ে নেন দলকে। ২৭ মিনিটে জিরুদের গোলে দেখা মেলে দ্বিতীয় গোলের।

৬৮ মিনিটে জোড়া গোলটি করেন কোমান।৮৫ মিনিটে ইকোনের গোলে চতুর্থ গোলটি পায় তারা। অবশ্য শেষ দিকে পেনাল্টি থেকে একটি গোল শোধ দেয় আলবেনিয়া। এই জয়ে ৫ ম্যাচে ১২ পয়েন্ট নিয়ে শীর্ষে আছে ফ্রান্স। গ্রুপ ‘বি’ তে আগের দুই ম্যাচে ড্র করলেও অবশেষে প্রথম জয়ের দেখা পেয়েছে পর্তুগাল। কষ্টার্জিত জয়ে তারা সার্বিয়াকে হারিয়েছে ৪-২ গোলে। ইউরো ও নেশন্স লিগ চ্যাম্পিয়নদের হয়ে একটি করে গোল করেছেন কারভালহো (৪২ মিনিট), গুয়েদেস (৫৮ মিনিট), রোনালদো (৮০ মিনিট) ও সিলভা (৮৬ মিনিট)। সার্বিয়া গোল দুটি করেছে ৬৮ ও ৮৫ মিনিটে।

একটি করে গোল করেন মিলেনকোভিচ ও মিতরোভিচ। ‘বি’ গ্রুপে ৫ ম্যাটে ১৩ পয়েন্ট নিয়ে সবার উপরে ইউক্রেন। ৩ ম্যাচে ৫ পয়েন্ট নিয়ে পরেই আছে পর্তুগিজরা। অপর দিকে গ্রুপ ‘এ’ তে ইংল্যান্ড জিতেছে দাপট দেখিয়ে। বুলগেরিয়াকে তারা হারিয়েছে ৪-০ ব্যবধানে। হ্যারি কেইন দেখা পেয়েছেন হ্যাটট্রিকের। একটি করেছেন স্টারলিং। ৩ ম্যাচে ৯ পয়েন্ট নিয়ে সবার ওপরে আছে তারা।

অধিনায়ক আকবরের ব্যাটে চড়ে নেপালকে হারালো টাইগার যুবারা
                                  

চলতি যুব এশিয়া কাপে প্রথম ম্যাচে আরব আমিরাতকে হারানোর পর গতকাল নেপাল অনূর্ধ্ব ১৯ দলকেও ৬ উইকেটে হারিয়েছে বাংলাদেশ যুবারা। অধিনায়ক আকবর আলির নায়কোচিত এক ইনিংসে সেমিফাইনাল অনেকটাই নিশ্চিত বাংলাদেশ অনূর্ধ্ব ১৯ দলের। ২৬২ রানের লক্ষ্য তাড়ায় বাংলাদেশের শুরুটা হয় বাজে। ১৯ রানে ২ উইকেট হারিয়ে চাপে পড়া বাংলাদেশের শুরুর বিপর্যয় কাটান মাহমুদুল হাসান জয় ও তৌহিদ হৃদয়। দুজনে তৃতীয় উইকেট জুটিতে যোগ করেন ৭৯ রান। ৫৬ বলে ৪০ রান করে মাহমুদুল বিদায় নিলে ইনিংস মেরামতের কাজটা সামলান হৃদয়। অধিনায়ক আকবর আলিকে নিয়ে যোগ করেন ৩৪ রান।

৬০ রান করে হৃদয়ের বিদায়ের পর সামনে থেকে নেতৃত্ব দেন কাপ্তান আকবর আলি। বলের সঙ্গে পাল্লা দিয়ে বাড়া রানকে নিজেদের নিয়ন্ত্রণে আনার পথে তুলে নেন ফিফটি। প্রথমে খোলসবন্দী থাকলেও পরে রান তুলেন দ্রুতগতিতে। দলকে জিতিয়েই মাঠ ছাড়েন টাইগার কাপ্তান, তাকে যোগ্য সঙ্গ দেন শামিম হোসেন। দুজনের অবিচ্ছেদ্য ১৩০ রানের জুটিতে ৬ উইকেটের জয় পায় বাংলাদেশ যুবারা।৮২ বলে ১৪ চারে ৯৮ রানে আকবর আলি ও ৪২ রানে অপরাজিত থাকেন শামিম হোসেন। নেপালের হয়ে দুটি উইকেট নেন কমল সিং, একটি করে উইকেট নেন রাশিদ খান ও হরি চুহান। টস হেরে ব্যাট করা নেপাল পাওয়ান সরাফের ৮১ রানের ইনিংসের পর সন্দ্বীপ ঝোরার ঝড়ো ফিফটিতে ২৬১ রানের বড় পুঁজিই পায়। ৪৫ রানের জুটিতে ভালো শুরুই এনে দেন দুই ওপেনার। ৪৫ রানে রিত গৌতমকে (৩২) ফিরিয়ে জুটি ভাঙেন রাকিবুল হাসান।

গৌতম ফিরে গেলেও ৪১ তম ওভারে বাঁহাতি পেসার মৃত্যুঞ্জয়ের শিকার হয়ে পঞ্চম ব্যাটসম্যান হিসেবে যখন সরাফ প্যাভিলিয়নের ফিরছিলেন ততক্ষণে নামের পাশে লেখা হয়ে গেছে ৮১ রান। সরাফের বিদায়ে ১৭৩ রানেই ৫ উইকেট হারানো নেপাল নিজেদের সংগ্রহ বড় করে সন্দ্বীপ ঝোরার বিষ্ফোরক ইনিংসে ভর করে, ৬ষ্ঠ উইকেট জুটিতে বিম শারকিকে নিয়ে যোগ করেন ৭১ রান। মাত্র ৩৭ বলে ৩ চার ৩ ছক্কায় ৫৬ রান করে আউট হন ঝোরা। ২১ রান করা শারকিকে ফিরিয়ে জুটি ভাঙেন তানজিম সাকিব। একই ওভারে এক বলের ব্যবধানে ফিরে যান ঝোরাও। দুজনের বিদায়ের পর নেপাল থামে ৭ উইকেটে ২৬১ রানে। বাংলাদেশর হয়ে দুটি করে উইকেট নেন তানজিম সাকিব ও শাহীন আলম, একটি করে উইকেট ভাগাভাগি করেন মৃত্যুঞ্জয়, রাকিবুল, তৌহিদ হৃদয় ও মিনহাজুর রহমান।


   Page 1 of 177
     খেলাধূলা
ভ্যালেন্সিয়াকে উড়িয়ে বার্সার দাপুটে জয়
.............................................................................................
আজ আফগানিস্তানের মুখোমুখি আত্মবিশ্বাসী বাংলাদেশ
.............................................................................................
বেনজেমার জোড়া গোলে জয়ে ফিরল রিয়াল
.............................................................................................
ভারতের কাছে হারল বাংলাদেশ
.............................................................................................
একজন খেলোয়াড়-ক্রীড়ামোদি- একজন ভালো ছাত্র: উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান জাহিদুল ইসলাম রোমান
.............................................................................................
আফিফ ঝড়ে অবশেষে জিতলো বাংলাদেশ
.............................................................................................
মার্শের বোলিং চমক বাটলারের লড়াই
.............................................................................................
অনির্দিষ্টকালের জন্য টেস্ট থেকে অবসরে ওয়াহাব রিয়াজ
.............................................................................................
নতুন শুরুর আশায় বাংলাদেশ
.............................................................................................
পাকিস্তান, ভারতীয় ষড়যন্ত্র দেখছে
.............................................................................................
এবারের বিপিএলের নাম ‘বঙ্গবন্ধু বিপিএল’
.............................................................................................
রোনালদোর হ্যাটট্রিকে লিথুনিয়াকে ৫-১ গোলে হারিয়েছে পর্তুগাল
.............................................................................................
লাওতারো মার্টিনেজের হ্যাটট্রিকে মেক্সিকোকে উড়িয়ে দিলো আর্জেন্টিনা
.............................................................................................
অনভিজ্ঞ আফগানিস্তানের কাছে হারলো অভিজ্ঞ বাংলাদেশ
.............................................................................................
পর্তুগালের প্রথম জয়, জিতেছে ফ্রান্স-ইংল্যান্ড
.............................................................................................
অধিনায়ক আকবরের ব্যাটে চড়ে নেপালকে হারালো টাইগার যুবারা
.............................................................................................
জাতীয় বয়স ভিত্তিক সাঁতার ও ডাইভিং শুরু কাল
.............................................................................................
প্রত্যেক উপজেলায় যুব প্রশিক্ষণ কেন্দ্র হবে: ক্রীড়ামন্ত্রী
.............................................................................................
দেশকে মাদক ও অবক্ষয় থেকে রক্ষায় খেলাধুলার বিকল্প নেই: তথ্যমন্ত্রী
.............................................................................................
বৃষ্টির কবলে চট্টগ্রাম টেস্ট
.............................................................................................
জিম্বাবুয়ে বাংলাদেশে আসছে রাজাকে ছাড়া
.............................................................................................
টি-টোয়েন্টিতেও মালিঙ্গার ৪ বলে ৪ উইকেট
.............................................................................................
টি-শার্ট সেলাই করে গিনেস রেকর্ড করবে বাংলাদেশ
.............................................................................................
বাংলাদেশের সামনে ৩৭৪ রান এর বড় লক্ষ্য দাঁড় করাচ্ছে আফগানিস্তান
.............................................................................................
যে কোন সময় বার্সা ছাড়তে পারে মেসি: পিকে
.............................................................................................
আর্জেন্টাইন ক্লাবের কোচ মারাদোনা
.............................................................................................
অনূর্ধ্ব-১৯ এশিয়া কাপে বাংলাদেশের জয়ে শুরু
.............................................................................................
পাকিস্তানের হেড কোচ ও প্রধান নির্বাচক মিসবাহ
.............................................................................................
টেস্টে নতুন জার্সিতে টাইগারা
.............................................................................................
ভিডিও দেখে জহির খানের জন্য বাংলাদেশ ‘প্রস্তুত’
.............................................................................................
জহির-রশিদের স্পিন বার্তা দিয়ে রাখল বাংলাদেশকে
.............................................................................................
ল্যাঙ্গেভেল্ট পেস-ব্যাটারির ভোল্ট বাড়াবেন
.............................................................................................
জকোভিচ-ফেদেরার চতুর্থ রাউন্ডে
.............................................................................................
বিহারির সেঞ্চুরি, বিধ্বংসী বুমরাহ
.............................................................................................
ব্যাট-বলের জমজমাট লড়াই কিংস্টনে
.............................................................................................
ড্র ম্যাচেও উজ্জ্বল সাঈফ-নাঈম
.............................................................................................
টেস্ট দলে ফিরলেন মোসাদ্দেক-তাসকিন, থাকছে না মুস্তাফিজ
.............................................................................................
মায়ের জন্য ক্রিকেট খেলে ফরহাদ রেজা
.............................................................................................
আফিফের ফিফটি, শান্তর সেঞ্চুরি
.............................................................................................
বার্সার জয় গ্রিয়েজমানের নৈপুণ্যে
.............................................................................................
নিউ জিল্যান্ডের রেকর্ড গড়া জয় দুর্দান্ত বোলিংয়ে
.............................................................................................
শফিউল অতৃপ্ত ক্যারিয়ারে নতুন কিছুর আশায়
.............................................................................................
বার্সেলোনার কাছে পাত্তাই পেল না বেতিস
.............................................................................................
কিশোরদের সাফে ভুটানকে উড়িয়ে বাংলাদেশের শুরু
.............................................................................................
আর্চারের বোলিংয়ে পুড়ল অস্ট্রেলিয়ান ব্যাটিং
.............................................................................................
আফগান দলে বাংলাদেশ সফরে নতুনের ছড়াছড়ি
.............................................................................................
এক বছরের জন্য নিষিদ্ধ শাহজাদ
.............................................................................................
স্টোকসের সেঞ্চুরি ও লাবুশেন চমকের পর
.............................................................................................
বাংলাদেশ যাচ্ছে ওয়ার্ল্ড চ্যাম্পিয়নশিপে!
.............................................................................................
শ্রীলঙ্কার কাছে বিধ্বস্ত বাংলাদেশ ইমার্জিং টিম
.............................................................................................

|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
স্বাধীন বাংলা মো. খয়রুল ইসলাম চৌধুরী কর্তৃক সম্পাদিত ও ঢাকা-১০০০ হতে প্রকাশিত
প্রধান উপদেষ্টা: ফিরোজ আহমেদ (সাবেক সচিব, বাণিজ্য মন্ত্রণালয়)
উপদেষ্টা: আজাদ কবির
সম্পাদক মন্ডলীর সভাপতি: ডাঃ হারুনুর রশীদ
সম্পাদক মন্ডলীর সহ-সভাপতি: মামুনুর রশীদ
ব্যবস্থাপনা সম্পাদক : মো: খায়রুজ্জামান
যুগ্ম সম্পাদক: জুবায়ের আহমদ
বার্তা সম্পাদক: মুজিবুর রহমান ডালিম
স্পেশাল করাসপনডেন্ট : মো: শরিফুল ইসলাম রানা
যুক্তরাজ্য প্রতিনিধি: জুবের আহমদ
যোগাযোগ করুন: swadhinbangla24@gmail.com
    2015 @ All Right Reserved By swadhinbangla.com

Developed By: Dynamicsolution IT [01686797756]