| বাংলার জন্য ক্লিক করুন
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|

   খেলাধূলা -
                                                                                                                                                                                                                                                                                                                                 
আজ বিধ্বস্ত পাকিস্তানের মুখোমুখি হচ্ছে আত্মবিশ্বাসী বাংলাদেশ

 দ্বাদশ বিশ্বকাপে নিজেদের প্রথম প্রস্তুতিমূলক ম্যাচে আজ মাঠে নামছে বাংলাদেশ ক্রিকেট দল। এ ম্যাচে বাংলাদেশের প্রতিপক্ষ বিধ্বস্ত পাকিস্তান। গতরাতেই নিজেদের প্রথম প্রস্তুতিমূলক ম্যাচে আফগানিস্তানের কাছে ৩ উইকেটে হেরেছে পাকিস্তান। তবে নিজেদের প্রথম প্রস্তুতি ম্যাচে জয়ের স্বাদ পেতে চায় সদ্যই আয়ারল্যান্ডে ত্রিদেশীয় ওয়ানডে সিরিজে চ্যাম্পিয়ন হওয়া বাংলাদেশ। কার্ডিফের সোফিয়া গার্ডেন্সে বাংলাদেশ সময় বিকেল সাড়ে তিনটায় শুরু হবে বাংলাদেশ-পাকিস্তান ম্যাচটি।


বিশ্বকাপের প্রস্তুতি অনেক আগেই শুরু করে দিয়েছে বাংলাদেশ। চলতি মাসেই আয়ারল্যান্ডে ত্রিদেশীয় ওয়ানডে সিরিজে অংশ নেয় টাইগাররা। পুরো টুর্নামেন্ট জুড়ে পারফরমেন্সে উজ্জ্বল ছিলো বাংলাদেশ। স্বাগতিক আয়ারল্যান্ড ও ওয়েস্ট ইন্ডিজের বিপক্ষে দাপট দেখিয়ে অপরাজিত চ্যাম্পিয়ন হয় মাশরাফির দল।


বৃষ্টিবিঘিœত ফাইনালে ওয়েস্ট ইন্ডিজের বিপক্ষে দুর্দান্ত এক জয় তুলে নেয় বাংলাদেশ। ডাবলিনে ঐ ফাইনালে টস জিতে প্রথমে ফিল্ডিং বেছে নেয় মাশরাফির দল। বৃষ্টির কারণে ২৪ ওভারে নির্ধারিত ম্যাচে ১ উইকেটে ১৫২ রান করে ওয়েস্ট ইন্ডিজ। ফলে বৃষ্টি আইনে জয়ের জন্য ২৪ ওভারে ২১০ রানের টার্গেট পায় বাংলাদেশ। ওপেনার সৌম্য সরকারের ৪১ বলে ৬৬ রানের উড়ন্ত সূচনায় ভালোভাবেই লড়াইয়ে ছিলো টাইগাররা। আর শেষদিকে মোসাদ্দেক হোসেনের ২৭ বলে ২টি চার ও ৫টি ছক্কায় অপরাজিত ৫২ রান বাংলাদেশকে অবিস্মরণীয় জয় এনে দেয়।
বছরের শুরুতে নিউজিল্যান্ডের মাটিতে হোয়াইটওয়াশের পর বিশ্বকাপের আগে ত্রিদেশীয় সিরিজের শিরোপা জয় বাংলাদেশের আত্মবিশ্বাস বাড়িয়ে দিয়েছে অনেকখানি। পুরো টুর্নামেন্টে মাশরাফি, সাকিব, সৌম্য, তামিম, মুশফিক প্রায় সকল খেলোয়াড়ই ইন-ফর্মে ছিলেন। এই আসর দিয়ে ওয়ানডে অভিষেক হয় ডান-হাতি পেসার আবু জায়েদের। ওয়ানডে না খেলার অভিজ্ঞতা ছাড়াই বিশ্বকাপে তার সুযোগ প্রশ্ন তুলেছিলো। কিন্তু সিরিজে নিজেদের দ্বিতীয় ম্যাচে সুযোগ পেয়েই চমক দেখিয়েছেন জায়েদ। আয়ারল্যান্ডের বিপক্ষে ৯ ওভারে ৫৮ রানে ৫ উইকেট নেন।


বাংলাদেশ যেখানে আত্মবিশ্বাসে টগবগ করছে, সেখানে বিধ্বস্ত অবস্থায় রয়েছে পাকিস্তান। সংযুক্ত আরব আমিরাতে অস্ট্রেলিয়ার বিপক্ষে পাঁচ ও ইংল্যান্ড সিরিজে চারটিসহ টানা দশ ম্যাচ হারের ক্ষত নিয়ে বিশ্বকাপের মঞ্চে পা রাখে। মূল লড়াইয়ে নামার আগে নিজেদের প্রথম প্রস্তুতিমূলক ম্যাচে বড় ধরনের ধাক্কা খেল পাকিস্তান। আফগানিস্তানের কাছে হারের স্বাদ নেয় সরফরাজের দল। টস জিতে প্রথমে ব্যাট করে ৪৭ দশমিক ৫ ওভারে ২৬২ রানেই অলআউট হয় পাকিস্তান। জয়ের জন্য ২৬৩ রানের টার্গেট ২ বল বাকী রেখেই স্পর্শ করে ফেলে আফগানিস্তান।

আজ বিধ্বস্ত পাকিস্তানের মুখোমুখি হচ্ছে আত্মবিশ্বাসী বাংলাদেশ
                                  

 দ্বাদশ বিশ্বকাপে নিজেদের প্রথম প্রস্তুতিমূলক ম্যাচে আজ মাঠে নামছে বাংলাদেশ ক্রিকেট দল। এ ম্যাচে বাংলাদেশের প্রতিপক্ষ বিধ্বস্ত পাকিস্তান। গতরাতেই নিজেদের প্রথম প্রস্তুতিমূলক ম্যাচে আফগানিস্তানের কাছে ৩ উইকেটে হেরেছে পাকিস্তান। তবে নিজেদের প্রথম প্রস্তুতি ম্যাচে জয়ের স্বাদ পেতে চায় সদ্যই আয়ারল্যান্ডে ত্রিদেশীয় ওয়ানডে সিরিজে চ্যাম্পিয়ন হওয়া বাংলাদেশ। কার্ডিফের সোফিয়া গার্ডেন্সে বাংলাদেশ সময় বিকেল সাড়ে তিনটায় শুরু হবে বাংলাদেশ-পাকিস্তান ম্যাচটি।


বিশ্বকাপের প্রস্তুতি অনেক আগেই শুরু করে দিয়েছে বাংলাদেশ। চলতি মাসেই আয়ারল্যান্ডে ত্রিদেশীয় ওয়ানডে সিরিজে অংশ নেয় টাইগাররা। পুরো টুর্নামেন্ট জুড়ে পারফরমেন্সে উজ্জ্বল ছিলো বাংলাদেশ। স্বাগতিক আয়ারল্যান্ড ও ওয়েস্ট ইন্ডিজের বিপক্ষে দাপট দেখিয়ে অপরাজিত চ্যাম্পিয়ন হয় মাশরাফির দল।


বৃষ্টিবিঘিœত ফাইনালে ওয়েস্ট ইন্ডিজের বিপক্ষে দুর্দান্ত এক জয় তুলে নেয় বাংলাদেশ। ডাবলিনে ঐ ফাইনালে টস জিতে প্রথমে ফিল্ডিং বেছে নেয় মাশরাফির দল। বৃষ্টির কারণে ২৪ ওভারে নির্ধারিত ম্যাচে ১ উইকেটে ১৫২ রান করে ওয়েস্ট ইন্ডিজ। ফলে বৃষ্টি আইনে জয়ের জন্য ২৪ ওভারে ২১০ রানের টার্গেট পায় বাংলাদেশ। ওপেনার সৌম্য সরকারের ৪১ বলে ৬৬ রানের উড়ন্ত সূচনায় ভালোভাবেই লড়াইয়ে ছিলো টাইগাররা। আর শেষদিকে মোসাদ্দেক হোসেনের ২৭ বলে ২টি চার ও ৫টি ছক্কায় অপরাজিত ৫২ রান বাংলাদেশকে অবিস্মরণীয় জয় এনে দেয়।
বছরের শুরুতে নিউজিল্যান্ডের মাটিতে হোয়াইটওয়াশের পর বিশ্বকাপের আগে ত্রিদেশীয় সিরিজের শিরোপা জয় বাংলাদেশের আত্মবিশ্বাস বাড়িয়ে দিয়েছে অনেকখানি। পুরো টুর্নামেন্টে মাশরাফি, সাকিব, সৌম্য, তামিম, মুশফিক প্রায় সকল খেলোয়াড়ই ইন-ফর্মে ছিলেন। এই আসর দিয়ে ওয়ানডে অভিষেক হয় ডান-হাতি পেসার আবু জায়েদের। ওয়ানডে না খেলার অভিজ্ঞতা ছাড়াই বিশ্বকাপে তার সুযোগ প্রশ্ন তুলেছিলো। কিন্তু সিরিজে নিজেদের দ্বিতীয় ম্যাচে সুযোগ পেয়েই চমক দেখিয়েছেন জায়েদ। আয়ারল্যান্ডের বিপক্ষে ৯ ওভারে ৫৮ রানে ৫ উইকেট নেন।


বাংলাদেশ যেখানে আত্মবিশ্বাসে টগবগ করছে, সেখানে বিধ্বস্ত অবস্থায় রয়েছে পাকিস্তান। সংযুক্ত আরব আমিরাতে অস্ট্রেলিয়ার বিপক্ষে পাঁচ ও ইংল্যান্ড সিরিজে চারটিসহ টানা দশ ম্যাচ হারের ক্ষত নিয়ে বিশ্বকাপের মঞ্চে পা রাখে। মূল লড়াইয়ে নামার আগে নিজেদের প্রথম প্রস্তুতিমূলক ম্যাচে বড় ধরনের ধাক্কা খেল পাকিস্তান। আফগানিস্তানের কাছে হারের স্বাদ নেয় সরফরাজের দল। টস জিতে প্রথমে ব্যাট করে ৪৭ দশমিক ৫ ওভারে ২৬২ রানেই অলআউট হয় পাকিস্তান। জয়ের জন্য ২৬৩ রানের টার্গেট ২ বল বাকী রেখেই স্পর্শ করে ফেলে আফগানিস্তান।

মেসির অনন্য কীর্তি
                                  

মৌসুম জুড়ে দুর্দান্ত ফর্মে থেকে পিচিচি ট্রফি জয় নিশ্চিত করেছেন আগেই। সে ধারাবাহিকতায় এবার ইউরোপিয়ান গোল্ডেন শু জিতলেন লিওনেল মেসি। দুটি পুরস্কারই টানা তৃতীয়বারের মতো জিতলেন বার্সেলোনা তারকা।


এবারের লা লিগায় ৩৪ ম্যাচ খেলে মোট ৩৬ গোল করেন মেসি। সতীর্থদের দিয়েও ১৩টি গোল করান বার্সেলোনা অধিনায়ক।
১৯৬৮ সালে পুরস্কারটি দেওয়া শুরুর পর থেকে এই প্রথম টানা তিনবার তা জয়ের অনন্য কীর্তি গড়লেন ৩১ বছর বয়সী মেসি।
এর আগে ২০০৯-১০, ২০১১-১২ ও ২০১২-১৩ মৌসুমে পুরস্কারটি জিতেছিলেন লিওনেল মেসি।


ইউরোপের লিগগুলোর মধ্যে সর্বোচ্চ গোলের পুরস্কার গোল্ডেন শু জয়ের দৌড়ে ৩২ গোল নিয়ে লড়াইয়ে ছিলেন কিলিয়ান এমবাপে। মেসিকে ছাড়াতে শুক্রবার লিগ ওয়ানে স্তাদ দে রাঁসের বিপক্ষে পিএসজির শেষ ম্যাচে পাঁচ গোল করতে হতো ফরাসি ফরোয়ার্ডকে। ৩-১ ব্যবধানে দলের হারের ম্যাচে একবারের বেশি জালে বল পাঠাতে পারেননি তিনি।


তাতেই নিশ্চিত হয়ে যায় মেসির রেকর্ড ষষ্ঠবারের মতো পুরস্কারটি জয়। এমবাপের চেয়ে তিন লিগ গোল বেশি নিয়ে মৌসুম শেষ করলেন পাঁচবারের বর্ষসেরা ফুটবলার। দ্বিতীয় সর্বোচ্চ চারবার পুরস্কারটি জিতেছেন ক্রিস্তিয়ানো রোনালদো।

 

দ.আফ্রিকার কাছে লঙ্কানদের হার
                                  

বাজে সময় পেছনে ফেলে ছন্দে ফেরার আভাস মিলল হাশিম আমলার ব্যাটে। ঝড় তুললেন ফাফ দু প্লেসি। অলরাউন্ড নৈপুণ্যে আলো ছড়ালেন আন্দিলে ফেলুকওয়ায়ো। লঙ্কানদের টানলেন কেবল দিমুথ করুনারতেœ ও অ্যাঞ্জেলো ম্যাথিউস। তাদের লড়াই থামিয়ে প্রস্তুতি ম্যাচে শ্রীলঙ্কাকে সহজেই হারিয়েছে দক্ষিণ আফ্রিকা।
কার্ডিফে শুক্রবার ৮৭ রানে জিতেছে দু প্লেসির দল। ৩৩৮ রান তাড়ায় ৪২ ওভার ৩ বলে ২৫১ রানে গুটিয়ে যায় শ্রীলঙ্কা।
সোফিয়া গার্ডেনে টস হেরে ব্যাট করতে নেমে ব্যাটিং ঝালিয়ে নেওয়ার সুযোগ ভালোভাবেই কাজে লাগিয়েছে দক্ষিণ আফ্রিকা। ব্যাটিংয়ে নামা ক্রিকেটারদের মধ্যে দুই অঙ্ক ছুঁতে পারেননি কেবল ডেভিড মিলার।


৯ চারে ৬১ বলে ৬৫ রান করে ফিরেন আমলা। তিনে নেমে চার ছক্কা ও সাত চারে ৬৯ বলে ৮৮ রানের আক্রমণাত্মক ইনিংস খেলেন দু প্লেসি। শেষের দিকে দ্রুত রান তোলেন ফেলুকওয়ায়ো, ডোয়াইন প্রিটোরিয়াস ও ক্রিস মরিস। তাতে বড় সংগ্রহ গড়ে দক্ষিণ আফ্রিকা।
দুটি করে উইকেট নেন শ্রীলঙ্কার দুই পেসার সুরঙ্গা লাকমল ও নুয়ান প্রদিপ।


বড় রান তাড়ায় শূন্য রানে কুসল পেরেরাকে হারায় শ্রীলঙ্কা। বেশিক্ষণ টিকেননি লাহিরু থিরিমান্নে। ক্রিজে গিয়েই বোলারদের ওপর চড়াও হওয়া কুসল মেন্ডিস পারেননি নিজের ইনিংস খুব একটা বড় করতে।
বর্তমান ও সাবেক অধিনায়কের ব্যাটে প্রতিরোধ গড়ে লঙ্কানরা। চতুর্থ উইকেটে ৯৮ রানের জুটি গড়েন করুনারতেœ ও ম্যাথিউস। বিশ্বকাপের আগে নেতৃত্ব পাওয়া করুনারতেœকে থামান কাগিসো রাবাদা। শ্রীলঙ্কার ওপেনার ৯২ বলে ১২ চারে ফিরেন ৮৭ রান করে।
এরপর আর তেমন কোনো জুটি পায়নি শ্রীলঙ্কা। ৮১ রানে শেষ ৭ উইকেট হারিয়ে গুটিয়ে যায় ৪৩তম ওভারে। ৬৬ বলে ৬৪ রান করে ফিরেন ম্যাথিউস।
আট বোলারকে পরীক্ষা করিয়ে নেন দু প্লেসি। ৩৬ রানে ৪ উইকেট নিয়ে দলের সফলতম বোলার ফেলুকওয়ায়ো। লুঙ্গি এনগিডি ২ উইকেট নেন ১২ রানে।
আজ রোববার নিজেদের দ্বিতীয় প্রস্তুতি ম্যাচে ওয়েস্ট ইন্ডিজের মুখোমুখি হবে দক্ষিণ আফ্রিকা। পরদিন অস্ট্রেলিয়ার বিপক্ষে খেলবে শ্রীলঙ্কা।


সংক্ষিপ্ত স্কোর:
দক্ষিণ আফ্রিকা: ৫০ ওভারে ৩৩৮/৭ (আমলা ৬৫, মারক্রাম ২১, দু প্লেসি ৮৮, ফন ডার ডাসেন ৪০, মিলার ৫, দুমিনি ২২, ফেলুকওয়ায়ো ৩৫, প্রিটোরিয়াস ২৫*, মরিস ২৬*; লাকমল ২/৬৩, প্রদিপ ২/৭৭, থিসারা ০/৩১, উদানা ১/৪২, জিবন মেন্ডিস ১/৪৫, ভান্ডারসে ০/৩০, ডি সিলভা ১/৪৪)


শ্রীলঙ্কা: ৪২.৩ ওভারে ২৫১ (কুসল পেরেরা ০, করুনারতেœ ৮৭, থিরিমান্নে ১০, কুসল মেন্ডিস ৩৭, ম্যাথিউস ৬৪, ডি সিলভা ৫, জিবন মেন্ডিস ১৮, সিরিবর্ধনা ৫, থিসারা ৮*, ভান্ডারসে ৩, লাকমল ১; এনগিডি ২/১২, রাবাদা ১/৪০, মরিস ০/৩১, ফেলুকওয়ায়ো ৪/৩৬, তাহির ১/৩১, প্রিটোরিয়াস ১/৩৪, শামসি ০/৩৭, দুমিনি ১/২৭)
ফল: দক্ষিণ আফ্রিকা ৮৭ রানে জয়ী

প্রস্তুতি ম্যাচে ভারতকে হার উপহার দিল নিউজিল্যান্ড
                                  

আসন্ন ইংল্যান্ড বিশ্বকাপে নিজেদের অন্যতম ফেবারিট দাবি করা ভারতকে বলে-ব্যাটে উড়িয়ে দিয়ে বিশ্বকাপ প্রস্তুতি নিল নিউজিল্যান্ড। আসরের প্রথম প্রস্তুতি ম্যাচে ভারতকে ৬ উইকেটে হারায় কিউইরা।

শনিবার ইংল্যান্ডের লন্ডন ওভালের কেনিংসটনে টস জিতে প্রথমে ব্যাট করে ১৭৯ রানে গুটিয়ে যায় ভারত। সহজ লক্ষ্যে ব্যাট করতে নেমে উইলিয়ামসন ও টেইলরের অর্ধশতকে ৭৭ বল হাতে রেখে ৬ উইকেটের জয় পায় নিউজিল্যান্ড।

এর আগে প্রথমে ব্যাট করতে নেমে রবীন্দ্র জাদেজার ৫৪ রানের উপর ভর করে সব ক`টি উইকেট হারিয়ে ৩৯.২ ওভারে ১৭৯ রান করে ভারত।

 

স্কোর বোর্ডে মাত্র ২৪ রান যোগ করতেই তিন উইকেট হারায় ১৯৮৩ ও ২০১১ সালের বিশ্বকাপজয়ী দল ভারত। দলের ব্যাটিং ধসের দিনে বাড়তি দায়িত্বশীলতার পরিচয় দিতে পারেননি অধিনায়ক কোহলি। ৯১ রানে ৭ ব্যাটসম্যানের উইকেট হারিয়ে এক ঘরে হয়ে যায় ভারত। 

ইনিংসের দ্বিতীয় ওভারেই সাজঘরে ফেরেন ভারত সেরা ওপেনার রোহিত শর্মা। ওয়ানডে ক্রিকেটে তিনটি ডাবল সেঞ্চুরির ইতিহাস গড়া রোহিত ফেরেন মাত্র ২ রান করে। 

রোহিত শর্মা আউট হওয়ার ঠিক পরের ওভারেই প্যাভেলিয়নে ফেরেন অন্য ওপেনার শিখর ধাওয়ান। ট্রেন্ট বোল্টের দ্বিতীয় শিকারে পরিনত হন তিনি।

চার নম্বর পজিশনে ব্যাটিংয়ে নেমে পরিস্থিতি বুঝে ওঠার আগেই ট্রেন্ট বোল্টের বলে স্ট্যাম্প ভেঙে যায় লোকেশ রাহুলের। আইপিএলে কিংস ইলেভেন পাঞ্জাবের হয়ে দুর্দান্ত ব্যাটিং করা রাহুল ফেরেন ১০ বলে মাত্র ৬ রান করে।

ব্যাটিংয়ে নেমে পরিস্থিতি বুঝে ওঠার আগেই ট্রেন্ট বোল্টের বলে স্ট্যাম্প ভেঙে যায় লোকেশ রাহুলের। পরে চতুর্থ ব্যাটসম্যান হিসেবে কোলিন ডি গ্র্যান্ডহোমের বলে সাজঘরে ফেরত যান ভারতের অধিনায়ক বিরাট কোহলি। ভারতীয় অধিনায়ক বোল্ড হওয়ার আগে ২৪ বলে মাত্র ১০ রান করার সুযোগ পান তিনি।

এছাড়াও হার্দিক পাণ্ডিয়া ও দিনেশ কার্তিকও নিজেদের নামের বিচার করতে পারেনি। পাণ্ডিয়া ৩০ রান এবং কার্তিক ৪ রানে সাজঘরে ফিরেন। ধোনি আউট হন ১৭ রান করে। শেষ দিকে রবীন্দ্র জাদেজার ৫৪ এবং যাদবের ১৯ রানের উপর ভর করে ১৭৯ রান করে ভারত। ম্যাচে কিউইদের পক্ষে চার উইকেট নেন টেন্ট বোল্ড এবং নিশাম নেন তিন উইকেট। 

১৮০ রানের মামুলি স্কোর তাড়া করতে শুরুতেই বিপর্যয়ে পড়ে যায় নিউজিল্যান্ড। স্কোর বোর্ডে ৩৭ রান তুলতেই দুই ওপেনার কলিন মুনরো-মার্টিন গাপটিলের উইকেট হারায় ব্লাক ক্যাপসরা।

তৃতীয় উইকেটে দলের হাল ধরেন অধিনায়ক কেন উইলিয়ামসন ও রস টেইলর। এই জুটিতে তরা যৌথভাবে ফিফটি গড়ার পাশাপশি করেন ১১৪ রান।

জয়ের জন্য শেষ দিকে নিউজিল্যান্ডের প্রয়োজন ১২১ বলে মাত্র ২৯ রান। খেলার এমন অবস্থায় যুজবেন্দ্র চাহালের বলে ক্যাচ তুলে দিয়ে ফেরেন কেন উইলিয়ামসন। তার আগে ৮৭ বলে ছয়টি চার ও এক ছক্কায় ৬৭ রান করেন নিউজিল্যান্ড অধিনায়ক।

উইলিয়ামসনের বিদায়ের খানিক ব্যবধানে ফেরেন দুর্দান্ত ব্যাটিং করে যাওয়া রস টেইলর। রবিন্দ্র জাদেজার বলে বিরাট কোহলির হাতে ক্যাচ দিয়ে ফেরেন টেইলর। তার আগে ৭৫ বলে ৮টি চারের সাহায্যে ৭১ রান করেন তিনি

 
মাশরাফি আয়ারল্যান্ডের সাফল্যে পড়ে থাকতে চান না
                                  

 আয়ারল্যান্ড ছেড়ে বিশ্বকাপের দেশে চলে এসেছে বাংলাদেশ দল। তবে আয়ারল্যান্ডের সাফল্যের রেশ রয়ে গেছে এখনও। প্রথম আন্তর্জাতিক শিরোপার সুবাস যেন এখনই যাবার নয়! তবে অধিনায়ক মাশরাফি বিন মুর্তজার চাওয়া, ত্রিদেশীয় সিরিজের সাফল্যকে পেছনে ফেলে বিশ্বকাপে নিজেদের উজাড় করে দেওয়া।
বাংলাদেশের ক্রিকেটের দীর্ঘ প্রতীক্ষার অবসান হয়েছে আয়ারল্যান্ডে ত্রিদেশীয় সিরিজে। ফাইনালে ওয়েস্ট ইন্ডিজকে হারিয়ে পেয়েছে বহুজাতিক টুর্নামেন্টে প্রথম ট্রফির দেখা। শুধু শিরোপা খরা ঘোচানোই নয়, টুর্নামেন্ট জুড়ে দাপুটে ক্রিকেট খেলে চ্যাম্পিয়ন হয়েছে বাংলাদেশ।


বহু আরাধ্য ট্রফি বলেই এই উচ্ছ্বাসকে অস্বাভাবিক কিছু মনে করছেন না মাশরাফি। তবে এটিও মনে করিয়ে দিচ্ছেন, দুয়ারে দাঁড়িয়ে বিশ্বকাপ। উদযাপনের পালা থামিয়ে দলকে বিশ্বকাপে মন দিতে হবে।


“আয়ারল্যান্ডে জয়ের পর দলের আত্মবিশ্বাসী থাকাই উচিত। তবে এটা নিয়ে পড়ে থাকাও ঠিক হবে না। আত্মবিশ্বাস পেয়েছি, মাঠে গিয়ে সেটি দেখাতে হবে। কিন্তু জিতেছি, ভালো লাগা, এই অনুভূতি নিয়ে পড়ে থাকা ঠিক হবে না, আমি মনে করি।”
“প্রথম যে কোনো কিছুরই আলাদা আনন্দ থাকে। যেহেতু আমরা আগে ছয়বার ফাইনালে গিয়ে পারিনি, প্রথমবার পেরে দলের সবাই ভালো বোধ করছে। পাশাপাশি আমি এটিও বলব, এটা কিন্তু সাময়িক ব্যাপার। বিশ্বকাপের প্রথম ম্যাচ যখন খেলতে নাম, এসব কিছু পেছনে পড়ে যাবে। কোনো মূল্য থাকবে না। তাই লোকে কী বলছে, তা না ভেবে ২ জুনের ম্যাচ নিয়ে আমাদের ভাবা উচিত।”


২ জুন ওভালে দক্ষিণ আাফ্রিকার বিপক্ষে ম্যাচ দিয়ে শুরু বাংলাদেশের বিশ্বকাপ অভিযান। এই ম্যাচ তো বটেই, বিশ্বকাপে প্রথম তিনটি ম্যাচই বাংলাদেশের জন্য হতে পারে ভীষণ কঠিন। অধিনায়ক তাই এই সময়ই দলের কাছ থেকে দারুণ কোনো পারফরম্যান্স মনেপ্রাণে চাইছেন।


“প্রথম তিনটি ম্যাচ গুরুত্বপূর্ণ। দক্ষিণ আফ্রিকা, নিউ জিল্যান্ড ও ইংল্যান্ড এই কন্ডিশনে অভ্যস্ত। অন্যতম সেরা তিন দল। এক দিক থেকে ভালো যে এখান থেকে একটি-দুটি ম্যাচ বের করতে পারলে অনেক আত্মবিশ্বাস জন্মাবে। সেদিকেই মনোযোগ দিতে হবে। তবে আমার মনে হয় সবার আগে প্রথম ম্যাচটি নিয়ে ভাবতে হবে।”

৩৪ জনের প্রাথমিক দল ইনডোর এশিয়া কাপ হকি ক্যাম্পের জন্য
                                  

আগামী ১৫ জুলাই থেকে থাইল্যান্ডে শুরু হতে যাচ্ছে ইনডোর এশিয়া কাপ হকির অষ্টম আসর। এবারই প্রথমবারের মত এই প্রতিযোগিতায় অংশ নিবে বাংলাদেশ।
আসন্ন এই প্রতিযোগিতাকে সামনে রেখে প্রশিক্ষণ ক্যাম্পের জন্য প্রাথমিকভাবে ৩৪জন খেলোয়াড় মনোনীত করেছে বাংলাদেশ হকি ফেডারেশন। মনোনীত খেলোয়াড়দের আগামি ২৩ মে দুপুর ২.০০টায় কোচ জাহিদ হোসেন রাজু ও আশিকউজ্জামান এর কাছে রিপোর্ট করতে বলা হয়েছে।


মনোনীত খেলোয়াড়রা হলেন : অসীম গোপ, আবু সাঈদ নিপ্পন, বিপ্লব কুজুর, আল আমিন মিয়া, ইমরান হাসান পিন্টু, মো: খোরশেদুর রহমান, মো: ফরহাদ আহমেদ শিতুল, মো: আশরাফুল ইসলাম, কামরুজ্জামান রানা, সোহানুর রহমান সবুজ, সারোয়ার হোসেন, রোমান সরকার, নাঈম উদ্দিন, ফজলে হোসেন রাব্বি, রাসেল মাহমুদ জিমি, পুস্কর খীসা মিমো, মিলন হোসেন, মঈনুল হোসেন কৌসিক, মো: আরশাদ হোসেন, মো: মাহবুব হোসেন, দ্বীন ইসরাম ইমন, সারোয়ার মোর্শেদ শাওন, শফিউল আলম শিশির, হাসান জুবায়ের নিলয়, মো; মহসীন, আবেদ উদ্দিন, প্রিন্স লাল সামন্ত, রেজাউল করিম বাবু, মেহেদী হাসান, মো: রাকিন, রাজু আহমেদ তপু, আলি নাহিয়ান শুভ, সিফাত আহমেদ।

বাংলাদেশ বিশ্বকাপে নতুন রেকর্ড গড়তে চায়
                                  

 প্রথমবারের মত বিশ্বকাপ ক্রিকেটের সেমি-ফাইনালে খেলার মাধ্যমে নতুন রেকর্ড গড়তে চায় বাংলাদেশ। টুর্নামেন্টে অন্তত শেষ চারে খেলার প্রত্যাশা নিয়েই ইংল্যান্ড পৌঁছেছেন টাইগার অধিনায়ক মাশরাফি বিন মোর্তাজার দলটি। দলটির এই প্রত্যাশার পালে হাওয়া যোগাচ্ছে তাদের মুগ্ধ করা অতীত পারফর্মেন্স। বিশ্ব ক্রিকেটের বড় দলগুলোর জন্যও টাইগাররা এখন গুরুতর হুমকি হয়ে উঠেছে।


দুই বছর আগে চ্যাম্পিয়ন্স ট্রফির সেমি-ফাইনাল খেলার মাধ্যমে বাংলাদেশ প্রমাণ করেছে, যে কোন অভিজাত দলের সঙ্গে পাল্লা দেয়ার যোগ্যতা তাদের আছে। ওই আসরেও অস্ট্রেলিয়া, নিউজিল্যান্ড ও ইংল্যান্ডের মত শক্তিাশলী গ্রুপে পড়েছিল টাইগাররা। ওই স্মৃতিকে ধারণ করেই এবারের বিশ্বকাপে আরো বেশি কিছু অর্জন করার আশা নিয়ে ইংল্যান্ডে পৌঁছেছে টিম টাইগার। ২০১৫ সালের বিশ্বকাপের কেয়ার্টার ফাইনালে অংশগ্রহণের সুখ-স্মৃতিও বাংলাদেশের প্রত্যাশার পারদ বাড়িয়ে তুলেছে।
চার বছর আগে ইংল্যান্ডকে হটিয়ে গ্রুপ পর্বের বাঁধা টপকে বাংলাদেশ প্রমাণ করেছে নিজেদের আত্মবিশ্বাসকে শানিত করতে এবং সফলতা পাবার জন্য তারা যে কোন ঘটনা ঘটাতে পারে।
২০১৫ সালের এপ্রিল থেকে ২০১৬ সালের অক্টোবর পর্যন্ত সময়ের মধ্যে বাংলাদেশ নিজ মাঠে পাকিস্তান, ভারত, দক্ষিণ আফ্রিকা, জিম্বাবুয়ে এবং আফগানিস্তানের বিপক্ষে টানা পাঁচটি ওয়ানডে সিরিজ জয় করেছে।


যেটিকেই এখন পর্যন্ত টাইগারদের জন্য সেরা সফলতা হিসেবে বিবেচনা করা হয়। ওই সিরিজ জয়ের ফলে বাংলাদেশ র‌্যাংকিংয়েও এগিয়ে যায়। যার ভিত্তিতে চ্যাম্পিয়ন্স লীগ ও বিশ্বকাপে সরাসরি খেলার যোগ্যতা অর্জন করে টাইগাররা।
২০১৮ সালে এসেও সেই ধারবাহিকতা রক্ষা করেছে বাংলাদেশ জাতীয় ক্রিকেট দল। ২০টি একদিনের আন্তর্জাতিক ম্যাচে অংশ নিয়ে জয় পেয়েছে ১৩টিতে। ফলে বর্তমানে আইসিসি র‌্যাংকিংয়ের সপ্তম অবস্থানে রয়েছে টাইগাররা।
বিশাল অভিজ্ঞতাকে সঙ্গী করেই এবারের বিশ্বকাপ আসরে খেলতে যাচ্ছে বাংলাদেশ। যে দলে রয়েছেন অধিনায়ক মাশরাফি, সহ অধিনায়ক সাকিব আল হাসান, তামিম ইকবাল ও মুশফিকুর রহিমের মত অভিজ্ঞ ক্রিকেটার।
-কোন কিছুই অসম্ভব নয়-
সাম্প্রতিক সময়ের নিখাদ পারফর্মেন্স এবং অভিজ্ঞদের উপস্থিতি বাংলাদেশ দলের প্রত্যাশাকে আরো বাড়িয়ে দিয়েছে। ১৯৯৯ সাল থেকে এ পর্যন্ত ৫টি বিশ্বকাপ খেলার অভিজ্ঞতাও টাইগারদের আত্মবিশ্বাসকে সমৃদ্ধ করেছে।


মাশরাফি বলেন, তাদের প্রধান লক্ষ্য হচ্ছে এবারের আসরে অন্তত সেমি-ফাইনালে পৌঁছানো। তবে রাউন্ড রবিন পর্বে শক্তিশালী দলগুলোকে টপকে যাওয়া বেশ কঠিন হবে।
আয়ারল্যান্ড সিরিজ শেষে ছুটি কাটাতে দেশে ফিরে আবার ইংল্যান্ডের উদ্দেশ্যে ঢাকা ছাড়ার আগে টাইগার অধিনায়ক বলেন, ‘এই মুহুর্তে আমার মনে হয় সেমি-ফাইনালে পৌঁছানোটাই বড় চ্যালেঞ্জ। তবে কোন কিছুই অসম্ভব নয়। কঠিন হলেও এটি অবশ্যই সম্ভব। আগে গ্রুপ পর্বে বড় দলগুলোর একটিতে হারাতে পারাটাই ছিল যথেষ্ট। তবে এখন আমাদের হাতে থাকছে ৯টি ম্যাচ। অন্য যে দলগুলো সেমি-ফাইনালে খেলার স্বপ্ন দেখছে তাদেরও ব্যর্থ হবার সম্ভাবনা রয়েছে। সুতরাং এ বিষয়ে আমাদের সাবধান হতে হবে। ’
দলগত ঐক্য যেমন বাংলাদেশ দলের বড় শক্তি, তেমনি তাদের জন্য বড় দূর্বলতা হচ্ছে বড় আসরে গিয়ে ব্যর্থ হওয়া। বিশ্ব ক্রিকেট এখন এমন একপর্যায়ে চলে এসেছ যেখানে ওয়ানডে ক্রিকেটে হর হামেশাই ৩০০ রানের টার্গেট পেরিয়ে জয়লাভ করতে হবে। সেই দিক থেকে বড় সংগ্রাহকের ঘাটতি রয়েছে টাইগার শিবিরে।


এ পর্যন্ত দু’টি মাত্র ম্যাচে ৩০০ রান তাড়া করে জয় পাবার ইতিহাস রয়েছে বাংলাদেশ দলের। তবে সেখানে তাদের প্রতিপক্ষ দলগুলো ছিল র‌্যাংকিংয়ের নীচের সারির দল জিম্বাবুয়ে ও স্কটল্যান্ড। এই বিশ্বকাপে দলটিকে অবশ্যই উন্নতি করতে হবে বলে মনে করেন মাশরাফি।


আগামী ২ জুন দক্ষিণ আফ্র্রিকার বিপক্ষে ম্যাচ দিয়ে বিশ্বকাপ মিশন শুরু করতে যাওয়া বাংলাদেশ অধিনায়ক বলেন, ‘আপনারা দেখেছেন আমরা ৩২০ বা ৩৪০ রান তাড়া করে জয়ের বিষয়ে খুব একটা অভ্যস্ত নই। একই ভাবে আবার প্রতিপক্ষ দলগুলোকেও নিয়মিত ভাবে ২৭০-থেকে ২৮০ রানের মধ্যে আটকে রাখতে পারছিনা। তাই এখানে আমাদের এই অভ্যাসের পরিবর্তন ঘটাতে হবে। আমাদের যেটুকু রয়েছে তা দিয়েই লড়াই করতে হবে।’

শীর্ষস্থান ঠিক রেখেই বিশ্বকাপে সাকিব
                                  

 ওয়ানডে দিয়েই অলরাউন্ডারদের র‌্যাঙ্কিংয়ে তার শ্রেষ্ঠত্বের শুরু। সবচেয়ে বেশি দাপটও দেখিয়েছেন এই সংস্করণে। বিশ্বকাপের ঠিক আগে এখানেই সাকিব আল হাসান আবার নিজেকে তুলে নিলেন সবার ওপরে। আইসিসি ওয়ানডে অলরাউন্ডারদের র‌্যাঙ্কিংয়ে শীর্ষস্থান ফিরে পেয়েছেন বাংলাদেশের সহ-অধিনায়ক।


এক সময় তিন সংস্করণে শীর্ষে থাকলেও গত কিছু দিনে তিনটিতেই সাকিব ছিলেন দুই নম্বরে। এবার ওয়ানডেতে আবার এক নম্বরে উঠেছেন আফগানিস্তানের রশিদ খানকে দুইয়ে ঠেলে।
আয়ারল্যান্ডে ত্রিদেশীয় সিরিজে সাকিবের পারফরম্যান্স ও আয়ারল্যান্ডে দ্বিপাক্ষিক সিরিজে রশিদের পারফরম্যান্স মিলিয়ে এসেছে এই পরিবর্তন। ত্রিদেশীয় সিরিজে ৩ ম্যাচ খেলে দুটিতে অপরাজিত ফিফটি করেছিলেন সাকিব, নিয়ন্ত্রিত বোলিংয়ে উইকেট ছিল দুটি। আইরিশদের বিপক্ষে দুই ওয়ানডেতে রশিদের উইকেট ছিল দুটি, রান ১৬ ও ০।


সাকিবের রেটিং পয়েন্ট এখন ৩৫৯, রশিদের ৩৩৯। ৩১৯ রেটিং পয়েন্ট নিয়ে তিন নম্বরে থেকে বিশ্বকাপ শুরু করবেন রশিদের স্বদেশি অলরাউন্ডার মোহাম্মদ নবি।
চার আছেন পাকিস্তানের ইমাদ ওয়াসিম; পাঁচে নিউ জিল্যান্ডের মিচেল স্যান্টনার।
র‌্যাঙ্কিংয়ে বাংলাদেশের দ্বিতীয় সেরা অলরাউন্ডার ২৬ নম্বরে থাকা মেহেদী হাসান মিরাজ।

টেস্ট অলরাউন্ডারদের র‌্যাঙ্কিংয়ে দুইয়ে থাকা সাকিবের ওপরে আছেন ওয়েস্ট ইন্ডিজের অধিনায়ক জেসন হোল্ডার। টি-টোয়েন্টিতে সাকিবের ওপরে অস্ট্রেলিয়ার গ্লেন ম্যাক্সওয়েল।

টানা তৃতীয় পিচিচি ট্রফি জিতে সাররার পাশে মেসি
                                  

মৌসুম জুড়ে দুর্দান্ত ছন্দে থাকা লিওনেল মেসি টানা তৃতীয়বারের মতো পিচিচি ট্রফি জিতেছেন। এরই সঙ্গে লা লিগার শীর্ষ গোলদাতার পুরস্কারটি জয়ের তালিকায় শীর্ষে থাকা সাবেক স্প্যানিশ ফরোয়ার্ড তেলমো সাররাকে স্পর্শ করেছেন বার্সেলোনা ফরোয়ার্ড।

রোববার লিগের শেষ রাউন্ডে এইবারের সঙ্গে ২-২ ড্র ম্যাচে দলের দুটি গোলই করেন মেসি। এ নিয়ে আসরে ৩৪ ম্যাচ খেলে মোট ৩৬ গোল করলেন তিনি। সতীর্থদের দিয়েও ১৩টি গোল করেছেন বার্সার অধিনায়ক। দ্বিতীয় সর্বোচ্চ ২১টি করে গোল করেছেন তার সতীর্থ লুইস সুয়ারেস ও রিয়াল মাদ্রিদের করিম বেনজেমা।

২০০৯-১০, ২০১১-১২, ২০১২-১৩ মৌসুমে প্রথম তিনবার পুরস্কারটি জিতেছিলেন মেসি।

মেসির আগে টানা তিনবার পুরস্কারটি জিতেছিলেন মেক্সিকোর স্ট্রাইকার হুগো সানচেস। রিয়াল মাদ্রিদের হয়ে ১৯৮৫-৮৬, ১৯৮৬-৮৭ ও ১৯৮৭-৮৮ মৌসুমে এই কীর্তি গড়েছিলেন তিনি। ক্যারিয়ারে মোট পাঁচবার পুরস্কারটি জিতেছিলেন কিংবদন্তি এই ফরোয়ার্ড।

সালাহকে দলে নিতে চায় রিয়াল মাদ্রিদ
                                  

লিভারপুল এফসির মিসরীয় ফুটবল তারকা মোহাম্মদ সালাহকে দলে নিতে চায় স্প্যানিশ ক্লাব রিয়াল মাদ্রিদ। ক্লাবটি এ লক্ষ্যে প্রাথমিক আলোচনাও শুরু করেছে বলে জানা গেছে। শনিবার এমন খবর দিয়েছে ফরাসির সংবাদ মাধ্যম কানাল প্লাস।

টিভি চ্যানেলটির খবরে ক্রীড়া সাংবাদিক ফিলিপ ক্যারিয়ন বলেন, রিয়াল মাদ্রিদ দল পূর্ণগঠনের দিকে মনোযোগী হয়েছে এডেন হাজার্ড, জিনেদিনে জিদানের (কোচ) পর তাদের একজন তারকা স্ট্রাইকার দরকার। এক্ষেত্রে মোহাম্মদ সালাহ হতে পারে সেই স্ট্রাইকার। হ্যাজার্ডের পর সালাহকে আনার বিষয়টিকে প্রাধান্য দেবে ক্লাবটি।

ক্যারিয়ন বলেন, রিয়াল মাদ্রিদ আবারো তিনজন সেরা স্ট্রইকারকে নিয়ে আক্রমণভাগ সাজাতে চায়। ইতোমধ্যেই চেলসি থেকে বেলজিয়ামের স্ট্রাইকার এডেন হ্যাজার্ডকে আনার আলোচনা শুরু করেছে ক্লাবটি।

ইংলিশ প্রিমিয়ার লিগে গত কয়েক মৌসুম ধরে দারুণ ছন্দে আছেন মোহাম্মদ সালাহ। টানা দ্বিতীয়বারের মতো এবার গোল্ডেন বুট জিতেছেন তিনি ২২ গোল করে। তার দল এক পয়েন্টের ব্যবধানে রানার্সআপ হয়েছে লিগে। উঠেছে চ্যাম্পিয়ন্স লিগের ফাইনালে। এই মুহুর্তে চ্যাম্পিয়ন্স লিগের ফাইনালের জন্য দলের সাথে প্রস্তুতি নিচ্ছেন সালাহ। আগামী ১ জুন ফাইনালে তাদের প্রতিপক্ষ টনেটহ্যাম হটস্পার।

অন্য দিকে কোচ জিদান ও সেরা তারকা ক্রিশ্চিয়ানো রোনালদো চলে যাওয়ার পর দিন ভালো যাচ্ছে না রিয়াল মাদ্রিদের। চ্যাম্পিয়ন্স লিগের কোয়ার্টার ফাইনালে হেরেছে তারা। লা লিগাতেও অনেক ব্যবধানে পিছিয়ে পয়েন্ট টেবিলে। শেষ হয়ে গেছে শিরোপার স্বপ্ন।

আসছে মৌসুমে আবার ঘুরে দাড়াতে দলটি পূর্ণগঠনের কাজে মনোযোগী হয়েছে। ফিরিয়ে আনা হয়েছে কোচ জিনেদিনে জিদানকে। রোনালদোর বিকল্প তারকা ফুটবলারও খোঁজা হচ্ছে। আর সেটি হতে পারেন সালাহ।

এক মৌসুমে তিনটি শিরোপা জিতে ইতিহাস গড়ল ম্যানচেস্টার সিটি
                                  

প্রথম কোনো দল হিসেবে এক মৌসুমে তিনটি শিরোপা জিতে ইতিহাস গড়ল ম্যানচেস্টার সিটি।

এফএ কাপের ফাইনালে ওয়াটফোর্ডকে ৬-০ গোলে হারিয়ে চলমান মৌসুমে ঘরোয়া ট্রেবল জয় করল তারা।

এর আগে হাড্ডাহাড্ডি লড়াইয়ের পর টাইব্রেকারে চেলসিকে হারিয়ে লিগ কাপ ঘরে তোলে সিটি।

আর ব্রাইটন অ্যান্ড হোভ অ্যালবিওনের মাঠে ৪-১ গোলে জিতে ইংলিশ প্রিমিয়ার লিগে টানা দ্বিতীয়বারের মতো চ্যাম্পিয়ন হয় দলটি।

এদিন ঐতিহাসিক ওয়েম্বলি স্টেডিয়ামে ম্যানসিটির কাছে ওয়াটফোর্ড পাত্তাই পায়নি। ম্যাচের ২৬ মিনিটে গোলের সূচনা করেন ডেভিড সিলভা।

এর পর একের পর এক আক্রমণ চলতেই থাকে। ৩৮ মিনিটের মাথায় গোল করেন ব্রাজিলিয়ান তারকা জেসুস। বিরতির আগে আর কোনো গোল হয়নি।

২-০ ব্যবধানে এগিয়ে দ্বিতীয়ার্ধে নামে ম্যানসিটি। দুই গোল পিছিয়ে থেকেও তেমন কিছুই করে দেখাতে পারেনি ওয়াটফোর্ড।

দ্বিতীয়ার্ধের ৬১তম মিনিটে ওয়াটফোর্ডের জালে বল জড়ান কেভিন ডি ব্রুইন। এর ঠিক ৭ মিনিট পর নিজের জোড়া গোল পূর্ণ করেন জেসুস। ব্যবধান গিয়ে দাঁড়ায় ৪-০তে।

তবু যেন খুশি হননি ম্যানসিটির সমর্থকরা। ৮১ মিনিটে ওয়াটফোর্ডের লক্ষ্য ভেদ করেন স্টারলিং। এর ঠিক ৬ মিনিট বাদে আবারও ওয়াটফোর্ডের গোলপোস্টে স্টারলিংয়ের আক্রমণ। জোড়া গোল পূর্ণ করেন তিনি।

মোট ৬ গোল করে বড় জয় নিয়ে মাঠ ছাড়েন সিটিজেনরা। সঙ্গে সঙ্গে রচিত হলো কয়েকটি ইতিহাস। ১১৬ বছর পর এফএ কাপের ফাইনালে এতবড় জয়ের রেকর্ড গড়ল সিটি।

সর্বশেষ ১৯০২-০৩ মৌসুমে ডার্বি কাউন্টিকে ৬-০ গোলে হারিয়েছিল বুরি।

সেই সঙ্গে ইংলিশ ফুটবলের দ্বিতীয় সেরা এই প্রতিযোগিতায় ষষ্ঠবার চ্যাম্পিয়ন হলো ম্যানসিটি।

এ ছাড়া প্রথম কোনো দল হিসেবে এক মৌসুমে তিনটি শিরোপা জিতে ইতিহাস গড়লেন পেপ গার্দিওলার শিষ্যরা।

সৌম্য-মোসাদ্দেকের ব্যাটিং ঝড়ে আন্তর্জাতিক শিরোপা জয়ের স্বাদ বাংলাদেশের
                                  

প্রথমে সৌম্য সরকারের ঝড়, এরপর শেষ দিকে এসে ঝড় তুললেন মোসাদ্দেক হোসেন সৈকত। সৌম্যর ২৭ বলে হাফ সেঞ্চুরির পর মোসাদ্দেকের ২০ বল হাফ সেঞ্চুরি। এই দুই ঝড়ো ইনিংসের ওপর ভর করে এই প্রথম নিজেদের ক্রিকেট ইতিহাসে কোনো টুর্নামেন্টে চ্যাম্পিয়ন হলো বাংলাদেশ। ওয়েস্ট ইন্ডিজকে ৫ উইকেটে হারিয়ে প্রথমবারের মতো ওয়ানডেতে ফাইনাল জিতল বাংলাদেশ। আর বাংলাদেশের এ কাব্যিক জয়ের মূল কারিগর সৌম্য সরকার আর মোসাদ্দেক হোসেন।

ডাকওয়ার্থ-লুইস পদ্ধতিতে ২৪ ওভারে ২১০ রানের বিশাল লক্ষ্য পাড়ি দিতে নেমে মোসাদ্দেকে ঝড়ের সামনে ৭ বল হাতে রেখেই চ্যাম্পিয়ন বাংলাদেশ। ২৪ ওভারে নেমে আসা ম্যাচে বাংলাদেশের লক্ষ্য ছিল ২১০ রান। কঠিন সমীকরণ মেলাতে গিয়ে ১৫.৪ ওভারেই ১৪৩ রানে ৫ উইকেট হারাল বাংলাদেশ। ৪৮ বলে দরকার ৬৫ রান। জয়ের স্বপ্ন কি এবারও অধরা থাকবে? ঠিক এই সময়ই আবির্ভাব মোসাদ্দেকের।

১৮ বলে যখন দরকার ২৭ রান, ম্যাচটা চকিতে নিজেদের হাতের মুঠোয় আনলেন মোসাদ্দেক। অ্যালেনের করা ২২তম ওভারে ৬, ৬, ৪, ৬, ২, ১—২৫ রান তুলে এক ঝটকায় সমীকরণ করে ফেললেন একেবারে সহজ। এরই ফাঁকে বাংলাদেশের ব্যাটসম্যানদের মধ্যে সবচেয়ে দ্রুততম ফিফটির রেকর্ডও গড়লেন মোসাদ্দেক।

এর আগে ওপেনার সৌম্য সরকারের ব্যাটে জয়ের স্বপ্নটা চওড়া হচ্ছিল খুব। ২৭ বলে হাফ সেঞ্চুরি করে সেটা আরও বাড়িয়ে দিয়েছিলেন তিনি। কিন্তু ৪১ বলে ৬৬ রান করার পর সৌম্য বিদায় নিতেই জয়ের কাজটা ধীরে ধীরে কঠিন হতে শুরু করে।

মুশফিকুর রহিম, মোহাম্মদ মিঠুনরাও চেষ্টা করেন রানের চাকা সমানতালে এগিয়ে নিতে। কিন্তু নিয়মিত বিরতিতে উইকেট পড়তে থাকায় সেটা হয়েছে আরো কঠিন। দলীয় ১০৯ রানের মাথায় রেমন রেইফারের স্পিন ঘূর্ণিতে বিভ্রান্ত হয়ে ছক্কা মারতে গিয়ে লং অনে সেলডন কটরেলের হাতে ধরা পড়েন সৌম্য। মুশফিকুর রহিম করেন ২২ বলে ৩৬ রান। মিঠুনের ব্যাট থেকে আসে ১৪ বলে ১৭ রান।

এর আগে ওয়েস্ট ইন্ডিজ প্রথমে ব্যাট করে ২৪ ওভারে করে ১৫২ রান। আর ফাইনাল জিততে ডাকওয়ার্থ লুইস মেথডে বাংলাদেশের সামনে লক্ষ্য দাঁড়ায় ২১০ রান। জয়ের জন্য ২১০ রানের লক্ষ্যে ব্যাট করতে নেমে উড়ন্ত সূচনাই করে বাংলাদেশ। দুই ওপেনার তামিম ইকবাল এবং সৌম্য সরকারের উড়ন্ত সূচনার পর ৫.৩ ওভারেই তারা গড়ে ফেলে ৫৯ রানের জুটি। এরপর ১৩ বলে ১৮ রান করে আউট হয়ে যান তামিম ইকবাল।

তিন নম্বরে ব্যাট করতে নামেন সাব্বির রহমান। কিন্তু যে কারণে তাকে আগে নামানো হলো, সেটা মোটেও কাজে লাগলো না। শ্যানন গ্যাব্রিয়েলের বলে এলবিডব্লিউ হয়ে কোনো রান না করেই ফিরে গেলেন সাব্বির রহমান। সাকিব আল হাসান না থাকার অভাবটা ভালোই টের পাওয়া গেলো। চার নম্বরে ব্যাট করতে নামেন মুশফিকুর রহিম। কিন্তু মুশফিককে বিদায় করে দিয়ে বাংলাদেশকে চাপে ফেলে দেন রেইফার। মুশফিক বিদায় নেন ২২ বলে ৩৬ রান করে। সেই বিপদ আরও বেড়ে যায় মোহাম্মদ মিঠুন দারুণ কিছু শট খেলে ১৭ রানে ফিরলে। তাকে এলবিডাব্লিউর ফাঁদে ফেলেন ফাবিয়ান অ্যালেন। এরপর অবশ্য আর পেছনে ফিরে তাকাতে হয়নি। সৌম্যর গড়ে দেয়া মঞ্চে ঝড়ো ব্যাটিংয়ে বাংলাদেশকে প্রথমবার কোনও টুর্নামেন্টে চ্যাম্পিয়ন করিয়ে মাঠ ছাড়েন মোসাদ্দেক হোসেন ও মাহমুদউল্লাহ।

মোসাদ্দেকের হাতে সমাপ্তি, কিন্তু শুরুটা করেছিলেন সৌম্য সরকার। বাঁহাতি ওপেনারের ৪১ বলে ৬৬ রানের দুর্দান্ত ওই ইনিংসটা গড়ে দিয়েছে ত্রিদেশীয় সিরিজের ফাইনালের ভিত্তি। বৃষ্টিবাধায় ম্যাচের দৈর্ঘ্য কমে আসায় কঠিন লক্ষ্য, আম্পায়ারিং নিয়ে প্রশ্ন—সব বাধা উতরে বাংলাদেশ দূর করেছে অতীতের ৬টি ফাইনাল হারের দুঃখ। লিখেছে নতুন ইতিহাস।

 
অপরাজিত থেকেই ফাইনালে বাংলাদেশ
                                  

অপরাজিত থেকেই ত্রিদেশীয় সিরিজের ফাইনালের মঞ্চে চলে গেল বাংলাদেশ। বহুজাতিক টুর্নামেন্টে বাংলাদেশের এটি সপ্তম ফাইনাল। ওয়েস্ট ইন্ডিজের পর আয়ারল্যান্ডও বাংলাদেশের জয়ের পথে বাধা হতে পারেনি। গতকাল ডাবলিনের ক্লনটার্ফে অনায়াসেই আইরিশদের ছয় উইকেটে পরাজিত করেছে বাংলাদেশ। আগামীকাল ফাইনালে ওয়েস্ট ইন্ডিজের মুখোমুখি হবে মাশরাফি বাহিনী।

ক্যারিয়ারের দ্বিতীয় ম্যাচে আবু জায়েদ রাহী পাঁচ উইকেট নিলেও পল স্টারলিংয়ের সেঞ্চুরিতে আট উইকেটে ২৯২ রান তুলে চ্যালেঞ্জ জানিয়েছিল আয়ারল্যান্ড। জবাবে তিন হাফ সেঞ্চুরিতে ৪৩ ওভারে চার উইকেটে ২৯৪ রান তুলে ম্যাচ জিতে নেয় বাংলাদেশ। ৪২ বল আগে আসা জয়ে রাহী ম্যাচ সেরা হন।

রান তাড়া করতে নেমে তামিম-লিটনের হাফ সেঞ্চুরিতে ভালো শুরু পায় বাংলাদেশ। তামিম ক্যারিয়ারের ৪৬তম ও লিটন দ্বিতীয় হাফ সেঞ্চুরি তুলে নেন। তাদের ১১৭ রানের জুটিই জয়ের ভিত গড়ে দিয়েছিল। ইনিংসের ১৭তম ওভারে র‌্যানকিনের বলে প্লেইড অন হওয়ার আগে তামিম ৫৭ রান করেন। লিটনও ফিরেছেন বোল্ড হয়ে। তিনি ৭৬ রান করেন।

তৃতীয় উইকেটে সাকিব-মুশফিকের ৬৪ রানের জুটি জয়ের পথে এগিয়ে নেয় বাংলাদেশকে। মুশফিক ফিরেন ৩৫ রান করে। পরে পেশীতে টান পড়ায় ৪২তম হাফ সেঞ্চুরি করে সাকিব অবসরে যান ৫০ রানের ইনিংস খেলে।

মোসাদ্দেক (১৪) দ্রুত ফিরলেও সাব্বিরকে নিয়ে বাকি পথ পাড়ি দেন মাহমুদউল্লাহ। চার মেরে দলের জয় নিশ্চিত করেন সাব্বির। মাহমুদউল্লাহ অপরাজিত ৩৫, সাব্বির অপরাজিত ৭ রান করেন। আয়ারল্যান্ডের র‌্যানকিন দুটি উইকেট নেন।

এর আগে গতকাল আনুষ্ঠানিকতার ম্যাচে একাদশে চার পরিবর্তন নিয়ে নামা বাংলাদেশ বোলিং, ফিল্ডিংয়ে ছিল বেশ নির্ভার। খোদ অধিনায়ক মাশরাফি বোলিংয়ে এসেছেন ২৯তম ওভারে ষষ্ঠ বোলার হিসেবে। আয়ারল্যান্ডের তিন শ ছুঁই ছুঁই স্কোর ও স্টারলিংয়ে সেঞ্চুরির পেছনে অবশ্য বাংলাদেশের ফিল্ডারদের অবদানই বেশি। মোসাদ্দেকের করা ইনিংসের ২১তম ওভারে সাব্বির ও পরের ওভারে সাকিবের বলে সাইফউদ্দিন ক্যাচ ফেলেন স্টারলিংয়ের।

শুরুতে ৫৯ রানে দুই উইকেট হারিয়েছিল আয়ারল্যান্ড। ম্যাককুলামকে (৫) রুবেল, বালবির্নিকে (২০) রাহী ফেরান। তৃতীয় উইকেটে অধিনায়ক পোর্টারফিল্ড-স্টারলিংয়ের ১৭৪ রানের জুটি ভাঙেন রাহী। পোর্টারফিল্ড ৯৪ রান করে আউট হন। ১২৭ বলে ক্যারিয়ারের অষ্টম সেঞ্চুরি পূর্ণ করেন স্টারলিং। ৪৭তম ওভারে পরপর দুই বলে কেভিন ও’ব্রায়েন (৩), স্টারলিংকেও ফেরান রাহী। স্টারলিং ১৪১ বলে ১৩০ রানের (৮ চার, ৪ ছয়) ইনিংস খেলেন। গ্যারি উইলসনকে (১২) সাকিবের ক্যাচ বানিয়ে ক্যারিয়ারের দ্বিতীয় ম্যাচেই পাঁচ উইকেট পাওয়ার কৃতিত্ব অর্জন করেন রাহী। ৫৮ রানে পাঁচ উইকেট নেন এই ডানহাতি পেসার।

শেষ ওভারে মার্ক এডেইর (১১) ও ডকরেল (৪) সাইফউদ্দিনের শিকার হওয়ায় তিন শ পার হয়নি আয়ারল্যান্ডের স্কোর। সাইফউদ্দিন দুটি, রুবেল একটি করে উইকেট পান।

সংক্ষিপ্ত স্কোর

আয়ারল্যান্ড : ২৯২/৮, ৫০ ওভার

বাংলাদেশ : ২৯৪/৪, ৪৩ ওভার

ফলাফল : বাংলাদেশ ছয় উইকেটে জয়ী।

উইন্ডিজকে উড়িয়ে ফাইনালে বাংলাদেশ
                                  

জয়ের ভিতটা আসলে গড়ে দিয়েছিলেন বোলাররা-ই। আরো ভালো করে বলতে গেলে অধিনায়ক মাশরাফি আর দীর্ঘদিন পর ছন্দে ফেরা মোস্তাফিজ। আর সেই সহজ কাজটাকেই শেষ পর্যন্ত বাস্তবে রূপ দিয়ে ত্রিদেশীয় সিরিজে ক্যারিবীয়দের বিপক্ষে টানা দ্বিতীয় জয় তুলে নিয়েছেন ব্যাটসম্যানরা। আর এই জয়ের মাধ্যমে ওয়েস্ট ইন্ডিজকে অনায়সেই ৫ উইকেটে হারিয়ে ত্রিদেশীয় সিরিজের ফাইনাল নিশ্চিত করলো টাইগাররা। ক্যারিবীয়দের ২৪৭ রানের জবাব দিতে নেমে ১৬ বল হাতে রেখেই জয়ের লক্ষ্যে পৌঁছে যায় বাংলাদেশ।

সোমবার জয়ের জন্য ২৪৮ রানের লক্ষ্যে ব্যাট করতে নেমে প্রথম ম্যাচের মতই দেখে-শুনে, ধীরে-সুস্থে ইনিংসের সূচনা করেন দুই ওপেনার তামিম ইকবাল ও সৌম্য সরকার। তবে প্রথম ম্যাচের মত এত বড় জুটি গড়তে পারেননি তারা। দু’জনের ব্যাটে ৫৪ রান ওঠার পরই বিচ্ছিন্ন হয়ে যান তারা। অ্যাসলে নার্সের একটি ঘূর্ণি বল ডাউন দ্য উইকেটে খেলতে এসে মিস করে ফেলেন তামিম। ফলে বোল্ড হয়ে যেতে হয় তাকে। ২৩ বলে ২১ রান করে ফিরে যান তিনি।

এরপর সৌম্য সরকারকে নিয়ে ইনিংসের হাল ধরেন তিন নম্বরে নামা সাকিব আল হাসান। ৫২ রানের জুটি গড়ার পর বিচ্ছিন্ন হয়ে যান সাকিবও। আবারো সেই অ্যাসলে নার্স। নার্স এর একটি ঘূর্ণি বল খেলতে গিয়ে শর্ট কভারে ক্যাচ দেন রোস্টন চেজের হাতে। ৩৫ বলে ২৯ রান করে আউট হন সাকিব।

তবে সৌম্য সরকার তার নিজের দায়িত্ব পালন করেন বেশ ভালো ভাবেই। তামিমের সঙ্গে ৫৪ রানের জুটির পর সাকিব আল হাসানের সঙ্গে গড়েন ৫২ রানের জুটি। পরে ৬৭ বলে ৫৪ রান করে অবশেষে সেই নার্সের বলেই সুনিল আমব্রিসের হাতে ক্যাচ দিয়ে আউট হয়ে যান সৌম্য।

এর আগে ডাবলিনে ত্রিদেশীয় সিরিজের পঞ্চম ম্যাচে টসে হেরে ফিল্ডিংয়ে নামে বাংলাদেশ। ওপেনার হিসেবে মাঠে নেমে আমব্রিস ও শাই হোপ শুরুটা ভালোই করছিলেন। কিন্তু ৫.৫ ওভারে মাশরাফির বলে স্লিপে দারুণ এক ক্যাচ লুফে নেনে সৌম্য সরকার। আমব্রিস আউট হওয়ার আগে ১৯ বলে ২৩ রান সংগ্রহ করেন। ১০.৩ ওভারের দারুণ এক এলবিডব্লিউয়ের মাধ্যমে ড্যারেন ব্রাভোকে সাজঘরে পাঠিয়ে দেন মিরাজ। এর আগে ব্রাভো ১৩ বলে ৬ রান সংগ্রহ করেন।

২০তম ওভারের প্রথম বলেই মোস্তাফিজের শিকার হয় রোস্টার চেজ। মাহমুদুল্লাহর হাতে ক্যাচ দিয়ে প্যাভিলিয়নে ফিরে যাওয়ার আগে ২৯ বলে ১৯ রান সংগ্রহ করেন তিনি। আর ২৪তম ওভারের প্রথম বলেই আবারো উইকেটের দেখা পান কাটার মাস্টার। ওভারের প্রথম বলেই এলবিডব্লিউয়ের ফাঁদে পড়ে মাঠ ছাড়েন জোনাথন কার্টার।

৯৯ রানে ৪ উইকেট হারানোর পর একপ্রান্ত আগলে খেলতে থাকেন হোপ। হাফসেঞ্চুরি করার পথে হোল্ডারের সঙ্গে শক্ত জুটি গড়েন এই ওপেনার। কিন্তু তিন অঙ্কের ঘরে পৌঁছাতে পারেননি তিনি। অধিনায়কের সঙ্গে ১০০ রানের জুটি গড়ে মাশরাফির শিকার হন হোপ। ৪২তম ওভারে ক্রমেই টাইগারদের গলার কাঁটা হয়ে ওঠা ওপেনার শাই হোপকে বিদায় করেন মাশরাফি।

উইকেটের পেছনে মুশফিকের হাতে ক্যাচ দিয়ে সাজঘরে ফেরার আগে বাংলাদেশের বিপক্ষে টানা চতুর্থ সেঞ্চুরি বঞ্চিত হওয়া এই ক্যারিবীয়ান ১০৮ বলে ৬টি চার আর একটি ছক্কায় ৮৭ রানের ইনিংসটি সাজান। এরপর মাশরাফি বিদায় করেন উইন্ডিজ দলপতি জেসন হোল্ডারকে। ৭৬ বলে তিনটি চার আর একটি ছক্কায় ব্যক্তিগত ৬২ রান করে বিদায় নেন হোল্ডার।

এরপর ইনিংসের ৪৫তম ওভারে সাকিব ফিরিয়ে দেন ৭ রান করা ফ্যাবিয়ান অ্যালেনকে। ৪৯তম ওভারে জোড়া আঘাত হানেন কাটার মাস্টার মোস্তাফিজ। নিজের নবম ওভারের দ্বিতীয় বলে আউট করেন অ্যাশলে নার্সকে। ডিপ মিডউইকেটে সাব্বিরের হাতে ক্যাচ দিয়ে মাঠ ছাড়েন তিনি।

একই ওভারের ৫ম বলে মোস্তাফিজের শিকার রেইমন রেইফার। মোস্তাফিজের বলে এলবিডব্লিউ হয়ে আউট হওয়ার আগে তিনি ১২ বলে ৭ রান করেন।

কাটার মাস্টার মোস্তাফিজুর রহমান ৯ ওভারে একটি মেডেন ওভার ও ৪৩ রান দিয়ে নেন ৪ উইকেট। টাইগার দলপতি মাশরাফি ১০ ওভারে ৬০ রান দিয়ে তুলে নেন তিনটি উইকেট। মেহেদি হাসান মিরাজ ১০ ওভারে ৪১ রানের বিনিময়ে পান একটি উইকেট। সাকিব ১০ ওভারে ২৭ রান খরচায় পান একটি উইকেট। সৌম্য সরকার ২ ওভারে ১৫ রান দিয়ে উইকেট পাননি। আবু জায়েদ রাহী ৯ ওভারে ৫৬ রান দিয়ে কোনো উইকেটের দেখা পাননি।

ইতোমধ্যেই ওয়েস্ট ইন্ডিজের ফাইনাল নিশ্চিত হয়ে গেছে। আর বাংলাদেশের আজ (সোমবার) সেই লক্ষ্যপূরণ করলো। এক ম্যাচ হাতে রেখেই ক্যারিবীয়দের ফাইনালের প্রতিপক্ষ হিসেবে নিজেদের নিশ্চিত করলো মাশরাফি বিন মর্তুজার দল।

 

 
আজকেই ফাইনাল নিশ্চিত করতে চায় বাংলাদেশ
                                  

 জিতলেই ত্রিদেশীয় ওয়ানডে সিরিজের ফাইনাল নিশ্চিত, এমন সমীকরণ নিয়ে আজ টুর্নামেন্টে নিজেদের তৃতীয় ম্যাচ খেলতে নামছে বাংলাদেশ। এ ম্যাচে মাশরাফি বাহিনীর প্রতিপক্ষ ওয়েস্ট ইন্ডিজ। এ ম্যাচ জিতলেই ফাইনালের টিকিট পাবে বাংলাদেশ। প্রথম পর্বে ক্যারিবীয়দের ৮ উইকেটে হারিয়েছিলো টাইগাররা। ডাবলিনের মালাহিডে বিকেল ৩টা ৪৫ মিনিটে শুরু হবে বাংলাদেশ-ওয়েস্ট ইন্ডিজের ওয়ানডে। দুর্দান্ত জয় দিয়ে এবারের টুর্নামেন্ট শুরু করে বাংলাদেশ। ওয়েস্ট ইন্ডিজকে ৮ উইকেটে হারের লজ্জা দেয় তারা। টুর্নামেন্টের দ্বিতীয় ম্যাচে বাংলাদেশের বিপক্ষে টস জিতে প্রথমে ব্যাটিং বেছে নিয়েছিলো ওয়েস্ট ইন্ডিজ। শাই হোপের ১০৯ রানের সুবাদে ৯ উইকেটে ২৬১ রানের লড়াকু সংগ্রহ পায় ক্যারিবীয়রা। জবাবে তামিম ইকবাল-সৌম্য সরকার ও সাকিব আল হাসানের হাফ-সেঞ্চুরিতে ৫ ওভার বাকী রেখেই জয়ের স্বাদ নেয় বাংলাদেশ। তামিম ৮০, সৌম্য ৭৩ ও সাকিব অপরাজিত ৬১ রান করেন।


বাংলাদেশের আগে টুর্নামেন্টে খেলতে নামে ওয়েস্ট ইন্ডিজ। টুর্নামেন্টের প্রথম ম্যাচেই উড়ন্ত সূচনা করে ক্যারিবীয়রা। স্বাগতিক আয়ারল্যান্ডের বিপক্ষে ঐ ম্যাচে দুই ওপেনার জন ক্যাম্পবেল ও শাই হোপের জোড়া সেঞ্চুরিতে ৩ উইকেটে ৩৮১ রানের বড় সংগ্রহ গড়ে ওয়েস্ট ইন্ডিজ। জবাবে ১৮৫ রানেই গুটিয়ে যায় আইরিশরা। প্রথম পর্বে বাংলাদেশের দ্বিতীয় ম্যাচটি বৃষ্টির কারণে পরিত্যক্ত হয়ে যায়। প্রথম পর্ব শেষে ২ খেলায় ১ জয়ে ৬ পয়েন্ট নিয়ে টেবিলের শীর্ষে ছিলো বাংলাদেশ। সমানসংখ্যক ম্যাচে ১টি করে জয়-হারে ৫ পয়েন্ট নিয়ে টেবিলের দ্বিতীয়স্থানে ছিলো ওয়েস্ট ইন্ডিজ। ২ খেলায় এক হার ও একটি ম্যাচ পরিত্যক্ত হওয়ায় ২ পয়েন্ট নিয়ে টেবিলের তলানিতে অবস্থান করছে আয়ারল্যান্ড।


তবে ফিরতি পর্বেও ওয়েস্ট ইন্ডিজের বিপক্ষে প্রতিশোধ নিতে পারেনি আয়ারল্যান্ড। গত শনিবার অনুষ্ঠিত ম্যাচে ৫ উইকেটে হারে আইরিশরা। ৫ উইকেটে ৩২৭ রান করেও ম্যাচ হারে তারা। ৩৩১ রান তুলে ৫ উইকেটে ম্যাচ জিতে নেয় ওয়েস্ট ইন্ডিজ। ফলে ফাইনাল নিশ্চিত হয় ক্যারিবীয়দের। এই হারে ফাইনালে উঠার পথ অনেক কঠিন হয়ে গেল আয়ারল্যান্ডের। বাংলাদেশ যদি নিজেদের শেষ দু’ম্যাচে হারে এবং আয়ারল্যান্ড যদি নিজেদের শেষ ম্যাচ জিতে পারে তবেই ফাইনালে যাবার সুযোগ তৈরি হবে স্বাগতিকদের। তবে এসব সমীকরন নিয়ে মাথা ঘামাতে নারাজ বাংলাদেশ। বিশ্বকাপের প্রস্তুতি সিরিজে নিজেদের উজার করে দিতে চায় টাইগাররা। দেশ ছাড়ার আগে এমনটাই জানিয়েছিলো বাংলাদেশ। একমাত্র প্রস্তুতি ম্যাচে হারলেও, দুর্দান্তভাবে টুর্নামেন্ট শুরু করতে পেরে খুশী ছিলেন বাংলাদেশ অধিনায়ক মাশরাফি বিন মর্তুজা, ‘অবশ্যই জয় দিয়ে শুরু করাটা সব সময়ই গুরুত্বপূর্ণ। আমি মনে করি অনুশীলন ম্যাচে পরাজিত হওয়ার পর আমাদের শুরুটা ভাল হয়েছে। ছেলেরা পরের ম্যাচের জন্য অধীর আগ্রহে আছে।

’ কিন্তু পরের ম্যাচে মাঠেই নামতে পারেনি বাংলাদেশ। বৃষ্টির কারণে ম্যাচটি পরিত্যক্ত হয়ে যায়। তাই ম্যাচ শেষে হতাশই ছিলেন বাংলাদেশ কোচ স্টিভ রোডস, ‘হতাশ হয়েছি আমরা। ম্যাচ থেকে ২ পয়েন্টের বেশি চেয়েছিলাম আমরা। আবহাওয়া নিয়ে এখানে কিছুই করার নেই।’ আয়ারল্যান্ড-ইংল্যান্ডের বর্তমান কন্ডিশন নিয়েও হতাশ রোডস, ‘আয়ারল্যান্ড ও ইংল্যান্ডে এই মৌসুমটায় বৃষ্টিতে খেলা পরিত্যক্ত হয়। কিন্তু সামনে আমাদের অনেক ম্যাচ। সে হিসেবে অনুশীলনগুলো মিস করা নিয়ে আমি সত্যিই শঙ্কিত। আশা করছি আবহাওয়া ভালো হয়ে উঠবে।’ বিশ্বকাপকে সামনে রেখে নিজেদের পারফরমেন্সে ধারাবাহিক হতে চান রোডস। এমন ইঙ্গিতও দিলেন তিনি, ‘আমাদের দলের প্রধান লক্ষ্যই হলো দলের পারফরম্যান্সে আরও ধারাবাহিকতা আনা। যদি সেটা করতে পারি তাহলে মনে করি বিশ্বকাপে অনেক দূর পর্যন্ত যেতে পারবো।’

 

পয়েন্ট টেবিল :

Windies and Bangladesh in Ireland Tri-Series 2019 - Points Table

Teams Mat Won Lost Tied NR Pts NRR  
Windies 3 2 1 0 0 9 +1.230  
 
Bangladesh 2 1 0 0 1 6 +0.647  
 
Ireland 3 0 2 0 1 2 -2.158
চেন্নাইকে হারিয়ে চতুর্থবার মুকুট পরলো মুম্বাই ইন্ডিয়ান্স
                                  

শেষ ওভারের নাটকীয়তায় চতুর্থবার চ্যাম্পিয়ন মুম্বাই ইন্ডিয়ান্স। হায়দরাবাদে রবিবারের ফাইনালে তারা গতবারের চ্যাম্পিয়ন চেন্নাই সুপার কিংসের বিপক্ষে তারা জিতেছে শেষ বলে। এর আগে তারা চ্যাম্পিয়ন হয় ২০১৩, ২০১৫ ও ২০১৭ সালে।

কিয়েরন পোলার্ডের ব্যাটে ৮ উইকেটে ১৪৯ রান করে মুম্বাই। এরপর শেন ওয়াটসনের দুরন্ত এক ইনিংসে জয়ের সম্ভাবনা জাগায় চেন্নাই। কিন্তু শেষ ওভারে আর পেরে ওঠেনি তারা। ২০ ওভারে ৭ উইকেটে চেন্নাই করে ১৪৮ রান।

চেন্নাইয়ের শেষ ওভারে ৯ রান দরকার ছিল। অস্ট্রেলিয়ান ব্যাটসম্যান ওয়াটসনের সঙ্গে ক্রিজে ছিলেন রবীন্দ্র জাদেজা। কিন্তু ওয়াটসন ৪ রান দূরে থাকতে চতুর্থ বলে দুটি রান নিতে গিয়ে রানআউট হন। তিনি ৫৯ বলে ৮ চার ও ৪ ছয়ে ৮০ রান করেন।

নেমেই শারদুল ঠাকুর দুটি রান নিলে ম্যাচের উত্তেজনা গড়ায় শেষ বলে, দরকার ছিল ২ রান। কিন্তু লাসিথ মালিঙ্গার ইয়র্কারে শারদুল এলবিডাব্লিউ হলে শ্বাসরুদ্ধকর জয় পায় মুম্বাই।


   Page 1 of 164
     খেলাধূলা
আজ বিধ্বস্ত পাকিস্তানের মুখোমুখি হচ্ছে আত্মবিশ্বাসী বাংলাদেশ
.............................................................................................
মেসির অনন্য কীর্তি
.............................................................................................
দ.আফ্রিকার কাছে লঙ্কানদের হার
.............................................................................................
প্রস্তুতি ম্যাচে ভারতকে হার উপহার দিল নিউজিল্যান্ড
.............................................................................................
মাশরাফি আয়ারল্যান্ডের সাফল্যে পড়ে থাকতে চান না
.............................................................................................
৩৪ জনের প্রাথমিক দল ইনডোর এশিয়া কাপ হকি ক্যাম্পের জন্য
.............................................................................................
বাংলাদেশ বিশ্বকাপে নতুন রেকর্ড গড়তে চায়
.............................................................................................
শীর্ষস্থান ঠিক রেখেই বিশ্বকাপে সাকিব
.............................................................................................
টানা তৃতীয় পিচিচি ট্রফি জিতে সাররার পাশে মেসি
.............................................................................................
সালাহকে দলে নিতে চায় রিয়াল মাদ্রিদ
.............................................................................................
এক মৌসুমে তিনটি শিরোপা জিতে ইতিহাস গড়ল ম্যানচেস্টার সিটি
.............................................................................................
সৌম্য-মোসাদ্দেকের ব্যাটিং ঝড়ে আন্তর্জাতিক শিরোপা জয়ের স্বাদ বাংলাদেশের
.............................................................................................
অপরাজিত থেকেই ফাইনালে বাংলাদেশ
.............................................................................................
উইন্ডিজকে উড়িয়ে ফাইনালে বাংলাদেশ
.............................................................................................
আজকেই ফাইনাল নিশ্চিত করতে চায় বাংলাদেশ
.............................................................................................
চেন্নাইকে হারিয়ে চতুর্থবার মুকুট পরলো মুম্বাই ইন্ডিয়ান্স
.............................................................................................
রেকর্ড গড়ে ক্যারিবীয়দের জয়
.............................................................................................
পাকিস্তানকে বড় ব্যবধানে হারালো বাংলাদেশ অনূর্ধ্ব-১৬ দল
.............................................................................................
৩ ম্যাচের জন্য নিষিদ্ধ নেইমার
.............................................................................................
ইংল্যান্ড-পাকিস্তান দ্বিতীয় ম্যাচ দিয়ে বিশ্বকাপের প্রস্তুতি সিরিজ শুরু করছে
.............................................................................................
ভয় দেখাচ্ছে বাংলাদেশের বোলিং আক্রমণ পরিসংখ্যান!
.............................................................................................
বৃষ্টির বাগড়ায় বাংলাদেশের ম্যাচ বাতিল
.............................................................................................
কোপা আমেরিকা থেকে ছিটকে যেতে পারেন থিয়াগো সিলভা
.............................................................................................
শেষ হয়ে গেল ঝাই রিচার্ডসনের বিশ্বকাপ
.............................................................................................
বার্সাকে কাঁদিয়ে ফাইনালে লিভারপুল
.............................................................................................
বড় ব্যবধানে ওয়েস্ট ইন্ডিজকে হারাল বাংলাদেশ
.............................................................................................
বাংলাদেশের সহজ জয় এলো দাপুটে ব্যাটিংয়ে
.............................................................................................
১৩ মাসের নির্বাসন শেষে স্মিথ-ওয়ার্নারের চমক
.............................................................................................
প্রস্তুতি ম্যাচে বাংলাদেশের বাজে হার
.............................................................................................
বিশ্বকাপের জার্সিতে আবার পরিবর্তন
.............................................................................................
রাশিয়ার নতুন পারমাণবিক সাবমেরিন উদ্বোধন
.............................................................................................
লিভারপুলকে মেসির উপহার শূন্য থেকে ৬০০
.............................................................................................
স্বপ্ন নিয়ে দেশ ছাড়ল টাইগাররা
.............................................................................................
সৌম্য-লিটনের জন্য অধিনায়কের উদাহরণ
.............................................................................................
কোচদের চাওয়ায় বাংলাদেশ দলে রেজা-তাসকিন
.............................................................................................
মাশরাফির জন্য শেষ বিশ্বকাপ রাঙাতে উন্মুখ মুশফিকুর রহিম
.............................................................................................
মেসির বীরত্বে লা লিগা বার্সেলোনার
.............................................................................................
নাদালের দাপট চলছে বার্সেলোনা ওপেনে
.............................................................................................
লারা-পিটারসেনরা বিশ্বকাপে বাংলাদেশের উজ্জ্বল সম্ভাবনা দেখছেন
.............................................................................................
পেইসমেকার চলবে ব্যাটারি ছাড়াই
.............................................................................................
মাশরাফি-গেইল যেখানে পাশাপাশি
.............................................................................................
ওপেনিংয়ে ডানহাতি-বাঁহাতি বাংলাদেশ কোচের পছন্দ
.............................................................................................
ওয়ানডে মর্যাদা পেল যুক্তরাষ্ট্র ও ওমান
.............................................................................................
ইংল্যান্ড আসর হতে পারে এশিয়ার সেরা যে পাঁচ ক্রিকেটারের শেষ বিশ্বকাপ
.............................................................................................
বিশ্বকাপে শ্রীলংকার গুরুত্বপূর্ণ খেলোয়াড় হবেন মালিঙ্গা : ভাস
.............................................................................................
ভারতের বিপক্ষে পাকিস্তান সুবিধাজনক অবস্থানে
.............................................................................................
এবার সৌম্য-জহুরুল জুটিতে বিশ্বরেকর্ড
.............................................................................................
বিশ্বকাপ প্রস্তুতি শুরু করলেন তামিম-মুশফিকরা
.............................................................................................
নেইমারের ফেরার ম্যাচে এমবাপের হ্যাটট্রিক
.............................................................................................
বেনজেমার হ্যাটট্রিকে বিলবাওকে ৩-০ গোলে হারাল রিয়াল
.............................................................................................

|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
স্বাধীন বাংলা মো. খয়রুল ইসলাম চৌধুরী কর্তৃক সম্পাদিত ও ঢাকা-১০০০ হতে প্রকাশিত
প্রধান উপদেষ্টা: ফিরোজ আহমেদ (সাবেক সচিব, বাণিজ্য মন্ত্রণালয়)
উপদেষ্টা: আজাদ কবির
সম্পাদক মন্ডলীর সভাপতি: ডাঃ হারুনুর রশীদ
সম্পাদক মন্ডলীর সহ-সভাপতি: মামুনুর রশীদ
ব্যবস্থাপনা সম্পাদক : মো: খায়রুজ্জামান
যুগ্ম সম্পাদক: জুবায়ের আহমদ
বার্তা সম্পাদক: মুজিবুর রহমান ডালিম
স্পেশাল করাসপনডেন্ট : মো: শরিফুল ইসলাম রানা
যুক্তরাজ্য প্রতিনিধি: জুবের আহমদ
যোগাযোগ করুন: swadhinbangla24@gmail.com
    2015 @ All Right Reserved By swadhinbangla.com

Developed By: Dynamicsolution IT [01686797756]